শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

কারাগারে ৬৩ নারীসহ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বন্দি ২১৬২ জন

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড
২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ১৭:৫৯
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ১৭:৪৭

সারা দেশের কারাগারগুলোর কনডেম সেলের সংখ্যা দুই হাজার ৬৫৭। এসব সেলে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বন্দি রয়েছেন দুই হাজার ১৬২ জন। এর মধ্যে পুরুষ বন্দি ২ হাজার ৯৯ জন, নারী ৬৩ জন।

কারা অধিদপ্তরের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার প্রতিবেদনটি বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের হাইকোর্ট বেঞ্চে দাখিল করা হয়। পরে প্রতিবেদনটি দেখে কনডেম সেলের ভেতরে কী কী ব্যবস্থাপনা আছে, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য চেয়ে প্রতিবেদন দিতে বলেছেন আদালত। একইসঙ্গে পরবর্তী আদেশের জন্য ৪ এপ্রিল দিন ঠিক করা হয়েছে।

আদালতে রিটকারীদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন মোহাম্মদ শিশির মনির। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত তিন কয়েদির এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ আদালতের আদেশে এ প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল করা হয়।

গত বছরের ১ নভেম্বর পর্যন্ত তৈরি করা এ প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের জন্য দুই হাজার ৬৫৭টি কনডেস সেলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঢাকা বিভাগে— এক হাজার ৮৪টি। এ বিভাগে মোট বন্দি রয়েছেন ১ হাজার ২৯৫ জন। আর সর্বনিম্ন কনডেম সেল রয়েছে ময়মনসিংহ বিভাগে। ওই বিভাগে ৫৪টি সেলের মধ্যে বন্দি রয়েছেন পাঁচ জন। সেখানে কোনো নারী বন্দি নেই।

দেশের কারাগারগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ সেল রয়েছে হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে। সেখানে এক হাজার সেলে রয়েছেন ৯৫১ জন বন্দি। তবে টাঙ্গাইল, গাজীপুর, রাজবাড়ী, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, জামালপুর, নেত্রকোনা, শেরপুর, সিরাজগঞ্জ, জয়পুরহাট, নীলফামারী, লালমনিরহাট, পঞ্চগড়, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান,মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ, মাগুরা, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা,পটুয়াখালী, ভোলা ও ঝালকাঠীতে কনডেম সেল থাকলেও কোনো বন্দি নেই। অন্যদিকে ঠাকুরগাঁও ও কুড়িগ্রাম জেলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের জন্য নেই আলাদা কোনো সেল।

মৃত্যুদণ্ডাদেশ চূড়ান্ত হওয়ার আগে আসামিকে কনডেম সেলে রাখার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালের ২ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে রিট করেন তিন কয়েদি চট্টগ্রাম কারাগারের কনডেম সেলে থাকা সাতকানিয়ার জিল্লুর রহমান, সিলেট কারাগারে থাকা সুনামগঞ্জের আব্দুল বশির ও কুমিল্লা কারাগারে থাকা খাগড়াছড়ির শাহ আলম। পরে দেশের সব কারাগারে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বন্দি ও কনডেম সেলের সংখ্যাসহ কনডেম সেলের সুযোগ-সুবিধা সংক্রান্ত প্রতিবেদন দিতে বলেন হাইকোর্ট।

আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির জানিয়েছিলেন, বিচারিক আদালতে মৃত্যুদণ্ডাদেশ ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক সাজা কার্যকর করার আইনি কোনো বিধান নেই। মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করতে কয়েকটি আবশ্যকীয় আইনি ধাপ অতিক্রম করতে হয়।

শিশির মনির জানান, প্রথমত, ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৭৪ ধারা অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে হাইকোর্ট বিভাগের অনুমোদন নিতে হয়। একইসঙ্গে ফৌজদারি কার্যবিধির ৪১০ ধারা অনুযায়ী হাইকোর্ট বিভাগে আপিল দায়েরের বিধান রয়েছে। দ্বিতীয়ত, হাইকোর্ট বিভাগ মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখলে সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তি সাংবিধানিক অধিকার বলে আপিল বিভাগে সরাসরি আপিল করতে পারেন। তৃতীয়ত, সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১০৫ অনুযায়ী আপিলের রায়ের বিরুদ্ধে বিভিউ আবেদনের আইনি সুযোগ রয়েছে। সর্বোপরি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সংবিধানের ৪৯ অনুচ্ছেদের অধীনে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাইতে পারেন। রাষ্ট্রপতি ক্ষমার আবেদন নামঞ্জুর করলে তখন মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার আইনি বৈধতা পায় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বাংলাদেশে বিচারিক আদালতে মৃত্যুদণ্ড ঘোষণার পরই সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে নির্জন কনডেম সেলে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে বন্দি রাখা হয়।


যুক্তরাষ্ট্রে অর্থ পাচার ও ঘাতকের বিরুদ্ধে চাই সামাজিক অবরোধ: এবিসিডিআই

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে সামাজিক অবরোধ গড়ে তোলার সংকল্প ব্যক্ত করেছে নিউইয়র্কস্থ ‘আমেরিকা-বাংলাদেশ কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ (এবিসিডিআই)। সংগঠনটি জাতিসংঘ ও কংগ্রেসে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বিভ্রান্তিকর তথ্য সরবরাহকারীদের বিরুদ্ধেও প্রতিরোধের সংকল্প ব্যক্ত করেছে।

নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে ‘শেফ মহল’ পার্টি হলে গত মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ সংকল্প ঘোষণা করা হয়। অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন এবিসিডিআই সাধারণ সম্পাদক আলী হাসান কিবরিয়া অনু এবং প্রশ্নের জবাব দেন সংগঠনের সভাপতি ড. প্রদীপ রঞ্জন কর, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় নেতা মিথুন আহমেদ, সেবা সংস্থা গ্রিন টাচ-এর নির্বাহী পরিচালক ভিক্টর লিয়াকত এলাহী, এবিসিডিআই কর্মকর্তা মোজাহিদ আনসারী, ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, জাকির হোসেন বাচ্চু প্রমুখ। সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যার সন্দেহভাজন ঘাতক আক্তারুজ্জামান শাহীন যদি যুক্তরাষ্ট্রে আত্মগোপনে থাকে তবে তাকেও পুলিশে সোপর্দ করার সর্বাত্মক চেষ্টা চালানো হবে।

এবিসিডিআই জানায়, বাংলাদেশের এক শ্রেণির আমলা, ব্যাংকার, অ্যাকাডেমিশিয়ান, রাজনীতিক দেশের অর্থ পাচার করে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে রুগ্ণ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। অর্থ আত্মসাৎকারী, এমপি হত্যাকারী, জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর ঘাতক হিসেবে দি তরা যুক্তরাষ্ট্রকে নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে বেছে নিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আজ খুনি, ষড়যন্ত্রকারী, দুর্নীতিবাজ, অর্থ আত্মসাৎকারীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, কানাডায় বেগমপাড়ার বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা সামাজিক আন্দোলনের মতো যুক্তরাষ্ট্রেও প্রতিরোধ রচনা করা হবে পাচারকারী, ষড়যন্ত্রকারী আর ঘাতকদের বিরুদ্ধে। এ জন্য গণমাধ্যমসহ সচেতন দেশপ্রেমিক প্রবাসীদের আন্তরিক সহযোগিতাও প্রত্যাশা করেছে এবিসিডিআই।

এক প্রশ্নের জবাবে এবিসিডিআইয়ের সভাপতি ড. প্রদীপ রঞ্জন কর জানান, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে কর্মরত বাংলাদেশি ট্রুপসের একজন সদস্যও মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো কোনো আচরণে লিপ্ত ছিলেন না।

এ বিষয়টি আমরা সুস্পষ্টভাবে জাতিসংঘ সচিবালয়সহ মার্কিন কংগ্রেসের বিভিন্ন পর্যায়ে অবহিত করেছি। এবিসিডিআই নিজ নিজ জনপ্রতিনিধির সঙ্গে সম্পর্ক জোরাল করার মাধ্যমে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে চলা বাংলাদেশের সঠিক চিত্র সবার কাছে তুলে ধরার জন্য দেশপ্রেমিক প্রবাসীদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানায়।


প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জয়শঙ্করের সাক্ষাৎ

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২১ জুন, ২০২৪ ২১:৫৩
কূটনৈতিক প্রতিবেদক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর। আজ শুক্রবার ভারতের রাজধানী দিল্লির হোটেল তাজ প্যালেসে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নয়াদিল্লিতে পৌঁছানোর পর ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রণধীর জয়সওয়াল বলেন, ‘বাংলাদেশ ভারতের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার ও বিশ্বস্ত প্রতিবেশী। এই সফর দ্বিপক্ষীয় অংশীদারত্বকে আরও জোরদার করবে।’

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২১ ও ২২ জুন ভারত সফর করছেন।

অষ্টাদশ লোকসভা নির্বাচনের পর ভারতে সরকার গঠনের পর এটাই প্রথম দ্বিপক্ষীয় রাষ্ট্রীয় সফর।

সফরকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা ছাড়াও দেশটির প্রেসিডেন্ট দ্রৌপদী মুর্মু ও উপ-রাষ্ট্রপতি শ্রী জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে।

গত ৯ জুন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া আন্তর্জাতিক নেতাদের মধ্যে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বন্যায় পৌনে ৮ লাখ শিশু ক্ষতিগ্রস্ত: ইউনিসেফ

ফাইল ছবি
আপডেটেড ২২ জুন, ২০২৪ ০০:০৫
নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক জরুরি শিশু তহবিল-ইউনিসেফ জানিয়েছে, বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সৃষ্ট বন্যায় ইতোমধ্যে ২০ লাখের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৭ লাখ ৭২ হাজারের বেশি শিশু।

গতকাল শুক্রবার বাংলাদেশে সংস্থাটির প্রতিনিধি শেলডন ইয়েট এক বিবৃতিতে এ তথ্য দেন।

শেলডন ইয়েট বলেছেন, বন্যাদুর্গত এসব শিশুর জন্য জরুরি সহায়তার প্রয়োজন। বন্যার পানি বাড়ার সময় শিশুরাই সবচেয়ে বেশি অরক্ষিত হয়ে পড়ে। ডুবে মারা যাওয়া, অপুষ্টি ও মারাত্মক পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হওয়া, বাস্তুচ্যুতির আতঙ্ক এবং জনাকীর্ণ আশ্রয়কেন্দ্রে নির্যাতনের শিকার হওয়ার ঝুঁকিতে পড়ে শিশুরা।

ইউনিসেফ বন্যাকবলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে জানিয়ে শেলডন ইয়েট বলেন, বাংলাদেশ সরকার ও মাঠপর্যায়ের অংশীদের সঙ্গে সমন্বয় ও অংশীদারিত্বে আমরা গত পাঁচ দিনের মধ্যে প্রায় এক লাখ বন্যাকবলিত মানুষের কাছে নিরাপদ পানি বিতরণ করেছি। ১০ লিটার ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ৩ হাজারের বেশি পানির পাত্র বিতরণ করেছি। পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে গেলে তা মোকাবিলায় আমরা বিভিন্ন গুদাম থেকে জরুরিভিত্তিতে অতিরিক্ত জরুরি সরঞ্জাম আনছি।

ভারী বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদ-নদীর পানি বেড়ে সৃষ্ট বন্যায় নাজেহাল সিলেট, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনার মানুষ। তবে নতুন করে বৃষ্টি না হওয়ায় কমতে শুরু করেছে এসব নদ-নদীর পানি। সিলেটের ১৩টি উপজেলায় ৬৯৮টি আশ্রয়কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৬১ আশ্রয়কেন্দ্রে ২১ হাজার ৭৮৬ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন।

ইউনিসেফের বিবৃতিতে বলা হয়, সিলেট বিভাগে ৮১০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্যার পানিতে ডুবেছে। ৫০০ প্রাথমিক বিদ্যালয় আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। এ ছাড়া প্রায় ১৪০টি কমিউনিটি ক্লিনিক বন্যার পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কঠিন এই সময়ে সম্ভাব্য সহিংসতা নিরসনে এবং আতঙ্ক কাটিয়ে উঠতে শিশুদের সহযোগিতা করতে শিশু সুরক্ষা সমাজকর্মীরা পরামর্শ ও প্রয়োজনীয় সহায়তা দিচ্ছে।

বিষয়:

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ সেনাবাহিনী প্রধানের

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বাসস

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ আজ শুক্রবার ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে তার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

তিনি জাতির পিতা এবং তার পরিবারের সদস্যরাসহ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শাহাদাতবরণকারী সবার রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করেন।

এ সময় সেনাসদরের ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তাসহ সেনাসদস্য এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।


পুলিশকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর সংবাদ প্রকাশে গণমাধ্যমকে সতর্ক থাকার অনুরোধ

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক ও বর্তমান সদস্যদের নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনকে ‘অতিরঞ্জিত রিপোর্ট’ আখ্যা দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন (বিপিএসসি)।

আজ শুক্রবার পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) অতিরিক্ত আইজিপি মো. মনিরুল ইসলাম এবং অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল সই করা বিজ্ঞপ্তিটি গণমাধ্যমে পাঠান হয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার পুলিশ সদর দপ্তর মিলনায়তনে পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের এক সভা হয়। এতে কেউ কেউ এ ধরনের খবর প্রকাশে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিও তোলেন। সভার পরদিন পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশ করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাম্প্রতিক সময়ে গণমাধ্যমে (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া) এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক ও বর্তমান সদস্যদের নিয়ে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত/প্রচারিত অতিরঞ্জিত রিপোর্ট সম্পর্কে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। এ ধরনের আংশিক, উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও ঢালাওভাবে প্রকাশিত/প্রচারিত অতিরঞ্জিত রিপোর্টের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন।

স্বাধীনতা বিরোধী সাম্প্রদায়িক শক্তি এবং গণতন্ত্র ও দেশবিরোধী চক্র কর্তৃক নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড যেমন ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, বোমাবাজি ও পেট্রোল বোমাবাজদের প্রতিহত করার ক্ষেত্রে পুলিশের সফলতার কারণে উক্ত গোষ্ঠী বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীকে প্রতিপক্ষ বিবেচনায় প্রতিনিয়তই পুলিশের বিরুদ্ধে নেতিবাচক সমালোচনায় লিপ্ত। স্বাধীনতা ও দেশবিরোধী চক্র তাদের দোসর বিদেশে পলাতক সাইবার সন্ত্রাসী কর্তৃক ধারাবাহিকভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা ও অতিরঞ্জিত তথ্য প্রকাশ করে পুলিশ কর্মকর্তাদের চরিত্র হননে ব্যস্ত। তাদেরই অনুকরণে ইদানিং কোন কোন গণমাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশের বর্তমান ও প্রাক্তন সদস্য সম্পর্কে উদ্দেশ্য প্রণোদিত মানহানিকর নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ করছে, যা বাংলাদেশ পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার হীন উদ্দেশ্য বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত এ ধরনের রিপোর্টের অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কোন তথ্যসূত্রের উল্লেখ নেই জানিয়ে বলা হয়, তথ্যসূত্রবিহীন বাস্তবতা বিবর্জিত অতি কথিত এ ধরনের রিপোর্টে বাংলাদেশ পুলিশের পেশাদার সদস্যদের মনোবল ক্ষুণ্নের পাশাপাশি পুলিশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার যথেষ্ট অবকাশ রয়েছে। পলাতক সাইবার সন্ত্রাসীদের অনুপ্রেরণায় বাংলাদেশ পুলিশের পেশাদার ভূমিকাকে জনসমক্ষে প্রশ্নবিদ্ধ করে পুলিশকে আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য কতিপয় মিডিয়া অত্যন্ত সচেতনভাবে ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে এক ধরনের কুৎসিত প্রচার যজ্ঞে শামিল হয়েছে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। এছাড়াও কোন কোন মিডিয়া ব্যক্তিগত আক্রোশ ও নিজস্ব স্বার্থ রক্ষায় কোন কোন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অবমাননাকর নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ ও প্রচার করছেন যা সাংবাদিকতার নীতিমালা বিরোধী।

এমতাবস্থায়, কি কারণে, কার উদ্দেশ্য হাসিল এবং কার ম্যানডেট বাস্তবায়নের জন্য কতিপয় মিডিয়া বাংলাদেশ পুলিশের বিরুদ্ধে এ ধরনের কুৎসা রটনায় লিপ্ত- সেই প্রশ্ন উত্থাপন করা অযৌক্তিক নয় বলে উল্লেখ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ পুলিশ দুর্নীতির বিরুদ্ধে সর্বদা “জিরো টলারেন্স”(শূন্য সহনশীলতা) নীতি অনুসরণ করে আসছে। কোন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাকে কোন ধরনের ছাড় দেওয়া হয় না। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থার পাশাপাশি আইনি ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হয়।

আমরা বিশ্বাস করি, গণমাধ্যম সমাজের দর্পণ। গণমাধ্যম কর্তৃক গঠনমূলক সমালোচনাকে আমরা বরাবরই স্বাগত জানাই। কিন্তু গণমাধ্যমে কোন খন্ডিত বা আংশিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদ করতে চাই। গণমাধ্যমে কোন ঘটনার সামগ্রিক চিত্র উঠে আসুক, সত্য উন্মোচিত হোক। গণমাধ্যমের রিপোর্ট হোক সত্যাশ্রয়ী ও বস্তুনিষ্ঠ।

বাংলাদেশ পুলিশ কখনোই গণমাধ্যমের কাছে এ ধরনের অপেশাদারী সাংবাদিকতা প্রত্যাশা করে না। আমরা চাই, সমাজের সকলের ন্যায়সংগত অধিকার সুনিশ্চিত হোক, সমাজ থেকে বঞ্চনা দূর হোক, মানুষের ন্যায়বিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত হোক। আমাদের প্রাণপ্রিয় স্বদেশ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে মর্যাদায় আলোকিত প্রাঙ্গণে উপনীত হোক।’

আরও বলা হয়, জননিরাপত্তা ও জনশৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে এ ধরনের বিভ্রান্তিকর রিপোর্ট প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ জানানো হচ্ছে। ভবিষ্যতে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী সম্পর্কে কোন ধরনের রিপোর্ট প্রকাশের ক্ষেত্রে অধিকতর সর্তকতা অবলম্বন ও সাংবাদিকতার নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণের জন্যও আমরা সনির্বন্ধ অনুরোধ জানাচ্ছি।


ডিএনএ নমুনা দিতে ডরিনকে ডেকেছে কলকাতা সিআইডি

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ভারতের কলকাতায় নিহত ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারের মরদেহের ফরেনসিক প্রতিবেদন পেয়েছে কলকাতার অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। এরপরই ডিএনএ নমুনা দিতে আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিনকে কলকাতায় ডেকেছে তারা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নিহত এমপি আনারের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) আব্দুর রউফ।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার কলকাতা সিআইডির এক কর্মকর্তা ফোন করে ডরিনকে ডিএনএ নমুনা দিতে এক সপ্তাহের মধ্যে কলকাতায় যেতে বলেছেন। আমরা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, ডরিনের ভারতে যাওয়ার ভিসা রয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে আমরা ডিবির একটি টিমের সঙ্গে ভারতে যাব।

এদিকে এমপি আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার ঘটনায় ভারতে ২ জন ও বাংলাদেশে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাংলাদেশে গ্রেপ্তার হওয়া ৫ জনরে মধ্যে ৪ জনই আদালতে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি প্রদান করেছেন। অপর আসামি গ্রেপ্তার ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টু এখন পর্যন্ত আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেননি।

গত ১৩ জুন মিন্টুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে হাজির করেন। শুনানিতে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন মিন্টু।

আদালতকে তিনি জানান, ‘আমি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। এমপি নির্বাচনে মনোনয়ন চাওয়াটাই আমার অপরাধ। ’তিনি গত জাতীয় নির্বাচনে ঝিনাইদহ-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন, বিষয়টি তার জন্য কাল হয়ে দাড়িয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, আনার হত্যাকাণ্ডে গ্রেপ্তার অন্যতম আসামি শিমুল ভূঁইয়ার আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টুর নামও উঠে আসে। আওয়ামী লীগ নেতা বাবুকে জিজ্ঞাসাবাদের সময়ও নাম আসে মিন্টুর। বিভিন্ন তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশ নিশ্চিত হয় আনার হত্যার পেছনে মিন্টুর বড় ধরনের ভূমিকা রয়েছে। এ সংক্রান্ত একাধিক তথ্যও পায় ডিবি। পরে ১১ জুন রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকা থেকে আটক করা হয় মিন্টুকে

প্রসঙ্গত, এমপি আনার গত ১২ মে ভারতে যান। পরদিন ১৩ মে কলকাতার নিউটাউন এলাকার সঞ্জীবা গার্ডেনের একটি ফ্ল্যাটে খুন হন তিনি। ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে ২২ মে। ওইদিন রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় আনারের মেয়ে ডরিন অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যার উদ্দেশ্যে অপহরণ মামলা করেন। পরে কলকাতার ঐ ফ্ল্যাটের সেফটি ট্যাংক থেকে উদ্ধার হওয়া মাংসের টুকরো বা খাল থেকে উদ্ধার করা হাড় ফরেনসিক পরীক্ষা জন্য পাঠানো হয়। প্রাথমিক পরীক্ষায় ঐ হাড় ও মাংস মানুষের বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। সে কারণে আনারকন্য ডরিনকে কলকাতায় ডাকা হয়।

এ ছাড়া ভারতে একটি হত্যা মামলা হয়। দুই দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তদন্তে এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত হিসাবে এ পর্যন্ত ১২ জনের নাম এসেছে।

বিষয়:

‘সিলেট-সুনামগঞ্জে পানি প্রবাহ ঠিক রাখতে সবকিছু করা হবে’

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

সিলেট ও সুনামগঞ্জের পানি প্রবাহ ঠিক রাখতে প্রয়োজনীয় সবকিছু করা হবে বলে জানিয়েছেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক। আজ শুক্রবার সিলেটে সুরমা নদীর পানি পরিদর্শনে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সুরমা নদীর অসমাপ্ত খনন কাজ দ্রুতই শেষ করা হবে। পাশাপাশি কুশিয়ারাসহ সুনামগঞ্জের ২০টি নদী খনন করা হবে। এটি করা হলে নদীগুলো বর্ষা মৌসুমে উজান থেকে নেমে আসা ঢলের পানি বেশি ধারণ করতে পারবে। ফলে ভবিষ্যতে জেলাগুলোর বন্যা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকবে।’

আজ সিলেটের সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি কিছুটা কমলেও এখনও বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নগরীর বিভিন্ন সড়ক থেকে পানি নামতে শুরু করলেও জেলার নিচু এলাকাগুলো এখনো জলমগ্ন রয়েছে। এ ছাড়া, জেলার কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর ও জকিগঞ্জে উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে, উপজেলাগুলোতে সুপেয় পানি ও খাবার সংকট দেখা দিয়েছে। জেলার চারশত আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায় ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ আশ্রয় নিয়েছে।

অপরদিকে, গতকাল থেকে বৃষ্টি না হওয়ায় সুনামগঞ্জের নদ-নদী ও হাওরের পানি কমতে শুরু করেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সুরমা নদীর পানি ২০ সেন্টিমিটার থেকে কমে বিপৎসীমার ৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে শহরের অধিকাংশ সড়ক ও বাসা-বাড়ি থেকে বন্যার পানি নেমে গেছে। তবে, এখনও শহর ও গ্রামের নিম্নাঞ্চলের ঘরবাড়ি ও রাস্তাঘাট প্লাবিত রয়েছে। এদিকে আগামী ২৪ ঘণ্টায় সুনামগঞ্জের বন্যা পরিস্থিতি উন্নতির পূর্বাভাস দিয়েছে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড।

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন ধরে টানা বৃষ্টি ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সিলেট ও সুনামগঞ্জের কয়েকটি নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। কোনো কোনো নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়েও প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে জেলাগুলোর বেশ কয়েকটি উপজেলা প্লাবিত হয়েছে। এতে লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। দুর্গতদের অনেকে উঠেছেন আশ্রয়কেন্দ্রে।

বিষয়:

নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২১ জুন, ২০২৪ ১৭:৪৫

দুই দিনের সফরে জন্য ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী ফ্লাইট আজ শুক্রবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে নয়াদিল্লির পালাম বিমানবন্দরে অবতরণ করে। প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গীদের একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

ভারতে নতুন সরকার গঠনের পর এটিই কোনো বিদেশি প্রধানমন্ত্রীর দ্বিপক্ষীয় সফর। সফরের শুরুতে আজ সন্ধ্যায় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন প্রধানমন্ত্রী। আগামীকাল শনিবার প্রধানমন্ত্রীকে আনুষ্ঠানিক অর্ভ্যথনা জানাবেন নরেন্দ্র মোদি।

পরে মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠক করবেন শেখ হাসিনা। এরপর হায়দরাবাদ হাউসে যাবেন তিনি। এ সময় উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রী সমঝোতা স্মারক ও চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান প্রত্যক্ষ করবেন। এরপর দুই প্রধানমন্ত্রী তাদের বিবৃতি দেবেন।

শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সচিবালয়ে ভারতের উপরাষ্ট্রপতি জগদীপ ধনকড়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এরপর শেখ হাসিনা ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

সেদিন সন্ধ্যা ৬টায় প্রধানমন্ত্রী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে নয়াদিল্লি ত্যাগ করবেন। রাত ৯টায় তিনি ঢাকায় অবতরণ করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

এর আগে আজ দুপুর ২টার দিকে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীরা বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন।


প্রত্যেক প্রবাসীই বিদেশে তার দেশের প্রতিনিধি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২১ জুন, ২০২৪ ১৬:১৪
নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রবাসে শুধু অন্যের প্রতিষ্ঠানে কাজ না করে ব্যবসায়ের মালিকানা অর্জনের উৎসাহ দিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

এসময় তিনি বলেন, ‘প্রত্যেক প্রবাসীই বিদেশে তার দেশের প্রতিনিধি। সে যদি অপরাধ করে, তবে তার দেশের বদনাম হয়। সে কারণে বসবাসের দেশের আইনকানুন মেনে চলা উচিত।’

সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালন ও মহানবির (সা:) রওজা শরীফ জিয়ারত শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মদিনার স্থানীয় একটি হোটেলে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, একজন প্রবাসী যত সহজে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছুতে পারেন, দেশের জেলা আওয়ামী লীগের নেতার পক্ষেও তা সম্ভব হয় না। প্রধানমন্ত্রী প্রবাসীদের জন্য বিশেষ পেনশন স্কিম চালু করেছেন, যার সুবিধা ৫৫ বছর বয়সের মানুষও নিতে পারেন, প্রবাসীদের জন্য অফশোর ব্যাংকিং সুবিধা রয়েছে, যেখানে সহজে ডলার একাউন্টও খোলা যায়।

তিনি আরও বলেন, সৌদি আরবে প্রায় তিরিশ লাখ বাংলাদেশি আছেন, বিশ্বের অনেক দেশের মোট জনসংখ্যাও এর থেকে কম। ৩০ লাখ প্রবাসী বৈধপথে রেমিটেন্স পাঠালে দেশের জন্য তা বড় অবদান। এ বিষয়ে যত্নবান থাকতে হবে।

আওয়ামী যুবলীগ মদিনা শাখার সভাপতি জহিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সৌদি আরবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, জেদ্দায় নিযুক্ত কনসাল জেনারেল মোহাম্মদ নাজমুল হক ও স্থানীয় প্রবাসী বাংলাদেশিরা সভায় যোগ দেন। সভায় ড. হাছান মাহমুদ তার দীর্ঘ প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা ও বিদেশে থাকাকালে দেশের জন্য মনের আকুতি তুলে ধরেন।

কমিউনিটি সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন মদিনা প্রবাসী আনিসুর রহমান পলাশ, রাজু আহমেদ, এ কে এম আসগর আলি, মুসা আব্দুল জলিল, মোহাম্মদ লিটন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, মাহমুদ মিলন, মোশাররফ শিকদার, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোহাম্মদ শাহজাদা প্রমুখ।


নয়াদিল্লির উদ্দেশে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২১ জুন, ২০২৪ ১৬:১৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আমন্ত্রণে দুদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নয়াদিল্লির উদ্দেশে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শুক্রবার দুপুর ২টা ৩ মিনিটের দিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিশেষ ফ্লাইটে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছাড়েন তিনি।

দ্বিপক্ষীয় এ সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠক করবেন। বৈঠক শেষে দুদেশের মধ্যে বেশ কয়েকটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার কথা।

নয়াদিল্লি সময় বিকেল ৪টায় ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক (পালাম) বিমানবন্দরে পৌঁছাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে তাকে ভারত সরকারের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদল ও নয়াদিল্লিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. মোস্তাফিজুর রহমান স্বাগত জানাবেন।

সফরের প্রথম দিন সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সফরকালীন আবাসস্থল হোটেল তাজ প্যালেসে তার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর।

শনিবার (২২ জুন) সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নয়াদিল্লির ফোরকোর্টে রাষ্ট্রপতি ভবনে আনুষ্ঠানিক সংবর্ধনা দেওয়া হবে। সেখানে তাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা ও গার্ড অব অনার দেওয়া হবে।

এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধীর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে রাজঘাট যাবেন। সেখানে তিনি মহাত্মা গান্ধীর সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। পরে তিনি হায়দ্রাবাদ হাউসে যাবেন। সেখানে তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে একান্ত ও দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন।

বৈঠকের পর দুই প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে কয়েকটি সমঝোতা স্মারক ও চুক্তি সই হওয়ার কথা রয়েছে। এরপর দুই প্রধানমন্ত্রী যৌথ সংবাদ বিবৃতি দেবেন। পরে হায়দ্রাবাদ হাউসে শেখ হাসিনা তার সম্মানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দেওয়া রাষ্ট্রীয় মধ্যাহ্নভোজ অংশ নেবেন।

বিকেলে ভারতের উপ-রাষ্ট্রপতি জগদীপ ধনখার কার্যালয়ে তার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হবে। এরপর তিনি পুনরায় ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে যাবেন। সেখানে তিনি ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎ করবেন।

টানা তৃতীয় মেয়াদে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) সরকার গঠনের পর নয়াদিল্লিতে এটিই কোনো সরকারপ্রধানের প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর।

এর আগে নরেন্দ্র মোদীর আমন্ত্রণে গত ৯ জুন বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন শেখ হাসিনা। ১৫ দিনের কম সময়ের মধ্যে এটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দ্বিতীয় সফর।


প্রথম ফ্লাইটে দেশে ফিরলেন ৪১৭ হাজি

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

হজের প্রথম ফ্লাইটে আজ শুক্রবার দেশে ফিরেছেন ৪১৭ হাজি। সকাল ৬টার দিকে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিমান হজ যাত্রীদের নিয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

গত ১৪ জুন মিনায় রাত যাপনের মধ্যদিয়ে চলতি বছরের হজ শুরু হয়। গত বুধবার জামারাতে পাথর নিক্ষেপ করার মধ্যদিয়ে শেষ হয় হজের আনুষ্ঠানিকতা।

৯ মে থেকে ১২ জুন পর্যন্ত সৌদি আরব যাওয়ার ফ্লাইট পরিচালিত হয়েছে ২১৮টি। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস পরিচালিত ফ্লাইট সংখ্যা ১০৬টি, সৌদি এয়ারলাইনস পরিচালিত ফ্লাইট ৭৫টি ও ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস পরিচালিত ফ্লাইট ৩৭টি।

প্রতিবছর বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে লাখ লাখ মানুষ হজ করতে সৌদি আরব যান। চলতি বছর সৌদি আরবসহ অন্যান্য দেশ মিলিয়ে হজে অংশ নিয়েছেন মোট ১৮ লাখ ৩৩ হাজার ১৬৪ জন।

এর মধ্যে বিদেশি রয়েছেন ১৬ লাখ ১১ হাজার ৩১০ জন এবং সৌদি নাগরিক ও দেশটিতে অবস্থানকারী প্রবাসী মিলিয়ে হজে অংশ নিয়েছেন ২ লাখ ২১ হাজার ৮৫৪ জন।

বিষয়:

হজের ফিরতি ফ্লাইট শুরু, আজ ফিরবেন ৪,০৩৭ হাজি

ফাইল ছবি
আপডেটেড ২১ জুন, ২০২৪ ০৮:৫২
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঈদুল আজহার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা। এবার দেশে ফিরছেন হাজিরা। হজের ফিরতি ফ্লাইট শুরু হয়েছে গতকাল বৃহস্পতিবার। এ দিন বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে রাত ৮টা ১০ মিনিটে ৪১৯ জন হাজি দেশে ফিরেছেন। হজ পোর্টালে আইটি হেল্প ডেস্কের প্রতিদিনের বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

ওই বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, আজ শুক্রবার ১০টি ফিরতি হজ ফ্লাইটে দেশে ফিরবেন ৪,০৩৭ জন হাজি। এর মধ্যে রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টার মধ্যে ৪টি ফ্লাইটে ১৫৭৯ জন হাজি দেশে ফিরেছেন। আর সকাল ৭টা থেকে রাত ১২টার মধ্যে ফিরবেন বাকি ২,৪৫৮ জন হাজি।

প্রসঙ্গত এ বছর মোট ৮৫,২২৫ জন হজযাত্রী ও ব্যবস্থাপনা সদস্য হজে যান। তারা ২১৮টি ফ্লাইটে ধারাবাহিকভাবে দেশে ফিরে আসবেন। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ১০৬টি, সৌদি এয়ারলাইনস ৭৫টি ও ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস ৩৭টি এয়ার ফ্লাইট পরিচালনা করে হাজিদের দেশে ফিরিয়ে আনবে। এ বছর হজ অনুষ্ঠিত হয় ১৫ জুন।

গতকাল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের প্রথম ফিরতি ফ্লাইটটি (বিজি৩৩২) রাত ৮টা ১০ মিনিটে

ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। হজ ব্যবস্থাপনা পোর্টালে দেওয়া তথ্যানুযায়ী এই ফ্লাইটে ৪১৯ জন হাজি দেশে ফিরেছেন।

গত শনিবার (১৫ জুন) চলতি বছরের হজ অনুষ্ঠিত হয়। ১২ জিলহজ জামারায় পাথর নিক্ষেপ করার শেষ দিন, হাজিরা পর্যায়ক্রমে ছোট, মধ্যম এবং বড় জামারায় পাথর নিক্ষেপ করার মধ্য দিয়ে শেষ করেন হজের আনুষ্ঠানিকতা।

এবার ৯ মে থেকে ১২ জুন পর্যন্ত সৌদি আরব যাওয়ার ফ্লাইট পরিচালিত হয়েছে ২১৮টি। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস পরিচালিত ফ্লাইট সংখ্যা ১০৬টি, সৌদি এয়ারলাইনস পরিচালিত ফ্লাইট ৭৫টি ও ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস পরিচালিত ফ্লাইট ৩৭টি। এসব ফ্লাইটে সর্বমোট ৮৫ হাজার ২২৫ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে গেছেন।

সরকারি হজ ব্যবস্থাপনা পোর্টালের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর সরকারি মাধ্যমে ৪,৩২৩ জন এবং বেসরকারি মাধ্যমে ৭৮,৮৯৫ জন হজে গেছেন। এদের মধ্যে ঢাকা বিভাগ থেকে ৩২,৫৮০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে ১৬,৩৯২ জন, রাজশাহী বিভাগ থেকে ১১,৮৮৫ জন, রংপুর বিভাগ থেকে ৬,৭১৪ জন, খুলনা বিভাগ থেকে ৬,২২৮ জন, ময়মনসিংহ বিভাগ থেকে ৫,৬২৯ জন, সিলেট বিভাগ থেকে ২,৯১৩ জন এবং বরিশাল বিভাগ থেকে ২,৯১১ জন হজযাত্রী হজে অংশ নেন। এদের মধ্যে এখন পর্যন্ত ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকিরা সুষ্ঠুভাবে হজ সম্পন্ন করেন।


প্রধানমন্ত্রী দ্বিপক্ষীয় সফরে আজ ভারত যাচ্ছেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি
আপডেটেড ২১ জুন, ২০২৪ ০০:০৩
কূটনৈতিক প্রতিবেদক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে আজ নয়াদিল্লি যাচ্ছেন। নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি জোটের টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠনের পর এটি হবে ভারতে কোনো সরকারপ্রধানের প্রথম দ্বিপাক্ষিক সফর। অন্যদিকে টানা চতুর্থ মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর এটিই হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, এই গুরুত্বপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় সফরে দুই দেশের চমৎকার সম্পর্ক আরও দৃঢ় ও এগিয়ে নেওয়ার বার্তা থাকবে। পাশাপাশি অর্থনৈতিক সংকট উত্তরণে পারস্পরিক সহযোগিতা, আঞ্চলিক নিরাপত্তা এবং দুই দেশের মধ্যকার অমীমাংসিত ইস্যুগুলো গুরুত্ব পাবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সফরের সময় উভয় প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে শীর্ষপর্যায়ে একান্ত বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে এবং তারপর প্রতিনিধি পর্যায়ে আলোচনা হবে। সফরকালে উভয় দেশের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও জোরদার করতে বেশ কিছু চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হবে।

এ ছাড়া একটি সম্ভাব্য বাণিজ্য চুক্তি বিষয়ে আলোচনা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। গত এক দশকে শক্তিশালী আঞ্চলিক অংশীদারিত্বের অংশ হিসেবে বেশ কিছু আন্তসীমান্ত উদ্যোগ চালু করা হয়েছে।

এটি ১৫ দিনেরও কম সময়ের মধ্যে ভারতের রাজধানীতে শেখ হাসিনার দ্বিতীয় সফর। তিনি গত ৯ জুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে ছিলেন।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট দুপুর ২টার দিকে শেখ হাসিনা ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করবে বলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে জানানো হয়েছে।

ফ্লাইটটি বিকেল ৪টায় (স্থানীয় সময়) নয়াদিল্লির পালাম বিমানবন্দরে অবতরণ করবে। সন্ধ্যায় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার বাসভবনে সাক্ষাৎ করবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে আগামীকাল শনিবার সকালে রাষ্ট্রপতি ভবনে লাল গালিচা বিছানো হবে। এ সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে অভ্যর্থনা জানাবেন এবং দুই দেশের জাতীয় সংগীত বাজানো হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গার্ড অব অনারও পরিদর্শন করবেন।

এরপর তিনি রাজঘাটে ভারতের জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধীর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। সেখানে তিনি পরিদর্শন বইয়ে স্বাক্ষর করবেন।

শেখ হাসিনা একই দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠক এবং প্রতিনিধি পর্যায়ে আলোচনার জন্য হায়দরাবাদ হাউসে যাবেন।

উভয়েই সমঝোতা স্মারক ও চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান প্রত্যক্ষ করবেন। এরপর দুই প্রধানমন্ত্রী তাদের বিবৃতি দেবেন। তারা হায়দ্রাবাদ হাউসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী আয়োজিত ভোজসভায় যোগ দেবেন।

বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সচিবালয়ে ভারতের উপরাষ্ট্রপতি জগদীপ ধনখারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

সন্ধ্যায় শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতি ভবনে ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

সন্ধ্যা ৬টায় (স্থানীয় সময়) প্রধানমন্ত্রী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে নয়াদিল্লির পালাম বিমানবন্দর থেকে ভারতের রাজধানী ত্যাগ করবেন এবং রাত ৯টায় ঢাকায় অবতরণ করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।


banner close