আপডেট : সোমবার, মে ২৩, ২০২২, ১২:০০ am

রাজধানীতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক
রাজধানীতে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেপ্তার
গ্রেপ্তার নুরুল ইসলাম

রাজধানীর কাকরাইল থেকে স্বামীর হাতে প্রবাসী স্ত্রী হত্যা মামলার প্রধান আসামি স্বামী নুরুল ইসলামকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড একশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। গত রোববার দিনগত রাত ১০টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক মো.মাহফুজুর রহমান দৈনিক বাংলাকে এ তথ্য জানান। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে অধিনায়ক বলেন, ১২ বছর আগে কেরাণীগঞ্জের রেশমা আক্তারকে (২৫) বিয়ে করে একই গ্রামের নুরুল ইসলাম। বিবাহিত জীবনে তাদের একটি পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। পরে জীবিকার তাগিদে রেশমা মধ্যপ্রাচ্যের জর্ডান চলে যায়। জর্ডানে থাকা অবস্থায় তাদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে বিবাদ সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে ৩ মাস আগে জর্ডান থেকে রেশমা তার স্বামী নুরুল ইসলামকে তালাক দেয়।

তিনি আরো বলেন, গত ২৮ এপ্রিল রেশমা জর্ডান থেকে দেশে আসে। সংবাদ পেয়ে নুরুল ইসলাম এসে রেশমা, রেশমার মা ও বোনসহ আত্মীয়-স্বজনদের তালাক হওয়া সত্বেও পুনরায় সংসার করার আকুতি-মিনতি করে। একপর্যায়ে রেশমাসহ সবাই রাজি হয়। গত ১৫ মে থেকে তারা আবারো সংসার শুরু করে রেশমাদের বাড়ীতে অবস্থান করতে থাকে।

গত ১৭ মে সকালে রেশমা ও নুরুল ইসলাম তাদের ছেলেকে মাদ্রাসায় ভর্তি করতে যায়। ফেরার পথে ছেলেকে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়ে তারা দু’জন পাসপোর্টের ফটোকপি করতে যায়। দুপুরে পৌনে ১টার দিকে নুরুল একা শ্বশুর বাড়িতে ফিরে এসে ছেলেকে জানায় বরিশুরের ভাড়া মেসে তার মাকে আটক করে রেখেছে সে। এ কথা শুনে রেশমার মা ও ছেলে ওই মেসে গিয়ে দেখে গলা কাটা মৃত অবস্থায় মেঝেতে পড়ে আছে রেশমা। এ ঘটনায় রেশমার বোন কেরাণীগঞ্জ থানায় মামলা (নম্বর-৩৬-১৭/০৫/২২) করে। মামলার পর ছায়া তদন্তে মাঠে নামে র‌্যাব ও আসামি স্বামী নুরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি নুরুল ইসলাম জানায়, পুনরায় সংসার শুরু করার ২ দিনের মাথায় কাতার প্রবাসী এক যুবকের সঙ্গে রেশমার সম্পর্ক রয়েছে বলে সন্দেহ হয় তার। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বিবাদ শুরু হয়। পরে পরিকল্পীত ভাবে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে পালিয়ে যায় নুরুল। বরিশাল ও চট্টগ্রামে কিছুদিন  আত্মগোপনে থাকার পর ঢাকায় আসলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।