আপডেট : শুক্রবার, জুলাই ২৯, ২০২২, ১২:০০ am

মন্ত্রীত্ব হারালেন পার্থ চট্টপাধ্যায়

দৈনিক বাংলা ডেস্ক
মন্ত্রীত্ব হারালেন পার্থ চট্টপাধ্যায়
মন্ত্রীত্ব হারালেন পার্থ চট্টপাধ্যায়

পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার করা হলো শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টপাধ্যায়কে।  এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) এর হেফাজতে থাকা শিল্পমন্ত্রী পার্থকে মন্ত্রিসভা থেকে সরিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার এক নোটিশে এই নির্দেশনামা মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয় নবান্ন থেকে জানানো হয়।

গ্রেফতার হওয়ার পাঁচ দিন পর বৃহস্পতিবার ক্ষমতাসীন দল তৃণমূলের শৃঙ্খলা কমিটির বৈঠকের আগেই পার্থকে বরখাস্ত করেন মমতা। কলকাতার সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, অভিযুক্ত এই নেতাকে দলে রাখা হবে কিনা, সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে বৈঠকে। রাজ্যের তিনটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন পার্থ। এগুলোর মধ্যে ছিল- শিল্প মন্ত্রণালয়, তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়। পার্থকে বরখাস্ত করায় এখন তিনটি মন্ত্রণালয় মুখ্যমন্ত্রীর নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

এদিকে শুক্রবার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য পার্থকে আবার হাসপাতালে নেয়ার সময় মন্ত্রীত্ব ও দল থেকে সাসপেন্ডের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে পার্থ বলেন, “আমি ষড়যন্ত্রের শিকার।’

গত ২২ জুলাই পার্থর বাড়িতে অভিযান চালায় ইডি। ওই দিন সন্ধ্যায় পার্থ-ঘনিষ্ঠ অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়ের ফ্ল্যাট থেকে ২১ কোটি ৯০ লাখ রুপি উদ্ধার করা হয়। পরদিন গ্রেফতার করা হয় পার্থ ও অর্পিতাকে। পরে ২৭ জুলাই বেলঘরিয়ায় অর্পিতার আরেকটি ফ্ল্যাটে ফের অভিযান চালানো হয়। এদিন উদ্ধার হয় ২৭ কোটি ৯০ লাখ রুপি। সঙ্গে কয়েক কোটি রুপির সোনা। বেশ কিছু সম্পত্তির দলিল, কাগজপত্রসহ অর্পিতার টালিগঞ্জ এবং বেলঘরিয়ার ফ্ল্যাট মিলিয়ে এখন পর্যন্ত প্রায় ৫০ কোটি রুপি উদ্ধার হয়েছে। তবে এতো বিপুল পরিমাণ অর্থ নিজের ফ্ল্যাটে রয়েছে বলে কিছুই জানেনা অর্পিতা।

গ্রেপ্তারকৃত অর্পিতা ও পার্থকে ১০ দিন করে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ইডির তদন্তকারীরা বলছেন, জিজ্ঞাসাবাদে অর্পিতাকে অর্থের উৎস সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে, তিনি দাবি করেন, এত টাকা ও সোনা তার নয়। তিনি বলেছেন, ‘স্যার! এত টাকা আমার বাড়িতে রাখা হয়েছিল; বিশ্বাস করুন। এত টাকার কথা আমি কিছুই জানতাম না।’