বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

মৃণাল সেন হতে পারেন চঞ্চল চৌধুরী

ভারতীয় নির্মাতা সৃজিত মুখার্জির ‘মৃণাল সেন’-এর বায়োপিক ‘পদাতিক’-এ মৃণালের চরিত্রে দেখা যেতে পারে চঞ্চল চৌধুরীকে।
আপডেটেড
৭ ডিসেম্বর, ২০২২ ১৪:৫৯
বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত
বিনোদন ডেস্ক

বাংলা সিনেমার কিংবদন্তিতূল্য নির্মাতা মৃণাল সেন-এর চরিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছেন চঞ্চল চৌধুরী। ভারতীয় নির্মাতা সৃজিত মুখার্জি ‘মৃণাল সেন’-এর বায়োপিক ‘পদাতিক’ নির্মাণ করবেন। সেই ছবির জন্যই প্রস্তাব পেয়েছেন চঞ্চল। ভারতীয় একটি গণমাধ্যমকে চঞ্চল জানিয়েছেন, ‘নিঁখুত ‘মৃণাল সেন’ হয়ে উঠতে পারলেই হ্যাঁ বলব’।

চলতি বছর মৃণাল সেনের জন্মবার্ষিকীতে প্রয়াত পরিচালকের জীবনীভিত্তিক ছবি তৈরির ঘোষণা দিয়েছিলেন সৃজিত মুখোপাধ্যায়। তখন থেকেই সবাই তাকিয়ে আছেন, পর্দায় কে হবেন মৃণাল সেন সেদিকে। অবশেষে জানা গেল, ‘হাওয়া’ ও ‘কারাগার’খ্যাত অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীকে মৃণাল সেন হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন সৃজিত।

ভারতীয় পত্রিকা আজকাল চঞ্চল চৌধুরীর একটি সাক্ষাৎকার নিয়েছে। সেখানে এক প্রশ্নের উত্তরে চঞ্চল বলেন, “সৃজিত মুখোপাধ্যায় তাঁর আগামী জীবনীছবি ‘পদাতিক’-এ অভিনয়ের জন্য আমায় অনুরোধ জানিয়েছেন। যাঁকে ঘিরে ছবি সেই কিংবদন্তি পরিচালক ‘মৃণাল সেন’-এর চরিত্রে অভিনয়ের জন্যই আমায় বেছেছেন। এখনও কিছু চূড়ান্ত হয়নি। আমি নিজে যদি নিখুঁত ‘মৃণাল সেন’ হয়ে উঠতে পারি তবেই হ্যাঁ বলব। জোর করে কোনও কিছু করায় পক্ষপাতী নই।”

গত কয়েক মাসে টালিগঞ্জে ‘চঞ্চল’ ‘হওয়া’ বইছে। ‘কারাগার’ দিয়ে এমনিতেই ঢাকা ও কলকাতায় চঞ্চলের জয়জয়কার। ডিসেম্বরে আসছে ‘কারগার’-এর দ্বিতীয় মৌসুম। তার আগেই এমন খবর।

এর আগেও ভারতীয় পরিচালকের সঙ্গে কাজ করেছেন চঞ্চল চৌধুরী। ২০১০ সালে গৌতম ঘোষের ‘মনের মানুষ’-এ অভিনয় করেছিলেন। কিন্তু ‘কারাগার’ আর ‘হাওয়া’ তাকে টালিগঞ্জে পৌঁছে দিয়েছে জনপ্রিয়তার চূড়ায়। এবার সৃজিতের মৃণাল সেন হওয়ার পালা।

আগামী বছর মৃণাল সেনের জন্ম শতবার্ষিকী। তাঁকে ঘিরে তিনটি প্রকল্পের কাজ চলছে। চলতি বছর তার জন্মবার্ষিকীতে ‘পদাতিক’-এর পোস্টার ভাগ করে নিয়ে সৃজিত লিখেছিলেন ‘সেই লকডাউনের সময় থেকেই আজকের দিনটার জন্য অপেক্ষা করছিলাম। সেই দিনটা এল। অবশেষে ওয়ার্ল্ড সিনেমার বিশ্ববরেণ্য পরিচালকের জন্মশতবার্ষিকীতে তাঁর প্রতি আমার বিশেষ শ্রদ্ধা।’

টালিউডের আরও দুই পরিচালক, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় এবং অঞ্জন দত্তও শ্রদ্ধার্ঘ্য জানাচ্ছেন মৃণাল সেনকে। কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের আসন্ন ছবি ‘পালান’-এর গল্প তৈরি হয়েছে মৃণাল সেনের ‘খারিজ’ ছবির চরিত্রদের ৪০ বছর এগিয়ে দিয়ে। আর অঞ্জন দত্ত তৈরি করছেন একটি পার্সোনাল ফিচার ফিল্ম। মৃণাল সেন ও নিজের ব্যক্তিগত কথোপকথোনের উপর নির্ভর করে তৈরি হয়েছে এই ছবি।

মৃণাল সেনের ছেলে কুণাল সেন জানিয়েছেন, মৃণাল সেনের ‘জীবনীভিত্তিক এক কাল্পনিক বায়োপিক-পদাতিক’। ঘোষণার পর থেকেই এই ছবি নিয়ে দর্শকের আগ্রহ ছিল তুঙ্গে। এবার ‘কলকাতা ট্রিলজি’র স্রষ্টার ভূমিকায় চঞ্চল চৌধুরীকে দেখতে আরও আগ্রহী দর্শক। এখন কেবল চঞ্চলের চূড়ান্ত ‘হ্যাঁ’ বলার অপেক্ষা।


‘শনিবার বিকেল’-এর অপেক্ষার প্রহর কাটছেই না

শনিবার বিকেল ছবির দৃশ্য
আপডেটেড ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৯:০৫
বিনোদন প্রতিবেদক

পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারকী নির্মিত চলচ্চিত্র ‘শনিবার বিকেল’ নিয়ে এখনো জটিলতা কাটছে না। টানা চার বছর ধরে সেন্সরে আটকে থাকার পর গত ২১ জানুয়ারি আপিল বোর্ডের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। শুনানি শেষে আপিল বোর্ড ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেয়ার অনুমতি দেন। তবে আপিল বোর্ড অনুমতি দিলেও এখনো লিখিত কোনো চিঠি বা সেন্সর সার্টিফিকেট পাননি নির্মাতা ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। যদিও আপিল বোর্ডের সিদ্ধান্ত দেয়ার ৯ দিন পেরিয়ে গেছে। আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি ছবিটি মুক্তি দেয়ার পরিকল্পনা করে রেখেছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর দাবি, একই ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত বলিউড ছবি ‘ফারাজ’ সিনেমার আগে ‘শনিবার বিকেল’ মুক্তি দিতে চান। তবে সেটা সম্ভব হবে কি না তা নিশ্চিত নয়। আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি ‘ফারাজ’ মুক্তি পাওয়ার কথা।

এদিকে সেন্সর বোর্ড থেকে চিঠি না পাওয়ায় আক্ষেপ জানিয়ে ফারুকী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে গতকাল একটি পোস্ট দিয়েছেন। চিঠি আকারে দেয়া সেই পোস্টে নিজেকে ‘আপনাদের বঙ্গ সন্তান’ দাবি করে তিনি লিখেছেন, “সেন্সর বোর্ডের প্রিয় ভাই-বোনেরা, আমরা এখনো আপনাদের চিঠির অপেক্ষায়। বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী আপিল বোর্ড একটা সিনেমার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার সর্বোচ্চ ক্ষমতা রাখে। ‘শনিবার বিকেল’-এর ব্যাপারে তাদের সিদ্ধান্ত দেশি-আন্তর্জাতিক পত্রপত্রিকা এবং টেলিভিশনের কল্যাণে সারা দুনিয়ার মানুষ জানে। তারা সবাই তাকিয়ে আছে। আর দেরি না করে চিঠিটা তাড়াতাড়ি পাঠান। আমরা বাংলাদেশকে আর বিব্রতকর অবস্থায় না ফেলি। ওদিকে ‘ফারাজ’ রিলিজ হচ্ছে তিন তারিখ। বাংলাদেশের মানুষ তাকিয়ে আছে ‘শনিবার বিকেল’-এর মুক্তির দিকে। ‘ফারাজ’-এর সঙ্গে একই দিন বা এক ঘণ্টা আগে হলেও।”

ফারুকী ‘শনিবার বিকেল’ নিয়ে তার যাত্রা প্রসঙ্গে বলেন, ‘পৃথিবীর নানা দেশে সিনেমাটা দেখানো হয়েছে, হচ্ছে। এবার বাংলাদেশের মানুষের পালা। পাশাপাশি এটাও আপনাদের ভাবার সময় আসছে, এই নতুন মিডিয়ার যুগে সিনেমা আটকানোর মতো সেকেলে চিন্তা আদৌ কোনো কাজে আসে কি না। কারণ যে কেউ চাইলে তার ছবি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে উন্মুক্ত করে দিতে পারে। ফলে ছবি আটকানোর চেষ্টা একটা পণ্ডশ্রম, যা কেবল দেশের জন্য বদনাম-ই বয়ে আনতে পারে। আরেকটা কথা যেটা বারবারই বলছি, সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য অমানুষিক পরিশ্রম করে কারও সিনেমা বানানোর দরকার নেই। দেশের বাইরে যেকোনো দেশ থেকে ইউটিউব-ফেসবুকে একটা দশ মিনিটের ভিডিও আপ করে দিলেই হয়। শিল্প রচনার মতো এত কষ্টসাধ্য পথে যাওয়ার দরকার নেই। তা ছাড়া শিল্পীর লক্ষ্য এত ন্যারো থাকে না, ভাই। কারও ভাবমূর্তি রক্ষা বা ক্ষুণ্ন করার মতো কাজ তার না। তার লক্ষ্য মহাকালের সঙ্গে তার কালের কথোপকথন!’

সেন্সর না পাওয়া প্রসঙ্গে বিস্ময় প্রকাশ করেন আপিল বোর্ডের সদস্য ও সাংবাদিক শ্যামল দত্ত। তিনি দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘বিষয়টা এখনো বুঝতে পারছি না। সিনেমাটা দেখে আমাদের একবারও মনে হয়নি এটা রিলিজ দেয়ার মতো না। এ কারণে আমরা আমাদের জায়গা থেকে জানিয়ে দিয়েছি দ্রুত ছাড়পত্র দেয়া হোক। সেটা কেন দেয়া হচ্ছে না আমাদের ধারণা নেই।’

বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ করা হয় সেন্সর বোর্ডের উপ-পরিচালক মো. মঈন উদ্দীনের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘ছবিটির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে তথ্য মন্ত্রণালয়। আমরা কিছু বলতে পারছি না।’

বিষয়টি নিয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ে চলচ্চিত্র শাখায় যোগাযোগ করা হলে কেউ ফোন ধরেননি।

গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে ঘটা ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলাকে উপজীব্য করে নির্মিত হয়েছে সিনেমাটি। ছবিটি মুক্তি দিলে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। এ কারণে ২০১৯ সালে ১৫ সদস্যের সেন্সর বোর্ডে সর্বসম্মতিক্রমে সিনেমাটি প্রদর্শনের উপযোগী নয় বলে মত দিয়েছিলেন।


‘শনিবার বিকেল’ মুক্তিতে বাধা নেই

‘শনিবার বিকেল’ সিনেমার একটি দৃশ্য
আপডেটেড ২১ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৬:১৫
বিনোদন প্রতিবেদক

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডে আটকে থাকা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত সিনেমা ‘শনিবার বিকেল’ মুক্তিতে কোনো বাধা নেই। শনিবার সিনেমাটি নিয়ে সেন্সর বোর্ডের আপিল কমিটির শুনানিতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আপিল বোর্ড সদস্য শ্যামল দত্ত।

তিনি বলেন, আজ ‘শনিবার বিকেল’র আপিল বোর্ডের শুনানি হয়েছে। আমরা ছবিটি রিলিজ করে দিয়েছি । খুব শিগগির ছবিটি মুক্তি পাবে। সেন্সর বোর্ড যে সমস্যার কথাগুলো বলেছে আমরা তার সঙ্গে একমত হইনি। এখন আর কোনো বাধা নেই।

‘শনিবার বিকেল’ নির্মাণ করেছেন মোস্তফা সরয়ার ফারুকী

ছবিটির সেন্সর সার্টিফিকেট দিয়ে দেয়া হবে জানিয়ে শ্যামল দত্ত বলেন, আমরা সিনেমাটির পরিচালক ফারুকীকে একটি চিঠি দিয়ে দেবো যে এটা মুক্তিতে বাধা নেই। পরিচালক সেন্সর সার্টিফিকেট পেয়ে যাবেন। তারপর তিনি তার মতো করে তারিখ দিয়ে ছবিটি মুক্তি দেবেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে সভাপতি ও সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যানকে আহ্বায়ক করে গঠিত হয় সাত সদস্যের সেন্সর আপিল কমিটি। সদস্যরা হলেন সংসদ সদস্য ও অভিনয়শিল্পী সুবর্ণা মুস্তাফা, সাবেক অতিরিক্ত সচিব নূরুল করিম, অভিনেত্রী সুচরিতা ও সাংবাদিক শ্যামল দত্ত এবং সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান সদস্যসচিব হিসেবে ছিলেন।

বিষয়:

হল মালিকদের হতাশায় শুরু ২০২৩

‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ সিনেমার দৃশ্যে সিয়াম ও পরিমনি। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২১ জানুয়ারি, ২০২৩ ১০:২৬
নিফাত সুলতানা

গত সপ্তাহে প্রেক্ষাগৃহে চলেছে আরিফিন শুভর অ্যাকশন সিনেমা ‘মিশন এক্সট্রিম-২: ব্ল্যাক ওয়ার’। সিনেমাটি নিয়ে হল মালিকদের প্রত্যাশা ছিল ব্যাপক। তবে সেই প্রত্যাশায় গুড়েবালি হয়েছে। এমনটাই জানালেন বিভিন্ন হলের মালিকরা। তারা বলছেন- সিনেমাটি দেখতে তেমন দর্শক আসছেন না। ব্ল্যাক ওয়ারের এক সপ্তাহ পার করার পর কথা হয় দেশের নানা প্রান্তের হল মালিকদের সঙ্গে। পাশাপাশি গতকাল মুক্তি পাওয়া পরীমনি-সিয়াম অভিনীত সিনেমা ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’র খোঁজখবর জানান তারা।

ব্ল্যাক ওয়ার সিনেমা দিয়েই প্রায় দুই মাস বন্ধ থাকার পর খুলেছিল ‘মধুমিতা’ সিনেমা হল। পুরো সপ্তাহে কেমন চলেছে সিনেমাটি- জানতে চাইলে আক্ষেপ নিয়ে মধুমিতার কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, ‘আমি খুব নিরাশ। লস আর লস! খুব আশা নিয়ে ব্ল্যাক ওয়ার দিয়ে হল খুলেছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্য সিনেমাটি চলেনি। ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ সিনেমাটি আজকে চালাচ্ছি। এই সিনেমাটির প্রথম দিন তেমন বিক্রি নেই। কাল থেকে আরও হবে না। হলটা আবার বন্ধ করে দিয়ে ঈদে খোলার চিন্তা করছি।’

একই অবস্থা চলছে শ্যামলী সিনেমা হলে। তেমন দর্শক নেই জানিয়ে শ্যামলী সিনেমা হলের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ হাসান বলেন, ‘কী বলব, ভ্যাগের ফের কিনা জানি না আমাদের সিনেমা হলগুলো আর চলবে না। ব্ল্যাক ওয়ার নিয়ে যতটা আশা করেছিলাম তার একভাগও পূরণ হয়নি। বিরাট প্রত্যাশা ছিল, ভেবেছিলাম এক মাস চালাতে পারব। কিন্তু নামিয়ে দিয়ে অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন দেখাচ্ছি। মোটামুটি দর্শক আসছে।

‘মিশন এক্সট্রিম-২: ব্ল্যাক ওয়ার’ সিনেমার পোস্টার

সিনেপ্লেক্সগুলো কেমন চলছে তা জানতে কথা হয় স্টার সিনেপ্লেক্সের জ্যেষ্ঠ বিপণন ব্যবস্থাপক মেসবাহ উদ্দিন আহমেদের সঙ্গে। তিনি জানান, ব্ল্যাক ওয়ারের তেমন দর্শক নেই। প্রথম দিন থেকেই খারাপ অবস্থা। এটা নিয়ে বলার মতো কিছু নেই। তবে ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ভালো যাচ্ছে। বিকেলের শো প্রায় হাউসফুল।

এ ছাড়া কেরানীগঞ্জের লায়ন সিনেমাস সূত্র জানিয়েছে, কোনো রকমে ব্ল্যাক চলেছে। খুব বেশি দর্শক টানেনি। ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ চলছে। কেমন চলবে তা এখন বলা মুশকিল।

ঢাকার বাইরের হলগুলোও খুব একটা ব্যবসা করতে পারছে না বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন হল মালিক। ‘গ্র্যান্ড সিলেট সিনেপ্লেক্স’ সূত্র জানিয়েছে, ভালো প্রত্যাশা থাকলেও খুব বেশি সাড়া পায়নি। আসনের বিপরীতে ১০ শতাংশ মানুষও প্রতি শোতে আসেনি। তিনি জানান ব্ল্যাক ওয়ার-এর আর কোনো শো চলবে না। আজকে (গতকাল) থেকে অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন-এর দুটি করে শো চলবে।

তবে, দ্বিতীয় সপ্তাহের মতো সিরাজগঞ্জের রুটস সিনেক্লাবে চলছে ব্ল্যাক ওয়ার সিনেমাটি। সিনেমাটি সেখানে মোটামুটি ভালো চলেছে বলে জানান সিনেক্লাবের চেয়ারম্যান সামিনা ইসলাম নীলা। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপের পর তো এভাবে তেমন ভালো সিনেমা মুক্তি পায়নি। বিশ্বকাপের মধ্যে এক মাস হলো বন্ধও ছিল। তারপর এই সিনেমাটি এসেছে। খুব ভালো চলছে এরকম না আবার খুব খারাপ চলেছে সেরকমও না। দৈনিক ৫০ শতাংশ দর্শক ছিল, আবার কখনো একদমই ছিল না। এক সপ্তাহ চালানোর পর এই সপ্তাহেও চালাচ্ছি, এখন দেখা যাক। পরের সপ্তাহে অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন চালাব।

এ ছাড়া আরও কিছু হল মালিক আক্ষেপ নিয়ে বলেন হাওয়া বা পরাণের মতো সাম্প্রতিক সময়ে কোনো সিনেমা ব্যবসা করতে পারছে না। দর্শক সিনেমা দেখতে পারছে না। তারা জানান, সিনেমার গল্প ও প্রচারণা দুই দিকেই সমস্যা আছে বলে হলে হলে দর্শক খরা।


এ সপ্তাহে কী দেখবেন

দৃশ্যম ২ সিনেমার পোস্টার
আপডেটেড ২১ জানুয়ারি, ২০২৩ ১১:৪১
বিনোদন প্রতিবেদক

হলিউড
১. অ্যাভাটার: দ্য ওয়ে অব ওয়াটার (স্যাম ওয়ার্থিংটন, জোই সালডানা, স্টিফেন ল্যাংদ, কেট উইন্সলেট, ক্লিফ কার্টিস)
২. এ মান কলড অটো (টম হ্যাঙ্কস, মারিয়ানা ট্রেভিনো, র‍্যাচেল কেলার, ম্যানুয়েল গার্সিয়া-রুলফো)
৩. এম থ্রি জি এ এন (এমি ডোনাল্ড, জেননা ডেভিস, এলিসন উইলিয়ামস)
৪. পুশ ইন বুটস: দ্য লাস্ট উইশ (আন্তোনিও বান্দেরাস, সালমা হায়েক)
৫. প্ল্যান (জেরার্ড জেমস বাটলার, মাইক কোল্টার, লিলি ক্রুগ, ড্যানিয়েল পিনেডা)
সূত্র: বক্স অফিস মোজো

বলিউড
১. দৃশ্যম ২ (অজয় দেবগন, টাবু, অক্ষয় খান্না, শ্রিয়া শরণ, ঈশিতা দত্ত)
২. ভারিসু (বিজয় থেলাপতি, রাশমিকা মন্দানা, আর. শরৎকুমার, জয়সুধা, প্রকাশ রাজ, শ্রীকান্ত)
৩. থুনিভু (অজিত কুমার, মঞ্জু ওয়ারিয়ার, যোগী বাবু)
৪. ওয়াল্টেয়ার ভিরাইয়া (চিরঞ্জীবী, রবি তেজা, শ্রুতি হাসান, ক্যাথরিন ট্রেসা, উর্বশী রাউতেলা)
৫.ভিরা সিমহা রেড্ডি (নন্দমুরি বালাকৃষ্ণ, হানি রোজ, শ্রুতি হাসান, চন্দ্রিকা রবি)
সূত্র: স্যাকনিক ডটকম

বিশ্বসংগীত (বিলবোর্ড হট ১০০)
১.কিল বিল (এস জেড এ)
২. আনহোলি (স্যাম স্মিথ এবং কিম পেট্রাস)
৩. ক্ল্যাম ডাউন (রেমা ও সেলেনা গোমেজ)
৪. আই এম গুড (ব্লু, ডেভিড গুয়েটা এবং বেবে রেক্সা)
৫. অ্যান্টি হিরো (টেলর সুইফট )
সূত্র: বিলবোর্ড

ওটিটি
নাম: শান্তি টাউন
ধরন: সিনেমা
প্ল্যাটফর্ম: নেটফিক্স
সময়: আজ

নাম: জাংগ ই
ধরন: সিনেমা
প্ল্যাটফর্ম: নেটফিক্স
সময়: আজ

নাম: ফাউদা সিজন ৪
ধরন: সিরিজ
প্ল্যাটফর্ম: নেটফিক্স
সময়: আজ

নাম: ইন্দু ২
ধরন: সিরিজ
প্ল্যাটফর্ম: হইচই
সময়: আজ

নাম: এটিএম
ধরন: সিরিজ
প্ল্যাটফর্ম: জি ৫
সময়: আজ

সিনেমা হল
স্টার সিনেপ্লেক্স
অ্যাভাটার: দ্য ওয়ে অব ওয়াটার, ব্ল্যাক ওয়ার, অপারেশন ফরচুন, অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন,
যমুনা ব্লকবাস্টার
অ্যাভাটার: দ্য ওয়ে অব ওয়াটার, প্রেই ফর দ্য ডেভিল, ব্ল্যাক ওয়ার, অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন, পরাণ, হাওয়া।
লায়ন সিনেমাস
অ্যাভাটার: দ্য ওয়ে অব ওয়াটার, ব্ল্যাক ওয়ার, দামাল, পরাণ।
শ্যামলী
অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন
মধুমিতা
অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন

বিষয়:

আজ যেসব চলচ্চিত্র দেখতে পারেন

গতকাল প্রদর্শীত হয় ‘হাওয়া’ সিনেমা
আপডেটেড ১৭ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৪:৪৮
বিনোদন প্রতিবেদক

আজ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের চতুর্থ দিন। দেশি-বিদেশি সিনেমা প্রদর্শনী ও নির্মাতাদের আনাগোনায় মুখর উৎসব প্রাঙ্গন। আজকের আয়োজনে যেসব ছবি দেখতে পারবেন দর্শক, সেগুলো থেকে চোখ বুলিয়ে নিই।

মূল মিলনায়তন (জাতীয় জাদুঘর)

এশিয়ান কম্পিটিশন, বাংলাদেশ প্যানোরোমা ও সিনেমা অব দ্য ওয়ার্ল্ড সেগমেন্টের সর্বমোট ৫টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। চলচ্চিত্রগুলো হলো- স্থালাম (দ্য ল্যান্ড), দ্য অনলি রিজন, আই এম নট রিভার ঝেলুম, মানইকবাবুর মেঘ (দ্য ক্লাউড অ্যান্ড দ্য ম্যান), বিউটি সার্কাস।

সুফিয়া কামাল মিলনায়তন (জাতীয় জাদুঘর)

ডিপ সিক্স, দ্য ডিসটেন্স বিটুইন মি অ্যান্ড মাইসেলফ, সিডস, তাতলি সুত কপুগু, আই উইল মিট ইউ দেয়ার।

ন্যাশনাল আর্ট গ্যালারি অডিটোরিয়াম (শিল্পকলা একাডেমি)

সোয়াম্প লিওন, মাগোয়াডো, এ চ্যাট অতীশের ভিটা, নকশি কাঁথা, আত্মিক (দ্য রিলেশনশিপ অব সোল), কানে গোঁজা ফুল, ইতিহাসের সাক্ষী, কাগজ, ব্যোমকেশ হত্যামঞ্চ (কারটেইন কল), ডুনিয়া এট লা প্রিন্সেস ডি’লেপ (ডুনিয়া অ্যান্ড দ্য প্রিনসেস অব আলেপ্পো), এ ডে আন্ডার দ্য স্কাই, আন্ডার দ্য স্কাই এটারনাল অ্যান্ড ব্লু, লে কসে চে নিন সাই ডি মে, মামা (দ্য থিংগস দ্যাট ইউ ডোন্ট নো এবাউট মি, মম), দ্য ওয়ার্ল্ড ইজ ব্লু এট ইটস এজেস, সোলউক (ওয়াইন্ড অব চেঞ্জ), ডেটলাইন বাংলাদেশ, রিফিউজি '৭১, কেজ : বিটুইন টু ব্যাটেলস)।

জাতীয় সংগীত ও নৃত্য মিলনায়তনে (শিল্পকলা একাডেমি)

বাটসয়, ডুশা (সোল), দ্য ডিসটেন্স বিটুইন মি অ্যান্ড মাইসেলফ, বাদ দার কেস্তজার-হা-ইয়ে নেশেকার (দ্য ওয়াইন্ড দ্যাট শেকস দ্য সুগার ক্যানস), হিলিয়াম মাংকি বেলুন, মাতৃত্ব, অঙ্ক সরল ফলাফল শূন্য (দ্য গেম অব লাভ), ইউফরিক প্যারানোইয়া, বহ্নিচক্র, দ্য ডুর, হোয়্যার ইজ মাই মাইন্ড? নেগেটিভস ইন্টু পজিটিভ, জুয়া কালি, আছি মিসমো (ইউর ওয়ে, মাই ওয়ে), নাওহোয়্যার টু গো বাট এভরিহোয়্যার।

আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ, ঢাকা

মহানগর- ওয়ান নাইট ইন কাঠমান্ডু, দ্য কফিন পেইন্টার, ক্লোনডিকে , বারফ-ই আখার (দ্য লাস্ট স্নো)।

এ ছাড়াও ৪টি ফিল্ম স্ক্রিনিংসহ রয়েছে একটি মক পিচ, প্রশ্নোত্তর বা ফিডব্যাক রাউন্ড এবং মেন্টরসদের সঙ্গে চলচ্চিত্র পরিচালকের একটি ওয়ান টু ওয়ান সেশন।

গতকাল ছিল ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের তৃতীয় দিন। উৎসবের আকর্ষণ ছিল দুটি সিনেমা। বাংলাদেশি আকর্ষণ হিসেবে ছিল আলোচিত সিনেমা ‘হাওয়া’। অন্যদিকে টালিগঞ্জের অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্রের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘এবং ছাদ’। জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে প্রদর্শিত হয়েছে ছবিটি। প্রদর্শন শেষে চলচ্চিত্রটি নিয়ে কথা বলেছেন শ্রীলেখা।

শ্রীলেখা বলেছেন, তিনি চান তার চলচ্চিত্র কেউ প্রযোজনা করুক। যেহেতু তিনি চলচ্চিত্র নির্মাণে নতুন তাই তার নির্মিত ছবিটি দেখে দর্শকের যদি তার প্রতি বিশ্বাস-আস্থা তৈরি হয় তাহলে তিনি আরও চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে পারবেন। এই চলচ্চিত্রটি ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রিমিয়ার হওয়ায় তিনি অত্যন্ত আনন্দিত।

অন্যদিকে 'উইমেন ইন সিনেমা' শিরোনামে নবম আন্তর্জাতিক উইমেন ফিল্ম মেকারস সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেদিন নির্মাতা সিডনি লেভিন ফ্রম ঢাকা টু হলিউড, টুকি দ্য টাইগার টেকস এ ট্রিপ; 'এন আনইউসুয়াল প্রজেক্ট' শিরোনামে প্রবন্ধ পাঠ করেন। এই প্রবন্ধের ওপর আলোচনা করেন প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা আনিয়া স্ট্রেলেক এবং চলচ্চিত্র নির্মাতা মোনালিসা দাশগুপ্ত। বিভিন্ন সেশনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় অনুষ্ঠানটি।


বড় কিছুর খবর পাবেন: তিশা

নুসরাত ইমরোজ তিশা। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১১ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৩:৫৩
বিনোদন প্রতিবেদক

অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা দীর্ঘ বিরতিতে ছিলেন। মাতৃত্বকালীন ছুটিতে ছিলেন এই অভিনেত্রী। ছুটি শেষ করে কাজে ফেরার খবর দিলেন সম্প্রতি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি পোস্ট দিয়ে সেই খবর জানিয়েছেন তিশা।

সব সময় ক্যামেরার সামনে থাকতেই আনন্দ পান এই অভিনেত্রী। দীর্ঘ সময় ছুটির কারণে ক্যামেরা মিস করেছেন। এসব জানিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘ক্যামেরার সামনে আমি সবচেয়ে আনন্দে থাকি। অনেক দিন, সপ্তাহ, মাস ক্যামেরার সামনে থাকা মিস করেছি। আস্তে আস্তে ইলহামও (তিশার মেয়ে) বড় হচ্ছে, আলহামদুলিল্লাহ!’

তিশা কাজে থাকলে মেয়ে বাবা নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর সঙ্গেই সময় কাটান জানিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘আমি কাজে বের হলে সে (ইলহাম) বাবার সঙ্গে থাকতে পারে! সে জন্য আবার কাজ শুরু করেছি! অল্প অল্প করে। প্রথমে কয়েকটা বিজ্ঞাপনের কাজ দিয়ে শুরু। কিছুদিনের মধ্যে বড় কিছু কাজের খবর পাবেন, ইন্শাআল্লাহ।’

২০১০ সালে মোস্তফা সরয়ার ফারুকীকে বিয়ে করেন তিশা। বিয়ের দীর্ঘ প্রায় এক যুগ পর গত বছরের ৫ জানুয়ারি তিশা-ফারুকী দম্পতির ঘরে আসে মেয়ে ইলহাম নুসরাত ফারুকী। মাতৃত্বকালীন ছুটি, মেয়ে ও পরিবারকে সময় দিতে দীর্ঘ ছুটিতে ছিলেন তিশা।


প্রজ্ঞাপনের আগেই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার নিয়ে হাউকাউ

আপডেটেড ১০ জানুয়ারি, ২০২৩ ১০:০২
বিনোদন প্রতিবেদক

কয়েক দিন আগে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০২১-এর খবর। প্রকাশ পেয়েছে পুরস্কারপ্রাপ্তদের তালিকাও। তবে সেই তালিকা নিয়ে এরই মধ্যে শুরু হয়েছে নানা মহলে হাউকাউ। সেটা নিয়ে ক্ষোভ ঝাড়ছেন ফেসবুকে। আবার উল্টো চিত্রের নিদর্শন হিসেবে আছে অভিনন্দন বার্তা। বিভিন্ন মাধ্যমে পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম শোনার পর থেকেই বিজয়ী তারকাদের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন দীর্ঘদিনের সহকর্মী থেকে ভক্তরা।

তবে যে তালিকা ধরে এতকিছু সেটা চূড়ান্ত কোনো তালিকা নয় বলে গত শুক্রবার নিশ্চিত করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের চলচ্চিত্র শাখার অতিরিক্ত সচিব ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। বিষয়টি আরও নিশ্চিত করেন কেবিনেট ডিভিশনের কমিটি ও অর্থনৈতিক অনুবিভাগের সচিব সাঈদ মাহবুব খানও। তিনি জানান, তালিকাটি মন্ত্রণালয় থেকে মাত্র এসেছে। সেটি প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ পেতে সময় লাগবে।

তবে এই সরকারি প্রজ্ঞাপনের আগেই এটা নিয়ে নানা প্রশ্ন তোলা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। বিশেষ করে আজীবন সম্মাননা নিয়ে কথা হচ্ছে বেশি। কারণ বিভিন্ন মাধ্যম থেকে জানা গেছে, ২০২১-এ আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন ডলি জহুর ও ইলিয়াস কাঞ্চন। এই দুজনের তালিকা নিয়ে ফেসবুক ও গণমাধ্যমে ক্ষোভ ঝাড়েন জ্যেষ্ঠ অভিনেত্রী অঞ্জনা। ফেসবুকে অভিনেত্রী অঞ্জনা লেখেন, ‘এবারের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (২০২১) কয়েকটা ক্যাটাগরিতে সত্যিকার অর্থে হাস্যকর লেগেছে, কিছুই বলার নেই।’ ডলি জহুরকে নিয়ে তিনি আপত্তি তোলেন।

তিনি প্রশ্ন রাখেন, উজ্জ্বল, জাভেদ, নূতন, সুচরিতা বা শবনমকে কেন আজীবন সম্মাননা দেয়া হবে না?

একই রকম মতামত দেন অভিনেত্রী নূতনও। তিনি বলেন, ‘জাতীয় চলচ্চিত্রে টিকটক ক্যাটাগরি নেই। টিকটক আর ফেসবুক ফলোয়ার ক্যাটাগরি রাখার আবেদন করছি।’

তিনি অঞ্জনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘অঞ্জনাকে ধন্যবাদ। আজীবন সম্মাননা বলতে যে এই দেশে কিছু আছে সেটা ভুলেই গিয়েছিলাম।’

তিনি বলেন, আমি নিজেকে সম্মাননার যোগ্য মনে করছি না। তবে অঞ্জনার সুরে উচ্চারণ করছি সুচরিতার নাম। সেও কি যোগ্য না।’

এদিকে বিষয়টি নজরে আসে আজীবন সম্মাননা পাওয়া ডলি জহুরের। নাটকের শিল্পী বলে তাকে খাটো করা হচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘আমি মান্না ও সালমান শাহর সঙ্গে অনেক ছবিতে অভিনয় করেছি। অনেক শিল্পী আছেন এটা পাবার যোগ্য। তাদেরও সম্মানিত করা হোক। এটুকু বলব আমি চলচ্চিত্রেরই একজন। আমি অভিনয়শিল্পী। সবার ভালোবাসায় আমি সিক্ত।’

তিনি দর্শকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘মানুষের ভালোবাসা সবচেয়ে বড় পুরস্কার। শিল্পীজীবনে এত এত মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি যা বলে শেষ করতে পারব না। দর্শকরা আমার মাথার মুকুট।’

জানা যায়, সাধারণত ২৮টি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার দেয়া হলেও এ বছর ২৭ ক্যাটাগরিতে ৩৪টি পুরস্কার দেয়া হবে। তবে প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় এখনো নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না কতজন কী ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পাবেন।


ডিপজল-মিশার ‘কাবাডি’

দুই খল অভিনেতা ডিপজল ও মিশা সওদাগর
আপডেটেড ৮ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৪:০৮
বিনোদন প্রতিবেদক

ঢালিউডের দুই খল অভিনেতা ডিপজল ও মিশা সওদাগরকে দীর্ঘদিন পর একসঙ্গে দেখা যাবে একটি ওয়েব সিরিজে। রুবায়েত মাহমুদের ওয়েব সিরিজ ‘কাবাডি’তে অভিনয় করেছেন তারা। সম্প্রতি প্রকাশ্যে এসেছে সিরিজটির ট্রেলার।

নির্মাতা জানান, সিরিজটি মূলত কমেডি থ্রিলার ঘরানার। চার বন্ধুর পাগলামি ও একটি ভিডিও ফুটেজের রহস্য নিয়ে নির্মিত। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ১০ কোটি টাকার কোনো অজানা সম্পর্ক। গল্পে টুইস্ট রাখতেই চলচ্চিত্রের দুই জাত শিল্পীকে রেখেছি। এটি আমার প্রথম ওয়েব সিরিজ। আশা করছি দর্শকরা বেশ মজা পাবেন।

ওয়েব সিরিজটিতে অভিনয় করেছেন সাঈদ জামান শাওন, তামিম মৃধা, খায়রুল বাসার, সাফিন আহমেদ, সাদিয়া আয়মান, মিলন ভট্টাচার্য, শরাফ আহমেদ জীবন, ডানা ভাই, মোরশেদ মিশু প্রমুখ।

সিরিজটির গল্প লিখেছেন তামজিদ রহমান। কিছুদিন আগে মুক্তি পেয়েছে সিরিজটির টাইটেল গান ‘লাইফের নাই কোন জীবন, জীবনের নাই কোন লাইফ’। গানটি লিখেছেন রাজিব আশরাফ, সুর করেছেন চিরকুট ব্যান্ড মেম্বার জাহিদ নীরব, কণ্ঠ দিয়েছেন পান্থ কানাই।

চলতি সপ্তাহেই বায়োস্কোপে মুক্তি পাবে ওয়েব সিরিজটি।


সেন্সর ছাড়পত্র পেল শুভর ‘ব্ল্যাক ওয়ার’

‘ব্ল্যাক ওয়ার’ ছবিতে আরেফিন শুভ। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বিনোদন প্রতিবেদক

সেন্সর ছাড়পত্র পাওয়ার মধ্য দিয়ে এবার প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির অনুমতি পেল আরেফিন শুভ অভিনীত নতুন ছবি ব্ল্যাক ওয়ার। গত মঙ্গলবার বিনা কর্তনে ছাড়পত্র প্রদান করা হয়। একই সঙ্গে সেন্সর বোর্ডে সদস্যরা ছবিটির গল্প ও নির্মাণের প্রশংসা করেন।

পুলিশ অ্যাকশন সিনেমা ‘মিশন এক্সট্রিম’ সিকুয়েল হিসেবে মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি। পুরো নাম দেয়া হয়েছে, সিনেমা ‘মিশন এক্সট্রিম ২ : ব্ল্যাক ওয়ার’। আগামী ১৩ জানুয়ারি সিনেমাটি দেখা যাবে।

এ প্রসঙ্গে সিনেমাটির কাহিনিকার, পরিচালক ও প্রযোজক সানী সানোয়ার বলেন, ‘সেন্সর ছাড়পত্র হচ্ছে টেস্ট পরীক্ষার মতো, আর মুক্তির পর চূড়ান্ত পরীক্ষা। আমরা খুশি যে, চূড়ান্ত পর্বে পরীক্ষা দেয়ার যোগ্যতা অর্জন করেছি। এখন দেখা যাক, দর্শকদের কাছ থেকে সেই পরীক্ষার রেজাল্টে কী আসে! তবে, আমি আশাবাদী, সীমিত বাজেট আর আমাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টায় বানানো দেশীয় চলচ্চিত্র হিসেবে বিবেচনা করে দেখলে ভালো লাগবে।’
পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলারটিতে আরিফিন শুভর বিপরীতে অভিনয় করেছেন জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী।

ছবিটির আরও গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন- তাসকিন রহমান, সাদিয়া নাবিলা, সুমিত সেনগুপ্ত, মিশা সওদাগর, ফজলুর রহমান বাবু, মনোজ প্রামাণিক, শতাব্দী ওয়াদুদ, শহীদুজ্জামান সেলিম, হাসান ইমাম, লায়লা ইমাম, ইরেশ যাকের, মাজনুন মিজান, সুদীপ বিশ্বাস, সৈয়দ আরেফ, খালিদুর রহমান রুমী, ইমরান সওদাগর, খশরু পারভেজ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০২১ সালের ৩ ডিসেম্বর মুক্তি পায় ‘মিশন এক্সট্রিম’-এর প্রথম পর্ব।


সব ভুলে নিজের সিনেমার প্রচারণায় পরীমনি

‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবির প্রচারণায় পরীমনি। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ৪ জানুয়ারি, ২০২৩ ২১:২৬
বিনোদন প্রতিবেদক

নিজেদের বিচ্ছেদ নিয়ে গত কয়েক দিন কম জল ঘোলা হয়নি। বিচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েও আপাতত সেটা ‘স্থগিত’ করেছেন শরীফুল রাজ ও পরীমনি দম্পতি। সেসব ভুলে পুরোদমে নতুন ছবির প্রচারণায় ব্যস্ত আলোচিত অভিনেত্রী পরীমনি। আগামী ২০ জানুয়ারি মুক্তি পাচ্ছে মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপন্যাস অবলম্বনে আবু রায়হান জুয়েল পরিচালিত এবং পরীমনি-সিয়াম আহমেদ অভিনীত ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবিটি। মঙ্গলবার বিকেল থেকে তারই প্রচারণায় ব্যস্ত এই অভিনেত্রী। মঙ্গলবার প্রকাশ পেয়েছে সিনেমাটির গান। সেটা ফেসবুকে শেয়ার করে এই নায়িকা লিখেছেন ‘ইনজয়’।

এখানেই শেষ নয়, আজ ভোরে যখন সারা শহর শীতে জবুথবু তখনই পরী ছুটলেন রাজধানীর বিএফ শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে। ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ই তাকে নিয়ে গেল সেখানে। সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সেখানে হাজির ছিলেন তিনি। এ সময় প্রতিষ্ঠানের প্রিন্সিপাল শিক্ষক-শিক্ষিকা ও সব শিক্ষার্থীর সঙ্গে সময় কাটান। আমন্ত্রণ জানান ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ দেখার। পরীমনি এ সময় বাচ্চাদের সঙ্গে ছবি তোলেন, ভিডিও করেন। এমন উচ্ছ্বসিত পরীকে দেখেও খুশি হয় বিএফ শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরাও।

পরীমনি বলেন, ‘সবাইকে অনুরোধ করব হলে এসে সিনেমাটা দেখার। আপনারা সবাই আসবেন তো।’

উপস্থিত শিক্ষার্থীরা পরীকে হাত উঁচিয়ে কথা দেন যে, তারা হলে আসবেন।

নতুন ধরনের এ প্রচারণায় উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা কচি খন্দকার ও পরিচালক আবু রায়হান জুয়েল।

পরিচালক জানান, টানা কয়েক দিন পুরো টিম রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলে যাবে। বাচ্চাদের সিনেমাটি দেখাতে আমন্ত্রণ জানাবে।


মাটির তৈরি সিনেমার পোস্টার

মাটির তৈরি ‘কাগজ’ সিনেমার পোস্টার
আপডেটেড ৫ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৪:৪৬
গোলাম মোর্শেদ সীমান্ত

সম্প্রতি বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে ব্যতিক্রমী পোস্টার চোখে পড়েছে। মাস তিনেক আগে হাতে আঁকা পোস্টার ফিরিয়ে আনলেন ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমার নির্মাতা দীপংকর দীপন। কামার আহমাদ সাইমনের ‘অন্যদিন...’ সিনেমার পোস্টার প্রশংসিত হয়। ২০২২ সালের জনপ্রিয় সিনেমা ‘হাওয়া’র পোস্টার নিয়েও হয় বেশ আলোচনা। সম্প্রতি মুক্তিপ্রাপ্ত ‘কাগজ’ সিনেমার মাটি দিয়ে তৈরি পোস্টারটি বাংলা চলচ্চিত্রের পোস্টারের ইতিহাসে আলাদা মাত্রা যোগ করেছে।

নির্মাতা জুলফিকার জাহেদির সিনেমা ‘কাগজ’ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর। এফডিসিতে গেলে চোখ আটকে যাবে একটি পোস্টারের দিকে, যা মূলত একটি মাটির পোস্টার! নির্মাতা শুরুতে একটি থ্রিডি পোস্টার তৈরি করার পরিকল্পনা করেন। সিনেমা হলের বাইরে দুই পাশে দুটি চশমা থাকবে। যেকোনো দর্শক থ্রিডি চশমা চোখে দিলেই ত্রিমাত্রিক পোস্টারটি তার চোখের সামনে ভেসে উঠবে। এমন ভাবনা মাথায় এলেও, নির্মাতার মনে দেখা দেয় শঙ্কা। কেননা, এ দেশে এই সংস্কৃতি এখনো প্রতিষ্ঠিত নয়। সবাই কি গ্রহণ করবে? এমন প্রশ্ন জাগে তার মনে। তাই পরিকল্পনার পরিবর্তন ঘটে। থ্রিডি পোস্টার থেকে মাটির পোস্টার তৈরি করার পরিকল্পনা আসে।

শুরুতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে খোঁজখবর নেয়া শুরু করেন নির্মাতা। খোঁজখবর নেয়ার পর হতাশই হয়ে যান তিনি। কারণ পোস্টার তৈরিতে গুনতে হবে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা। বাজেটের সঙ্গে ব্যাটে-বলে মিলছিল না। তারপর কলেজ জীবনের বন্ধু রকি চাকির সঙ্গে যোগাযোগ করেন তিনি। তার কাছ থেকে পাওয়া গেল আশার আলো। রকি চাকির মেয়ে চারুকলার শিক্ষার্থী। তিনি পরিচয় করিয়ে দিলেন চিত্রশিল্পী রিংকুর সঙ্গে। তারপর সামনাসামনি কথাবলা হলো। তাকে পরিকল্পনা জানানোর পর পোস্টারের ধারণাটি পছন্দ হয় রিংকুর। তিনি জানান, পরিকল্পনাটা পছন্দ হয়েছে; টাকা বড় কথা নয়, কাজটা তিনি করতে চান।

চিত্রশিল্পী রিংকু দুজন সহকারী নিয়ে এক মাসের প্রচেষ্টায় মাটির পোস্টারটি তৈরি করেন। বিভিন্ন প্রকার মাটি দিয়ে ডিজাইন তৈরি করা হয়। পরে খণ্ড খণ্ড সেই মাটির ডিজাইন একত্র করে মূল পোস্টার তৈরি হয়। সম্পূর্ণ বানানো শেষ হওয়ার পর কাঠের ফ্রেম দিয়ে চারদিক বাঁধাই করা হয়। রং-তুলি দিয়ে করা হয় অলংকরণ।

নির্মাতা জানান, দিন যত গড়াবে তত পোস্টারটির রং বদল হবে। সম্পূর্ণ পোস্টারটি তৈরি করতে খরচ হয়েছে দুই লাখ টাকা। দুটি পোস্টার তৈরি করা হয়। একটি পোস্টার যমুনা ফিউচার পার্কের ভেতরে রাখা হয়েছে এবং দ্বিতীয়টি এফডিসির ভেতরে। দর্শকরা আগ্রহ নিয়ে পোস্টারটির সঙ্গে ছবি তুলছেন। তারপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তা পোস্ট করছেন। এ ছাড়া পরিচালক সমিতির নির্বাচনে পোস্টারটি নিয়ে প্রশংসা করেন অনেক নির্মাতারা।


জাহারা মিতুর ‘জার্সি নম্বর ১৬’

অভিনেত্রী জাহারা মিতু। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২ জানুয়ারি, ২০২৩ ০৯:৫০
বিনোদন প্রতিবেদক

অভিনেত্রী জাহারা মিতু নাম লিখিয়েছেন নারী ক্রিকেটার গল্পে ‘জার্সি নম্বর ১৬’ নামে একটি সিনেমায়। সিনেমাটি পরিচালনা করছেন তারিক মুহাম্মদ হাসান। এতে মিতুর বিপরীতে থাকবেন আবু হুরায়রা তানভীর।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অভিনেত্রী জাহারা মিতু নিজেই। সিনেমাটি নিয়ে মিতু বলেন, ‘আমার চলচ্চিত্রে আসাই ক্রিকেট উপস্থাপনার আসন থেকে। সেই ক্রিকেট নিয়েই যখন চিত্রনাট্য এল, আমার দ্বিতীয়বার ভাবার কারণ ছিল না। আমি অনেক খুশি যে, একটি নারীপ্রধান এবং ক্রিকেটের পাণ্ডুলিপিতে কাজ করার সুযোগ পেয়ে।’

গত ২৩ ডিসেম্বর মুক্তি পায় মিতু অভিনীত প্রথম সিনেমা ‘জয় বাংলা’। তার অভিনীত আরও কয়েকটি সিনেমা আছে মুক্তির অপেক্ষায়।


ভাবনার নতুন বই ‘কাজের মেয়ে’

আভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২ জানুয়ারি, ২০২৩ ১২:৪৯
বিনোদন প্রতিবেদক

অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনার লেখক হিসেবেও পরিচিতি রয়েছে। তার লেখা বেশ কয়েকটি বই প্রকাশ হয়েছে। এবারের বইমেলায় আসছে তার নতুন বই। বছরের প্রথম দিন নতুন বইটি সম্পর্কে জানান অভিনেত্রী।

ভাবনা জানান, তার লেখা এবারের বইটি উপন্যাস। এর নাম ‘কাজের মেয়ে’। এটি প্রকাশ হবে কিংবদন্তি পাবলিকেশন থেকে। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন আসাদুজ্জামান সোহেল।

বইয়ের প্রচ্ছদ শেয়ার করে ফেসবুকে ভাবনা লেখেন, প্রেম যদি প্রতারণা করে শিল্প দেবে আমাকে আশ্রয়, আমার শিল্পের হাত কেড়ে নেয় আছে সাধ্য...! আমার উপন্যাস কাজের মেয়ে আসছে এই বইমেলায়। সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা। আমার জন্য দোয়া করবেন।

ভাবনার লেখা বইগুলো হলো উপন্যাস ‘গুলনেহার’, ‘তারা’, ‘গোলাপী জমিন’ এবং কবিতার বই ‘রাস্তার ধারের গাছটির কোনো ধর্ম ছিল না’।

সম্প্রতি ভাবনা ‘এক্সকিউজ মি’ নামের নতুন সিনেমায় যুক্ত হয়েছেন। এ ছাড়াও বাবা নির্মাতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব পরিচালিত ‘যাপিত জীবন’ সিনেমার কাজ শেষ করেছেন। আর মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে তার আরেক সিনেমা ‘দামপাড়া’।


banner close