মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২

ডেঙ্গু শনাক্তে রেকর্ড

ডেঙ্গু শনাক্তে রেকর্ড
এডিস মশা। ছবি: সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যায় মঙ্গলবার আবার রেকর্ড হয়েছে। একদিনে এত রোগী চলতি বছরে আর ভর্তি হয়নি। অবশ্য এই সময়ে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি। গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের নিয়ে চলতি বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১২ হাজার ছাড়িয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানাচ্ছে, সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪৩৮ জন। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ৩৯২ জন। তার আগের দিন ৩৯৯ জনের হাসপাতালে ভর্তির তথ্য দিয়েছিল কন্ট্রোল রুম। 

নতুন ভর্তি হওয়া ৪৩৮ জনের মধ্যে ঢাকার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩১৫ জন। ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১২৩ জন। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১ হাজার ৫৬০ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার হাসপাতালে আছেন ১ হাজার ১৯১ জন। ঢাকার বাইরের হাসপাতালে আছেন ৩৬৯ জন।

কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, চলতি বছরে এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১২ হাজার সাতজন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪৫ জন।

গত একদিনে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের নিয়ে চলতি মাসের প্রথম ২০ দিনে হাসপাতালে ভর্তি হলেন ৫ হাজার ৮২৬ জন। মারা গেছেন ২৪ জন।

কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারিতে ১২৬ জন রোগী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও এপ্রিলে প্রকোপ কিছুটা কম থাকলেও মে মাসে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয় ১৬৩ জন। জুনে ৭৩৭ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়, মারা যায় একজন। জুলাইয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয় ১ হাজার ৫৭১ জন, মারা যায় নয়জন। আর আগস্টে হাসপাতালে ভর্তি হয় ৩ হাজার ৫২১ জন, মারা যায় ১১ জন।


একদিনে করোনা শনাক্ত ৬০০ জন ছাড়াল

একদিনে করোনা শনাক্ত ৬০০ জন ছাড়াল
করোনা পরীক্ষার জন্য নমূনা সংগ্রহ। ফাইল ছবি
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

দেশে করোনায় একদিনে নতুন রোগীর সংখ্যা ৬০০ জন ছাড়িয়ে গেছে। এ সময়ে করোনায় একজনের ‍মৃত্যু হয়েছে। সপ্তাহ ব্যবধানে নতুন রোগী শনাক্ত বেড়েছে ২৬ শতাংশের বেশি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬০১ জন। এর আগের দিন নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৫২৭ জন। এর আগে গত ২৮ জুলাই ৬১৮ জন শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিল অধিদপ্তর। 

অধিদপ্তর জানায়, নতুন শনাক্ত হওয়া ৬০১ জনকে নিয়ে সরকারি হিসাবে দেশে করোনা শনাক্ত হলো মোট ২০ লাখ ১৮ হাজার ২১৫ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া একজনসহ দেশে করোনায় মারা গেলেন মোট ২৯ হাজার ৩৪০ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ৫ হাজার ১৯৬টি। নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৫ হাজার ১৭৯টি। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১১ দশমিক ৬০ শতাংশ। আর দেশে প্রথম করোনা শনাক্তের পর এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬১ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ১৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৪৫ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় যিনি মারা গেছেন তিনি পুরুষ, তার বয়স ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে। তিনি ঢাকা বিভাগের একটি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এদিকে অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত সপ্তাহে (১২ সেপ্টেম্বর থেকে ১৮ সেপ্টেম্বর) শনাক্ত রোগীর হার আগের সপ্তাহের (৫ সেপ্টেম্বর থেকে ১১ সেপ্টেম্বর) তুলনায় বেড়েছে। অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী, আগের সপ্তাহে রোগী শনাক্ত হয়েছিল ১ হাজার ৪৭৫ জন। গত সপ্তাহে শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৮৬৯ জন। অর্থ্যাৎ, এক সপ্তাহের ব্যবধানে শনাক্ত রোগীর হার বেড়েছে ২৬ দশমিক ৭ শতাংশ।


১৯ দিনেই ৫ হাজার ছাড়াল ডেঙ্গু রোগী

১৯ দিনেই ৫ হাজার ছাড়াল ডেঙ্গু রোগী
এডিস মশা। ছবি: সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা তার আগের ২৪ ঘণ্টার তুলনায় কিছুটা কমেছে। এই সময়ে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্য ‍হয়নি। তবে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার সংখ্যা চলতি মাসের প্রথম ১৯ দিনেই পাঁচ হাজার ছাড়িয়ে গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩৯২ জন। আগেরদিন এ সংখ্যা ছিল ৩৯৯ জন।

কন্ট্রোল রুমের তথ্যমতে, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ওই ৩৯২ জনের মধ্যে রাজধানীর হাসপাতালগুলোয় ভর্তি হয়েছেন ২৫৩ জন। আর ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৩৯ জন। বর্তমানে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১ হাজার ৪৮৩ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার ৫০টি সরকারি-বেসরকারি হাপসাতালে আছেন ১ হাজার ১০২ জন। বাকি ৩৮১ জন অন্যান্য বিভাগের হাসপাতালে। চলতি বছরে এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১১ হাজার ৫৬৯ জন। চলতি মৌসুমে এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৪৫ জন।

কন্ট্রোল রুম জানাচ্ছে, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ৩৯২ জনকে নিয়ে চলতি মাসের প্রথম ১৯ দিনে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা বেড়ে ৫ হাজার ৩৮৮ জন হয়েছে। আর মোট ৪৫ মৃত্যুর ২৪ জনই মারা গেছেন চলতি মাসে।

কন্ট্রোল রুমের তথ্যানুযায়ী, গত জানুয়ারিতে ১২৬ জন রোগী ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও এপ্রিলে প্রকোপ তুলনামূলক কম ছিল। মে মাসে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয় ১৬৩ জন। জুনে রোগীর সংখ্যা প্রায় তিনগুণের বেশি হয়, ৭৩৭ জন। এ মাসে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে চলতি মৌসুমের প্রথম একজনের মৃত্যুর খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। জুলাইয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয় ১ হাজার ৫৭১ জন, মারা যায় নয়জন। আর আগস্টে হাসপাতালে ভর্তি হয় ৩ হাজার ৫২১ জন, মারা যায় ১১ জন।


করোনায় নতুন শনাক্ত ১৪১

করোনায় নতুন শনাক্ত ১৪১
করোনা পরীক্ষার জন্য নমূনা সংগ্রহ। ফাইল ছবি
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৪১ জনের। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হওয়া ১৪১ জনকে নিয়ে দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ২০ লাখ ১৭ হাজার ৮৭ জন হলো।

করোনাতে আক্রান্ত হয়ে  গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৮৪ জন। তাদের নিয়ে এখন পর্যন্ত করোনাতে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৯ লাখ ৬০ হাজার ৩৩১ জন। 

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১ হাজার ৪৬০টি। রোগী শনাক্তের হার ৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ। দেশে এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬১ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ১৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৫ শতাংশ।


ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু
এডিস মশা। ছবি: সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

মাঝে একদিন হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমলেও গত ২৪ ঘণ্টায় রোগী সংখ্যা আবার বেড়েছে। সেই সঙ্গে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আরও দুজনের ‍মৃত্যু হয়েছে। তারা দুইজনই ঢাকা মহানগরের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে আরও ৩৮১ জন। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ১৬৪ জন। 

কন্ট্রোল রুম জানায়, নতুন ভর্তি হওয়া ৩৮১ জনের মধ্যে রাজধানীর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩০২ জন। ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৭৯ জন।

বর্তমানে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১ হাজার ৪৯৩ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার ৫০টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে আছেন ১ হাজার ১০৩ জন। অন্যান্য বিভাগের হাসপাতালে আছেন ৩৯০ জন।

চলতি বছরে এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১০ হাজার ৭৭৭ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া দুজনসহ এবারের মৌসুমে ডেঙ্গুতে মারা গেলেন মোট ৪৪ জন। তাদের মধ্যে চলতি মাসের প্রথম ১৭ দিনেই মারা গেছেন ২২ জন।

কন্ট্রোল রুমের তথ্যানুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ৩৮১ জনকে নিয়ে চলতি মাসের প্রথম ১৭ দিনে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা সাড়ে ৪ হাজার ছাল। এই মাসে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪ হাজার ৫৯৬ জন।

কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারিতে ১২৬ জন রোগী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। যদিও ফেব্রুয়ারি ও মার্চে প্রকোপ বেশ কমে আসে। ওই দুই মাসে ২০ জন করে রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়। এপ্রিলে হাসপাতালে ভর্তি হয় ২৩ জন রোগী। এরপরই বাড়তে থাকে রোগী সংখ্যা, মে মাসে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয় ১৬৩ জন। পরের মাস অর্থ্যাৎ জুনে  রোগী সংখ্যা প্রায় তিনগুণের বেশি হয়, ৭৩৭ জন। এ মাসেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যুর খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, মারা যায় একজন।

জুলাইয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয় ১ হাজার ৫৭১ জন, মারা যায় নয়জন। আর আগস্ট মাসে হাসপাতালে ভর্তি হয় তিন হাজার ৫২১ জন আর মারা যায় ১১ জন।


করোনা শনাক্তের হার ফের ১০ শতাংশের বেশি

করোনা শনাক্তের হার  ফের ১০ শতাংশের বেশি
করোনার নমূনা সংগ্রহ। ছবি: ফাইল ছবি
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

টানা চারদিন করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৪০০ জনের ওপর থাকার পর তা কিছুটা কমেছে। তবে শনাক্তের হার আবার ১০ শতাংশ ছাড়িয়েছে। এদিকে করোনায় আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে দেশে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর শুক্রবার এসব তথ্য জানিয়েছে। অধিদপ্তরের তথ্যমতে, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সময়ে ৩ হাজার ৩৪০টি নমূনা পরীক্ষা করে ৩৬৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার শনাক্ত হয় ৪৩৮ জন। তার আগে গত বুধবার ৪০২ জনের, মঙ্গলবার ৪৩৫ জনের এবং সোমবার ৪২১ জনের করোনা শনাক্তের তথ্য জানায় অধিদপ্তর।

নতুন শনাক্ত হওয়া ৩৬৩ জনকে নিয়ে দেশে সরকারি হিসেবে করোনা শনাক্ত হলো ২০ লাখ ১৬ হাজার ৯৪৬ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া দুজনকে নিয়ে দেশে করোনায় মোট মৃত্যু বেড়ে দাঁড়াল ২৯ হাজার ৩৩৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নমূনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তে হার ১০ দশমিক ৮৭ শতাংশ। আগের দিন বৃহস্পতিবার এই হার ছিল ৮ দশমিক ৯০ শতাংশ। তার আগের দিন বুধবার শনাক্তের হার ছিল ৮ দশমিক আট দশমিক ৪১ শতাংশ।

এর আগে গত ১৩ সেপ্টেম্বর নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৫৫ শতাংশে ওঠে। ২৩ জুলাইয়ের পর সেদিনই প্রথম দেশে করোনা শনাক্তের হার ১০ শতাংশ ছাড়ায়।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া দুজনের মধ্যে পুরুষ একজন, নারী একজন। তাঁরা দুজনই ঢাকার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।