শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২২

প্রায় ২০০ তিমির মৃত্যু যে কারণে

প্রায় ২০০ তিমির মৃত্যু যে কারণে
ছবি: সংগৃহীত
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত

অস্ট্রেলিয়ার তাসমানিয়া রাজ্যের একটি সৈকতে প্রায় দুই শ পাইলট তিমির মৃত্যু নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। স্থানীয় উদ্ধারকর্মীরা গত বৃহস্পতিবার জানান, আটকে পড়া ২৩০টি তিমির মধ্যে কেবল ৩০টি জীবিত ছিল।

এতগুলো তিমি কী কারণে সেখানে আটকা পড়েছিল, আর তাদের সুরক্ষার জন্য কী কী ব্যবস্থা নেয়া যেত, সেসব নিয়ে প্রাণী গবেষকরা অনুসন্ধানে নেমেছেন।

বার্তা সংস্থা এএফপি নিউজিল্যান্ডের মাসেই ইউনিভার্সিটির তিমি বিশেষজ্ঞ ক্যারেন স্টকিনের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে এ বিষয়ে একটি ব্যাখ্যামূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়, বিভিন্ন কারণে তিমি সৈকতে আটকা পড়তে পারে। প্রাকৃতিক কারণেও এটা হয়ে থাকে। যেমন: মহাসাগরের তলদেশের আকৃতি। পাইলট তিমি ও বিভিন্ন প্রজাতির ছোট ডলফিনগুলো প্রায়ই গণহারে আটকা পড়ে, বিশেষত দক্ষিণ গোলার্ধে। তাসমানিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের গোল্ডেন বে অঞ্চলে আগেও এমন দেখা গেছে। আর উত্তর গোলার্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কেপ কড উপসাগর এবং ম্যাসাচুসেটসে এমন ঘটতে দেখা যায়।

সাগরের যেসব অংশে মানুষের চলাচল বেশি, সেসব স্থানে জাহাজের যাতায়াত এবং রাসায়নিক দূষণও তুলনামূলক বেশি হয়ে থাকে। এমন এলাকায় তিমিসহ অন্যান্য সামুদ্রিক প্রাণীর একযোগে সৈকতে আটকা পড়ার ঝুঁকিও বেশি। পাশাপাশি প্রাণীগুলোর মধ্যে ছড়িয়ে পড়া অসুখ-বিসুখের কারণেও গণহারে আটকা পড়ে মৃত্যু হতে পারে।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে এমন ঘটেছে কি না সে বিষয়ে মন্তব্য করার মতো পর্যাপ্ত গবেষণা এখনো হয়নি বলে জানিয়েছেন স্টকিন। একসঙ্গে এত তিমির মৃত্যুর এমন ঘটনা আটকানোর উপায় আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, সত্যিকার অর্থে নেই। বহুবিধ কারণে এমন ঘটে থাকে। তাই একক পন্থায় সমাধানের উপায় নেই। তবে আবহাওয়া সম্পর্কে আরও বিশদভাবে জানতে পারলে হয়তো কোনো প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা খুঁজে বের করা সম্ভব হবে।  


অস্ট্রেলীয় উপদেষ্টাসহ সু চির ৩ বছরের সাজা

অস্ট্রেলীয় উপদেষ্টাসহ  সু চির ৩ বছরের সাজা
মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত নেত্রী অং সান সু চি।
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত

মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত নেত্রী অং সান সু চি এবং তার সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা অস্ট্রেলীয় অধ্যাপক শন টার্নেলকে তিন বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। সরকারি গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে গতকাল বৃহস্পতিবার দেশটির একটি আদালত তাদের এ সাজা দেন।

বিবিসি জানায়, অস্ট্রেলীয় সরকার শন টার্নেলকে সাজা দেয়ার ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেনি ওং বলেন, মিয়ানমারের জান্তা সরকার অন্যায্যভাবে শন টার্নেলকে ১৯ মাসের বেশি সময় ধরে আটক করে রেখেছে। তার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ অস্ট্রেলীয় সরকার বরাবর  প্রত্যাখ্যান করে আসছে।

অস্ট্রেলীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী টার্নেলকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, টার্নেলকে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে অস্ট্রেলিয়া সব চেষ্টা চালাবে।

ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর থেকে মিয়ানমারের ৭৭ বছর বয়সী নেত্রী সু চির বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করেছে জান্তা সরকার। ইতিমধ্যে বিভিন্ন মামলায় তার ২০ বছরের বেশি কারাদণ্ডের আদেশ হয়েছে। গতকাল তাকে আরও তিন বছরের সাজা দেয়া হয়। তার বিরুদ্ধে আরও কয়েকটি মামলা চলমান রয়েছে। সব মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে তার প্রায় ২০০ বছরের সাজা হবে।

২০২১ সালে সু চির সরকারকে উৎখাত করে জান্তা সরকার। তখন সু চি ও তার সরকারের নেতা-কর্মীসহ অনেক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে সামরিক জান্তা। অনেকের কারাদণ্ড হয়েছে। কারাদণ্ডের পাশাপাশি কয়েক জনের ফাঁসিও হয়েছে।  অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল অস্ট্রেলিয়ার পরিচালক টিম ও’কনর বলেছেন, বেআইনি আটকাদেশ ও গোপন বিচার মিয়ানমারে ‘নিয়মিত ঘটনা’ হয়ে দাঁড়িয়েছে।


ফ্লোরিডায় বন্যা, বিদ্যুৎ বিপর্যয়

ফ্লোরিডায় বন্যা, বিদ্যুৎ বিপর্যয়
শক্তিশালী এই ঘূর্ণিঝড়ে ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় বন্যা ও বিদ্যুৎ বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
  • হারিকেন ইয়ানের তাণ্ডব

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা উপকূলে আছড়ে পড়েছে হারিকেন ইয়ান। শক্তিশালী এই ঘূর্ণিঝড়ে ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় বন্যা ও বিদ্যুৎ বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। তবে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে কোনো হতাহতের খবর মেলেনি।

বিবিসি জানায়, গত বুধবার স্থানীয় সময় বেলা ৩টার দিকে ফ্লোরিডার কায়ো কোস্টা দ্বীপের কাছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ইয়ান আঘাত হানে। ঘণ্টায় ২৪১ কিলোমিটার বেগে বাতাসসহ ক্যাটাগরি ৪ মাত্রার শক্তি নিয়ে হারিকেনটি উপকূলীয় এলাকা তছনছ করে দেয়। দমকা হাওয়ায় স্থানীয় একটি হাসপাতালের ছাদ উড়ে গেছে, রাস্তায় গাছপালা উপড়ে পড়েছে। মুষলধারায় বৃষ্টিপাতে অনেক এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। যানবাহন, গাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে।

আল-জাজিরা জানায়, হারিকেন ইয়ানের তাণ্ডবে ফ্লোরিডার বেশির ভাগ এলাকায় বিদ্যুৎ বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। ১১ লাখ বাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্তরক্ষী কর্তৃপক্ষ জানায়, প্রতিকূল আবহাওয়ায় ফ্লোরিডা উপকূলের কাছে ছোট একটি নৌকা ডুবে ২০ অভিবাসনপ্রত্যাশী নিখোঁজ রয়েছেন। চারজন কিউবার নাগরিক সাঁতরে তীরে উঠতে পেরেছেন এবং তিনজনকে উপকূলীয় রক্ষীরা উদ্ধার করেছে। হারিকেন ইয়ান এর আগে কিউবায় তাণ্ডব চালায়। সেখানে দুজনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। এ ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে বিদ্যুৎকেন্দ্র ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় দ্বীপ দেশটিতে বিদ্যুৎ বিপর্যয় দেখা দিয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, ফ্লোরিডায় গতকাল বৃহস্পতিবার হারিকেন ইয়ানের দাপট অনেকটা স্তিমিত হয়ে আসে। হারিকেনটি এ দিন ক্যাটাগরি-১ মাত্রার শক্তিতে পরিণত হলেও মুষলধারায় বর্ষণ অব্যাহত রয়েছে।

হারিকেন ইয়ানের প্রভাবে দক্ষিণ-পশ্চিম ফ্লোরিডায় সবচেয়ে বড় বন্যা দেখা দিয়েছে বলে অঙ্গরাজ্যটির গভর্নর রন ডিস্যান্টিস জানান। তিনি বলেন, বন্যাকবলিত এলাকায় উদ্ধার অভিযান চালাতে সাত হাজার ন্যাশনাল গার্ড সেনা প্রস্তুত রয়েছে।

বিবিসি জানায়, হারিকেন ইয়ান এখন ফ্লোরিডা হয়ে উত্তরদিকে অগ্রসর হচ্ছে। উত্তর-পূর্ব ফ্লোরিডায় অবস্থিত জ্যাকসনভিল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ গতকাল বৃহস্পতিবার নির্ধারিত সব ফ্লাইট বাতিল করে দেয়। আজ শুক্রবার হারিকেন ইয়ান জর্জিয়া, সাউথ ক্যারোলাইনা অঙ্গরাজ্যে আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ফ্লোরিডাসহ জর্জিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, সাউথ ক্যারোলাইনা এবং ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।


ইউক্রেনীয় চার অঞ্চল রাশিয়ার অংশ হচ্ছে

ইউক্রেনীয় চার অঞ্চল রাশিয়ার অংশ হচ্ছে
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনের চারটি অঞ্চল রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত করে নিতে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ছবি: টুইটার
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত

বিতর্কিত গণভোটে জয়ের পর ইউক্রেনীয় চার অঞ্চল আনুষ্ঠানিকভাবে একীভূত করতে যাচ্ছে রাশিয়া। আজ শুক্রবার চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে অঞ্চলগুলো রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত করবে ক্রেমলিন। এদিকে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা চাপানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছে।

আগামী ৪ অক্টোবর রাশিয়ার পার্লামেন্ট চার অঞ্চল একীভূত করার প্রস্তাব বিবেচনা করবে। আগামী ৭ অক্টোবর রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ৭০তম জন্মদিনের তিন দিন আগে প্রস্তাবটি রুশ পার্লামেন্টে উঠছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, মস্কোর রেড স্কয়ারে বড় পর্দা টানানো হয়েছে। বিলবোর্ডে দোনেৎস্ক, লুগানস্ক, জাপোরিঝিয়া, খেরসন-রাশিয়া লেখা শোভা পাচ্ছে। অন্যদিকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি আন্তর্জাতিক সহায়তা পেতে যুক্তরাজ্য, কানাডা, জার্মানি, তুরস্কের নেতাদের সঙ্গে ফোনে কথা বলে যাচ্ছেন। ইউক্রেনীয় ভূখণ্ড রাশিয়ার যুক্ত করার প্রতিবাদ জানাতে তিনি সবাইকে রাজপথে মিছিল করার আহ্বান জানান।

যুদ্ধের আট মাসের মাথায় দখলকৃত ভূখণ্ডগুলো একীভূত করতে যাচ্ছে রাশিয়া। চলতি মাসে ইউক্রেনীয় বাহিনীর অগ্রযাত্রায় বিচলিত হয়ে রুশপন্থিরা দোনেৎস্ক, লুগানস্ক, জাপোরিঝিয়া ও খেরসনে তড়িঘড়ি করে গণভোটের আয়োজন করে। গত ২৩ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই কথিত গণভোট সম্পন্ন হয়। চার অঞ্চল ইউক্রেনের মোট ভূখণ্ডের প্রায় ১৫ শতাংশ। গত বুধবার রুশপন্থিরা গণভোটে রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দেয়ার পক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠ রায়ের দাবি করে। কিয়েভ ও পশ্চিমা দেশগুলো শুরু থেকে গণভোটকে রাশিয়ার ধোঁকাবাজি বলে তীব্র নিন্দা করে আসছে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র জানায়, বিতর্কিত গণভোট ঘিরে রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেন, রাশিয়ার ওপর আরও চাপ বাড়াতে আমরা মিত্র ও অংশীদার দেশগুলোর সঙ্গে কাজ করে যাব। 

ইইউ জোট মস্কোর ওপর অষ্টমবারের মতো একগুচ্ছ নিষেধাজ্ঞা আরোপের  প্রস্তুতি নিচ্ছে। রয়টার্স জানায়, মস্কোর ওপর নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়ন করতে চাইলে ইইউর ২৭ দেশের জোটকে আগে নিজস্ব বাধাগুলো অতিক্রম করতে হবে। যুদ্ধের পর থেকে মস্কোর ওপর গ্যাসের নির্ভরশীলতা ইউরোপীয় দেশগুলোকে বিপাকে ফেলছে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানান, শুক্রবার ক্রেমলিনে একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ইউক্রেনীয় চার অঞ্চলকে রাশিয়ার অন্তর্ভুক্ত করা হবে। গ্র্যান্ড ক্রেমলিন প্রাসাদের জর্জিয়ান হলে একটি চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান হবে। রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন এ উপলক্ষে বক্তব্য দেবেন বলেও পেসকভ জানান।

রাশিয়া যে চারটি ইউক্রেনীয় অঞ্চল একীভূত করতে যাচ্ছে তার মধ্যে দোনেৎস্ক রয়েছে। দোনেৎস্কের ৪০ শতাংশ ভূমি এখনো ইউক্রেনীয় বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তাই পুরো অঞ্চল দখল করা না অবধি রুশ বাহিনীকে সেখানে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে বলে ক্রেমলিনের মুখপাত্র পেসকভ জানান। রয়টার্স জানায়, দোনেৎস্কে এখনো রাশিয়া ও ইউক্রেনীয় বাহিনীর মধ্যে তুমুল লড়াই হচ্ছে। রাশিয়ার হামলায় গত বুধবার অঞ্চলটিতে ছয়জন নিহত হওয়ার খবর মিলেছে। ইউক্রেনীয় বাহিনী গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে জানায়, সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় রাশিয়া সামরিক ও বেসামরিক অবস্থান লক্ষ্য করে তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র, আট দফা বিমান হামলা, সালভো সিস্টেমের রকেট দিয়ে ৮২ বার হামলা করেছে।


ভারতে ইসলামী সংগঠন পিএফআই নিষিদ্ধ

ভারতে ইসলামী সংগঠন পিএফআই নিষিদ্ধ
ছবি : সংগৃহীত
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত



দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ভারতের সরকার দেশটিতে পপুলার ফ্রন্ট অব ইন্ডিয়া (পিএফআই) নামের একটি ইসলামী সংগঠনের যাবতীয় কার্যক্রম গতকাল বুধবার নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সন্ত্রাসবাদে জড়িত থাকার অভিযোগে পিএফআই ও তার বেআইনি অঙ্গসংগঠনগুলো পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ থাকবে।

রয়টার্স জানায়, এ বিষয়ে সংগঠনটির তরফ থেকে কোনো বক্তব্য মেলেনি। তবে পিএফআইয়ের ছাত্র সংগঠন ক্যাম্পাস ফ্রন্ট অব ইন্ডিয়া (সিএফআই) সরকারের এমন সিদ্ধান্তকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ও অপপ্রচার বলে মন্তব্য করেছে।

পিএফআইয়ের শতাধিক কর্মী-সদস্যকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চলতি মাসে গ্রেপ্তার করেছে। সিএফআইয়ের জাতীয় সম্পাদক ইমরান পি জে বলেন, ‘আমরা একটি হিন্দু জাতির ধারণার বিপক্ষে। আমরা এই বাধাকে জয় করবই। আমাদের আদর্শকে পাঁচ বছর পরে পুনরুজ্জীবিত করব। আর আমাদের ওপর নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে যাওয়ার বিষয়টিও বিবেচনা করব।’

সহিংসতা ও দেশবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে পিএফআই গত মঙ্গলবার একটি বিবৃতি দেয়। ওই দিন বিভিন্ন রাজ্যে সংগঠনটির বিভিন্ন কার্যালয়ে তল্লাশি অভিযান চালোনো হয় এবং বেশ কয়েকজন সদস্যকে আটক করা হয়। ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতকাল পিএফআইকে নিষিদ্ধ করে একটি বিবৃতি দিয়েছে। এতে বলা হয়, সন্ত্রাসবাদ ও তার তহবিল জোগান, উদ্দেশ্যমূলক নৃশংস হত্যাকাণ্ড, সাংবিধানিক কাঠামোকে অস্বীকার প্রভৃতি গুরুতর অপরাধমূলক কাজে পিএফআই ও তার অঙ্গসংগঠনগুলোর জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া গেছে।

১৪০ কোটি মানুষের দেশ ভারতের জনসংখ্যার ১৩ শতাংশ মুসলমান। অনেকে অভিযোগ করেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শাসনামলে মুসলিম সম্প্রদায়কে নানাভাবে কোণঠাসা করে রাখা হয়েছে। মোদির নেতৃত্বে হিন্দু জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) বর্তমানে ভারতের শাসনক্ষমতায় রয়েছে।

তবে বিজেপি মুসলিমদের বিরুদ্ধে কোনো অবস্থান গ্রহণের অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তাদের দাবি, ধর্ম-বর্ণনির্বিশেষে ভারতের সব নাগরিক সরকারি উদ্যোগে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সমাজকল্যাণের সুফল ভোগ করছে।

ভারতে ২০১৯ সালে প্রণীত নাগরিকত্ব আইনে মুসলিমদের প্রতি বৈষম্য রাখার অভিযোগে যে বিক্ষোভ হয়, তাতে পিএফআই সমর্থন দিয়েছিল। আবার চলতি বছর কর্ণাটক রাজ্যে মুসলিম ছাত্রীদের শ্রেণিকক্ষে হিজাব পরার দাবিতে আন্দোলনেও সংগঠনটি সমর্থন দেয়।

সরকারি বিবৃতি অনুযায়ী, পিএফআই ও তার অঙ্গসংগঠন সিএফআই, রিহ্যাব ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন, অল ইন্ডিয়া ইমামস কাউন্সিল, ন্যাশনাল কনফেডারেশন অব হিউম্যান রাইটস অর্গানাইজেশন, ন্যাশনাল উইমেন্স ফ্রন্ট, জুনিয়র ফ্রন্ট, এমপাওয়ার ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন এবং রিহ্যাব ফাউন্ডেশন কেরালার কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সরকার বলছে, বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলোর সঙ্গে পিএফআইয়ের আন্তর্জাতিক যোগসাজশের বেশকিছু উদাহরণ পাওয়া গেছে। পিএফআইয়ের কয়েকজন সদস্য ইসলামিক স্টেটে (আইএস) যোগ দিয়েছে এবং সিরিয়া, ইরাক ও আফগানিস্তানে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়েছে।

সিএফআই নেতা ইমরান বলেন, সরকার পিএফআইয়ের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে জড়িত থাকা বা ইসলামিক স্টেটে যোগদানের মতো বিভিন্ন অভিযোগ আনলেও সেসবের পক্ষে কোনো প্রমাণ দেয়নি।

ভারত গত দুই দশকে কয়েকটি বড় বড় জঙ্গি হামলার শিকার হয়েছে। এসবের বেশির ভাগেই প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানভিত্তিক ইসলামপন্থিরা জড়িত ছিল।

পিএফআই ২০০৬ সালের শেষদিকে ঐক্যবদ্ধ কার্যক্রম শুরু করে এবং পরের বছর দক্ষিণ ভারতের তিনটি সংগঠনের সঙ্গে একত্রিত হয়ে কাজ শুরু করে। তাদের ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, পিএফআই মূলত সামগ্রিক ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে সামাজিক আন্দোলন হিসেবে কাজ করে।


বিক্ষোভ দমাতে সর্বশক্তি প্রয়োগ করা হবে

বিক্ষোভ দমাতে সর্বশক্তি প্রয়োগ করা হবে
বিক্ষোভকারীদের দমাতে টিয়ারগ্যাস ও গুলি ছুড়ছে পুলিশ। জবাবে ইট-পাথর নিক্ষেপ করছে বিক্ষোভকারীরা। ছবি: ডয়চে ভেলে
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
  • ইরানের পুলিশের হুঁশিয়ারি

নারীর পোশাক স্বাধীনতার দাবিতে দুই সপ্তাহ ধরে চলা বিক্ষোভ দমাতে এবার হুঁশিয়ারি দিয়েছে সরকারি নিরাপত্তা বাহিনী। গতকাল বুধবার ইরানের পুলিশ সতর্ক করে জানিয়েছে, তাদের সর্বশক্তি দিয়ে নারী নেতৃত্বাধীন এই বিক্ষোভের মোকাবিলা করবে।

ফার্স বার্তা সংস্থার কাছে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পুলিশের কমান্ড বলেছে, ‘ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের শত্রুরা এবং কিছু দাঙ্গাবাজ যেকোনো অজুহাতে জাতির শৃঙ্খলা, নিরাপত্তা এবং স্বস্তি বিঘ্নিত করতে চাইছে। পুলিশ কর্মকর্তারা তাদের সর্বশক্তি দিয়ে এসব বিপ্লবী ও শত্রুদের ষড়যন্ত্রের বিরোধিতা করবে। একই সঙ্গে দেশের যেকোনো জায়গায় যারা জনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা বিঘ্নিত করবে, তাদের দৃঢ়তার সঙ্গে মোকাবিলা করবে।’

এমন পরিস্থিতিতে গতকাল বুধবার কালো পোশাকে ভারী অস্ত্রে সজ্জিত পুলিশ বাহিনীর কয়েকজন সদস্যকে তেহরানের বহুতল অ্যাপার্টমেন্ট ভবন থেকে বিক্ষোভকারীদের দিকে গুলি ছুড়তে দেখা গেছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থায়নে ফারসি গণমাধ্যম রেডিও ফারদা।

পুলিশের এই বিবৃতির পরই জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসিকে বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে ‘অসম শক্তি’ ব্যবহার না করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। জাতিসংঘ প্রধানের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেছেন, গত সপ্তাহে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের একটি বৈঠকে গুতেরেস প্রেসিডেন্ট রাইসিকে মত প্রকাশের স্বাধীনতা, শান্তিপূর্ণ সমাবেশসহ মানবাধিকারকে সম্মান করার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিতে আহ্বান জানিয়েছিলেন। মুখপাত্র বলেন, ‘বিক্ষোভের সঙ্গে জড়িত নারী ও শিশুসহ ক্রমবর্ধমান মৃত্যুর খবরে আমরা উদ্বিগ্ন।’

হিজাব সঠিকভাবে না পরায় ইসলামি প্রজাতন্ত্রের কঠোর নিয়ম লঙ্ঘনের অভিযোগে তেহরানে গ্রেপ্তার হওয়ার পর ২২ বছর বয়সী কুর্দি নারী মাহসা আমিনির মৃতুতে দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে এই বিক্ষোভ। অসলোভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ইরান হিউম্যান রাইটস আরও জানিয়েছে, বিভিন্ন স্থানে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত অন্তত ৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। অবশ্য সরকারি হিসাবে বলা হচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যসহ ৪১ জনের প্রাণহানি হয়েছে। এ ছাড়া প্রায় ১ হাজার ২০০ বেশি বিক্ষোভকারীকে আটক করেছে পুলিশ। আহত হয়েছে হাজারখানেক মানুষ।