রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

মূল্যস্ফীতি ৬ শতাংশে নামতে এক বছর সময় লাগবে: পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম। ফাইল ছবি
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ ২১:৫৮

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম বলেছেন, চলমান মূল্যস্ফীতি দেশের অভ্যন্তরীণ কোনো কারণে ঘটেনি এবং এর হার আগের পর্যায়ে নামতে এক বছরের মতো সময় লাগবে। তবে খাদ্য মূল্যস্ফীতি দ্রুতই কমতে শুরু করবে।

বিশ্বব্যাংক আয়োজিত এক সেমিনারে মঙ্গলবার পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সার্বিক মূল্যস্ফীতি আগের মতো ৬ শতাংশে নামতে বড়জোর এক বছর সময় লাগবে। আগামী অক্টোবর-নভেম্বর মাসের মধ্যে খাদ্য মূল্যস্ফীতি কমতে শুরু করবে।’

রাজধানীর একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত সেমিনারে তিনি আরও বলেন, ‘মূল্যস্ফীতি এখন বড় আলোচনার বিষয় (বিগ ক্রাই)। সবাই এটি নিয়ে চিন্তিত। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে নীতি সুদহার বাড়ানোসহ নানা উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। দেশের অভ্যন্তরীণ কারণে মূল্যস্ফীতি বাড়েনি। এটি বাইরে থেকে এসেছে।’

ডিমের মূল্যবৃদ্ধি প্রসঙ্গে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ডিম আমদানির অনুমতি দিয়েছে। যদি ডিম ব্যবসায় সিন্ডিকেট থাকে, তাহলে তা ভাঙবে। ডিমের দাম অবশ্যই কমবে। কারণ ডিম পাচার হয়ে দেশের বাইরে যায় না। দেশের অভ্যন্তরে সরবরাহ ব্যবস্থায় সংকটের কারণে ডিমের দাম বাড়ছে। আমি অবশ্য এখনই সিন্ডিকেটকে দায়ী করব না।’

সেমিনারের শিরোনাম হলো ‘বাংলাদেশের জন্য মধ্যম আয়ের দেশের ফাঁদ এড়ানো: কোরিয়া থেকে শিক্ষণীয়’। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপক (সামষ্টিক অর্থনীতি, বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও সরকার খাত) হুন সাহিব সুহ। বক্তব্য দেন কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত পার্ক ইয়ং সিক। বিশেষ আলোচক ছিলেন বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) চেয়ারম্যান জাইদি সাত্তার, সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন ও নিট পোশাক রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিকেএমইএর সাবেক সভাপতি ও প্লামি ফ্যাশনস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফজলুল হক।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম বলেন, ‘মধ্যম আয়ের দেশের ফাঁদ এড়িয়ে উচ্চ আয়ের দেশে উন্নীত হতে কোরিয়া থেকে আমরা শিক্ষা নিতে পারি। রপ্তানিনির্ভর অর্থনীতিতে রূপান্তর করতে হলে আমাদের বাণিজ্যনীতি নতুন করে পুনর্বিন্যাস করতে হবে। রপ্তানির ঝুড়িতে পোশাক খাতের বাইরে আরও পণ্য বাড়াতে হবে। এ ছাড়া উদ্ভাবন, দক্ষ শ্রমিক ও উচ্চ উৎপাদনশীলতার মাধ্যমেই আমরা এই ফাঁদ এড়াতে পারব।’

কোরিয়ার অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বিশ্বব্যাংকের কর্মকর্তা হুন সাহিব সুহ বলেন, মধ্যম আয়ের ফাঁদ এড়াতে কোরিয়া শিল্প খাতে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়িয়েছিল। কোরিয়ার মোট দেশজ উৎপাদনের ৭৮ শতাংশ বিনিয়োগ হয়। এর বেশির ভাগ বেসরকারি বিনিয়োগ। মানবসম্পদ উন্নয়নে কোরিয়া ভোকেশনাল বা কারিগরি শিক্ষাকে গুরুত্ব দিয়েছে। শিল্প খাতের সঙ্গে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর সম্পৃক্ততা থাকায় চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ শ্রমশক্তি জোগান দেয়া সম্ভব হয়েছে। হুন সাহিব সুহ আরও বলেন, কোরিয়ার তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ৯৫ শতাংশ বিনিয়োগই বেসরকারি খাতের।

কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত পার্ক ইয়ং সিক বাংলাদেশ উচ্চ আয়ের দেশে উন্নীত হতে উৎপাদন খাত শক্তিশালী করার পরামর্শ দেন। এ জন্য দক্ষ মানবশক্তি ও প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর কথাও বলেন তিনি।

মধ্যম আয়ের ফাঁদ এড়াতে নীতি প্রণয়নে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বন্ধ করার সুপারিশ করেন সিপিডির ফাহমিদা খাতুন। তিনি বলেন, ‘সামস্টিক অর্থনৈতিক নীতি প্রণয়নের কাজটি রাজনীতিমুক্ত হতে হবে। দেশের প্রতিষ্ঠানগুলো শক্তিশালী করতে হবে।’

প্লামি ফ্যাশনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফজলুল হক বলেন, ‘দেশে অনেক ভোকেশনাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হয়েছে। কিন্তু শিল্প খাতের চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ শ্রমশক্তি পাওয়া যায় না। গত এক দশকে আমরা পোশাক খাতের পাশাপাশি চামড়ার পণ্য, তথ্যপ্রযুক্তি খাতের রপ্তানির সম্ভাবনার কথা শুনেছি। কিন্তু কার্যকর নীতির অভাবে এসব খাতের সম্ভাবনা কাজে লাগানো যাচ্ছে না।’

মধ্যম আয়ের ফাঁদ এড়াতে দেশের অর্থনীতিকে কোরিয়ার মতো রপ্তানিনির্ভর অর্থনীতিতে রূপান্তরের পরামর্শ দেন পিআরআইয়ের জাইদি সাত্তার।


বাজার মূলধন বাড়ল সাড়ে ২১ হাজার কোটি টাকা 

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশের শেয়ারবাজারে গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া চার কার্যদিবসেই নিম্নমুখী প্রবণতা ছিল। সিংহভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমার পাশাপাশি সবকটি মূল্য সূচক কমেছে। এরপরও সপ্তাহের ব্যবধানে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন সাড়ে ২১ হাজার কোটি টাকার ওপরে বেড়েছে। এর আগে ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার আগে দুই মাসের বেশি সময় ধরে নিম্নমুখী ছিল শেয়ারবাজার। এতে ডিএসইর বাজার মূলধন এক লাখ কোটি টাকার ওপরে কমে যায়। তবে ঈদের আগে শেষ চার কার্যদিবস কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী থাকে বাজার। অবশ্য তাতে খুব একটা উপকার হয়নি বিনিয়োগকারীদের। ঈদে বড় ধরনের ক্ষতির মধ্যে থেকেই যান বিনিয়োগকারীরা। আর ঈদের পর আবার শেয়ারবাজারে টানা দরপতন দেখা যাচ্ছে।

ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার আগে শেয়ারবাজার এই পতনের ধারা থেকে বেরিয়ে আসার আভাস দেয়। কিন্তু ঈদের ছুটি শেষে শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হওয়ার আগেই ইসরায়েলের ওপর নজিরবিহীন রকেট হামলা করে ইরান। এতে বৈঠকে অস্থিরতা সৃষ্টির আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ে শেয়ারবাজারেও। ফলে গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া চার কার্যদিবসেই পতন দেখতে হয় বিনিয়োগকারীদের।

গত ১৭ জানুয়ারি ডিএসইর বাজার মূলধন ছিল ৭ লাখ ৮৮ হাজার ৪৪৯ কোটি টাকা। ধারাবাহিকভাবে কমে ঈদের আগে শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষে সেই বাজার মূলধন দাঁড়ায় ৬ লাখ ৮৪ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ অব্যাহত পতনের মধ্যে পড়ে ডিএসইর বাজার মূলধন হারায় ১ লাখ ৩ হাজার ৭১৫ কোটি টাকা। আর ঈদের পর শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হলেও গত সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ২১ হাজার ৫৯১ কোটি টাকা। গত সপ্তাহের লেনদেন শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৬ হাজার ৩২৫ কোটি টাকা। অবশ্য এরপরও ১৭ জানুয়ারির সঙ্গে তুলনা করলে ডিএসইর বাজার মূলধন এখনো ৮২ হাজার ১২৪ কোটি টাকার ওপরে কম রয়েছে।

গত সপ্তাহে শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া চার কার্যদিবসেই অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমায় সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ৮৯টি প্রতিষ্ঠান দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ২৮৫টির। আর ২১টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। এতে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ১৭৭ দশমিক ৪০ পয়েন্ট বা ৩ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। অন্য দুই সূচকের মধ্যে বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক গত সপ্তাহে কমেছে ৪৭ দশমিক ৮১ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ৩৫ শতাংশ। আর ইসলামী শরিয়াহ ভিত্তিতে পরিচালিত কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক গত সপ্তাহে কমেছে ৩৫ দশমিক ৭৪ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ৭৯ শতাংশ। সবকটি মূল্য সূচক কমলেও লেনদেনের গতি কিছুটা বেড়েছে। সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৪৭৮ কোটি ২০ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৪৩৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ৪৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা বা ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে এশিয়াটিক ল্যাবরেটরিজের শেয়ার। দৈনিক গড়ে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা, যা মোট লেনদেনের ৪ দশমিক ৯১ শতাংশ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা লাভেলো আইসক্রিমের শেয়ার দৈনিক গড়ে লেনদেন হয়েছে ২১ কোটি ৭ লাখ টাকা। ১৬ কোটি ৮ লাখ টাকা লেনাদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ। এ ছাড়া লেনদেনের শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- বেস্ট হোল্ডিং, ফু-ওয়াং ফুড, ফু-ওয়াং সিরামিক, গোল্ডেন সন, সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস, শাহিনপুকুর সিরামিক এবং বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস।


কমলো সোনার দাম

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ২০ এপ্রিল, ২০২৪ ১৬:৪৯
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

চলতি মাসে তিন বার সোনার দাম বাড়ানোর পর এবার কিছুটা কমা‌নোর ঘোষণা এসেছে জুয়েলারি ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) পক্ষ থেকে। শনিবার বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে এই নতুন দাম কার্যকর করা হয়।

আজ শ‌নিবার বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমানের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

সোনার দাম তিন দফায় ৪ হাজার ৫৬০ টাকা বাড়িয়ে এখন প্রতি ভরিতে কমা‌নো হ‌য়ে‌ছে মাত্র ৮৪০ টাকা। কমানোর পর ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের এক ভরি সোনার দাম দাঁড়াচ্ছে ১ লাখ ১৮ হাজার ৭৯৮ টাকা। আজ দুপুর পর্যন্ত যার দাম ছিল ১ লাখ ১৯ হাজার ৬৩৮ টাকা।

বাজুস জানায়, স্থানীয় বাজারে তেজাবী সোনার দাম কিছুটা কমেছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় সোনার নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।


আইএমএফের ঋণের বাকি অর্থ ছাড়ে বাধা নেই: গভর্নর

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার।
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণের বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বলেছেন, আইএমএফের ঋণের দশটি শর্তের নয়টি পূরণ করতে পেরেছে বাংলাদেশ। তাই ঋণের পরবর্তী কিস্তি পেতে কোনো অসুবিধা হবে না।

তৃতীয় কিস্তির ঋণ ছাড়ের প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে আগামী সপ্তাহেই বাংলাদেশ সফরে আইএমএফ প্রতিনিধি দল আসবে বলেও জানান আব্দুর রউফ তালুকদার।

উল্লেখ্য, গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারের দূরদর্শী নেতৃত্বে অর্থনীতির সবগুলো সূচকে বাংলাদেশ সাফল্যের ধারা অব্যাহত রেখে চলেছে।

সম্প্রতি বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের প্রধান কার্যালয়ে দিনভর বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে আইএমএফ ও ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের স্প্রিং মিটিং-২০২৪-এর উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদল এখন ওয়াশিংটনে অবস্থান করছে। প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

গভর্নর বলেন, মরিশাসের সঙ্গে অফশোর ব্যাংকিং চুক্তি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যাংকের সঙ্গে মরিশাসের ব্যাংকের লেনদেন সহজ হবে।

তিনি বলেন, মরিশাসের গভর্নরের সঙ্গে এ বিষয়ে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেছেন। এর ফলে মরিশাসে অবস্থানরত ৪০ হাজার বাংলাদেশি খুব সহজেই বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন। এখন দেশটিতে অবস্থানরত বাংলাদেশিরা সরাসরি রেমিট্যান্স পাঠাতে পারেন না।


প্রধানমন্ত্রী ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ গড়ার কাজ শুরু করেছেন: অর্থমন্ত্রী

গতকাল বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। ছবি: পিআইডি
আপডেটেড ১৯ এপ্রিল, ২০২৪ ১৭:৩৭
বাসস

অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নে ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ গড়ার কাজ শুরু করেছেন।

আজ শুক্রবার ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, গতকাল বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে অর্থমন্ত্রী এ তিনি কথা বলেন।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল এবং বিশ্বব্যাংক গ্রুপের স্প্রিংমিটিং-এ বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিতে অর্থমন্ত্রী মাহমুদ আলী এখন ওয়াশিংটনে অবস্থান করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরানও অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন এবং মাহমুদ আলীর বর্ণাঢ্য কূটনৈতিক এবং রাজনৈতিক কর্মজীবন সংক্ষেপে তুলে ধরেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছেন এবং তার নেতৃত্বে দেশ সামনের দিকে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করার দায়িত্ব নিয়েছেন এবং তিনি জাতিকে এর অভীষ্ঠ লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু দেশে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির অস্তিত্ব এখনো বিদ্যমান এবং তারা দেশের চলমান উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করার জন্য ধ্বংসাত্বক কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে।’

আবুল হাসান মাহমুদ আলী ১৯৭১ সালে নিউইয়র্কে তার কূটনৈতিক জীবনের স্মৃতিচারণা করেন। তিনি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত প্রথম কূটনীতিক যিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের পক্ষ ত্যাগ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

এর আগে অর্থমন্ত্রী দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু কর্নারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আবক্ষ ভাস্কর্যে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে জাতির পিতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান।

দূতাবাসে পৌঁছালে অর্থমন্ত্রী মাহমুদ আলীকে স্বাগত জানান রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান এবং দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তারা।


পোশাক রপ্তানিতে নতুন উদ্বেগ

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

চলমান লোহিত সাগর-সংকট ও গাজা যুদ্ধের কারণে ইরান ও ইসরায়েলের মধ্যে উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ থেকে পোশাক রপ্তানি নতুন করে উদ্বেগের মুখে পড়েছে।

স্থানীয় পোশাক রপ্তানিকারকরা আশঙ্কা করছেন, ব্যবসার খরচ আরও বাড়বে। কারণ, এই উত্তেজনা পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের রূপ নিলে বিশ্বব্যাপী তেলের দাম অনেক বেড়ে যেতে পারে। ফলে পণ্যবাহী জাহাজ চলাচলের খরচ বেড়ে যাবে। মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসা তেলের সরবরাহ বাধাগ্রস্ত হবে।

সিরিয়ার দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে ইসরায়েলি হামলার প্রতিশোধ হিসেবে গত রোববার ইরান থেকে ইসরায়েলে সরাসরি ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর পর এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

বিদেশি ক্রেতারা ইতোমধ্যে রপ্তানিকারকদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পণ্য সরবরাহ করতে বলেছেন। কেননা, গত অক্টোবরে লোহিত সাগর সংকটের পর পণ্য পরিবহনে অতিরিক্ত ১৫ দিন সময় দেওয়া হয়েছে।

সুয়েজ খালের মাধ্যমে এশিয়া ও ইউরোপের সংযোগকারী লোহিত সাগরে সংকট বৈশ্বিক উত্তেজনার কেন্দ্র হিসেবে দেখা দেওয়ার আগে চট্টগ্রাম থেকে ইউরোপের বন্দরে পণ্য পাঠাতে সাধারণত ৩০ দিন লাগত।

সেই নৌপথে চলাচলকারী জাহাজগুলো লক্ষ্য করে হুতিদের হামলার কারণে পণ্যবাহী জাহাজগুলো দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ অব গুড হোপ ঘুরে চলাচল করতে বাধ্য হচ্ছে। ফলে অতিরিক্ত প্রায় সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার ঘুরে যাওয়ার কারণে পণ্য সরবরাহে তিন সপ্তাহ পর্যন্ত দেরি হচ্ছে এবং পরিবহন খরচ বেড়ে যাচ্ছে।

এই সংকটের কারণে বেশ কয়েকটি খুচরা পোশাক বিক্রেতা ও ব্র্যান্ড পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থায় বাধা এড়াতে কিছু পণ্যের কার্যাদেশ বাংলাদেশ থেকে তুরস্ক বা ভিয়েতনামে সরিয়ে নিচ্ছে।

কার্যাদেশ কমে যাওয়ার এই ঘটনা এমন সময়ে ঘটল যখন বাংলাদেশের আয়ের সবচেয়ে বড় খাতটি করোনা মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে মারাত্মক বিপর্যয় থেকে জেগে ওঠার চেষ্টা করছে।

পোশাক রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ঊর্মি গার্মেন্টস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আসিফ আশরাফ বলেন, কিছু কিছু ক্ষেত্রে কাছাকাছি জায়গা থেকে পণ্য নেওয়া হচ্ছে। এসব কার্যাদেশ বাংলাদেশে আসার কথা থাকলেও অনেক ক্রেতা তুরস্ককে দিচ্ছেন। কারণ সময়মতো পণ্য সরবরাহ নিশ্চিত করা ক্রেতাদের জন্য জরুরি।

বৈশ্বিক পোশাক বাণিজ্যে অনেক প্রতিষ্ঠানকে এক সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামতে হয় বলে কম সময়ের মধ্যে পণ্য বাজারে আনার বিষয়টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আন্তর্জাতিক খুচরা বিক্রেতা ও ব্র্যান্ডগুলোর পণ্যের দাম বাড়লে বাংলাদেশের মতো দেশগুলো থেকে আমদানি করা পণ্যের দাম কমে যায়। এটি শেষ পর্যন্ত রপ্তানিকারকদের মুনাফা কমিয়ে দেয়।

বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সহসভাপতি মো. নাসির উদ্দিন বলেন, লোহিত সাগর সংকটের কারণে বিদেশি ক্রেতারা রপ্তানিকারকদের কম দাম দিয়ে জাহাজ পরিচালনার খরচ তুলে নিচ্ছে।

রপ্তানিকারকরা বলছেন, যদিও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলো জাহাজ চলাচলের খরচ বহন করে তবু অনেকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে রপ্তানিকারকদের ওপর খরচ চাপিয়ে দেন।

৯৫ শতাংশেরও বেশি ক্ষেত্রে ক্রেতারা ফ্রেইট অন বোর্ড পদ্ধতিতে পণ্য কেনায় জাহাজের খরচ দিয়ে থাকেন। রপ্তানিকারকরা পাঁচ শতাংশেরও কম ক্ষেত্রে পরিবহন খরচ দেন।

আশরাফ ও নাসির উভয়ের মতে, ক্রেতারা যেকোনো অতিরিক্ত খরচ রপ্তানিকারকদের ওপর চাপিয়ে দেন।

কারখানার মালিকরা আশঙ্কা করে বলছেন, ইরান-ইসরায়েল সংঘাত বাড়লে তা বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানিতে প্রভাব ফেলবে।

তেলের দাম বাড়লে জাহাজ চলাচলের খরচ বেড়ে যাবে। এটি উৎপাদন ও পণ্য পরিবহন খরচ বাড়িয়ে তুলবে।

দীর্ঘ সময় মধ্যপ্রাচ্য সংকট চললে সৌদি আরব, কুয়েত, ইরাক ও ইরানের মতো উদীয়মান বাজারগুলোয় পোশাক বিক্রি ততটা সহজ হবে না, যতটা অনেকে আশা করছিলেন।

বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, লোহিত সাগর সংকট শুরুর পর ঢাকা থেকে ইউরোপে পণ্য পরিবহনে খরচ বেড়ে গেছে। ইরান-ইসরায়েল সংঘাতের কারণে তা আরও বাড়তে পারে।

বর্তমানে ঢাকা থেকে ইউরোপের বিমানবন্দরগুলোয় এক কেজি পণ্য পরিবহনে এয়ারলাইনসগুলো আড়াই ডলারের বেশি চার্জ করে। সমুদ্রপথে পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে একই গন্তব্যে ৩০ মার্কিন সেন্টের চেয়ে বেশি দরকার হয়।


বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ৪ টাকা বেড়েছে। আগে পাঁচ লিটারের তেলের বোতলের দাম ছিল ৮০০ টাকা সেটি এখন বিক্রি হবে ৮১৮ টাকায় এবং পাম ওয়েলের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ১৩৫ টাকা করা হয়েছে। ট্যারিফ কমিশন, বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে বৈঠক করে এই সিদ্ধান্ত নেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু।

তিনি বলেন, ‘বোতলের এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ১৬৩ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৬৭ টাকা করা হয়েছে। খোলা সয়াবিন তেলের লিটার ১৪৯ টাকা থেকে কমিয়ে ১৪৭ টাকা করা হয়েছে। আজ থেকে এ দাম কার্যকর হবে।’

গত সোমবার বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন লিটারপ্রতি সয়াবিন তেলের দাম ১০ টাকা বাড়িয়ে ১৭৩ টাকা করার প্রস্তাব দেয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবকে লেখা এক চিঠিতে বলা হয়, ‘আপনার সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, ভোজ্যতেলের কাঁচামাল আমদানি, উৎপাদন পর্যায়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ তারিখে জারি করা এসআরওদ্বয়ের মেয়াদ ১৫ এপ্রিল, ২০২৪ তারিখে শেষ হচ্ছে বিধায় আগামী ১৬ এপ্রিল, ২০২৪ তারিখ থেকে বাজারে ভোজ্যতেল (পরিশোধিত পাম তেল ও পরিশোধিত সয়াবিন তেল) সরবরাহে ভ্যাট অব্যাহতি পূর্ববর্তী মূল্যে পণ্য সরবরাহ হবে।’

চিঠিতে ১৬ এপ্রিল থেকে বোতলজাত এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ১৭৩ টাকা, পাঁচ লিটার ৮৪৫ টাকা এবং খোলা এক লিটার পাম তেলের দাম ১৩২ টাকা প্রস্তাব করা হয়।

এর আগে পবিত্র রমজান মাসে সাধারণ মানুষকে স্বস্তি দিতে ভোজ্যতেলের দাম কমানোর উদ্যোগ নেয় সরকার। আমদানি পর্যায়ে তেলের শুল্ক ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করা হয়। এতে ব্যবসায়ীরাও হাসি মুখে তেলের দাম কমানোর প্রস্তাব মেনে নেন। সেসময় সয়াবিন তেলের দাম কমানো হয় প্রতি লিটারে ১০ টাকা। তবে ঈদ যেতে না যেতেই আবারও দাম বাড়াতে তোড়জোড় শুরু করেন ভোজ্যতেলের ব্যবসায়ীরা।


১২ দিনে দেশে এল সাড়ে ৯ হাজার কো‌টি টাকার প্রবাসী আয়

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

পবিত্র ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে মাত্র ১২ দিনে (চলতি এপ্রিল মাসের প্রথম ১২ দিন) দেশে প্রায় ৮৮ কোটি মার্কিন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। দেশীয় মুদ্রায় (প্র‌তি ডলার ১১০ টাকা ধ‌রে) যার পরিমাণ সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকার বেশি। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবছর ঈদের আগে রমজান মাসে স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয় বেড়ে যায়। এবারও ব্যতিক্রম হয়নি। এপ্রিল মাসের প্রথম ১২ দিনে বৈধ বা ব্যাংকিং চ্যানেলে ৮৭ কোটি ৭১ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। দেশীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ ৯ হাজার ৬৪৮ কোটি টাকা। সেই হিসাবে ঈদের সময় রমজানের শেষদিকে দৈনিক রেমিট্যান্স এসেছে ৮০০ কোটি টাকার বেশি পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা।

আলোচিত সময় অর্থাৎ এপ্রিলের প্রথম ১২ দিনে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৭ কোটি ২০ লাখ ডলার, বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে ৪ কোটি ৮৪ লাখ মার্কিন ডলার, বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৭৫ কোটি ৩৯ লাখ ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ২৬ লাখ ৭১ হাজার মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স।

এর আগে মার্চ মাসে ব্যাংকিং চ্যানেলে ১৯৯ কোটি ৬৮ লাখ মার্কিন ডলার সমপরিমাণ অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। বছরের প্রথম মাস জানুয়ারিতে দেশে এসেছে ২১০ কোটি ডলার এবং ফেব্রুয়া‌রি‌তে আসে ২১৬ কো‌টি ৬০ লাখ ডলার।

গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে মোট রেমিট্যান্স এসেছে ২ হাজার ১৬১ কোটি ৭ লাখ মার্কিন ডলার। আগের ২০২১-২০২২ অর্থবছরে মোট রেমিট্যান্স এসেছে ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ মার্কিন ডলার। ২০২০-২১ অর্থবছরে রেমিট্যান্স এসেছিল ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ মার্কিন ডলার। যা সর্বোচ্চ পরিমাণ রেমিট্যান্স।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) দেশে পালিত হয় মুসলিম সম্প্রদায়ের বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। ঈদ উপলক্ষ্যে ১০, ১১ ও ১২ এপ্রিল (বুধবার, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার ) নির্ধারিত সরকারি সাধারণ ছুটি ছিল। ঈদের পর ১৩ এপ্রিল শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি ও ১৪ এপ্রিল রোববার নববর্ষের ছুটি। ফলে ১০ তারিখ থেকে ১৪ তারিখ পর্যন্ত ছুটি কাটান ব্যাংক-বিমা আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সরকারি চাকরিজীবীরা। ঈদে টানা পাঁচ দিন ছুটির পর সোমবার খুলছে ব্যাংক, বীমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান।


ভোজ্যতেলের দাম বাড়াতে ব্যবসায়ীদের তোড়জোড়

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

পবিত্র রমজান মাসে সাধারণ মানুষকে স্বস্তি দিতে ভোজ্যতেলের দাম কমানোর উদ্যোগ নেয় সরকার। আমদানি পর্যায়ে তেলের শুল্ক ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করা হয়। এতে ব্যবসায়ীরাও হাসি মুখে তেলের দাম কমানোর প্রস্তাব মেনে নেন। সেসময় সয়াবিন তেলের দাম কমানো হয় প্রতি লিটারে ১০ টাকা।

তবে ঈদ যেতে না যেতেই আবারও দাম বাড়াতে তোড়জোড় শুরু করেছেন ভোজ্যতেলের ব্যবসায়ীরা। সোমবার বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিভিওআরভিএমএফএ) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের কাছে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি দেয়। যেখানে উল্লেখ করা হয় কাঁচামাল আমদানি ও ভোজ্যপণ্য উৎপাদনে কর অব্যাহতি না থাকায় ভ্যাট অব্যাহতির আগের নির্ধারিত মূল্যে তেল সরবরাহ করা হবে। সংগঠনের নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম মোল্লা চিঠিটি পাঠিয়েছেন বলে জানা গেছে।

তাদের প্রস্তাবিত দাম অনুযায়ী প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন ১০ টাকা বাড়িয়ে ১৭৩ টাকা, পাঁচ লিটারের বোতল ৮৪৫ টাকা ও প্রতি লিটার পামতেলের দাম হবে ১৩২ টাকা।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হলে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু অবশ্য বলেছেন এই মুহূর্তে ভোজ্যতেলের দাম বাড়ানোর সুযোগ নেই। মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিআরইউ সভাপতি সৈয়দ শুকুর আলী শুভ।

প্রতিমন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, ‘তেলে ৫ শতাংশ ডিউটি কমিয়েছিলাম এতে ভোক্তা পর্যায়ে দাম কমেছিল। সেই ভ্যাট ছাড়ের মেয়ার শেষ হয়েছে ১৫ এপ্রিল। তবে এ নিয়ে আমাদের ট্যারিফ কমিশন কাজ করছে। মিলাররা যে দাবি করেছে তার যৌক্তিকতা যাচাই করা হচ্ছে। তাদের আমদানি পর্যায়ে খরচ তার সঙ্গে সরকারের কর সব মিলিয়ে কেমন খরচ পড়ছে ইত্যাদি যাচাই করছে কমিশন। তবে এটা বলতে পারি আগের দামে ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই’।

ব্যবসায়ীদের চিঠির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘চিঠির বিষয়ে আমি এখনও কিছুই জানি না। চিঠিও আমি এখনো হাতে পায়নি, যদি পাঠিয়ে থাকেন অফিসে গিয়ে দেখব।’

এদিকে ভোজ্যতেলের দাম নিয়ন্ত্রণে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কাছে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশন। যেখানে তারা এখনই ভ্যাট না বাড়াতে এনবিআরকে অনুরোধ জানিয়েছে। কমিশনের বাণিজ্যনীতি বিভাগের উপপ্রধান প্রেরিত চিঠিতে বলা হয়েছে সয়াবিন তেলসহ ভোজ্যতেল আমদানির ওপর আগের নির্ধারিত ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ভ্যাট নেয়া হচ্ছে ১০ শতাংশ। যার মেয়াদ ১৫ এপ্রিল শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় মেয়াদ বাড়িয়ে ৩০ জুন পর্যন্ত করার অনুরোধ করা হলো।


চলতি অর্থবছর শেষে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬.১ শতাংশ: এডিবি

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন অংশীদার এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক- এডিবি মনে করে চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছর শেষে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনে প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ দশমিক ১ শতাংশ। ম্যানিলাভিত্তিক ঋণদাতা এই প্রতিষ্ঠানটি সম্প্রতি তাদের এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুকে এমন পূর্বাভাস দিয়েছে। যদিও সংস্থাটি তাদের আগের পূর্বাভাসে জানিয়েছে এই অর্থবছর শেষে প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ দশমিক ২ শতাংশ। বৈশিক ও অভ্যন্তরীণ কিছু চ্যালেঞ্জের কথা উল্লেখ করে প্রবৃদ্ধি দশমিক ১ শতাংশ কমে আসার কথা বলেছে এডিবি।

যদিও সংস্থাটি মনে করে বর্তমান প্রেক্ষাপটে ৬ শতাংশের উপরে প্রবৃদ্ধি অর্জন বাংলাদেশের জন্য স্বস্তিদায়ক। সংস্থাটির মতে, চ্যালেঞ্জ কাটিয়ে উঠে পরের বছর বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হবে ৬ দশমিক ৬ শতাংশ। তবে বাংলাদেশের এই প্রবৃদ্ধি এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের গড় প্রবৃদ্ধির চেয়ে ঢের বেশি। এডিবি বলছে, অভ্যন্তরীণ চাহিদা, সেমিকন্ডাক্টর রপ্তানির উন্নতি ও পর্যটন পুনরুদ্ধারের মধ্যে এই অঞ্চলে গড় প্রবৃদ্ধি হবে ৪ দশমিক ৯ শতাংশ।

এডিবির দেওয়া প্রক্ষেপণ হিসেবে দক্ষিণ এশিয়ার ভারতের পরই প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী দেশ হবে বাংলাদেশ। এডিবি মনে করে বাংলাদেশের ভালো প্রবৃদ্ধির পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান রাখবে পোশাক রপ্তানি খাত। সংস্থাটির হিসেবে বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি এখনো রপ্তানি খাত।

তবে সংস্থাটির প্রক্ষেপন বলছে, চলতি অর্থবছর শেষে বাংলাদেশে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যেতে পারে ৮ দশমিক ৪ এর ঘরে। যদিও পরের বছরেই মূল্যস্ফীতি কমে নেমে আসবে ৭ শতাংশে। সংস্থাটির মনে করে মূল্যস্ফীতি কমে আসলে ব্যক্তি পর্যায়ে ভোগ বাড়বে। এ ছাড়া জ্বালানি ও রেল খাতে সরকারি বিনিয়োগ বাড়তে পারে বলে আভাস দিয়েছে এডিবি।


‘সারা বছর নিরবচ্ছিন্নভাবে নিত্যপণ্য সরবরাহের কাজ করব’

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১৫ এপ্রিল, ২০২৪ ১৯:৪২
নিজস্ব প্রতিবেদক

শুধু রমজান নয়- সারা বছর নিরবচ্ছিন্নভাবে নিত্যপণ্য সরবরাহের জন্য কাজ করে যাবেন বলে জানিয়েছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। তিনি বলেন, আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যসহ লোকাল সাপ্লাই চেইনগুলো শক্তিশালী করব। আমাদের কাজ হলো বাজারে পণ্যের সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখা, বাজার ব্যবস্থাপনা কার্যকর রাখা। এই কাজ আমরা করব।

আজ সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা জানান। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ ছিল রমজানে মানুষকে স্বস্তি দেওয়া, সেটা রমজানের পরেও অব্যাহত থাকবে কি না? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, রমজানটা ব্যাপক চ্যালেঞ্জ ছিল, কারণ সব কিছুর চাহিদা তিনগুণ বেড়ে যায়। এটা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। ভারত থেকে পেঁয়াজ এনেছি। সেই সঙ্গে আমাদের তেল-চিনিসহ নিত্যপণ্য পর্যাপ্ত ছিল। চ্যালেঞ্জগুলো পার হয়ে এসেছি।

চালের বস্তায় দাম লিখে দেওয়ার বিষয়ে এক প্রশ্নে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয় সঠিক উত্তর দিতে পারবে। কৃষি মন্ত্রণালয় আরও ভালো উত্তর দিতে পারবে। আমাদের মন্ত্রণালয়ের কোনো কিছু থাকলে আমরা সমন্বয় করব। প্রত্যেকটি মন্ত্রণালয় যার যার কাজ করে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কাজ হলো বাজার ব্যবস্থাপনা ও পণ্যের সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখা; বিশেষ করে, আমদানি করে যেসব জিনিস আনা হয়। আর লোকাল কৃষিপণ্য ও খাদ্য এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বললে ভালো হবে। গ্রামে বেগুন ৫ টাকা শহরে এসে ৭০ টাকা হয় কেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই সংশ্লিষ্ট প্রশ্নটি কৃষি বিপণন অধিদপ্তর ভালো উত্তর দিতে পারবে। আমরা কাজ করতে পারি বাজার ব্যবস্থাপনার অংশটুকু নিয়ে। তেল, চিনিসহ আমদানি বাজারে যেসব জিনিস রয়েছে সেগুলোতেই আমাদের নজরদারি থাকবে।

দ্রব্যমূল্য নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ (দ্রব্যমূল্য) নিয়ে কেউ সমালোচনা করলে তা ‘রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে’। এই ঈদে আমি পাঁচ দিনের জন্য গ্রামের বাড়িতে ছিলাম। মাঠে-ঘাটে ঘুরেছি, মানুষের সঙ্গে মিশেছি। সেখানে সবার মধ্যে একটা স্বস্তি আমি দেখতে পেয়েছি।

তিনি বলেন, সবাই উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে ঢাকাসহ সারা দেশে বৈশাখী মেলায় অংশ নিয়েছে। মেলা থেকে তারা বিভিন্ন সামগ্রী কিনেছে। সেখানে উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখেছি। রাজনৈতিক কারণে কেউ দ্রব্যমূল্য নিয়ে অসন্তুষ্টি দেখালে সেটা নিয়ে আমি কিছু বলব না। জনগণই বুঝবে যে তারা ভালো আছে কি না।

মন্ত্রিসভায় দুটি গুরুত্বপূর্ণ নীতিমালা পাস হওয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের অনেক চাওয়া এই নীতিমালায় স্থান পেয়েছে। আমদানি রপ্তানি নীতিমালা, জাতীয় লজিস্টিকস নীতিমালা পাস হয়েছে মন্ত্রিসভায়। আমি এই নীতিমালা নিয়ে ব্যক্তিগতভাবে খুবই আশাবাদী।


চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬.১%: এডিবি

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১২ এপ্রিল, ২০২৪ ০২:৪০
বাণিজ্য ডেস্ক

চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ছয় দশমিক এক শতাংশ হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি)।

আঞ্চলিক উন্নয়ন ব্যাংকটি তাদের এপ্রিলের এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুকে (এডিও) এমন পূর্বাভাস দিয়েছে।

এডিওতে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্ভাবনার বিষয়ে এডিবি বলেছে, ২০২৪ (২০২৩-২৪) অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ছয় দশমিক এক শতাংশ পর্যন্ত। ২০২৫ (২০২৪-২৫) অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি আগের অর্থবছরের চেয়ে বেড়ে হতে পারে ছয় দশমিক ছয় শতাংশ।

বাংলাদেশে কোনো বছরের জুলাই থেকে পরবর্তী বছরের জুন পর্যন্ত ১২ মাসকে এক অর্থবছর ধরা হয়। সে হিসাবে ২০২৩-২৪ অর্থবছর শেষ হচ্ছে চলতি বছরের ৩০ জুন।

এডিওতে বলা হয়, বিশ্বজুড়ে চাহিদা কমে যাওয়ার পরও বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সস্তা তৈরি পোশাক রপ্তানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। ডলার সংকটের কারণে বাংলাদেশের রপ্তানিকারকরা দেশে তৈরি সুতা ও বস্ত্র ব্যবহার করছেন।

মূল্যস্ফীতির বিষয়ে বলা হয়, মূল্যস্ফীতি কমার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে বেসরকারি পর্যায়ে বিভিন্ন পণ্য ও সেবার ভোগ বাড়তে পারে। অন্যদিকে ভর্তুকি কম দেয়া এবং কৃচ্ছ্রতার ব্যবস্থাগুলো অব্যাহত রাখায় সরকারি পর্যায়ে ভোগও সামান্য বাড়তে পারে।


মার্চ মাসের বেতন-ঈদ বোনাস পরিশোধ করেছে সব কারখানা: বিজিএমইএ সভাপতি

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
ইউএনবি

ঈদুল ফিতরের আগেই শ্রমিকদের বেতন-বোনাস পুরোপুরি পরিশোধ করায় তৈরি পোশাক কারখানা মালিকদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) নবনির্বাচিত সভাপতি এস এম মান্নান। গতকাল মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। গার্মেন্টস শ্রমিকরা যাতে তাদের প্রিয়জনদের সঙ্গে আসন্ন ঈদ উদযাপন উপভোগ করতে পারে তা নিশ্চিত করতে কারখানা মালিকদের প্রশংসনীয় প্রচেষ্টা তুলে ধরেন বিজিএমইএর নবনির্বাচিত সভাপতি। এই আর্থিক প্রক্রিয়াটি সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে অবিচ্ছেদ্য ভূমিকার জন্য সরকার, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, শ্রমিক নেতা এবং গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

ঈদের আগে বেতন ভাতা বিষয়ে সমস্যা হতে পারে এরকম ৪৫০টি কারখানার ওপর নজরদারির কথা উল্লেখ করেন মান্নান। বিশেষ করে ২৬টি কারখানায় বিজিএমইএর সরাসরি হস্তক্ষেপে সমস্যার সমাধানে সাফল্যের কথা তুলে ধরেন তিনি।

মান্নান বিবৃতিতে আরও জানান, এই সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফলে সব কারখানা মার্চ মাসের বেতন এবং ঈদ বোনাস পরিশোধ করতে পেরেছে। অল্পকিছু কারখানা বাকি আছে, তারাও আজকের মধ্যে পরিশোধ করে দেবে বলে আশা করা হচ্ছে।

আর্থিক খাতের ভূমিকার ওপর গুরুত্বারোপ করে বিজিএমইএ সভাপতি পোশাক কারখানার আশেপাশের এলাকাগুলোতে সরকারি ছুটির দিনেও কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংককে ধন্যবাদ জানান। এই ব্যতিক্রমী পদক্ষেপটি শ্রমিকদের সময়মত এবং সম্পূর্ণ বেতন নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

ভবিষ্যতে ঈদের ছুটিতে নিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান মান্নান। বিশেষ করে বাস, ট্রেন এবং নৌযানে অতিরিক্ত যাত্রী বহন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান তিনি।


যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে

আপডেটেড ৯ এপ্রিল, ২০২৪ ১২:০৮
নিজস্ব প্রতিবেদক

বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশে অর্থনীতির পুনরুজ্জীবন, ক্রেতাদের হাত-খোলা খরচ ও মূল্যস্ফীতি কমে যাওয়ায় বাংলাদেশের একক বৃহত্তম বাজার যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি ঘুরে দাঁড়ানোর লক্ষণ দেখা যাচ্ছে।

২০২৩ সালে এ দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি কমেছে ২৫ শতাংশ। মার্কিন বাণিজ্য বিভাগের অফিস অব টেক্সটাইল অ্যান্ড অ্যাপারেলের (ওটেক্সা) তথ্য অনুসারে, ২০২৪ সালের প্রথম দুই মাসে এই হার ১৯ দশমিক ২৪ শতাংশে নেমে এসেছে।

বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সাবেক সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, আগামী মাসগুলোয় যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি পোশাক রপ্তানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। এ বছর শেষে এর পরিমাণ ১০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যেতে পারে।

করোনা মহামারির সময় যুক্তরাষ্ট্রের ক্রেতারা কম খরচ করায় অনেক পোশাক অবিক্রীত থেকে যায়। ফলে সেখানকার ব্র্যান্ডগুলো গত দুই বছরে সারা বিশ্ব থেকে কম পোশাক আমদানি করে।

গত বছরও এমন পরিস্থিতি অব্যাহত ছিল। মহামারির বিপর্যয়ের পরপর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে মূল্যস্ফীতি বহু দশকের মধ্যে সর্বোচ্চে পৌঁছে যায়। এটি ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতা কমিয়ে দেয়।

গত বছরের নভেম্বরে বিক্রি বাড়তে শুরু করলে পণ্যের মজুত কমে আসে। এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশ থেকে পোশাকের কার্যাদেশ বাড়তে থাকে।

ফারুক হাসান আরও বলেন, গত বছর প্রায় প্রতি মাসেই যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি কমেছিল। এ বছর শুরু থেকেই তা বাড়ছে।

জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানির পরিমাণ ছিল ১১৮ কোটি ডলার। বস্ত্র ও পোশাকের মোট চালান ছিল ১২১ কোটি ডলার, যা ১৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ কম।

যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানিকারক দেশগুলোর মধ্যে চীন ও ভিয়েতনামের পর বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। তবে বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রে শীর্ষ ডেনিম রপ্তানিকারক দেশ।

রপ্তানিকারকদের মতে, প্রতিযোগিতামূলক দাম ও সময় মতো পণ্য সরবরাহ করায় বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের খুচরা বিক্রেতা ও ব্র্যান্ডগুলোর জন্য আকর্ষণীয় সোর্সিং গন্তব্য। এটি তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে খুচরা বিক্রেতাদের বৃহত্তম বাণিজ্য সংস্থা ন্যাশনাল রিটেইল ফেডারেশন (এনআরএফ) গত ২০ মার্চ পূর্বাভাসে বলেছে, চলতি বছর খুচরা বিক্রি আড়াই শতাংশ থেকে সাড়ে তিন শতাংশের মধ্যে বাড়বে। এটি পাঁচ দশমিক ২৩ ট্রিলিয়ন ডলার থেকে পাঁচ দশমিক ২৮ ট্রিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে। এটি হবে আমেরিকার অর্থনীতিতে ক্রেতাদের শক্তিশালী ভূমিকার কারণে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এনআরএফ প্রেসিডেন্ট ও সিইও ম্যাথিউ শায় বলেন, ‘ক্রেতাদের আর্থিক অবস্থা মার্কিন অর্থনীতিতে শক্তি জোগাচ্ছে। আমরা আত্মবিশ্বাসী যে বছরের শেষ নাগাদ মাঝারি আকারে স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধি হবে।’

২০২৪ সালের বিক্রয় পূর্বাভাসে ২০২৩ সালের তিন দশমিক ছয় শতাংশ বার্ষিক বিক্রয় প্রবৃদ্ধির সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। এ ছাড়াও, ১০ বছরের প্রাক-মহামারি গড় বার্ষিক বিক্রয় প্রবৃদ্ধি তিন দশমিক ছয় শতাংশের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ বলে এই পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

নন-স্টোর ও অনলাইন বিক্রি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় সাত থেকে নয় শতাংশের মধ্যে বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। এটি এক দশমিক ৪৭ ট্রিলিয়ন ডলার থেকে এক দশমিক ৫০ ট্রিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে। ২০২৩ সালে নন-স্টোর ও অনলাইন বিক্রি ছিল এক দশমিক ৩৮ ট্রিলিয়ন ডলার।

এনআরএফ ধারণা করছে, পুরো বছরের জিডিপি প্রবৃদ্ধি প্রায় দুই দশমিক তিন শতাংশ হবে। এটি ২০২৩ সালের আড়াই শতাংশের তুলনায় কম। তবে চাকরির প্রবৃদ্ধি বজায় রাখার জন্য তা যথেষ্ট শক্তিশালী।

চাঙা অর্থনীতি, শ্রম ও পণ্যের বাজারে আরও ভারসাম্য এবং আবাসন খরচ কমে যাওয়ায় মূল্যস্ফীতিও আগের বছরের তুলনায় দুই দশমিক দুই শতাংশ কমবে হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এনআরএফের প্রধান অর্থনীতিবিদ জ্যাক ক্লেইনহেনজের প্রশ্ন, শেষ পর্যন্ত এ বছর ক্রেতারা খরচের বিষয়ে কি দাপট বজায় রাখতে পারবেন? তার ভাষ্য, বেশ কয়েকটি জরিপে খরচের বিষয়ে ক্রেতাদের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি দেখা গেছে। তবে কঠোর ঋণ ব্যবস্থা ও মূল্যস্ফীতির কারণে অনেকে কষ্টে আছেন।


banner close