রোববার, ২৩ জুন ২০২৪

বৈরী আবহাওয়ায় মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ

ফাইল ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত : ২৭ মে, ২০২৪ ১০:৪৩

বৈরী আবহাওয়ার কারণে মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ রেখেছে কর্তৃপক্ষ। আজ সোমবার সকাল থেকে মেট্রোরেল চলাচল করছে না।

মেট্রোরেলের এক কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে সৃষ্ট ঝোড়ো হাওয়ায় মেট্রোরেলের বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনে কিছুটা সমস্যা দেখা দিয়েছে। এ কারণে প্রথমে বন্ধ হয়ে যায় ট্রেন চলাচল, পরে চালু করে মাঝপথে থেমে থাকা যাত্রীদের নিকটবর্তী স্টেশনে নামিয়ে দেওয়া হয়। মেট্রো চলাচল স্বাভাবিক করতে কাজ চলছে।

সকাল সাড়ে ৬টায় রাজধানীর আজিমপুর-নিউমার্কেট এলাকায় দেখা গেছে, এখানে থেমে থেমে আসা দমকা বাতাসের সঙ্গে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হচ্ছে। রাস্তায় যানবাহন কম দেখা গেছে। রাস্তায় সিএনজি বা রিকশার উপস্থিতিও অনেক কম। অনেককে ভিজে ভিজে তাদের কর্মস্থলে যেতে দেখা গেছে।

এদিকে, সকাল থেকেই ঢাকাতে ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। সেইসঙ্গে রয়েছে বাতাসের আধিক্য। এ সময় কর্মজীবী লোকজন চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

এর আগে, গত শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীরা। পরে সোয়া এক ঘণ্টা পর চলাচল শুরু হয়।

বিষয়:

গাড়ির ধাক্কায় হানিফ ফ্লাইওভারে বৃদ্ধের মৃত্যু

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর ওয়ারী থানার টিকাটুলি এলাকায় হানিফ ফ্লাইওভারের ওপর রাস্তা পারা হবার সময় অজ্ঞাতনামা এক গাড়ির ধাক্কায় একজন বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন।

আজ শুক্রবার দুপুর আড়াইটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত বৃদ্ধকে হাসপাতালে নিয়ে আসা পথচারী বলেন, ‘ওয়ারী থানার টিকাটুলি এলাকায় হানিফ ফ্লাইওভারের ওপরে তিনি রাস্তা পার হওয়ার সময় দ্রুতগতির একটি গাড়ি তাকে ধাক্কা দেয়। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় বৃদ্ধ পড়ে থাকলে আমি তাকে ঢাকা মেডিকেলের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসি। আনার পরে ওই বৃদ্ধকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, মরদেহটি হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মর্গে রাখা হয়েছে। আমরা বিষয়টি ওয়ারী থানায় জানিয়েছি।


সদরঘাটে ঢাকামুখী মানুষের ভিড়

পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ শেষে ঢাকায় ফিরছে কর্মজীবী মানুষ। ছবিটি বৃহস্পতিবার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এলাকা থেকে তোলা। ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
জবি প্রতিনিধি

ঈদের ছুটি শেষে কর্মজীবী মানুষ ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে। যদিও গতকাল বুধবার (১৯ জুন) থেকে সরকারি অফিস-আদালত, ব্যাংক-বিমা, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিতসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঈদের ছুটি শেষে খুলেছে। তবে অনেকেই ঈদের ছুটির সঙ্গে দুদিন ছুটি নেওয়ায় আজ বৃহস্পতিবারও অনেককে নগরীতে ফিরতে দেখা গেছে।

তাই দেশের প্রধান নদীবন্দর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে ঢাকামুখী মানুষের ভিড় ছিল অনেক। গ্রামে যাওয়া মানুষ ক্রমিই ঢাকা ফিরতে থাকায় চাপ কম লক্ষ্য করা গেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত সদরঘাটের লঞ্চ টার্মিনালগুলোতে মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এ দিন দুপুরের পর থেকেই ঢাকা-বরিশাল নৌরুটের সবগুলো লঞ্চ ডেকে পরিপূর্ণ যাত্রী নিয়ে ঘাটে ভিড়ে। ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়েও কিছু লঞ্চ ঢাকার এসে পৌঁছায়। এ ছাড়া নিকটবর্তী জেলা চাঁদপুর, ভোলা, ইলিশা থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চগুলোও ছিল কানায় কানায় পূর্ণ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সদরঘাট টার্মিনাল থেকে দেশের ৩১টি নৌপথে নিয়মিত ৭০টি লঞ্চ চলাচল করে। তবে ঈদুল আজহায় তা দ্বিগুণের বেশি করা হয়েছে। ঈদের আগে-পরের প্রায় ১৫ দিন ছোটবড় মিলিয়ে ১৭৫টিরও বেশি লঞ্চ যাতায়াত করেছে। আগে ঢাকা থেকে ৪১টি নৌপথে লঞ্চসহ পণ্যবাহী বিভিন্ন নৌযান চলত। নদী খনন ও ড্রেজিংয়ে অনিয়মের কারণে ঢাকা থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলগামী ১০টি নৌপথ বন্ধ হয়ে গেছে।

এদিকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে গতকাল সকাল থেকেই একে একে ভিড়তে থাকে বিভিন্ন রুটের লঞ্চ। দুপুরের পর থেকে গ্রিন লাইন-৩ ও সন্ধ্যার পর পারাবত- ৯, ১০, ১২ ও ১৮, মানামী, কুয়াকাটা-২, কীর্তনখোলা- ২ ও ১০, সুরভী- ৮ ও ৯, অ্যাডভেঞ্চার-১ ও ৯, সুন্দরবন-১২ লঞ্চসহ মোট ১৫টি লঞ্চ বরিশাল নদীবন্দর সদরঘাটে এসে পৌঁছায়।

রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম পরিবার নিয়ে গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী থেকে ফিরেছেন ঢাকায়। তিনি বলেন, ‘এমভি টিপু ৭ লঞ্চের টিকিট পেয়েছিলাম। তবে লঞ্চে অনেক মানুষের ভিড় ছিলো। ঠিকভাবে ঢাকায় আসতে পেরেছি এটাই অনেক।’ মনপুরা, হাতিয়ার থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকা এসেছেন এমভি তাসরিফ ৮। লঞ্চটির কর্মী আসাদ মুন্সি বলেন, লঞ্চে মধ্যে পাঁচ-ছয়শ মানুষ এসেছে। ছুটি শেষ হওয়ায় মানুষ ঢাকা আসছে। আরামের যাত্রা লঞ্চ, এজন্য অনেকেই লঞ্চে করে আসেন।

ভোলার চরফ্যাশন ও বেতুয়া থেকে ঢাকা এসেছেন এমভি টিপু-১৩। লঞ্চটিতে ঘাটে ভিড়তেই দেখা যায়, পুরো ডেক ভর্তি মানুষ। অনেকে দাঁড়িয়েও এসেছেন।

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর বরিশাল অঞ্চলগামী লঞ্চগুলোতে যাত্রী কমায় ঢাকার সদরঘাটের চেনা রূপ অনেকটাই হারিয়েছিল। তবে ঈদের ছুটির সঙ্গে ফিরেছে চেনা সেই ভিড়। তবে ঈদের পরে ঢাকার সদরঘাটে ভিড় বাড়লেও আগের মতো নেই বলে জানিয়েছেন লঞ্চ সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে রাজধানীর প্রধান নদীবন্দর সদরঘাটে ঢাকামুখী মানুষের ভিড় থাকলেও ফিরতি যাত্রীর ভিড় ছিলো অনেকটাই কম। বরিশাল, ভোলার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়ার অপেক্ষায় থাকা লঞ্চগুলোর কর্মীরা যাত্রীদের ডাকাডাকি করছেন। অল্প সংখ্যক মানুষ লঞ্চে উঠেছেন। বেশ কয়েকটা লঞ্চের ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, ডেকের সিটে অধিকাংশই ফাঁকা। ভেততে কিছু মানুষ বসে আছে। কেউ আবার কেবিন নিয়ে দরদাম করছেন। লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, ঈদের আগে যাত্রীর চাপ বাড়ায় আশা পেয়েছিলাম। এখন সে আশা আর দেখছি না। সামনের দিনগুলিতে কি হয় দেখা যাক।

সার্বিক বিষয়ে ঢাকার প্রধান নদীবন্দর সদরঘাটের দায়িত্বে থাকা বিআইডব্লিউটিএ এর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের যুগ্ম পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন জানান, ‘ঈদের পর যাত্রী চাপ স্বাভাবিক রয়েছে। আমাদের নিয়মিত লঞ্চগুলোই চলাচল করছে। অতিরিক্ত কোনো লঞ্চের প্রয়োজন পড়ছে না। ভাড়া বেশি নেওয়ার অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’


চোরাই মোটরসাইকেলসহ ৭ জন গ্রেপ্তার

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ২০ জুন, ২০২৪ ১৯:৪৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর ও ঢাকার সাভার এলাকা থেকে চোরাই মোটরসাইকেলসহ ৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে লালবাগ থানা পুলিশ। গতকাল বুধবার কামরাঙ্গীরচর ও ঢাকা জেলার সাভার এলাকায় ধারাবাহিক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তাররা হলেন, মো. আলবি, সাগর, রনজু ওরফে রমজান, আরিফ, মো. মারুফ, সাব্বির ও আলিফ।

পুলিশ বলছে গ্রেপ্তারকৃত সবাই পেশাদার মোটরসাইকেল চোর চক্রের সদস্য। লালবাগ জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. ইমরান হোসেন মোল্লা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গতকাল বুধবার কামরাঙ্গীরচর ও ঢাকা জেলার সাভার এলাকায় ধারাবাহিক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, বুধবার রাতে কামরাঙ্গীরচর থানার আজিজিয়া মসজিদ গলির জুতার কারখানার সামনে থেকে একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়। এ ঘটনার কামরাঙ্গীরচর থানায় একটি মামলা হয়। মামলাটির ধারাবাহিকতায় তথ্য প্রযুক্তির সহায়তার কামরাঙ্গীরচর ও ঢাকার জেলা সাভার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে চোরাই মোটরসাইকেলসহ তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা পেশাদার চোরাই মোটরসাইকেল কেনা-বেচা চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা সংঘবদ্ধ হয়ে ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে মোটরসাইকেল চুরি করে বিক্রি করতো।

গ্রেপ্তারকৃতদের কামরাঙ্গীরচর থানার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।ৃ

বিষয়:

যাত্রাবাড়ীতে নীচ তলায় স্বামী ও দোতলা থেকে স্ত্রীর লাশ উদ্ধার

ফাইল ছবি
আপডেটেড ২০ জুন, ২০২৪ ১৯:২৯
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে শফিকুর রহমান (৬০) ও ফরিদা ইয়াসমিন (৫০) নামে এক দম্পতির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ৪তলা ভবনের নীচ তলার গাড়ি পার্কিং এলাকা থেকে শফিকুর রহমান ও দোতলার শোবার ঘর থেকে তার স্ত্রী ফরিদা ইয়াসমিনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে কোনাপাড়া এলাকার মোমেনবাগের বটতলার বাড়ি থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। তাদের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
তবে কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে সে বিষযে প্রাথমিকভাবে কিছু বলতে পারেনি পুলিশ। বিষয়টি কি পরিকল্পীত হত্যাকাণ্ড না কি ডাকাতি সে বিষয়েও পুলিশ নিশ্চিত হতে পারেনি।
পুলিশ জানান, শফিকুর রহমান জনতা ব্যাংকের সাবেক গাড়িচালক ছিলেন। নিহত দম্পতির ছেলে ইমন পুলিশের বিশেষ শাখায় (এসবি) উপপরিদর্শক হিসেবে চাকরিরত। নিহত শফিকুর রহমান মোমেনবাগের আড়াবাড়ি বটতলায় এলাকায় নতুন ৪তলা বাড়ি করেছেন। ভবনের দুই তলায় তারা থাকতেন আর নিচতলায়, তিনতলা ও চার তলায় ভাড়া দেওয়া হয়েছে। এই দম্পতির ছেলে ইমন ও তার স্ত্রী একই বাসায় থাকেন। কিন্তু বুধবার ইমন দাদাবাড়ি ফেনীতে চলে যান এবং তার স্ত্রী বাবার বাড়ি চলে যান।
পুলিশ আরও জানায়, সকালে ৭টার দিকে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বর থেকে ফোন পেয়ে যাত্রাবাড়ী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাসার নিচতলার গাড়ি পার্কিং এলাকায় শফিকুরের গলাকাটা লাশ দেখতে পায়। তার মাথায়ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পরে দোতলায় গিয়ে শোবার ঘরে মশারির ভেতর স্ত্রী ফরিদা ইয়াসমিনের লাশ পাওয়া যায়। তার মাথা এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানেও ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
এ ঘটনায় যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান বলেন, জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ থেকে কল পেয়ে সকাল ৭টার দিকে আমরা ঘটনাস্থলে এসেছি। এসে পার্কিংয়ে শফিকুর রহমান ও দোতলায় শোবার ঘরে স্ত্রীকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি। তাদের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে শফিকুর ফজরের নামাজ পড়ে ফেরার সময় ওৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে থাকতে পারে। পরে দোতলায় গিয়ে তার স্ত্রীকে হত্যা করে পালিয়ে গেছে। বাসার নিচের গেট ও দোতলায় ঘরের দরজা খোলা পাওয়া গেছে।
তিনি আরও বলেন, কি কারণে স্বামী-স্ত্রীকে এভাবে হত্যা করা হলো জানা যায়নি। ঘটনাস্থলে অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ক্রাইমসিন টিম আলামত সংগ্রহ করেছে। এছাড়া, পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ও র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থা ঘটনাস্থলে যায়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য দুজনের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।
এ বিষয়ে ডিএমপির ওয়ারি বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. ইকবাল হোসাইন বলেন, এই হত্যাকাণ্ডটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড না ডাকাতি তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে বাসার আলমারি খোলা পাওয়া গেছে। হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটনে কাজ করে যাচ্ছি। তদন্তের পর হত্যাকাণ্ডের আসল কারণ জানা যাবে।


বন্ধ হলো টিটিপাড়া-কমলাপুর সড়ক

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের আওতায় টিটিপাড়ায় আন্ডারপাস নির্মাণের জন্য আজ বৃহস্পতিবার থেকে টিটিপাড়া-কমলাপুরগামী সড়ক অস্থায়ীভাবে বন্ধ থাকবে।

গতকাল বুধবার পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকের পক্ষে আবু ইউসুফ মোহাম্মদ শামীম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, টিটিপাড়ায় আন্ডারপাসের সংযোগ সড়ক নির্মাণের জন্য টিটিপাড়া-কমলাপুরগামী সড়ক অস্থায়ীভাবে বন্ধ থাকবে। এ কারণে ২০ জুন বৃহস্পতিবার থেকে আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত এই রাস্তায় সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

এ অবস্থায় টিটিপাড়া-কমলাপুরগামী সড়কে চলাচলকারীদের বিকল্প সড়ক ব্যবহার করতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।


রাজধানীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দু’জন নিহত

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী ও পল্টন এলাকায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার দিবাগত রাত ও আজ বৃহস্পতিবার ভোরে দুর্ঘটনা দুটি ঘটে। এ ঘটনায় নিহত দুজনের এখনো নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ দুটি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ।

পল্টন থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল আজিজ বলেন, ‘আজ বৃহস্পতিবার (২০ জুন) ভোর সোয়া ৫টার দিকে একটি ট্রাক পল্টন মোড়ে রাস্তার ডিভাইডারের ওপর উঠে যায়। সেখানে ভবঘুরে প্রকৃতির এক লোক ঘুমিয়ে ছিল। সে চাপা পড়ে মারা যান। তার বয়স আনুমানিক (৩২) বছর হবে। সেখান থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে সকাল ৬টা ২০মিনিটের দিকে ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানকার চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরিক্ষার পর তার মৃত্যু নিশ্চিত করেন।’

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় ট্রাকটিকে জব্দ করা হয়েছে এবং চালক মহসিনকে আটক করা হয়েছে।

অপর দিকে, যাত্রবাড়ি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হিরামন বিশ্বাস জানান, বুধবার রাত সোয়া একটার দিকে যাত্রাবাড়ী থানার জনপথ মোড়, ফ্লাইওভারের ওপরে অজ্ঞাত গাড়ির চাপায় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। সংবাদ পেয়ে সেখান থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নেয়া হয়।

তিনি বলেন, নিহতের পরিচয় পাওয়া যায়নি। তার বয়স আনুমানিক (৪৫) বছর হবে। দেখে পাগল ভবঘুরে প্রকৃতির মনে হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।


সাততলার কার্নিশ থেকে কিশোরীকে উদ্ধার করল ফায়ার সার্ভিস

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানী ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় বি-ব্লকের একটি ভবনের সাততলার কার্নিশ থেকে এক কিশোরীকে উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস।

আজ বুধবার সকালে ‘জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯’ নম্বরে ফোন করে ওই কিশোরীর কার্নিশে আটকে পড়ার তথ্য জানান এক কলার। কলটি রিসিভ করেন এএসআই লোকমান হোসেন। তিনি তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি বারিধারা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন এবং ভাটারা থানায় জানান।

খবর পেয়ে দ্রুত উদ্ধারের ব্যবস্থা নেয় বারিধারা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের উদ্ধারকারী দল ও ভাটারা থানা পুলিশের উদ্ধারকারী দল। তারা অবিলম্বে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

অবশেষে আটতলা ভবনের সাততলার ফ্ল্যাটের ভেতর থেকে জানালার গ্রিল কেটে কার্নিশ থেকে কিশোরীকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়। বারিধারা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের স্টেশন অফিসার মো. রাজু ৯৯৯-য়ে কল করে পরবর্তীতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, চৌদ্দ বছর বয়সী কিশোরীর বাবা মারা গেছেন। মায়ের বিয়ে হয়ে গেছে অন্যত্র। সে দাদীর সঙ্গে থাকত। মায়ের কাছে যেতে চাইছিল সে অনেক দিন ধরে কিন্তু তার দাদি যেতে দেননি। এ নিয়ে দাদির ওপর প্রায় অভিমান করত সে। মায়ের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করতে গিয়ে কার্নিশে আটকে পড়ে সে।


সরানো হবে তেজগাঁও ট্রাক স্ট্যান্ড: ডিএনসিসি মেয়র

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, তেজগাঁও ট্রাক স্ট্যান্ড দীর্ঘদিন ধরে নগরবাসীর জন্য গলার কাটা হয়েছিল। এটি সরানোর জন্য তেজগাঁও আনিসুল হক সড়কের পাশে ১৫ বিঘা জমি বরাদ্দ পাওয়া গেছে।

তেজগাঁও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে ‘ইতিহাসের গতিধারায় বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনা’ শীর্ষক সংবাদচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা সভায় আজ বুধবার এসব কথা বলেন ডিএনসিসি মেয়র।

আতিক বলেন, ‘এই স্ট্যান্ডে পাঁচ হাজার ৮০০ ট্র্যাক থাকে। তেজগাঁও থেকে ট্রাক স্ট্যান্ডটি সরিয়ে ১৫ বিঘা জমিতে একটি উন্নত ও বহুতল ট্রাক স্ট্যান্ড করার মাধ্যমে ঢাকা শহরের মধ্যে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে পারব। আজপর্যন্ত সবাই কিন্তু বলেছে ট্রাক স্ট্যান্ডের জন্য জায়গা দেব কিন্তু কখনো দেওয়া হয়নি। ১৫ বিঘা জায়গা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা শহরের মধ্যে ট্রাক এবং বাস রাখার জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন।’

কবে থেকে এই ১৫ বিঘা জায়গায় ট্রাক রাখা হবে জানতে চাইলে ডিএনসিসির অভিভাবক বলেন, এখনই যদি এই জায়গার দেয়াল ভেঙে দেওয়া হয় তাহলে কাল থেকেই এখানে ট্রাক থাকতে পারবে। কিন্তু এখনই এখানে ট্রাক না রেখে, আমরা ট্রাক চালকদের সঙ্গে কথা বলছি কি ধরনের ডিজাইন তারা চান ট্রাক রাখার জন্য। এখানে ট্রাক যারা রাখবেন তাদের বিশ্রামাগার কোথায় হবে, ট্রাক কোথায় রাখবেন এই সব কিছু নিয়ে একটি মাল্টি প্ল্যান আমরা তৈরি করছি।

ট্রাক রাখার জন্য আগামী মাস থেকেই জায়গার একটি অংশ খুলে দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য বেনজীর আহমদ। সঞ্চালনা করেন ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুণ।

বিষয়:

বুধবার থেকে নতুন সময়সূচিতে চলবে মেট্রোরেল

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

আগামীকাল বুধবার থেকে নতুন সময়সূচিতে চলবে মেট্রোরেল। সরকার ঘোষিত নতুন অফিস ঘণ্টার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে মেট্রোরেলের পিক ও অফ পিক আওয়ারের সময় পরিবর্তন করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) রাজধানীর ইস্কাটনে নিজ কার্যালয়ে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিক এ কথা জানান।

তিনি বলেন, গত ৬ জুন সরকার জানিয়েছে অফিসের সময়সূচি ৯ থেকে ৫টা পর্যন্ত করা হয়েছে। এই সময়সূচি ঈদের পর ১৯ জুন থেকে কার্যকর হবে। এজন্য মেট্রোরেলের পিক ও অফ পিক আওয়ারের সময়েও পরিবর্তন আনা হয়েছে। সকালে চলাচলে সময়ের পরিবর্তন না এলেও বিকেল থেকে চলাচলের মধ্যবর্তী সময়ে পরিবর্তন আনা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নতুন সময়সূচি অনুযায়ী উত্তরা উত্তর থেকে মতিঝিল পর্যন্ত দুপুর ২টা ২৫ মিনিট থেকে রাত ৮টা ৩২ মিনিট পর্যন্ত পিক আওয়ারে ৮ মিনিট পরপর মেট্রোরেল চলবে। আর রাত ৮টা ৩৩ মিনিট থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত স্পেশাল অফ পিক আওয়ারে ১০ মিনিট পরপর চলবে মেট্রোরেল। সর্বশেষ রাত ৯টা থেকে ৯টা ৪০ পর্যন্ত ১২ মিনিট পরপর চলবে ট্রেন।

ডিএমটিসিএল ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, মতিঝিল থেকে উত্তরা উত্তর পর্যন্ত দুপুর ৩টা ৫ মিনিট থেকে রাত ৯টা ১২ মিনিট ৮ মিনিট পরপর চলবে ট্রেন। আর রাত ৯টা ১৩ মিনিট থেকে রাত ৯টা ৪০ পর্যন্ত ১০ মিনিট পরপর চলবে। সরকারি ছুটির দিনগুলোতেও সময়ের পরিবর্তন এসেছে। শনিবার ছাড়া অনান্য ছুটির দিনে সকালে মেট্রো ট্রেন ১২ মিনিটের পরিবর্তে ১৫ মিনিট পরপর ছাড়বে। দুপরের পর আগের সময়েই চলবে।

বিষয়:

শতভাগ পশুর বর্জ্য অপসারণ করল ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন

ছবি: বাসস
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বাসস

ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি কর্পোরেশন জানিয়েছে, তারা সংশ্লিষ্ট কর্পোরেশন এলাকা থেকে সকল কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ সম্পন্ন করেছে। প্রায় ১০ ঘণ্টার মধ্যে শতভাগ কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি)।

ডিএসসিসি’র মুখপাত্র আবু নাসের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) বলেছে, পূর্ব ঘোষিত ৬ ঘন্টা সময়সীমার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য সফলভাবে অপসারণ করা হয়েছে।

এরআগে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণের কাজ শেষ করার ঘোষণা দিয়েছিলেন ডিএসসিসি’র মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। ডিএসসিসি জানায়, গতকাল দুপুর ২টা থেকে তারা বর্জ্য অপসারণ শুরু করে আজ দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটে শেষ হয়েছে। সে হিসাবে বর্জ্য অপসারণে সময় লেগেছে প্রায় ২২ ঘণ্টা।

অন্যদিকে ডিএনসিসি পূর্ব ঘোষিত ৬ ঘন্টা সময়সীমার মধ্যে সমস্ত কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ কাজ শেষ করার ঘোষণা দিয়েছে। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ডিএনসিসি জানায়, কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণের কাজ শেষ হয়েছে।

ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম নগরবাসীর সহযোগিতামূলক আচরনের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, নগরবাসীর সহযোগিতায় নির্ধারিত সময়সীমার আগেই ঢাকা উত্তরে সমস্ত কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ করা সম্ভব হয়েছে।

ডিএনসিসি’র ১০টি জোনে ২ হাজার ১০১টি ট্রিপে মোট ১০ হাজার ৩৭৪ টন বর্জ্য অপসারণ করেছে।


দ্বিতীয় দিনেও রাজধানীতে চলছে পশু কোরবানি

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ধর্মীয় ভাব-গাম্ভীর্যে সারা দেশে গতকাল সোমবার (১৭ জুন) উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল আজহা। মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় সামর্থ্যবান মুসলমানেরা ত্যাগের মহিমায় পশু কোরবানি দিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার ঈদের দ্বিতীয় দিনেও রাজধানীবাসীকে পশু কোরবানি দিতে দেখা গেছে। পেশাদার কসাইয়ের সংকটের কারণেই অনেকে ঈদের দ্বিতীয় দিন কোরবানি দিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পশু কোরবানি দিতে দেখা গেছে।

ওয়ারি এলাকার বাসিন্দা তৈমুর বলেন, ঈদের দিন মৌসুমি কসাই দিয়ে কোরবানি দিতে পারতাম কিন্তু তারা মাংস ঠিকমত বানাতে পারে না। ঈদের দিন পেশাদার কসাইয়ের সংকট থাকে। তাই আমরা পেশাদার কসাইয়ের সংকটের কারণে আজ ঈদের দ্বিতীয় দিন কোরবানি দিচ্ছি।

চাঁদ রাতে গরু কিনে বাসায় ফিরতে ফিরতে ভোর হয়ে গেছে। ঈদের দিন কসাই ঠিক করতে না পারায় আজ কোরবানি দিচ্ছি বলে জানালেন খিলগাঁওয়ের সোহান।

এ বছর রাজধানীতে প্রায় ৫০ লাখ গরু-ছাগল কোরবানি হয়েছে। পেশাদার কসাইয়ের সংকট থাকাটাই স্বাভাবিক। গতকাল সাতটি গরু কেটেছি আজ চারটি গরু কাটার অর্ডার রয়েছে বলে জানালেন মুগদার কসাই আলমগীর।

তিনি বলেন, ঈদের দিন ২০০ থেকে ২৫০ টাকা হাজারে নিয়েছি। অথচ আজ হাজারে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা নিচ্ছি। আজ এ নিয়ে দুটি গরু কেটেছি। এটির পর আরও দুটি গরু কাটার অর্ডার রয়েছে।

পশু কোরবানির পর দ্রুত বর্জ্য অপসারণে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে। সোমবার কোরবানির দিন সকাল থেকেই সিটি করপোরেশনের লোকজন শহর পরিষ্কারের কাজে নামে। প্রতিটি এলাকাতেই পরিষ্কার অভিযান চালাচ্ছেন তারা। গতকাল অনেক এলাকাই পরিস্কার হয়ে গেছে। ডিএনসিসি এবং ডিএসসিসি দুই এলাকায় কোরবানির বর্জ্য পরিস্কার হয়েছে বলে এলাকাবাসী জানান।


রাজধানীতে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোয় নিহত ২

আপডেটেড ১৮ জুন, ২০২৪ ১২:২৮
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বেপরোয়া গতিই তাদের জীবনের জন্য কাল হলো। প্রাইভেটকার নিয়ে পাঁচ বন্ধু বেড়াতে বের হয়েছিল। ঈদের ছুটিতে রাস্তা ফাঁকা পেয়ে গাড়ি চালানো বেপরোয়া গতিতে। ঘটনা যা হবার তাই ঘটলো। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে সড়কদ্বীপে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে সেই প্রাইভেটকারের দুই আরোহীর প্রাণ গেছে, আহত হয়েছেন আরও তিনজন।

ঈদের দিন সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে কাফরুল থানার ওসি ফারুকুল আলম গণমাধ্যমকে জানান।

তিনি বলেন, ‘দ্রুত গতির গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কদ্বীপে উঠে যায় এবং গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে দুমড়ে মুচড়ে যায়।’

ঘটনাস্থল থেকে পাঁচজনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক দুজকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতরা হলেন রেজা রাব্বি (২৮) ও মোহাম্মদ রাসেল (৩০)। আহত অবস্থায় হাসপাতালে আছেন আহসান উল্লাহ হক রাতুল (২৭), সাগর (২৮) ও বিপ্লব (৩০)।

ওসি আরও জানান, তারা পরস্পরের বন্ধু এবং সবার বাসা দারুস সালাম এলাকায়। রাব্বির ওষুধের দোকান রয়েছে, আর রাসেল একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরি করতেন।

আহত সবার অবস্থাই গুরুতর জানিয়ে ওসি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘প্রাইভেটকারের চালকের আসনে ছিলেন রাতুল। তারা মিরপর ১০ নম্বরের দিক থেকে ফার্মগেইটের দিকে যাচ্ছিলেন। ঈদের রাতে রাস্তা ফাঁকা পেয়ে দ্রুত গতিতে চালাতে গিয়ে তারা এই দুর্ঘটনার কবলে পড়েন।’


প্রতিশ্রুত ছয় ঘণ্টার ভেতর শতভাগ বর্জ্য অপসারণ করল ডিএনসিসি

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১৭ জুন, ২০২৪ ২৩:২১
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলামের পূর্বঘোষিত ৬ ঘণ্টায় শতভাগ কোরবানির বর্জ্য অপসারণ সম্পন্ন হয়েছে।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ‘সবার সহযোগিতায় পূর্বঘোষিত ছয় ঘণ্টায় ঢাকা উত্তর সিটির কোরবানির বর্জ্য শতভাগ অপসারণ করা সম্ভব হয়েছে। সচেতন নাগরিকদের আন্তরিক সহযোগিতায় এটি করতে পেরেছি। আমি নগরবাসীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আগামী দিনেও ঢাকা শহরকে পরিচ্ছন্ন রাখতে জনগণ ও সিটি করপোরেশনকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।’

সোমবার ঈদের দিন যারা কোরবানি দিতে পারেননি তাদেরকে মঙ্গলবার সকালের মধ্যেই কোরবানি সম্পন্ন করার আহ্বান জানান তিনি।

মেয়র আরও বলেন, ‘অনেকে সন্ধ্যার পর এমনকি রাতেও কোরবানি দিচ্ছেন। তারা আমাদের হটলাইন ১৬১০৬ নম্বরে ফোন করে জানাবেন। আমাদের কর্মীরা বর্জ্য সংগ্রহ করে নিয়ে আসবে।’

সোমবার বেলা ২টায় ডিএনসিসির ৭ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্গত মিরপুর সেকশন-২ ব্লক-এইচ রোড নম্বর ৬-এ বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন মেয়র আতিকুল ইসলাম।

দুপুর ২টা থেকে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম শুরু করে রাত ৮টায় নির্ধারিত ৬ ঘণ্টায় সব ওয়ার্ডের শতভাগ বর্জ্য অপসারণ সম্পন্ন করে ডিএনসিসি।

ডিএনসিসির সব ওয়ার্ড থেকে ঈদের দিন রাত ৮টা পর্যন্ত ২১০১ ট্রিপে প্রায় ১০ হাজার ৩৭৪ টন বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে।ডিএনসিসির বর্জ্য বিভাগের প্রতিবেদন অনুযায়ী ৫৪টি ওয়ার্ডের সব এলাকার শতভাগ বর্জ্য অপসারণ সম্পন্ন হয়েছে।

ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বিভিন্ন অঞ্চলে ঘুরে ঘুরে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম পরিদর্শন করেন এবং সরাসরি তদারকি করেন। দুপুর ২টায় মিরপুরে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন শেষে মিরপুর এলাকা পরিদর্শন করেন। পরে তিনি কালশী, বনানী, গুলশান, হাতিরঝিল, মধুবাগ, মগবাজার, রামপুরা, মালিবাগ, খিলগাঁও, বাড্ডা, বারিধারা প্রগতি সরণিসহ উত্তরা এলাকার বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম রাত ৮টা পর্যন্ত সশরীরে পরিদর্শন করেন।

এছাড়াও ডিএনসিসির দশটি অঞ্চলের তদারকির জন্য দশজন কর্মকর্তার সমন্বয়ে দশটি গ্রুপ গঠন করা হয়। ১০টি গ্রুপের নেতৃত্ব দিয়েছেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, প্রধান প্রকৌশলী, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীসহ অন্যান্য বিভাগীয় প্রধানগণ। দশটি গ্রুপ ডিএনসিসির দশটি অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম সার্বক্ষণিক মনিটরিং করে।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বর্জ্য অপসারণে ১০ হাজারের অধিক কর্মী কাজে নিয়োজিত ছিল। গুলশান নগর ভবনে কেন্দ্রীয় কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হয়েছে। কন্ট্রোল রুমে যোগাযোগের হট লাইন নম্বর ১৬১০৬।

পরিদর্শন শেষে ডিএনসিসি মেয়র বর্জ্য বিভাগকে এবং তদারকির জন্য গঠিত দশটি গ্রুপকে মঙ্গলবারও কোরবানির বর্জ্য দ্রুত সময়ে পরিষ্কার করার নির্দেশ দেন।

বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম পরিদর্শনে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মীর খায়রুল আলম, সচিব মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মঈন উদ্দিন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইমরুল কায়েস চৌধুরী, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ ফিদা হাসান, ডিএনসিসির সব বিভাগীয় প্রধান ও ডিএনসিসির কাউন্সিলর এবং অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।


banner close