সোমবার, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

লস অ্যাঞ্জেলেসে হামলাকারী বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

সাদা গাড়িটি থেকে বন্দুকধারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড
২৩ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৫:৪৮
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের লস অ্যাঞ্জেলেস কাউন্টিতে হামলাকারীকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। হু চান ট্রান নামে ৭২ বছর বয়সী ওই ব্যক্তিকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। খবর বিবিসির।

লস অ্যাঞ্জেলেস কাউন্টির শেরিফ রবার্ট লুনা জানান, হামলাকারীকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একটি সাদা গাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় তার কাছ থেকে অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া গাড়িটিতে কিছু প্লেট পাওয়া যায়। পুলিশের ধারণা সেগুলো চুরি করা প্লেট ছিল।

স্থানীয় সময় গত শনিবার রাত প্রায় সাড়ে ১০টার দিকে লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে ১১ কিলোমিটার পূর্বে মন্টেরে পার্ক শহরের স্টার বলরুম ড্যান্স স্টুডিওতে ওই হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় অন্তত ১০ জন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহতের খবর পাওয়া যায়।

আরও এক স্টুডিওতে হামলার চেষ্টা
বন্দুকধারীর মরদেহ উদ্ধারের পর বিস্তারিত জানাতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে রবার্ট লুনা জানান, হু চান ট্রান নামে ওই ব্যক্তি আরও বেশি হত্যাকাণ্ড ঘটানোর চেষ্টা করেছিলেন।

রবার্ট লুনা বলেন, স্টার বলরুম ড্যান্স স্টুডিওতে হামলার প্রায় ৩০ মিনিট পর ওই ব্যক্তি আরও একটি স্টুডিওতে হামলার চেষ্টা চালান। নিকটবর্তী শহর আলহাম্বরার একটি নাচের স্টুডিওতে যান। তবে সেখানে ঢোকার পর দুই ব্যক্তি তাকে বাধা দেয়ায় পরাস্ত হয়ে সেখান থেকে ফিরে যান ট্রান।

ভয়াবহ এই হত্যাকাণ্ডের প্রায় ১২ ঘণ্টা পর স্থানীয় সময় রোববার দুপুর ১টার দিকে মন্টেরে পার্ক শহরের ৪৮ কিলোমিটার দূরে একটি সন্দেহভাজন সাদা ভ্যানে তল্লাশি চালানোর প্রস্তুতি নেয় পুলিশের বিশেষ ইউনিট (সোয়াট)। এ সময় ভেতর থেকে গুলির শব্দ পাওয়া যায়। পরে গাড়িটির স্টিয়ারিং হুইলে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ওই ব্যক্তির মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

শেরিফ জানান এ ঘটনায় এশীয় বংশোদ্ভূত ওই ব্যক্তি একাই জড়িত ছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পর্যটন শহর মন্টেরে পার্কে জাঁকালো আয়োজনে চান্দ্র নববর্ষ বা লুনার ইয়ার উদ্‌যাপনে আগে থেকেই জড়ো হন হাজারও মানুষ। সেই জনাসমাগমের মধ্যেই হামলাটি ঘটল। তবে এই হামলার কোনো কারণ এখনো জানাতে পারেনি পুলিশ।

এ ঘটনায় গুরুতর আহত অন্তত সাতজন এখনোও হাসপাতালে রয়েছেন। হামলার ঘটনার পর ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, গুলির পর ঘটনাস্থলে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য উপস্থিত হয়েছেন।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসকে জানান, তিনজন লোক দৌড়ে একটি রেস্তোরাঁয় ঢোকেন। এ সময় তারা দ্রুত দরজা বন্ধ করার তাগিদ দিয়ে বলতে থাকেন, একজন ব্যক্তি মেশিন গান নিয়ে বাইরে ছুটছে।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রায়ই এ ধরনের বন্দুকধারীর হামলার ঘটনা ঘটে। কোনো কোনো ঘটনায় সন্ত্রাসের সম্পৃক্ততা থাকলেও কোনো কোনো ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত আক্রোশের জের উদ্ঘাটন করেন তদন্তকারীরা।


আমেরিকার আকাশে ‘চীনের নজরদারি বেলুন’

বেলুনটি ভূপাতিত করার নির্দেশনা আসতে পারে ভেবে এফ-২২ যুদ্ধবিমানও প্রস্তুত করে রাখা হয়েছিল। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ১৫:৪৬
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

আমেরিকার আকাশে কয়েক দিন ধরে ঘুরছে একটি রহস্যময় বেলুন। মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের কর্মকর্তাদের দাবি, ‘এটি চীনের নজরদারি বেলুন।’ গত বুধবার পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য মন্টানার উপরে বেলুনটি উড়তে দেখা গেছে। কিন্তু চাইলেও বেলুনটি নিয়ে এখনই কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছে না আমেরিকা। খবর বিবিসির।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রহস্যময় বেলুনটি সম্পর্কে চীনের বিরুদ্ধে আমেরিকা নজরদারির অভিযোগ তুললেও চীনের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। পুরো বিষয়টি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে জানানো হয়েছে।

বিবিসি জানায়, প্রথমে বেলুনটি গুলি করে ভূপাতিত করার কথা ভাবা হয়েছিল। পরে সে সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়। তবে বেলুনটি বর্তমানে কোথায় অবস্থান করছে, সে বিষয়ে কিছুই জানাননি কর্মকর্তারা।

বেলুনটি শনাক্ত হওয়ার পর প্রতিরক্ষা সচিব লয়েড অস্টিন এবং মার্কিন জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফের চেয়ারম্যান জেনারেল মার্ক মিলিসহ শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তারা হুমকি পর্যালোচনা করতে বুধবার বৈঠক করেন। এতে সিদ্ধান্ত হয়, বেলুনটি গুলি করে ভূপাতিত করা হবে না। ভূপাতিত করা হলে মাটিতে থাকা সাধারণ মানুষের ওপর এটির ধ্বংসাবশেষ আছড়ে পড়তে পারে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, হোয়াইট হাউস থেকে বেলুনটি ভূপাতিত করার নির্দেশনা আসতে পারে ভেবে এফ-২২ যুদ্ধবিমানও প্রস্তুত করে রাখা হয়েছিল।

ওই প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিষয়টি ওয়াশিংটন ডিসি এবং বেইজিংয়ে তাদের দূতাবাসে চীনা কর্মকর্তাদের জানিয়েছে।

মন্টানা আমেরিকার কম ঘনবসতিপূর্ণ রাজ্য। দেশটির যে তিনটি পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র সাইলো ফিল্ড রয়েছে, সেগুলোর একটি ওই রাজ্যের মালমস্ট্রম বিমান বাহিনী ঘাঁটিতে। কর্মকর্তাদের ধারণা, রহস্যময় বেলুনটি আমেরিকার গুরত্বপূর্ণ অবকাঠামোগুলোর ওপর দিয়ে উড়ে উড়ে তথ্য সংগ্রহ করছিল।

তবে এখন এটি মার্কিন গোয়েন্দাদের নজরদারিতে থাকায় বড় কোনো নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই বলেও জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। এ ছাড়া যে উচ্চতায় যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ চলাচল করে সেই উচ্চতা থেকে উপরে অবস্থান করছে বেলুনটি। ফলে উড়োজাহাজ চলাচলেও কোনো ঝুঁকি নেই।


৩০ বছর পর আবারও সলোমন দ্বীপপুঞ্জে মার্কিন দূতাবাস

সলোমন দ্বীপপুঞ্জের রাজধানী হোনিয়ারাতে মার্কিন দূতাবাসের সামনে কর্মকর্তারা। ছবি: দ্য গারডিয়ান
আপডেটেড ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ০৮:৩৪
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

সলোমন দ্বীপপুঞ্জে আবারও দূতাবাস খুলেছে আমেরিকা। গত বুধবার বিষয়টি জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন। চীনকে মোকাবিলা করতে ৩০ বছর পর আবার এই দূতাবাস খোলা হয়েছে বলে দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

সলোমনে দূতাবাস চালুর পর এক ঘোষণায় ব্লিংকেন বলেন, ‘বিশ্বের যেকোনো অংশের চেয়ে প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জসহ ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল ২১ শতকে বিশ্বের গতিপথকে বদলে দিতে বেশি ভূমিকা রাখবে।’

এই মার্কিন কূটনীতিক গত বছর ওই অঞ্চলে সফরের সময় প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপরাষ্ট্রে একটি কূটনৈতিক মিশন খোলার পরিকল্পনা ঘোষণা করেছিলেন। স্টেট ডিপার্টমেন্ট সলোমনদের সঙ্গে আন্তর্জাতিক সহযোগিতাকে আরও বিস্তৃত এবং গভীর করার ইচ্ছা পোষণ করেছিল।

সলোমনে এর আগে আমেরিকার দূতাবাস ছিল ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত।

বুধবার এক বিবৃতিতে ব্লিঙ্কেন বলেন, আমেরিকার পক্ষ থেকে সলোমন দ্বীপপুঞ্জের সরকারকে জানানো হয়েছে, গত ২৭ জানুয়ারি থেকে রাজধানী হোনিয়ারাতে নতুন দূতাবাসের কার্যক্রম দাপ্তরিকভাবেই শুরু হয়ে গেছে।

দ্য গার্ডিয়ান বলছে, গত বছর সলোমন দ্বীপপুঞ্জের সঙ্গে একটি নিরাপত্তা চুক্তি করার পর ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে বেইজিংয়ের সামরিক উচ্চাকাঙ্ক্ষা সম্পর্কে ওয়াশিংটন এবং তার মিত্রদের মধ্যে উদ্বেগের মধ্যে মার্কিন পদক্ষেপটি এল।


বয়স লুকিয়ে স্কুলে ভর্তি, ২৯ বছরের নারী গ্রেপ্তার

ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ দেখা দেয় স্কুলটির শিক্ষার্থীদের মধ্যে। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২৭ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৫:১৩
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বয়স লুকিয়ে স্কুলে ভর্তি হলেন এক নারী। সহপাঠীদের সঙ্গে মিলেমিশে ক্লাস করলেন, তাদের সঙ্গে আড্ডা দিলেন, রীতিমতো খোশ গল্পে মেতে উঠলেন। কিন্তু প্রথমে কেউই টের পাননি।

চার দিন পর জানা গেল ওই নারীর বয়স ২৯ বছর। এমনকি ভর্তির সময় দেয়া কাগজপত্রও সব জাল। পরে স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাকে গ্রেপ্তার করে।

ঘটনাটি আমেরিকার নিউ জার্সি অঙ্গরাজ্যের একটি হাই স্কুলের। গ্রেপ্তার ওই নারীর নাম হাইজেয়ং শিন। তার বিরুদ্ধে নিউ ব্রান্সউইক হাই স্কুলে ভর্তির জন্য একটি জাল নথি ব্যবহারের অভিযোগ আনা হয়েছে।

বিবিসি জানায়, গত মঙ্গলবার স্থানীয় শিক্ষা বোর্ডের সভায় বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। সভায় নিউ ব্রান্সউইক পাবলিক স্কুলের জেলা সুপারিনটেনডেন্ট অব্রে জনসন এ তথ্য জানান।

নিউ ব্রান্সউইক পুলিশ বলছে, স্কুলে ভর্তিতে ভুয়া কাগজপত্র দেয়ার অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিবিসি জানায়, বয়স লুকিয়ে হাই স্কুলে প্রাপ্তবয়স্ক ভর্তি হওয়ার ঘটনা এটিই প্রথম নয়। ব্রায়ান ম্যাককিনন নামে এক ব্যক্তি ১৯৯৩ সালে গ্লাসগোর নিকটস্থ একটি হাই স্কুলে ভর্তি হন। তখন তার মূল বয়স ৩০ বছর হলেও নিজেকে ১৭ বছর বয়সী কানাডিয়ান বলে দাবি করেন। পুরো এক বছর তিনি ওই স্কুলে পড়েন। পরে একটি সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তার আসল পরিচয় ফাঁস হয়ে যায়। ম্যাককিননের ঘটনাটি বিশ্বব্যাপী আলোচিত হয়। এমনকি ২০২২ সালে এ নিয়ে ডকুমেন্টারিও বানানো হয়।

বিষয়:

ডিভোর্স দেয়ায় স্ত্রী-সন্তানসহ ৭ জনকে হত্যা করে আত্মহত্যা

বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন চলাকালে কান্নায় ভেঙে পড়েন হত্যাকাণ্ডের শিকার পরিবারের স্বজন দুই নারী। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ৬ জানুয়ারি, ২০২৩ ১৫:১০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

স্ত্রী ডিভোর্স দেয়ায় ৭ জনকে হত্যা করে নিজের ওপর গুলি চালিয়েছেন এক ব্যক্তি। যুক্তরাষ্ট্রের ইউটাহ অঙ্গরাজ্যের এনোক শহরে এমন ঘটনা ঘটেছে। গত বুধবার বিকেলে একটি বাড়ি থেকে ওই আটজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। খবর বিবিসির।

শহরটির কর্মকর্তারা গত বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, মাইকেল হাইট নামে ৪২ বছর বয়সী এক ব্যক্তি তার স্ত্রী তৌশা (৪০), শাশুড়ি গেইল আর্ল (৭৮) এবং পাঁচ সন্তানকে গুলি করে হত্যা করেন। পরে মাইকেল নিজের ওপর গুলি চালিয়ে আত্মহত্যা করেন। নিহত সন্তানদের মধ্যে তিন কন্যার বয়স যথাক্রমে ১৭, ১২ ও ৭ বছর। আর দুই ছেলের বয়স ৭ ও ৪ বছর। তাদের নাম প্রকাশ করেননি কর্মকর্তারা।

গণমাধ্যমে এ ঘটনার বর্ণনা দেয়ার সময় শহরটির মেয়র জেফরি চেস্টনাটসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদেরও আবেগপ্রবণ হয়ে পড়তে দেখা যায়। কর্মকর্তারা জানান, মাইকেলের স্ত্রী গত ২১ ডিসেম্বর ডিভোর্সের আবেদন করেন। এরপরই এমন ঘটনা ঘটেছে।

এনোক সিটির ম্যানেজার রব ডটসন বলেন, বুধবার স্থানীয় সময় ৪টার দিকে পুলিশ তাদের মরদেহ খুঁজে পায়। প্রত্যেকের শরীরেই গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে।

ইউটাহ রাজ্যের গভর্নর স্পেন্সার কক্স এ ঘটনায় শোক প্রকাশ করে টুইট করেছেন। নির্মম এই হত্যাকাণ্ডে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেনও শোক প্রকাশ করেছেন।


শীতঝড়ে বিপর্যস্ত উত্তর আমেরিকা, ৩৮ প্রাণহানি

শীতঝড়ে বিপর্যস্ত উত্তর আমেরিকা। ছবি: বিবিসি
আপডেটেড ২৬ ডিসেম্বর, ২০২২ ১৩:৩৮
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

শীতকালীন ঝড়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে উত্তর আমেরিকা। এ ঝড়ে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় এখন পর্যন্ত ৩৮ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। স্থানীয়দের ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়ে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে এ ঝড় স্বাভাবিক হতে আরও কয়েকদিন সময় লাগবে। খবর বিবিসির।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বলছে, যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে অন্তত ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা নিউইয়র্কের বুফালো শহরে।

এদিকে কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়া প্রদেশে বরফঢাকা রাস্তায় বাস উল্টে চারজনের মৃত্যু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নজিরবিহীন এই শীতকালীন ঝড়ের পরিধি কানাডা থেকে দক্ষিণের রিও গ্র্যান্ডে পর্যন্ত বিস্তৃত।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে, এ ঝড় স্বাভাবিক হতে আরও কয়েকদিন সময় লাগবে। স্থানীয়দের ঘরে থাকতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

ঝড়ের কারণে হাজার হাজার ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। ফলে অনেকেই বড়দিনে তাদের পরিবারের কাছে যেতে পারেননি।

রোববার নিউ ইয়র্কের গভর্নর ক্যাথি হোচুল সাংবাদিকদের বলেছেন, ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ ঝড়ের কবলে পড়েছে বুফালো।

শহরটির স্থানীয় বাসিন্দা তিনি। বলেন, মনে হচ্ছে বুফালোয় যুদ্ধ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তাঘাট এবং রাস্তার পাশে থেমে থাকা গাড়িগুলোর অবস্থাও ভয়াবহ। বাসিন্দারাও দুর্ভোগে পড়েছেন। তাদের জীবন বিপন্ন হওয়ার মতো অবস্থা।

এরি কাউন্টিতে ১২ জনের মরদেহ পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে কেউ কেউ গাড়িতে এবং রাস্তার পাশে তুষারের স্তূপে মৃত অবস্থায় পড়েছিলেন।

এদিকে পশ্চিম যুক্তরাষ্ট্রের মন্টানা রাজ্যের তাপমাত্রা মাইনাস ৫০ ফারেনহাইটে নেমে গেছে।

কানাডার অন্টারিও এবং কুইবেক প্রদেশ ঝড়ের ধাক্কা বহন করছে। ঝড়ের কারণে রোববার কুইবেকে প্রায় এক লাখ ২০ হাজার মানুষ বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। বিদ্যুৎ সংযোগ পুরোপুরি ঠিক হতে বেশ কয়েকদিন লাগতে পারে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।


ইউক্রেনের পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র: বাইডেন

আপডেটেড ২২ ডিসেম্বর, ২০২২ ১২:৩৮
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

রাশিয়ার সঙ্গে ইউক্রেনের যুদ্ধ শুরুর পর এই প্রথম বিদেশ সফর হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। এ ছাড়া মার্কিন কংগ্রেসেও ভাষণ দিয়েছেন।

সাক্ষাতে জো বাইডেন রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ যতদিন থাকবে, যুক্তরাষ্ট্র ততদিন ইউক্রেনের পাশে থাকবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন। খবর বিবিসির।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থানীয় সময় বুধবার সাক্ষাৎ শেষে বাইডেন ও জেলেনস্কি যৌথ সংবাদ সম্মেলন করেন। এ সময় জেলেনস্কিকে বাইডেন বলেন, ‘আপনি একা নন। আন্তর্জাতিক জোটকে একসঙ্গে রাখার বিষয়ে আমরা বিন্দুমাত্র চিন্তিত নই।’ এ সময় বাইডেন ইউক্রেনের সহায়তার জন্য ২ বিলিয়ন ডলারের একটি নতুন প্যাকেজ নিশ্চিত করেছেন। একইসঙ্গে আরও ৪৫ বিলিয়ন ডলার দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করে বাইডেন বলেন, ‘এই নিষ্ঠুর যুদ্ধ বন্ধ করার কোনো ইচ্ছে নেই ভ্লাদিমির পুতিনের।’

এ সময় জেলেনস্কি ইউক্রেনকে সমর্থনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউক্রেনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মিত্র হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যেই মানবিক, আর্থিক এবং নিরাপত্তা সহায়তার জন্য ৫০ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। যা অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় অনেক বেশি।

বৈঠকের পর ৪৪ বছর বয়সী জেলেনস্কি মার্কিন কংগ্রেসের একটি যৌথ অধিবেশনে ভাষণ দেন। যখন মঞ্চে উঠেন তখন মার্কিন আইনপ্রণেতারা তাকে দাঁড়িয়ে স্বাগত জানান।

এ সময় জেলেনস্কি বলেন, ‘ইউক্রেন কখনোই আত্মসমর্পণ করবে না। আমাদের কাছে কামান রয়েছে। আমাদের আরও অস্ত্রের প্রয়োজন।’ বলেন, ‘ইউক্রেন এখনো সমস্ত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে আছে। আগামী বছর যুদ্ধ একটি মোড় নিতে পারে।’


ট্রাম্পের বিরুদ্ধে চারটি ফৌজদারি অভিযোগ

যুক্তরাষ্ট্রে কংগ্রেসের আইনপ্রণেতাদের একটি কমিটি ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে চারটি ফৌজদারি অভিযোগ গঠনের সুপারিশ করেছে। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২০ ডিসেম্বর, ২০২২ ১৭:১২
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রে কংগ্রেসের আইনপ্রণেতাদের একটি কমিটি বহুল আলোচিত ক্যাপিটল হিলে সহিংসতার ঘটনায় দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে চারটি ফৌজদারি অভিযোগ গঠনের সুপারিশ করেছে।

বিবিসি জানায়, ডেমোক্র্যাটিক নেতৃত্বাধীন কমিটি ট্রাম্পকে বিচারের মুখোমুখি করতে বিচার বিভাগকে সর্বসম্মতভাবে ভোট দিয়েছে। তারা ট্রাম্পের সাবেক সহযোগী হোপ হিকসের একটি নতুন ভিডিও ক্লিপও প্রচার করেছে। ট্রাম্প গত বছর নির্বাচনে পরাজয় মেনে নিতে অস্বীকার করলে হোপ তাকে সতর্ক করেছিলেন। সেই সঙ্গে তদন্তকারীদের সহযোগিতা না করায় ট্রাম্পের মেয়ে এবং হোয়াইট হাউসের সাবেক উপদেষ্টা ইভাঙ্কা ট্রাম্পের কড়া সমালোচনা করেছে কমিটি।

এদিকে কোনো অন্যায় করার অভিযোগ অস্বীকার করে ট্রাম্প এক বিবৃতিতে কংগ্রেসের তদন্ত কমিটিকে ‘ক্যাঙ্গারু কোর্ট’ বলে উপহাস করেছেন।

২০২১ সালের ৬ জানুয়ারি ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটল হিলে অবস্থিত মার্কিন পার্লামেন্ট ভবনে ট্রাম্পের হাজারও সমর্থক নজিরবিহীন হামলা চালায়। তারা মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের পরাজয় মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানায়। জো বাইডেনের প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতির আনুষ্ঠানিকতায় বাধা সৃষ্টি করার চেষ্টা করেন তারা। ক্যাপিটল হিলে সহিংসতার ঘটনায় ইতিমধ্যে ৯০০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।

কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের নির্বাচিত কমিটি ক্যাপিটল হিলের সহিংসতার ঘটনা নিয়ে প্রায় ১৮ মাস তদন্ত চালিয়েছে। কমিটি গত সোমবার এক চূড়ান্ত বৈঠকের পর ট্রাম্পের বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগের সুপারিশ করে। এগুলো হলো বিদ্রোহকে প্ররোচিত করা, সহযোগিতা করা, সাহায্য কিংবা অনুকূল পরিবেশ তৈরি কর। দাপ্তরিক কাজে বাধা দেয়া। যুক্তরাষ্ট্রকে প্রতারণার ষড়যন্ত্র। মিথ্যা বিবৃতি দিতে ষড়যন্ত্র করা।

বিবিসি জানায়, মার্কিন বিচার বিভাগের প্রসিকিউটররা ইতিমধ্যে ট্রম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনার বিষয়টি বিবেচনা করছেন। তবে তাদের কংগ্রেস কমিটির সুপারিশ অনুসরণ করতে হবে না। এদিকে বিচার বিভাগের মুখপাত্র ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কংগ্রেস কমিটির সুপারিশ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

কংগ্রেসের তদন্ত কমিটির কর্মকাণ্ড ‘প্রতীকী’ বলা চলে। তবে কমিটির চেয়ারম্যান বেনি থম্পসন প্রস্তাবিত অভিযোগগুলোকে ‘বিচারের রূপরেখা’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। মিসিসিপির ডেমোক্র্যাট সদস্য থম্পসন বলেন, ‘যদি আমরা আইন ও গণতন্ত্রের দেশ হিসেবে টিকে থাকতে চাই, তাহলে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে দেয়া যাবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্বাস ভেঙে গেলে আমাদের গণতন্ত্রও ভেঙে পড়বে। ডোনাল্ড ট্রাম্প বিশ্বাস ভেঙেছেন।’

কংগ্রেসে তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন মেরিল্যান্ডের ডেমোক্র্যাট সদস্য জেমি রাসকিন। তিনি বলেন, ‘এমন বিদ্রোহ যুক্তরাষ্ট্রের কর্তৃত্বের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। এটি একটি গুরুতর ফৌজদারি অপরাধ, যা সংবিধানেই উল্লেখ করা হয়েছে।’ কংগ্রেসের তদন্ত কমিটিতে সাতজন ডেমোক্র্যাট এবং দুজন রিপাবলিকান সদস্য রয়েছেন। তারা গত সোমবার প্রাথমিকভাবে ১৬১ পৃষ্ঠার কার্যনির্বাহী সারাংশ প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয় যে, জনগণের ইচ্ছাকে নস্যাৎ করতে ক্যাপিটল হিলে সহিংসতার আগে তা প্ররোচিত করা এবং সহিংসতা চলাকালে ট্রাম্প ‘বিভিন্ন পর্যায়ে ষড়যন্ত্র’ করেছেন।


প্রথমবারের মতো নারী প্রেসিডেন্ট পেলো পেরু

দিনা বলুয়ার্তে। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ৮ ডিসেম্বর, ২০২২ ১৫:৩১
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

প্রথমবারের মতো নারী প্রেসিডেন্ট পেল পেরু। সংসদ ভেঙে দেয়ার চেষ্টার দায়ে অভিশংসিত হয়েছেন পেড্রো কাস্টিলো। গত বুধবার অভিশংসিত হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই নাটকীয়ভাবে তার জায়গায় সমাসীন হলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট দিনা বলুয়ার্তে। খবর বিবিসির।

এর আগে ওইদিনই কাস্টিলো ঘোষণা দেন কংগ্রেসের পরিবর্তে একটি ‘ব্যতিক্রমী জরুরি সরকার’ গঠন করা হবে।

কিন্তু আইনপ্রণেতারা তা উপেক্ষা করেন এবং জরুরি বৈঠকে তাকে অভিশংসিত করেন। এরপর তাকে আটক করা হয় এবং বিদ্রোহের অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়।

প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর ৬০ বছর বয়সী আইনজীবী বলুয়ার্তে বলেছেন, তিনি ২০২৬ সালের জুলাই পর্যন্ত এই পদে থাকবেন। প্রেসিডেন্ট হিসেবে কাস্টিলোর মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ছিল ওই সময়ে।

শপথ গ্রহণের পর বক্তৃতাকালে দেশকে আঁকড়ে ধরে থাকা সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে একটি রাজনৈতিক যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানান বলুয়ার্তে। বলেন, ‘একটু বিরতি দরকার, দেশকে উদ্ধার করার জন্য সময় চাই।’

বুধবারের ঘটনাগুলো নাটকীয়ভাবে শুরু হয়েছিল যখন প্রেসিডেন্ট কাস্টিলো জাতীয় টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন।

বামপন্থী কাস্টিলো তার ডানপন্থী প্রতিদ্বন্দ্বী কেইকো ফুজিমোরিকে পরাজিত করে গত বছরের জুনে নির্বাচিত হন। সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। অবশ্য এটি তাকে ক্ষমতাচ্যুত করার একটি চক্রান্তের অংশ বলে দাবি করেছিলেন কাস্টিলো।


যুক্তরাষ্ট্রের মাউনা লোয়াতে আবারও অগ্ন্যুৎপাত

ছবি: ভিডিও থেকে নেয়া
আপডেটেড ২৯ নভেম্বর, ২০২২ ১৩:০১
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বিশ্বের বৃহত্তম সক্রিয় আগ্নেয়গিরি মাউনা লোয়াতে আবারও অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছে। প্রায় ৪০ বছর পর গত রোববার স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ১১টার দিকে লাভা উদগীরণ শুরু হয়। খবর বিবিসির।

যুক্তরাষ্ট্রের দ্বীপ রাজ্য হাওয়াইয়ের এই আগ্নেয়গিরিতে এর আগে সর্বশেষ লাভা উদগীরণ হয় ১৯৮৪ সালে। সে সময় প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপটির সবচেয়ে জনবহুল শহর হিলোর পাঁচ মাইল জুড়ে লাভা ছড়িয়ে পড়েছিল।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লাভা প্রবাহ বেশিরভাগই এখনো এর ক্যালডেরায় (আগ্নেয়গিরির চূড়ার ফাঁপা অংশ) রয়েছে। তবে বাসিন্দাদের সতর্ক করা হয়েছে এবং ছাই ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি সম্পর্কে আগেই সতর্ক করা হয়েছিল।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক পরিষেবা সংস্থা (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, যেকোনো সময় পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটতে পারে।

তবে জরুরি বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, এ ঘটনায় এখনো স্থানীয়দের সরিয়ে নিতে কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি। এ ছাড়া আগ্নেয়গিরিটি এখন যে অবস্থায় আছে, তাতে লোকজনের ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশঙ্কা নেই।

লাভা উদগীরণ শুরু হওয়ার আগে রোববার ওই এলাকায় এক ডজনেরও বেশিবার ভূমকম্পন অনুভূত হয়।

ইউএসজিএস বলছে, অগ্ন্যুৎপাত যদি ক্যালডেরা অতিক্রম করে বাইরে আসে, তাহলে লাভার প্রবাহ দ্রুত নিচের দিকে নামা শুরু হতে পারে। সেক্ষেত্রে স্থানীয়দের জন্য এটি বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।

অতীতের ঘটনাগুলি পর্যালোচনা করে ধারণা করা হচ্ছে, অগ্ন্যুৎপাতের প্রাথমিক পর্যায়গুলি খুব গতিশীল হতে পারে এবং লাভা প্রবাহের অবস্থান ও গতি দ্রুত পরিবর্তিত হতে পারে।

১৮৪৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত মাউনা লোয়ায় অন্তত ৩৩টি অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটেছে। দুই হাজার বর্গমাইল এলাকাজুড়ে বিস্তৃত মাউনা লোয়ার চূড়া সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১৩ হাজার ৬৭৯ ফুট উপরে।


বাইডেনের ৮০তম জন্মদিন আজ

মার্কিন ইতিহাসে সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জন্মদিন আজ। এর আগে হোয়াইট হাউসে কোনো প্রেসিডেন্টের কেক-এ ৮০টি মোমবাতি স্থান পায়নি। তবে আরও একবার তাকে নির্বাচনে দাঁড়াতে দেখা যাবে কি না, এমন প্রশ্ন হেসেই উড়িয়ে দিয়েছেন বাইডেন। ৮১তে পা দেয়া সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ এই প্রেসিডেন্ট শুধু বলেছেন, ‘আমাকে দেখবেন।’ কারণ, আগামী ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে এখনো তিনি বেশ শক্ত অবস্থানে।

নিজের ৮০তম জন্মদিন দিয়ে রসিকতা করে বাইডেন বলেন, ‘আমি এমন একটা বয়সে পৌঁছেছি যে, সেটা আমার মুখ দিয়েই বেরুচ্ছে না।’

এক বছর আগে বিস্তারিতভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, বাইডেনের শরীরের ছোটখাটো কিছু অসুস্থতা থাকলেও তিনি তার দায়িত্ব পালনের জন্য পুরোপুরি উপযুক্ত। হালকা-পাতলা গড়নের প্রেসিডেন্ট বাইডেন ধূমপান বা মদ্যপান করেন না এবং শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকতে তিনি নিয়মিত শরীরচর্চা করেন। ১৯৮৮ সালে মস্তিষ্কের টিউমার অপসারণে অস্ত্রোপচারের পর থেকে তার বড় ধরনের কোনো স্বাস্থ্যগত উদ্বেগ ছিল না।

২০২০ সালে ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয় একটি সমীক্ষা প্রকাশ করে, যেখানে জো বাইডেনকে ‘সুপার এজারদের’ মধ্যে তালিকাভুক্ত করা হয়। অর্থাৎ যারা আর্থসামাজিক, জীবনধারা এবং জেনেটিক কারণে গড় আয়ুর চেয়ে বেশি দিন বাঁচে। সে অনুযায়ী গবেষকরা বাইডেনের তাত্ত্বিক আয়ু নির্ধারণ করেন প্রায় ৯৭ বছর।

তবে চিকিৎসাব্যবস্থা অনেক এগিয়ে গেলেও প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ছোটখাটো সীমাবদ্ধতাগুলো কাটাতে পারেনি। আগে থেকেই জো বাইডেনের তোতলামির প্রবণতা ছিল। আর বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সেটি এখন আরও বেড়েছে। আবার বার্ধক্যের কারণে দেখা গেছে, প্রায়ই তিনি অনেকের নাম ও বিভিন্ন তথ্য ভুলে যাচ্ছেন। এ ছাড়া সিঁড়িতে ওঠার সময় প্রায়ই হোঁচট খাওয়ার বিষয়টিও গণমাধ্যমগুলো বেশ ফলাও করেই প্রচার করেছে। এসব বিষয়ের দিকে আঙুল উঠিয়ে বিরোধী শিবিরের রাজনীতিকরা প্রায়ই বাইডেনের প্রেসিডেন্ট থাকার মতো সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি রসিকতাও করেন বেশ।

তবে এসব কিছু ছাপিয়ে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ ও ৮৬ বছর পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিষয়ে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করতেই দেখা গেছে বেশির ভাগ সময়।

এদিকে প্রেসিডেন্টের জন্মদিন উদ্‌যাপনের বিষয়ে হোয়াইট হাউস থেকে কোনো পরিকল্পনার কথা জানানো হয়নি। কারণ, গতকাল শনিবারই ছিল বাইডেনের নাতনির বিয়ে। জো বাইডেনের ছোট ছেলে হান্টার বাইডেনের মেয়ে নাওমি বাইডেনের (২৮) বিয়ে হয় পিটার নীলের (২৫) সঙ্গে। আর তাদের বিয়ের মঞ্চ হোয়াইট হাউসের দক্ষিণ দিকের খোলা জায়াগায় সাজানো হয়েছিল সাদা গোলাপ ও অন্যান্য ফুল দিয়ে।

বিষয়:

ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টির হাতে প্রতিনিধি পরিষদের নিয়ন্ত্রণ

ফ্লোরিডার মার-এ-লাগো ক্লাবে ডোনাল্ড ট্রাম্প সমর্থকরা। ছবি: বিবিসি
আপডেটেড ১৭ নভেম্বর, ২০২২ ১০:০৩
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস তথা প্রতিনিধি পরিষদে জয় নিশ্চিত করেছে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান। তবে উচ্চকক্ষ সিনেটে এখনো এগিয়ে রয়েছে ক্ষমতাসীন জো বাইডেনের ডেমোক্রেটিক পার্টি। খবর বিবিসির।

গত ৮ নভেম্বর এই নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫ আসনের নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে হলে কমপক্ষে ২১৮টি আসনে জয় প্রয়োজন, সেটি পেয়েছে রিপাবলিকান পার্টি। নিম্নকক্ষে এখন পর্যন্ত ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ২১১টি আসনে জয় পেয়েছে। এদিকে ১০০ আসনের সিনেটে জয় পেতে ৫০ আসন নিশ্চিত করেছে ডেমোক্র্যাটরা। আর রিপাবলিকান পার্টি পেয়েছে ৪৯ আসন।

এর মাধ্যমে ২০১৮ সালের পর জো বাইডেনকে হারিয়ে আবারও নিম্নকক্ষের নিয়ন্ত্রণ নিতে যাচ্ছেন রিপাবলিকানরা।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা দিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এটি হবে প্রেসিডেন্ট পদের জন্য তার তৃতীয় দফার চেষ্টা। ফ্লোরিডার পামবিচে ট্রাম্পের নিজস্ব ক্লাব মার-এ-লাগোয় ওই ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

ট্রাম্প বলেন, ‘এখান থেকেই আমেরিকার প্রত্যাবর্তন শুরু হলো। আমাদের দেশকে আমাদেরই বাঁচাতে হবে।’

ওই বক্তব্য দেয়ার কিছুক্ষণ আগেই প্রেসিডেন্ট পদের প্রার্থী হিসাবে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ইলেকশন কমিশনে তিনি কাগজপত্র জমা দেন। সেই সঙ্গে তিনি তহবিল সংগ্রহের একটি অ্যাকাউন্টও চালু করেছেন।


২০২৪ সালে নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদে লড়ার ঘোষণা ট্রাম্পের

ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১৭ নভেম্বর, ২০২২ ১০:০৭
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

২০২৪ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিলেন দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মঙ্গলবার রাতে কয়েকশ সমর্থকের উপস্থিতিতে ট্রাম্প এ ঘোষণা দেন বলে সিএনএন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

ফ্লোরিডার বাসভবনে জড়ো হওয়া সমর্থকদের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, ‘আমেরিকার প্রত্যাবর্তন এখনই শুরু হচ্ছে। এটি শুধু একটি প্রচারণা নয়, দেশকে বাঁচানোই এর মূল উদ্দেশ্য।’

সমর্থকদের কাছে ভোট চেয়ে সাবেক এই প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমি আপনাদের কাছে ভোট ও সমর্থন চাচ্ছি। যদি সফল হই আমরা সব অশুভ শক্তিকে ছিন্নভিন্ন করে দেব। আমরা নিজেদের জন্য, আমাদের সন্তানদের জন্য এবং আগত প্রজন্মের জন্য স্বাধীনতার গৌরব প্রকাশ করব।’

রিপাকলিকান পার্টির প্রার্থী হিসেবে প্রেসিডেন্ট পদে লড়বেন সাবেক একই প্রেসিডেন্ট। ইতিমধ্যে দেশটির ফেডারেল নির্বাচন কমিশনের কাছে এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিয়েছেন ট্রাম্প।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণাকালে ট্রাম্প তৃতীয়বারের মতো প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার আভাস দিয়েছিলেন।

২০১৬ সালে রিপাবলিকান দল থেকে প্রার্থী হয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হন ট্রাম্প। এরপর ২০২০ সালে নির্বাচনে দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডেমোক্রেটিক পার্টির জো বাইডেনের কাছে হেরে যান ট্রাম্প।


banner close