সোমবার, অক্টোবর ৩, ২০২২

দাম বাড়িয়ে ধরা ইউনিলিভার-কাজী ফার্মস-সিটি গ্রুপ

দাম বাড়িয়ে ধরা ইউনিলিভার-কাজী ফার্মস-সিটি গ্রুপ
পণ্যের দাম বাড়িয়ে ধরায় ইউনিলিভার, সিটি গ্রুপ, কাজী ফার্মস, প্যারাগন গ্রুপসহ ১১ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার। ছবি: দৈনিক বাংলা
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত
  • দেশীয়-বহুজাতিক ১১ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার

  • মামলার প্রস্তুতি আরও ২৭টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে

অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির অভিযোগে বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান ইউনিলিভার, কাজী ফার্মস, সিটি গ্রুপসহ ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন। বাজারে চাল, আটা-ময়দা, ডিম, মুরগির মাংস ও টয়লেট্রিজ পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি এবং কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে অস্থিরতা তৈরির অভিযোগে এ সব ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কমিশন।

প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারম্যান মফিজুল ইসলাম বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘আইন অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাজারের সুষ্ঠু প্রতিযোগিতার নিয়ম ভেঙে চাল, আটা, ডিম, ব্রয়লার মুরগি, সাবান, ডিটারজেন্টসহ অস্বাভাবিকভাবে বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়িয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এ জন্য মামলা করা হয়েছে। আগামী সোমবার থেকে এসব কোম্পানির বিরুদ্ধে শুনানি শুরু হবে।’

চালের বাজারে সংকট সৃষ্টির অভিযোগ আনা হয়েছে রশিদ অ্যাগ্রো ফুড প্রোডাক্ট লিমিটেডের স্বত্বাধিকারী আব্দুর রশিদ ও নওগাঁর বেলকন গ্রুপের বেলকন প্রাইভেট লিমিটেডের স্বত্বাধিকারী বেলাল হোসেনের বিরুদ্ধে।

দুই করপোরেট প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সিটি গ্রুপ ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে আটা-ময়দার সংকট তৈরির অভিযোগে। বাংলাদেশ এডিবল অয়েল লিমিটেডের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে তেলের বাজারে সংকট তৈরির অভিযোগে।

ডিমের সংকট তৈরি করে দাম বাড়ানোর অভিযোগ আনা হয়েছে প্যারাগন পোলট্রি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ডিম ব্যবসায়ী-আড়তদার বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি আমানত উল্লাহ্, কাজী ফার্মস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী জাহেদুল ইসলামের বিরুদ্ধে।

মুরগির বাজারে সংকট সৃষ্টির অভিযোগও আনা হয়েছে প্যারাগন পোলট্রি ও কাজী ফার্মসের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের নামে। এ জন্য তাদের বিরুদ্ধে আলাদা মামলা হয়েছে। ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে সাবান, সুগন্ধী সাবান ও গুঁড়া সাবানের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি বা কৃত্রিম সংকটের অভিযোগ এনে।

কমিশনের সচিব আবদুস সবুর দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘গত বুধবার বিভিন্ন অভিযোগে চাল, আটা, মুরগির মাংস, ডিমসহ বিভিন্ন পণ্যের উৎপাদন ও বাজারজাতকারী ১১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আইন অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ভোক্তাদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘ভোক্তাদের স্বার্থে প্রতিযোগিতা কমিশন তো এত দিন কিছুই করেনি। এই প্রথম কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করল। এখন দেখতে হবে, কত দ্রুততার সঙ্গে মামলাটির নিষ্পত্তি হয়। আইন অনুযায়ী কাদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়। এসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান অন্যায়ভাবে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে মানুষের পকেট থেকে বাড়তি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সেই অপরাধে যদি সত্যিই এদের উপযুক্ত শাস্তি হয়, তাহলে বাজারে একটা ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। অন্যরা ভয় পাবে, অযৌক্তিকভাবে ইচ্ছামতো আর পণ্যের দাম বাড়াবে না। দেশের মানুষ স্বস্তি পাবে।’

গোলাম রহমান আরও বলেন, ‘আমি প্রতিযোগিতা কমিশনের এই মামলা করাকে ইতিবাচক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখছি। যদি সত্যিই এদের উপযুক্ত শাস্তি হয়, তাহলে আমি কমিশনকে সাধুবাদ জানাব।’

মামলার বিষয়ে কমিশনের ওয়েবসাইটে বৃহস্পতিবার ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রকাশ করে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের বাজারে চাল, আটা-আটা, ডিম, বয়লার মুরগি, টয়লেট্রিজের (সাবান, সুগন্ধী সাবান, গুঁড়া সাবান, ইত্যাদি) অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি এবং কৃত্রিম সংকটের ফলে যে অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে, তা দূরীকরণে এই ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলা দায়ের করেছে।

চলতি মাসের ২৬ তারিখ থেকে কোম্পানিগুলোকে ধারাবাহিকভাবে শুনানির জন্য ডাকা হয়েছে। প্রতিযোগিতা কমিশন আইনের ১৫ ও ১৬ ধারা অনুযায়ী এ মামলা হয়েছে। ধারা ১৫-তে বলা হয়েছে, বাজারে প্রভাব বিস্তার করে একপক্ষীয় পরিস্থিতি সৃষ্টি করলে তারা শাস্তির আওতায় আসবে। আর ধারা ১৬-তে বলা হয়েছে, কোনো পণ্যের বাজারজাত বা উৎপাদনে শীর্ষে থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে পণ্যের দামে কারসাজি করলে সেই অপরাধও শাস্তিযোগ্য।

গত কয়েক মাস ধরে দেশে চাল, তেল, আটা, ডিম, মুরগি, সাবান, ডিটারজেন্ট ও টুথপেস্টের বাজারে অস্থিরতা চলছে। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর নিয়মিত বাজার তদারকির পাশাপাশি এসব পণ্যের উৎপাদনকারী ও বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়ে সভা করেছে, যেখানে অস্বাভাবিকভাবে মূল্যবৃদ্ধির অভিযোগ ওঠে। সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম শফিকুজ্জামান বলেন, ‘যারা বাজারে অস্থিরতা তৈরির জন্য দায়ী, তাদের বিরুদ্ধে শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ভোক্তা অধিদপ্তর ডিমের বাজারে কারসাজিতে জড়িত সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে একটি প্রতিবেদনও পাঠিয়েছে।

এদিকে কয়েক মাস ধরে বাজারে চালের দাম বেশি। মাসখানেক আগে মোটা চালের দাম উঠেছিল প্রতি কেজি ৫৫ টাকার ওপরে। একইভাবে সরু বা চিকন চালের দাম উঠেছিল প্রতি কেজি ৮৫ টাকা পর্যন্ত। বাজারে অভিযান শুরু ও চাল আমদানির কারণে তা আবার কমতে শুরু করেছে।

একইভাবে মাসখানেক আগে ডিমের বাজারে অস্থিরতা তৈরি হয়। তখন ব্রয়লার মুরগির দাম প্রতি কেজি ২০০ টাকার ওপরে ওঠে। অভিযানের কারণে ডিম ও মুরগির দাম মাঝে কিছু দিন কম থাকলেও এখন আবার বেড়েছে; ফার্মের মুরগির ডিম প্রতি ডজন ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা এবং ব্রয়লার মুরগি প্রতি কেজি ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অন্যান্য নিত্যপণ্য উৎপাদন ও বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ডলারের বাড়তি দাম ও কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধির অজুহাত দিলেও সরকারি-বেসরকারি একাধিক মতবিনিময় সভায় মূল্য যতটা বৃদ্ধির কথা, তার চেয়ে বেশি বেড়েছে বলে মত দিয়েছেন অনেকে। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে ইউনিলিভার বাংলাদেশের করপোরেট কমিউনিকেশনস বিভাগের প্রধান শামীমা আক্তার দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘আমরা এখনো এ বিষয়ে কোনো নোটিশ পাইনি। তবে গণমাধ্যমে দেখেছি। তাই কী পরিপ্রেক্ষিতে এটি হয়েছে, সেটি নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। বহুজাতিক কোম্পানি হিসেবে আমরা দেশের সব ধরনের আইন মেনে এ দেশে ব্যবসা পরিচালনা করছি। কমিশনকে আমরা সব ধরনের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত রয়েছি।’ 

সিটি গ্রুপের পরিচালক (করপোরেট ও রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স) বিশ্বজিৎ সাহা দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘প্রতিযোগিতা কমিশন অনেক ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। এর আগেও এমন হয়েছে।’

সিটি গ্রুপের মামলার ব্যাপারে জানেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ তথ্য আমরা পেয়েছি। এর আগেও প্রতিযোগিতা কমিশন সয়াবিন তেলের মূল্যবৃদ্ধির সময়ও মামলা করেছিল। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমরা আমাদের অবস্থান কমিশনকে জানাব।’

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, অস্বাভাবিকভাবে বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়ানোর অভিযোগ চালে ১৯টি, আটা-ময়দায় আটটি, ব্রয়লার মুরগি ও ডিমে ছয়টি, সাবান ও ডিটারজেন্টে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। অন্যদের বিরুদ্ধেও মামলা করা হবে।

শুনানি সোমবার থেকে

আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর সোমবার দুপুর ১২টায় কাজী ফার্মস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে ডিম ও ‍মুরগির বাজারে সংকট সৃষ্টির অভিযোগে শুনানিতে ডাকা হয়েছে। পর দিন বাকি অভিযোগগুলোর বিষয়ে শুনানি হবে।


ভোজ্যতেলের দাম বোতলে ১৪ আর খোলায় ১৭ টাকা কমল

ভোজ্যতেলের দাম বোতলে ১৪ আর খোলায় ১৭ টাকা কমল
ভোজ্য তেলের দাম আরও কমল। ছবি সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

ভোজ্যতেল কোম্পানির মালিকদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর শিল্প ও বাণিজ্য উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের সঙ্গে বৈঠকের পর সয়াবিন তেলের দাম কমল।

প্রতি লিটার বোতলজাত দেলের দাম ১৪ টাকা আর খোলা তেলের দাম ১৭ টাকা কমিয়ে নতুন দাম ঠিক করা হয়েছে।

এখন বোতলজাত এক লিটার তেল বিক্রি হবে ১৭৮ টাকায়, যা এতদিন ছিল ১৯২ টাকা। আর পাঁচ লিটারের বোতলের দাম হবে ৮৮০ টাকা যা এতদিন ছিল ৯৪৫ টাকা।

খোলা সয়াবিন তেলের নতুন দাম হবে ১৫৮ টাকা, যা এতদিন ছিল ১৭৫ টাকা।

আজ সোমবার বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানায়।

মঙ্গলবার থেকেই এই দাম কার্যকর হবে।

গত ২২ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পাম অয়েলের দাম লিটারে ১৩ টাকা কমিয়ে ১৩৩ টাকা ঠিক করে দেয়। তবে সয়াবিন তেল নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত সেদিন নেয়া হয়নি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ‘আমাদের ভোজ্যতেল মালিক সমিতির সদস্যরা বর্তমানে ডলারের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি এবং এলসি খোলার জটিলতার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর সিনিয়র সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন সিটি গ্রুপের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, মেঘনা গ্রুপের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল এবং টি কে গ্রুপের এমডি মোস্তফা হায়দার।

‘সভায় ডলারের মূল্য বৃদ্ধির বিষয়ে এবং এলসি খোলার জটিলতার বিষয়ে আলোচনা শেষে এবং ভোক্তাদের সুবিধার্থে ভোজ্য তেলের দাম ১৪ টাকা কমিয়ে পুনর্নির্ধারণ করা হয়, যা ৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে।’

বিশ্ববাজারে টানা এক বছর ঊর্ধ্বগতির কারণে দেশে ভোজ্যতেলের দাম ২০২১ সাল লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে বোতলজাত সয়াবিন তেলের লিটার ২০৫ টাকা হয়ে যায়। দুই দফায় কমিয়ে গত ২১ জুলাই তেলের লিটার ১৮৫ টাকা করা হয়।

এর মধ্যে ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন ভোজ্য তেলের দাম আরও বাড়িয়ে দেয়। গত ২৩ আগস্ট লিটারে ৭ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম ঠিক করা হয় ১৯২ টাকা করা হয়।

ডলারের বাড়তি দাম কমেনি, তবে আন্তর্জাতিক বাজারে কমে আসার পর হ্রাসকৃত দামের তেল দেশে আসায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নতুন করে হিসাব কষে এই দাম ঠিক করে দিয়েছে।

গত কয়েক মাসে ডলারের দাম ৮৪ টাকা থেকে বেড়ে ১০৬ টাকা হয়ে গেছে। টাকার ২৫ শতাংশ দরপতনের কারণে আমদানি পণ্যের খবরও ২৫ শতাংশ বেড়ে গেছে।

সরকার ভোজ্য তেলের দর ভোক্তাদের কাছে আরও সহনীয় করতে ভ্যাটেও ছাড় দিয়েছে।

গত ১৪ মার্চ এনবিআর প্রজ্ঞাপন জারি করে সয়াবিন ও পাম অয়েলের উৎপাদন পর্যায়ে ১৫ শতাংশ এবং ব্যবসা পর্যায়ে ৫ শতাংশ ভ্যাট মওকুফ করে।

এর দুদিন পর ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে আরোপিত ১৫ শতাংশ ভ্যাট কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়। তখন এর মেয়াদ ঠিক করা হয় ৩০ জুন পর্যন্ত। পরে ৩ জুলাই আরেকটি প্রজ্ঞাপনে ভ্যাট মওকুফ সুবিধার মেয়াদ বাড়িয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর করা হয়। যার মেয়াদ শেষ হয় গত শুক্রবার।

ভ্যাট ছাড় আরও তিন মাস অব্যাহত রাখতে গত ২০ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে এনবিআরে চিঠি দেয়া হয়।


লেনদেনের ৪০ শতাংশ ১০ কোম্পানির দখলে

লেনদেনের ৪০ শতাংশ ১০ কোম্পানির দখলে
ছবি: সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

পুঁজিবাজারে বেশ কিছুদিন পর দরপতন হওয়া কোম্পানির তুলনায় দর বৃদ্ধি পাওয়া কোম্পানির সংখ্যা বেশি দেখা গেলেও বাজারে যে ভারসাম্যহীনতা তৈরি হয়েছে, সেটি থেকে উত্তরণের বিন্দুমাত্র আভাস নেই। বিপুল সংখ্যক শেয়ার এখনো ফ্লোর প্রাইসে গড়াগড়ি খাচ্ছে। অল্প কিছু কোম্পানিতেই বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেশি দেখা যাচ্ছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ বা ডিএসইতে লেনদেনের ৪০ শতাংশ কেবল ১০টি কোম্পানিতে। অন্যদিকে লেনদেনের ৩.৬ শতাংশ হয়েছে ২০০ কোম্পানি মিলিয়ে আর ৩০০ কোম্পানি মিলিয়ে হয়েছে লেনদেনের ১৭ শতাংশ। এসব কারণে সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবসে সূচক ও লেনদেন বাড়লেও পুঁজিবাজার নিয়ে বিনিয়োগকারীদের উদ্বেগ কাটেনি।

এ দিন আবার যেসব কোম্পানির দর সবচেয়ে বেশি বেড়েছে, তার মধ্যে বেশ কিছু লোকসানি, বছরের পর বছর ধরে লভ্যাংশ দিতে পারছে না। গত এক মাসের বেশি সময় ধরে ওষুধ ও রসায়ন খাতের যে প্রাধান্য দেখা গিয়েছিল, সেটি কিছুটা কমেছে। এ দিন সব খাতকে ছাড়িয়ে গেছে প্রকৌশল। আর ওষুধ খাত নেমেছে তৃতীয় স্থানে। কয়েক সপ্তাহ ধরে ঝিমাতে থাকা বস্ত্র খাত গা-ঝাড়া দিয়ে ওঠার ইঙ্গিত দিয়েছে। লেনদেন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দর বৃদ্ধির শীর্ষ তালিকায় এই খাতের বেশ কিছু কোম্পানিকে দেখা গেছে। সব মিলিয়ে এ দিন সূচক বেড়েছে ১৮ পয়েন্ট। দিন শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৫৩১ পয়েন্টে। দর বেড়েছে ১১৫টি কোম্পানির শেয়ারের, বিপরীতে কমেছে ৮১টির। আর আগের দরে লেনদেন হয়েছে ১৭৭টির, যেগুলোর সিংহভাগই ফ্লোর প্রাইসে রয়েছে। লেনদেন চার কর্মদিবস পর ছাড়াল দেড় হাজার কোটি টাকা। হাতবদল হয়েছে ১ হাজার ৫৩৩ কোটি ৪০ লাখ ৮১ হাজার টাকা, যা আগের কর্মদিবসের চেয়ে ৩১৬ কোটি ৪৫ লাখ ৪২ হাজার টাকা। গত বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ২১৬ কোটি ৯৫ লাখ ৩৯ হাজার টাকা।

পুঁজিবাজারের লেনদেন নিয়ে ট্রেজার সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ বলেন, ‘আজ পুঁজিবাজারের লেনদেন কিছুটা বিকেন্দ্রীকরণ হয়েছে বলা যায়। কারণ কিছু দিন থেকে যেসব খাতে বিনিয়োগ বেশি হচ্ছিল বা ওই সব খাত থেকে সরছিল না, সেখান থেকে ফান্ড অন্য খাতেও মুভ করেছে। বস্ত্র খাতেও কিছু ক্রয় প্রবণতা দেখা গেছে।’ সূচকের উত্থান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দিনের অগ্রভাবে যেসব শেয়ারের দরবৃদ্ধিতে সূচক বাড়ছিল, শেষ দিকে সেগুলোর দর হারানোর কারণে সূচক কমতে থাক। তা ছাড়া সূচক আরও বেশি বাড়তে পারত।’

লেনদেনের ৪০ শতাংশ ১০ কোম্পানিতে: দরপতন হলেও শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ওরিয়ন ফার্মা ও বেক্সিমকো লিমিটেড। ওরিয়নে লেনদেন হয়েছে ১২১ কোটি ৪৮ লাখ ৪৭ হাজার টাকা। শেয়ার হাতবদল হয়েছে ৮৫ লাখ ৮২ হাজার ৭৬টি। বেক্সিমকোর ৭৬ লাখ ১ হাজার ৩২৩টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১০০ কোটি ৯৩ লাখ ৫২ হাজার টাকায়। ইস্টার্ন হাউজিংয়ের লেনদেন হয়েছে ৭৩ কোটি ৭৪ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। হাতবদল হয়েছে ৬৩ লাখ ২১ হাজার ৩৬টি শেয়ার। এই তিন কোম্পানিরই দরপতন হয়েছে। জেএমআই হসপিটালের ৬৬ কোটি ২৫ লাখ ৫৭ হাজার টাকায় শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪৭ লাখ ৯৫ হাজার ৯৫২টি। বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমসের ১ কোটি ৭৬ লাখ ৪৫ হাজার ২৭৭টি শেয়ার হাতবদল হয়েছে, যার মূল্য দাঁড়িয়েছে ৫৭ কোটি ৩৬ লাখ ১৯ হাজার টাকা। আর কোনো কোম্পানির লেনদেন ৫০ কোটি অতিক্রম করেনি। কপারটেক, শাইনপুকুর সিরামিকস, বিবিএস কেবলস, ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং স্টেশন ও বসুন্ধরা পেপারের লেনদেন হয়েছে ৩০ থেকে ৪৫ কোটি টাকার মধ্যে। এই দশটি কোম্পানিতে লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬১১ কোটি ৮১ লাখ ৮৮ হাজার টাকা। যা মোট লেনদেনের ৩৯ দশমিক ৮৯ শতাংশ। অন্যদিকে সবচেয়ে কম লেনদেন হয়েছে এমন ৩০০টি কোম্পানিতে হাতবদল হয়েছে ২৬৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা, যা মোট লেনদেনের ১৭.২৪ শতাংশ। এর মধ্যে সবচেয়ে কম লেনদেন হওয়া ২০০টি কোম্পানির ৫৩ কোটি ৯০ লাখ টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে, যা মোট লেনদেনের ৩.৬ শতাংশেরও কম।

ফার্মা-বিবিধ খাত টপকে শীর্ষে প্রকৌশল: দীর্ঘ সময় ধরে লেনদেনে শীর্ষ অবস্থান করছিল ওষুধ ও রসায়ন খাত। এরপর বিবিধ খাতে শীর্ষ ও দ্বিতীয় সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে ওষুধ ও রসায়ন খাতে। রোববার লেনদেনে বিকেন্দ্রীকরণ দেখা গেছে। এই দুই খাতকে টপকে শীর্ষে চলে এসেছে প্রকৌশল খাত। হাতবদল হয়েছে ২৩৩ কোটি ১ লাখ টাকা, যা মোট লেনদেনের ১৬.০৮ শতাংশ। লেনদেনের সঙ্গে দর বৃদ্ধিও হয়েছে খাতটিতে। ২৩টি বা ৫৪.৭৬ শতাংশ দরবৃদ্ধির বিপরীতে দরপতন হয়েছে ১০টির। আর ৯টির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে। বিবিধ খাতে লেনদেন হয়েছে ২২৯ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। ৪টি করে কোম্পানির দরবৃদ্ধি ও অপরিবর্তিত ছিল। আর ৬টির দর কমেছে। যে ওষুধ রসায়ন খাতে লেনদেন এক সময় ছয় শ কোটি ছাড়িয়েছিল, তার লেনদেন নেমে এসেছে ২২৯ কোটি ৫০ লাখে। ১২টি কোম্পানির দরবৃদ্ধি, ৮টির দরপতন ও ১০টির কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে আগের দরে। অনেক দিন পর জেগে উঠেছে বস্ত্র খাত। লেনদেন হয়েছে ১৩৭ কোটি ৯২ লাখ টাকার। কিছুটা দরবৃদ্ধি হলেও বিপুল সংখ্যক কোম্পানির লেনদেন হচ্ছে ফ্লোর প্রাইসে। খাতের ২০টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে ৩৮টির লেনদেন হয়েছে আগের দরে। মাত্র একটি কোম্পানির দরপতন হয়েছে। আর কোনো খাতে এক শ কোটি টাকা লেনদেন হয়নি। সেবা ও আবাসন খাতে লেনদেন হয়েছে ৯৮ কোটি ৮০ লাখ টাকার। ২টি করে কোম্পানির দরবৃদ্ধি ও দরপতন দেখা গেছে। এ ছাড়াও লেনদেনে এগিয়ে ছিল জ্বালানি, প্রযুক্তি, কাগজ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, সিরামিকস খাত। এসব খাতের ৫০ কোটি থেকে ৯০ কোটির মধ্যে লেনদেন হয়েছে। শীর্ষ পাঁচ খাতের বাইরে উল্লেখযোগ্য দরবৃদ্ধি হয়েছে- জ্বালানি খাতে ৩৪.৭৮ শতাংশ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতে ৩৬.৩৬ শতাংশ, সিরামিকস খাতে ৬০ শতাংশ, খাদ্য খাতে ৩১.৫৮ শতাংশ, সিমেন্ট ৫৭.১৪ শতাংশ, সাধারণ বিমা ২১.৯৫ ও ব্যাংক খাতে ১৮.১৮ শতাংশ।

দরবৃদ্ধির শীর্ষ ১০: শীর্ষ দশের সবকটির দরই বেড়েছে সর্বোচ্চ সীমা ১০ শতাংশ ও এর আশপাশে। ১০ শতাংশ করে দর বেড়েছে দুটি কোম্পানির। এর মধ্যে মেট্রো স্পিনিংয়ের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৫১ টাকা ৭০ পয়সায়। আগের দিনে দর ছিল ৪৭ টাকা। চলতি অর্থবছরের তিন প্রান্তিকের হিসাবে শেয়ারপ্রতি এক টাকার কিছু বেশি মুনাফা করেছে কোম্পানিটি। একই সমান দর বেড়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ঋণ কেলেঙ্কারি ও লোকসানে ডুবে থাকা ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানি। শেয়ারটির দর বেড়ে ৬ টাকা থেকে ৬ টাকা ৬০ পয়সায় সর্বশেষ লেনদেন হয়েছে। বিডিকমের দর ৯ দশমিক ৯৫ শতাংশ বেড়ে শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৬৭ টাকা ৪০ পয়সায়। বিবিএস কেবলসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৬০ টাকা ৯০ পয়সায়। দর বেড়েছে ৯ দশমিক ৯২ শতাংশ। শীর্ষ পাঁচে অবস্থানকারী ম্যাকসন স্পিনিংয়ের দর বেড়েছে ৯ দশমিক ৭৯ শতাংশ। হাতবদল হয়েছে ২৬ টাকা ৯০ পয়সায়। বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেম, লোকসানি কেয়া কসমেটিকস ও বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি, আমান ফিড ও কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজও ছিল দর বৃদ্ধির শীর্ষ তালিকায়।

দরপতনের শীর্ষ ১০: পতনের তালিকার শীর্ষে রয়েছে সি পার্ল। ৭ দশমিক ১২ শতাংশ কমে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ১২১ টাকা ৩০ পয়সায় লেনদেন হয়। আগের দিনে লেনদেন হয় ১৩০ টাকা ৬০ পয়সায়। পরের স্থানে ছিল ইনডেক্স অ্যাগ্রো। ৪ দশমিক ৯৪ শতাংশ দর কমে শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৩৪ টাকা ৫০ পয়সায়। তৃতীয় সর্বোচ্চ দর হারিয়েছে অ্যাসোসিয়েটেড অক্সিজেন। ৪ দশমিক ৮২ শতাংশ কমে শেয়ারটি সর্বশেষ ৪১ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়। দর কমার শীর্ষ দশে থাকা অন্য কোম্পানিগুলো ছিল- শাহজিবাজার পাওয়ার, বিডি ওয়েলডিং, ড্যাফোডিল কম্পিউটার্স, ফু-ওয়াং সিরামিকস, ইস্টার্ন হাউজিং, ফারইস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও পেনিনসুলা চিটাগং।


দেশে এফডিআই এসেছে ৪০০ কোটি ডলার

দেশে এফডিআই এসেছে ৪০০ কোটি ডলার
বিশ্বব্যাংক।
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
  • বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন

  • দুর্যোগ মোকাবিলায় বৈশ্বিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে

বেসরকারি খাতে গত এক দশকে বাংলাদেশ ৪০০ কোটি ডলার সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) পেয়েছে। ২০১১ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত এই এফডিআই এসেছে। এর মাধ্যমে এখন পর্যন্ত ৪১ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। এফডিআই আকর্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থান বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। অনেক দেশ থেকে এ খাতে বাংলাদেশের অগ্রগতি ভালো।

বিশ্বব্যাংকের বার্ষিক প্রতিবেদনে এসব তথ্যে উঠে এসেছে। গত শনিবার প্রতিবেদনটি সংস্থাটির ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে প্রতিবছর গড়ে আকর্ষণীয় জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে। নানা প্রতিকূলতাকে মোকাবিলা করেও প্রবৃদ্ধির ধারা বজায় রেখেছে। একই সঙ্গে উপকূলীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় থেকে মানুষের জানমাল রক্ষায় বৈশ্বিকভাবে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। এ খাতে বিশ্বব্যাংক সহায়তা অব্যাহত রাখবে।

বিশ্বব্যাংক বলছে, গত কয়েক বছরের মধ্যে শুধু করোনার দুই বছর ছাড়া বাকি সময়ে গড়ে ৭ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। করোনার কারণে ২০১৯-২০ অর্থবছরে সাড়ে ৩ শতাংশ এবং পরের বছর প্রায় ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্ব পরিস্থিতি যখন টালমাটাল তখনও বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার ধরা হয়েছে সাড়ে ৭ শতাংশ।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বিশেষ করে উপকূলের মানুষ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় ও অন্যান্য কারণে বিপর্যয়কর পরিবেশের মধ্যে অনেকে প্রাণ হারাচ্ছেন। এদের রক্ষায় বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় উপকূলে ব্যাপকভাবে কাজ করছে। উপকূলীয় অঞ্চলে স্থিতিশীলতা রক্ষায় বাংলাদেশের অর্জন বিশ্বে নেতৃত্ব দেয়ার মতো। একই সঙ্গে আকর্ষণীয় প্রবৃদ্ধি অর্জন করে যাচ্ছে। দেশের সাড়ে ১৬ কোটি মানুষকে বিশেষ পরিকল্পনার আওতায় নিয়ে দুর্যোগ প্রতিরোধে আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপনসহ অন্যান্য অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সম্প্রসারিত করার ব্যবস্থা রেখেছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রাথমিক সতর্কতা ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দ্রুত লাখ লাখ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করেছে। উপকূলীয় এলাকার ৬ হাজার কিলোমিটার বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। এসব এলাকা উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক সহায়তা করছে। এ সহায়তার অংশ হিসেবে উপকূলীয় অঞ্চলে ১২ লাখ মানুষকে রক্ষা করতে এক হাজারের বেশি আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করেছে। ৫৫০ কিলোমিটার পাকা রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকেও আশ্রয়কেন্দ্রের আদলে নির্মাণ করা হয়েছে। এসব আশ্রয়কেন্দ্র ঘণ্টায় ২৬০ কিলোমিটার বেগের বাতাস সহ্য করতে পারবে।

২০২০ থেকে ’২২ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ ৪৮ সদস্যের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ ফোরামের সভাপতি হিসেবে চমৎকার কাজ করছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য একটি টেকসই এবং স্থিতিশীল পথ তৈরি করতে সহায়তা করছে। এতে আরও বলা হয়, ২০২১ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশ বিশ্বের প্রথম জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনাও চালু করেছে। এতে স্থিতিশীলতা বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ত্বরান্বিত হওয়া, কর্মসংস্থান সৃষ্টি শক্তিশালী হবে।

বিশ্বব্যাংক প্রতিবছর সদস্য দেশগুলোতে শর্ত বাস্তবায়ন সাপেক্ষে তাদের সহযোগী সংস্থা আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (আইডিএ) থেকে ঋণ দিয়ে থাকে। গত অর্থবছরের জন্য আইডিএ ঋণ অনুমোদনের দিক থেকে বাংলাদেশ ছিল দ্বিতীয় শীর্ষ অবস্থানে। প্রতিশ্রুতি ছিল ২১৬ কোটি ১০ লাখ ডলার। প্রতিশ্রুতির দিক থেকে শীর্ষে ছিল নাইজেরিয়ার ২৪০ কোটি ডলার। তৃতীয় অবস্থানে ছিল কঙ্গো ২১২ কোটি ৫০ লাখ ডলার। চতুর্থ ছিল ইথিওপিয়া ১৯০ কোটি ডলার।


রেমিট্যান্সে ধাক্কা ও রপ্তানি আয়ে হোঁচট, কমছে রিজার্ভ

রেমিট্যান্সে ধাক্কা ও রপ্তানি আয়ে হোঁচট, কমছে রিজার্ভ
রপ্তানি আয়। একই দিনে অর্থনীতির দুই সূচকে দুঃসংবাদ।
আবদুর রহিম হারমাছি
প্রকাশিত

আবদুর রহিম হারমাছি

এক দিনে দুটি দুঃসংবাদ এসেছে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে। দুই বছরের বেশি সময় করোনা মহামারি এবং রশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় ওলটপালট হয়ে যাওয়া বিশ্ব অর্থনীতিতে যে দুটি সূচক বাংলাদেশকে সামাল দিয়ে আসছিল, সেই গুরুত্বপূর্ণ দুই সূচকই বড় ধরনের হোঁচট খেয়েছে।

সাত মাস পর সবচেয়ে কম রেমিট্যান্স এসেছে সদ্যসমাপ্ত সেপ্টেম্বর মাসে। এই মাসে ১৫৩ কোটি ৯৫ লাখ (১.৫৪ বিলিয়ন) ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এর আগে গত ফেব্রুয়ারি মাসে ১৪৯ কোটি ৪৪ লাখ ডলার পাঠিয়েছিলেন সোয়া কোটির বেশি প্রবাসী।

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসেই (জুলাই-আগস্ট) ২ বিলিয়ন (২০০ কোটি) ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছিল দেশে। সেপ্টেম্বরে তা এক ধাক্কায় দেড় বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে।

অন্যদিকে ১৩ মাস পর রপ্তানি আয়ের প্রবৃদ্ধিতে হোঁচট খেল বাংলাদেশ। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে আগের বছরের জুলাইয়ের চেয়ে রপ্তানি আয় কমেছিল ৬ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। এর পর থেকে এক বছরের বেশি সময় রপ্তানি আয়ে বড় প্রবৃদ্ধি হচ্ছিল। ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে ২০২১-২২ অর্থবছর শেষ হয়েছিল।

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ২৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। কিন্তু সেপ্টেম্বর মাসে এসে ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

দেশের অর্থনীতি নিয়ে নানা উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্যে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স বেড়েই চলেছিল। কিন্তু রেমিট্যান্সের মতো রপ্তানি আয়েও দুঃসংবাদ এল।

গতকাল রোববার সকালে রপ্তানি আয়ের তথ্য প্রকাশ করে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। বিকেলে রেমিট্যান্সের তথ্য প্রকাশ করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

আর এই দুই সূচকে নেতিবাচক ধারার কারণে বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভ নেমে এসেছে ৩৬ বিলিয়ন ডলারের ঘরে। গতকাল দিন শেষে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩৬ দশমিক ৩০ বিলিয়ন ডলার।

১৩ মাস পর নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি রপ্তানি আয়ে

১৩ মাস পর রপ্তানি আয়ের প্রবৃদ্ধিতে হোঁচট খেল বাংলাদেশ। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে আগের বছরের জুলাইয়ের চেয়ে রপ্তানি আয় কমেছিল ৬ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। এর পর থেকে এক বছরের বেশি সময় ধরে রপ্তানি আয়ে বড় প্রবৃদ্ধি হচ্ছিল। ৩৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে ২০২১-২২ অর্থবছর শেষ হয়েছিল। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ২৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। কিন্তু সেপ্টেম্বর মাসে এসে ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

ইপিবির তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, সেপ্টেম্বর মাসে রপ্তানি আয়ে যে ধাক্কা লেগেছে, তা মূলত তৈরি পোশাক রপ্তানি কমার কারণে হয়েছে। গত মাসে ৩১৬ কোটি ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছে, যা গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় ৭ দশমিক ৫২ শতাংশ কম। গত মাসে ওভেন ও নিট উভয় ধরনের পোশাক রপ্তানিই হ্রাস পেয়েছে।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর পোশাক রপ্তানিতে ১৩ দশমিক ৩৮ শতাংশের বেশি, পাট ও পাটজাত দ্রব্যে ১৫ দশমিক ৭১ শতাংশ, প্লাস্টিক পণ্যে ৫৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ ও চামড়াজাত পণ্যে ২০ দশমিক ৮৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

অন্যদিকে গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় কম আয় হয়েছে একাধিক পণ্যে। কৃষিপণ্যে ১৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ, কেমিক্যাল পণ্যে ২৩ দশমিক ২৮ শতাংশ ও কাচজাত পণ্যে ৫২ দশমিক ৭৯ শতাংশ কম আয় হয়েছে।

পোশাকশিল্প মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি এবং বাংলাদেশ চেম্বারের বর্তমান সভাপতি আনোয়ার-উল-আলম চৌধুরী (পারভেজ) দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের পোশাকের প্রধান দুই বাজার যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলোতে মূল্যস্ফীতি অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় তারা পোশাক কেনা কমিয়ে দিয়েছে। তাদের এখন খাদ্যের পেছনেই অনেক বেশি খরচ করতে হচ্ছে। সে কারণে আমাদের রপ্তানি আয় কমছে। বিশ্বব্যাংক-আইএমএফসহ বিভিন্ন সংস্থা বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কা করছে। এ অবস্থায় আগামী দিন আমাদের রপ্তানি আয়ে সুখবর নেই বলেই মনে হচ্ছে।’

বিজিএমইএ পরিচালক ও মুখপাত্র মহিউদ্দিন রুবেল দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘সেপ্টেম্বর থেকে যে প্রবৃদ্ধিতে মন্দা হবে, সে বিষয়ে ইতিমধ্যে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিজিএমইএ, যা সেপ্টেম্বরের রপ্তানি পরিসংখ্যানে স্পষ্টতই প্রতিফলিত হয়েছে। কোভিড পরবর্তী সময়ে বিশ্বব্যাপী খুচরা বাজার বিভিন্ন সংকটের কারণে ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে, কনটেইনারের অপ্রতুলতা এবং সাপ্লাই চেইন সংকট, কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধি এবং পরবর্তী সময় বিশ্ব অর্থনীতিতে পূর্বাভাস অনুযায়ী মন্দার আবির্ভাব যার কারণে খুচরা বিক্রয়ে ধস নেমেছে, ক্রেতাদের পোশাকের চাহিদা হ্রাস পাচ্ছে, প্রভৃতি সংকটে শিল্প বিপর্যস্ত।’

তিনি বলেন, ‘ক্রেতারা তাদের ইনভেন্টরি এবং সাপ্লাই চেইনকে নিজেদের জন্য লাভজনক রাখতে সতর্কতামূলক পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করেছে, এমনকি তাদের মধ্যে কেউ কেউ উৎপাদন এবং অর্ডার পর্যন্ত আটকে রেখেছেন।’

মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে শিল্পের জন্য একটি বিপর্যয়কর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। যদিও টেকসই উন্নয়ন এবং প্রতিযোগী সক্ষমতায় আমাদের শক্তি আমরা দেখিয়েছি, তার পরও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ২০২২ সালের শেষ ত্রৈমাসিকের জন্য আশাব্যঞ্জক কিছু অনুমান করা কঠিন করে তোলে।’

গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান মনসুর দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘যে দুই সূচক এত দিন অর্থনীতিকে সামাল দিয়ে আসছিল, সেই দুই সূচক ধাক্কা খাওয়ায় অর্থনীতিতে দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দেখা দিল। বেশ চাপের মধ্যে পড়ল অর্থনীতি। আগামীতে এই দুই সূচক বাড়বে বলে মনে হয় না। সে কারণে রিজার্ভ আরও কমবে বলে মনে হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘রিজার্ভ ৩৬ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। প্রকৃত রিজার্ভ কিন্তু ২৮ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। কেননা, ইডিএফের (রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল) ৭ বিলিয়ন ডলার আর অন্য আরও ১ বিলিয়ন ডলারসহ ৮ বিলিয়ন ডলার বাদ দিলে রিজার্ভ কিন্তু আসলে এখন ২৮ বিলিয়ন ডলার। এই রিজার্ভ আগামীতে আরও কমবে বলে মনে হচ্ছে। সব মিলিয়ে অর্থনীতিতে চাপ আরও বাড়বে মনে হচ্ছে।’

সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স কমেছে ১১ শতাংশ

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, গত সেপ্টেম্বর মাসে বিভিন্ন দেশে অবস্থানকারী প্রবাসীরা ১৫৩ কোটি ৯৫ লাখ ডলার দেশে পাঠিয়েছেন, যা গত বছরের সেপ্টেম্বরের চেয়ে ১০ দশমিক ৮৪ শতাংশ কম। ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ৬৭ লাখ ডলার এসেছিল।

তবে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) হিসাবে রেমিট্যান্সপ্রবাহে এখনো প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। এই তিন মাসে ৫৬৭ কোটি ২৭ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ বেশি।

২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বরে ৫৪০ কোটি ৮৩ লাখ ডলার পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা।

২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে ২০৯ কোটি ৬৯ লাখ ১০ হাজার (২.১ বিলিয়ন) ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা, যা ছিল গত ১৪ মাসের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। আর গত বছরের জুলাই মাসের চেয়ে বেশি ছিল ১২ শতাংশ। পরের মাস আগস্টে আসে ২০৩ কোটি ৭৮ (২.০৪ বিলিয়ন) ডলার। প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ১২ দশমিক ৬০ শতাংশ। এই দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) মোট রেমিট্যান্স এসেছিল ৪১৩ কোটি ৪১ লাখ (৪.১৩ বিলিয়ন) ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে যা ছিল ১২ দশমিক ৩০ শতাংশ বেশি।

২০২১-২২ অর্থবছরে প্রবাসী আয়ে মন্দা দেখা দেয়। পুরো অর্থবছরে ২ হাজার ১০৩ কোটি (২১.০৩ বিলিয়ন) ডলার এসেছিল। আগের বছরের (২০২০-২১) চেয়ে কমেছিল ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ। কিন্তু চলতি অর্থবছরে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচক। শুরু থেকেই ঊর্ধ্বগতি লক্ষ করা যাচ্ছিল। কিন্তু ফের হোঁচট খেয়েছে।

তার আগের অর্থবছরে (২০২০-২১) ভরা করোনা মহামারির মধ্যেও অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে প্রায় ২৫ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা, যা ছিল আগের অর্থবছরের (২০১৯-২০) চেয়ে ৩৬ দশমিক ১০ শতাংশ বেশি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ২০২২-২৩ অর্থবছরের মুদ্রানীতিতে আশা করা হয়েছে, রেমিট্যান্স ঊর্ধ্বমুখী হবে এবং চলতি অর্থবছরে গত বছরের চেয়ে ১৫ শতাংশ বেশি আসবে।

রিজার্ভ কমছেই

গত ৮ সেপ্টেম্বর এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) জুলাই-আগস্ট মেয়াদের ১ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার আমদানির বিল পরিশোধের পর রিজার্ভ ৩৭ দশমিক শূন্য ৬ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে। ২৬ মাস (দুই বছর দুই মাস) পর রিজার্ভ ৩৭ বিলিয়ন ডলারের ঘরে নামে।

এর আগে ২০২০ সালের ২৯ জুলাই রিজার্ভ ৩৭ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করে ৩৭ দশমিক ১১ বিলিয়ন ডলারে উঠেছিল। গত দুই মাসে তা কমে ৩৭ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে।

ডলারের বাজারে ‘স্থিতিশীলতা’ আনতে গত অর্থবছরের ধারাবাহিকতায় রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করেই চলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সব মিলিয়ে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) রিজার্ভ থেকে ৩০০ কোটি (৩ বিলিয়ন) ডলারের বেশি বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

অব্যাহতভাবে ডলার বিক্রির কারণেই প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয় বাড়ার পরও রিজার্ভ কমছে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

মুদ্রাবাজার স্বাভাবিক রাখতে ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০২১-২২ অর্থবছরে রিজার্ভ থেকে ৭৬৭ কোটি (৭.৬৭ বিলিয়ন) ডলার বিক্রি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশের ইতিহাসে এর আগে কখনই রিজার্ভ থেকে এক অর্থবছরে এত ডলার বিক্রি করা হয়নি।

অথচ তার আগের অর্থবছরে (২০২০-২১) বাজারে ডলারের সরবরাহ বাড়ায় দর ধরে রাখতে রেকর্ড প্রায় ৮ বিলিয়ন (৮০০ কোটি) ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

গত ১২ জুলাই আকু মে-জুন মেয়াদের ১ দশমিক ৯৬ বিলিয়ন ডলার আমদানি বিল পরিশোধের পর রিজার্ভ ৪০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে আসে। এরপর ২০ জুলাই পর্যন্ত রিজার্ভ ৩৯ দশমিক ৮০ থেকে ৪০ বিলিয়ন ডলারের মধ্যে ওঠানামা করে। জুলাইয়ের শেষে তা কমে ৩৯ দশমিক ৫০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে আসে।

রেমিট্যান্স বাড়ায় জুলাইয়ের শেষের দিকে রিজার্ভ বেড়ে ৩৯ দশমিক ৭০ বিলিয়ন ডলারে ওঠে। ডলার বিক্রির কারণে তা ফের নিম্নমুখী হয়। ১ সেপ্টেম্বর রিজার্ভ ৩৮ দশমিক ৯১ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে।

অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গত বছরের আগস্টে রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়ন ডলারের যে মাইলফলক অতিক্রম করেছিল, তাতে বাজার থেকে ডলার কেনার অবদান ছিল।

করোনা মহামারির কারণে ২০২০-২১ অর্থবছরজুড়ে আমদানি বেশ কমে গিয়েছিল। কিন্তু প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয়ে উল্লম্ফন দেখা যায়। সে কারণে বাজারে ডলারের সরবরাহ বেড়ে যায়। সে পরিস্থিতিতে ডলারের দর ধরে রাখতে ওই অর্থবছরে প্রায় ৮ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। কিন্তু আগস্ট থেকে দেখা যায় উল্টো চিত্র। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে আমদানি ব্যয়। রপ্তানি বাড়লেও কমতে থাকে রেমিট্যান্স। রিজার্ভও কমতে থাকে। বাজারে ডলারের চাহিদা বেড়ে যায়; বাড়তে থাকে দাম। বাজার স্থিতিশীল রাখতে আগস্ট থেকে ডলার বিক্রি শুরু করে বাংলাদেশ ব্যাংক, চলে পুরো অর্থবছর।

সেই ধারাবাহিকতায় চাহিদা মেটাতে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরেও ডলার বিক্রি অব্যাহত রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আর সে কারণে রিজার্ভ এখন ৩৬ দশমিক ৩০ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে।


নথিপত্র ছাড়াই ৬৩৭০ কোটি টাকা ঋণ

নথিপত্র ছাড়াই ৬৩৭০ কোটি টাকা ঋণ
নিয়ম না মেনে নাবিল গ্রুপকে ৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা ঋণ দেয় ৩ ব্যাংক।
মৌসুমী ইসলাম
প্রকাশিত
  • নিয়ম না মেনে নাবিল গ্রুপকে ঋণ দিল ৩ ব্যাংক

মৌসুমী ইসলাম

দেশের ব্যাংকিং খাতে একের পর এক ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মধ্যেও ‘নাবিল গ্রুপ’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে পর্যাপ্ত নথিপত্র ও জামানত ছাড়াই প্রায় সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে তিনটি ব্যাংক। তিনটি ব্যাংকই একজন গ্রাহককে সর্বোচ্চ যত টাকা ঋণ দেয়া যায়, তার সীমাও লঙ্ঘন করেছে।

এর মধ্যে ইসলামী ব্যাংক দিয়েছে সবচেয়ে বেশি ৪ হাজার ৫০ কোটি টাকা। ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ১ হাজার ২০০ কোটি এবং সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক দিয়েছে ১ হাজার ১২০ কোটি টাকা।

রাজশাহীভিত্তিক নাবিল গ্রুপের ওয়েবসাইটে গ্রুপটির ১৭টি প্রতিষ্ঠানের কথা উল্লেখ থাকলেও তাদের পণ্য হিসেবে দেয়া আছে চাল, আটা, ময়দা, সুজি, ডাল ও পশুখাদ্য।

ব্যাংকিং খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক মনে করছে, সম্পূর্ণ নতুন এই গ্রাহককে দেয়া এই ঋণ ঝুঁকি তৈরি করবে। কারণ, বড় অঙ্কের এই ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে ঠিকমতো জামানত রাখা হয়নি। প্রকল্প প্রস্তাব যাচাই করা হয়নি। ঋণ ব্যবহারের সক্ষমতা আছে কি না, তাও দেখা হয়নি। অনুমোদন দেয়ার সময় যে শর্ত আরোপ করা হয়েছিল, পরের বোর্ডসভায় তাও শিথিল করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে, এই ঋণ ওই সব ব্যাংকের পরিচালকদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের নামে বেনামি ঋণ হতে পারে।

ঋণ বিতরণে ব্যাংকগুলো কতটা উদার ছিল, তা উঠে এসেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওই প্রতিবেদনে। এতে তুলে ধরা হয়, ঋণ নেয়া গ্রুপটির একটি প্রতিষ্ঠানের বর্তমান ঋণ আছে সাড়ে আট লাখ টাকা। ঋণের টাকা ব্যবহারের সক্ষমতা আছে কি না, তা যাচাই না করেই ওই কোম্পানিকে দেয়া হয়েছে প্রায় এক হাজার কোটি টাকা।

বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অব অফসাইট সুপারভিশন বিভাগ।

স্পষ্টতই অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে গণমাধ্যমকে কিছু বলা হচ্ছে না। তবে নাবিল গ্রুপ দাবি করেছে, তারা নিয়ম মেনেই ঋণ পেয়েছে।

অন্যদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলামের কাছে বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি কিছু বলতে পারেননি। তিনি বলেছেন, বিস্তারিত জেনে পরে জানাবেন।

কোন ব্যাংক কত দিল

সব মিলিয়ে তিন ব্যাংকের কাছে গ্রুপটির ঋণের পরিমাণ (ইসলামী ব্যাংকিংয়ের পরিভাষায় বিনিয়োগ) ৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা। এর মধ্যে ইসলামী ব্যাংকের রাজশাহী শাখা চলতি বছরের ২১ মার্চ নাবিল ফিড মিলস ও সহযোগী প্রতিষ্ঠানের নামে ৩ হাজার ১০০ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন দেয়। ব্যাংকটির গুলশান শাখায় নাবিল গ্রেইন ক্রপসের নামে অনুমোদন দেয়া হয় ৯৫০ কোটি টাকা ঋণ। অর্থাৎ ইসলামী ব্যাংক গ্রুপটিকে দিচ্ছে ৪ হাজার ৫০ কোটি টাকা।

ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মুনিরুল মওলাকে ফোন দেয়া হলে তিনি রিসিভ করেননি। পরে ফোনে এসএমএস এবং হোয়াটস অ্যাপে ম্যাসেজ দিলেও তিনি উত্তর দেননি।

গত ২৩ জুন ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের ২৪৬তম বোর্ডসভায় নাবিল নব ফুড এবং তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান নাবিল ফিড মিলস ও শিমুল এন্টারপ্রাইজের নামে ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা ঋণ দেয়া হয়।

এর আগে ৩০ মে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ৪৮১তম বোর্ডসভায় গুলশান শাখা থেকে নাবিল নব ফুড এবং সহযোগী প্রতিষ্ঠান নাবিল ফিড মিলস ও শিমুল এন্টারপ্রাইজের নামে ১ হাজার ১২০ কোটি টাকার ঋণ অনুমোদন দেয়া হয়। এর মধ্যে ফান্ডেড (নগদ) ৪৫০ কোটি এবং নন-ফান্ডেড (ঋণপত্র বা এলসি ও ব্যাংক গ্যারান্টি) ৬৭০ কোটি টাকা। এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগসীমা নতুনভাবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। কিন্তু কোন খাতে এই টাকা ব্যবহার হবে, তা উল্লেখ নেই।

এ বিষয়ে জানতে এসআইবিএলের এমডি জাফর আলমকে ফোন দিলে শাফায়াত নামে অন্য এক কর্মকর্তা ফোনটি ধরেন। তিনি জাফর আলমের ব্যক্তিগত সহকারী বা পিএস বলে পরিচয় দেন। এমডির সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি বলেন, ‘স্যার ব্যস্ত।’

পর্যাপ্ত নথি, জামানত ছাড়াই উদার হস্তে ঋণ

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নতুন একটি প্রতিষ্ঠানকে বিপুল পরিমাণ ঋণ দেয়া হলেও পর্যাপ্ত নথি নেই। এতে উল্লেখ করা হয়, অধিকাংশ ঋণেই কোনো ধরনের জামানত রাখা হয়নি। এই ঋণের অর্থ কোথায় ব্যবহার হবে তাও পরিষ্কার নয়। এ ছাড়া নতুন একটি গ্রুপকে এত টাকা ঋণ দেয়া হলেও তার পর্যাপ্ত নথি সংরক্ষণ করা হয়নি।

গ্রুপের একটি কোম্পানিকে ৯৫০ কোটি টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে, কিন্তু সর্বশেষ সিআইবি (ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরো) রিপোর্ট অনুসারে এর আগে বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ওই কোম্পানির ঋণ আছে মাত্র সাড়ে আট লাখ টাকা। ফলে এই পরিমাণ অর্থ ব্যবহারের সক্ষমতা রয়েছে কি না, তাও যাচাই করা হয়নি।

এই ঋণ ব্যাংকের পরিচালকদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের নামে বেনামি ঋণ কি না, সেই সন্দেহ করা হয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে।

বিশেষ নিরীক্ষাটির সুপারিশ প্রতিবেদনে বলা হয়, এত বড় অঙ্কের ঋণের বিপরীতে কোনো জামানত নেয়া হয়নি। তিন মাসে এলসি কমিশন মাত্র দশমিক ১৫ শতাংশ। গ্যারান্টির ক্ষেত্রে নাবিল ফার্মের করপোরেট গ্যারান্টি নেয়া হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ৪৮১তম বোর্ড মিটিংয়ে এই ঋণ অনুমোদন দেয়া হলেও বোর্ডের ৪৮২ এবং ৪৮৩তম সভায় শর্ত শিথিল করা হয়। এ ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত গ্যারান্টির ক্ষেত্রে সব পরিচালক এবং তাদের স্বামী বা স্ত্রীর গ্যারান্টি ছিল। কিন্তু তা শিথিল করে শুধু পরিচালকদের গ্যারান্টি রাখা হয়।

আমানত সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বলা হয়, নিজ নামে অথবা রেফারেন্সে অন্যদের নামে প্রাথমিকভাবে ২০০ কোটি এবং পরবর্তী সময়ে আমানত ৬০০ কোটি টাকায় উন্নীত করতে হবে, কিন্তু পরে তা শিথিল করে বলা হয়, পর্যাপ্ত আমানত রাখতে হবে। এই পর্যাপ্তের কোনো ব্যাখা দেয়া হয়নি।

প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, একটি নতুন ঋণের ক্ষেত্রে কোন বিবেচনায় শর্ত শিথিল করা হলো তাও জানা জরুরি। এ ছাড়া গ্রাহক বেনামে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট কোনো প্রতিষ্ঠান কি না, সেটিও যাচাই করতে হবে। কোন বিবেচনায় নতুন একজন গ্রাহককে তিন ব্যাংক এত বিপুল পরিমাণ ঋণ দিয়েছে, তা যাচাই করা জরুরি। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোকে সুনির্দিষ্ট কয়েকটি বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া জরুরি। এর মধ্যে রয়েছে ফোর্সড (বাধ্যতামূলক) ঋণ আদায় অগ্রগতি অবহিত করা, কোন বিবেচনায় এই ঋণ দেয়া হলো তার ব্যাখা এবং বিস্তারিত কাগজপত্র জমা দেয়া।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়, গুলশান শাখার গ্রাহক নাবিল গ্রেইন ক্রপসের অনুকূলে ৯৫০ কোটি টাকা নন-ফান্ডেড ঋণ দেয়া হয়েছে। ব্যাংকের নীতিমালা অনুসারে এই ঋণে ২৩০ কোটি টাকা জামানত হওয়ার কথা। ঋণের শর্তে ১১০ কোটি টাকার আমানত অথবা লিয়েন থাকার কথা বলা হয়েছে। এক জায়গায় বলা আছে, কৃষিপণ্য আমদানি ও বিপণনের জন্য এই অর্থ ব্যবহার হবে, কিন্তু সর্বশেষ সিআইবি প্রতিবেদন অনুসারে বিভিন্ন ব্যাংকে ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে গ্রাহকের এক্সপোজার মাত্র সাড়ে আট লাখ টাকা।

প্রকল্প ঋণ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, গ্রাহক একেবারে নতুন। ফলে সম্পূর্ণ নতুন একজন গ্রাহককে বাণিজ্যের জন্য এই পরিমাণ ঋণ দেয়া হলো। এ ক্ষেত্রে গ্রাহকের বড় ব্যবসা পরিচালনার দক্ষতা এবং অর্থের সঠিক ব্যবহার হয়েছে কি না, তা যাচাই করা দরকার।

নাবিল ফিড মিলসের নামে নতুন করে ৭০০ কোটি টাকাসহ মোট ৩ হাজার ১০০ কোটি টাকা অনুমোদন দিয়েছে ইসলামী ব্যাংকের রাজশাহী শাখা, কিন্তু নাবিল গ্রেইন ক্রপস কোনো গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত নয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সন্দেহ, এটিও গ্রুপের প্রতিষ্ঠান। ফলে একক কোনো গ্রুপকে ঋণ দেয়া সংক্রান্ত যে আইন রয়েছে, এটি তার লঙ্ঘন।

একক প্রতিষ্ঠানের ঋণসীমা লঙ্ঘন

কোনো ব্যাংক তার মূলধনের ২৫ শতাংশের বেশি ঋণ কোনো কোম্পানি বা গ্রুপকে দিতে পারবে না। এই ঋণ ফান্ডেড ও নন-ফান্ডেড উভয় মিলেই। এ ক্ষেত্রে ফান্ডেড বা সরাসরি ঋণ হবে ১৫ শতাংশ, যা বড় ঋণ হিসেবে চিহ্নিত হবে। আগে সুদসহ ঋণের পরিমাণ ছিল ১৫ শতাংশ।

নন-ফান্ডেড ঋণে রপ্তানি খাতের ক্ষেত্রে ১০০ টাকার ঋণকে ৫০ টাকা এবং বিদ্যুৎ খাতের ক্ষেত্রে ১০০ টাকার ঋণকে ২৫ টাকা হিসাবে গণনা করতে হবে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে এমন নির্দেশনা জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক, যা এপ্রিল থেকে কার্যকর বলে উল্লেখ করা হয়।

গত জুন শেষে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের মোট মূলধনের পরিমাণ ছিল ১০ হাজার ৩০ কোটি টাকা। এর ২৫ শতাংশ হিসাবে ব্যাংকটি একটি গ্রুপকে সর্বোচ্চ দিতে পারে ২ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা। কিন্তু তারা দিচ্ছে এর চেয়ে দেড় হাজার কোটি টাকা বেশি।

একই সময়ে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের মূলধন ছিল ৩ হাজার ৭১৮ কোটি টাকা। এ হিসাবে ব্যাংকটি নাবিল গ্রুপকে সর্বোচ্চ ঋণ দিতে পারবে ৯৩০ কোটি টাকার মতো। তারা ২৭০ কোটি টাকা বেশি দিচ্ছে।

জুন শেষে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের মূলধন ছিল ৩ হাজার ২৬০ কোটি টাকা। এ হিসাবে ব্যাংকটি গ্রুপটিকে ঋণ দিতে পারে সর্বোচ্চ ৮১৪ কোটি টাকা। তারা বেশি দিচ্ছে ২৯৬ কোটি টাকা।

নাবিল গ্রুপের ব্যবসা কী

নাবিল গ্রুপের চেয়ারম্যান হিসেবে রয়েছেন মো. জাহান বক্স মণ্ডল। এর পরিচালক ইসরাত জাহান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আমিনুল ইসলাম এবং উপপরিচালক মো. মামুনুর রশীদ।

নাবিল গ্রুপের ওয়েবসাইটে গ্রুপটির ১৭টি প্রতিষ্ঠানের কথা বলা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাবিল নব ফুড, ফ্লাওয়ার মিল, ফিড মিল, অটো রাইস মিল, ডাল মিল, কনজ্যুমার প্রোডাক্টস, নাবিল ফার্ম, ক্যাটল ফার্ম এবং নাবিল ট্রান্সপোর্ট।

ওয়েবসাইটে গ্রুপের পণ্য হিসেবে কেবল ছয়টির কথা বলা হয়েছে। এগুলো হলো চাল, আটা, ময়দা, সুজি, ডাল ও পশুখাদ্য।

গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আমিনুল ইসলাম দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘আমাদের সব কাগজপত্র রয়েছে। কোনো ঘাটতি নেই।’

জামানত ছাড়া ঋণের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘শতভাগ বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার অনুযায়ী ইনভেস্টমেন্ট হয়েছে। উত্তরবঙ্গের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান আমরা। এখানে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ কাজ করেন। নিয়মের মধ্যেই ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ঋণ ছাড় করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংক সরাসরি তদন্ত করেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলেছে সব ঠিক আছে।’

একক ঋণসীমা মানার বিষয়ে প্রশ্ন করলে এমডির দাবি, ‘অবশ্যই, নিয়ম মেনেই তিন ব্যাংক ঋণ দিয়েছে।’