English ভিডিও গ্যালারি ফটো গ্যালারি ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১
 / সারাদেশ / রঙ্গিন আম ‘বারি-১৪’ দেশের ফল ভাণ্ডারের নতুন সংযোজন
রঙ্গিন আম ‘বারি-১৪’ দেশের ফল ভাণ্ডারের নতুন সংযোজন
রাজশাহী সংবাদদাতা:
প্রকাশ: রোববার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১:০৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

রঙ্গিন আম ‘বারি-১৪’ দেশের ফল ভাণ্ডারের নতুন সংযোজন

রঙ্গিন আম ‘বারি-১৪’ দেশের ফল ভাণ্ডারের নতুন সংযোজন

রাজশাহীর আম বলে কথা, সুখ্যাতি তার জগৎ জুড়েই। ছোট-বড় কার না পছন্দ আম? এক কথায় বলতে গেলে সবারই।

টসটসে রসে ভরা মিষ্টি আম! বাহারি নাম আর স্বাদের আম। প্রায় আড়াইশ’ জাতের আম উৎপাদন হয় এ অঞ্চলে। আর বাংলাদেশে যতগুলো আম উৎপাদিত হয় তার বেশিরভাগই এই অঞ্চলের। বলা হয়ে থাকে এখানকার মাটির গঠন এবং আবহাওয়া আম চাষের জন্য সর্বোৎকৃষ্ট। পৌষ মাসের শেষে অর্থাৎ মাঘ মাসের শুরুতে শীতোষ্ণ আবহাওয়ায় প্রতিবছর আমের মুকুল আসে রাজশাহীতে। এরপর পরই আসে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। গাছে গাছে আমের স্বার্ণালি মুকুলের শোভা ছাড়ানো দৃশ্য যেন শ্রেষ্ঠ প্রাকৃতিক দৃশ্যে রূপ নেয়।

আর এবার আমের রকমারি জাতের এই বহর আরও সমৃদ্ধ হতে চলেছে। কারণ, একটি রঙ্গিন আম জাতীয় বীজ বোর্ড থেকে নিবন্ধন পেয়েছে। এই রঙ্গিন আমটির নামকরণ করা হয়েছে ‘বারি আম-১৪’। তবে রঙ্গিন আম এর আগেও নিবন্ধন পেয়েছে। নতুন নিবন্ধন পাওয়া জাতটি এসেছে সৌদি আরব থেকে।

রাজশাহী ফল গবেষণাকেন্দ্র নতুন এই আমের জাতটি নিয়ে দীর্ঘসময় গবেষণা চালিয়ে আসছিল। সম্প্রতি আমটি নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা হয়েছিল। অবশেষে নিবন্ধন পেল উদ্ভাবিত নতুন রঙ্গিন আম ‘বারি-১৪’।

সৌদি আরব গিয়েছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ ফল গবেষণাকেন্দ্রের প্রাক্তন প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা গোলাম মর্তুজা। সেখানে তিনি আম নিয়েই গবেষণার কাজ করতেন। ‘টমিএটকিনস’ জাতের আম গাছের সায়ন (ডাল) সংগ্রহ করে ২০১০ সালে তিনি তা দেশে আনেন। ওই সময় তিনি এটি রাজশাহী ফল গবেষণাকেন্দ্রে দেন। এরপর ১০টি গাছে তার কলম তৈরির পর গবেষণা চলতে থাকে।

এরপর দেখা যায়, প্রতি বছরের জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে এই রঙ্গিন আমটি পাকে। আমটি পাকার আগে গাঢ় মেরুন আভা ধারণ করে। আমের গড় ওজন হয় প্রায় ৫৫০ গ্রাম। আঁটি বাদে এই আমের ৭৫ দশমিক ৩৫ শতাংশ  খাওয়ার উপযোগী। আমের গড় মিষ্টতা (টিএসএস) ২২ দশমিক ৮৩ শতাংশ। আমটি লম্বায় ১০ দশমিক ৮৩ সেন্টিমিটার ও প্রস্থ ৮ দশমিক ৪৯ সেন্টিমিটার। খোসা পাতলা ও মাংসল। নিবন্ধন পাওয়া জাতটির ধরণ ‘ইনব্রিড’। গবেষণায় সফলতা আসার পর এর নাম দেওয়া হয় ‘বারি-১৪’। এরপর নিবন্ধনের জন্য জাতীয় বীজ বোর্ডে আবেদন করা হয়।

রাজশাহী ফল গবেষণাকেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলীম উদ্দীন জানান, গবেষণা পর্যায়ে প্রথমে ১০টি গাছে কলম করা হয়েছিল। তবে এর মধ্যে ৯টি গাছই মরে যায়। পরম যত্নে কেবল একটি গাছকে বাঁচিয়ে রাখা যায়। সেখান থেকে এখন আরও চারটি মাতৃগাছ তৈরি করা হয়েছে। গত ১০ বছর ধরে গবেষণা করা হয়েছে। তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়েছে। আর প্রায় প্রতিবছরই গাছ থেকে রঙ্গিন সুমিষ্টজাতের এই আম পাওয়া গেছে।

মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলীম উদ্দীন বলেন, এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে ফলের জগতে আরও একটি নতুন জাতের ফল সংযোজন হলো। এটি হচ্ছে, রঙ্গিন আমের জাত ‘বারি আম-১৪’। এছাড়াও আরও একটি নতুন ফলও নিবন্ধন পেয়েছে। তার নাম ফলসা। এটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘বারি ফলসা-১’। আর এই দুটি ফলই অনুমোদন পেয়েছে।

এই উদ্ভাবন ও স্বীকৃতি রাজশাহী ফল গবেষণাকেন্দ্রে তাদের দীর্ঘদিনের গবেষণার ফসল। যা গবেষণার গতিকে আরও ত্বরান্বিত করবে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর এই বছরে এমন অর্জন তাদের কাছে অত্যন্ত আনন্দের। এই নিয়ে রাজশাহী ফল গবেষণাকেন্দ্র থেকে মোট নয়টি ফলের জাত উদ্ভাবিত হলো বলেও উল্লেখ করেন ড. আলিম উদ্দিন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ফলসাটি ছিল রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রেই। এটি অপ্রচলিত দেশী ফল। রাজশাহী ফল গবেষণাকেন্দ্রে প্রায় ২০ বছর বয়সী একটি ফলসা ফলের গাছ আছে। আকারে ছোট টক-মিষ্টি স্বাদের এই ফলটি শিশুরা খুবই পছন্দ করে। ফলটি ভিটামিন আর মিনারেলে ভরপুর।

গত ১০ বছর ধরে নতুন আমের সঙ্গে এই ফলটিরও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়। তারপরই নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা হয়। নিবন্ধন পাওয়া ফলসাও ‘ইনব্রিড’।

প্রতিবছরের মে-জুন মাসে ফলসা ফলটি গাছে পেকে খাবার জন্য উপযোগী হয়ে ওঠে। তখন এর রঙ হয়ে ওঠে কাল বা বেগুনি। ফল হয় পাঁচ থেকে ১২ মিলিমিটার ব্যাসবিশিষ্ট। নতুন এই ফলসা এবং রঙ্গিন আম সারাদেশে চাষ করা সম্ভব। গত ৩১ ডিসেম্বর কৃষি মন্ত্রণালয়ের বীজ অনুবিভাগের মহাপরিচালক ও জাতীয় বীজ বোর্ডের সচিব নতুন এই আম ও ফলসার নিবন্ধন দেন। ১৭ জানুয়ারি রাজশাহী ফল গবেষণাকেন্দ্রে এগুলোর নিবন্ধনপত্র আসে।

ড. আলীম উদ্দীন আরও জানান, আম ও ফলসার নিবন্ধন পাওয়ায় তারা এখন আরও বেশি বেশি চারা উৎপাদন করবেন। এরপর সরকারি নার্সারিগুলোতে দেবেন। তবে রঙ্গিন আমের চারা এখন চাষিপর্যায়ে খুব বেশি দেওয়া সম্ভব না হলেও আগ্রহীদের অন্তত একটি করে তারা দেবেন।

এছাড়া ব্যক্তিমালিকানাধীন নার্সারিগুলোতেও দু’-একটি করে নতুন ফল দুটির চারা দেওয়া হবে। এর মধ্যে দিয়েই জাত দুটি এক সময় সারাদেশে ছড়িয়ে পড়বে বলেও প্রত্যাশা ও ফল দুইটির অপার সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন রাজশাহীর এই ফল বিজ্ঞানী।




সর্বশেষ খবর
সোনার বাংলা সবুজ করার লক্ষ্যে বৃক্ষরোপণ অভিযান : পরিবেশ ও বন মন্ত্রী
এবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আলটিমেটাম
বিক্ষোভ থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ শিক্ষার্থী আটক
২৬ মার্চ থেকে চলবে ঢাকা-জলপাইগুড়ি ট্রেন
রাজধানীতে মাদকদ্রব্যসহ গ্রেফতার ৫১
দুই ভাইয়ের ৭০৬ বিঘা সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ
সোনারগাঁওয়ে দিনে দুপুরে চুরি, গ্রেফতার ২
সর্বাধিক পঠিত
রিচের সাজাপ্রাপ্ত দুই হোতা কারাগারে
সংবাদ প্রকাশ করায় হত্যা মামলার আসামী হলো সাংবাদিক
ঐতিহাসিক রায় : স্ত্রীকে ঘরের কাজের জন্য দিতে হবে বেতন
‘বনবন্ধু’ পরিচয় দিয়ে মুজিববর্ষে বৃক্ষরোপণের নামে প্রতারণা
সরকারি অফিসে ঢুকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা
পরকীয়ার জেরে স্বামীকে হত্যা, ৯ মাস পর তোলা হলো লাশ
মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নারীর নিথর দেহ
আরও দেখুন...


Copyright © 1962-2019
All rights reserved
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর: মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : রেড ক্রিসেন্ট বোরাক টাওয়ার, লেভেল-৫, ইস্কাটন গার্ডেন রোড, রমনা, ঢাকা-১০০০।
ফোনঃ +৮৮-০২-, ৫৫১৩৮৫০১, ৫৫১৩৮৫০২, ৫৫১৩৮৫০৩, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫১৩৮৫০৪, ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]
Website: http://www.dainikbangla.com.bd, Developed by i2soft
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর: মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : রেড ক্রিসেন্ট বোরাক টাওয়ার, লেভেল-৫, ইস্কাটন গার্ডেন রোড, রমনা, ঢাকা-১০০০।
ফোনঃ +৮৮-০২-, ৫৫১৩৮৫০১, ৫৫১৩৮৫০২, ৫৫১৩৮৫০৩, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫১৩৮৫০৪, ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]