বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

এনসিঙ্গায় যোগ দিলেন প্রযুক্তিবিদ ফখরুদ্দিন আহমেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল, ২০২৪ ১১:৪২

প্রযুক্তি সেবাদাতা বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান ‘এনসিঙ্গা’ ফখরুদ্দিন আহমেদকে বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হিসেবে নিযুক্ত করেছে। তিনি দীর্ঘ ২০ বছরের বেশি সময় ধরে আইসিটি খাতে যুক্ত রয়েছেন। সিসকোর সাবেক কান্ট্রি হেড থাকাকালে ফখরুদ্দিন বাংলাদেশে সিসকোর প্রসারে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখেন। বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশ ও মধ্যপ্রাচ্যে ‘এনসিঙ্গা’-এর বিস্তারে তিনি সচেষ্ট থাকবেন ও ‘এনসিঙ্গা’-এর প্রবৃদ্ধি বাড়াতে নেতৃত্ব দেবেন।

এনসিঙ্গা বাংলাদেশের বাজারে ভবিষ্যৎবান্ধব বিভিন্ন প্রযুক্তি সমাধান দিয়ে থাকে। এ অঞ্চলে কাজ করার অভিজ্ঞতার পাশাপাশি শীর্ষ প্রযুক্তি সেবাদাতাদের সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির নেটওয়ার্কের অংশীদারিত্বও রয়েছে। এই খাতে প্রযুক্তি সেবাদাতারা তাদের ইন্ডাস্ট্রি থেকে প্রাপ্ত জ্ঞান এবং ‘লিন টেকনোলজি আর্কিটেকচার’ পদ্ধতির উপায়গুলো স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে ভাগাভাগি করে থাকেন। ডেটা অ্যান্ড আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই), মাল্টি-ক্লাউড, ইন্টেলিজেন্ট নেটওয়ার্কিং, অ্যাপ্লিকেশন অ্যান্ড অটোমেশন সার্ভিস, সাইবার সিকিউরিটি, ব্লকচেইন, দ্য মেটাভার্স এবং সাসটেইনাবিলিটি- প্রভৃতির মতো ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশনের বিভিন্ন সেবা ‘এনসিঙ্গা’ প্রদান করে থাকে।

এনসিঙ্গা আর্থিক খাতকে ডিজিটালাইজড করতে বিভিন্ন ফিনটেক সেবা দিচ্ছে। ভেঞ্চার ক্যাপিটাল আর্ম, এনভেঞ্চার বিটুবি স্টার্টআপের সিড ফান্ডিংয়ে এর গুরুত্ব দেওয়ার কারণে বাংলাদেশে স্টার্টআপের সম্ভাবনা আরও বিকশিত হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

ফখরুদ্দিন আহমেদ বলেন, এনসিঙ্গা বিভিন্ন প্রযুক্তি সলিউশন প্রদানের মাধ্যমে ব্যবসাগুলো ও সমাজের ক্ষমতায়নে বিশ্বাসী। বিশ্ব অর্থনীতির এই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে অধিকাংশ ব্যবসাই প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে নিজেদের প্রবৃদ্ধি ঘটাচ্ছে। আমি আনন্দিত যে- এনসিঙ্গা তার সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসেবা নিয়েই বাংলাদেশের বাজারে কাজ করছে। সিসকো, গুগল, তেমেনস অ্যান্ড ফিনেস্ট্রার মতো শীর্ষ প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর সঙ্গে এনসিঙ্গার অংশীদারিত্ব স্থানীয় উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা এনে দেবে। আমি এই ব্যবসায়িক বিস্তৃতির অংশ হতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত!

এনসিঙ্গার চেয়ারম্যান এবং প্রতিষ্ঠাতা ইমাল কালুতোতাগে বলেন, বিশ্বব্যাপী আমাদের ব্যবসার পরিধি বাড়ছে। এনসিঙ্গাতে ফখরুদ্দিনের মতো অভিজ্ঞ নেতৃত্ব পেয়ে আমরা আনন্দিত। এনসিঙ্গা বাংলাদেশে ব্যবসায়িক প্রসারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং দেশের ডিজিটাল অর্থনীতির সম্প্রসারণে আমরা স্থানীয় মেধাবীদের পাশে থাকতে চাই।

এনসিঙ্গাতে ফখরুদ্দিন আহমেদের নিয়োগ এবং প্রতিষ্ঠানটির বিস্তৃতি বাংলাদেশ সরকারের ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ উদ্যোগের সঙ্গে সম্পৃক্ত, এটির লক্ষ্য অভিনব প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির ডিজিটাল রূপান্তর। এই উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রযুক্তিগত অবকাঠামো নির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য অর্জন করেছে, যার পরবর্তী ধাপ স্মার্ট সার্ভিসের মাধ্যমে কার্যকারিতা বৃদ্ধি করা।

বিষয়:

রূপায়ণ সিটি উত্তরাতে শুরু ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের জুয়েলারি ফেস্ট শুরু

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
কর্পোরেট ডেস্ক

বাংলাদেশের প্রথম সিটি ব্র্যান্ড রূপায়ণ সিটি ও জুয়েলারী প্রতিষ্ঠান ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড'র যৌথ উদ্যোগে আজ বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে জুয়েলারি মেলা ।

আজ রূপায়ণ সিটি উত্তরায় স্কাই ভিলা লাউঞ্জে জমকালো আয়োজনে মধ্য দিয়ে চারদিনব্যাপী জুয়েলারী ফেস্টের উদ্বোধন করেন রূপায়ণ সিটির সিবিও রেজাউল হক লিমন ও ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের কনসালটেন্ট (মার্কেটিং এন্ড মিডিয়া) মোঃ মেহেদী হাসান।

এসময় মোঃ মেহেদী হাসান বলেন, ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড লিমিটেড দেশের প্রথম প্রিমিয়াম মেগা গেইটেড কমিউনিটি রূপায়ণ সিটি উত্তরায় ঈদ জুয়েলারি ফেস্ট শুরু করলো। এই অঞ্চলের গ্রাহকদের ব্যাপক সাড়া, আস্থা এবং বিশ্বাসের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আন্তর্জাতিক মানের জুয়েলারী পণ্য এই ফেস্টে প্রদর্শণ ও বিক্রয় হচ্ছে। ফেস্ট উপলক্ষে সকল ডায়মন্ড জুয়েলারীর উপর বিশেষ ডিসকাউন্ট এবং গোল্ড জুয়েলারীর মেকিং চার্জের উপর বিশেষ ডিসকাউন্ট রয়েছে।

রূপায়ণ সিটির সিবিও রেজাউল হক লিমন বলেন, রূপায়ণ সিটি যেমন আবাসন খাতে এক অনন্য উদ্ভাবনী ব্র্যান্ড হিসেবে সুপরিচিত, ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড ও তাদের স্বকীয়তার সঙ্গে এগিয়ে নিয়ে চলছে জুয়েলারি খাতকে । রূপায়ণ সিটি সর্বদা তার গ্রাহককে নতুন ও অনন্য অভিজ্ঞতা দিতে বদ্ধপরিকর, এবং তারই ধারাবাহিকতায় আমরা এই ফেষ্টের সাথে যুক্ত হয়েছি।

মেলায় থাকছে আকর্ষণীয় গোল্ড,পলকি, প্লাটিনাম ও ডায়মন্ড জুয়েলারী কালেকশন। মেলা উপলক্ষে জুয়েলারীতে পাচ্ছেন আকর্ষণীয় ছাড়। আগামী ২৬ মে পর্যন্ত উৎসবটি চলবে প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত।


গবেষণা সহযোগিতায় শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসার আহ্বান

ইউজিসির আয়োজনে গত মঙ্গলবার দিনব্যাপী একর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২২
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে গবেষণাকর্ম এগিয়ে নিতে দেশের শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর। বিশ্ববিদ্যালয় এবং করপোরেট হাউসগুলোর যৌথ উদ্যোগ ব্যতীত সরকারি অর্থায়নে বৃহৎ গবেষণাকর্ম পরিচালনা করা সম্ভব নয় বলে তিনি মত প্রকাশ করেন। ইউজিসির আয়োজনে গত মঙ্গলবার দিনব্যাপী এক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) কার্যক্রম পরিবীক্ষণ ও প্রমাণক ব্যবস্থাপনা এবং ২০২৪-২০২৫ অর্থবছরের খসড়া কর্মপরিকল্পনা পর্যালোচনা ও ফিডব্যাক প্রদান বিষয়ে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। ইউজিসি সচিব ড. ফেরদৌস জামানের সভাপতিত্বে কর্মশালায় ঢাকা ও ময়মনসিংহ অঞলের ২০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের এপিএ কমিটির আহ্বায়ক, ফোকাল পয়েন্টসহ ইউজিসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালা পরিচালনা করেন ইউজিসির অতিরিক্ত পরিচালক ও এপিএর ফোকাল পয়েন্ট বিষ্ণু মল্লিক। বিজ্ঞপ্তি


বিকাশ-বিজ্ঞানচিন্তার আয়োজনে ‘বিজ্ঞান উৎসব’

নতুন প্রজন্মকে বিজ্ঞান চর্চায় উদ্বুদ্ধ করতে সারা দেশের স্কুলশিক্ষার্থীদের জন্য তৃতীয়বারের মতো ‘বিকাশ-বিজ্ঞানচিন্তা বিজ্ঞান উৎসব-২০২৪’ আয়োজন করতে যাচ্ছে বিকাশ ও শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞানবিষয়ক ম্যাগাজিন বিজ্ঞানচিন্তা। যৌথ এ আয়োজনের লক্ষ্যে গত মঙ্গলবার বিকাশের সঙ্গে বিজ্ঞানচিন্তার এক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ছবি : সংগৃহীত
আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২৩
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

নতুন প্রজন্মকে বিজ্ঞান চর্চায় উদ্বুদ্ধ করতে সারা দেশের স্কুলশিক্ষার্থীদের জন্য তৃতীয়বারের মতো ‘বিকাশ-বিজ্ঞানচিন্তা বিজ্ঞান উৎসব-২০২৪’ আয়োজন করতে যাচ্ছে বিকাশ ও শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞানবিষয়ক ম্যাগাজিন বিজ্ঞানচিন্তা। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমনস্ক জাতি গঠনে শিক্ষা জীবন থেকে বিজ্ঞান চর্চার গুরুত্ব তুলে ধরতেই এই উদ্যোগ। যৌথ এ আয়োজনের লক্ষ্যে গত মঙ্গলবার বিকাশের সঙ্গে বিজ্ঞানচিন্তার একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বিজ্ঞানচিন্তার প্রধান কার্যালয়ে বিকাশের চিফ এক্সটার্নাল অ্যান্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মেজর জেনারেল (অব.) শেখ মো. মনিরুল ইসলাম এবং বিজ্ঞানচিন্তার সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

এ সময় দৈনিক প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক, বিকাশের ইভিপি ও হেড অব রেগুলেটরি অ্যান্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স হুমায়ুন কবির, বিকাশের রেগুলেটরি অ্যান্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স বিভাগের ভিপি সায়মা আহসান, বিজ্ঞানচিন্তার নির্বাহী সম্পাদক আবুল বাসারসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এ আয়োজনের অংশ হিসেবে ‘বিজ্ঞানে বিকাশ’ প্রতিপাদ্য নিয়ে দেশব্যাপী বিভাগীয় শহরগুলোতে স্কুলশিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বিজ্ঞান উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। শিক্ষার্থীরা সেখানে তাদের উদ্ভাবনী ও গবেষণাধর্মী বিভিন্ন প্রকল্প প্রদর্শনের সুযোগ পাবে। পাশাপাশি থাকবে কুইজ প্রতিযোগিতা, বিজ্ঞানবিষয়ক আলোচনা, রোবট প্রদর্শনী, বই প্রদর্শনী ও বিক্রির ব্যবস্থা, বিজ্ঞান ম্যাজিকসহ নানা আয়োজন।

বিভাগীয় পর্যায়ে বিজ্ঞান প্রকল্পে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের নিয়ে পরবর্তীতে ঢাকায় জাতীয় পর্যায়ের চূড়ান্ত বিজ্ঞান উৎসব আয়োজন করা হবে। চূড়ান্ত পর্বে সেরাদের জন্য থাকবে পুরস্কার ও সম্মাননাপত্র। বিজ্ঞপ্তি


হুয়াওয়ে আইসিটি কম্পিটিশনে অংশ নিতে চীনে বাংলাদেশ দল

হুয়াওয়ে আইসিটি কম্পিটিশন ২০২৩-২৪-এর আঞ্চলিক পর্বে বিজয়ের পর গ্লোবাল রাউন্ডে অংশ নিতে চীন সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) তিন শিক্ষার্থীর এই দলটি ২১ মে চীনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করে। এই তিন শিক্ষার্থী হলেন শুভম আগরওয়ালা, রাকেশ কর এবং মো. মাজহারুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২৩
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

হুয়াওয়ে আইসিটি কম্পিটিশন ২০২৩-২৪ এর আঞ্চলিক পর্বে বিজয়ের পর গ্লোবাল রাউন্ডে অংশ নিতে চীন সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) তিন শিক্ষার্থীর এই দলটি ২১ মে চীনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করে। এই তিন শিক্ষার্থী হলেন শুভম আগরওয়ালা, রাকেশ কর এবং মো. মাজহারুল ইসলাম।

এর আগে এই দলটি ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় হুয়াওয়ে আইসিটি কম্পিটিশনের এশিয়া প্যাসিফিক (এপিএসি) রাউন্ডে ১৪টি দেশের ছয় হাজার ৪০০ শিক্ষার্থীর সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে তৃতীয় স্থান অর্জন করে। এরই ধারাবাহিকতায় তারা চীনের শেনঝেনে চূড়ান্ত পর্বে অংশ নিতে যাচ্ছে। চূড়ান্ত এই পর্বে ৪০টি দেশ থেকে ৫২০ জনের বেশি শিক্ষার্থী ও ১৭০ জন শিক্ষক অংশ নিচ্ছেন। এই চূড়ান্ত পর্ব মূলত একটি দলীয় প্রতিযোগিতা যেখানে ১৭৪টি দল রয়েছে এবং তারা নেটওয়ার্ক ট্র্যাক, ক্লাউড ট্র্যাক, কম্পিউটিং ট্র্যাক ও ইনোভেশন ট্র্যাক; এই চারটি আলাদা আলাদা ট্র্যাকে প্রতিযোগিতা করবে। নেটওয়ার্ক ট্র্যাকে অন্য ৫১টি দলের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করবে বাংলাদেশ।

প্রতিযোগিতার পাশাপাশি ছয় দিনের এই সফরে অংশগ্রহণকারীরা প্রযুক্তি ও সাংস্কৃতিক মতবিনিময় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ, হুয়াওয়ের রিসার্চ ও ডেভেলপমেন্ট সেন্টার এবং প্রধান কার্যালয় পরিদর্শন, এবং চীনের ঐতিহ্য সম্পর্কে জানার সুযোগ পাবে।

হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়ার বোর্ড মেম্বার লি জংশেং বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশের জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করে আসছি। হুয়াওয়ে আইসিটি কম্পিটিশন এর মধ্যে একটি। শুরু থেকেই খুব অল্প সময়ের মধ্যে এটি বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের গ্লোবাল ফাইনালে উঠতে দেখে আমি খুবই আনন্দিত। আমি ফাইনালে তাদের সাফল্য কামনা করি।’

রুয়েটের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. ইঞ্জিনিয়ার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘হুয়াওয়ের এই আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় শিক্ষার্থীরা ইতোমধ্যেই তাদের জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধির সুযোগ পেয়েছে। আমি এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী সব শিক্ষার্থীকে অভিনন্দন জানাই। আমার ছাত্রদেরকে চূড়ান্ত পর্যায়ে যেতে দেখে খুবই খুশি হয়েছি। চূড়ান্ত পর্বে তারা অনেক দেশের অংশগ্রহণকারীদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। আমি তাদের সাফল্য কামনা করি।’

দেশে একটি শক্তিশালী আইসিটি ইকোসিস্টেম গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে হুয়াওয়ে দ্বিতীয়বারের মতো বাংলাদেশে হুয়াওয়ে আইসিটি প্রতিযোগিতা আয়োজন করেছে। গত অক্টোবরে শুরু হওয়া এবারের প্রতিযোগিতায় ২৫টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১০০০-এরও বেশি শিক্ষার্থী অংশ নেয়। হুয়াওয়ে আইসিটি কম্পিটিশন শুরুর পর এবারই প্রথম সরাসরি এত বড় আয়োজনের মাধ্যমে চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হবে। তরুণদের প্রযুক্তিগত দক্ষতা ও জ্ঞান আরও বৃদ্ধি করার মাধ্যমে স্মার্ট বাংলাদেশের রূপান্তর গতিশীল করতে এ ধরনের বিভিন্ন প্রতিযোগিতা আয়োজন করে হুয়াওয়ে। বিজ্ঞপ্তি


শাবিপ্রবিতে বিনিয়োগ শিক্ষা প্রোগ্রাম

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ক্যাপিটাল মার্কেট (বিআইসিএম) সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) স্কুল অব ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ‘ইনভেস্টমেন্ট ইন ক্যাপিটাল মার্কেট’ শীর্ষক বিনিয়োগ শিক্ষা প্রোগ্রাম আয়োজন করেছে। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২৪
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ক্যাপিটাল মার্কেট (বিআইসিএম) সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) স্কুল অব ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ‘ইনভেস্টমেন্ট ইন ক্যাপিটাল মার্কেট’ শীর্ষক বিনিয়োগ শিক্ষা প্রোগ্রাম আয়োজন করেছে। ওই অনুষ্ঠান মঙ্গলবার শাবিপ্রবি ক্যাম্পাসের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের শ্রেণিকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। বিনিয়োগ শিক্ষা প্রোগ্রামে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শাবিপ্রবির স্কুল অব ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের ডিন অধ্যাপক মাজহারুল হাসান মজুমদার। অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আশরাফুল ফেরদৌস চৌধুরী, ফাইন্যান্সিয়াল কনসালট্যান্ট ও উদ্যোক্তা বিদ্যুৎ কান্তি দাশ ও বিআইসিএমের উপ-পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শাহিদুল হক, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, পরিসংখ্যান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ এনামুল হকসহ ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের অন্য শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন। বিআইসিএমের প্রভাষক ইমরান মাহমুদ, প্রভাষক গৌরব রায় ও প্রভাষক মো. আদনান আহমেদ বিনিয়োগ শিক্ষা প্রোগ্রামটির বিভিন্ন সেশন পরিচালনা করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক মাজহারুল হাসান মজুমদার বলেন, ২০০৮ সাল থেকে বিআইসিএম বিনিয়োগকারীদের প্রশিক্ষিত করার লক্ষ্যে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। পুঁজিবাজারে উন্নয়নে বিনিয়োগকারীদের বাড়াতে এবং তাদের প্রশিক্ষিত করতে বিআইসিএমের কার্যক্রম আরও বেশি জোরদার করা প্রয়োজন বলে তিনি মন্তব্য করেন। অধ্যাপক ড. মো. আশরাফুল ফেরদৌস চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, আমাদের দেশের মার্কেট ক্যাপিটাল টু জিডিপি রেশিও বিশ্বের অন্য দেশের তুলনায় নগণ্য। সুতরাং দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে হলে পুঁজিবাজারের উন্নয়ন করতে হবে, যাতে পুঁজিবাজার দেশের জিডিপিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। বিদ্যুৎ কান্তি দাশ তার বক্তব্যে শিক্ষাজীবন থেকে প্রয়োজনে কিছু খরচ কমিয়ে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করার আহ্বান জানান। তবে এ ক্ষেত্রে ধৈর্য ধারণের অনুরোধ জানান তিনি।

মো. সিরাজুল ইসলাম তার বক্তব্যে বিআইসিএমের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরে বলেন, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিআইসিএম বিনিয়োগকারীদের প্রশিক্ষিত করার লক্ষ্যে কাজ করছে। বিআইসিএম নিয়মিতভাবে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ের ওপর প্রশিক্ষণ ও কর্মশালা আয়োজন করে থাকে। শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের আগ্রহ সৃষ্টি ও বিনিয়োগে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং ভবিষ্যতে তাদের পেশাগত উৎকর্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিআইসিএমের এ আয়োজন। বিজ্ঞপ্তি


একাডেমিক ব্যাংকিং সেবা চালু করল প্রাইম ব্যাংক

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের এক জায়গায় সব ব্যাংকিং সেবা দিতে ‘প্রাইমএকাডেমিয়া’ নামে একটি নতুন সেবা চালু করেছে প্রাইম ব্যাংক। একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নানামুখী আর্থিক প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখেই ‘প্রাইম‌একাডেমিয়া’ সেবাটি চালু করা হয়েছে। ছবি : সংগৃহীত
আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২৪
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের এক জায়গায় সব ব্যাংকিং সেবা দিতে ‘প্রাইমএকাডেমিয়া’ নামে একটি নতুন সেবা চালু করেছে প্রাইম ব্যাংক। একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নানামুখী আর্থিক প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখেই ‘প্রাইম‌একাডেমিয়া’ সেবাটি চালু করা হয়েছে। এ সেবার আওতায় রয়েছে যথাক্রমে: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য টিউশন ফি কালেকশন, স্টাফদের জন্য পেরোল ব্যাংকিং সেবা, বিশেষ সুবিধাসহ শিক্ষার্থীদের সেভিংস অ্যাকাউন্টস সেবা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য আকর্ষণীয় মুনাফা আয়ের সুবিধাসহ প্রতিষ্ঠানিক অ্যাকাউন্ট সেবা, শিক্ষকদের ইন্স‌্যুরেন্স সুবিধাসহ টিচার্স সেভিংস অ্যাকউন্ট সেবা, সন্তানের শিক্ষা নিশ্চিতে আর্থিক সুরক্ষার জন্য অভিভাবকদের জন্য ঋণ সুবিধা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন ও প্রসারে আর্থিক সহায়তা করতে প্রাতিষ্ঠানিক ঋণ-বিনিয়োগ সুবিধা এবং বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে শিক্ষার্থীদের জন্য স্টুডেন্ট ফাইল সেবা। সম্প্রতি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সিলেটের স্বনামধন্য ব্লু বার্ড হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্রাইম‌একাডেমিয়ার প্রথম গ্রাহক হিসাবে প্রাইম ব্যাংকের এ সেবা চালু করা হয়। অনুষ্ঠানে ব্লুবার্ড হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ হুসনে আরা এবং প্রাইম ব্যাংক পিএলসির ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর নাজিম এ. চৌধুরী নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিনামা হস্তান্তর করেন।

অনুষ্ঠানে প্রাইম ব্যাংক পিএলসির ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর নাজিম এ চৌধুরী বলেন, ‘দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য এ ধরনের একটি ব‌্যতিক্রমী অর্থিক সেবা চালু করতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। আমরা আমাদের দেশের ভবিষ্যৎ তরুণদের উন্নয়নের সর্বাধুনিক সুযোগ-সুবিধা ও পরিষেবাসহ উন্নত শিক্ষা প্রদানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সক্ষম করে গড়ে তুলতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

ব্লুবার্ড হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ হুসনে আরা বলেন, ‘শিক্ষা খাতের উন্নয়নে এ ধরনের একটি সেবা নিয়ে এগিয়ে আসার জন্য আমরা প্রাইম ব্যাংক পিএলসির কাছে কৃতজ্ঞ। সন্তানদের শিক্ষা-সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় সব প্রয়োজন মেটাতে এই সেবা আমাদের শিক্ষক এবং অভিভাকদের জন্য সত‌্যিই সহায়ক হিসেবে কাজ করবে।’

প্রাইমএকাডেমিয়া বিভিন্ন সুবিধা ও আর্থিক সক্ষমতা সরবরাহ করে এই খাতের আর্থিক চিত্র পরিবর্তন করতে প্রস্তুত। তারা সব স্কুলসহ বাংলাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এই সেবার আওতায় আনার লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করেছে, যা দেশব‌্যাপী সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতির অংশ। বিজ্ঞপ্তি


গ্রাহক বৃদ্ধিতে শীর্ষে বাংলালিংক

আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২৫
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

দেশের অন্যতম উদ্ভাবনী ডিজিটাল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বাংলালিংক, ২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে গ্রাহক ও আয় বৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রেখেছে। বাংলালিংকের স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান ভিওনের প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে বাংলালিংকের আয় আগের বছরের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় ৬ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৪৪ কোটি টাকা। মোট গ্রাহক সংখ্যা ও বিশেষভাবে ফোর-জি গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বাংলালিংকের এই উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সম্ভব হয়েছে। এ ছাড়াও এর পেছনে অবদান রেখেছে দ্রুতগতির ইন্টারনেট, নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও বিভিন্ন উদ্ভাবনী ডিজিটাল সেবা যেগুলো প্রতিনিয়ত গ্রাহকদের জীবনমানকে আরও সহজ করে তুলেছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত মার্চ নাগাদ বাংলালিংকের গ্রাহক সংখ্যা এক বছরের ব্যবধানে ৩% বৃদ্ধি পেয়ে ৪ কোটি ১০ লাখ থেকে ৪ কোটি ৪৪ লাখে পৌঁছেছে। গত এক বছরে বাংলালিংক গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির হারে দেশের সব অপারেটরগুলোর মধ্যে শীর্ষে অবস্থান করছে। ভিওন-এর এই প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলালিংকের ফোর-জি গ্রাহক ২০২৩ সালের ১ কোটি ৭০ লাখ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ২০ লাখে, যা ২৩ শতাংশেরও বেশি। এই অভূতপূর্ব প্রবৃদ্ধি দেশব্যাপী নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও উদ্ভাবনী ডিজিটাল সেবা প্রদানের মাধ্যমে বাংলালিংকের জাতীয় অপারেটর হয়ে ওঠার প্রতিশ্রুতিরই প্রতিফলন।

‘ফোর-জি ফর অল’ ভিশনের অধীনে দেশব্যাপী ফোর-জি কভারেজ ও গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি বাংলালিংক দেশের দ্রুততম মোবাইল ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবেও নিজের অবস্থান ধরে রেখেছে।

ভিওন-এর ডিজিটাল অপারেটর ১৪৪০ মডেলের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বাংলালিংকের ডিজিটাল অপারেটর কৌশল সাজানো হয়েছে, যা বাংলাদেশে উদ্ভাবনী ডিজিটাল সেবার বিকাশ ঘটাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এ ছাড়াও স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, বিল পে ও বিনোদনের মতো সব প্রয়োজনীয় সেবা একটি প্ল্যাটফর্ম থেকে দেওয়ার ফলে মাইবিএল সুপারঅ্যাপ দেশের প্রথম টেলকো সুপারঅ্যাপ হিসেবে দারুণ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। এই সুপারঅ্যাপের মাসিক সক্রিয় গ্রাহক সংখ্যা বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৮০ লাখেরও বেশি।

বাংলালিংকের সিইও এরিক অস বলেন, ‘বাংলালিংকের গ্রাহক সংখ্যা ও আয় বৃদ্ধিই বলে দেয় গ্রাহকরা দেশের সবচেয়ে দ্রুতগতির ফোর-জি ইন্টারনেট সেবাদাতা অপারেটরের ওপর আস্থা রেখেছে। ডিজিটাল অপারেটর ১৪৪০ কৌশলের ওপর আস্থা রেখে দিনের প্রতিটি মিনিটে গ্রাহকের জন্য প্রয়োজনীয় সেবা নিয়ে হাজির থাকার প্রচেষ্টার ফলেই এসেছে এই সাফল্য। নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও ডিজিটাল সেবার মান বৃদ্ধিতে বিনিয়োগ এ ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রেখেছে, যা স্মার্ট বাংলাদেশ ভিশন ২০৪১-এর সঙ্গেও দারুণভাবে সংগতিপূর্ণ। বাংলাদেশে ডিজিটাল সেবা একটি বিকাশমান পর্যায়ে রয়েছে, তাই এ খাতের প্রবৃদ্ধির বিষয়ে আমরা আশাবাদী। বাংলালিংকের গ্রাহক ও অংশীজনদের প্রতিনিয়ত আমাদের সমর্থন করে যাওয়ার জন্য জানাই কৃতজ্ঞতা।’ বিজ্ঞপ্তি


ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইউনিভার্সিটির জার্নাল প্রকাশিত

আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২৫
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

‘আইএসইউ জার্নাল অব ইংলিশ স্ট্যাডিজ’ শিরোনামে প্রকাশিত হলো ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড ইউনিভার্সিটির (আইএসইউ) ইংরেজি বিভাগের প্রথম জার্নাল। গত মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাখালী ক্যাম্পাসে এ উপলক্ষে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর ড. আব্দুল আউয়াল খান। আইএসইউ উপাচার্য এবং আইএসইউ জার্নাল অব ইংলিশ স্টাডিজ প্রধান উপদেষ্টা প্রফেসর ড. আব্দুল আউয়াল খান বলেন, একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান নির্ভর করে মানসম্পন্ন জার্নালের ওপর। তাই গবেষণাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে এ বিশ্ববিদ্যালয়। শিক্ষকদের দক্ষতা বাড়াতে পড়তে হবে, লিখতে হবে বেশি করে, সমস্যা নির্ধারণ করতে হবে এবং গবেষণার মাধ্যমে তা তুলে ধরে নতুন কিছু করতে হবে, যা সমাজের কাজে আসবে ।

সেন্টার ফর রিসার্চ, ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পাবলিকেশন্স (সিআরডিপি) পরিচালক এবং জার্নালটির উপদেষ্টা, মো. মাহবুবুর রহমান জার্নালটির জন্য ই-আইএসএসএন নম্বর নেওয়া এবং পরবর্তীতে ডিওআই নম্বরের জন্য আবেদন করার উদ্যোগকে প্রশংসনীয় বলে অভিহিত করেন। এ পদক্ষেপগুলো নিঃসন্দেহে জার্নালে প্রকাশিত গবেষণামূলক নিবন্ধগুলোর দৃষ্টিগোচরতা এবং গ্রহণযোগ্যতাকে অনেকগুণ বাড়িয়ে দেবে। স্কোপাস, সোশাল সায়েন্স সাইটেশন ইন্ডেক্স, আর্টস এবং হিউম্যানিটিজ সাইটেশন ইন্ডেক্স, পাবমেড, স্কিমাগোসমূহের মতো প্রসিদ্ধ ডেটাবেইজে ইন্ডেক্সিং করা সম্ভব হলে জার্নালটির ব্যাপ্তি এবং প্রভাব-গ্রহণযোগ্যতা আরও বহুগুণে বেড়ে যাবে এবং সেই লক্ষ্যে সিআরডিপি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ট্রেজারার (ভারপ্রাপ্ত) এইচ. টি. এম. কাদের নেওয়াজ, আইকিউএসি পরিচালক প্রফেসর ড. একরামুল হক, ইংরেজি বিভাগের উপদেষ্টা প্রফেসর মো. আসাদ উল্লাহ-আল-হোসেন। আরও উপস্থিত ছিলেন আইএসইউ রেজিস্ট্রার মো. ফাইজুল্লাহ কৌশিক, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর মোহাম্মদ আলী, মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মো. আবুল কালাম আজাদ, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারপারসন প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল বাসেদ মিয়া, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের চেয়ারপারসন ড. মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারপারসন সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। এ ছাড়াও বিভিন্ন প্রোগ্রামের শিক্ষক-শিক্ষিকা, শিক্ষার্থী ও প্রশাসনিক কর্মকর্তারাও অংশ নেন। বিজ্ঞপ্তি


মিডল্যান্ড ব্যাংক ও জেনিথ ইসলামী লাইফের মধ্যে ব্যাংকাসুরেন্স চুক্তি

মিডল্যান্ড ব্যাংক পিএলসি এবং জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের মধ্যে ব্যাংকাসুরেন্স চুক্তি সই হয়েছে। ছবি : সংগৃহীত
আপডেটেড ২৩ মে, ২০২৪ ১২:২৬
করপোরেট ডেস্ক

মিডল্যান্ড ব্যাংক পিএলসি এবং জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের মধ্যে ব্যাংকাসুরেন্স চুক্তি সই হয়েছে। এর ফলে মিডল্যান্ড ব্যাংকের গ্রাহকরা ব্যাংক থেকেই সরাসরি জেনিথ লাইফের সব ধরনের জীবন ও স্বাস্থ্যবিমা সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন। গুলশানে মিডল্যান্ড ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে সম্প্রতি এ চুক্তি সই হয়। জেনিথ লাইফের পক্ষে কোম্পানির মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম নুরুজ্জামান ও মিডল্যান্ড ব্যাংকের পক্ষে ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আহসান-উজ জামান চুক্তিতে সই করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মিডল্যান্ড ব্যাংকের হেড অব রিটেইল ডিস্ট্রিবিউশন ডিভিশন ও চিফ ব্যাংকাসুরেন্স অফিসার মো. রাশেদ আকতার, ব্যাংকাসুরেন্স ম্যানেজার খন্দকার ইমরান হোসেন এবং জেনিথ লাইফের কোম্পানি সচিব আবদুর রহমান, হেড অব ব্যাংকাসুরেন্স মো. শাহাদাত হোসেন, হেড অব গ্রুপ ইন্স্যুরেন্স মো. আনোয়ার হোসেন সরকার প্রমুখ।


বিএসএমআরএমইউ ভাইস চ্যান্সেলরের জাপান সফর

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির (বিএসএমআরএমইউ) ভাইস-চ্যান্সেলর রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ মুসা জাপান এজেন্সি ফর মেরিন-আর্থ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির (জ্যামসটেক) প্রধান কার্যালয় পরিদর্শন করেছেন।

গত ২১ মে বিএসএমআরএমইউ ভাইস-চ্যান্সেলর জ্যামসটেকের পরিচালক প্রফেসর ড. তেতসুয়া মিওয়ার সঙ্গে দুটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে যৌথ আন্তর্জাতিক বিনিময় ও গবেষণা সহযোগীতার বিষয়ে আলোচনা করেন। পরবর্তীতে জ্যামসটেকের পরিচালক ভাইস-চ্যান্সেলরকে তাদের বিভিন্ন গবেষনা কার্যক্রম ও ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ভ্যাসেল কাইমেই ঘুরে দেখান।

এ ছাড়া, বিএসএমআরএমইউ ভাইস-চ্যান্সেলর ইয়োকোহামা সিটি ইউনিভার্সিটি (ওয়াইসিইউ) পরিদর্শন করেন এবং ওয়াইসিইউ প্রেসিডেন্ট ড. ইউশিহিরো ইশিকাওয়া-এর সঙ্গে যৌথ গবেষণা ও অ্যাকাডেমিক সহযোগিতা এবং ফ্যাকাল্টি ও শিক্ষার্থী বিনিময়ের বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা করেন।

ভাইস-চ্যান্সেলর ওয়াইসিইউ প্রেসিডেন্টকে বিএসএমআরএমইউ-এর বর্তমান অগ্রগতি অবহিত করার পাশাপাশি জাপানের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সহযোগিতার সম্ভাবনাগুলো তুলে ধরেন। এ সময় তিনি ওয়াইসিইউ-এর বিভিন্ন একাডেমিক ও গবেষণা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এই সফরে বিএসএমআরএমইউ ভাইস চ্যান্সেলরের সঙ্গে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মেরিন বায়োটেকনোলজি বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ নাজির হোসেন।

বিষয়:

বেঙ্গল ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের স্বাস্থ্যবিমা দাবির চেক হস্তান্তর

বেঙ্গল ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের আড়াইহাজার সার্ভিস পয়েন্ট অফিসের বিমাগ্রাহক রুবিনা বেগমের কাছে সম্প্রতি স্বাস্থ্যবিমা দাবির চেক হস্তান্তর করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বেঙ্গল ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের আড়াইহাজার সার্ভিস পয়েন্ট অফিসের বিমাগ্রাহক রুবিনা বেগমের কাছে সম্প্রতি স্বাস্থ্যবিমা দাবির চেক হস্তান্তর করা হয়। স্বাস্থ্যবিমা দাবির চেক হস্তান্তর করেন কোম্পানির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও এলিগেন্ট প্রকল্প প্রধান মো. জসিম উদ্দিন। চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সহকারী প্রকল্প প্রধান মো. এনামুল হক, আড়াইহাজার সার্ভিস পয়েন্ট অফিসের ইনচার্জ মো. আমানুল্লাহ প্রমুখ। বিমাগ্রাহক রুবিনা বেগমের পিত্তথলিতে পাথরের উপস্থিতি শনাক্ত হওয়ায় অস্ত্রোপচারের সমুদয় খরচ বেঙ্গল ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড পুনর্ভরন করে। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

বিইউএফটি পরিদর্শনে কোরিয়ান রাষ্ট্রদূত

বাংলাদেশে নিযুক্ত কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রদূত পার্ক ইয়ং-সিক গতকাল মঙ্গলবার বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউএফটি) পরিদর্শন এবং বিশ্ববিদ্যালয় বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান মো. শফিউল ইসলামের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। ছবি : সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বাংলাদেশে নিযুক্ত কোরিয়া প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রদূত পার্ক ইয়ং-সিক গতকাল মঙ্গলবার বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউএফটি) পরিদর্শন এবং বিশ্ববিদ্যালয় বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান মো. শফিউল ইসলামের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ারম্যান রাষ্ট্রদূতকে বিইউএফটির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস এবং একাডেমিক ও গবেষণা উদ্যোগের বিস্তারিত তুলে ধরেন। এ ছাড়া তিনি হ্যানসিও বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে বিদ্যমান পারস্পরিক সহযোগিতা এবং শিক্ষা ও গবেষণা নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরেন। পরিকল্পনায় একাডেমিক এবং ছাত্র বিনিময়, যৌথ গবেষণা প্রকল্প এবং কোরিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষ করে টেক্সটাইল এবং ফ্যাশনের ক্ষেত্রে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ নিয়ে আলোকপাত করেন। এ সময় তিনি কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (কোইকা) কর্তৃক দক্ষতা ও সক্ষমতা উন্নয়ন কর্মসূচিতে বিইউএফটির অংশগ্রহণের সম্ভাবনার কথা অবহিত করন। বিইউএফটি চেয়ারম্যান বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কোরিয়ার উল্লেখযোগ্য অবদানের কথা উল্লেখ করে বাংলাদেশ ও কোরিয়ার মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের ওপরও জোর দেন। সাক্ষাৎকালে অন্যান্যের মধ্যে বিইউএফটির ট্রাস্টি বোর্ডের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মোজাফফর ইউ সিদ্দীক; ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য মো. মশিউল আজম সজল; বিইউএফটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মাহফুজুর রহমান; উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইঞ্জিনিয়ার আইয়ুব নবী খান; ট্রেজারার, ডিন, সিএফইউ এবং প্রশাসনিক প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটিতে সেমিস্টার ডে উদযাপন

প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি গুলশান ক্যাম্পাসের অডিটোরিয়ামে গতকাল মঙ্গলবার ইংরেজি বিভাগের ‘সেমিস্টার ডে-২০২৪’-এর আয়োজন করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটির গুলশান ক্যাম্পাসের অডিটোরিয়ামে গতকাল মঙ্গলবার ইংরেজি বিভাগের ‘সেমিস্টার ডে-২০২৪’-এর আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. আব্দুল মান্নান চৌধুরী। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার, ইংরেজি বিভাগের হেড, ইউনিভার্সিটির প্রক্টর ও ওই বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা। ‘সেমিস্টার ডে-২০২৪’ উদযাপন উপলক্ষে অনুষ্ঠানে প্রথমে ইংরেজি বিভাগের নবীন ছাত্র-ছাত্রীদের ফুল দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেওয়া হয়। পাশাপাশি ইউনিভার্সিটির লোগো সংবলিত ব্যাগ নবাগত শিক্ষার্থীর মধ্যে বিতরণ করা হয়। অন্যদিকে যারা ওই বিভাগ থেকে অনার্স ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন তাদেরও আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় দেওয়া হয়। নবীন ও প্রবীণ ছাত্র-ছাত্রীদের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণে অনুষ্ঠানটি এক অনন্য মাত্রা লাভ করে। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

banner close