রোববার, ৩ মার্চ ২০২৪

ওজন স্বল্পতা দূর করার উপায়

আপডেটেড
১৪ মার্চ, ২০২৩ ০৮:৩৯
আলমগীর আলম
প্রকাশিত
আলমগীর আলম
প্রকাশিত : ১৪ মার্চ, ২০২৩ ০৮:৩৫

অনেকে সুস্থ জীবনযাপন করছেন। কিন্তু কিছুটা ওজন স্বল্পতা (আন্ডারওয়েট) রয়েছে। ওজন একটু বাড়াতে পারলে ভালো হতো বলে মনে করেন। তাদের জন্য কিছু উপায় আছে, যা মানলে ওজন বাড়বে।

খুব বেশি চিকন হলে আমাদের অনেককে বেমানান লাগে। কেউ কেউ মোটা হওয়ার চেষ্টায় অনেক কিছু করেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সাফল্যের দেখা পান না। বয়স আর উচ্চতার তুলনায় আন্ডারওয়েট হওয়া কোনো কোনো ক্ষেত্রে সমস্যার হয়ে দেখা দিতে পারে।

ওজন স্বল্পতার কারণ

নানা কারণে ওজন কম হতে পারে। অনিয়মিত খাদ্যাভ্যাস, জেনেটিক বৈশিষ্ট্য, মানসিক অসুখ, অপর্যাপ্ত ঘুম, হাইপারথাইরয়েডিজম, ডায়রিয়া, ক্যানসার, ডায়াবেটিস, এইডস, আর্থ্রাইটিস, যক্ষ্মা, কিডনির অসুখ, ফুসফুসে জটিলতা, মাদকাসক্তি ইত্যাদি কারণে মানুষ ওজন হারাতে পারে। এমন কোনো কারণ থাকলে তা দূর করার উপায় বের করতে হবে। নইলে ওজন বাড়ানো সম্ভব নয়। এ ছাড়া বয়সের জন্যও ওজন কমবেশি হয়ে থাকে। ওজন বাড়ানোর জন্য এসব দিকে নজর দিতে হবে।

সঠিক ওজন লাভের জন্য সুষম খাবারের গুরুত্ব

  • যারা ওজন বাড়াতে চাচ্ছেন, তারা তাদের খাদ্যাভ্যাসের ভুলগুলো সংশোধন করতে হবে। দিনের বেলা ২টা পযর্ন্ত বেশি বেশি ফল খেতে হবে। কলা, পেঁপে এ ক্ষেত্রে অনেক উপকারী ফল। পাশাপাশি আঙুর, আম, কাঁঠাল ও দেশীয় বিভিন্ন ফল ওজন বাড়াতে সাহায্য করে। দুধ, দই, ছানা ইত্যাদি দুপুরের পরে খেতে পারেন। এতে শরীরে পুষ্টির পাশাপাশি ওজনও বাড়বে।
  • ভাত হচ্ছে শর্করা বা কার্বোহাইড্রেটের প্রধান উৎস। দেশি লাল চালের ভাত আপনাকে সঠিক মাত্রায় কার্বোহাইড্রেট দেবে। এ ক্ষেত্রে গমের তৈরি সব খাবার পরিহার করুন। সেই সঙ্গে অতিরিক্ত চর্বি বা ফ্যাট গ্রহণ করা যাবে না। তাই প্রতিদিন কার্বোহাইড্রেট খাবেন পরিমিত কিন্তু সাধারণের তুলনায় কিছুটা বেশি। সকালে সপ্তাহে দুদিন পান্তাভাত খেতে পারেন।
  • ওজন দ্রুত বাড়াতে চাইলে দিনে ৬০০-৭০০ ক্যালোরি বেশি গ্রহণ করতে হবে। ওজন বাড়াতে শুধু ক্যালোরিই যথেষ্ট নয়। ক্যালোরির পাশাপাশি সঠিক আমিষ বা প্রোটিন গ্রহণ করতে হবে। তা না হলে ক্যালোরি বাড়তি ফ্যাটের কারণ হয়ে দাঁড়াবে। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় প্রোটিনজাতীয় খাবার যেমন প্রতিদিন দুটি সিদ্ধ ডিম রাখতে পারেন।
  • শুকনো ফল বা ড্রাই ফ্রুটসে আছে প্রচুর ক্যালোরি ও ফ্যাট, যা ওজন বৃদ্ধিতে অনেক কাজে দেবে। প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠেই দুটি কাজুবাদাম ও দুটি কিসমিস খাবেন। সকালের নাশতায় রাখুন আমন্ড বা পেস্তা। নিয়ম মেনে ড্রাই ফ্রুটস খেলে দেখবেন এক মাসের মধ্যেই আপনার ওজন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ওজন বাড়াতে চাইলে আপনাকে দুশ্চিন্তা বা টেনশন থেকে মুক্ত থাকতে হবে। আজকাল টেনশনমুক্ত থাকা খুবই কঠিন। তাও চেষ্টা করলে সবই হয়। প্রতিদিন টানা ৮ ঘণ্টা অবশ্যই ঘুমাতে হবে। দুপুরে খাওয়ার পরে এক ঘণ্টার ভাতঘুম ওজন বাড়াতে সাহায্য করে।

ওজন বাড়ানোর কোনো ম্যাজিক টনিক নেই। অনেকে নানা টনিক খেয়ে ওজন বাড়ানোর চেষ্টা করেন। কখনো কখনো সেটা কাজে লাগলেও শরীরে নানারকম ক্ষতি বা জটিলতার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

ওজন বৃদ্ধি ও শারীরিক যেকোনো কাজের ক্ষেত্রেই পানি খুব উপকারী। সারা দিনে আড়াই লিটার পরিমাণ পানি পান করতে হবে। নিজের যত্ন নিন, ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

লেখক: খাদ্যপথ্য ও আকুপ্রেসার বিশেষজ্ঞ। প্রধান নির্বাহী, প্রাকৃতিক নিরাময় কেন্দ্র


১০০ কোটিরও বেশি মানুষ স্থূলতায় আক্রান্ত: সমীক্ষা

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ২ মার্চ, ২০২৪ ০০:০২
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ছোট-বড় সবাই এখন কমবেশি স্থূলতা বা অতিরিক্ত ওজনের সমস্যায় ভুগছেন। তবে বর্তমানে এ সংখ্যা বেড়ে বিশ্বব্যাপী ১০০ কোটি ছাড়িয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) একটি গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। বৃহস্পতিবার গবেষণাপত্রটি প্রকাশ করেছে ল্যানসেট মেডিকেল জার্নাল। এক প্রতিবেদনে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি এ খবর জানিয়েছে।

ল্যানসেট মেডিকেল জার্নাল প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, ১৯৯০ সালের তুলনায় ২০২২ সালে বিশ্বে স্থূলকায় মানুষের সংখ্যা চারগুণেরও বেশি হয়েছে। বিশ্বে এখন ১০০ কোটিরও বেশি মানুষ স্থূলতায় ভুগছেন। ৪ মার্চ বিশ্ব স্থূলতা দিবসের আগে এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে। গবেষকরা বলেছেন, ১৯৯০ সালে বিশ্বে প্রায় ২২ কোটি ৬০ লাখ স্থূলকায় প্রাপ্তবয়স্ক, কিশোর এবং শিশু ছিল। ২০২২ সালে এই সংখ্যা বেড়ে ১০৩ কোটি ৮০ লাখে পৌঁছেছে।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ১৯৯০ সাল থেকে পুরুষদের মধ্যে ১৪ শতাংশের স্থূলতার হার প্রায় তিনগুণ বেড়েছে এবং নারীদের মধ্যে ১৮.৫ শতাংশের ক্ষেত্রে তা দ্বিগুণেরও বেশি হয়েছে। ২০২২ সালে ৫০ কোটি ৪০ লাখ প্রাপ্তবয়স্ক নারী এবং ৩৭ কোটি ৪০ লাখ পুরুষ স্থূলকায় ছিল।

সমীক্ষায় আরও বলা হয়েছে, ২০২২ সালে প্রায় ১৫ কোটি ৯০ লাখ শিশু এবং কিশোর-কিশোরী স্থূলতার সমস্যায় ভুগেছে। ১৯৯০ সালে এ সংখ্যা ছিল মাত্র ৩ কোটি ১০ লাখ। ল্যানসেট জানিয়েছে, বিশ্বের ১৯০টিরও বেশি দেশের ২২ কোটির বেশি মানুষের ওজন এবং উচ্চতা পরিমাপ বিশ্লেষণ করে এই তথ্য জানিয়েছেন গবেষকরা।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, এই ‘মহামারি’ দরিদ্র দেশগুলোতে বেশি আঘাত হানছে। সেসব অঞ্চলে প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে স্থূলতার হার দ্রুত বাড়ছে।

স্থূলতার সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধির বিষয়ে চিকিৎসকরা আগে থেকেই জানতেন। তবে এটি যে এত দ্রুত বাড়তে পারে তা তাদের ধারণার বাইরে ছিল। ধারণা ধারণা ছিল, স্থূলতার প্রতীকী এই চিত্র ২০৩০ সালে দেখা যাবে।

এ বিষয়ে ডব্লিউএইচওর স্বাস্থ্যের জন্য পুষ্টি বিভাগের পরিচালক ফ্রান্সেসকো ব্রাঙ্কা বলেছেন, স্থূলকায় মানুষের সংখ্যা ‘আমাদের প্রত্যাশার চেয়ে অনেক আগে’ ১০০ কোটিতে চলে এসেছে।

অতিরিক্ত ওজন বা স্থূলতা একটি দীর্ঘস্থায়ী এবং জটিল ধরনের অসুস্থতা। এর কারণে হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এবং নির্দিষ্ট কিছু ক্যানসার আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মৃত্যুঝুঁকি আরও বেড়েছে। গবেষকরা বলেছেন, অতিরিক্ত ওজনের কারণে মৃত্যুঝুঁকি করোনা মহামারি চলাকালীন সময়ে বেড়েছে।

অনিয়মিতভাবে ও অতিরিক্ত এবং অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়াকে স্থূলতা বৃদ্ধির জন্য দায়ী করেছেন তারা।

এ বিষয়ে ডব্লিউএইচওর মহাপরিচালক টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইসাস বলেছেন, ‘নতুন গবেষণাটি জীবনের প্রাথমিক পর্যায় থেকে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া পর্যন্ত স্থূলতা প্রতিরোধ ও পরিচালনায় খাদ্য, শারীরিক কার্যকলাপ এবং প্রয়োজনীয় যত্নের ওপরই গুরুত্বারোপ করছে।’

এর প্রতিরোধে চিনিযুক্ত পানীয়ের ওপর ট্যাক্স আরোপ করা, শিশুদের মধ্যে অস্বাস্থ্যকর খাবারের বিপণন সীমিত করা এবং স্বাস্থ্যকর খাবারের জন্য ভর্তুকি দেওয়াকে সমর্থন করেছে ডব্লিউএইচও। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডায়াবেটিসের বিরুদ্ধে নতুন চিকিৎসাগুলোও স্থূলতা মোকাবিলায় সহায়তা করতে পারে।


রোগীদের ভালো চিকিৎসা সেবা দিন,আপনাদের সুরক্ষা আমাদের দায়িত্ব: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন রোগীদের ভালো চিকিৎসা সেবা দিতে চিকিৎসকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘আপনাদের সুরক্ষা দেওয়ার দায়িত্ব আমার। তবে আপনাদের রোগীর জন্য ভালো চিকিৎসা সেবা দেওয়ার দায়িত্ব নিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমার যেমন চিকিৎসকদের প্রতি দায়িত্ব আছে, তেমনি রোগীদের প্রতিও সমান দায়িত্ব আছে। এই দুই দায়িত্বই আমি নিচ্ছি তবে, হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা থেকে কোনো রোগী যেন বঞ্চিত না হয় সেটিও নিশ্চিত করতে হবে।’

সামন্ত লাল সেন গতকাল বুধবার ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডা. শহীদ মিলন অডিটোরিয়াম হলে নর্থ আমেরিকা মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন ও ঢাকা মেডিকেল কলেজের যৌথ আয়োজনে ‘ডোনেশন অব মডার্ন হেলথ কেয়ার ইকুইপমেন্ট অ্যান্ড হ্যান্ডস অন ট্রেইনিং’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের বেড সংখ্যা বাড়ানোর উদাহরণ টেনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হাত দিয়ে ৫ বেডের বার্ন ইউনিট শুরু করেছিলাম, তার মেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত দিয়ে ৫০০ বেডে উন্নীত করেছি। চেষ্টা থাকলে সবই করা সম্ভব। এভাবে, সবার সহযোগিতা পেলে আমরা বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবার মান অবশ্যই উন্নত করতে পারব।’

অনুষ্ঠানের শেষপর্যায়ে, নর্থ আমেরিকা মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও ব্যক্তিপর্যায়ে চিকিৎসাসামগ্রী প্রদান করা হয়।

পরে শাহবাগে বারডেম হাসপাতালে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অন্য আরেকটি আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন সামন্ত লাল সেন।

আলোচনা সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, পৃথিবীব্যাপী ডায়াবেটিস দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতি বছর ৭ মিলিয়ন করে নতুন রোগী তৈরি হচ্ছে। বাংলাদেশেও ডায়াবেটিস রোগীর হার দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। বাংলাদেশে এখন প্রায় ১ কোটি ৩০ লাখ ডায়াবেটিস রোগী আছে। ২০৩৫ সাল নাগাদ দেশে ২ কোটি ২০ লাখ হতে পারে ডায়াবেটিস রোগী। এর বাইরে, বর্তমানে দেশে ৫০ ভাগ মানুষ জানেই না তাদের ডায়াবেটিস হয়েছে।

তিনি বলেন, ইদানীং গ্রামের মানুষেরও ডায়াবেটিস হচ্ছে যা আমাদের ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই মুহূর্তে সবার আগে প্রয়োজন সচেতনতা বৃদ্ধি করা। আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে, শারীরিক পরিশ্রম বাড়াতে হবে, স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের অভ্যেস করতে হবে।

বাংলাদেশ ডায়াবেটিস সমিতির সভাপতি ও জাতীয় অধ্যাপক এ কে আজাদের সভাপতিত্বে সভায় বাংলাদেশ ডায়াবেটিস সমিতির মহাসচিব অধ্যাপক মো. সাইফুদ্দিন, ডা. অরূপ রতনসহ অন্য বক্তারা বক্তব্য রাখেন। সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক ডা. মো. ফারুক পাঠান।


ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতে এবার তাগিদ দিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন। একই সঙ্গে স্বাস্থ্য খাতের সব অসঙ্গতির দায় এড়ানোর সুযোগ নেই বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরের বাইরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ওষুধ ও হার্টের রিং, উভয়ের দাম নির্ধারণেই বৈঠক বসেছে। তবে দাম কমাতেই হবে। স্বাস্থ্য খাতে এত অসঙ্গতি, এর কোনোটার দায়ই মন্ত্রী হিসেবে এড়ানো সম্ভব নয়। দায় মাথায় নিয়েই কাজ করা হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে, যেকোনো দিন মন্ত্রী হিসেবে অভিযানে যাওয়া হবে।

অভিযানে অবৈধ প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে চিকিৎসাসেবা নেওয়া মানুষের ভোগান্তি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভুল জায়গায় চিকিৎসা নেওয়ার চেয়ে চিকিৎসা না নেওয়া ভালো এবং সঠিক জায়গায় চিকিৎসা নেওয়া উচিত।

ওষুধ খাতে দাম নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সিন্ডিকেটের যে অভিযোগ রয়েছে, এ নিয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পাশে থাকা স্বাস্থ্য সচিব বলেন, যেভাবে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে, তাতে আমি সন্তুষ্ট। যে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে, সেটা যথার্থ। এটা দুই পক্ষের জন্যই সহনীয়। যে কারণে নতুন করে দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়ায় আমরা যাইনি। যেটা চলছে, সেটা চলবে। যদি ভবিষ্যতে দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হয়, আমরা বৈঠক করে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।

কেউ দাম বাড়িয়ে বিক্রি করলে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে- এ প্রশ্নে তিনি বলেন, এখানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ব্যবস্থা আছে। আইনে শাস্তির ব্যবস্থা আছে। কার্ডিয়াক সেন্টারের বিশেষজ্ঞরা আজকের বৈঠকে ছিলেন, তাদেরও অনুরোধ করেছি মনিটরিং করতে। কারণ সরকারের একার পক্ষে সব কিছু করা সম্ভব হবে না। এটা আমাদের সবার সম্মিলিত প্রয়াস লাগবে।

ওষুধের দাম চল্লিশ শতাংশ বেড়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, এটা কোনো কোনো ক্ষেত্রে সঠিক, কোনো ক্ষেত্রে সঠিক না। সঠিক না এ কারণে যে, কিছু কিছু ওষুধের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া আছে। কিছু কিছু ওষুধের দাম ফ্লেক্সিবল (নমনীয়) আছে। সেটার দাম নির্ধারণে আমরা বৈঠক করতে পারিনি। তবে খুবই অল্প সময়ের মধ্যে বৈঠক করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ ইউসুফ বলেন, বর্তমানে ডলারের দাম বেড়ে গেছে। আর ওষুধের কাঁচামাল বিদেশ থেকে আনতে হয়। সে অনুযায়ী কিছু দামে সমন্বয় করা হয়েছে। তবে অত্যবশ্যকীয় ওষুধের দাম এক পয়সাও বাড়ানো হয়নি। ১১৭টি ওষুধের দাম সরকার আগে যা ঠিক করে রেখেছিল, সেগুলো আমরা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছি। তবে যেসব পণ্য আমরা বিদেশ থেকে আনি, সেগুলোর দাম বেড়ে যাওয়ায় উৎপাদন খরচ বেড়ে গেছে। সে ক্ষেত্রে কিছু সমন্বয় করা হয়েছে। তবে স্বাভাবিকভাবে বেশি বাড়তে দেওয়া হয়নি।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আরও বলেন, যেসব ওষুধ না খেলে মানুষ মারা যেতে পারে, সেই ১১৭টি ওষুধের দাম এক পয়সাও বাড়ানো হয়নি। এর বাইরে কিছু নতুন নতুন ওষুধ এসেছে। সেগুলোর দাম বাড়ছে, আমি স্বীকার করি না। তবে সেটা ডলারের দামের সঙ্গে সমন্বয় করে। এর বাইরে কোনো ওষুধের দাম বৃদ্ধির সুযোগ আমরা দিইনি।


করোনায় নতুন শনাক্ত ৮৩, ঢাকাতেই ৮০ জন

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৮৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ৪৮ হাজার ৩৬০ জনে।

আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনা বিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৮৫টি পরীক্ষাগারে ১৩২৭টি নমুনা পরীক্ষায় ৮৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়। তাদের মধ্যে ৮০ জনই ঢাকার রোগী। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৬ দশমিক শূন্য ২৫ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্তদের মধ্যে থেকে সুস্থ হয়েছেন ৩৭ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ১৫ হাজার ৩৭০ জনে। সুস্থতার হার ৯৮ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যুর তথ্য জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।


হাসপাতালের সেবার মান নিয়ে জিরো টলারেন্স: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, ‘দেশব্যাপী স্বাস্থ্যখাত নিয়ে সাম্প্রতিক কিছু ইস্যু নিয়ে কথা হচ্ছে। ঘটনাগুলো যেকোনো মানুষের মনকেই নাড়া দেবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে আমাকে শক্তহাতে উদ্যোগ নিতে বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী আমাকে এ বিষয়ে জিরো টলারেন্স মেইনটেইন করতে বলেছেন। আমি দ্ব্যার্থহীনভাবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে চলবো। আমি পরিস্কারভাবে বলতে চাই, বৈধ প্রাইভেট হাসপাতাল/ক্লিনিক/ ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো আমরা বন্ধ করতে চাই না, তবে এগুলো চালাতে হলে যতগুলো চিকিৎসক, নার্স প্রয়োজন তা থাকতে হবে; যা যা যন্ত্রপাতি থাকার কথা সেগুলো থাকা নিশ্চিত করতে হবে।’

‘সেটা করা না হলে, আমি কঠোর ব্যবস্থা নিতে জিরো টলারেন্স মেইনটেইন করবো। কোনো অনুরোধ বা তদবিরেই এ সকল অবৈধ বা যন্ত্রপাতিহীন ক্লিনিক/ডায়াগনস্টিক সেন্টার সচল রাখা হবে না। আমরা এক মাসে প্রায় ১২২৭টি অবৈধ ক্লিনিক/ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করেছি, এখনও অভিযান চলমান আছে। এর সাথে আরও বলে রাখি, বৈধ স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে পর্যাপ্ত লোকবল ও যন্ত্রপাতি না থাকলে সেগুলোর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

রোববার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিভিন্ন সমসাময়িক বিষয়াদির উপর মিডিয়া ব্রিফ্রিংকালে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি রোগীদের সুরক্ষা নিয়ে যেভাবে ভাবছি, একইভাবে আমি চিকিৎসকদের সুরক্ষা নিয়েও কাজ করছি। ভালো সেবা পেতে হলে ভালো চিকিৎসক লাগবে। ভালো সুযোগ-সবিধা না পেলে ভালো চিকিৎসক পাওয়াও মুশকিল হবে।’

ব্রিফ্রিংকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী অতীতে কী কী হয়েছে সেগুলো নিয়ে না ভেবে এখন থেকে কী কী করা হচ্ছে সেদিকে বেশি মনোযোগ দিতে মিডিয়া কর্মীদের প্রতি অনুরোধ জানান। স্বাস্থ্যসেবার সঠিক মান একা কেউই শতভাগ ঠিক করতে পারবে না। এজন্য দায়িত্ব কেবল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একার নয়, স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নততর করতে চিকিৎসক, পুলিশ, সাংবাদিকসহ প্রত্যেককেই এগিয়ে আসতে হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে এদিন সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী হাসপাতাল/ক্লিনিক সেবা শাখার সাথে সংশ্লিষ্ট সংগঠন ও কর্মকর্তাদের সাথে আলাদা করে একটি বৈঠক করেন।

এসময় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো জাহাঙ্গীর আলম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবিএম খুরশীদ আলম, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, বিএমডিসি সভাপতি অধ্যাপক ডা মাহমুদুল হাসান, বিএসএমএমইউ এর এনেস্থেসিওলজি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর দেবব্রত বণিক, ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালের এনেস্থিসিওলজি বিভাগের প্রধানগণ সহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেওয়া যাবে না

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

কোনো অবস্থাতেই নিবন্ধিত হাসপাতাল ও ক্লিনিক ছাড়া চেম্বারে অথবা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেওয়া যাবে না। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) স্বীকৃত বিশেষজ্ঞ অবেদনবিদ (অ্যানেসথেটিস্ট) ছাড়া যেকোনো ধরনের অস্ত্রোপচার করা যাবে না।

অ্যানেসথেসিয়া দিতে গিয়ে পরপর দুটি শিশুসহ তিন ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনার পর আজ বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জারি করা এক অফিস আদেশে এসব বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখার পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসান সেই অফিস আদেশে সই করেন।

ওই অফিস আদেশে মোট ১০টি নির্দেশনা বা শর্ত জারি করা হয়েছে। এসব শর্ত বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনার ক্ষেত্রে আবশ্যিকভাবে প্রতিপালনের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ওই অফিস আদেশে।

গত মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর মালিবাগ চৌধুরীপাড়ার জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে (জে এস হাসপাতাল) খতনা করার সময় আহনাফ তাহমিদ (১০) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়। স্বজন ও পুলিশ সূত্র বলছে, চিকিৎসকরা শিশুটিকে অস্ত্রোপচার কক্ষে নিয়ে অবেদন (অ্যানেসথেসিয়া) করে তার খতনা করেন। কিন্তু শিশুটির আর জ্ঞান ফিরে আসেনি। রাত ১১টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। এর আগে গত মাসে রাজধানীর বাড্ডার সাঁতারকুলের ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে খতনার পর পাঁচ বছর বয়সি শিশু আয়ানের মৃত্যু হয়। এ ছাড়া গতকাল চিকিৎসার জন্য গিয়ে মারা যান আরেক ব্যক্তি। এ পরিপ্রেক্ষিতে এমন নির্দেশনা জারি করল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

এর আগে গত বুধবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, নিয়ম না মেনে অস্ত্রোপচার করলে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে। একই সঙ্গে সেই হাসপাতাল বা ক্লিনিক সিলগালা করে দেওয়া হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া ১০ দফা শর্ত:

বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনার ক্ষেত্রে যে ১০টি শর্ত আবশ্যিকভাবে প্রতিপালনের নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সেগুলো হচ্ছে:

১. বেসরকারি ক্লিনিক/হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিকের লাইসেন্সের কপি ওই প্রতিষ্ঠানের মূল প্রবেশপথের সামনে দৃশ্যমান স্থানে অবশ্যই স্থায়ীভাবে প্রদর্শন করতে হবে।

২. সব বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ ও সরবরাহের জন্য একজন নির্ধারিত দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা বা কর্মচারী থাকতে হবে এবং তার ছবি ও মোবাইল নম্বর দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করতে হবে।

৩. যেসব প্রতিষ্ঠানের নাম ডায়াগনস্টিক ও হাসপাতাল হিসেবে আছে কিন্তু শুধু ডায়াগনস্টিক অথবা হাসপাতালের লাইসেন্স রয়েছে, তারা লাইসেন্সপ্রাপ্ত ছাড়া কোনোভাবেই নামে উল্লেখিত সেবা দিতে পারবে না।

৪. ডায়াগনস্টিক সেন্টার/প্যাথলজিক্যাল ল্যাবরেটরির ক্ষেত্রে যে ক্যাটারগরিতে লাইসেন্সপ্রাপ্ত, শুধু সে ক্যাটাগরিতে নির্ধারিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ব্যতীত কোনোভাবেই অন্যান্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা যাবে না। ক্যাটাগরি অনুযায়ী প্যাথলজি/মাইক্রোবায়োলজি, বায়োকেমিস্ট্রি ও রেডিওলজি বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করতে হবে।

৫. বেসরকারি ক্লিনিক/হাসপাতালের ক্ষেত্রে লাইসেন্সের প্রকারভেদ ও শয্যাসংখ্যা অনুযায়ী সব শর্ত বাধ্যতামূলকভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

৬. হাসপাতাল/ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়োজিত সব চিকিৎসকের পেশাগত ডিগ্রির সনদগুলো, বিএমডিসির হালনাগাদ নিবন্ধন ও নিয়োগপত্রের কপি অবশ্যই সংরক্ষণ করতে হবে।

৭. হাসপাতাল/ক্লিনিকের ক্ষেত্রে যেকোনো ধরনের অপারেশন/সার্জারি/প্রসিডিউরের জন্য অবশ্যই রেজিস্টার্ড চিকিৎসককে সার্জনের সহকারী হিসেবে রাখতে হবে।

৮. কোনো অবস্থাতেই লাইসেন্সপ্রাপ্ত/নিবন্ধিত হাসপাতাল ও ক্লিনিক ছাড়া চেম্বারে অথবা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেওয়া যাবে না। বিএমডিসি (বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল) স্বীকৃত বিশেষজ্ঞ অবেদনবিদ ছাড়া যেকোনো ধরনের অপারেশন/সার্জারি/ইন্টারভেনশনাল প্রসিডিউর করা যাবে না।

৯. সব বেসরকারি নিবন্ধিত লাইসেন্সপ্রাপ্ত হাসপাতাল/ক্লিনিকে লেবার রুম প্রটোকল অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

১০. নিবন্ধিত/লাইসেন্সপ্রাপ্ত হাসপাতাল/ক্লিনিকে অপারেশন থিয়েটারে অবশ্যই অপারেশন থিয়েটার এটিকেট (শিষ্টাচার) মেনে চলতে হবে।


গাফিলতির প্রমাণ পেলে ল্যাবএইড-ইউনাইটেডকে ছাড় নয়

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

চিকিৎসায় গাফলতির কারণে কোনো রোগীর মৃত্যু হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী মামলার মাধ্যমে বিচার হবে। এ ক্ষেত্রে শুধু ছোট হাসপাতাল নয়, অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেলে ল্যাবএইড কিংবা ইউনাইটেড হাসপাতালকেও ছাড় দেওয়া হবে না।

আজ বুধবার সুন্নতে খৎনা করাতে গিয়ে শিশু শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় রাজধানীর মালিবাগে অবস্থিত জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টার পর্যবেক্ষণে এসে এ হুঁশিয়ারি দেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) ডা. আবু হোসেন মো. মইনুল আহসান।

তিনি বলেন, ‘ল্যাবএইড হাসপাতালে সোমবার রাতে অ্যান্ডোস্কোপি করাতে গিয়ে একজন রোগীর মৃত্যু হয়েছে, সে বিষয়ে আমরা অবগত আছি। গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালকের নেতৃত্বে একটি উচ্চপর্যায়ের টিম ল্যাবএইড পরিদর্শন করেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং অধিদপ্তর ল্যাবএইডের ঘটনাটিকে গুরুত্বসহকারে নিয়েছে। আমরা সব তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেছি। একই সঙ্গে তাদের কাছে আরও তথ্য-উপাত্ত চেয়েছি।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক বলেন, ‘এর আগে ইউনাইটেড হাসপাতালে যে ঘটনাটি ঘটেছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বন্ধ করে দিয়েছি। মামলা চলমান আছে। চিকিৎসা নিতে গিয়ে কোনো রোগীর মৃত্যু হয় এবং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের কোনো গাফিলতি থাকে, তাহলে চলমান আইন অনুযায়ী মামলার মাধ্যমে তার বিচার হবে।’

তিনি বলেন, ‘ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশু মৃত্যুর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা গত কয়েকদিনে সারা দেশে ১ হাজার ২৭টি ক্লিনিক বন্ধ করেছি। আমরা আবারও বলছি, ল্যাবএইড-ইউনাইটেডসহ যেকোনো হাসপাতালে রোগী মৃত্যুর ঘটনায় যদি চিকিৎসকের গাফিলতি থাকে, তাহলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ডা. মইনুল আহসান বলেন, ‘আমরা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে শিশু আয়হামের মৃত্যুর ঘটনায় শোক ও দুঃখ প্রকাশ করছি। আমরা জেনেছি গতকাল সামান্য একটা মুসলমানির জন্য শিশুটিকে এ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। ডা. ইশতিয়াক নামে একজন সার্জন ছিলেন, আর ডা. মাহবুব মুর্শেদ শিশুটির অ্যানেসথেসিওলজিস্ট ছিলেন। অভিযোগ অনুসারে, অ্যানেসথেসিয়া দেওয়ার সময় শিশুটিকে অজ্ঞান করার পর আর তার জ্ঞান ফেরেনি। আমরা মিডিয়ার মাধ্যমে ঘটনাটি জানতে পেরেছি। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথা বলে প্রতিষ্ঠানটিতে তালা মারা হয়েছে।’

অধিদপ্তরের হাসপাতাল শাখার পরিচালক আরও বলেন, ‘হাসপাতালটির সব তথ্য আমাদের হাতে এসেছে। আমরা সেগুলো পর্যবেক্ষণ-পর্যালোচনা করছি। যতটুকু পেয়েছি, প্রতিষ্ঠানটির হাসপাতাল কার্যক্রম চালানোর কোনো অনুমোদন ছিল না। তবে তাদের ডায়াগনস্টিক কার্যক্রম পরিচালনার অনুমোদন রয়েছে। সুতরাং তারা যদি কোনো রোগীকে অ্যানেসথেসিয়া দিয়ে থাকে, সেটি অন্যায় করেছে। আর যিনি অপারেশন করেছেন, তার বিরুদ্ধে আমরা আমাদের আইন অনুযায়ী বিভাগীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।’


আরও ৩৬ জনের করোনা শনাক্ত

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে এক দিনে ৩৬ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষায় এসব রোগী শনাক্ত হয়। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ৪৮ হাজার ৪৩ জনে।

বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৩২ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ২০ লাখ ১৫ হাজার ১৪৮ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা করা হয় ৪০৩টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৯৩ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ০৮ শতাংশ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। ২০২১ সালের ৫ ও ১০ আগস্ট দুই দিন করোনায় সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান। মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২৯ হাজার ৪৮৬ জন।


অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেলে ল্যাবএইড-ইউনাইটেডকেও ছাড় নয়: অধিদপ্তর

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

চিকিৎসায় গাফলতির কারণে কোনো রোগীর মৃত্যু হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী মামলার মাধ্যমে বিচার হওয়ার পাশাপাশি শুধু ছোট কোনো হাসপাতাল নয়, এ রকম অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেলে ল্যাবএইড কিংবা ইউনাইটেড হাসপাতালকেও ছাড় দেওয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

আজ বুধবার সুন্নতে খৎনা করাতে গিয়ে শিক্ষার্থী মৃত্যুর ঘটনায় রাজধানীর মালিবাগে অবস্থিত জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টার পর্যবেক্ষণে এসে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) ডা. আবু হোসেন মো. মইনুল আহসান।

অধিদপ্তরের পরিচালক বলেন, এর আগে ইউনাইটেড হাসপাতালে যে ঘটনাটি ঘটেছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বন্ধ করে দিয়েছি। মামলা চলমান আছে। চিকিৎসা নিতে গিয়ে কোনো রোগীর মৃত্যু হয় এবং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের কোনো গাফিলতি থাকে, তাহলে চলমান আইন অনুযায়ী মামলার মাধ্যমে তার বিচার হবে।

তিনি বলেন, ‘ল্যাবএইড হাসপাতালে গত সোমবার রাতে এন্ডোস্কোপি করতে গিয়ে একজন রোগীর মৃত্যু হয়েছে, সে বিষয়ে আমরা অবগত আছি। গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালকের নেতৃত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের টিম ল্যাবএইড পরিদর্শন করেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং অধিদপ্তর ল্যাবএইডের ঘটনাটিকে গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশু মৃত্যুর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা গত কয়েকদিনে সারাদেশে ১ হাজার ২৭টি ক্লিনিক বন্ধ করেছি। আমরা আবারও বলছি, ল্যাবএইড- ইউনাইটেডসহ যে কোনো হাসপাতালে রোগী মৃত্যুর ঘটনায় যদি চিকিৎসকের গাফিলতি থাকে, তাহলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

‘আমরা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষে থেকে শিশু আহনাফের মৃত্যুর ঘটনায় শোক ও দুঃখ প্রকাশ করছি। আমরা জেনেছি গতকাল সামান্য একটা মুসলমানির জন্য শিশুটিকে এই হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। ডা. ইশতিয়াক নামে একজন সার্জন ছিলেন, আর ডা. মাহবুব মুর্শেদ শিশুটির এনেসথেসিওলজিস্ট ছিলেন। অভিযোগ অনুসারে, এনেসথেসিয়া দেওয়ার সময় শিশুটিকে অজ্ঞান করার পর আর তার জ্ঞান ফেরেনি। আমরা মিডিয়ার মাধ্যমে ঘটনাটি জানতে পেরেছি। পরবর্তীতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথা বলে প্রতিষ্ঠানটিতে তালা মারা হয়েছে।’- যোগ করে বলেন ডা. মইনুল আহসান।

অধিদপ্তরের হাসপাতাল শাখার পরিচালক আরও বলেন, ‘হাসপাতালটির সমস্ত তথ্য আমাদের হাতে এসেছে। আমরা সেগুলো পর্যবেক্ষণ-পর্যালোচনা করছি। যতটুকু পেয়েছি, প্রতিষ্ঠানটির হাসপাতাল কার্যক্রম চালানোর কোনো অনুমোদন ছিল না। তবে তাদের ডায়াগনস্টিক কার্যক্রম পরিচালনার অনুমোদন রয়েছে। সুতরাং তারা যদি কোন রোগীকে এনেসথেসিয়া দিয়ে থাকে, সেটি অন্যায় করেছে। আর যিনি অপারেশন করেছেন, তার বিরুদ্ধে আমরা আমাদের আইন অনুযায়ী বিভাগীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।’


আবারও হাসপাতালে খতনার সময় শিশুর মৃত্যু 

আপডেটেড ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১৪:২৫
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

রাজধানীর বাড্ডার সাতারকুলের ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে খতনার পর পাঁচ বছর বয়সী শিশু আয়ানের মৃত্যুর ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই আবারও একই ঘটনায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাজধানীর মালিবাগে একটি বেসরকারি হাসপাতালে খতনা করার সময় চিকিৎসকের অবহেলায় এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় করা মামলায় দুই চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মারা যাওয়া শিশুর নাম আহনাফ তাহমিদ (১০)। বাবার নাম ফখরুল আলম। শিশুটি মতিঝিল আইডিয়াল স্কুলে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ত।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর মালিবাগ চৌধুরীপাড়ার জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে (জে এস হাসপাতাল) শিশুমৃত্যুর ঘটনাটি ঘটে।

তাহমিদের মৃত্যুর ঘটনায় গতকাল রাতেই দুই চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁরা হলেন মোক্তাদির হোসেন ও মাহবুব হোসেন।

পুলিশের তথ্যমতে, মোক্তাদির জে এস হাসপাতালের মালিক। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) অর্থোপেডিক সার্জন। মাহবুব একই হাসপাতালের অবেদনবিদ্যা (অ্যানেসথেসিওলজি) বিভাগের চিকিৎসক।

আজ বুধবার সকালে হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আওলাদ হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, শিশুটির বাবা গতকাল রাতে একটি মামলা করেন। চিকিৎসকের অবহেলায় তাঁর সন্তানের মৃত্যুর অভিযোগ করেছেন তিনি। হাতিরঝিল থানায় করা এ মামলায় হাসপাতালটির মালিক মোক্তাদির, অবেদনবিদ মাহবুব ও অস্ত্রোপচারবিশেষজ্ঞ ইশতিয়াক আজাদকে আসামি করা হয়েছে। মোক্তাদির ও মাহবুবকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনার পর ইশতিয়াক পালিয়ে গেছেন। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক বলে জানা গেছে।

ঘটনার বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কিংবা তিন আসামির কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

স্বজন ও পুলিশ সূত্র বলছে, গতকাল রাত সাড়ে সাতটার দিকে ফখরুল ও তাঁর স্ত্রী খায়রুন নাহার তাঁদের বড় সন্তান তাহমিদকে খতনা করাতে জে এস হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসকেরা শিশুটিকে অস্ত্রোপচার কক্ষে নিয়ে অবেদন (অ্যানেসথেসিয়া) করে তার খতনা করেন। কিন্তু শিশুটির আর জ্ঞান ফিরে আসেনি। রাত ১১টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা।


‘দুই ডোজ টিকা নিলেও করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হতে পারেন’

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

দুই ডোজ টিকা নিলেও করোনাভাইরাসের নতুন জেএন.১ সাব-ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা থেকে যায়। মঙ্গলবার করোনার সর্বশেষ জিনোম সিকোয়েন্সিং গবেষণার ফলাফল জানানোর সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক শরফুদ্দিন আহমেদ এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ বছরের শুরুতে নতুন এ সাব-ভ্যারিয়েন্টের কথা জানিয়েছে। বিএসএমএমইউ গত জানুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহ থেকে ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত কোভিড আক্রান্ত ৪৮ রোগীর নমুনার জিনোম সিকোয়েন্সিং করেছে। গবেষণায় তিনজনের নমুনায় সাব-ভ্যারিয়েন্ট জেএন.১ শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের একজন সম্প্রতি দেশের বাইরে গিয়েছিলেন। তাদের আগেই করোনার দুই ডোজ টিকা নেওয়া ছিল।

অধ্যাপক শরফুদ্দিন বলেন, এ সাব-ভ্যারিয়েন্টের উপসর্গ করোনার অন্য ধরনগুলোর মতো। এতে আক্রান্তদের জ্বর, ঠাণ্ডা, গলাব্যথা, মাথাব্যথা এবং হালকা কাশির হালকা উপসর্গ ছিল। তবে এর দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব জানতে গবেষণা চালিয়ে যাওয়ার বিকল্প নেই। পাশাপাশি যাদের এ ধরনের হালকা উপসর্গ দেখা যাবে, তাদেরও কোভিড পরীক্ষা করা উচিত বলে পরামর্শ দেন তিনি।


১৩ ঘণ্টার অস্ত্রোপচারে আলাদা হলো জোড়া লাগানো শিশু নুহা-নাবা

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ১৩ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে চলা জটিল অস্ত্রোপচারের পর আলাদা হলো জোড়া লাগানো দুই শিশু নুহা ও নাবা।

সোমবার সকাল ৯টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত অস্ত্রোপচারে তাদের পৃথক করা হয়। অস্ত্রোপচারের পর তারা ভালো আছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এ নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘চিকিৎসাক্ষেত্রে বাংলাদেশ উন্নত বিশ্বের মতো এগিয়ে যাচ্ছে... আমি দায়িত্ব নিয়ে বলতে পারি, আমাদের চিকিৎসকরা চিকিৎসা দিলে বাংলাদেশ থেকে এখন জটিল সব রোগেরই চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব।’

জোড়া লাগানো দুই শিশুর এ অস্ত্রোপচারের ব্যপারে তিনি বলেন, ‘এটি সাধারণ কোনো অস্ত্রোপচার নয়। এখানে আমাদের অভিজ্ঞ চিকিৎসক টিম টানা ১৩ ঘণ্টার বেশি সময় অপারেশনের মাধ্যমে এই অসাধ্য সাধন করেছেন।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘এই অপারেশন বিনামূল্যে হয়েছে। দুই শিশুর চিকিৎসা ব্যয় প্রধানমন্ত্রী নিজে বহন করেছেন। অন্য দেশে করতে গেলে প্রায় এক কোটি টাকা খরচ হতো।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ চিকিৎসাক্ষেত্রে অপার সম্ভাবনার দেশ। এ দেশে অনেক শিক্ষার্থী প্রতিবছর মেডিকেলে পড়ালেখা শেষ করে চিকিৎসক হচ্ছেন। তারা মেধাবী ও দক্ষ। তাদের জন্য একটু সুযোগ সুবিধা বাড়াতে হবে ও আত্মবিশ্বাস নিয়ে কাজ করার সুযোগ দিতে হবে। তাহলে বাংলাদেশ থেকে কোনো রোগীকে আর বিদেশ যেতে হবে না।’


চিকিৎসক হওয়ার চাপে ওএমআর ছেঁড়ার ‘বানোয়াট গল্প

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় ওএমআর শিট ছিঁড়ে ফেলার ঘটনা ঘটেনি। অভিযোগ তোলা শিক্ষার্থী হুমাইরা ইসলাম ছোঁয়ার ওপর পরিবারের পক্ষ থেকে ডাক্তার হওয়ার জন্য অতিরিক্ত চাপ থাকায় তিনি পর্যবেক্ষক কর্তৃক ওএমআর শিট ছিঁড়ে ফেলার গল্প বানিয়েছেন। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের তদন্ত কমিটি তাদের তদন্তে এমন তথ্য পাওয়ার দাবি করেছে।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. টিটু মিয়া তদন্ত প্রতিবেদন উত্থাপন করেন। সংবাদ সম্মেলনে তদন্ত কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া অনুষ্ঠানে সব তথ্য উপাত্ত সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরা হয়।

তদন্ত কমিটি জানায়, অভিযোগকারী হুমাইরা ইসলাম ছোঁয়া ও তার বাবা-মায়ের প্রদত্ত সাক্ষ্য বিবরণী পর্যালোচনায় স্পষ্ট হয় যে, শুরু থেকেই তার ওপর পরিবার ও সমাজের ডাক্তার হওয়ার প্রত্যাশার চাপ ছিল। এমনকি এর আগের বছরও এই শিক্ষার্থী পরীক্ষায় পাস করেননি। এ বছরও পাস করেননি।

অভিযোগ প্রসঙ্গে অধ্যাপক ডা. টিটু মিয়া বলেন, সব সাক্ষ্য পর্যালোচনা ও প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে তদন্ত কমিটি নিশ্চিত হয় যে, অভিযোগকারীর সব অভিযোগ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েও (টেস্ট স্কোর ২৭.২৫) বাবাকে মায়ের পরামর্শে মিথ্যা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষে আরও ভালো রেজাল্ট/স্কোর করে সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির মিথ্যা প্রত্যয় ব্যক্ত করেন হুমাইরা। কিন্তু বাস্তবে পরীক্ষায় ৫৭টি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পাওয়া যাবে না নিশ্চিত জেনে তার ব্যর্থতার দায় হল পরিদর্শকের উপর চাপিয়ে দেন। একই সঙ্গে ভর্তির সুযোগ লাভের আশায় এই মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক গল্প সাজান তিনি।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আরও বলেন, বর্তমান সরকার ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী মহোদয়ের সঠিক দিক নির্দেশনায় বিগত বছরসমূহের ধারাবাহিকতায় সবার আন্তরিকতা ও ঐক্লান্তিক প্রচেষ্টায় একটি স্বচ্ছ ও সুন্দর পরীক্ষা পদ্ধতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করার প্রয়াসে তৃতীয় কোনো পক্ষের চক্রান্তের শিকার হয়েছেন কি না, তা উন্মোচনের সুপারিশ করা হলো।

পরিবারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বাবা-মায়ের উচিত তাদের সন্তানদের এ ধরনের প্রেশার না দেওয়া।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পুরোনো ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ২০২৩–২০২৪ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সামন্ত লাল সেন। সংবাদ সম্মেলন শেষে চলে যাওয়ার সময় একজন পরীক্ষার্থী এবং তার পরিবারের সদস্যরা সামন্ত লাল সেনের পথ আগলে ধরেন। তারা অভিযোগ করেন, ৯ ফেব্রুয়ারি ভর্তি পরীক্ষার সময় ওই পরীক্ষার্থীর ওএমআর শিট ছিঁড়ে ফেলেন পরীক্ষাকেন্দ্রের একজন পর্যবেক্ষক।

নারী শিক্ষার্থীর কেন্দ্র ছিল রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্র (শেখ কামাল ভবন, অষ্টম তলা)। পরীক্ষায় অসৎ উপায় অবলম্বনের সন্দেহে একজন পর্যবেক্ষক ওই শিক্ষার্থীসহ তিনজনের ওএমআর শিট ছিঁড়ে ফেলেন বলে জানান হুমাইরা। পরে পর্যবেক্ষক তার ভুল বুঝতে পেরে নতুন ওএমআর শিট দেন বলেও দাবি করেন এ পরীক্ষার্থী। তার দাবি, তখন পরীক্ষা শেষ হতে আর মাত্র পাঁচ মিনিট বাকি ছিল। অনুরোধ করার পরও পর্যবেক্ষক তাদের জন্য পরীক্ষার সময় বাড়াননি।


banner close