English ভিডিও গ্যালারি ফটো গ্যালারি ই-পেপার সোমবার ১ মার্চ ২০২১ ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার সোমবার ১ মার্চ ২০২১
 / অপরাধ / রিচের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামিদের জমকালো অনুষ্ঠান
রিচের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামিদের জমকালো অনুষ্ঠান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: শনিবার, ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৪:২২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

রিচের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামিদের জমকালো অনুষ্ঠান

রিচের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামিদের জমকালো অনুষ্ঠান

সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামী হয়েও প্রকাশ্যে তারা কি করে দিবালোকে কক্সবাজার ফাইভ স্টার হোটেল বেস্ট ওয়েস্টার্ন হেরিটেজ জমকালো অনুষ্ঠান করে বেড়াচ্ছে।স্পষ্ট যে গত ২০০৮ থেকে ২০১৫ সাল পযন্ত  রিচ্ আই বাজার,রিচ শেয়ার বাজার,রিচ প্রোপাইটিজ নামে সাধারণ জনগনের কাজ থেকে, পাঁচ বছরের দিগুণ ও সাত বছরে তিন গুণ  প্রলোভন দেখিয়ে  লাখ লাখ জনগনের কাজ থেকে একশত পঞ্চাস টাকার  স্টাম্প এর মাধ্যমে হাজার হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে রিচ্ বিজনেস সিস্টেম লিঃ কোম্পানির প্রতারক মালিক ও কমকর্তারা।  রিচ্ বন্ধ করে নতুন করে প্রয়োজন মিটাই  ও রয়্যাল গুডস’ নামক নতুন কোম্পানি করে আবারও ডিলার শিপ নাম দিয়ে প্রতারনার ফাঁদ পেতেছে।ঠিক আগের মতোই নিত্য নতুন নামে তারা নানা রকম ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। যেখানে তাদের কর্মকান্ড ফাঁস হয়ে যাচ্ছে সেখান থেকে সরে যাচ্ছে।এর মধ্যে নিঃস্ব  হয়ে যাচ্ছে সহজ সরল মানুষগুলো।তাদের কাছে প্রতারিত বিনিয়োগ কারি গ্রাহক ও সাধারণ মানুষ এই ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। গত ২৬/০১/ ২১ তারিখ থেকে ২৮/০১/২১ তারিখ পর্যন্ত  তিনদিন ব্যাপী কক্সবাজারের ৫ স্টার হোটেল বেস্ট ওয়েস্টার্ন হেরিটেজ তাদের ব্যবসায়িক ফাঁদের এই আসর বসে।সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামী হয়েও প্রকাশ্যে তারা কি করে অনুষ্ঠান করে বেড়াচ্ছে।

রিচের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামিদের জমকালো অনুষ্ঠান

রিচের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামিদের জমকালো অনুষ্ঠান

নতুন স্টাম্প দলিল দেখিয়ে পোস্ট  দিচ্ছেন।স্পষ্ট যে।দলিল হাতে থাকা মানুষ গুলোর মধ্যে তারা নতুন করে আবার প্রতারনার ঝাল বিস্তার করেছে প্রতারক মালিক ও কমকর্তারা। যে কোন সময় তাদের অর্থকড়ি নিয়ে নানা প্যাচে ফেলে সটকে পড়বে রিচের এই প্রতারক মালিক ও কমকর্তারা।প্রায় ৩৮(আটএিশ) টা মামলায় মধ্যে ১২ (বারো)টা মামলায় সাজা হয়েছে রিচ বিজনেস এর মালিক ও কমকর্তাদের। সাজা প্রাপ্ত ফেরারি আসামী বিরুদ্ধে বিভিন্ন জায়গায় করা মামলা গুলোর মধ্যে সি,আর ৫৬৮/১৯ (রমনা) ঢাকা, সি,আর ১৫৫/১৮ চাঁদপুর, সিআর ৫৩/১৭ চট্টগ্রাম , সি,আর ৩৪৬/১৮ চাঁদপুর, সি,আর ৩৪৭/১৮ চাঁদপুর, সি,আর ১৮৪/১৭ চাঁদপুর, সিআর ২৯২/১৯ চাঁদপুর, সি,আর ৯০৫/১০ চট্টগ্রাম ,সি, আর ২২৭/১৭ চট্টগ্রাম ,সি,আর ২১৯/১৮ চাঁদপুর,সি,আর ১৮২/১৭,চাঁদপুর,সি,আর ১৮৬/১৭ চাঁদপুর,সি,আর ১৭৯/১৭,চাঁদপুর,সি,আর ১৮০/১৭,সি,আর ১৮৫/১৭, সি,আর ২৪৭/১৯ কক্সবাজার ,সি,আর ২১০/১৯ কক্সবাজার, সি,আর ৫৬৮/১৯ রমনা ঢাকা এস,সি ৫২০/১৮ চাঁদপুর,এস,সি ৩৬২/১৮ চাঁদপুর,এস,সি ৩৬১/১৮ চাঁদপুর,এস,সি ৫২১/১৮ চাঁদপুর। এছাড়া অন্য মামলা গুলো দেশের বিভিন্ন জায়গায় দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলা চলমান আছে। যেকোন সময় সাজা হতে পারে। 
তবে এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে কয়েকজন মামলার বাদি ও ভুক্তভোগী মোঃ ছলিম উল্ল্যাহ (অপু),মিসেস শাহানাজ বেগম,মোঃজুলফিকার আলী খান,মোহাম্মদ রুমন,মোঃনজরুল ইসলাম,মোঃজাকির হোসেন , মোঃ মিজানুর রহমান সরকার,মোঃ মাইন উদদীন সরকার,মোঃইয়াছিন প্রধান,মোঃকাজী গোলাম মোস্তাফা,মোঃ নুরুল আমিন, মোঃমাসুম বিল্লাহ সহ মামলার বাদিরা আক্ষেপ করে বলে জানিয়েছেন, সাজা হলে কি হবে তাদের তো কিছুই হচ্ছে না। সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামী হয়েও প্রকাশ্যে তারা কি করে অনুষ্ঠান করে বেড়াচ্ছে। ঠিক আগের মতোই নিত্য নতুন নামে তারা নানা রকম ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

জানা যায়, রিচ বিজনেস সিস্টেম ‘প্রয়োজন মিটাই  ও রয়্যাল গুডস’ নামক নতুন কোম্পানি  খুলে নতুন করে আবারও ডিলার শিপ নাম দিয়ে প্রতারনার ফাঁদ পেতেছে। লাখ লাখ গ্রাহকের টাকা দিয়ে ‘স্বাধীন পরিবহন, স্বাধীন রেস্টুরেন্ট’সহ চাঁদগাও চট্টগ্রামে গোপনে কারখানায় খোলে নামে বেনামে আরো প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে প্রতারক মালিক ও কমকর্তারা।রিচের লাখ লাখ বিনিয়োগ কারি মধ্যে মোঃ ফিরোজুল ইসলাম ফিরোজ,সামিয়া ইসলাম, মোঃ আবদুর রহমান, মোঃ নুরুল আমিন,মোঃ ওমর শরিফ,মোঃ রায়হানুল হক,মোঃ মাহফুজুর রহমান,মোঃ সোহানুর রহমান হারুন,মোঃ মনির হোসেন সবুজ,মোঃ তরিকুল ইসলাম (সুমন),মোঃ মতিউল ইসলাম ভুঁইয়া ,মোঃ রিদওয়ানুল করিম, মোঃ রফিকুল ইসলাম, তারেকা আক্তার, রহিমা খাতুন, মোঃ গোলাম কবীর কাজল,মোঃ মনিরুজ্জামান, মোঃ এ এস এম মফিদুল ইসলাম, মোঃ শাহিদ আলী নামে গ্রাহকরা মাল্টিলেভেল নেটওয়াক মার্কেটিং আইনে ‘রিচ বিজনেস সিস্টেম, প্রয়োজন মিটাই ও রয়্যাল গুডস লিঃ’ এর বিরুদ্ধে আরো কয়েকটি  মামলা করার জন্য পদক্ষেপ নিয়েছে। রিচের মালিক ও কমকর্তার বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে সব মিলিয়ে ৩৮(আটএিশ) মামলা হয়েছে। তার মধ্যে ১২(বারো) টা মামলায় সাজা হয়েছে। সাজা প্রাপ্ত মামলা গুলো সি,আর ৩৪৬/১৮ চাঁদপুর,সি, আর ৩৪৭/১৮ চাঁদপুর, সি,আর ৫২০/১৮ চাঁদপুর,সি, আর ৫২১/১৮ চাঁদপুর, সি, আর ৩৬১/১৮ চাঁদপুর,সি,আর ৩৬২/১৮ চাদপুর, সি, আর ১৮৪/১৭ চাঁদপুর, সি,আর ২২৭/১৮ চাঁদপুর, সি,আর ২৯২/১৯ চাঁদপুর,সি,আর ২১৯৪/১৮ দিনাজপুর, ২৪৭/১৯ কক্স বাজার,সি,আর ৫৬৮/১৯ রমনা ঢাকা । এই সব মামলায় ২৪ (চব্বিশ ) বছরের সাজা প্রাপ্ত হয় তাদের। বাকি মামলাগুলো রায়ের জন্য অপেক্ষায় আছে। তাদের বিরুদ্ধে ঢাকায়, চট্টগ্রাম, চাঁদপুর,দিনাজপুর,রংপুর, ফেনী, নোয়াখালী, কক্সবাজার, সাতক্ষীরা আদালতে মামলা হয়।  তারপরে তারা কিভাবে কক্সবাজার বেস্ট ওয়েস্টার্ন হেরিটেজ হোটেলে জমকালো অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে এই প্রশ্ন এখন সর্বত্র। এদিকে স্থানীয় প্রশাসন বলছে তাদেরকে খুঁজে পাচ্ছে না।

এর আগে রিচ বিজনেস সিস্টেমের ফিন্যান্স ডিরেক্টর হারুন অর রশিদকে প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে।গত ৪ ডিসেম্বর আনোয়ারা এলাকা থেকে চট্রগ্রামের আনোয়ারা থানা পুলিশ তাকে ৭ (সাত) মামলায় গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পর তাকে  আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। কারাগারে পাঠানোর পর পাঁচলাইশ থানায় ও চাঁদপুর করা আরো ৯ টা মামলায় শোন এরেস্ট দেখানোর জন্য আবেদন করা হয়েছিল। ঢাকায় ও নোয়াখালী, চাঁদপুর,চট্টগ্রামের মামলায় চলমান।১২ (বারো) টা মামলায় ২৪(চব্বিশ) বছরের জেল হয়েছিল তার। তবে গ্রাহকদের প্রায় ১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করার পর স্বস্তির খবর কেবল এতটুকুই। এছাড়া রিচ বিজনেস কর্মকর্তাদের দমন করার মতো আর কোন ভালো খবর নেই।
একই মামলার আসামী প্রতিষ্ঠানটির পলাতক ও ফেরারি আসামি এম ডি হোসেন মোহাম্মদ হেলাল,মোহাম্মদ সাইদুজজামান তুষার, লোকমান উদ্দিন রোমান  সহ অন্যান্য আসামি এখনো প্রকাশে ব্যাবসায় পরিচালিত হচ্ছে। বর্তমানে তারা আরো ফুঁলেফেঁপে উঠছে। ব্যবসা নামক প্রতারনা জাল বিস্তার করেছে আরো বড় আকারে। তারা গড়ে তুলেছে প্রয়োজন মিটাই,রয়্যাল গুডস,স্বাধীন রেস্টুরেন্ট, স্বাধীন ট্রাভেলস গাড়ী ব্যবসা ও কারখানায় নামে বেনামে প্রতিষ্ঠান।

এ বিষয়ে মামলার বাদী ছলিম উল্ল্যাহ (অপু),শাহানাজ বেগম,জুলফিকার আলি খান,মোহামমদ রুমন,নজরুল ইসলাম,জাকির হোসেন , মিজানুর রহমান সরকার, মাইন উদদীন সরকার,ইয়াছিন প্রধান,কাজী গোলাম মোস্তাফা, মাসুম বিল্লাহ সহ মামলার বাদিরা আক্ষেপ করে বলেন তাদের বিরুদ্ধে মোট ৩৭ টা মামলা আছে। সাজাপ্রাপ্ত আসামি হয়ে ও কি ভাবে পুলিশের নাকের ডগায় চট্টগ্রাম পুলিশ ক্লাব রেক্স রেস্টুরেন্টে ও কক্সবাজার বেস্ট ওয়েস্টার্ন হেরিটেজ তারা কি ভাবে প্রোগ্রাম করে।

সংঘবন্ধ এই চক্রের বিরুদ্ধে প্রতারনার শিকার হওয়া  গ্রাহকরা অর্থ আর্তসাত ও প্রতারনার অভিযোগ এনে আনোয়ারা থানায় ৭(সাত)টা,চট্টগ্রাম পাচলাইশ থানায় ১৫(পনেরো)টা,চাঁদপুর থানায় ১৭ (সতেরো) টা  রাজধানীর ঢাকায় রমনা ২(দুই) টা ও নোয়াখালীতে ১(এক)টা, দিনাজপুর ১(এক) টামামলা করে। মামলায় আটক হারুন অর রশিদকে ২(দুই) নম্বরে অভিযুক্ত করা হয়। 
জানা যায়, রিচ বিজনেস সিস্টেমের বিরুদ্ধে দেশের নানা জায়গায় প্রতারিত হওয়া গ্রাহকরা মামলা করার পর তারা নতুন এ কৌশল গ্রহণ করেছে।  গ্রাহকদের প্রায় হাজার  হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করার ভয়ানক অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

এসব অভিযোগে গত বছরের ২৫ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর (সিএমএম) আদালতে প্রতিষ্ঠান ও শীর্ষ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ছলিম উল্যাহ (অপু)। মামলায় আসামি করা হয়েছে রিচ বিজনেস সিস্টেম লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাইদুজ্জামান তুষার, ম্যানেজিং ডিরেক্টর হোসেন মোহাম্মদ হেলাল, ফিন্যান্স ডিরেক্টর হারুন অর রশিদ, মার্কেটিং ডিরেক্টর লোকমান উদ্দিন রোমানকে। এছাড়া সারাদেশ থেকে শতকোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে রিচ বিজনেসের ডিরেক্টর মো. জাহাঙ্গীর আলম (চট্টগ্রাম, মুরাদপুর)। ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ এ এন এম মাসুম (হাজীগঞ্জ), মাজহারুল ইসলাম রুবেল (কুমিল্লা), প্রতারক লিডার শহিদুল ইসলাম বাবুলের (সাতকানিয়া) বিরুদ্ধে। ভুক্তভোগীরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনাসহ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবসা নেয়ার জন্য জোর দাবি জানিয়েছেন। তখন তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে ছিলের ঢাকার সিএমএম আদালত। কিন্তু তাদের কাউকেই গ্রেফতার করা যায়নি।জানা গেছে নতুন করে ৬ (ছয়)নাম্বার আসামি শহিদুল ইসলাম (বাবুল)(সাতকানিয়া)অবৈধ ওষুধের কারখানায় খুলে প্রতারনা করে আসতেছে ও ৭(সাত) নাম্বার আসামি এ এন এম মাসুম (হাজীগঞ্জ) ফেয়ার বাজার লিঃ নামে নতুন করে প্রতারনা শুরু করেছে সাধারণ জনগনের সাথে, রিচ বিজনেস বর্তমানে প্রয়োজন মিটাই ডটকম ও রয়্যাল গুডস লিমিটেড নামেই পরিচালিত হচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠান মাল্টিলেভেল মার্কেটিং ব্যবসার নামে সারাদেশে ফাঁদ পেতে বসেছে। কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে যুবক ও তরুণদের সর্বস্বান্ত করে দিচ্ছে। শতকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে কোম্পানির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে ৩৮(আটএিশ) জন গ্রাহক মামলা করেছেন। দেশের বিভিন্ন এলাকায় তাদের বিরুদ্ধে ফুঁঁসে উঠেছে সাধারণ মানুষ। এরপরও প্রতিষ্ঠানটি এখনো বহাল তবিয়তে। 

জানা গেছে, রিচ বিজনেস দীর্ঘদিন চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানার পূর্ব নাছিরাবাদের জিনাত সেন্টারের ৫ম তলায় অবস্থিত কার্যালয় থেকে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। সাধারণ মানুষের রোষানলে পড়ে ভবন মালিককে অনেক মাসের ভাড়া না দিয়েই তারা বর্তমানে অন্যত্র সটকে পড়েছে। 
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রিচ বিজনেস বর্তমানে মুরাদপুর এলাকার নাছিরাবাদ হাউজিং সোসাইটির চৌধুরী সেন্টারের ষষ্ঠ তলায় নতুন অফিস নিয়ে গোপনে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। কোম্পানির ঢাকার অফিসেরও একই অবস্থা। দীর্ঘদিন মালিবাগের শাহজালাল টাওয়ার ৪র্থ তলা কার্যালয় থাকলেও ছলিম উল্যাহ অপু কোম্পানি ও তাদের বিরুদ্ধে মামলা করার পর এখন কার্যালয়ে তালা ঝুলতে দেখা যায়।




সর্বশেষ খবর
নিজ ঘরেই মিলল মাদ্রাসাশিক্ষকের হাত-পা বাঁধা লাশ
বিমা খাত ডিজিটাল করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
২০২৪ সালে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন ট্রাম্প
গভীর রাতে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে বাড়িকে ঢুকে হত্যা
পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে ছাড়িয়ে গেল বাংলাদেশ
নিখোঁজের ৬ দিন পর পুকুরে মিললো রিকশাচালকের লাশ
১৩ উইকেট নিয়ে তানভীর যা বললেন
সর্বাধিক পঠিত
বিয়ে পর বিয়ে এবং তালাক দেয়াই তার কাজ
যুক্তরাষ্ট্রে করোনা তহবিল পাস: লাভবান হবেন ১০ লাখ বাংলাদেশি
আগামীতে ইউপি নির্বাচনে আর অংশ নেবে না বিএনপি : ফখরুল
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ছাত্র ফেডারেশনের ‘বৃদ্ধাঙ্গুলি’
প্রেসক্লাবের সামনে পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ : সাংবাদিকসহ আহত ৩৫
জিয়াকে জাতির পিতা বলায় তারেকের বিরুদ্ধে মামলা
আগামী ৩০ মার্চ দেশের সব স্কুল-কলেজ খুলবে
আরও দেখুন...


Copyright © 1962-2019
All rights reserved
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর: মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : রেড ক্রিসেন্ট বোরাক টাওয়ার, লেভেল-৫, ইস্কাটন গার্ডেন রোড, রমনা, ঢাকা-১০০০।
ফোনঃ +৮৮-০২-, ৫৫১৩৮৫০১, ৫৫১৩৮৫০২, ৫৫১৩৮৫০৩, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫১৩৮৫০৪, ই-মেইল : md[email protected], [email protected], [email protected]
Website: http://www.dainikbangla.com.bd, Developed by i2soft
সম্পাদক, প্রকাশক ও মুদ্রাকর: মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : রেড ক্রিসেন্ট বোরাক টাওয়ার, লেভেল-৫, ইস্কাটন গার্ডেন রোড, রমনা, ঢাকা-১০০০।
ফোনঃ +৮৮-০২-, ৫৫১৩৮৫০১, ৫৫১৩৮৫০২, ৫৫১৩৮৫০৩, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৫৫১৩৮৫০৪, ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]