মঙ্গলবার, আগস্ট ৯, ২০২২

কাঁচা আমের জেলি বানাবেন যেভাবে

কাঁচা আমের জেলি বানাবেন যেভাবে
ছবি: সংগ্রহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • আধা কেজি কাঁচা আমের খোসা ছাড়িয়ে ধুয়ে নিন।

  • ৫ থেকে ১০ মিনিট সময় নিয়ে সেদ্ধ করুন আম


মৌসুম শেষ হয়ে যাওয়া আগেই কাঁচা আম দিয়ে মজাদার জেলি বানিয়ে ফেলুন। এই জেলি প্রায় এক বছর পর্যন্ত রেখে খেতে পারবেন। জেনে নিন রেসিপি।

আধা কেজি কাঁচা আমের খোসা ছাড়িয়ে ধুয়ে নিন। ভাজির মতো ঝিরি করে কেটে নিন। মেজারমেন্ট কাপের দুই কাপ আমের ঝিরির সঙ্গে ৪ কাপ পানি মিশিয়ে চুলায় বসিয়ে দিন। মিডিয়াম আঁচে ঢেকে দিন প্যান। ৫ থেকে ১০ মিনিট সময় নিয়ে সেদ্ধ করুন আম। মাঝে কয়েকবার নেড়ে দেবেন।

নামিয়ে ছেঁকে আনি আলাদা করে ফেলুন। চুলায় বসিয়ে দিন এই পানি। ২ কাপ টক পানির জন্য ২ কাপ চিনি দেবেন। ২ টেবিল চামচ ভিনেগার অথবা লেবুর রস দিন। এতে ৬ মাস থেকে ১ বছর পর্যন্ত ভালো থাকবে জেলি। চিনি গলে গেলে ১ ফোঁটা সবুজ ফুড কালার দিয়ে মিশিয়ে নিন। চাইলে এটা বাদও দিতে পারেন। নাড়তে থাকুন অনবরত। কিছুটা ঘন হয়ে গেলে একটা প্লেটে অল্প একটু মিশ্রণ নিয়ে কয়েক সেকেন্ডের জন্য ঠান্ডা করুন। প্লেট নাড়ালে যদি মিশ্রণ ছড়িয়ে না যায়, তাহলে জেলি হয়ে গেছে। নামানোর আগে আধা চা চামচ ম্যাংগো এসেন্স মিশিয়ে নিন। নামিয়ে কাচের বয়ামে ঢেলে নিন। জমে গেলে পরিবেশন করুন ব্রেডের সঙ্গে।

মানুষের চোখে লুকিয়ে আছে ভিনগ্রহে প্রাণের সংকেত

মানুষের চোখে লুকিয়ে আছে ভিনগ্রহে প্রাণের সংকেত
প্রতীকী ছবি
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত

প্রাণ বলতে আমাদের প্রচলিত ধারণা একেবারেই আপেক্ষিক। আধুনিক বিজ্ঞান বলছে, এই পৃথিবীরই আদিম পর্যায়ের প্রাণের আক্সিজেন চাহিদা ছিল বলতে গেলে শূন্য। সেই সময়ের প্রাণের নিদর্শন এখনো টিকে আছে আমাদের দেহের ভেতরেই। সেটি বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা পৃথিবীর আদিম পর্যায়, এমনকি মহাবিশ্বের ভিনগ্রহেও প্রাণের অস্তিত্বের সূত্র বের করতে পারছেন।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই পৃথিবীতে এখনকার প্রাণীদের শরীর কাঠামো নির্ধারণ করে দিয়েছে কোটি কোটি বছর ধরে বদলে যাওয়া পৃথিবীর পরিবেশ। আর এ কারণে ভিন গ্রহে প্রাণের বিবর্তন বিবর্তনটি হতে পারে একেবারেই আলাদা, সেখানকার পরিবেশ উপযোগী। ভিন গ্রহে প্রাণ বা এলিয়েন কেমন হতে পারে তার সূত্র লুকিয়ে আছে মানুষেরই চোখের ভেতরে।

অন্য গ্রহের প্রাণের সাধারণ নিদর্শন বা আদিকোষগুলো কেমন হতে পারে তা নিয়ে গবেষণা করেছে আমেরিকার ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া, রিভারসাইডে (ইউসি রিভারসাইড) এই গবেষণা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিজ্ঞানভিত্তিক সাইট ইউনিভার্স টুডে। সেটি অবলম্বনে লিখেছেন রুবাইদ ইফতেখার

পৃথিবীতে প্রাথমিক জীবনের নিদর্শন ছিল এখনকার চেয়ে একেবারে আলাদা। এরপর কয়েক শ কোটি বছর আগে গ্রেট অক্সিজেনেশন ইভেন্ট (জিওই) আমাদের গ্রহটির বৈশিষ্ট্য একেবারেই বদলে দেয়। ওই ঘটনার ফলে অক্সিজেন-সমৃদ্ধ বায়ুমণ্ডল ও জটিল প্রাণসহ একটি গ্রহে পরিণত হয় পৃথিবী।

জিওইর আগে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল অনেক আলাদা ছিল, যা তখনকার প্রাণ ও প্রাণের সক্রিয়তাকে পরিচালিত করেছে। শুরুর দিকের পৃথিবীর প্রাণের নিদর্শন বা আদিকোষগুলো কম শক্তির পরিবেশে বাস করত, যেখানে অক্সিজেনের উপস্থিতি ছিল একেবারেই কম।

সূর্যের রশ্মিই ছিল শক্তির একমাত্র উৎস এবং সালোকসংশ্লেষণ পদ্ধতিতে বিবর্তিত হওয়ার আগে অনুজীব বা আদিকোষে সূর্যালোককে অন্যভাবে ব্যবহার করতো।

রোডোপসিন নামের এক ধরনের প্রোটিন ব্যবহার করা হতো সৌরশক্তিকে ব্যবহারের জন্য। সালোকসংশ্লেষণের মতো একটি জটিল প্রক্রিয়ার চেয়ে এই প্রোটিন ব্যবহার করার পদ্ধতি ছিল অনেক সহজ।

এ বিষয়ে বৈজ্ঞানিক রিভিউ জার্নাল মলেকিউলার বায়োলজি অ্যান্ড ইভোলিউশনে প্রকাশিত ‘আর্লিয়েস্ট ফোটিক জোন নিশেজ প্রোবড বাই অ্যানসেস্ট্রাল মাইক্রলোবিয়াল রোডোপসিনস’ শীর্ষক এ গবেষণার নেতৃত্ব দিচ্ছেন আমেরিকার ইউনিভার্সিটি অফ উইসকনসিন-ম্যাডিসনের অ্যাস্ট্রোবায়োলজিস্ট বেতুল কাচার। দলের অন্যতম গবেষক ইউসি রিভারসাইডের অ্যাস্ট্রোবায়োলজিস্ট এডওয়ার্ড শোয়েইটারম্যান এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, ‘পৃথিবীর শুরুর দিকে, শক্তি খুব কম ছিল। ব্যাকটেরিয়া ও আর্কিয়া সালোকসংশ্লেষণের জন্য প্রয়োজনীয় জটিল জৈবঅণু ছাড়াই কীভাবে সালোকসংশ্লেষণ করা যায় তা খুঁজে বের করেছিল।’

আদিকোষগুলোর বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার সঙ্গে রোডোপসিন কিন্তু নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়নি। বিভিন্ন প্রাণীতে এর অস্তিত্ব এখনও দেখা যায়। এমনকি আমাদের চোখের রড কোষে রয়েছে রোডোপসিন। এটি কম আলোতে আমাদের দেখতে সহায়তা করে।

এছাড়া এই প্রোটিন এখনও লবনাক্ত হ্রদে আদিপ্রাণ বা এককোষী প্রাণীতে উপস্থিত। আধুনিক পৃথিবীতে এসব প্রাণের উপস্থিতি রোডোপসিনের বিবর্তনীয় ঐতিহাসিক সংযোগ আমাদের সামনে উপস্থাপন করে।

গবেষকরা মেশিন লার্নিং ও প্রোটিন সিকোয়েন্সিং ব্যবহার করে সেই সংযোগটি খুঁজেছেন। তারা বলছেন, পৃথিবীর বর্তমান জীব ও বায়ুমণ্ডল দেখে অন্য গ্রহে জীবনের ধারণা পাওয়া সম্ভব নয়। আমাদের বর্তমান বায়ুমণ্ডল অক্সিজেন-সমৃদ্ধ, তবে কিছু গবেষণা অনুযায়ী, পৃথিবীর প্রথম দিকের বায়ুমণ্ডল বর্তমান কালের শুক্রের মতো হতে পারে।

রোডোপসিন কীভাবে বিবর্তিত হয়েছে সেটি পর্যালোচনা করে গবেষকেরা প্রোটিনটির একটি ফ্যামিলি ট্রি তৈরি করেছেন। এর মাধ্যমে ২৫০ থেকে ৪০০ কোটি বছর আগের রোডোপসিন পুনর্গঠন করা সম্ভব হয়েছে।

যে সব গ্রহ বা গ্রহের চাঁদে পৃথিবীর মতো বায়ুমণ্ডল আছে সেখানে প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজছেন বিজ্ঞানীরা। বায়ুমণ্ডলের নির্দিষ্ট কিছু অণু জৈব-মার্কার হতে পারে, তবে সহজ ও আদি প্রাণকে জানতে আমাদের বিশদভাবে সৃষ্টির সময়কার পৃথিবীর প্রাথমিক বায়ুমণ্ডল সম্পর্কে ধারণা থাকা প্রয়োজন।

বেতুল কাচার বলেন, ‘প্রাণকে আমরা এখন যেভাবে দেখি সেটি আসলে আমাদের গ্রহের বর্তমান অবস্থারই একটি প্রকাশভঙ্গী। আমরা একটি অণুর প্রাচীন ডিএনএ ক্রমকে পুনরুত্থিত করেছি। এটি আমাদেরকে অতীতের জীববিজ্ঞান ও এর পরিবেশের সঙ্গে সংযোগ খোঁজায় সহায়তা করেছে।’

এ দলের গবেষণা বর্তমানে প্রচলিত জিনগত পরীক্ষা-নিরীক্ষার সমান্তরাল। বর্তমানে ডিএনএ থেকে আমরা কোথা থেকে এসেছি সে সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারি। তবে দলের মূল কাজটি এর চেয়ে অনেকটাই জটিল।

শোয়েইটারম্যান বলেন, ‘বিষয়টা অনেকটা এমন যে, নাতি-নাতনির ডিএনএ থেকে তাদের দাদা-দাদির ডিএনএ তৈরি করা। তবে পার্থক্য হলো, আমরা দাদা-দাদির বদলে বিশ্বজুড়ে কয়েক শ কোটি বছর আগে থাকা ক্ষুদ্র প্রাণ তৈরির চেষ্টা করছি।’

প্রাচীন ও আধুনিক রোডোপসিনের আলোক শোষণের ক্ষমতায় পার্থক্য খুঁজে পেয়েছেন গবেষকেরা। জিনগত পুনর্গঠন বলছে, প্রাচীন রোডোপসিন প্রাথমিকভাবে নীল ও সবুজ আলো শোষণ করত। আর আধুনিক রোডোপসিন নীল, সবুজ, হলুদ ও কমলা আলো শোষণ করে। এই তফাৎ পর্যালোচনা করে গবেষকেরা প্রাচীন ও আধুনিক পৃথিবীর পরিবেশগত পার্থক্য খুঁজেছেন।

জিওইর আগে পৃথিবীতে কোনো ওজন স্তর ছিল না। এটি সৃষ্টি হয় ২০০ থেকে ২৪০ কোটি বছর আগে। বায়ুমণ্ডলে মুক্ত অক্সিজেনের উপস্থিতি ছাড়া ওজন তৈরি হতে পারে না। আর ওজন স্তর না থাকার মানেই হলো আদিম পৃথিবীর জীবের ওপর অনেক বেশি অতিবেগুনি রশ্মি পড়ত। বর্তমানে পৃথিবীতে আসা ৯৭ থেকে ৯৯ শতাংশ অতিবেগুনি রশ্মি শুষে নেয় ওজন স্তর।

গবেষকদের মতে, প্রাচীন রোডোপসিনের নীল ও সবুজ আলো শুষে নেয়া এবং হলুদ ও কমলা আলো শুষে না নেয়ার অর্থ হচ্ছে, তখন এই প্রোটিন ব্যবহার করা প্রাণ বা আদিকোষ পানির বেশ খানিকটা গভীরে বাস করত।

পৃথিবীতে জিওইর পর ওজন স্তর অতিবেগুনি রশ্মি শোষণ শুরু করলে রোডোপসিন বিবর্তিত হয়ে আরও বেশি আলো শোষণের প্রক্রিয়া শুরু করে। এ কারণেই আধুনিক রোডোপসিন নীল ও সবুজ আলোর সঙ্গে হলুদ ও কমলা আলো শোষণ করতে সক্ষম।

আধুনিক রোডোপসিন আলো শোষণ করতে পারে, যা সালোকসংশ্লেষণকারী ক্লোরোফিল রঞ্জক করতে পারে না। বিবর্তনের ধারায় আধুনিক রোডোপসিন ও সালোকসংশ্লেষণ বিভিন্ন আলো শোষণ করে একে অপরের পরিপূরক হয়েছে। তবে এরা সম্পূর্ণ আলাদাভাবে ও স্বাধীন প্রক্রিয়ায় কাজ করে।

শোয়েইটারম্যান বলেন, ‘এর থেকে সহ-বিবর্তনের ধারণা পাওয়া যায়, যেখানে এক কোষের শুষে নেয়া আলো আরেক কোষ শোষণ করে না। এর কারণ হতে পারে, রোডোপসিন আগে বিবর্তিত হয়েছে এবং সবুজ আলোকে শোষণ করা শুরু করেছে। ক্লোরোফিল পরে এসে বাকি আলো শুষে নেয়া শুরু করে। অথবা ঘটনা এর বিপরীতও হতে পারে।’

পৃথিবীর আদি প্রাণের ধরন ও বৈশিষ্ট্য এর ভূ-স্তরের সঙ্গে জড়িত। গবেষকরা নিয়মিত প্রাচীন শিলাখণ্ড নিয়ে গবেষণা করে বোঝার চেষ্টা করেন, আদি পৃথিবীতে কীভাবে প্রাণের বিকাশ ঘটেছিল ও বিবর্তিত হয়েছিল। তারা সূর্যের আচরণও পর্যবেক্ষণ করেন। তারা পরীক্ষা করেন, শুরু থেকে প্রতিনিয়ত কী পরিমাণ সৌরশক্তি পৃথিবীতে আসছে। এটি অনুসন্ধানে এখন তাদের হাতে নতুন একটি উপায় রয়েছে।

গবেষণাপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘প্রাণীর মধ্যে এনকোড করা তথ্য ভূতাত্ত্বিক ও নাক্ষত্রিক প্রভাব কমিয়ে আমাদের এই গ্রহের বাসযোগ্যতা ধরের রাখার পদ্ধতি সম্পর্কে অভিনব তথ্য প্রদান করতে পারে।’

রোডোপসিনের কাজটা আসলে কী?

আদি প্রাণের ক্ষেত্রে রোডোপসিন এক ধরনের প্রোটন পাম্প হিসেবে কাজ করত। প্রোটিন পাম্প আদি প্রাণের জন্য শক্তি গ্র্যাডিয়েন্ট তৈরি করে। সালোকসংশ্লেষণ থেকে এর ধরন কিছুটা আলাদা। এটি জীবের বেঁচে থাকার জন্য রাসায়নিক শক্তি উত্পাদন করে।

একটি প্রোটন পাম্প ও শক্তি গ্র্যাডিয়েন্ট কোষের ঝিল্লি জুড়ে বৈদ্যুতিক রাসায়নিক সংযোগের পার্থক্য তৈরি করে। এটি একটি ব্যাটারির মতো, কারণ গ্র্যাডিয়েন্ট পরবর্তী ব্যবহারের জন্য শক্তি সংরক্ষণ করে।

গবেষক দলের দাবি, তারা জৈব অণুতে এনকোড করা তথ্য প্রাচীন যুগে টিকে থাকা প্রাণ ও এখনকার জীবাশ্মের আদি প্রাণকে বোঝার জন্য ব্যবহার করতে পারেন। এগুলোকে তারা পেলিওসেন্সর নামে অভিহিত করছেন।

গবেষকরা আদি রোডোপসিনকে আরও ভালোভাবে বোঝার জন্য সিনথেটিক জীববিজ্ঞান কৌশল ব্যবহার করতে চেয়েছেন। তারা দেখতে চেয়েছেন, কীভাবে রোডোপসিন পৃথিবীর প্রাচীন বায়ুমণ্ডল গঠনে সাহায্য করেছে ও কীভাবে তারা দূর গ্রহের বায়ুমণ্ডলকে পরিবর্তন করতে পারে।

কাচার বলেন, ‘আমরা আধুনিক জিনোমের মধ্যে থাকা প্রাচীন ডিএনএর পরিবর্তন করেছি। লাখ লাখ বছর আগে তাদের আচরণ অনুযায়ী তাদের পরিবর্তন করা হয়েছে। পরীক্ষাগারে টাইম-ট্র্যাভেল গবেষণার জন্য রোডোপসিন দারুণ সহায়ক।’

পৃথিবীর আদি প্রাণ ও বায়ুমণ্ডলের কিছু প্রমাণ লুকিয়ে আছে, গবেষক দলটির কিছু পদ্ধতি সে প্রমাণ অনুসন্ধানের বাধা দূর করছে।

কাচার বলেন, ‘আমাদের গবেষণা থেকে প্রথমবারের মতো দেখা যাচ্ছে যে, এনজাইমের বৈশিষ্ট্য বিবর্তনশীল পুর্নগঠনের প্রতি সংবেদনশীল, কিন্তু একই ধাঁচ প্রচলিত আণবিক বায়োসিগনেচার সমর্থন করে না।’

প্রাচীন পৃথিবী সম্পর্কে আমরা যত বেশি শিখব, তত বেশি আমরা অন্য বিশ্ব সম্পর্কে জানতে পারব। যদি একাধিক গ্রহে প্রাণের উদ্ভব সমর্থনের পরিবেশ থেকে থাকে তাহলে প্রতিটি গ্রহই সম্ভাব্য প্রাণকে ধারণের জন্য ভিন্ন পথ নিয়েছে। তবে এর জন্য দায়ী রসায়ন ও পদার্থবিদ্যার মধ্যে সামঞ্জস্য থাকবে। পৃথিবীতে জীব ও পরিবেশের মধ্যে পারস্পরিক ক্রিয়া যেমন রয়েছে, তেমন একটি ক্রিয়া অবশ্যই অন্যান্য গ্রহেও থাকতে হবে।

শোয়েইটারম্যান বলেন, ‘বর্তমান পৃথিবীর তুলনায় প্রাচীন পৃথিবী এক অচেনা গ্রহ। সময়ের সঙ্গে ও ভিন্ন পরিবেশে কীভাবে এখানে আদি প্রাণ পরিবর্তিত হয়েছে সেটা বুঝতে পারলে অন্য গ্রহেও প্রাণের সন্ধান করা সহজ হবে।’


হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণগুলো

হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণগুলো
হার্ট অ্যাটাকের প্রতিকী ছবিটি ইন্টরনেট থেকে নেওয়া
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
  • যদি কাজ করার মধ্যে আপনি প্রায়ই হঠাৎ করে অজ্ঞান হয়ে যান, তা হলে বুঝবেন হার্টের সমস্যা রয়েছে।

  • হার্ট অ্যাটাক হলে সাধারণত বুকের মাঝখানে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভূত হয়। আস্তে আস্তে সেই ব্যথা চোয়ালে, বাম কাঁধ ও হাতে ছড়িয়ে পড়তে থাকে।

হার্ট যখন অপর্যাপ্ত ও অনিয়মিতভাবে রক্ত সঞ্চালন করে, তখনই হার্ট অ্যাটাক হয়। উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, ধূমপান, অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, মানসিক চাপসহ নানা কারণে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে। আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে হার্ট অ্যাটাকের কিছু লক্ষণ। চলুন দেখে নেই।

-

বুকে ব্যথা

হার্ট অ্যাটাক হলে সাধারণত বুকের মাঝখানে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভূত হয়। আস্তে আস্তে সেই ব্যথা চোয়ালে, বাম কাঁধ ও হাতে ছড়িয়ে পড়তে থাকে।


-শ্বাসকষ্ট ও দম ফুরিয়ে যাওয়া

যদি আপনার শ্বাসকষ্ট বা অন্য কোনো সমস্যা না থাকে এবং হঠাৎ করে শ্বাস নেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দেয়, তবে সেটা খারাপ লক্ষণ। মূলত হৃদরোগ থেকে ফুসফুসে পানি জমাসহ বিভিন্ন জটিলতার কারণে ঠান্ডা না থাকার পরও শ্বাসকষ্টের সমস্যা দেখা দিতে পারে। অল্পতেই দম ফুরিয়ে যাওয়া, মুখ দিয়ে নিঃশ্বাস নেয়াও হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ।

-

অতিরিক্ত ঘাম হওয়া

অতিরিক্ত ঘাম হওয়া হার্ট অ্যাটাকের পূর্ব লক্ষণ। বিশেষ করে ডায়াবেটিক রোগীদের ক্ষেত্রে বুকে ব্যথা হওয়া ছাড়াও অতিরিক্ত ঘাম, বুক ধড়ফড়, হঠাৎ শরীর খারাপ লাগতে শুরু করলে অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।

-

কাশি

আপনার যদি দীর্ঘদিন কাশির সমস্যা থাকে, এবং তার সঙ্গে সাদা বা কিছুটা ঘোলাটে কফ বের হয়, তবে বুঝতে হবে আপনার হার্ট ঠিকমতো কাজ করছে না। ভবিষ্যতে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে। তবে হ্যাঁ, কাশি সব সময় হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ নাও হতে পারে। কফের সঙ্গে নিয়মিত রক্ত বের হলে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা থেকেই যায়।

-

অজ্ঞান হয়ে যাওয়া

যদি কাজ করার মধ্যে আপনি প্রায়ই হঠাৎ করে অজ্ঞান হয়ে যান, তাহলে বুঝবেন হার্টের সমস্যা রয়েছে।

-

তাড়াতাড়ি ক্লান্ত হয়ে পড়া

আপনি কি অল্পতেই ক্লান্ত হয়ে পড়েন? কিছুক্ষণ কাজ করলে বুক ধড়ফড় করে? তবে আপনি এখনই কোনো চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। বিশেষ করে মহিলাদের হার্টের সমস্যার প্রধান লক্ষণ এটি।

-

মাথাব্যথা

যখনই প্রচণ্ড মাথাব্যথা হয়, আমরা ওষুধ খেয়ে থাকি। কিন্তু জানেন কি, হার্ট অ্যাটাকের অন্যতম লক্ষণ হলো প্রতিদিনের প্রচণ্ড মাথাব্যথা?

-

অনিয়মিত পালস রেট

আপনি যদি অনেক বেশি নার্ভাস থাকেন বা কোথাও থেকে দৌড়ে আসেন আপনার পালস রেট ওঠা-নামা করতে পারে। তবে এটি যখন কোনো কারণ ছাড়াই হয়, তবে তা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। হার্ট অ্যাটাকের আগে এমনটি হয়ে থাকে।


দেশে ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার যত স্মার্টফোন

দেশে ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার যত স্মার্টফোন
দেশে বেশি মেগাপিক্সেল ক্যামেরা ফোনের কদর বাড়ছে দিনকে দিন। ছবি: সংগৃহীত
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
  • অনেক প্রতিষ্ঠান দাবি করছে, তাদের ফোনের ক্যামেরা এবং তাতে থাকা ফিচার পেশাদার ফটোগ্রাফারদের কাজ করতেও দিচ্ছে। তাই কদর বাড়ছে এমন ফোনের।



ছবি ও ভিডিওতে আমরা যেভাবে জোর দিয়েছে, ঠিক সেভাবেই স্মার্টফোনের ক্যামেরার উন্নয়নে জোর দিয়েছে কোম্পানিগুলো। বেশি মেগাপিক্সেলের, নতুন সব ফিচার দিয়ে ফোনে ক্যামেরা দিচ্ছে স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলো।

অনেক প্রতিষ্ঠান দাবি করছে, তাদের ফোনের ক্যামেরা এবং তাতে থাকা ফিচার পেশাদার ফটোগ্রাফারদের কাজ করতেও দিচ্ছে। তাই কদর বাড়ছে এমন ফোনের। বাংলাদেশের বাজারে থাকা এমন কিছু স্মার্টফোন দেখে নেয়া যাক।

রেডমি নোট ১১এস

রেডমি নোট ১১এস ডিভাইসটিতে পাওয়া যাবে ফ্ল্যাগশিপ লেভেলের ফটোগ্রাফি, সঙ্গে রয়েছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ, যা দিয়ে নেয়া যাবে অবিশ্বাস্য সব শট ও ছবি।

১০৮ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি ক্যামেরার পাশাপাশি এতে রয়েছে একটি ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা, যা দেবে ১১৮ ডিগ্রি ভিউ অ্যাঙ্গেল, রয়েছে ২ মেগাপিক্সেলের ডেফথ সেন্সর যা দেবে ন্যাচারাল লুক প্রোর্ট্রেইট এবং একটি ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা, যা দেবে ডিটেইলসহ ক্লোজ ছবি নিতে দেবে। আর সামনে দেয়া হয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্লিয়ার অ্যান্ড ক্রিপস সেলফি ক্যামেরা।

রেডমি নোট ১১এস রয়েছে দুর্দান্ত ৬.৪৩ ইঞ্চির অ্যামোলেড ডিসপ্লে, অক্টা-কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি৯৬ প্রসেসর, ফলে রেডমি নোট ১১এস দেবে স্মুথ পারফরম্যান্স।

দীর্ঘ ব্যাকআপ দেবে ৫০০০ এমএএইচের ব্যাটারি, সঙ্গে ৩৩ ওয়াটের প্রো চার্জিং। যা ডিভাইসটিকে অল্প সময়ে চার্জ করার পাশাপাশি দেবে দীর্ঘ সময় চার্জ ধরে রাখার সুবিধা। রেডমি নোট ১১এস ৬+১২৮ জিবি ভ্যারিয়েন্টের ২৭ হাজার ৯৯৯ টাকা এবং ৮+১২৮ জিবি ভ্যারিয়েন্টের দাম ২৯ হাজার ৯৯৯ টাকা।

রিয়েলমি ৯

ক্যামেরায় জোর দেয়া হয়েছে রিয়েলমির নতুন ফোন রিয়েলমি ৯ ফোরজিতে। ফোনটিতে দেয়া হয়েছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ। সঙ্গে থাকছে আইসোসেল এইচএম সিক্স সেন্সর। ফলে লো-লাইটেও চমৎকার ও ঝকঝকে ছবি তোলা যাবে ফোনটি দিয়ে।

এর প্রাথমিক ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার পাশাপাশি রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা-ওয়াইড এবং ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা। সেলফি তোলার জন্য সামনে দেয়া হয়েছে ২৬ ন্যানোমিটারের ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। রয়েছে এইচডিআর ও প্যানারোমা ফিচার।

রিয়েলমি ৯ ফোনটিতে দেয়া হয়েছে ৯০ হার্টজের সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লেসহ পাওয়ার অ্যাফিশিয়েন্ট অত্যাধুনিক ৬ ন্যানোমিটারের স্ন্যাপড্রাগন ৬৮০ প্রসেসর। ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিংসহ ৫০০০ এমএএইচের ব্যাটারি। যা চার্জ হবে ৭৫ মিনিটে।

৮ জিবি র‍্যামের সঙ্গে ১২৮ জিবি স্টোরেজ সুবিধার এই ফোনটির দাম ২৬ হাজার ৯৯০ টাকা।

রেডমি নোট ১০ প্রো

শাওমি ক্যামেরা ফোন হিসেবেই বাজারে এনেছে রেডমি নোট ১০ প্রো। ডিভাইসটিতে দেয়া হয়েছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ। এর প্রাইমারি ক্যামেরা ১০৮ মেগাপিক্সেল। একটি ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রাওয়াইড লেন্স, ৫ মেগাপিক্সেলের সুপার-ম্যাক্রো এবং একটি ২ মেগাপিক্সেলের ডেফথ সেন্সর।

সামনে আছে খুব ছোট পাঞ্চহোলের ১৬ মেগাপিক্সেলের ডিসপ্লে ক্যামেরা। ক্যামেরায় করা যাবে ১০৮০ পিক্সেলে ভিডিও রেকর্ড। এছাড়া এমআইইউআই ক্যামেরা অ্যাপে পাওয়া যাবে সোশ্যাল মিডিয়া ক্রিয়েটরস, নাইট মোড ফিচার ২.০, ভ্লগ মোড, ডুয়াল ভিডিও, প্রো ভিডিও, ম্যাজিক ক্লোন, লং এক্সপোজার মোড।

রেডমি নোট ১০ প্রোতে রয়েছে ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেটের ৬.৬৭ ইঞ্চির ফুল এইচডিপ্লাস অ্যামোলেড ডিসপ্লে। ৮ ন্যানোমিটার প্রযুক্তির শক্তিশালী স্ন্যাপড্রাগন ৭৩২জি প্রসেসর। রয়েছে ডুয়েল স্টেরিও স্পিকার সেটআপ, যা উচ্চ, স্পষ্ট সাউন্ড দেবে; রয়েছে ৩.৫ মিমি হেডফোন জ্যাক, সঙ্গে আইআর ব্লাস্টার।

নিরাপত্তার জন্য সাইডে রয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট এবং সঙ্গে ডাবল-ট্যাপ জেসচার। ৫০২০ এমএএইচ ব্যাটারির ফোনটি অনায়াশে এক দিনের সাপোর্ট দেবে। ৩৩ ওয়াটের চার্জারে ০ থেকে ৫৯ শতাংশ চার্জ হবে ৩০ মিনিটে। ৬+১২৮জিবি সংস্করণের ফোনটির দাম ২৯ হাজার ৯৯৯ টাকা।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এ৭৩ ফাইভজি

স্যামসাং তাদের ফাইভজি স্মার্টফোনগুলোর মধ্যে ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা দিয়ে বাজারে ছেড়েছে গ্যালাক্সি এ৭৩ মডেলের স্মার্টফোনটি। ফোনটিতে রয়েছে ৬.৭ ইঞ্চির ফুল এইচডিপ্লাস ইনফিনিটি-ও সুপার অ্যামোলেড প্লাস ডিসপ্লে। যা দেবে ৮৮০০ নিট ব্রাইটনেস এবং ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট। ডিসপ্লে সুরক্ষার জন্য দেয়া হয়েছে গরিলা গ্লাস ৫ সুরক্ষা।

স্মার্টফোনটিতে অক্টা-কোর কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন ৭৭৮জি প্রসেসর দেয়া হয়েছে। কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা সেটআপে দেয়া হয়েছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের প্রাইমারি লেন্স।

১২ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স, ৫ মেগাপিক্সেলের ডেফথ এবং একটি ৫ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো সেন্সর। সামনে রয়েছে ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা।

২৫ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিংসহ ফোনটিতে দেয়া হয়েছে ৫০০০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ৮ জিবি র্যাম ও ২৫৬ জিবি রমের গ্যালাক্সি এ৭৩ ফাইভজির দাম ৫৯ হাজার ৪৯৯ টাকা।

শাওমি ১১আই হাইপারচার্জ ফাইভজি

শাওমি ১১আই হাইপারচার্জ ফাইভজি ফোনটি রয়েছে ৬.৬৭ ইঞ্চির ১২০ হার্জ অ্যামোলেড ডটড্রপ ডিসপ্লে। ফোনের স্ক্রিনের সুরক্ষা দিতে রয়েছে গরিলা গ্লাস ৫।

হাইপারচার্জ ডিভাইসটিতে রয়েছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের প্রো-গ্রেড ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ, যা স্বল্প আলোতেও অসাধারণ সব ছবি উপহার দেবে। এর প্রাথমিক ১০৮ মেগাপিক্সেলে ক্যামেরার সঙ্গে আছে ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্র-ওয়াইড এবং ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা।

এ ছাড়া সব অসাধারণ মুহূর্ত ধরে রাখতে সামনে দেয়া হয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। এসব ক্যামেরায় রেকর্ড করা যাবে ফোর-কে, ১০৮০ পিক্সেল রেজ্যুলেশনের ভিডিও।

ফোনটিতে রয়েছে মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটির ৯২০ প্রসেসর। ফাইভজি এক্সপেরিযেন্স দিতে এতে দেয়া হয়েছে ৬ ন্যানোমিটার প্রযুক্তি, যাতে সাপোর্ট করে ৮টি ব্যান্ড। শাওমি ১১আই হাইপারচার্জ ফাইভজির ডুয়েল সেমেট্রিক্যাল স্পিকারের সঙ্গে ডলবি অ্যাটমসে দেবে অসাধারণ অডিও অভিজ্ঞতা।

১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট এবং ৩৬০ হার্জ টাচ স্যামপ্লিং রেট দেবে অসাধারণ ডিসপ্লে ও দেখার অভিজ্ঞতা। ফোনটির দাম ৬+১২৮ জিবি ভ্যারিয়েন্ট ৩৯ হাজার ৯৯৯ টাকা, ৮+১২৮ জিবি ভ্যারিয়েন্ট ৪২ হাজার ৯৯৯ টাকা ।

মটোরোলা এজ ২০ ফিউশন

৬.৭ ইঞ্চির ওএলইডি ডিসপ্লের ফোনটিতে রয়েছে ১০৮০*২৪০০ পিক্সেল রেজ্যুলেশন। ডিসপ্লেটির রেশিও ২০:৯। এর ডিসপ্লেতে দেয়া হয়েছে ৯০ হার্জ রিফ্রেশ রেট। ডিভাইসটির অন্যতম ফিচারএফ/১.৯ অ্যাপারচারের ওয়াইড ১০৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা।

প্রাথমিক এই ক্যামেরা ছাড়াও রয়েছে একটি এফ/২.২ অ্যাপারচারের ৮ মেগাপিক্সেলের ১১৮ ডিগ্রি আল্ট্রাওয়াইড এবং একটি ২ মেগাপিক্সেলের এফ/২.৪ অ্যাপারচারের ডেফথ ক্যামেরা। এসব ক্যামেরায় রয়েছে এলইডি ফ্ল্যাশ,এইচডিআর, প্যানারোমা ফিচার।

ফোর-কে ৩০এফপিএসে এতে ভিডিও রেকর্ড করা সম্ভব। সেলফি তুলতে ফোনটিতে দেয়া হয়েছে ৩২ মেগাপিক্সেলের এফ/২.৩ অ্যাপারচারের ক্যামেরা।

ডিভাইসটিতে দেয়া হয়েছে শক্তিশালী মিডিয়াটেকের এমটি৬৮৫৩ ডাইমেনসিটির ৮০০ ইউ ৭ ন্যানোমিটার প্রযুক্তির অক্টা-কোর প্রসেসর।

৬ ও ৮ জিবি র‍্যামের সঙ্গে ১২৮ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ। দীর্ঘস্থায়ী পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য দেয়া হয়েছে ৫০০০ এমএএইচের ৩০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং ব্যাটারি। এই ডিভাইসটির দাম ৩৬ হাজার ৯৯৯ টাকা।

ডার্ক সার্কেল দূর করে ঘি

ডার্ক সার্কেল দূর করে ঘি
ছবি: সংগ্রহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • রাত জাগা, মানসিক চাপ

  • চামড়া কুঁচকে খুব সহজে বলিরেখাও পড়


রাত জাগা, মানসিক চাপসহ নানা কারণে চোখের নিচের অংশ কালচে হয়ে যায়। এছাড়া চামড়া কুঁচকে খুব সহজে বলিরেখাও পড়ে এই অংশে। এসব সমস্যা দূর করতে ঘি ব্যবহার করতে পারেন। প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও এই উপাদানটির জুড়ি মেলা ভার।

দুই থেকে তিন ফোঁটা ঘি আঙুলে নিয়ে আলতো করে চোখের নিচের ত্বকে ম্যাসাজ করুন। সারা রাত রেখে দিন। পরদিন সকালে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

২ টেবিল চামচ ঘি, ২ টেবিল চামচ বেসন এবং ১ টেবিল চামচ দুধ একসঙ্গে মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করে নিন। মিশ্রণটি মুখ এবং গলার ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুইবার এই ফেস প্যাকটি ব্যবহার করতে পারেন। এই ফেসপ্যাক ত্বকের মৃত কোষ দূর করে, ত্বকের তৈলাক্ত ভাব ও ব্রণ কমায়। ১ টেবিল চামচ ঘি ও ১ টেবিল চামচ মধু একসঙ্গে মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ১৫-২০ মিনিট রাখার পর ধুয়ে বলিরেখা দূর হওয়ার পাশাপাশি ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

ফ্রিজের দুর্গন্ধ দূর করবেন যেভাবে

ফ্রিজের দুর্গন্ধ দূর করবেন যেভাবে
ইন্টারনেট থেকে নেওয়া
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
  • কুসুম গরম পানির সঙ্গে বেকিং সোডা মিশিয়ে পরিষ্কার করলে ফ্রিজ দুর্গন্ধমুক্ত থাকে।

  • অনেক সময় খাবার থেকেই গন্ধ ছড়িয়ে ফ্রিজকে দুর্গন্ধযুক্ত করে ফেলে।

ফ্রিজের দরজা খুললে নাকে এসে ধাক্কা দেয় দুর্গন্ধ। একসঙ্গে অনেক খাবার রাখলে কিংবা দীর্ঘদিন খাবার ফ্রিজ রেখে দিলে রকম হতে পারে। হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, কী করলে এরকম দুর্গন্ধ সৃষ্টি হবে না। চলুন দেখে নেই।

-

এয়ারটাইট কনটেইনার ব্যবহার করুন

অনেক সময় খাবার থেকেই গন্ধ ছড়িয়ে ফ্রিজকে দুর্গন্ধযুক্ত করে ফেলে। এই জটিলতা এড়াতে সব ধরনের খাবার ফ্রিজে রাখার আগে এয়ারটাইট বক্সে রাখুন। ধরনের বক্সের ভেতর থেকে গন্ধ বাইরে আসতে পারে না বিধায় ফ্রিজ দুর্গন্ধমুক্ত থাকে।

-

সঠিক তাপমাত্রা বজায় রাখুন

বেশির ভাগ সময় ফ্রিজের তাপমাত্রা সঠিকমাত্রায় না থাকার কারণে খাবারে জীবাণু বৃদ্ধি পায়। সেখান থেকে সৃষ্টি হয় দুর্গন্ধ। সাধারণত থেকে ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় রাখলে এই সমস্যা এড়ানো যায়।

-

ফ্রিজে বেকিং সোডা রাখুন

কুসুম গরম পানির সঙ্গে বেকিং সোডা মিশিয়ে পরিষ্কার করলে ফ্রিজ দুর্গন্ধমুক্ত থাকে। তবে এত পরিশ্রম করতে না চাইলে এক বাটি বেকিং সোডা ফ্রিজে রেখে দিন। সব দুর্গন্ধ এটি শুষে নিবে।

-

নিয়মিত চেক করুন

নিয়মিত চেক করুন যেন কোনো পচা খাবার কিংবা সবজি ফ্রিজে না থাকে। সে রকম কিছু পেলে সেগুলো আলাদা করে ফেলুন। ফ্রিজ থাকবে দুর্গন্ধমুক্ত।

-

ভ্যানিলা এসেন্স ব্যবহার করুন

তুলার বলে কয়েক ফোটা ভ্যানিলা এসেন্স দিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন। বেকিং সোডার মতো এটিও দুর্গন্ধ শুষে নিয়ে ফ্রিজকে সতেজ রাখবে।