বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

শ্বশুরবাড়ির নয়নের মণি কারিনা  

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত
বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ ২১:৫২

বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় ও কৃতী অভিনেত্রী কারিনা কাপুর খান। আজ ছিল কারিনা কাপুরের জন্মদিন। অভিনেত্রীকে ভালোবাসার মানুষের সংখ্যা কিন্তু মোটেও কম নয়। অনুরাগীরা তো রয়েছেনই, বলিউড তারকাদেরও অনেক পছন্দের তিনি। তার কথা বলার স্টাইল থেকে শুরু করে নখরা, বান্ধবীদের গ্যাংয়ের সঙ্গে পার্টি, দুই ছেলে তৈমুর-জাহাঙ্গীর সবই থাকে চর্চায়। তবে বাইরে থেকে দেখলে কারিনাকে যতই ‘নাক উঁচু’ মনে হোক না কেন, শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে কিন্তু গলায় গলায় ভাব এই অভিনেত্রীর। শাশুড়ি থেকে দুই ননদ, আগের পক্ষের দুই ছেলে-মেয়ে সবার সঙ্গেই ভালো সম্পর্ক কারিনা কাপুর খানের।

২০১২ সালের ১৬ অক্টোবর কারিনা বিয়ে করেছিলেন সাইফ আলি খানকে। দুজনের বয়সের ফারাক পাক্কা ১০ বছরের। তবে তা ছাপ ফেলতে পারেনি তাদের প্রেমে। বিয়ের আগে বেশ কয়েকবছর সাইফের সঙ্গে লিভ ইনও করেছিলেন কারিনা। ২০১১ সালে যখন সাইফের বাবা মনসুর আলি খান মারা যান, তখনও বিয়ে হয়নি সাইফ-কারিনার। সাইফের পরিবারের পাশে স্তম্ভের মতো দাঁড়িয়ে ছিলেন অভিনেত্রী। সেই কঠিন সময় থেকেই কারিনা তাদের পাশে ছিলেন।

এখানেই শেষ নয়, ‘বিয়ের দিন কারিনা কিন্তু কোনো ডিজাইনার দামি হাল ফ্যাশনের পোশাক বেছে নেননি। বরং শাশুড়ি শর্মিলার বিয়ের পোশাকই গায়ে তুলেছিলেন। বরাবরই কারিনাকে বলতে শোনা যায়, শাশুড়ি শর্মিলা তার অনুপ্রেরণা। এক সাক্ষাৎকারে শাশুড়ি মার প্রশংসা করে কারিনা একবার বলেছিলেন, ‘আমার চোখে আমার শাশুড়ি চিরকাল বেগম হয়েই থাকবেন। আমি সবসময় তাকে অনুসরণ করি।’

দুই ননদ সাবা আর সোহাকেও কিন্তু মাথায় করে রাখেন কারিনা। যে কোনো অনুষ্ঠানে এখনো চলে যান সাইফের বাড়িতে। মুম্বাইয়ে যে কোনো অনুষ্ঠান হলেও আমন্ত্রিতের তালিকায় থাকেন সোহা, কুণাল খেমু ও তাদের মেয়ে ইনায়া। দুই ছেলেকেও ভাইবোনদের সঙ্গে মিশে বড় হওয়ার শিক্ষা দিয়েছেন কারিনা। রাখি হোক বা হোলি, প্রায়ই দেখা যায় ছোটদের পার্টি বসেছে। আর তাতে শামিল হয়ে যান সাইফের প্রথম বিয়ের দুই সন্তান সারা আলি খান ও ইব্রাহিম আলি খান। সারা-ইব্রাহিম-তৈমুর-ইনায়া-জেহ প্রায়ই ধরা দেয় এক ফ্রেমে। কারিনা গর্ব করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবিগুলো শেয়ার করে নেন ভক্তদের সঙ্গে। নেটিজেনরাও তা খুব পছন্দ করে।

এক সাক্ষাৎকারে সারা আলি খান জানিয়েছিলেন, সাইফকে বিয়ের পর কারিনা তাদের দুই ভাইবোনকে বলেছিলেন, তাদের মা হতে চান না তিনি। কারণ তাদের জন্য অমৃতাই সেরা। তবে ভালো বন্ধু হতে পারেন। বন্ধুত্বের সম্পর্কই রাখতে চান কারিনা স্বামীর প্রথম পক্ষের দুই সন্তানের সঙ্গে।

বিষয়:

উচ্ছ্বাসে ভাসছেন নোরা ফাতেহি

আপডেটেড ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ০০:০৪
বিনোদন ডেস্ক

ভারতীয় সেলিব্রেটিদের মধ্যে এ সময়ের আলোচিত একটি নাম নোরা ফাতেহি। এরই মধ্যে বলিউডের নতুন আইটেমকন্যা হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন। যদিও এ তকমা তার এখন পছন্দ নয়। বরং আইটেম গানের বদলে নায়িকা হিসেবে অভিনয়ে মনোনিবেশের আভাস দিয়েছেন এ হার্টথ্রব তারকা। পাশাপাশি সম্প্রতি অভিনেত্রী ও গায়িকা হিসেবেও নিজেকে মেলে ধরছেন নোরা। একের পর এক সিনেমায় যেমন অভিনয় করছেন, তেমনি নিজের সলো গানও আনছেন প্রকাশ্যে।

এসবের বাইরে ক্যারিয়ারে এবার বড় একটি ধাপে পা রেখেছেন তিনি। যুক্ত হয়েছেন পৃথিবীর অন্যতম বড় রেকর্ড কোম্পানির সঙ্গে। যেটার নাম ওয়ার্নার মিউজিক গ্রুপ। এটি বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় তিনটি রেকর্ড লেবেলের একটি হিসেবে বিবেচিত। যে প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করার স্বপ্ন দেখেন বিভিন্ন দেশের সংগীত তারকারা, সেই ওয়ার্নার মিউজিক গ্রুপ থেকে নোরার নতুন গান প্রকাশ হবে। পাশাপাশি তিনি ভারতের টি-সিরিজের সঙ্গেও যুক্ত থাকছেন। এ ছাড়া সিনেমার কাজও চলবে সমানতালে।

উচ্ছ্বসিত কণ্ঠে নোরা ফাতেহি বলেন, ‘ক্যারিয়ারে সাফল্যটা আমি উপভোগ করছি। তবে এই চুক্তি আমার সংগীত ক্যারিয়ারে একটা বড় ধাপ, আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে একটা নতুন অধ্যায়। আমার স্বপ্ন একজন বৈশ্বিক সংগীত তারকা ও পারফর্মার হবো। বিশ্বজুড়ে আমার ভক্ত থাকবে। আমার বেড়ে ওঠার বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতি গানের মাধ্যমে তুলে ধরতে চাই। ওয়ার্নার মিউজিক গ্রুপের সঙ্গে কাজ করব ভেবে আমি ভীষণ উচ্ছ্বসিত। আশা করছি তারা আমার লক্ষ্য অর্জনে সহযোগিতা করবে।’

অন্যদিকে ওয়ার্নার মিউজিক গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রবার্ট কাইনল বলেছেন, ‘নোরা অসাধারণ মেধাবী ও আধুনিক পারফর্মার। তার গানে সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য ফুটে ওঠে। তার স্বপ্ন ও আকাঙ্ক্ষা আমাদেরও মুগ্ধ করেছে। তাই আমরা তাকে সহযোগিতা করতে চাই, যাতে বিশ্বের মঞ্চে সে নিজেকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারে।’

শুধু বলিউডের গানেই নয়, নোরা ফাতেহি ইতোপূর্বে ২০২২ সালের ফিফা বিশ্বকাপের থিম সং ‘লাইট দ্য স্কাই’-এ পারফর্ম করেছেন। যা তাকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আরও পরিচিতি এনে দিয়েছে। বর্তমানে তার ইনস্টাগ্রামে অনুসারীর সংখ্যা ৪৬ মিলিয়নের বেশি। অন্যদিকে তার গান ১ দশমিক ২ বিলিয়ন বার স্ট্রিম হয়েছে বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে।


অস্কারে ‘দেশি গার্ল’ প্রিয়াঙ্কা!

আপডেটেড ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ০০:০৩
বিনোদন ডেস্ক

আগামী ১০ মার্চ এবারের অস্কার-২০২৪ এর আসর বসবে লস অ্যাঞ্জেলেসের ডলবি থিয়েটারে। বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ এ পুরস্কারের ৯৬তম আসরের চূড়ান্ত মনোনয়ন তালিকায় সেরা প্রামাণ্যচিত্র বিভাগে জায়গা করে নিয়েছে পাঁচটি চলচ্চিত্র জায়গা করে নেয়, যার একটি ‘টু কিল আ টাইগার’।

এই প্রামাণ্যচিত্রেই এবার যুক্ত হলেন দেশি গার্লখ্যাত বলিউড তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া! অভিনয়ে নয়, এর নির্বাহী প্রযোজক হিসেবে যোগ দিয়েছেন এ অভিনেত্রী। হিন্দুস্তান টাইমস থেকে জানা গেল, ‘টু কিল আ টাইগার’ মূলত ভারতের ঝাড়খণ্ডের রঞ্জিত নামের এক কৃষকের গল্প। ২০১৭ সালে তার ১৩ বছর বয়সি কন্যা কিরণ গণধর্ষণের শিকার হয়। সে ঘটনা থেকে বেঁচে ফেরা কন্যার ন্যায় বিচারের জন্য লড়াই করেন বাবা।

প্রামাণ্যচিত্রটিতে যুক্ত হওয়া প্রসঙ্গে ইনস্টাগ্রামের এক পোস্টে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া বলেছেন, অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডে মনোনয়ন পাওয়া ‘টু কিল আ টাইগার’ টিমে যোগ দিতে পেরে আমি গর্বিত। সে সঙ্গে এ-ও ঘোষণা করছি যে, এই চিত্রটি বিশ্বজুড়ে পরিবেশনা করবে নেটফ্লিক্স। এই তারকা আরও বলেন, ২০২২ সালে যখন আমি এটি প্রথমবার দেখেছিলাম, তখনই পছন্দ হয়েছিল। কন্যার জন্য ন্যায় বিচার পেতে আইনি ব্যবস্থার সঙ্গে তার বাবার বীরত্বপূর্ণ লড়াই দেখে মুগ্ধ হয়েছিলাম।

এই ছবির সঙ্গে একটি ব্যক্তিগত অনুভূতিও আছে প্রিয়াঙ্কার। এ নিয়ে তিনি বলেন, এই অনবদ্য ছবি আমাকে নানাভাবে স্পর্শ করেছে, তবে ব্যক্তিগতভাবে আমি নিজেও ঝাড়খণ্ডে জন্মেছিলাম এবং এমন এক বাবার ঘরে বড় হয়েছি, যিনি চিরকালই একজন বিজয়ী। ফলে ছবিটি দেখে আমার হৃদয় চুরমার হয়ে গেছে। দর্শককে ছবিটি দেখানোর অপেক্ষা সহ্য হচ্ছে না।

২০২৩ সালের অক্টোবরে নিউইয়র্কে মুক্তি পেয়েছিল ‘টু কিল আ টাইগার’। এটি নির্মাণ করেছেন নিশা পাহুজা। এর নির্বাহী প্রযোজক হিসেবে আরও আছেন রুপি কৌর, অতুল গাওয়ান্দে, অ্যান্ডি কোহেন, আনিতা লি, শিবানী রাওয়াত, আনিতা ভাটিয়া প্রমুখ।


খ্যাতনামা গজল গায়ক পঙ্কজ উদাস আর নেই

গজল গায়ক পঙ্কজ উদাস। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১৭:৩৫
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

খ্যাতনামা গজল গায়ক পঙ্কজ উদাস মারা গেছেন। খবরটি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন তার মেয়ে নায়াব উদাস। সামাজিত যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া এক পোস্টে তিনি বলেন, ‘গভীর শোকের সঙ্গে জানাচ্ছি, পদ্মশ্রী শিল্পী পঙ্কজ উদাস ২৬ ফেব্রুয়ারি মারা গেছেন।’

‘চান্দি জ্যায়সা রঙ্গ তেরা’, ‘না কাজরে কি ধার’, ‘দিওয়ারো সে মিল কর রোনা’, ‘আহিস্তা’, ‘থোড়ি থোড়ি প্যার করো’, নিকলো না বেনাকাব’ গান দিয়ে ৮০র দশককে মুগ্ধ করে রেখেছিলেন তিনি। পঙ্কজ উদাসের গাওয়া অসাধারণ সব গজল আজও শ্রোতাদের কানে বাজে। ‘নশা’, ‘পয়মানা’, ‘হসরত’, ‘হামসফর’-এর মতো বেশ কয়েকটি বিখ্যাত অ্যালবামও রয়েছে অসাধারণ এই কণ্ঠ শিল্পীর।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তিনি।


ফের বিয়ে করছেন অনুপম রায়

আপডেটেড ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১৭:০৭
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

নতুন জীবন শুরু করছেন ভারতীয় গায়ক অনুপম রায়। ঘর বাঁধবেন টলিপাড়ারই এক গায়িকার সঙ্গে। আগামী ২ মার্চ পরিবার ও ঘনিষ্ঠ আত্মীয়দের উপস্থিতিতেই রেজিস্ট্রি করেই বিয়ে করবেন অনুপম। পাত্রী টলিপাড়ার গায়িকা প্রস্মিতা পাল। খুব বড়সড় আয়োজনে আপত্তি গায়কের।

দেশটির সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার অনলাইনের প্রতিবেদনে আজ এমনটি জানানো হয়েছে।

সংবাদমধ্যমটিকে অনুপম বলেন, ‘পাত্রী প্রস্মিতা। দেখা যাক কী হয়! আমি আশাবাদী বলেই বিয়ে করছি।’

প্রস্মিতা ও অনুপম একসঙ্গে ‘হাইওয়ে’ ছবিতে ‘তোমায় নিয়ে গল্প হোক’ গানটি গেয়েছিলেন। এ ছাড়াও প্রস্মিতার গাওয়া ‘সাজনা’ ও ‘হতে পারে না’ গানগুলি বেশ জনপ্রিয়।

এর আগে ২০১৫ সালে পিয়া চক্রবর্তীকে বিয়ে করেন অনুপম। প্রায় ছয় বছরের দাম্পত্য জীবনের পর বিচ্ছেদ ঘোষণা করেন তারা। কলেজে পড়ার সময় অনুপমের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয়েছিল পিয়ার। এই বন্ধুত্ব পরবর্তীকালে এসে গড়ায় ভালবাসার সম্পর্কে। তার পরই বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। তত দিনে অনুপমের প্রথম বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছে।

একাধিক জনপ্রিয় ছবিতে গান গেয়েছেন, সুরারোপ করেছেন অনুপম। প্রকাশিত হয়েছে কবিতার বই। অন্য দিকে, পিয়া পড়াশোনার সঙ্গে নানা সামাজিক কাজকর্মে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছিলেন। এমনকি অনুপমের পরিচালনায় রবীন্দ্রনাথের গানের একক একটি অ্যালবামও প্রকাশিত হয়েছিল পিয়ার। অনুপমের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় ২০২১ সালে। তার বছর দুয়েকের মাথায় ফের বিয়ে করেন পিয়া। পাত্র অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। গত বছর নভেম্বর মাসেই সইসাবুদ করে বিয়ে সারেন তাঁরা। এ বার নতুন জীবন শুরু করতে চলেছেন অনুপম।


চিত্রনায়িকা পপির বাবা মারা গেছেন

চিত্রনায়িকা সাদিকা পারভিন পপি ও তার বাবা আমির হোসেন। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১৩:২৫
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

চিত্রনায়িকা সাদিকা পারভিন পপির বাবা আমির হোসেন মারা গেছেন।

সোমবার সকালে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন পপির পরিবারের ঘনিষ্টজন।

বার্ধক্যের কারণে দীর্ঘদিন ধরেই নানা রোগে ভুগছিলেন তিনি। তবে গত কয়েক মাসে তার শারীরিক অবস্থা অনেক বেশি খারাপের হয়ে যায়। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

১৯৯৭ সালে মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ‘কুলি’ সিনেমায় অভিনয়ের মাধ্যমে ঢালিউডে অভিষেক হয় পপির। মেঘের কোলে রোদ, কি যাদু করিলা, গঙ্গাযাত্রা সিনেমায় অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন হন এ নায়িকা।


বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১২:০৮
বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি

পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটি থাকায় সোমবার সকাল থেকে সারাদিন বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকবে। তবে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে পাসপোর্টযাত্রী চলাচল স্বাভাবিক থাকবে।

আগামীকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে আবারও এ পথে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য চলবে বলে বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা জানিয়েছেন।

বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস স্টাফ এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক সাজেদুর রহমান জানান, পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে সরকারি ছুটি ঘোষণা করায় আজ সোমবার বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দরের সকল কাজকর্ম বন্ধ থাকবে। সে কারণে এ পথে কোনো আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম হবে না। মঙ্গলবার সকাল থেকে আবার এ পথে আমদানি-রপ্তানি চলবে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান বিশ্বাস জানান, আজ সোমবার এ পথে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকলেও দু’দেশের মধ্যে পাসপোর্টযাত্রী চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

বেনাপোল স্থলবন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (ট্রাফিক) করিম জানান, পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে সরকারি ছুটি থাকায় বন্দরের পাশাপাশি কাস্টমসের কার্যক্রমের সঙ্গে দু’দেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকলেও যেসব ভারতীয় ট্রাক বন্দরে পণ্য খালাস করে খালি ট্রাক নিয়ে ফিরে যেতে চাইবে তাদের অনুমতি দেয়া হচ্ছে। এ জন্য চেকপোস্ট কার্গো শাখা খোলা রয়েছে।


শাহরুখ খানের ১৭টি মোবাইল!

বলিউড অভিনেতা শাহরুখ খান। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ২২:৫৩
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

সম্প্রতি বলিউড অভিনেতা শাহরুখ খানকে নিয়ে মজার এক তথ্য দিয়েছেন তার বন্ধু বলিউড প্রযোজক-অভিনেতা বিবেক ভাসওয়ানি।

তিনি বলেন, ‘শাহরুখ খানের ১৭টি মুঠোফোন রয়েছে। তার মধ্যে একটি নাম্বার আমার কাছে আছে। ‘জওয়ান’ সিনেমা মুক্তির পর আমি শাহরুখকে ফোন করেছিলাম কিন্তু তিনি ধরেননি। আমি যখন গোসল করছিলাম তখন তিনি আমাকে ফোন ব্যাক করেছিল তা আমি ধরতে পারিনি। তার অনেক দ্বায়িত্ব, সবসময় ভ্রমণে ব্যস্ত থাকেন। তিনি একটি সাম্রাজ্য চালান।’

সম্প্রতি ভারতের সনামধন্য টেলিভিশন উপস্থাপক সিদ্ধার্থ কানানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকাকে এ তথ্য জানান বিবেক ভাসওয়ানি।

শাহরুখের বয়স এখন ৫৮ বছর তবুও একের পর এক ব্লকবাস্টার সিনেমা উপহার দিয়ে নাম ধরে রেখেছেন বলিউড বাদশাহ। ক্যারিয়ার জুড়ে আছে অনেক সাফল্য। শাহরুখ যখন বলিউড ক্যারিয়ার নিয়ে সংগ্রাম চৈালিয়ে যাচ্ছিলেন তখন অনেক সহযোগিতা করেন বিবেক। এমনকী তার বাড়িতে শাহরুখের থাকার ব্যবস্থাও করেছিলেন। কিন্তু শাহরুখের সঙ্গে এখন তার যোগাযোগ নেই বললেই চলে! সম্প্রতি সিদ্ধার্থ কানানের সঙ্গে সাক্ষাৎকার বিবেক এই মজার তথ্য জানান। তখনই আলাপচারিতায় শাহরুখের এতগুলো মুঠোফোন ব্যবহারের তথ্য উঠে আসে।


হলিউডে বারাক ওবামার কন্যা মালিয়া

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন ডেস্ক

খবরটি সত্যি চমকে দেওয়ার মতোই। হলিউডের ছবিতে পা রাখতে যাচ্ছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার কন্যা মালিয়া ওবামা। তবে অভিনেত্রী হিসেবে নয়, নির্মাতা হিসেবে এই যাত্রা শুরু করলেন মিশেল ওবামা-বারাক ওবামা দম্পতির জ্যেষ্ঠ কন্যা। এই যাত্রা শুরুর আগে পারিবারিক পদবি ছেঁটে ফেলেছেন মালিয়া।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গণমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্টের তথ্য অনুসারে, ২৫ বছর বয়সি মালিয়া ‘দ্য হার্ট’ শিরোনামে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। এটি রচনাও করেছেন তিনি। গত ১৮ জানুয়ারি সানড্যান্স ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রদর্শনীর মাধ্যমে নির্মাতা হিসেবে মালিয়ার অভিষেক ঘটে। এ উৎসবের একটি ভিডিও ক্লিপ সামনে এসেছে। তাতে চলচ্চিত্রটির বিষয়ে বর্ণনা দেন মালিয়া।

সেখানে জানানো হয়, মালিয়া ওবামা তার নামের শেষাংশ ‘ওবামা’ বাদ দিয়ে ‘অ্যান’ যুক্ত করেছেন। অর্থাৎ তার পুরো নাম এখন মালিয়া অ্যান। তবে কী কারণে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মালিয়া, তা জানা যায়নি।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিল্ম মেকিং বিষয়ে পড়াশোনা করেছেন তিনি। হলিউডে অভিষেকের আগে মালিয়া এইচবিওর ড্রামা সিরিজ ‘গার্লস’ এবং হার্ভে ওয়েনস্টেইনের প্রযোজনা সংস্থায় ইন্টার্ন হিসেবে কাজ করেন। তা ছাড়া ডোনাল্ড গ্লোভারের অ্যামাজন প্রাইম সিরিজ ‘সোয়ার্ম’-এ রাইটার হিসেবেও কাজ করেছেন মালিয়া।


নতুন ভিডিওতে অন্যরকম পরীমনি

আপডেটেড ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ০০:০৩
বিনোদন প্রতিবেদক

ঢাকাই ছবির গ্ল্যামার কুইন পরীমনির কিছু প্রকাশ পাওয়া মানে সেটা নিয়ে তার ভক্তদের মাঝে অন্যরকম কিছু কাজ করা। সোশ্যাল মিডিয়ায় পরীর কিছু এলেই তা নিয়ে তার ভক্তরা মাতামাতি শুরু করে দেন।

চিত্রনায়ক শরীফুল রাজের সঙ্গে সম্পর্কের সংগ্রাম অনেক আগেই শেষ হয়েছে পরীর। এখন একমাত্র ছেলে রাজ্যকে নিয়েই ব্যস্ত পরীমনি। অভিনয়ের বাইরে পুরো সময়টা ছেলেকেই দেন এ নায়িকা। রাজ্যের বাবা-মা বলতে এখন পরীমনিই। প্রায় সময়ই ছেলের সঙ্গে নানা খুনসুটিতে মেতে ওঠেন পরীমনি। আর ভক্তদের সঙ্গেও সেসব শেয়ার করতে ভোলেন না এ নায়িকা। সম্প্রতি নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে ছেলের সঙ্গে নতুন একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন পরীমনি। ভিডিওর ক্যাপশনে লিখেছেন- ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি আমার ভ্যালেন্টাইন। আমার একটা তুমি আছ। আমার নাড়িছেঁড়া ধন।’

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ছেলে রাজ্যের সঙ্গে কেক কেটে ভালোবাসা দিবস উদযাপন করেন তিনি। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেই ভিডিওটি গতকাল শনিবার প্রকাশ করেন এ চিত্রনায়িকা। ভিডিওতে দেখা যায়, পরীমনির পরনে ছিল লাল শাড়ি। খোলা চুল আর হালকা মেকআপে বেশ লাস্যময়ী দেখাচ্ছিল তাকে। অন্যদিকে মায়ের সঙ্গে ম্যাচিং করে রাজ্য পরেছিল একটি লাল পাঞ্জাবি। ভিডিওতে হাস্যোজ্জ্বল মুখেই ক্যামেরায় ধরা দেন মা-ছেলে।

ভিডিওটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই হাজার হাজার প্রতিক্রিয়া পড়েছে নেটিজেনদের। কমেন্টস বক্সে রীতিমতো মন্তব্যের ঝড় উঠেছে। সেখানে কেউ কেউ লিখছেন ‘পদ্মজার পদ্ম ফুল’, ‘অনেক ভালোবাসা নিও পদ্মফুল আর পরিমনি দিদি’ ইত্যাদি। পরীর কমেন্টস বক্সে সবাই মা-ছেলেকে শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা জানাতে দেখা যায়।

রাজের সঙ্গে সংসার ভাঙার পর থেকে ছেলের দেখাশোনা একাই করছেন পরীমনি। পাশাপাশি কাজেও ফিরেছেন এ নায়িকা। ইতোমধ্যে ‘ডোডোর গল্প’ সিনেমার শুটিং শেষ করেছেন পরীমনি। এরপর যুক্ত হয়েছেন ‘খেলা হবে’ নামের নতুন একটি সিনেমায়। এ ছাড়া তার হাতে রয়েছে অনম বিশ্বাসের ওয়েব সিরিজ ‘রঙিলা কিতাব’। সম্প্রতি নায়ক ফেরদৌস আহমেদের সঙ্গে একটি বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন পরীমনি। এ ছাড়া ভালোবাসা দিবসে বঙ্গ বিডিতে মুক্তি পেয়েছে পরীমনি অভিনীত ওয়েব ফিল্ম ‘বুকিং’। এটি নির্মাণ করেছেন মিজানুর রহমান আরিয়ান। এতে পরীর বিপরীতে অভিনয় করেছেন এ বি এম সুমন।


নতুন ভিডিওতে অন্যরকম পরীমনি

চিত্রনায়িকা পরীমনি। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন প্রতিবেদক

ঢাকাই ছবির গ্ল্যামার কুইন পরীমনির কিছু প্রকাশ পাওয়া মানে সেটা নিয়ে তার ভক্তদের মাঝে অন্যরকম কিছু কাজ করা। সোশ্যাল মিডিয়ায় পরীর কিছু এলেই তা নিয়ে তার ভক্তরা মাতামাতি শুরু করে দেন।

চিত্রনায়ক শরীফুল রাজের সঙ্গে সম্পর্কের সংগ্রাম অনেক আগেই শেষ হয়েছে পরীর। এখন একমাত্র ছেলে রাজ্যকে নিয়েই ব্যস্ত পরীমনি। অভিনয়ের বাইরে পুরো সময়টা ছেলেকেই দেন এ নায়িকা। রাজ্যের বাবা-মা বলতে এখন পরীমনিই। প্রায় সময়ই ছেলের সঙ্গে নানা খুনসুটিতে মেতে ওঠেন পরীমনি। আর ভক্তদের সঙ্গেও সেসব শেয়ার করতে ভোলেন না এ নায়িকা। সম্প্রতি নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে ছেলের সঙ্গে নতুন একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন পরীমনি। ভিডিওর ক্যাপশনে লিখেছেন- ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি আমার ভ্যালেন্টাইন। আমার একটা তুমি আছ। আমার নাড়িছেঁড়া ধন।’

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ছেলে রাজ্যের সঙ্গে কেক কেটে ভালোবাসা দিবস উদযাপন করেন তিনি। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেই ভিডিওটি শনিবার প্রকাশ করেন এ চিত্রনায়িকা। ভিডিওতে দেখা যায়, পরীমনির পরনে ছিল লাল শাড়ি। খোলা চুল আর হালকা মেকআপে বেশ লাস্যময়ী দেখাচ্ছিল তাকে। অন্যদিকে মায়ের সঙ্গে ম্যাচিং করে রাজ্য পরেছিল একটি লাল পাঞ্জাবি। ভিডিওতে হাস্যোজ্জ্বল মুখেই ক্যামেরায় ধরা দেন মা-ছেলে।

ভিডিওটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই হাজার হাজার প্রতিক্রিয়া পড়েছে নেটিজেনদের। কমেন্টস বক্সে রীতিমতো মন্তব্যের ঝড় উঠেছে। সেখানে কেউ কেউ লিখছেন ‘পদ্মজার পদ্ম ফুল’, ‘অনেক ভালোবাসা নিও পদ্মফুল আর পরিমনি দিদি’ ইত্যাদি। পরীর কমেন্টস বক্সে সবাই মা-ছেলেকে শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা জানাতে দেখা যায়।

রাজের সঙ্গে সংসার ভাঙার পর থেকে ছেলের দেখাশোনা একাই করছেন পরীমনি। পাশাপাশি কাজেও ফিরেছেন এ নায়িকা। ইতোমধ্যে ‘ডোডোর গল্প’ সিনেমার শুটিং শেষ করেছেন পরীমনি। এরপর যুক্ত হয়েছেন ‘খেলা হবে’ নামের নতুন একটি সিনেমায়। এ ছাড়া তার হাতে রয়েছে অনম বিশ্বাসের ওয়েব সিরিজ ‘রঙিলা কিতাব’। সম্প্রতি নায়ক ফেরদৌস আহমেদের সঙ্গে একটি বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন পরীমনি। এ ছাড়া ভালোবাসা দিবসে বঙ্গ বিডিতে মুক্তি পেয়েছে পরীমনি অভিনীত ওয়েব ফিল্ম ‘বুকিং’। এটি নির্মাণ করেছেন মিজানুর রহমান আরিয়ান। এতে পরীর বিপরীতে অভিনয় করেছেন এ বি এম সুমন।

বিষয়:

চার বছর পর আবার ‘মামুনুর রশীদ জন্মোৎসব’

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন প্রতিবেদক   

দেশের প্রথিতযশা নাট্যজন মামুনুর রশীদ। একাধারে তিনি অভিনেতা, নাট্যকার ও নির্দেশক। বাংলাদেশের মঞ্চ, টিভি ও চলচ্চিত্র জগতের গুণী এই নাট্যব্যক্তিত্বর জন্মদিন ২৯ ফেব্রুয়ারি। এ কারণে তার জন্মদিন পালন করা হয় চার বছর পর পর। ১৯৪৮ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি জন্ম নেওয়া মামনূর রশীদের এবার ১৯তম জন্মদিন। এর আগে ২০২০ সালে যখন তার বয়স ৭২ বছর ছিল, তখন জমকালো আয়োজনে ১৮তম জন্মদিন পালিত হয় তার। ভক্ত ও সহকর্মীরাও চার বছর অপেক্ষায় থাকেন ২৯ ফেব্রুয়ারির জন্য।

এবারও ব্যতিক্রম হচ্ছে না। মামুনুর রশীদের জন্মদিন উপলক্ষে তিন দিনের বিশেষ উৎসবের আয়োজন করেছে তার হাতে গড়া নাট্যদল ‘আরণ্যক’। উৎসবে থাকবে মামুনুর রশীদ রচিত ও নির্দেশিত নাটকের মঞ্চায়ন, সংগীত, নৃত্য, সেমিনার, প্রদর্শনী, গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন, সংবর্ধনা ও থিয়েটার আড্ডা। ২৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ২ মার্চ আয়োজনটি হবে শিল্পকলা একাডেমি, চ্যানেল আই প্রাঙ্গণ ও মহিলা সমিতিতে।

জানা গেছে, ২৯ ফেব্রুয়ারি সকালে চ্যানেল আইয়ে শুরু হবে জন্মোৎসব। ওই দিন মামুনুর রশীদকে নিয়ে লেখা একটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হবে। এ বইয়ে তাকে নিয়ে লিখেছেন মঞ্চ, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যক্তি। বিকেলে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় বিভিন্ন পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শেষ হবে প্রথম দিনের আয়োজন।

দ্বিতীয় দিন সকাল ১০টায় শিল্পকলা একাডেমির সেমিনার কক্ষে মামুনুর রশীদকে নিয়ে থাকছে বিশেষ সেমিনার। এতে প্রদর্শিত হবে তাকে নিয়ে শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে নির্মিত একটি তথ্যচিত্র। বিকেলে মহিলা সমিতির নীলিমা ইব্রাহিম মিলনায়তনে দেখা যাবে মামুনুর রশীদ রচিত ও নির্দেশিত ‘রাঢ়াং’ নাটকের দুটি মঞ্চায়ন। অভিনয় করবেন চঞ্চল চৌধুরী, আ খ ম হাসানসহ আরণ্যক নাট্যদলের জ্যেষ্ঠ অভিনয়শিল্পীরা।

তৃতীয় দিন ২ মার্চ সকাল ১০টায় অ্যাকটরস ইক্যুইটির উদ্যোগে হবে আরেকটি সেমিনার। এতে প্রবন্ধ পাঠের পাশাপাশি তাকে নিয়ে একটি তথ্যচিত্র দেখানো হবে, যেটি নির্মাণ করেছেন সুজাত শিমুল। এদিন বিকেলে মহিলা সমিতিতে মামুনুর রশীদ রচিত ও নির্দেশিত ‘কহে ফেসবুক’ নাটকের মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে শেষ হবে তিন দিনের আয়োজন।

মামুনুর রশীদের জন্ম ১৯৪৮ সালে টাঙ্গাইলের কালীহাতিতে মাতুলালয়ে। ছাত্রজীবন থেকেই মঞ্চনাটকের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন তিনি। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় যোগ দেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে। দেশ স্বাধীনের পরপরই দেশে ফিরে গড়ে তোলেন ‘আরণ্যক’ নাট্যদল।


পর্তুগালে সম্মাননা পেলেন নৃত্যশিল্পী সাদিয়া ও ইভান

দীর্ঘদিন ধরে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে তুলে ধরার ক্ষেত্রে অবদান রাখায় পুরষ্কৃত হয়েছেন নৃত্যশিল্পী সাইফুল ইসলাম ইভান ও সাদিয়া ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১৭:৩৪
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

সম্প্রতি পর্তুগালের পোর্তো শহরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, Batalha Centro de Cinema Portugal এ ঋত্বিক ঘটক পরিচালিত ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ সিনেমা প্রদর্শন, আন্তঃসাংস্কৃতিক পুরস্কার ‘২৩ প্রদান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পর্ব ছিলো ‘আন্তঃসাংস্কৃতিক পুরস্কার ‘২৩ প্রদান। এতে নৃত্যে বিশেষ অবদানের জন্য সম্মাননা প্রদান করা হয় সাদিয়া ইসলাম ও সাইফুল ইসলাম ইভানকে। তারা দু’জন দীর্ঘদিন ধরে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে তুলে ধরার ক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। বিশেষ করে পর্তুগালে বাংলাদেশের সংস্কৃতির বিকাশে তাদের অবদান রীতিমত প্রশংসনীয়। সামাজিক এবং সাম্প্রদায়িক একীকরণ বিষয়ে কাজ করে যাওয়া পর্তুগালের আলোচিত সংগঠন ‘Espaco T’ এর ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনও ছিলো এ আয়োজনের অংশ।

পর্তুগালের সামাজিক সংগঠন Espaco T এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ কমিউনিটি অব পোর্তো এবং Batalha centro de cinema Portugal সম্মিলিতভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সম্মাননা প্রাপ্তি প্রসঙ্গে সাদিয়া ইসলাম বলেন, ‘যে কোন স্বীকৃতি কাজের অনুপ্রেরণা যোগায়, দায়িত্বও বাড়িয়ে দেয়। আর বিদেশের মাটিতে স্বীকৃতি পাওয়ার অন্যরকম অনুভূতি রয়েছে। দেশীয় সংস্কৃতিকে আমি বিদেশের মাটিতে খুব জোরালোভাবে তুলে ধরতে চাই।’

প্রসঙ্গত, ছোটবেলা থেকেই নাচের সঙ্গে সখ্য সাদিয়া ইসলামের। পর্তুগালে প্রফেশনাল ক্যারিয়ারের পাশাপাশি অব্যাহত রেখেছেন নৃত্যচর্চা। ইভান ও সাদিয়া জুটি ইউরোপে বেশ জনপ্রিয়।

অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন Espaco T এর প্রেসিডেন্ট জর্জ অলিভেইরা, পর্তুগীজ অলিম্পিক বিজয়ী রোজা মাতা, ডেপুটি মেয়র সিটি কাউন্সিলর পেদ্রো বাগানহা, সিটি কাউন্সিলর ড. ফার্নান্দো ফাউলো, সিটি কাউন্সিলর ড. কাতারিনা আরাউজো, পুলিশ কর্মকর্তা, ইউনিভার্সিটির প্রো ভাইস চ্যান্সেলরসহ স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তাবৃন্দ।

আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ এম্বেসির রাষ্ট্রদূত রেজিনা আহমেদ, প্রথম সচিব, বাংলাদেশ কমিউনিটি অব পোর্তোর সভাপতি শাহ আলম কাজল, সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল আলিমসহ অনেকে। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন পোর্তো চ্যানেলের বিশিষ্ট একজন উপস্থাপিকা।


শ্রীদেবীর মৃত্যু: ৬ বছরেও খুলল না  রহস্যজট

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা

ভারতীয় চলচ্চিত্রের প্রথম লেডি সুপারস্টার বলা হয় প্রয়াত শ্রীদেবীকে। বলিউড আকাশের এই ধ্রুবতারা তামিল, তেলেগু, হিন্দি, মালয়ালমসহ বেশ কিছু কন্নড় ভাষার সিনেমাতেও দাপটের সঙ্গে অভিনয় করেছেন। পাঁচ দশকের অভিনয় জীবনে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার থেকে শুরু করে কেরালা, তামিলনাড়ু, ফিল্মফেয়ার, নন্দী পুরস্কারসহ আজীবন সম্মাননা পুরস্কার ও দক্ষিণী সিনেমায় তিনটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন। শ্রীদেবী সংগ্রামী নারী চরিত্রে অভিনয়ের জন্য বেশি প্রশংসা কুড়িয়েছেন। তিনি ৮০ ও ৯০ দশকের ভারতের বিনোদন শিল্পের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক প্রাপ্ত নারী ছিলেন এবং তাকে ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে অন্যতম সেরা ও সবচেয়ে প্রভাবশালী অভিনেত্রী হিসেবে গণ্য করা হয় তাকে।

বিনোদন শিল্পে তার অবদানের জন্য ২০১৩ সালে ভারত সরকার তাকে দেশটির চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা পদ্মশ্রী পদকে ভূষিত করে। এ ছাড়া তিনি তামিলনাড়ু, অন্ধ্র প্রদেশ ও কেরালা রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে সম্মানসূচক পুরস্কার লাভ করেন। ভারতীয় চলচ্চিত্রের শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে ২০১৩ সালে সিএনএন-আইবিএনের এক জরিপে তিনি ‘১০০ বছরে ভারতের সেরা অভিনেত্রী’ হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি ছিলেন চলচ্চিত্র প্রযোজক বনি কাপুরের স্ত্রী।

আজ এই কিংবদন্তির মৃত্যুর ৬ বছর পূর্ণ হলো। ২০১৮ সালের এই দিনে (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুবাইয়ের জুমেইরাহ এমিরেটস টাওয়ারের বাথরুমের বাথটাবের পানিতে তার মরদেহ পাওয়া যায়। অনেক পরীক্ষা-নীরিক্ষার পর বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা শ্রীদেবীর মৃত্যুকে দুর্ঘটনা বলে ঘোষণা করেন। যদিও নায়িকার মৃত্যুকে ঘিরে নানা সময়ে নানা গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল। তবে সেসবের সত্যতা মেলেনি। এসব উত্তর আজও স্পষ্ট নয়। সংবাদ মাধ্যমের কাছে অভিনেতা সঞ্জয় কাপুর জানিয়েছিলেন যে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে শ্রীদেবীর। যদিও পরবর্তীকালে অভিনেত্রীর মৃত্যুর কারণ বদলে যায়। প্রথমে জানা যায়, হার্ট অ্যাটাক। কিন্তু দু’দিন পর সোমবার বিকালে দুবাই পুলিশ নিশ্চিত করে, জলে ডুবেই মৃত্যু হয়েছে শ্রীদেবীর।

কোন জলে? দুবাইয়ের জুমেইরাহ এমিরেটস টাওয়ার্স নামে যে হোটেলে শ্রীদেবী কয়েক দিন ধরে ছিলেন, তারই বাথরুমের বাথটাবের জলে। সামান্য উচ্চতার একটা বাথটাব। জল ভরলেও উচ্চতা দেড় ফুটের বেশি হবে না! তাতে কী করে ডুবে গেলেন পাঁচ ফুট ছয় ইঞ্চি উচ্চতার ওই অভিনেত্রী! অনেকের মনেই প্রশ্নটা ঘুরছে।

দুবাই পুলিশ জানিয়েছে, অচৈতন্য অবস্থায় জলে ডুবে গিয়েছিলেন শ্রীদেবী। কিন্তু অচৈতন্য হলেন কীভাবে? সে প্রশ্নেরও জবাব মেলেনি। বরং আশ্চর্যজনকভাবে দু’দিন ধরে বলা ‘হার্ট অ্যাটাক’ শব্দটাও উধাও হয়ে যায়। প্রশ্ন ওঠে তাহলে কি হার্ট অ্যাটাক হয়নি? কারণ দুবাই পুলিশ বা সে দেশের মিডিয়া সেন্টার ওইদিন যে তথ্য দিয়েছে, সেখানে হার্ট অ্যাটাকের কথা বলা হয়নি। বলা হয়েছে অচৈতন্য হয়েই জলে ডুবে যাওয়ার কথা।

সুপারস্টার নায়িকার মৃত্যুতে শুরুতেই অভিযোগের আঙুল উঠেছিল স্বামী বনি কাপুরের দিকে। কিন্তু পরবর্তীতে গণমাধ্যমে নানা ব্যাখ্যা দিয়ে বণি কাপুর অবশ্য বলেছিলেন, শ্রীদেবীর মৃত্যু স্বাভাবিক ছিল না।


banner close