বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

ব্যাটারিচালিত থ্রি-হুইলার বন্ধ না হলে ব্যবস্থা নেবে বিআরটিএ

ফাইল ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত : ১৯ মে, ২০২৪ ১৮:৫১

ঢাকা মহানগরে ব্যাটারি অথবা মোটরচালিত রিকশা-ভ্যান ‌এবং রংচটা, জরাজীর্ণ, লক্কড়-ঝক্কড় মোটরযান চলাচল বন্ধ করা বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

আজ রোববার বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানান বিআরটিএ উপপরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) হেমায়েত উদ্দিন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “ব্যাটারি অথবা মোটরচালিত রিকশা বা ভ্যান বা অনুরূপ শ্রেণির থ্রি-হুইলার ঢাকা মহানগরে চলাচলের কারণে সড়কে নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। ‘সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮’ অনুযায়ী ব্যাটারি অথবা মোটরচালিত রিকশা বা ভ্যান বা অনুরূপ শ্রেণির থ্রি-হুইলার এবং ফিটনেসের অনুপযোগী, রংচটা, জরাজীর্ণ ও লক্কড়-ঝক্কড় মোটরযান চালানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ পরিস্থিতিতে ঢাকা মহানগরে ব্যাটারি অথবা মোটরচালিত রিকশা বা ভ্যান বা অনুরূপ শ্রেণির থ্রি- হুইলার এবং ফিটনেসের অনুপযোগ মোটরযান চলাচল বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। অন্যথায়, এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে বিআরটিএ।”

গত বুধবার রাজধানীর বনানীতে বিআরটিএ কার্যালয়ে এক সভায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ব্যাটারিচালিত কোনো গাড়ি (তিন চাকার) যেন ঢাকা সিটিতে না চলে। আমরা ২২টি মহাসড়কে নিষিদ্ধ করেছি। শুধু নিষেধাজ্ঞা নয়, চালাতে যেন না পারে, সে ব্যবস্থা নিতে হবে।’ বিআরটিএ ভবনে মন্ত্রীর সঙ্গে ওই সভায় ঢাকার দুই মেয়রও শহরের মধ্যে এসব ব্যাটারিচালিত যানবাহন চলাচল বন্ধের বিষয়ে তাদের সম্মতি জানান।

রাজধানীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল বন্ধের ঘোষণা প্রত্যাহারের দাবিতে আগামীকাল সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশ ও মিছিল কর্মসূচি দিয়েছে রিকশা, ব্যাটারি রিকশা-ভ্যান ও ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদ। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কর্মসূচির কথা জানায় সংগঠনটি।

এ দিকে, আজ রোববার রাজধানীর মিরপুরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চলাচল বন্ধের ঘোষণার প্রতিবাদে সকাল থেকে আন্দোলনে নেমে সড়ক অবরোধ করেন অটোরিকশা চালকেরা। রাজধানীর মিরপুরের কালশীতে দুপুরে পুলিশ ও আন্দোলনকারীদের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। পাশাপাশি বিকেলে কালশী পুলিশ বক্সে আগুন দেন আন্দোলনকারীরা। এই সংঘর্ষের মধ্যে পুলিশের রাবার বুলেট লেগে আহত হয়েছেন সাগর নামে এক পথচারী।

বিষয়:

আজ থেকে রাজধানীতে বসবে কোরবানির পশুর হাট

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১৩ জুন, ২০২৪ ০০:০৫
বাসস

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানীসহ সারা দেশে জমতে শুরু করেছে কোরবানির পশুর হাট। এরই মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাটের জন্য ট্রাকে ট্রাকে গরু আসা শুরু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় স্থায়ী দুটিসহ ২২টি পশুর হাটে আনুষ্ঠানিকভাবে কোরবানির পশু বেচা-বিক্রি শুরু হয়েছে। তবে গত কয়েক দিন ধরেই দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে কোরবানির পশু নিয়ে হাটগুলোতে আসতে শুরু করেছেন খামারি ও গরু ব্যাপারিরা।

দুই সিটি করপোরেশনের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা গণমাধ্যমকে জানান, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় গাবতলীর স্থায়ী হাটসহ ৯টি এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় সারুলিয়া স্থায়ী পশুর হাটসহ ১১টি হাট বসেছে। তবে এ বছর আদালতের নির্দেশনার কারণে আফতাবনগরে হাট বসবে না।

উত্তর সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ বিভাগের তথ্য কর্মকর্তা পিয়াল হাসান জানান, রাজধানীর উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায় বসবে স্থায়ী ১টি ও অস্থায়ী ৮টি হাট। এবার আজ ১৩ জুন থেকে ঈদের দিন সকাল পর্যন্ত ৫ দিন হাট বসবে। কোরবানির পশু কেনা-বেচা নিরাপদে ও স্বাচ্ছন্দে যাতে করা যায় সে জন্য উত্তরের হাটগুলোতে সকল ব্যবস্থাই নেওয়া হয়েছে।

বাজারে ক্রেতারা কোনো নগদ অর্থ না নিয়ে এসেও অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পশু ক্রয় করতে পারবেন জানিয়ে পিয়াল হাসান বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ইনস্ট্যান্ট ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলে যে কেউ টাকার লেনদেন করতে পারবে। এজন্য হাট এলাকায় অসংখ্য ব্যাংক বুথ থাকবে।

এ ছাড়া হাটে আসা ক্রেতাদের অজু ও নামাজের ব্যবস্থা করা হয়েছে। হাটের শৃঙ্খলা বজায় রাখতে এবার হাট ইজারাদারদের সতর্ক করা হয়েছে। কোনো বিক্রেতা যদি রাস্তায় হাট বসায় তবে ইজারাদারের জামানতের অর্থ বাজেয়াপ্ত করা হবে। ক্রেতা-বিক্রেতাদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সার্বক্ষণিক নজরদারি করবে বলেও জানান এ জনসংযোগ কর্মকর্তা।

ঢাকা উত্তরে অস্থায়ী ৮টি হাটের মধ্যে রয়েছে-উত্তরা দিয়াবাড়ির ১৬ ও ১৮ নম্বর সেক্টরের পাশের খালি জায়গা, ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের পাশের খালি জায়গা, মস্তুল চেকপোস্ট এলাকা, মিরপুর ৬ নম্বর সেকশনের ইস্টার্ন হাউজিংয়ের খালি জায়গা, ভাটারার সুতিভোলা খালের কাছের খোলা জায়গা, মোহাম্মদপুরের বছিলায় ৪০ ফুট সড়কের পাশের খালি জায়গা, ভাটুলিয়া সাহেব আলী মাদ্রাসা থেকে রানাভোলা স্লুইচগেট পর্যন্ত খালি জায়গা ও দক্ষিণখানের জামুন এলাকার খালি জায়গা।

অন্যদিকে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু নাছের বলেন, সারুলিয়ায় স্থায়ী হাটসহ ডিএসসিসি এলাকার ১১টি স্থানে পশুর হাট বৃহস্পতিবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বসবে।

তিনি জানান, প্রত্যেকটি হাটের ক্রেতা-বিক্রেতাদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য একটি করে মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রতিটি কমিটিতে একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। এ ছাড়া ডিএসসিসির নির্ধারিত গাইডলাইনের বাইরে কোনো অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে সঙ্গে সঙ্গে তারা ব্যবস্থা নেবেন। কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষের পাশাপাশি প্রত্যেকটি হাটে একটি করে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থাকবে। এ ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের তত্ত্বাবধানে নগদ অর্থের লেনদেন ছাড়া ইনস্ট্যান্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ক্রেতা-বিক্রেতারা অর্থের লেনদেন করতে পারবেন। এজন্য পর্যাপ্ত ব্যাংক বুথের ব্যবস্থাও থাকবে।

ঢাকা দক্ষিণে অস্থায়ী ১০টি হাটের মধ্যে রয়েছে-খিলগাঁও রেলগেট মৈত্রী সংঘ ক্লাবসংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, হাজারীবাগের ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজি কলেজসংলগ্ন উন্মুক্ত এলাকা, পোস্তগোলা শ্মশান ঘাটসংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, বনশ্রীর মেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, লিটল ফ্রেন্ডস ক্লাবসংলগ্ন খালি জায়গা, কমলাপুর স্টেডিয়ামসংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের খালি জায়গা, দনিয়া কলেজসংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, ধোলাইখাল ট্রাক টার্মিনালসংলগ্ন উন্মুক্ত এলাকা, আমুলিয়া মডেল টাউনের আশপাশের খালি জায়গা, লালবাগে রহমতগঞ্জ ক্লাব সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা।

এদিকে কোরবানির পশুর বর্জ্য ও অস্থায়ী পশুর হাটের বর্জ্য দ্রুততম সময়ে সরিয়ে নিতে দুই সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা এবং হাটের ইজারাদারদের সঙ্গে গত মঙ্গলবার সভা করেন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। উত্তর সিটি করপোরেশন এ ব্যাপারে ইজারাদার ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছেন।

এ ছাড়া গতকাল বুধবার মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস জাতীয় ঈদগাহ মাঠ পরিদর্শনকালে বলেন, ২৪ ঘণ্টায় কোরবানির পশু এবং ৭২ ঘণ্টা হাটের পশুর বর্জ্য পরিষ্কার করা হবে। পরিচ্ছন্ন কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিরা টানা তিন থেকে চার দিন কাজ করেন। তাই ঢাকাবাসী ঈদের দুই দিনের মধ্যে কোরবানি শেষ করলে ভালো হয়। তিনি আরও বলেন, ‘পশুর হাটের ব্যবস্থাপনা ঠিক রাখতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঢাকাবাসী খুব স্বাচ্ছন্দে কোরবানির পশু হাট থেকে কিনতে পারবেন। পশুর হাটের কারণে নগরে যানজট হবে না, সেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’


আতিক করবেন ৬ ঘণ্টায়, তাপস ২৪ ঘণ্টায়

বাঁ থেকে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম এবং ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১৩ জুন, ২০২৪ ০০:০৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণে প্রস্তুতি নিচ্ছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। এরই মধ্যে ঢাকার দুই মেয়র নিজ নিজ এলাকার বর্জ্য অপসারণের সময়সীমাও ঘোষণা করেছেন। এর মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম ঈদের দিন ৬ ঘণ্টার মধ্যে নগরের রাস্তাঘাট থেকে বর্জ্য অপসারণের ঘোষণা দেন। একইভাবে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির বর্জ্য অপসারণের ঘোষণা দেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস।

গতকাল বুধবার ঢাকায় পৃথক দুটি প্রোগ্রামে এ ঘোষণা দেন তারা। ১৭ জুন দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে ডিএনসিসি এলাকায় ৬টি ও ডিএসসিসি এলাকায় ১০টি অস্থায়ী পশুর হাট বসবে। এর বাইরে ডিএসসিসির সারুলিয়ায় পশুর হাট ও ডিএনসিসির গাবতলীতে স্থায়ী হাট রয়েছে।

রাজধানীর গাবতলীতে ডিএনসিসির বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নতুন ডাম্প এবং কম্প্যাক্টর ট্রাকের সংযোজন অনুষ্ঠানে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘গত বছর সবার চেষ্টায় উত্তর সিটি করপোরেশন ৮ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণ করতে সক্ষম হয়েছিল। এবার আমাদের টার্গেট ছয় ঘণ্টার মধ্যেই বর্জ্য অপসরণ করা। ৪০টি ট্রাক যুক্ত হওয়ায় এ বছর বর্জ্য অপসারণে আরও গতি বাড়বে। যে আটটি আধুনিক কম্প্যাক্টর ট্রাক যুক্ত হলো এগুলো সাধারণ ট্রাকের চেয়ে ১০ গুণ বেশি বর্জ্য অপসারণে সক্ষম। কম্প্যাক্ট করার মাধ্যমে একসঙ্গে অনেক বর্জ্য বহন করতে পারবে এই ট্রাকগুলো।’

৬ ঘণ্টায় কোরবানির বর্জ্য অপসারণের সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে মেয়র আতিক বলেন, ‘ঈদে বর্জ্য অপসারণের জন্য ১০ হাজারের অধিক কর্মী কাজ করবে। ১০ লাখ ৪০ হাজার পলিব্যাগ বিতরণ করা হচ্ছে। এ ছাড়া পর্যাপ্ত ব্লিচিং পাউডার, স্যাভলন, টুকরি, ফিনাইল দেওয়া হয়েছে। কাউন্সিলররা ও ডিএনসিসির কর্মীরা মাঠে সার্বক্ষণিক কাজ করবেন। আমি নিজে মাঠে থাকব। জনগণকে অনুরোধ করছি যত্রতত্র কোরবানির বর্জ্য ফেলবেন না। নির্দিষ্ট স্থানে রেখে দেবেন। গতবারের মতো জনগণের সহযোগিতা পেলে নির্ধারিত ৬ ঘণ্টায় কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করব।’

অপরদিকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণের ঘোষণায় ডিএসসিসির মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস ঈদের দ্বিতীয় দিনের মধ্যে কোরবানি শেষ করার আহ্বান জানান। মেয়র বলেন, পশুর হাটের ব্যবস্থাপনা ঠিক রাখতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঢাকাবাসী খুব স্বাচ্ছন্দ্যে কোরবানির পশু হাট থেকে কিনতে পারবেন। হাটের কারণে যাতে নগরে যানজট না হয় সেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।


পল্টনে ফায়েনাজ টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর পল্টনে ফায়েনাজ টাওয়ার নামে বহুতল ভবনে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। ফায়ার সার্ভিসের ৫ ইউনিটের চেষ্টায় সন্ধ্যা ৭টা ২৬ মিনিটের দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

তবে এ আগুনের ধোঁয়ায় অসুস্থ হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) জরুরি বিভাগে চিকিৎসারত অবস্থায় রয়েছেন শাহিদা (৬০) নামের এক নারী।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে অসুস্থ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢামেক জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী ইনচার্জ (এএসআই) মো. মাসুদ মিয়া।

তিনি বলেন, পল্টনে বহুতল ভবনে লাগা আগুনে অসুস্থ হয়ে এক নারীকে ঢাকা মেডিক্যালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়েছিল। পরে সেখান থেকে তাকে হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে। সেখানে তার চিকিৎসা চলছে।

এর আগে, আজ বুধবার সন্ধ্যা ৬টা ৪৮ মিনিটে আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে।

সে সময় ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার বলেন, পল্টনের ফায়েনাজ টাওয়ারে আগুন লাগার বিষয়টি জেনেছি আমরা ৬টা ৪৮ মিনিটে। খবর পেয়ে তখন ঘটনাস্থলে ৫টি ইউনিট পাঠানো হয়।


পল্টনে ফায়েনাজ টাওয়ারে আগুন

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১২ জুন, ২০২৪ ১৯:৪১

রাজধানীর পল্টনে অবস্থিত বহুতল বিশিষ্ট ভবন ফায়েনাজ টাওয়ারে আগুন লেগেছে।

আজ বুধবার সন্ধ্যা ৬টা ৪৮ মিনিটের দিকে আগুন লেগেছে বলে জানা যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার বলেন, পল্টনের ফায়েনাজ টাওয়ারে আগুন লাগার বিষয়টি জেনেছি আমরা ৬টা ৪৮ মিনিটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ৫টি ইউনিট পাঠানো হয়েছে। আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ চলছে। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী আগুনের কারণ ও হতাহতের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের প্রথম ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ৬টা ৫৮ মিনিটে। এরপর আগুনের তীব্রতা বেশি থাকায় পরবর্তীতে আরও চারটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণ কাজে যোগ দেয়।

১৫তলা ভবনের পাঁচ তলা থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।


‘৬ ঘণ্টার মধ্যে পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হবে’

ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম। ফাইল ছবি
আপডেটেড ১২ জুন, ২০২৪ ১৪:৪০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঈদের দিন ছয় ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

ডিএনসিসির বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নতুন ৩২টি ড্রাম ট্রাক ও ৮টি কম্প্যাক্টর ট্রাক সংযোজন কার্যক্রম উদ্বোধন শেষে আজ বুধবার একথা বলেন তিনি।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ঈদের দিন ৬ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণ করা হবে। কোরবানির পশুর বর্জ্য তোলার জন্য ১০ লাখ ৪০ হাজার পলিথিন দেয়া হয়েছে নগরবাসীকে। এ ছাড়া সঙ্গে রয়েছে ডেটল ও ফিনাইল। ঈদের দিন ৯ হাজার ৫০০ কর্মী কাজ করবেন।

৪০টি ডাম্প ও কম্প্যাক্টর ট্রাক উদ্বোধন করে তিনি আরও বলেন, প্রথমবারের মতো ঢাকা উত্তর সিটি নিজস্ব অর্থায়নে গাড়ি কিনেছে। ৩০ কোটি টাকা দিয়ে গাড়িগুলো ক্রয় করা হয়েছে। এরমধ্যে ভারত থেকে আনা হয়েছে ৩২টি ড্রাম ট্রাক আর ৮টি কম্প্যাক্টর ট্রাক জাপান থেকে কেনা হয়েছে। আগামী বছর জাপান থেকে আরও ২০টি ট্রাক ক্রয় করা হবে।

৪০টি ডাম্প ও কম্প্যাক্টর ট্রাক যোগ হওয়ায় প্রতিদিন ৩৫০ টন বর্জ্য অপসারণের সক্ষমতা বৃদ্ধি পেল বলেও জানান তিনি।

বিষয়:

২৪ ঘণ্টার ভেতর কোরবানির পশুর বর্জ্য পরিষ্কার করা হবে: তাপস

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানি ও হাটের পশুর সব ধরনের বর্জ্য পরিষ্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন মেয়র ফজলে নূর তাপস।

জাতীয় ঈদগাহ মাঠ পরিদর্শনকালে বুধবার সকালে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র বলেন, এর মধ্যে ২৪ ঘণ্টায় কোরবানির পশু এবং ৭২ ঘণ্টা হাটের পশুর বর্জ্য পরিষ্কার করা হবে। পরিচ্ছন্ন কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিরা টানা তিন থেকে চার দিন কাজ করেন। তাই ঢাকাবাসী ঈদের দুই দিনের মধ্যে কোরবানি শেষ করলে ভালো হয়।

তাপস বলেন, পশুর হাটের ব্যবস্থাপনা ঠিক রাখতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঢাকাবাসী খুব স্বাচ্ছন্দে কোরবানির পশু হাট থেকে কিনতে পারবেন। পশুর হাটের কারণে নগরে যানজট হবে না, সেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

জাতীয় ঈদগাহে ৩৫ হাজার মানুষ নামাজ পড়বেন জানিয়ে তিনি বলেন, সকাল সাড়ে সাতটায় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। বৃষ্টির কারণে নামজে যেন বিঘ্ন না ঘটে সে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি নারী, কূটনীতিকদের নামাজে অংশ নেওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

জাতীয় ঈদগাহে রাষ্ট্রপতি নামাজ আদায় করবেন জানিয়ে তিনি বলেন, ঈদের জামাত নির্বিঘ্ন করতে সব ব্যবস্থাপনা গ্রহণ করা হয়েছে।

বিষয়:

‘কোরবানির হাট-পশুর বর্জ্য আলাদা ব্যবস্থাপনায় অপসারণ হবে’

ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

কোরবানির পশুর হাটের বর্জ্য ও জবাইকৃত পশুর বর্জ্য এবার আলাদা আলাদা ব্যবস্থাপনায় অপসারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

নগর ভবনের মেয়র হানিফ অডিটোরিয়ামে আজ মঙ্গলবার কোরবানিকৃত পশুর বর্জ্য ও অস্থায়ী পশুর হাটের বর্জ্য দ্রুততম সময়ে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনায় অপসারণের লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত এক সমন্বয় সভায় তিনি এ তথ্য জানান।

মেয়র তাপস বলেন, আগের বছরগুলোতে ওয়ার্ডভিত্তিক কোরবানির পশুর বর্জ্য ও হাটের বর্জ্য একইসাথে অপসারণ করা হতো। দেখা যেত, একই যান-যন্ত্রপাতি ও জনবল দুই জায়গায় কাজ করছে। কিন্তু গত বছরগুলোর অভিজ্ঞতার আলোকে এবার আমরা নতুন কর্মপরিকল্পনা নিয়েছি। আপনাদেরকে আর হাটের বর্জ্য নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। আপনারা শুধু ওয়ার্ডভিত্তিক বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করবেন। প্রতিটি হাটের জন্য আমরা আলাদা আলাদা জনবল ও যান-যন্ত্রপাতি নিশ্চিত করেছি।

ঈদের দ্বিতীয় দিনের মধ্যে কোরবানির কার্যক্রম শেষ করতে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান জানিয়ে মেয়র বলেন, গত বছরগুলোতে আমরা ঢাকাবাসীকে ঈদের দ্বিতীয় দিনের মধ্যে কোরবানির পশু জবাই কার্যক্রম শেষ করার আহ্বান জানিয়েছি। সেই প্রেক্ষিতে আগের তুলনায় জনগণ এখন অনেকটাই উদ্বুদ্ধ হয়েছে, সচেতন হয়েছে। ঈদের তৃতীয় দিনের আগে যে পরিমাণ পশু কোরবানি দেওয়া হতো এখন তা অনেক কমে গিয়েছে। তাই দুই দিনের মধ্যে কোরবানি কার্যক্রম শেষ করতে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার এই আহ্বান অব্যাহত রাখতে হবে।

প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাসিম আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান, সচিব আকরামুজ্জামানসহ আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়:

রাজধানীতে পৃথক দুই সড়ক দুর্ঘটনায় দু’জন নিহত

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীতে পৃথক দু’টি সড়ক দুর্ঘটনায় দু’জন নিহত হয়েছেন। আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কারওয়ান বাজার রেললাইন সংলগ্ন শুকটি পট্টিতে ট্রেনের ধাক্কায় অজ্ঞাতপরিচয় (৩৫) এক ব্যক্তি নিহত হন।

রেললাইন পার হওয়ার সময় ট্রেনের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক বেলা ১১টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে তেজগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসি। পরে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জানান ওই ব্যক্তি আর বেঁচে নেই।

এসআই আরও জানান, ঘটনাস্থলের আশেপাশের লোকদের জিজ্ঞাসা করে জানতে পারি ওই ব্যক্তি রেললাইন পার হওয়ার সময় ট্রেনের ধাক্কায় গুরুতর আহত হন। প্রাথমিক তদন্তে আমরা তার নাম পরিচয় জানতে পারিনি। আমরা বিষয়টি রেলওয়ে থানা পুলিশকে জানিয়েছি। তারা ঘটনার তদন্ত করবেন।

অন্যদিকে রাজধানীর খিলক্ষেতের ৩০০ ফিটে দ্রুতগামী গাড়ির ধাক্কায় অজ্ঞাত পরিচয়ের এক নারী (৫০) নিহত হয়েছে। সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মুমূর্ষু অবস্থায় ওই নারীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে মৃত ঘোষণা করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে খিলক্ষেত থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) দীন মোহাম্মদ জানান, আমরা খবর পেয়ে খিলক্ষেতের ৩০০ ফিট এলাকায় অজ্ঞাত ওই নারীকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি। পরে দ্রুত তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে চিকিৎসক জানান ওই নারী আর বেঁচে নেই।

এসআই আরও জানান, ঘটনাস্থলের আশপাশের লোকদের জিজ্ঞাসা করে আমরা ওই নারীর নাম পরিচয় জানতে পারিনি। আমরা শুধু এতোটুকু জেনেছি দ্রুতগামী কোনো একটি গাড়ি তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে রেখে যায়। আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে আমরা ওই গাড়িটি শনাক্তের চেষ্টা করছি। প্রযুক্তি সহায়তায় ওই নারীর নাম পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মর্গে হয়েছে। এ বিষয়ে আইনি প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।


বিপুল পরিমানে ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধারসহ গ্রেপ্তার ২

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানী নয়াপল্টন ও খিলগাঁও এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন মোবাইল অপারেটরের ৩০ হাজার সিম কার্ড ও বিপুল পরিমাণ বিটিআরসির অনুমোদনবিহীন অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)-৩।
এসব অবৈধ ভিওআইপি ব্যবহার করে দেশ থেকে বহির্বিশ্বে টেলিযোগাযোগ ব্যবসা করার অভিযোগে মো. সাইফুল ইসলাম (৪০) ও আব্দুর রহিম রাজ (৩৮) নামে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল রোববার রাতে খিলগাঁও ও আজ সোমবার সকালে পল্টনের একটি বাড়িতে অভিযান চালায় র‌্যাব।
অভিযানে সাইফুলের এজিবি কলোনীর বাসা থেকে বিভিন্ন পোর্টের ১৬টি সিমবক্স (৫১২ পোর্টের ৩টি সিমবক্স, ২৫৬ পোর্টের ৫টি সিমবক্স, ১২৮ পোর্টের ৫টি সিমবক্স, ১৬ পোর্টের ৩টি সিমবক্স), ৫টি ওয়ারলেস রাউটার, ৬টি সুইচ, ২৫টি জিএসএম এন্টিনা, ৩টি মিনি পিসি, ৩টি মিডিয়া কনভার্টার, ১টি এসএসডি হার্ড ডিস্ক, ১টি ল্যাপটপ, ১টি সিপিও, ২টি পাওয়ার ক্যাবল, ২টি ইউএসবি ক্যাবল, ২টি চার্জার, ২টি মোবাইল ফোন, বিভিন্ন কোম্পানির প্রায় ৩০ হাজার সিমকার্ড, ১টি মাইক্রোটিক রাউটার, ৫টি পেনড্রাইভ ও ৪ রাউন্ড গুলিসহ একটি বিদেশি পিস্তল উদ্ধার করা হয়।
অভিযান শেষে আজ সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. ফিরোজ কবীর।
তিনি বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন চক্র অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আসছে। গোয়েন্দা সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৩ জানতে পারে, কতিপয় অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায়ি নয়াপল্টন এলাকায় একটি বাড়িতে বিটিআরসির অনুমোদনবিহীন অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জামাদি স্থাপনের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে বহির্বিশ্বের সঙ্গে টেলিযোগাযোগের ব্যবসা করে আসছে। পরে সোমবার সকালে নয়াপল্টনের ওই বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এ সময় অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জাম, চার রাউন্ড পিস্তলের গুলি জব্দ এবং অবৈধ ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়।
এছাড়া প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, খিলগাঁও থেকে গ্রেপ্তার হওয়া রহিম তিন বছর ধরে অবৈধভাবে ভিওআইপি সরঞ্জাম দেশের বিভিন্ন স্থানে স্থাপন করে বহির্বিশ্বের সঙ্গে টেলিযোগাযোগ ব্যবসা করছে। এতে করে সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে।


ডেঙ্গুর তথ্য দিন, ১৫ মিনিটে সেবা দেবো: ডিএসসিসি মেয়র

সোমবার ঢামেক হাসপাতাল প্রাঙ্গণে ‘সব সরকারি হাসপাতালে বিশেষ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও মশক নিধন’ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। ছবি: পিআইডি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকাবাসীকে এডিস মশার প্রজননস্থল সম্পর্কিত এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট অংশীজনদেরকে রোগীর সঠিক ও যথাযথ তথ্য দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

আজ সোমবার সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল প্রাঙ্গণে ডেঙ্গু রোগ নিয়ন্ত্রণে ডিএসসিসির আওতাধীন এলাকার ‘সব সরকারি হাসপাতালে বিশেষ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও মশক নিধন’ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মেয়র তাপস এসব কথা বলেন।

প্রয়োজনীয় তথ্য দিলে ১৫ মিনিটে সংশ্লিষ্ট সেবা দিতে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি রয়েছে বলেও জানান তিনি।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, ‘এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংস ও ডেঙ্গু রোগ নিয়ন্ত্রণে মশককর্মী ও পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের নিয়ে আমরা যৌথ অভিযান চালাচ্ছি। আমরা যেমন পরিষ্কার করে দেবো, তেমনই মশার লার্ভাও ধ্বংস করবো। লার্ভা ধ্বংস করার মাধ্যমেই এডিস মশার বিস্তার সম্পূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারি। সেজন্য আমি সবাইকে আহ্বান করবো, আপনারা আমাদেরকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করুন। তথ্য পাওয়ার ১৫ মিনিটের মধ্যে সেবা দিতে আমরা প্রস্তুত আছি।’

মশক নিধনে সবাইকে সচেতন হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে মেয়র তাপস বলেন, ‘মশক নিধনে আমাদের নিয়মিত কার্যক্রম চলমান রয়েছে। মাঠ পর্যায়ে পর্যাপ্ত মানসম্পন্ন কীটনাশক, সরঞ্জামাদি ও জনবল রয়েছে। কিন্তু বাড়ির আঙিনা, ছাদ ও চারপাশে যদি মশার প্রজননস্থল সৃষ্টি হয়, সে তথ্য আমাদের সরবরাহ করার নিবেদন রইলো। যত বেশি তথ্য পাবো, মাঠ পর্যায়ে আমাদের কার্যক্রম আরও বেশি কার্যকর হবে। আমরা মশক নিধন কার্যক্রম আরও বেশি ফলপ্রসূ করতে পারবো।’

তাপস বলেন, নর্দমাতে পানি প্রবাহ না থাকার কারণে পানি জমে থাকে। এতে এডিস মশার উৎস তৈরি হয়। আবার সরকারি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মতো পরিত্যক্ত মালামালও রেখে দেওয়া হয়েছে। সেখান থেকেও কিন্তু উৎস সৃষ্টি হয়। তাই সবাইকে ‘নিয়মিত প্রতিদিন, জমা পানি ফেলে দিন’ এই প্রতিপাদ্য মানার অনুরোধ করছি।

এ সময় ডেঙ্গু রোগীর অপর্যাপ্ত তথ্য সরবরাহ ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের মন্তব্যের বিষয়ে তাপস বলেন, ‘সিটি করপোরেশন তার দায়িত্ব সম্পর্কে সম্পূর্ণ ওয়াকিবহাল এবং মাঠ পর্যায়ে তা যথাযথভাবেই পরিপালন করছে। আপনারা পৃথিবীর অন্যান্য দেশের তথ্য-উপাত্ত যাচাই করে দেখুন। অনেক দেশেই আমাদের চেয়ে রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি, কিন্তু মৃত্যুর হার অনেক কম। আমরা প্রতিরোধ পর্যায়ে কাজ করি। কিন্তু ডেঙ্গু রোগীর সঠিক চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব।’

যথাযথ ও নিয়মমাফিক চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার পরও কারও যদি অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু হয়, তাহলে জনগণ সেটা বিবেচনা করেন। সেবা পেয়েছেন বলে উপলব্ধি করেন। কিন্তু গাফিলতি, অবহেলা কিংবা সঠিকভাবে চিকিৎসা না পাওয়ার কারণে যদি কোনও রোগীর মৃত্যু হয়— তাহলে জনমনে ক্ষোভের সঞ্চার হয়। এ ছাড়া হাসপাতালের বহির্বিভাগে যেসব রোগীর চিকিৎসা দেওয়া হয়, তাদের তথ্য আমাদেরকে দেওয়া হয় না। যদিও সেসব রোগী ও ডেঙ্গু রোগের সম্ভাব্য উৎসস্থল এবং তথ্যের অভাবে তারা আমাদের কার্যক্রমের বাইরে থেকে যান। সেই জায়গাতে আমরা মনে করি, দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ আরও দায়িত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।’

অনুষ্ঠানে ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আসাদুজ্জামান বলেন, যেকোনও রোগের ক্ষেত্রে আমরা যদি তা প্রতিরোধ করতে পারি, তাহলে এতে খরচ কম হয়, দুর্ভোগ কম হয়। ডেঙ্গু রোগেও সেটা প্রযোজ্য। এটি মশাবাহিত ভাইরাসজনিত রোগ। আর ভাইরাসের কোনও ওষুধ নেই। কাজেই আমি সবাইকে অনুরোধ করবো, যেন ডেঙ্গু রোগ প্রতিরোধে আমরা সজাগ থাকি। সিটি করপোরেশন কমন স্পেসগুলো পরিষ্কার করবে এবং সেখানে যেন পানি না জমে, সে ব্যবস্থা করবে। কিন্তু আমাদের বাড়ি, আঙিনা ও চারপাশ আমাদেরকেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। তাই, ডেঙ্গু রোগ নিয়ন্ত্রণে নিজ স্বার্থেই আমাদেরকে সচেতন হতে হবে।’

অনুষ্ঠানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান, ভারপ্রাপ্ত প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফজলে শামসুল কবির, ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ রতন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

বিষয়:

জমি দখল-কিশোর গ্যাং বরদাশত করা হবে না: মেয়র তাপস

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

জমি দখল ও কিশোর গ্যাং বরদাশত করা হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

আজ রোববার নগরভবন প্রাঙ্গণে মিরনজিল্লা পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিবাসের বাসা বরাদ্দপত্র ও চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এ কঠোর হুঁশিয়ারি দেন।

মেয়র তাপস বলেন, ‘মিরনজিল্লায় যে কাঁচাবাজার রয়েছে, সেটি ২০১৬ সালে পুনর্নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছিল। প্রায় আট বছর পর আমরা সেটি বাস্তবায়নে যাচ্ছি। এ প্রসঙ্গে আমি আপনাদের বলতে চাই, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কোনো জমি কোনো ভূমিদস্যুর হাতে আমরা ছেড়ে দিতে পারি না।’

মিরনজিল্লায় কোনো মাদকচক্র, কিশোর গ্যাং ও অপরাধ চক্রের আখড়া হতে দেব না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সব জমি আমরা দখলমুক্ত করব এবং আমাদের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং ঢাকাবাসীর জন্য আমরা সেটা কাজে লাগাব; জনকল্যাণের কাজে লাগাব। ঢাকাবাসীর জীবনমান উন্নয়নে ও সুন্দর এবং বাসযোগ্য পরিবেশ নিশ্চিত করতে আমরা কাজ করে যাব।’

বিগত চার বছরে নিয়োগপ্রাপ্ত পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সবাই হরিজন ও তেলেগু সম্প্রদায়ের এবং আগামীতেও তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে জানান মেয়র।

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হরিজন, তেলেগুসহ পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চাকরি নিশ্চিত করেছেন ও বাসা নিশ্চিত করেছেন। আজকে আমরা সেটাই বাস্তবায়ন করে চলেছি। বিগত ৪ বছরে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে এ পর্যন্ত ২৫০ জন নতুন পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিয়োগ দিয়েছি। এরা সবাই হরিজন ও তেলেগু সম্প্রদায়ের। এর বাইরে আমরা নিয়োগ দিইনি’- যোগ করে বললেন মেয়র তাপস।

তিনি আরও বলেন, ‘আগামীতে যে নিয়োগ দেওয়া হবে, সেখানেও হরিজন সম্প্রদায়কে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এ ছাড়া বাসা বরাদ্দের ক্ষেত্রে স্ব-স্ব সম্প্রদায়কে আলাদা আলাদাভাবে বাসা বরাদ্দ দিচ্ছি, যাতে করে কোনো রকম সাংঘর্ষিক কোনো কিছু না হয় এবং শৃঙ্খলা থাকে। সুতরাং আমরা মানবতার জননী শেখ হাসিনার রূপকল্প পরিপূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করে চলেছি।’

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, ‘কোনো সম্প্রদায়ের অজুহাত দিয়ে আমাদের জমি বছরের পর বছর দখল করে সেখানে মাদকের আখড়া বানাবে, কিশোর গ্যাং বানাবে, অপরাধ চক্র সৃষ্টি করবে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন তা বরদাশত করবে না। সুতরাং সব অবৈধ ভূমিদস্যদের উচ্ছেদ করে আমরা আমাদের সব সম্পদ-সম্পত্তি ঢাকাবাসীর কল্যাণে নিয়োজিত করব। আজকে যে ৬৬টি বাসা বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে, আপনারা এগুলো দেখভাল করবেন। এগুলো আপনাদের সম্পদ, সিটি করপোরেশনের সম্পদ।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনাদের জীবনযাপনে যেন অবৈধ কোনো চক্র কোনো ধরনের পাঁয়তারা সৃষ্টি করতে না পারে, সেদিকে আপনারা সচেতন থাকবেন। প্রয়োজনে আমাদের জানাবেন। আমরা সেসব কঠোরভাবে দমন করার ব্যবস্থা নেব ইনশাল্লাহ।’

বিষয়:

পুলিশের গুলিতে পুলিশ নিহত: ৭ দিনের রিমান্ডে কনস্টেবল কাওসার

কনস্টেবল কাওছার আলী। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর গুলশান থানার বারিধারায় ডিপ্লোমেটিক জোনে পুলিশের গুলিতে আরেক পুলিশ সদস্য নিহতের ঘটনায় করা মামলায় আসামি কনস্টেবল কাওসার আলীর ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আজ রোববার তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার সুষ্ঠুতদন্তের জন্য তাকে ১০ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাকিল আহাম্মদ এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার সূত্রে জানা যায়, গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর বারিধারায় ফিলিস্তিন দূতাবাসের সামনে নিরাপত্তার কাজে নিয়োজিত পুলিশ সদস্যকে গুলি করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে আরেক পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে। নিহত পুলিশ সদস্য ডিপ্লোম্যাটিক সিকিউরিটি ডিভিশনে কর্মরত ছিলেন।

গুলির ঘটনায় সাজ্জাদ হোসেন নামে জাপান দূতাবাসের এক গাড়িচালক আহত হন। তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আজ রোববার গুলশান থানায় মামলা করেছেন নিহত মনিরুল হকের ভাই মো. মাহাবুবুল হক। এতে কনস্টেবল কাওসার আলীকে আসামি করা হয়েছে।


গুলশানে পুলিশের গুলিতে পুলিশ সদস্য নিহত

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর গুলশানে পুলিশের এলোপাতাড়ি গুলিতে পুলিশেরই এক সদস্য নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় এক পথচারীও গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

গতকাল শনিবার দিনগত রাত ১২টার দিকে গুলশানে ফিলিস্তিনি দূতাবাসের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত কনস্টেবলের নাম মো. মনিরুল। তাকে গুলি করেন কনস্টেবল কাউসার আহমেদ।

গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‌‘সম্ভবত মানসিক সমস্যার কারণে আমাদের এক কনস্টেবল আরেক কনস্টেবলকে গুলি করেছে। এ ঘটনায় পথচারী আহত হয়েছে বলে শুনেছি।’

ওসি আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, গুলি করা পুলিশ সদস্য মানসিক বিকারগ্রস্ত।

এ বিষয়ে গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) রিফাত রহমান শামীম বলেন, ‌‘গুলশান কূটনৈতিক এলাকায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে আছে পুলিশ সদস্য। আমরা এমন খবর পাওয়া মাত্র ঘটনাস্থলে যাচ্ছি। সেখানে ডিপ্লোম্যাটিক সিকিউরিটিসহ সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।’

বিষয়:

banner close