মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

বিশ্বব্যাংকের কাছে ২৫ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা চাইবে বাংলাদেশ

আপডেটেড
৬ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১২:০২
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত : ৬ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১২:০১

বিশ্বব্যাংকের কাছে অতিরিক্ত ২৫০ মিলিয়ন বা ২৫ কোটি ডলারের বাজেট সহায়তা চাইবে বাংলাদেশ। রিকোভারি অ্যান্ড রেজিলিয়েন্স (আরঅ্যান্ডআর) ডেভেলপমেন্ট পলিসি ক্রেডিট (ডিপিসি) কর্মসূচির আওতায় চলতি অর্থ বছরে ২৫ কোটি ডলার ঋণের প্রস্তাব ছিল, যা এখন বাড়িয়ে ৫০ কোটি ডলার করার প্রস্তাব দিতে যাচ্ছে সরকার।

অর্থ বিভাগ এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। সম্প্রতি অর্থ বিভাগ থেকে পাঠানো এক চিঠিতে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগকে (ইআরডি) এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা করতে বলা হয়েছে এবং ডিসেম্বরের মধ্যে অর্থছাড় নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

এর আগে ২০২১-২২ অর্থবছরে ডিপিসি কর্মসূচির আওতায় বাংলাদেশকে ২৫ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা দিয়েছিল বিশ্বব্যাংক।

ইআরডি কর্মকর্তারা জানান, অর্থ বিভাগের চিঠি পাওয়ার পর এ বিষয়ে প্রস্তুতিমূলক কাজ শুরু করেছে ইআরডি। চলতি সপ্তাহে বিশ্বব্যাংকের কাছে অতিরিক্ত ২৫ কোটি ডলারের বাজেট সহায়তার প্রস্তাব দেওয়া হবে।

অর্থ বিভাগের চিঠিতে অতিরিক্ত ২৫ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা পাওয়ার যৌক্তিকতা তুলে ধরা হয়।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘এটা খুবই উৎসাহজনক বিষয় যে, দ্বিতীয় আরঅ্যান্ডআর ডিপিসিতে টার্গেট করা প্রায় সব সংস্কার পদক্ষেপ ইতোমধ্যেই অর্জিত হয়েছে। জাতীয় ট্যারিফ নীতি গ্রহণ, এই চালান পদ্ধতির বাস্তবায়ন, ব্যাংক কোম্পানি আইনে প্রয়োজনীয় সংশোধনী অন্তর্ভুক্ত করা, সুরক্ষিত লেনদেন আইন প্রণয়ন এবং মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা গ্রহণ- এর মধ্যে কয়েকটি।

‘দেশকে টেকসই উন্নয়নের ধারায় রাখতে বাংলাদেশ সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকারের বহিঃপ্রকাশ এসব সংস্কার। দ্বিতীয় ডিপিসিতে টার্গেট করা সংস্কারের মধ্যে মাত্র কয়েকটির কাজ সম্পন্ন হওয়া বাকি থাকলেও প্রথম ও দ্বিতীয় ডিপিসিতে ইতোমধ্যেই বাস্তবায়িত সংস্কার পদক্ষেপের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য।

‘অর্থ বিভাগ বিশ্বব্যাংকের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চায় যে, বিশ্বব্যাপী গ্রিনহাউস গ্যাস বেড়ে যাওয়ার পেছনে ভূমিকা না থাকলেও জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় গ্লোবাল ক্যাম্পেইনের সঙ্গে নিজেকে জড়িত রেখেছে বাংলাদেশ এবং বিশ্ব সম্প্রদায়ের জন্য একটি সাসটেইনেবল ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে দৃঢ়ভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

‘সেই লক্ষ্য পূরণে বাংলাদেশ উন্নয়ন অংশীদারদের সহযোগিতায় প্রয়োজনীয় সংস্কার বাস্তবায়নের সর্বোত্তম প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই একটি স্থিতিস্থাপক ও টেকসই ভবিষ্যৎ; এবং এ পর্যন্ত বাংলাদেশের অগ্রগতির বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে দ্বিতীয় আরঅ্যান্ডআর ডিপিসির জন্য বরাদ্দকৃত তহবিল আলোচনা এবং অর্থছাড়ের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ।’

বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এবং রিজার্ভ সংকট মোকাবেলায় বিশ্বব্যাংক ছাড়া এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) এবং এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি)-এর সঙ্গে ৪০ কোটি ডলার করে মোট ৮০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তার জন্য আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার।

চলতি মাসে দুই সংস্থার সঙ্গে এ-সংক্রান্ত ঋণ চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান ইআরডি কর্মকর্তারা।

কোভিড-১৯-এর কারণে অর্থনৈতিক সংকট এবং টিকা কিনতে সরকার বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে বাজেট সহায়তার ওপর জোর দেয়। পরবর্তীতে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলায় সরকারের বাজেট সহায়তা কার্যক্রম সম্প্রসারণ হয়েছে।

গত অর্থবছরে বাংলাদেশ বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার কাছ থেকে বাজেট সহায়তা পেয়েছে ১.৭ বিলিয়ন বা ১৭০ কোটি ডলার। তার আগের তিন বছর যথাক্রমে বাজেট সহায়তার পরিমাণ ছিল ২.৫৯ বিলিয়ন, ১.০৯ বিলিয়ন এবং ১ বিলিয়ন ডলার।


বৈদেশিক ঋণের প্রতিশ্রুতি ও অর্থছাড় বেড়েছে

সরকারের ঋণ পরিশোধের পরিমাণ বেড়েছে ৪৪.৫২ শতাংশ
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে বাংলাদেশের জন্য বৈদেশিক ঋণের প্রতিশ্রুতি ও ঋণের অর্থছাড় বেড়েছে। একই সঙ্গে বৈদেশিক ঋণ পরিশোধের চাপও বেড়েছে।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) গত রোববার প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসে উন্নয়ন সহায়তা প্রতিশ্রুতি বেড়েছে ৩০৬.১ শতাংশ, ঋণের অর্থছাড় বেড়েছে ৩.২৬ শতাংশ। একই সঙ্গে সরকারের ঋণ পরিশোধের পরিমাণ বেড়েছে ৪৪.৫২ শতাংশ।

উন্নয়ন সহযোগীরা অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে নতুন ৭.১৭ বিলিয়ন ডলার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের প্রতিশ্রুত ১.৭৬ বিলিয়ন ডলার থেকে অনেকটাই বেশি।

ইআরডি কর্মকর্তারা বলেন, ঋণ পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে, যা প্রশংসনীয়।

তারা বলেন, অর্থবছরের শুরু থেকে অনেকগুলো প্রকল্পের জন্য উন্নয়ন অংশীদারদের সঙ্গে ঋণ চুক্তির উদ্যোগ নেওয়ার কারণে এই সাফল্য এসেছে। বিপরীতে আগের অর্থবছরে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি না নেওয়ায় বেশ কয়েকটি প্রকল্পের চুক্তি বিলম্বিত হয়েছিল।

ইআরডির তথ্য অনুসারে, বেশিরভাগ ঋণের প্রতিশ্রুতি এসেছে প্রধান তিন উন্নয়ন সহযোগী এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি), বিশ্বব্যাংক ও জাপান থেকে। তিন উন্নয়ন সহযোগী সম্মিলিতভাবে ৬.০৫ বিলিয়ন ডলার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম ৭ মাসে সর্বোচ্চ ঋণের প্রতিশ্রুতি এসেছে এডিবি থেকে, মোট ২.৬২ বিলিয়ন ডলার। পাশাপাশি এই সময়ে জাপান থেকে ২.০২ বিলিয়ন এবং বিশ্বব্যাংক থেকে ১.৪১ বিলিয়ন ডলার পাওয়ার প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে।

চলতি অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি সময়কালে উন্নয়ন সহায়তা সংস্থাগুলো মোট ৪.৩৯ বিলিয়ন ডলার অর্থছাড় করেছে, আগের অর্থবছরের একই সময়ে যা ৪.২৫ বিলিয়ন ডলার ছিল।

এদিকে বৈশ্বিক পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে বাজারভিত্তিক ঋণের সুদহার বেড়েছে, যা বৈদেশিক ঋণ পরিশোধের চাপ আরও বাড়িয়েছে।

ইআরডির তথ্য অনুযায়ী, সরকার অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি মেয়াদে উন্নয়ন অংশীদারদের সুদ ও আসল পরিশোধে ১.৮৫ বিলিয়ন ডলার ছাড় করেছে, যা আগের অর্থবছরের একই সময়কালে ১.২৮ বিলিয়ন ডলার ছিল।

ইআরডির তথ্যানুসারে, অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে শুধু সুদের অর্থ পরিশোধ বেড়েছে ১০৭.৯ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের জানুয়ারি পর্যন্ত সুদ পরিশোধের জন্য ৭৬০.৭৪ মিলিয়ন ডলার ছাড় করা হয়েছে।

এই সময়ে সরকার বিভিন্ন ঋণের আসলের ১.০৯ বিলিয়ন ডলার পরিশোধ করেছে।

ইআরডি কর্মকর্তারা বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সিকিউরড ওভারনাইট ফাইন্যান্সিং রেট (সোফর) ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। এ যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে সোফর রেট ছিল ১ শতাংশের কম।

এ ছাড়া এ সময়ে বাংলাদেশের বাজারভিত্তিক সুদহারে ঋণ গ্রহণও ক্রমেই বাড়ছে, যার ফলে দেশের সুদ পরিশোধ বাড়ছে।

এডিবি থেকে বাংলাদেশের ঋণের প্রায় ৭৫ শতাংশই বাজারভিত্তিক সুদে নেওয়া। এ ছাড়া এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি) থেকেও বাজারভিত্তিক সুদহারে ঋণ নিয়ে থাকে বাংলাদেশ।

তাছাড়া বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংক থেকেও সীমিত পরিসরে বাজারভিত্তিক সুদহারে ঋণ নেয়।

ইআরডির তথ্য অনুযায়ী, বর্তমান আন্তর্জাতিক সুদের হার অব্যাহত থাকলে চলতি অর্থবছরের শেষ নাগাদ বাংলাদেশ ১.১৯ বিলিয়ন ডলার সুদ পরিশোধ করবে বলে প্রক্ষেপণ হয়েছে। গত অর্থবছরে (২০২২-২৩), বাংলাদেশের সুদ পরিশোধের পরিমাণ ছিল ৯৪৪ মিলিয়ন ডলার, এর আগের অর্থবছরে যা ছিল ৪৬৯ মিলিয়ন ডলার।

ইআরডি কর্মকর্তারা বলেন, সুদ পরিশোধের পাশাপাশি আসল পরিশোধের চাপও বাড়বে। বিভিন্ন বাজার সহায়তা ঋণ এবং কর্ণফুলী টানেল ও পদ্মা রেল লিঙ্কের মতো মেগা প্রকল্পের গ্রেস পিরিয়ড শেষ হওয়ার পর এখন এসব ঋণের আসলের অর্থ পরিশোধ করতে হবে।


দেশে ২৪ দিনে গড়ে ৬ কোটি ৮৫ লাখ ডলার প্রবাসী আয় এসেছে

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ২০:১৭
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ফেব্রুয়ারির প্রথম ২৪ দিনে দেশের প্রবাসী আয় হয়েছে ১৬৫ কোটি মার্কিন ডলার সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা। প্রবাসীরা বৈধ পথে ও ব্যাংকিং চ্যানেলে এই রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। বাংলাদেশী টাকায় যার পরিমাণ দাঁড়ায় ১৮ হাজার ১০৭ কোটি টাকা। সে হিসাবে দৈনিক গড়ে ৬ কোটি ৮৫ লাখ ডলার প্রবাসী আয় দেশে এসেছে।

রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবেদন বলছে, চলতি মাসের প্রথম ২৪ দিনে ব্যাংকিং চ্যানেলে ১৬৪ কোটি ৬১ লাখ ডলার এসেছে। এর মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১৭ কোটি ৫৫ লাখ ডলার, বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে ৬ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার, বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১৪০ কোটি ৪০ লাখ ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৩৫ লাখ মার্কিন ডলার।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৯৫ কোটি ৮৮ লাখ ডলার, ফেব্রুয়ারিতে ১৫৬ কোটি ডলার, মার্চে ২০২ কোটি, এপ্রিলে ১৬৮ কোটি, মে মাসে ১৬৯ কোটি, জুনে ২২০ কোটি, জুলাইয়ে ১৯৭ কোটি, আগস্টে ১৫৯ কোটি ৯৪ লাখ, সেপ্টেম্বর মাসে ১৩৩ কোটি, অক্টোবরে ১৯৭ কোটি, নভেম্বরে ১৯৩ কোটি ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল। এছাড়া গত বছরের ডিসেম্বর মাসে প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন ১৯৯ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স।

২০২২-২৩ অর্থবছরে মোট রেমিট্যান্স এসেছিল ২ হাজার ১৬১ কোটি ৭ লাখ মার্কিন ডলার। ২০২১-২০২২ অর্থবছরে মোট রেমিট্যান্স এসেছিল ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ মার্কিন ডলার। ২০২০-২১ অর্থবছরে রেমিট্যান্স এসেছিল ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ মার্কিন ডলার। যা ছিল সর্বোচ্চ পরিমাণ রেমিট্যান্স।


ডব্লিউটিওর মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলন শুরু কাল

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বাণিজ্য ডেস্ক

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) ১৩তম মন্ত্রীপর্যায়ের সম্মেলন আগামীকাল সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে শুরু হচ্ছে। ২৬ থেকে ২৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে সম্মেলন। সম্মেলনে ৮ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু।

২০২৬ সালে স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে উত্তরণ ঘটবে, এমন প্রেক্ষাপটে এবারের সম্মেলন বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণত দুই বছর পর পর ডব্লিউটিওর সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরামের এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এবারের সম্মেলনে কৃষি ও মৎস্য খাতের ভর্তুকি, মেধাস্বত্ব সুবিধা, ই-কমার্স এবং বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্ব পাচ্ছে।

বাংলাদেশ এলডিসিভুক্ত ও অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের স্বার্থ রক্ষার ব্যাপারে সব সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের চেষ্টা করে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ বলেন, এবারের সম্মেলনে আমরা বাংলাদেশের জন্য কোনো নির্দিষ্ট বিষয় আলাদাভাবে ফোকাস করছি না। তবে এলডিসি থেকে উত্তরণ পরবর্তীতে শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা ও মেধাস্বত্বসহ অন্যান্য বাণিজ্যিক সুবিধা যেন আরও কয়েক বছর অব্যাহত থাকে। এটা আমরা চাচ্ছি।

তিনি জানান, এলডিসি হিসেবে কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণসহ কারিগরি সহযোগিতা ও ডিসপিউট সেটেলমেন্টের যে সুবিধা পাওয়া যায়, উত্তরণের পরেও কয়েক বছর এই সুবিধা বহাল রাখতে চাই। বাংলাদেশ এ বিষয়ে জোরালো ভূমিকা রাখবে। এলডিসি উত্তরণ পরবর্তীতে মৎস্য খাতে ভর্তুকি প্রদানের সুবিধা বহাল রাখার বিষয়টিও বাংলাদেশ অগ্রাধিকার দিচ্ছে।


শেয়ার ইস্যুর অনুমতি পেল পাওয়ারগ্রিড

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত পাওয়ারগ্রিড কোম্পানি দুই দফায় সরকারের অনুকূলে সাধারণ শেয়ার ও অগ্রাধিকার শেয়ার ইস্যু করার অনুমতি পেয়েছে। কোম্পানিটিকে শর্তসাপেক্ষে এ শেয়ার ইস্যুর অনুমতি দিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, কোম্পানিটি সরকারের শেয়ার মানি ডিপোজিটের বিপরীতে দুই ধাপে শেয়ার ইস্যু করবে। প্রথম পর্যায়ে ২০ টাকায় ২০ কোটি ১১ লাখ সাধারণ শেয়ার ইস্যু করবে। যার মধ্যে অভিহিত মূল্যের ওপর ১০ টাকা প্রিমিয়াম যোগ হবে। মোট শেয়ারের দাম হবে ৪০২ কোটি টাকা।

এ পর্যায়ে ইস্যুকৃত শেয়ার কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পরিশোধিত মূলধন বৃদ্ধি করবে এবং নতুন জারি করা শেয়ারগুলো তার বিদ্যমান সাধারণ শেয়ারের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে কোম্পানিটি ৭৬৪ কোটি ১১ লাখ নন-কমিউলেটিভ প্রেফারেন্স শেয়ার ইস্যু করবে। যার ইস্যুকৃত মূল্য হবে ৭ হাজার ৬৪১ কোটি টাকা। প্রতিটি শেয়ারের দাম হবে ১০ টাকা। এই অর্থ পরিশোধিত মূলধনের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত হবে না। যার ফলে এটি কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয়ের ওপর প্রভাব ফেলবে না।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ পর্যন্ত সংস্থাটির কাছে সরকারের মোট শেয়ার মানি জমার পরিমাণ ছিল দশ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে আগের বছরের জুন পর্যন্ত জমা হয়েছে ১০ হাজার ৫৪৯ কোটি টাকা।


দুই কোম্পানির ৪০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল পিএলসি ও র‍্যানকন মোটরবাইকস লিমিটেডের বন্ড অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। গত বৃহস্পতিবার বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের সভাপতিত্বে ৯০১তম কমিশন সভায় কোম্পানি দুটির মোট ৪০০ কোটি টাকার বন্ড অনুমোদন দেওয়া হয়।

বিএসইসির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আড়াইশ কোটি টাকার প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের বন্ডটি অরূপান্তরযোগ্য, হস্তান্তরযোগ্য ও পুরোপুরি অবসায়নযোগ্য। এটি আনসিকিউরড জিরো-কুপন বন্ড, যার ডিসকাউন্ট রেট ৯-১২ শতাংশ। এটি প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ও উচ্চ সম্পদশালী একক বিনিয়োগকারীদের কাছে ইস্যু করা হবে। এ বন্ডের প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য ১০ লাখ টাকা। এ বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ উত্তোলন করে প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল আর্থিক খরচ কমিয়ে ব্যবসায় সম্প্রসারণে ব্যবহার করবে। বন্ডের ট্রাস্টি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড এবং অ্যারেঞ্জার হিসেবে কাজ করছে এনডিবি ক্যাপিটাল লিমিটেড। বন্ডটি অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ডে তালিকাভুক্ত হবে।

প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল ২০১৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় । কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ৫০০ কোটি টাকা। পরিশোধিত মূলধন ১৬২ কোটি ৮৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। রিজার্ভে রয়েছে ৩৭১ কোটি ২১ লাখ টাকা। মোট শেয়ার সংখ্যা ১৬ কোটি ২৮ লাখ ৩৩ হাজার ৫৩২। এর মধ্যে ৬০ দশমিক ৯৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। এ ছাড়া ১০ দশমিক ৪৫ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী, ৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগকারী ও বাকি ২৪ দশমিক ১৪ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে।

প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ঋণমান দীর্ঘমেয়াদে ‘‌ডাবল এ’ ও স্বল্পমেয়াদে ‘‌এসটি-১’। ৩০ জুন সমাপ্ত ২০২৩ হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন ও গত ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত প্রাসঙ্গিক অন্যান্য গুণগত তথ্যের ওপর ভিত্তি করে এ প্রত্যয়ন করেছে আলফা ক্রেডিট রেটিং লিমিটেড।

এদিকে র‍্যানকন মোটরবাইকসের দেড়শ কোটি টাকা মূল্যের বন্ডটি আনসিকিউরড, অরূপান্তরযোগ্য ও পুরোপুরি অবসায়নযোগ্য জিরো কুপন। এটি প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ও উচ্চ সম্পদশালী একক বিনিয়োগকারীদের কাছে ইস্যু করা হবে। এ বন্ডের প্রতি ইউনিটের অভিহিত মূল্য এক লাখ টাকা। এ বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ উত্তোলন করে কোম্পানিটি বিদ্যমান ব্যাংক ঋণের কিছু অংশ পুনঃঅর্থায়ন করার পরিকল্পনা করছে। বন্ডের ট্রাস্টি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে কমিউনিটি ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং অ্যারেঞ্জার হিসেবে কাজ করছে সিটি ব্যাংক ক্যাপিটাল রিসোর্সেস লিমিটেড। এ ছাড়া বন্ডটি অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ডে তালিকাভুক্ত হবে।

মোটরসাইকেলের জাপানি ব্র্যান্ড সুজুকির উৎপাদক ও পরিবেশক হলো র‌্যানকন মোটরবাইকস। সুজুকি ও র‌্যানকন যৌথভাবে গাজীপুরে কারখানা করেছে। কোম্পানিটির ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, র‌্যানকন মোটরবাইকস ২০১২ সালে যাত্রা শুরু করে। তখন তাদের কর্মী ছিল মাত্র তিনজন। সুজুকির মোটরসাইকেলের প্রথম চালান দেশে আসার আগেই অগ্রিম বিক্রি হয়ে গিয়েছিল। ২০১৮ সালে ৩৬০ জনের একটি টিম নিয়ে গাজীপুরে নিজস্ব কারখানায় সুজুকি মোটরসাইকেল উৎপাদন শুরু হয়।


বাংলাদেশ সফরে বিশ্বব্যাংকের এমডি আন্না বেজার্ড

বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আন্না বেজার্ড। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বাণিজ্য ডেস্ক

বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি), (অপারেশনস) আন্না বেজার্ড শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকায় এসেছেন। এটি তার প্রথম বাংলাদেশ সফর। বিশ্বব্যাংক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, একদিনের সফরে বেজার্ড প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সুশীল সমাজ ও বেসরকারি খাতের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এ সফরকালে আন্নার সঙ্গে সফরসঙ্গী হিসেবে আছেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস-প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইসার।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের প্রথম উন্নয়ন সহযোগীদের মধ্যে ছিল। এরপর আন্তর্জাতিক অর্থ সংস্থাটি বাংলাদেশকে ৪১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে- যার অধিকাংশই অনুদান। বাংলাদেশে বর্তমানে বিশ্বব্যাংক গ্রুপের ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইডিএ) সমর্থিত বৃহত্তম চলমান কর্মসূচি রয়েছে।


বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ

প্রতীকী ছবি।
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

দুই সপ্তাহের ব্যবধানে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আবারও ২০ বিলিয়ন ডলার ছাড়াল। বাংলাদেশ ব্যাংক গত বৃহস্পতিবার রিজার্ভের যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) হিসাব পদ্ধতি বিপিএম-৬ হিসাবে বৃহস্পতিবার দিনের শুরুতে বাংলাদেশের রিজার্ভ ছিল ২০ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার। আর ‘গ্রস’ হিসাবে ছিল ২৫ দশমিক ৩২ বিলিয়ন ডলার।

গত সপ্তাহের শেষ দিন বৃহস্পতিবার বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ ছিল ১৯ দশমিক ৯৩ বিলিয়ন ডলার। ‘গ্রস’ হিসাবে ছিল ২৫ দশমিক শূন্য পাঁচ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংক প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার রিজার্ভসহ অর্থনীতির প্রধান সূচকগুলোর হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করে। তাতে দেখা যায়, এক মাস আগে ২৪ জানুয়ারি বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ ছিল ২০ দশমিক শূন্য ২ বিলিয়ন ডলার। ‘গ্রস’ হিসাবে ছিল ২৫ দশমিক ২৩ বিলিয়ন ডলার।

চলতি মাসের প্রথম দিন ১ ফেব্রুয়ারি বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ কমে ১৯ দশমিক ৯৪ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘গ্রস’ হিসাবে নামে ২৫ দশমিক শূন্য ৯ বিলিয়ন ডলার।

৭ ফেব্রুয়ারি বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ ছিল ১৯ দশমিক ৯৩ বিলিয়ন ডলার। ‘গ্রস’ হিসাবে ছিল ২৫ দশমিক শূন্য আট বিলিয়ন ডলার। ১৫ ফেব্রুয়ারি বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ ছিল একই, ১৯ দশমিক ৯৩ বিলিয়ন ডলার। ‘গ্রস’ হিসাবে ছিল ২৫ দশমিক শূন্য পাঁচ বিলিয়ন ডলার।

সবশেষ বৃহস্পতিবার বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ বেড়ে ২০ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারে উঠেছে। ‘গ্রস’ হিসাবে দাঁড়িয়েছে ২৫ দশমিক ৩২ বিলিয়ন ডলারে।

আমদানি কমায় এবং রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয় বাড়ায় রিজার্ভ বাড়তে বাড়তে ২০২১ সালের আগস্টে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে ৪৮ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন ডলারে উঠেছিল। কিন্তু এর পর থেকে কমতে কমতে এখন উদ্বেগজনক পর্যায়ে নেমে এসেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বিপিএম-৬ হিসাবের রিজার্ভকে ‘তাৎক্ষণিক ব্যবহারযোগ্য’ রিজার্ভ হিসাবে দাবি করে।

সবশেষ ডিসেম্বর মাসের আমদানির তথ্য প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ওই মাসে পণ্য আমদানিতে বাংলাদেশের ৫ দশমিক ২৩ বিলিয়ন ডলার খরচ হয়েছে। সে হিসাবে ‘তাৎক্ষণিক ব্যবহারযোগ্য’ ২০ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ দিয়ে প্রায় চার মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব হবে।

আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী, একটি দেশের কাছে অন্তত তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ বিদেশি মুদ্রা মজুত থাকতে হয়।

গত বছরের ৭ নভেম্বর আকুর সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মেয়াদের ১ দশমিক ২১ বিলিয়ন ডলার আমদানি বিল পরিশোধের পর রিজার্ভ ২০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে এসেছিল; কমতে কমতে ১৩ ডিসেম্বর রিজার্ভ ১৯ দশমিক ১৭ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে।

এরপর আইএমএফের ৪৭০ কোটি (৪.৭ বিলিয়ন) ডলার ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি ৬৯ কোটি ডলার, ম্যানিলাভিত্তিক উন্নয়ন সংস্থা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ৪০ কোটি ডলার এবং দক্ষিণ কোরিয়ার ৯ কোটি ডলার যোগ হওয়ায় বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ বেড়ে ২১ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলারে ওঠে। ‘গ্রস’ হিসাবে রিজার্ভ ২৭ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যায়।

গত ৮ জানুয়ারি আকুর নভেম্বর-ডিসেম্বর মেয়াদের ১ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলার আমদানি বিল পরিশোধের পর বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ কমে ২০ দশমিক ৩৮ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে। ‘গ্রস’ হিসাবে নেমেছিল ২৫ দশমিক ৭৫ বিলিয়ন ডলারে।

গত বছরের ১২ জুলাই থেকে আইএমএফের কথামতো রিজার্ভের তথ্য প্রকাশ করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ‘গ্রস’ হিসাবের পাশাপাশি বিপিএম-৬ পদ্ধতি অনুসরণ করেও রিজার্ভের তথ্য প্রকাশ করা হচ্ছে। ওই দিন ‘গ্রস’হিসাবে রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ২৯ দশমিক ৯৭ বিলিয়ন ডলার। আর বিপিএম-৬ হিসাবে ছিল ২৩ দশমিক ৫৭ বিলিয়ন ডলার।

১২ জুলাইয়ের আগে শুধুমাত্র ‘গ্রস’ হিসাবের রিজার্ভের তথ্য প্রকাশ করত বাংলাদেশ ব্যাংক। এক বছর আগে ৭ ফেব্রুয়ারি ‘গ্রস’ হিসাবে রিজার্ভ ছিল ৩২ দশমিক ৬১ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মেজবাউল হক বলেন, ‘আশার কথা হচ্ছে, রিজার্ভের দুই প্রধান উৎস রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয় দুটোই বাড়ছে। এখন রিজার্ভ আস্তে আস্তে বাড়তে থাকবে।

অর্থনীতির গবেষক পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, প্রায় দুই বছর ধরে চলা রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব সব দেশেই পড়েছে। সব দেশেই ডলারের দর বেড়েছে; মূল্যস্ফীতি বেড়েছিল। রিজার্ভ কমেছে। তবে ভালো খবর যে, এই সময় রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্স দুটোই বাড়ছে। তা না হলে বিপিএম-৬ হিসাবে রিজার্ভ ১৫ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসত। এই দুই সূচক বাড়ায় আগামী দুই সপ্তাহে রিজার্ভ আরও খানিক বাড়বে বলে মনে হচ্ছে। ‘তাৎক্ষণিক ব্যবহারযোগ্য’ রিজার্ভ ২১ বিলিয়ন ডলারে গিয়ে উঠতে পারে।

‘তার পর অবশ্য আকুর জানয়ারি-ফেব্রুয়ারি মেয়াদের আকুর বিল পরিশোধ করতে হবে। সেই বিল যদি ১ বিলিয়ন ডলারও হয়, তাও কিন্তু রিজার্ভ ফের ২০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে আসবে।’

‘তাৎক্ষণিক ব্যবহারযোগ্য’ রিজার্ভ যাতে কোনো অবস্থাতেই আর ২০ বিলিয়ন ডলারের নিচে না নামে, সেজন্য সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংককে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দেন আহসান মনসুর।


কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণের বাইরে ৬২% তরুণী

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশের প্রতি পাঁচজন তরুণীর মধ্যে তিনজন কর্মসংস্থান, শিক্ষা বা প্রশিক্ষণের (এনইইটি) বাইরে আছে। এনইইটি দিয়ে মূলত ১৫-২৪ বছর বয়সি নিষ্ক্রিয় জনগোষ্ঠীকে বোঝানো হয়।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস-২০২২ অনুযায়ী ২০২২ সালে এনইইটি ক্যাটাগরিতে নারীদের অংশ ২ দশমিক ৫৩ শতাংশ বেড়ে ৬১ দশমিক ৭১ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

একই বছরে এই ক্যাটাগরির সামগ্রিক জনসংখ্যার অংশ বেড়ে ৪০ দশমিক ৬৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। ২০২১ সালে যা ছিল ৩৯ দশমিক ৬১ শতাংশ।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সালে বিশ্বব্যাপী ২১ দশমিক ৭ শতাংশ জনগোষ্ঠীকে এনইইটি হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে।

বিবিএসের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সি মানুষের সংখ্যা ৩ কোটি ১৫ লাখ, যার মধ্যে প্রায় ১ কোটি ২৮ লাখ এনইইটি ক্যাটাগরিতে পড়ে।

সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড এমপ্লয়মেন্ট রিসার্চের নির্বাহী চেয়ারপারসন রুশিদান ইসলাম রহমান বলেন, এটি অবশ্যই দেশের জন্য খারাপ পরিস্থিতি, কারণ এটি ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ডের সম্ভাবনার বড় অপচয়।

অর্থনীতিবিদদের মতে, এটি ব্যক্তি ও দেশ উভয়ের জন্য ক্ষতিকর। প্রথমত এ কারণে জনশক্তির একটি বড় অংশ অব্যবহৃত ও যথাযথ মূল্যায়নের বাইরে থেকে গেছে। দ্বিতীয়ত, এটি সামাজিক অসন্তোষ, অস্থিরতা এবং পারিবারিক সহিংসতা বাড়ায়।

জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম দপ্তরের কর্মসংস্থানবিষয়ক কর্মকর্তার মতে, এনইইটির আওতায় তরুণীদের সংখ্যা বাড়ছে, কারণ শহরাঞ্চলের কর্মক্ষেত্রে তাদের অংশগ্রহণ কমে গেছে। চাহিদার দিক থেকে নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সীমিত। পোশাকশিল্পে কর্মসংস্থান কমে যাওয়ায় স্বল্প শিক্ষিত নারীদের সুযোগ কমে গেছে।

তার মতে, গ্রামীণ নারীদের জন্য পরিবারের বাইরে কর্মসংস্থানের সুযোগ খুবই সীমিত। এ কারণে তারা শ্রমবাজারে প্রবেশে নিরুৎসাহিত হতে পারে। এ ছাড়া শিক্ষায় নারীর অংশগ্রহণ বাড়লেও কারিগরি ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে তা বলা যাবে না।

তিনি মনে করেন, অল্পবয়সি নারীদের মজুরি-বহির্ভূত চাকরিতে যাওয়ার প্রবণতা ও মহামারি-পরবর্তী সময়ে স্কুল থেকে ঝরে পড়ার উচ্চ হারই এনইইটি বৃদ্ধির মূল কারণ।

সামাজিক ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তার অভাবও একটি কারণ বলে জানান তিনি।

তার মতে, বর্তমানে তরুণদের জন্য যে প্রশিক্ষণ সুবিধা রয়েছে তা শ্রমবাজারের প্রতিযোগিতার সঙ্গে সক্ষমতা বাড়াতে উপযুক্ত নয়।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার কর্মসংস্থান ও কর্মসূচি বিশেষজ্ঞদের মতে, জিডিপির শতকরা হিসেবে শিক্ষায় কম বিনিয়োগ অনেক ক্ষেত্রে শিক্ষাকে ব্যয়বহুল করে তুলছে। ফলে অনেক তরুণ বেকার বা কর্মহীন থাকলেও শিক্ষা নিচ্ছে না। এমনকি তারা চাকরিও খোঁজে না।

তারা বলেন, সংকুচিত শ্রমবাজারের কারণে বেকার বা শ্রমশক্তির তুলনায় শূন্যপদ কম। তাই তারা চাকরি ও প্রশিক্ষণ নিতে উৎসাহী হন না।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, এনইইটিদের অবশ্যই উপযুক্ত প্রশিক্ষণের সুযোগ দিতে হবে। মানসম্মত শিক্ষা ও প্রাসঙ্গিক দক্ষতা বঞ্চিত তরুণরা স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে পারে না। তাদের কর্মসংস্থান বাড়ানোর পাশাপাশি শ্রমবান্ধব ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগের মাধ্যমে কর্মশক্তিতে তরুণদের চাহিদা বাড়াতে হবে। তবে এ জন্য কেবল উপযুক্ত নীতি নিলে হবে না, তার যথাযথ প্রয়োগ গুরুত্বপূর্ণ।

তারা বলেন, তরুণদের কর্মসংস্থান বাড়াতে ও মানসম্মত কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য নীতিমালা গ্রহণে শিক্ষা খাতের সংস্কার জরুরি হয়ে পড়েছে।

তাছাড়া শিক্ষা বা চাকরির সঙ্গে যুক্ত নন এমন তরুণরা হতাশ হয়ে অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছেন গবেষকরা। তাদের মতে, দেশের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা পূরণে সহায়তা করতে এনইইটি তরুণদের সংখ্যা কমানো দরকার, বিশেষ করে পুরুষের সংখ্যা।


ভারত বাংলাদেশে ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দিলো

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বাংলাদেশে আরও ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে ভারত। ভারতের রপ্তানিকারকরা আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই পেঁয়াজ বাংলাদেশে পাঠাতে পারবে।

আজ বৃহস্পতিবার ভারতের ভোক্তা বিষয়ক দপ্তরের সচিব রোহিত কুমার সিং নয়াদিল্লিতে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানিয়েছেন। বাংলাদেশ ছাড়াও মরিশাসে ১ হাজার ২০০ টন, বাহরাইনে ৩ হাজার টন এবং ভুটানে ৫৬০ টন পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দেওয়ার কথা জানান তিনি।

তিনি বলেন, আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের এই পরিমাণ রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

নয়াদিল্লির ওই কর্মকর্তা বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুপারিশের ভিত্তিতে বাংলাদেশ এবং অন্য তিনটি দেশে পেঁয়াজ রপ্তানির অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বর্তমানে, ৩১ মার্চ পর্যন্ত ভারতে পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। অভ্যন্তরীণ সরবরাহ বাড়াতে এবং মূল্যবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে গত বছরের ৮ ডিসেম্বর পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল ভারত।


অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত আইওএসকো এপিআরসির ভাইস চেয়ার পুনর্নির্বাচিত

অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অব সিকিউরিটিজ কমিশনসের (আইওএসকো) এশিয়া প্যাসিফিক রিজিওনাল কমিটির (এপিআরসি) ভাইস চেয়ার পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে ২০২২-২৪ সাল মেয়াদে চীনকে হারিয়ে এ পদে নির্বাচিত হলেও এবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

আগামী ২০২৪-২৬ সাল মেয়াদ পর্যন্ত এ পদে তিনি দায়িত্ব পালন করবেন। বিএসইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আইওএসকোর পক্ষ থেকে অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামকে এপিআরসির ভাইস চেয়ার পদে পুনর্নির্বাচিত হওয়ার বিষয়টি মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে বলে গত সপ্তাহে দৈনিক বাংলাকে মুঠোফোনে নিশ্চিত করেন বিএসইসি চেয়ারম্যান নিজেই। তিনি বলেন, ‘আমাকে আইওএসকোর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এবার আমার প্রতিপক্ষ হিসেবে কেউ নির্বাচন করছে না। প্রথমবার চীন প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে নির্বাচন করলেও এবার সরে দাঁড়িয়েছে। ফলে এপিআরসির ভাইস চেয়ার পদে আরও একবার সুযোগ পাওয়ার আশা করছি। তবে বিষয়টি এখনো চিঠি আকারে আমার কাছে আসেনি।’

চেয়ারম্যানকে মৌখিকভাবে জানানোর এক সপ্তাহ পর গতকাল আইওএসকোর সেক্রেটারি জেনারেল মার্টিন মোলোনি স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি চিঠি বিএসইসিতে পাঠানো হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও দায়িত্বপ্রাপ্ত মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, আগামী ২৭ মে গ্রিসের এথেন্সে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আইওএসকোর পর্ষদ সভায় অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম দায়িত্ব গ্রহণ করবেন।

এর আগে ২০২২-২৪ সালের ৩১ জানুয়ারি মেয়াদ পর্যন্ত আইওএসকোর এশিয়া প্যাসিফিক রিজিওনাল কমিটিতে ভাইস চেয়ার পদে দায়িত্ব পালন করেছেন শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। প্রথমবার ভাইস চেয়ার পদে তিনি চীনকে ইলেকট্রনিক ভোটিংয়ের মাধ্যমে পরাজিত করে নির্বাচিত হয়েছিলেন, যা বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম কোনো বড় অর্জন।

২০২২-২৪ সাল মেয়াদে এশিয়া প্যাসিফিক রিজিওনাল কমিটিতে ভাইস চেয়ার পদে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় তার কর্মদক্ষতা, নিষ্ঠা, দায়িত্বশীলতা ও যোগ্যতাকে সম্মান জানিয়ে এশিয়া প্যাসিফিক রিজিওনাল কমিটির কোনো সদস্য ভাইস চেয়ার পদে নির্বাচন করতে অংশগ্রহণ করেননি। ফলে এশিয়া প্যাসিফিক রিজিওনাল কমিটির ভাইস চেয়ার পদে আগামী ২০২৪-২৬ সালের মেয়াদে অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামকে পুনর্নির্বাচিত করেছে আইওএসকো।

তথ্যমতে, ২০১৩ সালের ২১ ডিসেম্বর আইওএসকোর মানদণ্ডের ভিত্তিতে দেশের পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ‘বি’ থেকে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে উন্নীত হয়। এ জন্য এমএমওইউ স্বাক্ষরকারী হওয়ার জন্য বিএসইসির আবেদন অনুমোদন করেছে আইওএসসিও। এতে দেশের পুঁজিবাজার অনন্য এক উচ্চতায় পৌঁছেছে। ফলে বিএসইসি আন্তর্জাতিকভাবে এনফোর্সমেন্টের সহযোগিতা পাওয়া ও দেওয়া, বিএসইসি আইওএসকোর বিভিন্ন নেতৃস্থানীয় পদে নিয়োগ ও নির্বাচনের সুযোগ লাভ এবং বিএসইসি আইওএসকোর নীতিনির্ধারণী কমিটিতে অন্তর্ভুক্তির যোগ্যতা অর্জন করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদের ডিন ও ব্যাংকিং অ্যান্ড ইনস্যুরেন্স বিভাগের অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম ২০২০ সালের ১৭ মে বিএসইসির চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পান। তারই নেতৃত্বাধীন কমিশনের নানামুখী উদ্যোগে পুঁজিবাজার গতিশীলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।


রমজান মাসে এক কোটি পরিবারকে টিসিবির পণ্য দেওয়া হবে: বাণিজ্যপ্রতিমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

টিসিবির মাধ্যমে রমজান মাসে আরও দুইবার এক কোটি পরিবারকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু।

মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা বিষয়ক টাস্কফোর্সের সভা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘টিসিবির মাধ্যমে এক কোটি পরিবারকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বিতরণ আমরা শুরু করেছি। এই রমজানে আরও দুইবার আমরা এটা করব। সেখানে চাল থাকবে ৫ কেজি, তেল থাকবে, ডাল থাকবে, চিনি, খেজুর এবং ছোলা থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের যারা ব্যবসায়ী আছেন বিভিন্ন পর্যায়ের তারা নিশ্চিত করেছেন- আগামী রমজানে যে পরিমাণ অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বাজারে থাকা দরকার বা মজুদ থাকা দরকার বা পাইপলাইনে থাকা দরকার সবগুলোই মোটামুটি পর্যাপ্ত আছে।’

‘ভারত থেকে পেঁয়াজ ও চিনি আমদানি জন্য যে প্রক্রিয়াগুলো আমরা নিয়েছি। নীতিগতভাবে ভারত সরকার পেঁয়াজের বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে। এখন আমরা অফিসিয়ালি কাগজ পেলে তা দ্রুত সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে এসে পৌঁছতে পারে, সে পদক্ষেপ আমরা নেব।’- যোগ করে বলেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘কৃষি মন্ত্রণালয় বছরে দুইবার পেঁয়াজ উৎপাদনের যে উদ্যোগ নিচ্ছে আমরা আশা করছি আগামী কয়েক বছরের মধ্যে চালের মতো এটাতেও আমাদের আমদানি নির্ভর হতে হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘মিয়ানমার সরকারের পক্ষ থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য আমরা যেন বর্ডার থেকে নদী পথে আনতে পারি সে ধরনের একটি এমওইউ ড্রাফট বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এসেছে। আমি প্রধানমন্ত্রী সঙ্গে কথা বলেছি। উনি বিষয়টিকে পজিটিভভাবে নিয়েছেন। আমাদের নৌ-পরিবহন মন্ত্রীকে নির্দেশ দিয়েছেন, যাতে দ্বিপাক্ষিক নৌ পরিবহন চুক্তির মাধ্যমে আমরা যেন মিয়ানমার থেকে সহজে পণ্য বাংলাদেশে নিয়ে আসতে পারি।’


বাণিজ্য মেলা শেষ, বিক্রি ৪০০ কোটি টাকা

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

শেষ হয়েছে ২৮তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা (ডিআইটিএফ)। এবারের মেলায় অংশ নেওয়া দেশি-বিদেশি প্যাভিলিয়ন ও স্টলগুলোতে প্রায় ৪০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হয়েছে যা গত বছরের বিক্রির থেকে প্রায় ১৫ শতাংশ বেশি। এ তথ্য দিয়েছে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো। একই সঙ্গে এবারের বাণিজ্য মেলায় প্রায় ৩৫ দশমিক ৬২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৩৯১ দশমিক ৮২ কোটি টাকার রপ্তানি আদেশ পাওয়া গেছে। এটিও গত বছরের ‍তুলনায় ১৭ দশমিক ২৫ শতাংশ বেশি।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর পূর্বাচলে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ- চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে ২৮তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা- ২০২৪ সমাপনী অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর পক্ষ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধনের মাধ্যমে ২১ জানুয়ারি থেকে এ মেলা শুরু হয়েছিল। মেলার শেষদিন উপলক্ষে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো সমাপনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান এ এইচ এম আহসান।

সমাপনী অনুষ্ঠানে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম বলেন, ‘আগামী বছর বাণিজ্য মেলা দ্বিতল করা হবে। প্যাভিলিয়ন স্টলের পাশাপাশি অংশ নেওয়া প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন সেমিনার আয়োজন করা হবে। সেমিনারে বিদেশি বায়ার ও রাষ্ট্রদূতদের সম্পৃক্ত করে রপ্তানিমুখী পণ্যের পরিধি বাড়ানো হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশের প্রতিটি গ্রামে একটি করে পণ্য উৎপাদন করা হবে। একটি গ্রাম একটি পণ্য কার্যক্রম শুরু করব আমরা। দেশের প্রতিটি গ্রামে প্রতিটি ঘরে উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কাজ করছে।’

বক্তব্য শেষে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম (টিটু) আনুষ্ঠানিকভাবে মেলার সমাপনী ঘোষণা করেন।

মেলার শেষ দিনে বিভিন্ন স্টল-প্যাভিলিয়নে বিভিন্ন অফার চললেও ক্রেতাদের চাপ তুলনামূলক অনেক কম লক্ষ্য করা গেছে। ব্যবসায়ীদের প্রত্যাশা ছিল, শেষ দিনে সকাল থেকেই ক্রেতা-দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় থাকবে। তবে তার বিপরীত চিত্র লক্ষ্য করা গেছে মেলা প্রাঙ্গণে।
এবার মেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্যাভিলিয়ন, রেস্টুরেন্ট ও স্টলে বস্ত্র, মেশিনারিজ, কার্পেট, কসমেটিক্স অ্যান্ড বিউটি এইডস, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্সস, ফার্নিচার, পাট ও পাটজাত পণ্য, গৃহসজ্জা ও গৃহস্থালি সামগ্রী, চামড়াজাত পণ্য, স্পোর্টস গুডস, স্যানিটারি, ওয়্যার, খেলনা, স্টেশনারি, ক্রোকারিজ, প্লাস্টিক, মেলামাইন পলিমার, হারবাল ও টয়লেট্রিজ, ইমিটেশন জুয়েলারি, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, ফাস্টফুড, হস্তশিল্পজাত পণ্য ইত্যাদি নানাবিধ পণ্য প্রদর্শন করা হয়েছে- যা দেশের আমদানি ও রপ্তানি পরিধিকে নতুন মাত্রা দিয়েছে।

দেশীয় পণ্যের প্রচার, প্রসার, বিপণন, উৎপাদনে সহায়তার লক্ষ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ইপিবির যৌথ উদ্যোগে ১৯৯৫ থেকে বাণিজ্য মেলা আয়োজিত হয়ে আসছে।

ইপিবির (রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো) পক্ষ থেকে জানানো হয়, মেলায় মোট ৩০৪টি দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করেছে। মেলায় বাংলাদেশ ছাড়াও ৫টি দেশের ৯টি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। দেশগুলো হলো- ভারত, হংকং, তুরস্ক, ইন্দোনেশিয়া ও সিঙ্গাপুর। এবারের বাণিজ্যমেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্যাভিলিয়ন, রেস্তোরাঁ ও স্টলের মোট সংখ্যা ছিল ৩৫১টি; যা বিগত বছরে ছিল ৩৩১টি। অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এক্সিবিশন সেন্টারের ১ লাখ ৬৬ হাজার ৩০০ বর্গফুট আয়তনের দুইটি হলে (এ ও বি) ১৭৪টি স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল।

সেন্টারের প্রধান ফটকের পূর্বপাশে বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্যাভিলিয়নসহ প্রিমিয়ার ও সংরক্ষিত ক্যাটাগরির স্টল ছিল ৬২টি। হলের পেছনে ফরেইন ক্যাটাগরির প্যাভিলিয়ন এবং প্রিমিয়ার ক্যাটাগরির প্যাভিলিয়নসহ প্রিমিয়ার ও সংরক্ষিত ক্যাটাগরির স্টল ছিল ৫৩টি।


দেশের ব্যাংকিং খাতে সন্দেহজনক লেনদেন বেড়েছে: বিএফআইইউ প্রধান

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ২১:১০
নিজস্ব প্রতিবেদক

অর্থপাচারের ৮০-৮৫ শতাংশই হচ্ছে আমদানি-রপ্তানির আড়ালে। বাণিজ্যের (আমদানি-রপ্তানি) আড়ালে ব্যাংকিং চ্যানেলে ‘আন্ডার ও ওভার ইনভেয়েসের’ মাধ্যমে এসব অর্থপাচার হয়। ব্যাংক যদি এটি বন্ধে সহযোগিতা না করে তাহলে নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন। তবে পাচার হওয়া অর্থ ফেরত আনা ও সহযোগিতায় ১০ দেশের সঙ্গে এমওইউ করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) প্রকাশিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, অনলাইনভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম, যেমন- অনলাইন জুয়া/বেটিং, ক্রিপ্টো ট্রেডিং ও ডিজিটাল হুন্ডিতে প্রতারণামূলক কার্যক্রম বৃদ্ধির কারণে গত অর্থবছরে (২০২২-২৩) সন্দেহজনক লেনদেন প্রতিবেদন (এসটিআর) এবং সন্দেহজনক কার্যক্রম প্রতিবেদন (এসএআর) ৬৫ শতাংশ বেড়েছে ।

আজ মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিএফআইইউ-প্রধান মাসুদ বিশ্বাস বলেন, ২০২২-২৩ অর্থবছরে বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিট বিএফআইইউতে ১৪ হাজার ১০৬টি সন্দেহজনক লেনদেন প্রতিবেদন (এসটিআর) এবং সন্দেহজনক কার্যক্রম প্রতিবেদন (এসএআর) জমা হয়েছে।

এসব সন্দেহজনক কার্যক্রমের মধ্যে ১২ হাজার ৮০৯টি হয়েছে ব্যাংকগুলোতে, ৯০১টি মানি ট্রান্সমিটারে এবং ১২১টি ব্যাংক-বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে (এনবিএফআই) হয়েছে। এক বছরে সন্দেহজনক লেনদেন বেড়েছে ৬৪ দশ‌মিক ৫৭ শতাংশ বা ৫ হাজার ৫৩৫টি। ২০২১-২২ অর্থবছরে এই সংখ্যা ছিল ৮ হাজার ৫৭১টি এবং ২০২০-২১ অর্থবছরে ছিল ৫ হাজার ২৮০টি।

বিএফআইইউর প্রধান জানা‌ন, সব সন্দেহজনক লেনদেন (এসটিআর) অপরাধ নয়। লেনদেন সন্দেহজনক হলে তদন্ত ক‌রি। এরপর য‌দি কোনো অপরা‌ধের তথ্য প্রমাণ মেলে তাহলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিই।

মাসুদ বিশ্বাস বলেন, মানি লন্ডারিংয়ের ৮০ শতাংশ হ‌য় ব্যাংকের মাধ্যমে। ব্যাংক য‌দি এটি বন্ধে সহযো‌গিতা না করে তাহলে নিয়ন্ত্রণ করা ক‌ঠিন। কারণ একবার মানি লন্ডারিং হয়ে গেলে তা ফেরত আনা যায় না। পাচার হওয়া অর্থ ফেরত আনা ও সহযোগিতার জন্য ১০ দেশের সঙ্গে এমওইউ করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে বিএফআইইউর প্রধান বলেন, বিএফআইইউর তথ্যের ভিত্তিতে অর্থ পাচারের মামলা হয়েছে ৫৯টি। এর মধ্যে দুদক মামলা করেছে ৪৭টি, সিআই‌ডি ১০টি এবং এন‌বিআরের বিশেষ সেল দুটি। এগুলো এখনো নিষ্পত্তি হয়‌নি।

বিএফআইইউর প্রতিবেদনে বলা হয়, পুরো অর্থবছরে সর্বোচ্চ ১২ হাজার ৮০৯টি সন্দেহজনক লেনদেনের রিপোর্ট জমা দিয়েছে ব্যাংকগুলো। তার আগের অর্থবছরে ৭ হাজার ৯৯৯টি রিপোর্ট জমা দিয়েছিল ব্যাংকগুলো। আ‌র্থিক প্র‌তিষ্ঠা‌নগুলো রিপোর্ট জমা দেয় ১২১টি। আর এক্সচেঞ্জ হাউসগুলো ৯০০ রি‌পোর্ট জমা দিয়েছে।

বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২২-২৩ অর্থবছরে সন্দেহজনক লেনদেন ও কার্যক্রমের প্রতিবেদনের ৯১ শতাংশ তফসিলি ব্যাংক জমা দিয়েছে।

বিএফআইইউর প্রধান মো. মাসুদ বিশ্বাস বলেন, এই তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে আছে রেমিটাররা, ৬ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

বিএফআইইউর তথ্যানুযায়ী, রেমিটারদের পাঠানো প্রতিবেদন ৯৬ দশমিক ৯৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

২০২২-২৩ অর্থবছরে ব্যাংকগুলো মোট ৩ কোটি ৮৬ লাখ নগদ লেনদেনের তথ্য জমা দিয়েছে এবং এনবিএফআইগুলো ১ হাজার ২৩৮টি নগদ লেনদেনের প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএফআইইউর নির্বাহী প‌রিচালক র‌ফিকুল ইসলাম, বৈদে‌শিক মুদ্রা ও নী‌তি বিভাগের প‌রিচালক সারোয়ার হোসেন, অ‌তি‌রিক্ত প‌রিচালক কামাল হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।


banner close