আপডেট : শুক্রবার, আগস্ট ১২, ২০২২, ৭:৪৪ am

প্রেম থেকে বিয়ে, অবিশ্বাস থেকে খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রেম থেকে বিয়ে, অবিশ্বাস থেকে খুন
গ্রেপ্তার রেজাউল করিমকে আনা হয় র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে। আজ শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে। ছবি: দৈনিক বাংলা

রাজধানীর একটি হোটেলে নারী চিকিৎসককে হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে তার স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তারকৃতের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানিয়েছে, অবিশ্বাস থেকে হত্যার ঘটনা ঘটে।

আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে নারী চিকিৎসকের স্বামীকে গ্রেপ্তারের কথা জানান র‍্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

গ্রেপ্তারকৃতের নাম রেজাউল করিম। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে চট্টগ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সংবাদ সম্মেলনে হত্যার নানা তথ্য তুলে ধরেন র‌্যাব কর্মকর্তা।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ২০১৯ সালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই নারী চিকিৎসকের সঙ্গে  পরিচয় হয় রেজাউলের। সেখান থেকে প্রেম। এক বছর পর পরিবারের অমতে বিয়ে করেন তারা। কিন্ত বিয়ের পর থেকেই পরস্পরকে সন্দেহ করতে শুরু করেন। স্বামীর একাধিক সম্পর্কের প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন স্বামী। জন্মদিন পালন করার কথা বলে স্ত্রীকে হোটেলে নিয়ে যান রেজাউল। সেখানেই গলাকেটে হত্যা করা হয় নারী চিকিৎসককে।

র‍্যাব বলছে, অভিযুক্ত রেজাউলের ফোনকল বিশ্লেষণ করে একাধিক প্রেমের ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি পুরো ঘটনার দায়ও স্বীকার করেছেন।

এর আগে গত বুধবার সকালে ওই নারী চিকিৎসককে স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিয়ে ঢাকার পান্থপথের ‘ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্ট’ হোটেলের একটি কক্ষে ওঠেন রেজাউল। দুপুরের দিকে তিনি ঘরে তালা দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর রাতে ওই কক্ষ থেকে ২৭ বছর বয়সী তরুণীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত ও জখমের চিহ্ন ছিল।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব কর্মকর্তা জানান, মগবাজারের কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস শেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজে গাইনি বিষয়ে একটি কোর্স করছিলেন ওই চিকিৎসক। হত্যার ঘটনায় রেজাউলকে আসামি করে মামলা করেছে নিহতের পরিবার।

র‍্যাবের মুখপাত্র খন্দকার আল মঈন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে রেজাউল জানিয়েছেন, ভুক্তভোগীর পাশাপাশি একাধিক নারীর সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি ভুক্তভোগী জানতে পারলে বিভিন্ন সময় তাদের বাগ্‌বিতন্ডা হয়। একপর্যায়ে রেজাউল তার প্রতিবন্ধকতা দূর করতে ভুক্তভোগীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।