আপডেট : ৬ ডিসেম্বর, ২০২২ ২১:০০
চীনকে অগ্রাহ্য করে তাইওয়ানে অস্ট্রেলীয় আইনপ্রণেতা দল
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

চীনকে অগ্রাহ্য করে তাইওয়ানে অস্ট্রেলীয় আইনপ্রণেতা দল

চীনের আপত্তি অগ্রাহ্য করে তাইওয়ানে গেছেন এক দল অস্ট্রেলীয় আইনপ্রণেতা। তাইওয়ানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

তাইওয়ানের মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানান, অস্ট্রেলীয় পার্লামেন্টের আইনপ্রণেতাদের দলটি তাইপেতে পৌঁছেছে। এই সফরকালে তাইওয়ান ও অস্ট্রেলিয়ার পারস্পরিক স্বার্থের বিস্তৃত বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। মুখপাত্র আরও বলেন, অস্ট্রেলিয়ান পার্লামেন্ট তাইওয়ানের প্রতি খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ। ক্যানবেরার সঙ্গে তাইপের সম্পর্ক শক্তিশালী ও বৈচিত্র্যময়।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, বেইজিং-ক্যানবেরা সম্পর্ককে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেই অস্ট্রেলীয় আইনপ্রণেতা দলটি পাঁচ দিনের সফরে তাইওয়ান এসেছে। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ইতিমধ্যেই এই সফরের বিরুদ্ধে কড়া প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। বেইজিং জানায়, অস্ট্রেলিয়ার উচিত ‘এক চীন নীতি’র প্রতি সম্মান দেখানো। তাইওয়ানের স্বাধীনতাকামীদের প্রতি ভুল বার্তা দেয়া অস্ট্রেলিয়ার বন্ধ করা উচিত। এদিকে চীনা রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম গ্লোবাল টাইমস বলেছে, তাইওয়ানের স্বাধীনতাপন্থিদের সমর্থন করে অস্ট্রেলিয়া আগুন নিয়ে খেলছে।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি অ্যালবানিজ দেশটির সংবাদমাধ্যমে জানান, আইনপ্রণেতাদের সফর কোনো সরকারি সফর নয়। ছয়জনের দলটিতে মধ্য-বাম ক্ষমতাসীন লেবার পার্টির পাশাপাশি বিরোধী লিবারেল পার্টি ও ন্যাশনাল পার্টির আইনপ্রণেতারাও রয়েছেন। অস্ট্রেলিয়া ‘এক চীন’ নীতিকেই সমর্থন করে বলে অ্যালবানিজ জানান।

তাইওয়ান চীনের অত্যন্ত স্পর্শকাতর একটি ইস্যু। স্বশাসিত দ্বীপটিকে নিজেদের বিচ্ছিন্ন অংশ বলে মনে করে বেইজিং। তাইওয়ানকে নিজের বাগে আনতে প্রয়োজনে বল প্রয়োগেও পিছপা হবে না বলে চীন সরকার হুঁশিয়ারি দিয়েছে।