ENGLISH
ফটোগ্যালারি
ভিডিও গ্যালারি
শিরোনাম :
বুদ্ধিজীবী দিবসে রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা      আকায়েদের আত্মীয়-স্বজনের যোগসাজশের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে       বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধির গেজেট নিয়ে আদেশ ২ জানুয়ারি      ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের স্বীকৃতি উদযাপন করল সেনাবাহিনী      দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর      ২৫ বছরের রিপাবলিকান দুর্গে ডেমোক্র্যাটদের আঘাত      ‘আন্দোলন ছাড়াই দমন-নিপীড়ন চালাচ্ছে সরকার’      
সখিপুরের ইউএনও-ওসির বিষয়ে আদেশ ১৮ অক্টোবর
Published : Tuesday, 27 September, 2016
সখিপুরের ইউএনও-ওসির বিষয়ে আদেশ ১৮ অক্টোবর নিজস্ব প্রতিবেদক : ভ্রাম্যমাণ আদালতে এক স্কুলছাত্রকে দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়ায় টাঙ্গাইল জেলার সখিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাকসুদুল আলমের বিষয়ে আগামী ১৮ অক্টোবর আদেশ দেবেন হাইকোর্ট।
দু’জনের উপস্থিতিতে মঙ্গলবার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আশীষ রঞ্জন দাসের দ্বৈত বেঞ্চে এ ব্যাপারে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এ দিন দণ্ড দেওয়ার ব্যাপারে ইউএনও ও ওসি তাদের ব্যাখ্যা দেন। অপরদিকে স্কুলছাত্র নিজের ওপর করা নির্যাতনের বর্ণনা দেন। শুনানি শেষে আদালত আদেশের এই দিন ধার্য্য করেন।
ইউএনওর পে আইনজীবী শ. ম. রেজাউল করিম ও ওসির পে নুরুল ইসলাম সুজন এমপি শুনানি করেন।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্থানীয় সংসদ সদস্য অনুপম শাজাহান জয়ের ব্যাপারে অবমাননাকর মন্তব্য করায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দায়িত্ব পালনকারী ইউএনও এই দণ্ড দেন। এ সংক্রান্ত ২০ সেপ্টেম্বর প্রতিবেদন একটি ইংরেজি দৈনিকে প্রকাশিত হয়।
সেই পত্রিকার কপি আইনজীবী খুরশীদ আলম খান আদালতের নজরে আনেন। এরপর হাইকোর্টের একই বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে তাদের ২৭ সেপ্টেম্বর উপস্থিত হয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলেন। ওইদিনই কারাদণ্ডপ্রাপ্ত স্কুল শিার্থীকে আদালত জামিনে মুক্তির নির্দেশও দেন।
পত্রিকার প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, টাঙ্গাইলের সখিপুরে প্রতিমা বঙ্কি পাবলিক হাইস্কুলের শিার্থী সাব্বির শিকদারকে গত ১৭ সেপ্টেম্বর ইউএনও রফিকুল ইসলাম ভ্রাম্যমাণ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে দুই বছরের কারাদণ্ড দেন। সাব্বির প্রতিমা বঙ্কি গ্রামের বাসিন্দা শাহিনুর আলমের ছেলে।
এতে আরও উল্লেখ করা হয়, এর আগের দিন টাঙ্গাইল-৮ বাসাইল-সখিপুর আসনের সংসদ সদস্য অনুপম শাজাহান জয় ওই বালকের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করেন। দণ্ডের পর ১৯ সেপ্টেম্বর ওই বালককে জেলা কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ‘নবম শ্রেণী পড়ুয়া’ ওই ছেলেটি ফেসবুকে সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে অবমাননাকর স্ট্যাটাস দিয়েছেন বলে ওই ম্যাজিস্ট্রেট জানান। ওই বালকের বয়স ১৯ বছর বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
প্রতিবেদনে ওসি জিডির বরাত দিয়ে বলেন, ওই ছেলে সংসদ সদস্য অনুপম শাহজাহানকে মেসেঞ্জারে হুমকি দেয় যে, ‘আপনার সময় ফুরিয়ে আসছে’। আর ম্যাজিস্ট্রেট সূত্রে উল্লেখ করা হয়, তাকে তথ্য প্রযুক্তি আইনে এই দণ্ড দেওয়া হয়েছে। তবে আইনের কোন ধারায় দণ্ড দেওয়া হয়েছে তা তিনি উল্লেখ করেননি।





সম্পাদক ও প্রকাশক: মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৪৫/৩/এ, বীর উত্তম সি.আর.দত্ত রোড (ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, সোনারগাঁও রোড), হাতির পুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫,বাংলাদেশ।
ফোনঃ +৮৮-০২-৯৬৬৬৬৮৫, ৯৬৭৫৮৮৫, ৯৬৬৪৮৮২-৩, ফ্যাক্সঃ +৮৮-০২-৯৬১১৬০৪, হটলাইন : +৮৮০-১৯২৬৬৬৭০০২-৩
ই-মেইল : mdainikbangla@gmail.com, editordainikbangla@gmail.com, web : www.dainikbangla.com.bd