রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪

ব্যতিক্রম চরিত্রে তানজিন তিশা

বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত
বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত : ১০ জুন, ২০২৪ ১৫:০৭

গত বছরের শুরু থেকেই অভিনয় কমিয়ে দিয়েছেন ছোট পর্দার লাস্যময়ী মডেল অভিনেত্রী তানজিন তিশা। তার ভাষ্য, গল্প ও চরিত্র পছন্দ হলেই কেবল কাজ করব। না হলে কাজই করব না। নিজের দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুয়ায়ী বেছে বেছে পছন্দসই গল্পের নাটক এবং ওয়েব সিরিজে কাজ করে যাচ্ছেন ভিন্ন ভিন্ন লুকে। যদিও বিচিত্র চরিত্রে অভিনয় করে বহু আগেই তিনি এ জগতে পায়ের তলার মাটি শক্ত করে নিয়েছেন। শরবত বিক্রেতা, রিকশাচালক, দিনমজুর এরকম অনেক চরিত্রে দেখা গেছে তাকে। বিশেষ করে নারীকেন্দ্রিক গল্পে নিজেকে দারুণভাবে উপস্থাপন করেন তিশা।

সেই ধারাবাহিকতায় এবার তিশা হাজির হচ্ছেন একেবারেই ভিন্ন একটি চরিত্রে। নরসুন্দর বা নাপিতের ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে। চুল-দাড়ি কাটার এই পেশায় সাধারণত নারীদের দেখা যায় না। পুরুষরাই করেন। নাটকের নাম ‘নর-সুন্দরী’। এটি একটি নারীকেন্দ্রিক গল্পের নাটক। আহমেদ তাওকীরের গল্প ও চিত্রনাট্যে নাটকটি নির্মাণ করছেন তরুণ ও জনপ্রিয় নাট্য নির্মাতা রাফাত মজুমদার রিংকু। এরই মধ্যে ঢাকার অদূরে কালীগঞ্জে নাটকটির শুটিং সম্পন্ন হয়েছে।

পরিচালক রাফাত মজুমদার রিংকু বলেন, ‘আমরা খুব যত্ন নিয়ে কাজটা করছি। গল্প ও চরিত্র দুটিই বেশ আলাদা। এমন গল্প নিয়ে কাজ করা আনন্দের।’ নাট্যকার আহমেদ তাওকীর বলেন, রাজনৈতিক গণ্ডগোলে এক নরসুন্দর মৃত্যুবরণ করে। বাবার পেশাকেই বেছে নেয় তার তরুণী মেয়ে; কিন্তু সে বেছে নিলেও গ্রামের মানুষ ভালো চোখে দেখে না। তাকে গ্রামছাড়া করা হয়। শহরে এসেও পড়ে নানা বিপত্তিতে। এসব নিয়েই গল্প।’

তানজিন তিশা ছাড়াও নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে আরও অভিনয় করেছেন শরীফ সিরাজ, মোমেনা চৌধুরী, নরেশ ভূইয়াসহ অনেকে। পরিচালক রাফাত মজুমদার রিংকু জানান, আসছে ঈদে ‘নর-সুন্দরী’ নাটকটি বেরসকারি টিভি চ্যানেল বাংলাভিশনের প্রচারিত হবে।

এদিকে আজ সোমবার থেকে দীপ্ত প্লেতে প্রচার শুরু হচ্ছে তিশা অভিনীত ‘পয়জন’ এই ওয়েবফিল্মটি। সঞ্জয় সমাদ্দার পরিচালিত এটি এই ওয়েবফিল্মও ভিন্ন একটি চরিত্রে দেখা মেলবে তার। রূপা মির্জা নামের একজন চলচ্চিত্র নায়িকার ব্যক্তিজীবনের পাশাপাশি শোবিজের রঙিন জীবনের গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে ‘পয়জন’।


নজর কাড়লেন শাহরুখ খান

আপডেটেড ১৪ জুলাই, ২০২৪ ০০:০৪
বিনোদন ডেস্ক

এরই নাম শাহরুখ খান! বলিউডের বাদশা হয়েও যে একেবারেই মাটির মানুষ হয়ে থাকা যায়, তার প্রমাণ ফের দিলেন তিনি। অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে শুধুই অতিথি হয়েই থাকলেন না। বরং নিজেই কাঁধে তুলে নিলেন নানা দায়িত্ব। ঠিক যেন আম্বানি পরিবারের ‘ঘরের ছেলে’। নীতা আম্বানি ও মুকেশ আম্বানির সঙ্গে তাল মিলিয়ে অতিথি আপ্য়ায়নে মেতে উঠলেন বলিউডের পাঠান। হাতজোড় করে পৌঁছে গেলেন ইন্ডাস্ট্রির সহকর্মীদের কাছে। মিষ্টি হেসে করলেন শুভেচ্ছা বিনিময়।

আম্বানি পরিবারের বিয়ে মানেই হচ্ছে বলিউড বাদশা শাহরুখ খানের সরব উপস্থিতি। কিন্তু পরিবার নিয়ে ছুটি কাটাতে যুক্তরাষ্ট্রে থাকার কারণে সবাই প্রায় ধরেই নিয়েছিলেন এবার অনন্তর বিয়েতে থাকছেন না শাহরুখ। অনন্ত আম্বানির বিয়েতে শাহরুখের হাজির থাকা না থাকা নিয়ে নেটিজেনদের মধ্যে এক ধরনের আলোচনা চলছিল। কেউ কেউ মতামত জানাচ্ছিলেন যে করেই হোক শাহরুখ অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে উপস্থিত থাকবেনই। অবশেষে নিরাশ করেননি কিং খান। বিয়েতে অংশ নিতে ঠিকই পরিবার নিয়ে হাজির হন বলিউড সুপারস্টার।

সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে সেলিব্রিটিদের একে-অপরের সঙ্গে কাটানো একাধিক মুহূর্ত ভাইরাল হয়েছে। যার মধ্যে অবশ্যই আলাদা করে উল্লেখের দাবি রাখে শাহরুখ খানের সৌজন্যবোধ। এক্স-এ শেয়ার করা একটি ভিডিওতে শাহরুখকে হাত জোড় করে রজনীকান্ত ও তার স্ত্রী লতাকে শুভেচ্ছা জানাতে দেখা যায়। এরপর আদিত্য ঠাকরে ও কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচীন টেণ্ডুলকারের সঙ্গেও করমর্দন করেন অভিনেতা। এরপর তিনি অমিতাভ বচ্চনের কাছে গিয়ে তার পা ছুঁয়ে প্রণাম করেন। জয়া বচ্চনের সঙ্গেও এই একই কাজ করলেন শাহরুখ। এরপর জয়ার সঙ্গে হাসিমুখে বেশ খানিকক্ষণ কথা বলতেও দেখা যায় তাকে। ভক্তরা বলছে, এ যেন কাভি খুশি কাভি গাম মোমেন্ট।

অনুষ্ঠানে শাহরুখ পরেছিলেন সবুজ পাঠানি শেরওয়ানি স্টাইলের সেট এবং বিডসের নেকপিস। ক্রিম ট্র্যাডিশনাল পোশাকে দেখা যায় অমিতাভকে। জয়া বেছে নিয়েছিলেন রঙিন জরদৌসি শাড়ি। রজনীকান্তকে ঐতিহ্যবাহী সাদা পোশাকে দেখা গিয়েছে, অন্য দিকে লতা একটি গেরুয়া এবং সবুজ শাড়ি পরেছিলেন।

অনন্ত আম্বানি ও রাধিকার বিয়ের আসর বসেছিল মুম্বাইয়ের জিও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে। শুক্রবার সাত পাকে বাঁধা পড়েন তারা। শনিবার শুভ আশীর্বাদ এবং আজ ১৪ জুলাই মঙ্গল উৎসবের মধ্য দিয়ে চলবে সেলিব্রেশন। বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন মডেল কিম কার্দাশিয়ান, তার বোন খোলো কার্দাশিয়ান, হলিউড তারকা জন সিনা, ভারতীয় তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও তার স্বামী নিক জোনাস, মহেশ বাবু, যশ, সালমান খান, অজয় দেবগন, ভিকি কৌশল, শাহিদ কাপুর, রণবীর কাপুর, আলিয়া ভাট, ক্যাটরিনা কাইফ, দীপিকা পাড়ুকোনসহ গোটা বলিউডের একঝাঁক তারকা।

বিষয়:

কানাডায় তিন শোতে নুসরাত ফারিয়া

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন ডেস্ক

নানা মাত্রিক প্রতিভার অধিকারী নুসরাত ফারিয়া। শুরুতে রেডিও জকি, এরপর টিভি উপস্থাপনা এবং তারপর সিনেমার নায়িকা হিসেবে নাম লেখান আশিকিখ্যাত এ তারকা। শুরুতেই বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ প্রযোজনার সিনেমায় অভিনয় করেন ফারিয়া। এরপর একে একে সমান তালে নজর কাড়তে থাকেন দুই বাংলার দর্শকের মধ্যে। কেবল নায়িকা হিসেবেই নয়, এরইমধ্যে গায়িকা হিসেবেও প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি। পাশাপাশি বিজ্ঞাপনচিত্রে মডেলিং ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছা দূত হয়ে একের পর এক কাজ করে যাচ্ছেন।

চলতি বছরের শুরু থেকেই প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিমন্ত্রণে স্টেজ শোতে পারফর্ম করতে বিভিন্ন দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন দুই বাংলার তারকা নুসরাত ফারিয়া। সেই ধারাবাহিকতায় ১০ জুলাই কানাডার উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে কানাডার ক্যালগিরিতে পৌঁছেছেন তিনি। সেখানে আগামীকাল ১৪ জুলাই একটি স্টেজ শোতে অংশ নেবে।

নূসরাত ফারিয়া জানান, এরপর আগামী ৩ আগস্ট টরেন্টোতে এবং ৯ আগস্ট মন্ট্রিয়ালে ভিন্ন দুটি স্টেজ শোতে পারফর্ম করবেন। নূসরাত ফারিয়া বলেন, ‘তিনটি ভিন্ন শোতে আমি পারফর্ম করব। তিনটি ভিন্ন শোই আলাদা আলাদা টিম ডিরেকসন দিয়েছে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিমন্ত্রণে আমি এ যাত্রায় কানাডায় এসেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রতিটি পারফরম্যান্সে অবশ্যই আমি আমার প্রিয় বাংলাকে, বাংলাদেশকে তুলে ধরব। সেই সঙ্গে আমার অভিনীত সিনেমার গানও ঠাঁই পাবে আমার পারফর্ম্যান্সে। দেশের বাইরে খুব অল্প সময়ের জন্যই আসি বা বেশি সময়ের জন্যই আসি, দেশের বাইরে এলেই দেশকে ভীষণ মিস করি। ধন্যবাদ আয়োজকদের যাদের নিমন্ত্রণে আমি এবার কানাডায় এলাম। খুব চমৎকার সময় কাটানো শুরু হলো ক্যালগিরিতে। আশা করছি পুরো এ জার্নিটা আনন্দদায়ক হবে ইনশাআল্লাহ।’

গেল ঈদে নূসরাত ফারিয়াকে পুষ্টির একটি বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করতে দেখা গেছে। এতে তার সহশিল্পী ছিলেন মিলি বাশার। গেল ২৪ মে ভারতের গুজরাটে অবস্থিত ‘পারুল ইউনিভার্সিটি’-তে ‘গেস্ট অব অনার’ হিসেবে অংশগ্রহণ করে অতিথি হিসেবে বক্তৃতা দিয়ে ভীষণ প্রশংসা কুঁড়িয়েছেন। ভারত, বাংলাদেশসহ বিশ্বের নানান অঞ্চলে বিশেষতক বাংলা ভাষাভাষীদের কাছে ইংরেজিতে তার বক্তৃতা দেওয়া ভীষণ প্রশংসা কুঁড়ায়। বাংলাদেশের সিনেমার একজন নায়িকা হয়ে তার এ মেধাকে অনেকেই সাধুবাদ জানিয়েছেন।

বিষয়:

নায়িকা হিসেবে অভিষেক হলো ইমির

আপডেটেড ১৩ জুলাই, ২০২৪ ০০:০২
বিনোদন প্রতিবেদক

ঈদের সিনেমা শেষে আবারও শুরু হলো নতুন সিনেমার মুক্তির প্রক্রিয়া। গতকাল শুক্রবার দেশের ৫টি মাল্টিপ্লেক্সে মুক্তি পেল ঢাকার শীর্ষ র‌্যাম্প মডেল ইমি অভিনীত প্রথম সিনেমা ‘আজব কারখানা’। সরকারি অনুদান পাওয়া এ ছবিটি নির্মাণ করেছেন শবনম ফেরদৌসী। ইমির বিপরীতে অভিনয় করেছেন টালিউডের আলোচিত অভিনেতা পরমব্রত। জানা গেছে, ছবিটি রাজধানীর স্টার সিনেপ্লেক্সের বসুন্ধরা ও সনি স্কয়ার শাখা, যমুনা ফিউচার পার্কের ব্লকবাস্টার সিনেমাস, কেরানীগঞ্জের লায়ন্স সিনেমা এবং চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিনে মুক্তি পেয়েছে।

ছবিটি প্রসঙ্গে নায়িকা হিসেবে অভিষেক হওয়া র‌্যাম্প মডেল ইমি বলেন, ‌‘২০১৯ ও ২০২০ সাল মিলিয়ে এ ছবির কাজটি করেছিলাম। সে হিসেবে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে খানিক সময় নিয়েছি আমরা। কারণ উৎসবকেন্দ্রিক মুভমেন্ট ছিল। অনেক দিন ধরেই অপক্ষোয় ছিলাম ছবিটির মুক্তির জন্য।’

‘আজব কারখানা’য় রকতারকা রাজীব চরিত্রে অভিনয় করেছেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। গল্পটি তাকে কেন্দ্র করেই। গ্রাম-বাংলার বাউলশিল্পীদের সংস্পর্শে এসে নিজের জীবনের নতুন অর্থ খুঁজতে শুরু করে সে। গল্পে আবহমান বাংলার বিভিন্ন গানের ধারা, ঘরানা ও মর্মবাণী তুলে ধরা হয়েছে।

সৈয়দা নিগার বানুর রচনায় চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেছেন বাংলাদেশের নির্মাতা, প্রযোজক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সামিয়া জামান। ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন দিলরুবা দোয়েল, খালিদ হাসান রুমি, সেলিম বয়াতি, দিলু বয়াতি, কিতাব আলী, ক্রিস্টিয়ানো তন্ময়, অর্পণ, মায়মুনা মম ও মাহরিন মান্যসহ অনেকে।

ছবির নির্মাতা শবনম ফেরদৌসী জানান, ‘আজব কারখানা’ চলচ্চিত্রের কাহিনি আবর্তিত হয়েছে একজন রকস্টারের জীবনকে ঘিরে। ছবিটিতে ৫টি মৌলিক গান রয়েছে। এতে প্রথমবারের মতো বাংলা সাহিত্যের অন্যতম জনপ্রিয় কবি হেলাল হাফিজের ৪টি কবিতাকে গানে রূপায়ন করা হয়েছে। এগুলোর সংগীতায়োজন করেছে ব্যান্ড ভাইকিং এবং শিল্পী লাবিক কামাল গৌরব। ছবিটির সংগীত পরিচালনা করেছেন গৌরব নিজেই।

এরমধ্যে বিশ্বের ১৫টি আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে অংশ নিয়েছে ‘আজব কারখানা’। দুটি পুরস্কারও জিতেছে। ২০২২ সালে ২৭তম কলকাতা আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের ‘এশিয়ান সিলেক্ট: নেটপ্যাক অ্যাওয়ার্ড’ শাখায় প্রদর্শিত হয় এটি। এর আগে একই বছরের জানুয়ারিতে ২০তম ঢাকা আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের বাংলাদেশ প্যানোরমা শাখায় দেখানো হয়েছে সিনেমাটি। এ ছাড়া ২০২৩ সালের অক্টোবরে ফ্রান্সের প্যারিসে ‘গঙ্গা থেকে সিন’ ফিল্ম ফেস্টিভ্যালেও প্রদর্শিত হয় ‘আজব কারখানা’।

বিষয়:

অবশেষে দেখা মিলবে পপির

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১২ জুলাই, ২০২৪ ০০:০৪
বিনোদন ডেস্ক

দীর্ঘ তিন বছর ধরে অন্তরালে রয়েছেন একাধিকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী সাদিকা পারভিন পপি। হঠাৎ করেই নিজেকে আড়াল করে নেন এই অভিনেত্রী। নায়িকার আড়ালে যাওয়ার রহস্য খুঁজতে বেরিয়ে আসে তার গোপন সংসার ও সন্তান জন্মের খবর। বিয়ে করে এখন পুরোদস্তুর সংসারী পপি। শোবিজে নেই তার কারও সঙ্গে যোগাযোগ।

সর্বশেষ পপি ২০১৯ সালে এফডিসিতে ‘সাহসী যোদ্ধা’ নামের সিনেমার শুটিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন। এরপর আর তাকে কাজে পাওয়া যায়নি। সিনেমাটির কাজ শেষ করেই নিজেকে সবকিছু থেকে গুটিয়ে নিয়েছেন জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী।

সাদেক সিদ্দিকী পরিচালিত সিনেমাটি ২০২১ সালে ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশন’ নামে সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র পেয়েছে। বেশ কয়েকবার সিনেমাটির মুক্তির খবর পাওয়া গেলেও শেষ মুহূর্তে পিছিয়ে যায়। অবশেষে আসছে আগস্টের শেষ সপ্তাহে সিনেমাটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছেন ছবির পরিচালক। ছবিতে পপির বিপরীতে রয়েছেন চিত্রনায়ক আমিন খান।

ছবির পরিচালক সাদেক সিদ্দিকী বলেন, “বেশ কয়েকবার সিনেমাটি মুক্তির পরিকল্পনা করলেও শেষ মুহূর্তে পেছাতে হয়েছিল। এবার আর পিছু হাঁটছি না। আগামী ২৩ আগস্ট সিনেমাটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে। এদিন ঝড়, বৃষ্টি কিংবা তুফান যা কিছুই হোক না কেন- এবার আর পেছাব না। ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশন’ মুক্তি পাবেই।”

মুক্তি নিয়ে পপির সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না হয়নি। সিনেমাটির শুটিং চলাকালীন পপি বলেছিল যেদিন বিয়ে করবে সবকিছু থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেবে। আর কখনো সিনেমায় ফিরবে না এবং মিডিয়ার কারও সঙ্গে যোগাযোগ রাখবে না।’

সমাজের অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের গল্পে নির্মিত হয়েছে ‘ডাইরেক্ট অ্যাকশন’। এখানে একজন পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে অভিনয় করেছেন পপি। তবে আমিন খানের চরিত্রটি পরিষ্কার করেননি নির্মাতা। শুধু জানিয়েছেন আমিন খানের চরিত্রে অনেক টুইস্ট আছে। সিনেমাটিতে আরও অভিনয় করেছেন চিত্রনায়ক মামনুন হাসান ইমন, অভি, চিত্রনায়িকা শিরিন শিলা প্রমুখ।

এ সিনেমা দিয়ে দীর্ঘদিন পর বড় পর্দায় ফিরছেন এক সময়ের ঢাকাই সিনেমার নিয়মিত মুখ সাদিকা পারভিন পপি। মাঝে বিজ্ঞাপনে আমিন খানের দেখা মিললেও পপির কোনো খোঁজ নেই দীর্ঘদিন। সর্বশেষ ২০১৯ সালে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে পপি অভিনীত ‘দি ডিরেক্টর’ সিনেমাটি। এরপর আর তার কোনো সিনেমা মুক্তি পায়নি।


কোপা আমেরিকার মঞ্চ মাতাবেন শাকিরা

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১১ জুলাই, ২০২৪ ০০:০৩
বিনোদন ডেস্ক

কলম্বিয়ান পপগায়িকা শাকিরা ইসাবেল মেবারাক রিপোই। বিশ্বজুড়ে শাকিরা নামে পরিচিত পাওয়া এ তারকা একাধারে গায়িকা, গীতিকার, সুরকার, সংগীত প্রযোজক, নৃত্যশিল্পী ও মানবহিতৈষী। ওয়াকা ওয়াকাখ্যাত এই রকস্টারের পরিচিতি কিংবা জনপ্রিয়তা বিশ্বব্যাপী। সুপার বোল এবং তিনটি বিশ্বকাপের মতো বড় বৈশ্বিক ইভেন্টে পারফরম্যান্স করে নজর কেড়েছেন তিনি। এবার কোপা আমেরিকার ফাইনালে মঞ্চ মাতাবেন শাকিরা।

আগামী ১৪ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে কোপা আমেরিকার ফাইনাল। এর মধ্যবিরতিতে মঞ্চ মাতাতে দেখা যাবে পপতারকা শাকিরাকে। বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন লাতিন আমেরিকার ফুটবলের মহাদেশীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনমেবল। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এ আয়োজনের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো কলাম্বিয়ান গায়িকা ফুটবলের এ টুর্নামেন্টে পারফর্ম করবেন। রাত ৮টায় নির্ধারিত ম্যাচের মধ্যবিরতিতে (হাফ টাইম) গান গাইবেন তিনি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামির হার্ড রক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ফাইনাল ম্যাচে প্রায় ৫৪ হাজার লোক উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

কনমেবলের সভাপতি আলেহান্দ্রো ডোমিনগেজ এক বিবৃতিতে বলেছেন, শাকিরা একজন অসাধারণ দক্ষিণ আমেরিকান তারকা যিনি সমগ্র বিশ্বকে মুগ্ধ করেছেন। তার গানগুলো গ্রহের প্রতিটি কোণে গাওয়া হয় এবং সবাইকে নাচের তালে মাতিয়ে দিয়ে তার শিল্পকে একটি বৈশ্বিক ঘটনায় রূপান্তর করে, যা সীমানা অতিক্রম করে লাখ লাখ মানুষ উপভোগ করে। আমরা নিশ্চিত যে কোপা আমেরিকা ইউএসএ ২০২৪-এ তার পারফরম্যান্স খেলাধুলার মাধ্যমে সুস্থতা এবং ঐক্যের বার্তাকে প্রতিফলিত করবে।

কার্ডি বি কে ফিচার করা তার গান ‘পুন্তেরিয়া’ ২০২৪ কোপা আমেরিকা কনমেবল কভারেজের অফিসিয়াল গান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কনমেবল এবং কনকাকাফের ১৬টি দলের অংশগ্রহণে এবারের কোপা আমেরিকা গেল ২০ জুন শুরু হয়ে আগামী ১৪ জুলাই শেষ হবে।

এদিকে ব্যক্তিগত ও ক্যারিয়ার নিয়ে এক ধরনের বিপর্যয়ের মুখে পড়েছেন শাকিরা। বিশেষ করে সাবেক প্রেমিক স্প্যানিশ ফুটবলার জেরার্ড পিকের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ায় মানসিক অবসাদে ভুগছেন বলে জানান এ গায়িকা। এরপরও নিজেকে সামলিয়ে নানা প্রতিকূলতার পথ পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করছেন তিনি। মন ভালো রাখতে এ তারকা নতুন উদ্যোমে কাজে মন দেওয়ারও চেষ্টা করছেন। গত মার্চে শ্রোতাদের উপহার দিয়েছেন নিজের ১২তম স্টুডিও অ্যালবাম ‘লা মুজেরেস ইয়া নো লোরান’ মুক্তি দেন শাকিরা। এরপর বিলবোর্ড ২০০-এ ১৩ নম্বরে অবস্থান করছে এবং শীর্ষ অ্যালবাম বিক্রিতে ২ নম্বরে উঠে এসেছে এটি।

বিষয়:

চলচ্চিত্রই এখন একমাত্র টার্গেট সাবিলার

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন প্রতিবেদক

১০ বছরের বেশি সময় ধরে ছোট পর্দায় অভিনয় করলেও বড় পর্দায় এখনো দেখা যায়নি ছোটপর্দার আলোচিত মডেল-অভিনেত্রী সাবিলা নূরকে। এর মধ্যে প্রস্তাব যে পাননি, তা কিন্তু নয়। দুটি ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব পেলেও ‘না’ বলে দিয়েছিলেন। এই ‘না’ বলার কারণে এখন কিছুটা আফসোসও হচ্ছে এই অভিনয়শিল্পী ও মডেলের। তবে ভবিষ্যতে এমন ভুল আর করতে চান না, এমনটাও জানিয়েছেন সাবিলা নূর। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সময়ের সবচেয়ে আলোচিত সিনেমা ‘তুফান’-এ অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলেন সাবিলা। একইভাবে গত বছরের সবচেয়ে আলোচিত সিনেমা ‘প্রিয়তমা’য় অভিনয়ের জন্যও প্রস্তাব পান। তখন হয়তো এই দুই সিনেমায় অভিনয়ের সম্মতি থাকলে আজ ‘শাকিব খানের নায়িকা’- এমন তকমা গায়ে লাগত সাবিলার। অভিনেত্রী বলেন, ‘আসলে আমি বলব, প্রিয়তমা ও তুফান সিনেমায় কাজ না করা যে বোকামি ছিল, এখন তা বুঝতে পারছি। কারণ প্রিয়তমা ব্লকবাস্টার ছিল, তুফান তো এখন তুফান বইয়ে দিচ্ছে সিনেমা হলে। সেই সঙ্গে রায়হান রাফীর কাজ, রাফীর কাজে সব সময় একটা ডিফারেন্ট ডাইমেনশন থাকে। সবচেয়ে বড় কথা, সুপারস্টার শাকিব খান।’ তবে এই দুই ছবি না করলেও শিগগিরই অন্য কোনো ছবিতে দেখা যাবে সাবিলাকে। সে সম্পর্কে এখনই জানাতে ইচ্ছুক নন তিনি। কোনো সিনেমায় চূড়ান্ত হলে একেবারে শুটিং শেষ করেই জানানোর ইচ্ছে তার। সাবিলা বলেন, সিনেমার জায়গাটা যেহেতু বিশাল বড় ব্যাপার। বিশাল বড় ক্যানভাস। সেখানে রিস্ক ফ্যাক্টর থাকে। অনেক হিসাব-নিকাশ থাকে। তাই সিনেমা করলে চুক্তিবদ্ধ হয়েই বলব না, একেবারে শুটিং শেষ করেই জানাব।

কাজের ধরন ও পছন্দের গল্প-চরিত্র নিয়ে এই মডেল অভিনেত্রী বলেন, ‘সবসময় গ্ল্যামারার্স ও রোমান্টিক চরিত্রই যে দর্শকরা পছন্দ করবে সেটি ভুল। বরং এখান থেকে বের হয়ে ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে কাজ করলে দর্শকরা আরও বেশি করে গ্রহণ করেন। এরপর থেকে নিয়মিতই ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে নিজেকে হাজির করছি। এখন দুটি রোমান্টিক কাজ করলেও চেষ্টা করি দুটি ভিন্ন ধারার ভিন্ন চরিত্রে কাজ করার।’

বিষয়:

লন্ডনে স্থায়ী হচ্ছেন আনুশকা শর্মা!

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন ডেস্ক

বলিউড অভিনেত্রী ও প্রযোজক আনুশকা শর্মা। এক সময় একের পর এক সিনেমায় অভিনয় করলেও ভারতীয় ক্রিকেটার বিরাট কোহলিকে বিয়ের পর থেকে অনেকটাই দূরে চলে যান অভিনয় থেকে। সেভাবে তাকে আর নতুন সিনেমায় অভিনয় করতে এখন আর দেখা যায় না। বর্তমানে স্বামী, সন্তান ও সংসার নিয়েই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এই বলিউড তারকা। ভারতীয় গণমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের তথ্যমতে বিরাট ও আনুশকা তাদের সন্তান নিয়ে স্থায়ীভাবে লন্ডনে বসবাসের পরিকল্পনা করছেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন একটাই চর্চা। আনুশকা-বিরাট কি একেবারেই দেশ ছেড়ে লন্ডনে পাড়ি দিয়েছেন? নাকি শুধুই ছুটি কাটানো! তবে এসব গুঞ্জনে কান দিচ্ছেন না আনুশকা কিংবা বিরাট কেউই। বরং সন্তানদের নিয়ে দিব্য টেমস নদীর তীরে সময় কাটাচ্ছেন তারা। এই যেমন সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে ইসকনের মন্দিরে বিরাট ও আনুশকার কীর্তনের ভিডিও। আর এবার লন্ডন থেকে ইনস্টাগ্রামে প্রথম ছবি পোস্ট করলেন আনুশকা। যে ছবি দিয়ে আনুশকা দিয়েছেন ভালোবাসার ইমোজি। একই দিনেই ভাইরাল হয়েছে লন্ডন বিমানবন্দরে বিরাটের ভিডিও।

আনুশকা শর্মা অনেক দিন ধরেই তার সন্তানদের নিয়ে লন্ডনে বসবাস করছেন। ভারতে সেভাবে আর আসতে দেখা যায় না তাকে। কোহলিও সম্প্রতি বিশ্বকাপের পর ভারতীয় দলের সংবর্ধনা শেষে লন্ডনে পরিবারের কাছে গিয়েছিলেন; কিন্তু আনুশকা আসেননি। তাই ধারণা করা হচ্ছে, পরিবার নিয়ে সেখানেই স্থায়ী হওয়ার পরিকল্পনা করছেন ভারতের এ জনপ্রিয় দম্পতি।

এ দম্পতির বর্তমানে দুটি সন্তান রয়েছে। তাদের প্রথম কন্যাসন্তান ভামিকা। যাকে নিয়ে এরই মধ্যে লন্ডনের বেশ কিছু শহরে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় এ দম্পতিকে। এ ছাড়া তাদের দ্বিতীয় ছেলে সন্তান অকায়ের জন্মই হয়েছে লন্ডনে। তাই কোহলির অবসরের পর তাদের ঠিকানা যে এ দেশটিতে হতে যাচ্ছে, তার আভাস অনেক আগেই দিয়েছিলেন এ দম্পতি। এক সাক্ষাৎকারে তারা জানিয়েছিলেন, তারকা হলেও এমন জীবন তারা চান না। সাধারণ মানুষের মতোই থাকতে চান। সে কারণেই ভারত ছেড়ে ইউরোপে হতে পারে তাদের বসবাস।

২০১৭ সালে ইতালির মিলান শহরে ভারতের সাবেক এ অধিনায়ককে বিয়ে করেন অভিনেত্রী আনুশকা শর্মা। বিয়ের পর আনুশকাকে হাতেগোনা কয়েকটি সিনেমায় অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে। তার মধ্যে ক্যামিও চরিত্র ও প্রযোজনাতেও দেখা যায় তাকে। এ ছাড়া মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে ‘চাকদা এক্সপ্রেস’ সিনেমাটি। এটি এ বছর মুক্তির কথা রয়েছে।

বিষয়:

প্রথমবার চরকিতে মোশাররফ করিম

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন প্রতিবেদক

অভিনয় জগতে নামজাদা এক অভিনেতার নাম মোশাররফ করিম। নাটক থেকে ওটিটি, বিজ্ঞাপন থেকে সিনেমা সব খানেই তার আধিপত্য। গত দুই ঈদ উপলক্ষে অভিনয় করেছেন বেশ কিছু নাটকে। সেসব নাটকের নাম নিয়ে আছে আলোচনা ও সমালোচনা। তবে এরই মধ্যে পাওয়া গেল সুখবর। প্রথমবারের মতো দেশীয় একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জন্য নির্মিতব্য ওয়েব সিরিজে অভিনয় করতে চলেছেন এই তারকা। চরকির অরিজিনাল সিরিজ ‘আধুনিক বাংলা হোটেল’-এ অভিনয় করছেন তিনি। সিরিজটি নির্মাণ করছেন তরুণ নির্মাতা কাজী আসাদ।

মঙ্গলবার ওটিটি প্ল্যাটফর্ম চরকির কার্যালয়ে সিরিজে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মোশাররফ করিম। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে মোশাররফ করিম, নির্মাতা কাজী আসাদ, চরকির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি ও হেড অব কনটেন্ট অনিন্দ্য ব্যানার্জিসহ আরও অনেকে ছিলেন। ওটিটি প্ল্যাটফর্মটি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, ইতোমধ্যে দৃশ্য ধারণের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। এর আগে চরকি অরিজিনাল সিনেমা ‘দাগ’-এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে দেখা গেছে মোশাররফ করিমকে। এই প্রথম চরকির কোনো অরিজিনাল সিরিজে দেখা যাবে তাকে।

সিরিজটি নিয়ে মোশাররফ করিম বলেন, ‘চরকির কনটেন্ট বরাবরই দারুণ এবং চমকপ্রদ হয়, তাই আমারও ইচ্ছা ছিল তেমনই ইন্টারেস্টিং একটা গল্পের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো চরকি সিরিজে অভিনয় করার আর তরুণ প্রতিভাবান কাজী আসাদের কারণে সেই সুযোগও এসে গেল। চমৎকার এই সিরিজ নিয়ে আমি বেশ আশাবাদী।’

বিষয়টি নিয়ে চরকির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি বলেন, ‘গুণী অভিনেতা মোশাররফ করিম ও তরুণ মেধাবী নির্মাতা আসাদের এই সিরিজ নিয়ে আমরা খুবই আশাবাদী। আমার অনেকগুলো নির্মাণে মোশাররফ ভাই দারুণ ছিলেন, দর্শকনন্দিত হয়েছিলেন সেই সময়ে। এবার চরকির মাধ্যমে নতুন কিছু হতে যাচ্ছে, সেটা আমি নিশ্চিত।’

অন্যদিকে গত ৫ জুলাই থেকে আরটিভিতে প্রচার শুরু হয়েছে মোশাররফ করিম অভিনীত নতুন ধারাবাহিক নাটক ‘আক্কেলগঞ্জ হোম সার্ভিস’। নাটকটিতে মোশাররফ করিম অভিনয় করছেন মীর সিরাজুল ইসলাম মকলেস নামের এক কুরিয়ার সার্ভিসের ডেলিভারিম্যানের চরিত্রে। সাগর জাহানের রচনায় বিশেষ এই ধারাবাহিক যৌথভাবে নির্মাণ করেছেন রতন হাসান ও এ আর আকাশ। মোশাররফ করিম ছাড়াও বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফজলুর রহমান বাবু, আখম হাসান, আরফান আহমেদ, শাহনাজ খুশি, নাদিয়া নদী, দীপা খন্দকার, প্রাণ রায়, রোবেনা রেজা জুঁই।

বিষয়:

নিজের নিয়ম নিজেই ভাঙলেন অক্ষয়  

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন ডেস্ক

অক্ষয় কুমারকে বলা হয় বলিউডের ‘খিলাড়ি’। হিন্দি চলচ্চিত্র জগতে সর্বোচ্চ উপার্জনকারী অভিনেতাদের মধ্যে প্রথম সারিতে রয়েছে তার নাম। তিন দশকের বেশি সময় ধরে বলিপাড়ায় রয়েছেন তিনি। ঝুলিতে হিট যেমন রয়েছে, ফ্লপের সংখ্যা নেহাত কম নয়। এত বছরের অভিনয় জীবনে কোনো দিন ৮ ঘণ্টার বেশি শুটিং করেননি তিনি, কখনো নড়চড় হয়নি এই নিয়মের। কিন্তু এবার আসন্ন ছবি ‘সরফিরা’র জন্য সেই নিয়ম ভাঙতে হলো অক্ষয়কে।

তার নিয়মানুবর্তিতা প্রশংসা করেন বড় বড় পরিচালকরা। সময়ের বিষয়ে ভীষণ সচেতন। নির্দিষ্ট সময়ের এক ঘণ্টা আগেই সেটে পৌঁছে যান কিন্তু, নির্ধারিত সময়ের এক মিনিটও বেশি তাকে সেটে ধরে রাখা সম্ভব নয়। গত কয়েক বছরের একের পর এক শুধু ব্যর্থতাই দেখেছেন অক্ষয়।

এবার রাধিকা মদনের সঙ্গে জুটি বেঁধে অক্ষয়কে দেখা যাবে ‘সরফিরা’ ছবিতে। এটি তামিল ছবি ‘সুরারাই পট্টোরু’র রিমেক। ছবির পরিচালক সুধা কোঙ্গরা প্রসাদ জানান, প্রথম সবাই ভয়ে ছিলেন তাকে আট ঘণ্টার বেশি সময় শুটিং করতে বলবেন কীভাবে তা ভেবে। যদিও পরে নিজেই রাজি হন অভিনেতা। সে কারণে কৃতজ্ঞ সুধা।

পরিচালকের কথায়, ‘আসলে অক্ষয় তার প্রতিটা ছবি একদম সময়ে শেষ করেন। উনি প্রথম দিনই আমাকে বলে দিয়েছিলেন, শুটিং চলাকালীন একজন সহকারীর মতো থাকবেন। ওই আট ঘণ্টা সেট থেকে কোথাও বেরোন না তিনি। তবে সময় শেষ হয়ে গেলে তাকে খুঁজেও পাওয়া যায় না।’

শুটিং শেষের অভিজ্ঞতা জানাতে গিয়ে সুধা বলেন, ‘শেষ কিছু অংশের শুটিং বাকি ছিল। যদিও অক্ষয় স্যারের অংশের সমস্ত শুটিং হয়ে গিয়েছিল। চিত্রনাট্যের খাতিরে মনে হয়েছিল তাকে প্রয়োজন হতে পারে। তাই তাকে অনুরোধ করা হয়। কিন্তু তিনি সাফ জানিয়ে দেন, তিনি সময়ে কাজ শেষ করেছেন বাড়তি সময় দেওয়া সম্ভব নয়। আমরা পঞ্চগণিতে শুট করছিলাম। সেদিনই তার মুম্বাই ফিরে যাওয়ার কথা। আমরা সবাই ভেবেছিলাম তিনি ফিরে গিয়েছেন। তেমনই জানিয়েছিলেন অক্ষয়। কিন্তু পর দিন সকাল হতেই সেটে একদম সময়ে হাজির।’

প্রথমবার নিয়ম ভাঙলেন অক্ষয়। সবাই ভেবেছিলেন বেজায় চটে যাবেন অভিনেতা। কিন্তু আসলে তিনি যে পেশাদার সেই প্রমাণই দিলেন।

বিষয়:

নির্মাতা হয়ে আসছেন কুসুম শিকদার

আপডেটেড ১০ জুলাই, ২০২৪ ০০:০২
বিনোদন প্রতিবেদক

দেশের একসময়ের দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী কুসুম শিকদার। অভিনয় ছাড়াও তার পরিচিতি রয়েছে মডেল, গায়িকা এমনকি লেখক হিসেবেও। করোনার আগে থেকেই অভিনয় থেকে নিজেকে অনেকটা গুটিয়ে নেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এই অভিনেত্রী। দর্শকদের কাছে সবসময় নিজের গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোর চেষ্টা করে গেছেন তিনি। নিজের দামটা ধরে রাখার জন্য করেছেন সর্বোচ্চ চেষ্টা।

সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন অভিনেত্রী কুসুম শিকদার। বইমেলায় প্রকাশিত অভিনেত্রীর লেখা ‘অজাগতিক ছায়া’ গল্পগ্রন্থে ‘শরতের জবা’ নামে একটি ছোট গল্প আছে। সেই গল্প থেকেই সিনেমার নামকরণ করা হয়েছে ‘শরতের জবা’। শুধু প্রযোজনাই নয়, ছবির চিত্রনাট্য, পরিচালনার পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রেও অভিনয় করেছেন কুসুম। এরই মধ্যে ছবির কাজ প্রায় শেষ করে ফেলেছেন তিনি। শুধু তাই নয়, সম্প্রতি সিনেমাটি সেন্সর ছাড়পত্রও পেয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই সিনেমার প্রচারণা শুরু করবেন তিনি। কুসুম সিনেমার পুরো শুটিং করেছেন নড়াইল জেলায়। এ প্রসঙ্গে কুসুম শিকদার বলেন, আমার সিনেমা তৈরি। সব ঠিক থাকলে চলতি মাসের সেপ্টেম্বরে সিনেমাটি মুক্তি দিতে চাই।

কুসুম আরও বলেন, সিনেমা হলের জন্য আলাদা করে প্রস্তুতি নিচ্ছি। একটা সময় নাটক ও সিনেমায় নিয়মিত কাজ করতেন কুসুম। তবে কয়েক বছর আগে এসব থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন। মাঝখানে কিছুদিন নিজের কবিতা ও গানের মিউজিক ভিডিওতে মডেল হলেও অভিনয়ে আর ফেরা হয়নি। পরে তিনি পরিচালক ও অভিনেত্রী হিসেবে সামনে আসার পরিকল্পনা করেন।’

এই অভিনেত্রী ও নির্মাতা বলেন, সিনেমার সবকিছুর সঙ্গে সরাসরি যুক্ত থেকে কাজটি করেছি। চিত্রনাট্য করেছি, সম্পাদনা, কালার গ্রেডিং, সাউন্ড ডিজাইন থেকে শুরু করে সব নিজে থেকে করেছি। কাজগুলো যেমন আনন্দের আবার কষ্টেরও। নির্মাতা হওয়া সহজ ব্যাপার নয়। আর আমার তো শুরু। অনেক কিছু শিখছি। তবে উপভোগও করছি।’

ছবিটিতে কুসুম শিকদারের সহ-অভিনেতা ইয়াশ রোহান। প্রথমবার একসঙ্গে কাজ করেছেন তারা। ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন শহীদুল আলম সাচ্চু, নরেশ ভূঁইয়া, জিতু আহসান, বড়দা মিঠু, অশোক ব্যাপারী প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালে প্রকাশিত হয় কুসুমের প্রথম একক অ্যালবাম ‘তুমি আজ কতো দূরে’। ২০০০ সালে মিক্সড অ্যালবাম ‘জীবনের যতো পাওয়া’ এবং ২০০১ সালে ‘অদল বদল’-এ কণ্ঠ দেন তিনি। এরপর ২০০২ সালে ‘লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার’ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হওয়ার পর একের পর এক নাটক ও বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজ করতে থাকেন কুসুম শিকদার। অভিনয় করেন তিনটি সিনেমায়ও। ‘লাল টিপ’, ‘গহীনে শব্দ’ ও ‘শঙ্খচিল’। শেষ সিনেমার জন্য ২০১৬ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও পান। তবে অনেক দিন ধরে মিডিয়া বাইরে ছিলেন তিনি।


হাজার কোটির ক্লাবে প্রভাসের ‘কল্কি’

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন ডেস্ক

বক্স অফিসজুড়ে এখন শুধুই ‘কল্কি-১৮৯৮ এডি’ ঝড়। মুক্তির আগেই সিনে বিশেষজ্ঞরা আন্দাজ করেছিলেন, এই ছবি রেকর্ড ব্যবসা করবে। সেই ট্রেন্ড বোঝা গিয়েছিল অগ্রিম বুকিং এবং মুক্তির প্রথম সপ্তাহের ব্যবসার নীরিখেই। সব রেকর্ড ভেঙে দিয়ে মাত্র সাতদিনেই গোটা বিশ্বে সাতশ কোটির ব্যবসা করে ফেলেছিল প্রভাস, দীপিকা , অমিতাভ বচ্চন, কমল হাসান অভিনীত এই ছবি। তবে দ্বিতীয় সপ্তাহে ব্যবসার গ্রাফ মন্থর গতিতে উঠলেও ১১ দিনের বক্স অফিস রিপোর্ট কিন্তু ঝকঝকে।

ভারতে ৫০০ কোটির ক্লাবে প্রবেশ করার পাশাপাশি গোটা বিশ্বেও হাজার কোটির দোরগোড়ায় ‘কল্কি’। চলতি সপ্তাহে মোট ৭৫ কোটি টাকার ব্যবসা করেছে দেশে। বক্স অফিস সূত্রে খবর, দেশেই ৫০৭ কোটির ব্যবসা করেছে প্রভাস-দীপিকার ব্লকবাস্টার সিনেমা। অন্যদিকে গোটা বিশ্বে এই ছবির আয় ৯০০ কোটি টাকা। সপ্তাহের মাঝে খুব একটা লাভ করতে পারেনি ঠিকই, তবে রোববার বক্স অফিসে দেখাল ‘কল্কি’। ৭ জুলাই শুধু এক দিনেই ৪১.৩ কোটি টাকার ব্যবসা করেছে এই সিনেমা।

এদিন শুধু হিন্দি বলয় থেকেই আয় ২২ হয়েছে কোটি টাকা। ‘কল্কি’র তেলেগু ভার্সন ব্যবসা করেছে ১৪ কোটি টাকা। তবে দ্বিতীয় সপ্তাহান্তে দক্ষিণী বেল্টে খুব একটা প্রভাব ফেলতে পারেনি প্রভাস-দীপিকার ছবিটির। তামিল, কন্নড়, মালয়ালম সব মিলিয়ে মোটে ৫ কোটি টাকার ব্যবসা করেছে। ভারতে দুই সপ্তাহে ‘কল্কি’র তেলুগু ভার্সন থেকে আয় হয়েছে ২৪২.৮৫ কোটি টাকা এবং হিন্দি বলয়ের মোট ব্যবসা ২১১.৯ কোটি টাকা।

প্রথম সপ্তাহেই প্রভাস-দীপিকা যে জ্যাকপট ছুঁয়ে ফেলেছিল, তা বলাই বাহুল্য! সিনেবিশেষজ্ঞরা অবশ্য আগেভাগেই ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে, প্রথম সপ্তাহে প্রভাস-দীপিকার দক্ষিণী সিনেমার বিজয়রথ অপ্রতিরোধ্য থাকবে। সেই কথাই অক্ষরে অক্ষরে ফলে গেল। রিপোর্ট বলছে, প্রথম দিনেই ১৯১ কোটির ব্যবসা করে গোটা বিশ্বে ভারতীয় ছবির ওপেনিং ডে-র আয়ের নীরিখে তৃতীয় স্থানে নাম লিখিয়েছে ‘কল্কি। যা কিনা ‘কেজিএফ ২’ (১৫৯ কোটি), ‘সালার’ (১৫৮ কোটি), ‘লিও’ (১৪২ কোটি), ‘সাহু’ (১৩০ কোটি), এমনকী শাহরুখ খানের ‘জওয়ান’ (১২৯ কোটি)-এর রেকর্ডও ভেঙে চুরমার করে দিয়েছে।

বিষয়:

নতুন প্রকল্প নিয়ে হাবিব ওয়াহিদ

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন প্রতিবেদক

বাংলাদেশের আধুনিক গানে নতুন এক ধারার প্রবর্তক জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী হাবিব ওয়াহিদ। এখনো এ প্রজন্মের অনেকেই স্বপ্ন দেখেন হাবিব ওয়াহিদের সুরে গান গাইতে কিংবা জনপ্রিয় এ সুরস্রষ্টার সঙ্গে দ্বৈত গানে কণ্ঠ দিতে। জাতীয় চলচ্চিত্র প্ররস্কারপ্রাপ্ত এ প্রজন্মের শ্রোতাপ্রিয় সংগীতশিল্পী ইমরান মাহমুদুলেরও স্বপ্ন ছিল হাবিব ওয়াহিদের সুরে গান গাওয়ার। তন্ময় তানসেন পরিচালিত ‘তুমি সন্ধ্যারও মেঘমালা’ সিনেমায় ‘রোমিও জুলিয়েট’ শিরোনামে ইমরান প্রথমবার হাবিব ওয়াহিদের সুরে গান গেয়েছিলেন।

এরপর আরও সাত/আটটি জিঙ্গেলে হাবিব ওয়াহিদের সুরে কণ্ঠ দেন ইমরান। আবার হাবিব ওয়াহিদও ‘বোকা মন’ শিরোনামে কিছুদিন আগে একটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন ইমরানের সুরে। এ গানটিও শ্রোতা দর্শকের মধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে।

এরই মধ্যে গত ৭ জুলাই হাবিবের ছোট ছেলে আয়াতের জন্মদিনে ঘরোয়া আয়োজনে দেখা হয় হাবিব ও ইমরানের। ইমরান জানান আরও বেশকিছু নতুন কাজের পরিকল্পনা চলছে।

ইমরান বলেন, ‘স্কুল-কলেজ জীবনে হাবিব ভাইয়ের গান শুনেই সময় কেটেছে। তার গান শুনে ভীষণ আবেগী হয়ে উঠতাম। অডিও জগতে কাজ শুরু করার পর হাবিব ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হয় কথা হয়, তিনি আমাকে ভীষণ স্নেহ করেন। আমিও তাকে শ্রদ্ধা করি। এক সময় আমাকে তিনি সিনেমায় প্লে-ব্যাক করালেন তারই সুরে। তার সুর তার কণ্ঠ পুরো বিষয়টাই আমার কাছে ভীষণ ম্যাজিকাল একটি ব্যাপার বলেই মনে হয়। তার কণ্ঠে গান শুনে এখনো ভীষণ আবেগী হয়ে উঠি। আয়াতের জন্মদিনে দেখা হলো, নতুন কিছু কাজ নিয়েও পরিকল্পনা হলো। আশা করছি শিগগিরই আমরা নতুন কাজ শুরু করতে পারব, ইনশাআল্লাহ।’

বর্তমানের সিনেমা ও অডিও বাজার নিয়ে হাবিব ওয়াহিদ বলেন, অডিও গান জনপ্রিয়তা পাচ্ছে না, এটি যে পুরোপুরি সঠিক, তা নয়। এরই মধ্যে মুজা, জেফারসহ বেশ কিছু শিল্পীর গান শ্রোতাদের মধ্যে চর্চা হচ্ছে। তা ছাড়া কোক স্টুডিওর গানও তো শ্রোতা-দর্শক শুনছেন। অডিও গানের সঙ্গে ভিডিওর ব্যাপারটা সঠিকভাবে হতে হবে। যেটি এ সময়ে অডিও গানের ক্ষেত্রে কিছুটা দুর্বলতা আছে।

তিনি আরও বলেন, ২০১৫ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দারুণ জমজমাট ছিল অডিও গান। ওই সময়টাতে বিভিন্ন শিল্পীর সব দারুণ দারুণ ভিডিও গান দেশের আনাচ-কানাচে পৌঁছেছে। আবার সব সিনেমার গানই যে এখন সমানভাবে দর্শক নিচ্ছেন, তা কিন্তু নয়। সবকিছুর একটা ম্যাটার অব কমিউনিকেশন লাগে। সিনেমার গান বা অডিওতে সঠিক উপাদান থাকতে হবে।

বিষয়:

ভক্তদের চমকে দিলেন অমিতাভ বচ্চন

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন ডেস্ক

বলিউড শাহেনশাহখ্যাত কিংবদন্তি অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন প্রতি রোববার তার ভক্তদের সঙ্গে নিজের বাংলো জলসার বাইরে এসে দেখা করেন। সবাইকে শুভেচ্ছা জানান, কিছু সুন্দর মুহূর্ত দিয়ে সবাইকে অবাকও করে দেন। একটি পাপারাৎজি প্রোফাইল থেকে শেয়ার করা ভিডিওতে, অমিতাভ বচ্চনকে ভক্তদের জনসমুদ্রে কিছু জিনিস ছুড়তে দেখা যায়। যারা মেগাস্টারকে একঝলক দেখতে জলসার বাইরে জড়ো হয়েছিল তাদের হাতে গিয়ে পড়ে। অমিতাভ বচ্চন, একটি কালো কুর্তা এবং পাজামা পরে লাল জ্যাকেট পড়েছিলেন। ভিড়ের মধ্যে তার একগাল হাসি মন ভরেছে সকলের। ভিডিওটি দ্রুত সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়।

এদিকে, অমিতাভ বচ্চন সম্প্রতি তার সোশ্যাল মিডিয়ায় সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ‘কল্কি’ ছবিটির সাফল্যের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তিনি এক্স-এ লিখেছেন, ‘কল্কির সাফল্য চারিদিকে ধ্বনিত হচ্ছে। আমাদের প্রতি করুণার জন্য কৃতজ্ঞতা।’ তিনি পোস্টটি শেয়ার করার সঙ্গে সঙ্গে ভক্তেরা নানা মন্তব্য করেছেন। একজন লিখেছেন, ‘স্যার আপনার মতো আর কেউ নেই।’ কেউবা লিখেছেন, ‘অশ্বথামাকে আপনার চেয়ে ভালোভাবে আর কেউ তুলে ধরতে পারেনি।’ অশ্বথামা চরিত্রে অমিতাভ বচ্চনের অভিনয় বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে।

সম্প্রতি, মেকআপ শিল্পী প্রীতিশীল সিংও সোশ্যাল মিডিয়ায় অমিতাভ বচ্চনের বিটিএস ছবি শেয়ার করেছেন। ভক্তেরা অভিনেতার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। তার ইনস্টাগ্রামে, প্রীতিশীল সিং ছবির একটি সিরিজ শেয়ার করেছেন। অমিতাভ বচ্চনকে তার মেকআপ করাতে এবং মরুভূমির পোশাক পরিধান করতে দেখা যায়। প্রস্থেটিক্স ব্যবহার করে তার লুক ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। তিনি পোস্টটির ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘দেখুন অমিতাভ বচ্চন স্যারের রূপান্তর অশ্বত্থামায়। একজন কিংবদন্তি অভিনেতার জীবিত হয়ে আসা একটি কালজয়ী মুহূর্ত।’

কল্কি ২৮৯৮ এডি চলতি সপ্তাহান্তে প্রচুর আয় করবে বলে আশা করা হচ্ছে। তেলেগু ইন্ডাস্ট্রিতে সিনেমাটির কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা না থাকায় এবং হিন্দিতে শুধুমাত্র করণ জোহর-গুনীত মঙ্গার কিল-এর মুখোমুখি হওয়ার কারণে, এই সপ্তাহান্তেও ছবিটি দর্শকদের আকর্ষিত করবে। নাগ অশ্বিনের চলচ্চিত্রটি মহাভারত থেকে ব্যাপকভাবে অনুপ্রাণিত। কল্কি ২৮৯৮ এডি ভবিষ্যতের এক অদ্ভুত চিত্রপটে সেট করা হয়েছে। এবং সুমাথি (দীপিকা পাডুকোন) নামে একজন গর্ভবতী মহিলা, যিনি একজন সন্তানের জন্ম দিচ্ছেন যা বিষ্ণুর দশম অবতার। অমর অশ্বত্থামা অমিতাভ বচ্চন অভিনয় করেছেন। যাকে অনাগত সন্তানের সুরক্ষার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ভৈরব প্রভাস একজন দানশীল শিকারী, যিনি অর্থের বিনিময়ে সবকিছু বিক্রি করতেন।

বিষয়:

banner close