সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও সমন্বয়ের মাধ্যমে সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করতে হবে

হীরেন পণ্ডিত
প্রকাশিত
হীরেন পণ্ডিত
প্রকাশিত : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১৯:২৬

এসডিজির অভীষ্ট ৩:৬-এ বিশ্বব্যাপী সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ও নিহতের সংখ্যা ২০২০ সালের মধ্যে অর্ধেকে কমিয়ে নিয়ে আসার কথা বলা হয়েছে। এসডিজির অভীষ্ট ১১:২-এ রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত যানবাহন সম্প্রসারণ করে সড়ক নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নতির মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যে নিরাপদ, সাশ্রয়ী ও সুলভ পরিবহন ব্যবস্থায় সবার প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে। ২০৩০ সালের লক্ষ্য অর্জনে এখন সবাইকে কাজ করতে হবে।

সড়ককে নিরাপদ করতে ডিভাইডার স্থাপন, বাঁক সরলীকরণ, সড়ক ৪ লেনে উন্নীতকরণ, মহাসড়কে চালকদের জন্য বিশ্রামাগার নির্মাণ ও গতি নিয়ন্ত্রক বসানোসহ নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। সড়ক পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা আনয়ন, দক্ষ চালক তৈরি এবং দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে টাস্কফোর্স গঠন করে এর ভিত্তিতেই কাজ চলছে। সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধ তথা সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হলে সরকারের পাশাপাশি পরিবহন মালিক, শ্রমিক, যাত্রী, পথচারী ও সংশ্লিষ্ট সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে একযোগে কাজ করতে হবে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের পর ক্ষতিগ্রস্ত সকল সড়ক ও সেতু মেরামত করে যোগাযোগ অবকাঠামো পুনঃস্থাপন করেন। তিনি ১৯৭৪ সালের মধ্যেই মুক্তিযুদ্ধে ধ্বংসপ্রাপ্ত সকল সেতু পুন:নির্মাণ করে চলাচলের উপযোগী করেন, পাশাপাশি তিনি ৪৯০ কি.মি. নতুন সড়ক নির্মাণ করেন। বাংলাদেশ সরকারের প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় জাতির পিতা সড়ক পরিবহন খাতকে অগ্রাধিকার প্রদান করে আধুনিক সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার কার্যক্রম শুরু করেন। সরকার জাতির পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে তিনটি পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা, টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ এবং প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০৪১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নিরাপদ সড়ক নেটওয়ার্ক উন্নয়নের মাধ্যমে নিরবচ্ছিন্ন ও সময় সাশ্রয়ী যাতায়াত ও পণ্য পরিবহন সম্প্রসারণের নিমিত্তে কাজ করে যাচ্ছে। নিজস্ব অর্থায়নে করা স্বপ্নের বহুমুখী পদ্মা সেতুসহ সারা দেশে বিস্তৃত যোগাযোগ ব্যবস্থা জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতেও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে।

সড়ক পরিবহন ব্যবস্থায় অভূতপূর্ব উন্নয়নের পাশাপাশি নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থা জোরদার করার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছে বর্তমান সরকার। আধুনিক, প্রযুক্তিনির্ভর এবং টেকসই ও নিরাপদ মহাসড়ক নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করাই সরকারের লক্ষ্য। সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে স্বয়ংক্রিয় মোটরযান ফিটনেস সেন্টার চালু করা হয়েছে। ই-ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রবর্তনের মাধ্যমে বিআরটিএ’র প্রায় সকল সেবা ডিজিটালাইজড করা হয়েছে, সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে ৬ দফা নির্দেশনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বিশ্বব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় ও বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে পাঁচ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ‘বাংলাদেশ রোড সেইফটি প্রজেক্ট’ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

চালকের অদক্ষতা ও বেপরোয়া যানবাহন চালানোর পাশাপাশি ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, সড়ক ও সেতুর নাজুক অবস্থাও সড়ক দুর্ঘটনার জন্য বহুলাংশে দায়ী। গণপরিবহনে বাড়তি যাত্রী সামাল দিতে গতিসীমার বাইরে দ্রুত গাড়ি চালিয়ে বেশি ট্রিপ দেয়ার অশুভ প্রতিযোগিতা আর বাড়তি মুনাফার লোভে পরিবহন সংস্থাগুলো চালকদের অনেক বেশি সময় কাজ করতে বাধ্য করে। ফলে চালকের ওপর এক ধরনের মনস্তাত্ত্বিক চাপ পড়ে, তাকে বেসামাল হয়ে গাড়ি চালাতে হয়; যা প্রকারান্তরে দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়ায়। যানবাহনে রঙ লাগিয়ে যেনতেন মেরামত করে রাস্তায় চলাচল করে বিভিন্ন উৎসব-পার্বণের সময়। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অতিরিক্ত যাত্রী দূর-দূরান্তে গমনাগমন করে। সড়ক-মহাসড়কে চলে বাস-ট্রাকের চালকের অমনোযোগী লড়াই। অতি আনন্দে গাড়ি চালানোর সময় তারা ব্যবহার করেন সেলফোন, যা সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ হিসেবে চিহ্নিত। পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী বহন, অদক্ষ চালক ও হেলপার দ্বারা যানবাহন চালানো, বিরামহীন যানবাহন চালানো, মহাসড়কে অটোরিকশা, নসিমন-করিমন ও মোটরসাইকেলের অবাধ চলাচল এবং ব্যস্ত সড়কে ওভারটেকিং, ওভারলোডিং সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকি অনেকাংশে বাড়িয়ে দেয়। প্রধানমন্ত্রী সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে পাঁচ দফা নির্দেশনা দিয়েছিলেন। সেগুলো ছিল চালক ও সহকারীদের প্রশিক্ষণ প্রদান, দূরপাল্লার বাসযাত্রায় বিকল্প চালক রাখা ও ৫ ঘণ্টা পরপর চালক পরিবর্তন করা, চালক ও যাত্রীদের সিটবেল্ট বাঁধা বাধ্যতামূলক করা, চালকদের জন্য মহাসড়কে বিশ্রামাগার নির্মাণ এবং সিগন্যাল মেনে যানবাহন চালানোর ওপর কড়াকড়ি আরোপ।

উন্নত পরিবহন ব্যবস্থা অর্থনৈতিক অগ্রগতির একটি নির্দেশকও বটে। বাংলাদেশ দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে, আন্তর্জাতিক গবেষণা সংস্থাগুলোর দৃষ্টিতে সম্ভাবনাময় অর্থনীতির দেশ। সরকারের লক্ষ্য ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হওয়ার। উন্নয়নশীল বা মধ্যম আয়ের দেশের কাতারে শামিল হওয়া বাংলাদেশের পরিবহন ব্যবস্থা নিয়ে অনেক কাজ চলছে। বাংলাদেশে মোটরসাইকেল বিক্রি সম্প্রীতি বহুগুণ বেড়েছে। আঞ্চলিক সড়কে মোটরসাইকেল চালানোর নিয়ম মানছেন না চালকরা; চালক ও আরোহীরা হেলমেট ঠিকমতো পরেন না; এক মোটরসাইকেলে দু'জনের বেশি না ওঠার নিয়ম মানা হয় না; জেলা-উপজেলা পর্যায়ে অনিবন্ধিত মোটরসাইকেল অহরহ চলাচল করে; অনেকের আবার মোটরসাইকেল চালানোর প্রশিক্ষণ নেই।

এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে দক্ষ চালক তৈরির উদ্যোগ বৃদ্ধি; চালকের বেতন ও কর্মঘণ্টা নির্দিষ্টকরণ; বিআরটিএর সক্ষমতা বৃদ্ধি; পরিবহনের মালিক-শ্রমিক, যাত্রী ও পথচারীদের প্রতি ট্রাফিক আইনের বাধাহীন প্রয়োগ নিশ্চিতকরণ; মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণ এবং এগুলোর জন্য আলাদা সার্ভিস রোড তৈরি; পর্যায়ক্রমে সব মহাসড়কে রোড ডিভাইডার নির্মাণ; গণপরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ; রেল ও নৌপথ সংস্কার ও সম্প্রসারণ করে সড়কপথের ওপর চাপ কমানো; টেকসই পরিবহন কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।

যে কোনো দুর্ঘটনা কোনোভাবেই কাম্য নয়। সড়কে যেভাবে মানুষের প্রাণহানি ঘটছে, তা যেভাবেই হোক কমাতে হবে। নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থাপনার ওপর গুরুত্ব আরোপ করতে হবে। দক্ষ চালক তৈরির জন্য সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে পর্যাপ্ত সংখ্যক চালক প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে হবে। এ ছাড়া সড়কে মেয়াদোত্তীর্ণ যানবাহন চলাচল বন্ধে সরকারকে আরও কঠোর হতে হবে।

সড়ক দুর্ঘটনা বিশ্বব্যাপী মানুষের মৃত্যু ও ইনজুরির অন্যতম প্রধান কারণ। সব বয়সের মানুষের ক্ষেত্রে দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর অষ্টম প্রধান কারণ হলো সড়ক দুর্ঘটনা। ৫-২৯ বছর এবং আরো কম বয়সি শিশুদের জন্য এটি মৃত্যুর প্রধান কারণ হিসেবেও চিহ্নিত হয়েছে। প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয় যে, বিশ্বব্যাপী শতকরা ৯০ ভাগ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে, যার সংখ্যা উন্নত দেশগুলোর তুলনায় তিন গুণ বেশি। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যেও সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের চিত্র অনেকটা একই রকম।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়, ২০১৬-১৭ সালে পরিচালিত একটি জরিপে, অর্থনৈতিক ক্ষতি, চিকিৎসা ব্যয়, জীবনযাত্রার ব্যয়, যানবাহন ও প্রশাসনিক ক্ষতি এবং অন্যান্য হিসাব থেকে দেখানো হয়েছিলো কর্মজীবী ব্যক্তি যিনি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন তার সব মিলিয়ে একটি মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রায় ৫ মিলিয়ন টাকার অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়। তবে প্রাণঘাতী দুর্ঘটনার জনপ্রতি পাঁচ লাখ টাকা ক্ষতি হয়। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের জন্য সড়ক দুর্ঘটনা একটি উদ্বেগজনক বিষয়। দুর্ঘটনা মানবিক ও অর্থনৈতিক উভয় অবস্থাকে প্রভাবিত করে। হিউম্যান ক্যাপিটাল পদ্ধতিতে একটি খরচ অনুমান মডেল করা হয়েছে। গড় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ (টাকায়) মোট ক্ষতির পরিমাণ ৪৯ লাখ ৬৯ হাজার। একজন কর্মজীবী ব্যক্তির অর্থনৈতিক ক্ষতি, সরকারি সমীক্ষা দেখায় যে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন কর্মজীবী ব্যক্তির মৃত্যুর ফলে গড় অর্থনৈতিক ক্ষতি হয় ২৪ লাখ ৭২ হাজার ১০৮ টাকা। গুরুতর আঘাতের ক্ষেত্রে, গড় আর্থিক ক্ষতি হয় ২১ হাজার ৯৮ টাকা। ৩৮ ভাগ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে থাকে অসাবধানে গাড়ি চালানোর কারণে বেশির ভাগ চালক ট্রাফিক নিয়মের প্রতি তাদের অবাধ্য মনোভাবের পাশাপাশি সঠিকভাবে প্রশিক্ষিত বা উপযুক্ত বিশ্রামও পান না।

সড়ক-দুর্ঘটনায় হতাহত ব্যক্তিদের বেশির ভাগই বয়সে তরুণ বা যুবক এবং নানাবিধ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। সড়ক দুর্ঘটনার কারণ ও এর ক্ষয়-ক্ষতির ব্যাপকতা বহুমাত্রিক যা প্রতিটি দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করে। বিআইডিএস এর গবেষণায় দেখা যায়, সড়ক-দুর্ঘটনায় বাংলাদেশে প্রতিবছর জিডিপির প্রায় ২ শতাংশ অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়। সড়ক-দুর্ঘটনাকে সহনীয় মাত্রায় রাখতে তথা সড়ক-দুর্ঘটনাজনিত মানুষের মৃত্যু, পঙ্গুত্ব ও অসুস্থতা এবং সংশ্লিষ্ট অর্থনৈতিক ক্ষতি লাঘবের উদ্দেশ্যে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহ তার সদস্যভুক্ত প্রায় প্রতিটি দেশের সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহকে সাথে নিয়ে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতের সংখ্যা শতকরা ৫০ ভাগ কমানোর জন্য টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ ও কার্যক্রম পরিচালনায় সহায়তা করা এবং “গ্লোবাল প্ল্যান ফর সেকেন্ড ডিকেড অফ অ্যাকশন ফর রোড সেইফটি ২০২১-২০৩০” নিশ্চিত করতে কার্যকর কর্মপন্থা নির্ধারণ করে সেগুলো বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা ইত্যাদি। আশার কথা হলো এই যে, সড়ক-দুর্ঘটনা কমানোর উদ্দেশ্যে বিশ্বব্যাপী গৃহীত এসকল পদক্ষেপ সমূহের সাথে বাংলাদেশও একাত্মতা প্রকাশ করেছে। পাশাপাশি সেগুলোর বাস্তবায়নের জন্য যথাযথ কর্মপন্থা নির্ধারণ পূর্বক প্রয়োজনীয় কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর আলোকে সড়ক পরিবহন বিধিমালা-২০২২ হালনাগাদ করণের মাধ্যমে সড়ক নিরাপত্তা জোরদারের প্রচেষ্টা গ্রহণ সরকারের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ এবং অন্যতম প্রশংসনীয় উদ্যোগ। এসডিজিগুলোর লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ “সড়ক পরিবহন বিধিমালা- ২০২২” এ বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য বিধান সংযুক্তিপূর্বক গেজেট প্রকাশ করেছে। এ সকল বিধিমালার কার্যকর প্রয়োগের মাধ্যমে বাংলাদেশের সড়ক নিরাপত্তাকে জোরদার করে তোলাই উক্ত বিধিসমূহ সংযোজনের প্রধান উদ্দেশ্য। তাই এ ধরনের কার্যকর ও সময়োপযোগী সড়ক পরিবহন বিধিমালা জারির জন্য বাংলাদেশ সরকার নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবীদার।

সড়ক দুর্ঘটনার একাধিক কারণ রয়েছে যার মধ্যে অন্যতম প্রধান করণ হলো অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানো। দেশে নিয়মিত ঘটছে সড়ক দুর্ঘটনা। অনিয়ন্ত্রিত গতি দুর্ঘটনার ঝুঁকির পাশাপাশি আঘাতের তীব্রতা এবং দুর্ঘটনার ফলে মৃত্যুর সম্ভাবনাকে সরাসরি প্রভাবিত করে। বিশ্বের ৮০ টির বেশি বড় শহরে পরিচালিত সমীক্ষার উপর ভিত্তি করে জাতিসংঘ এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে, শহর এলাকায় সর্বোচ্চ গতিসীমা ৩০ কিলোমিটার এর মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে পারলে সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকি অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। এছাড়াও শহর এলাকায় যানবাহনের এরূপ নিম্নমাত্রার গতিসীমা যানযট ও বায়ুদূষণ কমানোর ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রাখে বলে গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া গেছে।

যানবাহনের অনিয়ন্ত্রিত গতি ছাড়াও নেশাগস্ত অবস্থায় গাড়ি চালানো সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকির পাশাপাশি আঘাতের তীব্রতা এবং দুর্ঘটনার ফলে মৃত্যুর সম্ভাবনাকে সরাসরি প্রভাবিত করে। গবেষণায় এটা প্রমাণিত যে, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় গাড়ি চালানো নিষেধ- এই বিধানটি শতভাগ প্রয়োগ করা সম্ভব হলে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা শতকরা ২০ ভাগ হ্রাস করা সম্ভব। (সূত্র: গ্লোবাল রোড সেইফটি পার্টনারশীপ)।

পাশাপাশি, দুই এবং তিন চাকার মোটরযান ব্যবহার মাথায় আঘাত জনিত মৃত্যু ও ট্রমার অন্যতম প্রধান কারণ। দ্রুততম সময়ের মধ্যে গন্তব্যস্থলে পৌঁছার জন্য বহু মানুষ মোটরসাইকেল ব্যবহার করছেন। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে দেশে এর ব্যবহার অত্যধিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এক্ষেত্রে গতির পাশাপাশি হেলমেট পরিধানের বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। হেলমেট পরিধান না করা সরাসরি দুর্ঘটনার কারণ না হলেও দুর্ঘনায় আহত ব্যক্তির আঘাতের মাত্রা হ্রাসে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে গবেষণায় এটাও দেখে গেছে যে নিরাপদ হেলমেট যথাযথা নিয়মে ব্যবহারে দুর্ঘটনায় মৃত্যু ঝুঁকি শতকরা ৪০ ভাগ এবং মাথার আঘাতের ঝুঁকি শতকরা ৭০ ভাগ হ্রাস করে। (সূত্র: গ্লোবাল রোড সেইফটি পার্টনারশীপ)।

একইভাবে সিটবেল্ট ব্যবহার সরাসরি দুর্ঘটনার কারণ না হলেও দুর্ঘনায় আহত ও নিহতের হার হ্রাসে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য মতে, সিটবেল্ট পরা চালক এবং সামনের আসনে যাত্রীর মধ্যে মৃত্যুর ঝুঁকি শতকরা ৪৫-৫০ ভাগ এবং পিছনের আসনের যাত্রীদের মধ্যে মৃত্যু এবং ও আঘাতের ঝুঁকি শতকরা ২৫ ভাগ হ্রাস করে। এছাড়াও গ্লোবাল রোড সেইফটি পার্টনারশীপ এর তথ্য মতে, শিশুদের জন্য নিরাপদ বা সুরক্ষিত আসনের ব্যবহার সড়ক দুর্ঘটনায় ছোট শিশুদের ক্ষেত্রে শতকরা ৭০ ভাগ এবং বড় শিশুদের ক্ষেত্রে শতকরা ৫৪-৮০ ভাগ মারাত্মক আঘাত পাওয়া এবং মৃত্যু হ্রাসে অত্যন্ত কার্যকর।

যানবাহনের গতিসীমা বিষয়ে উক্ত বিধিমালার সপ্তম অধ্যায়ে সুনির্দিষ্ট বিধান সন্নিবেশিত হয়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে মোটরযানের গতিসীমা নির্ধারণ, নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক নির্দেশনা বা গাইডলাইন জারি করা সংক্রান্ত বিধানটি। এর ফলে ভবিষ্যতে সড়ক ও মোটরযানের প্রকারভেদের ভিত্তিতে যথাযথ গতিসীমা নির্ধারণ করা ও এর যথাযথ বাস্তবায়নের পথ প্রশস্ত হলো। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অচিরেই এই গাইডলাইনে উল্লেখিত বিধিগুলো কার্যকর বাস্তবায়নের নিমিত্তে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

এই বিধিমালার যথাযথ বাস্তবায়ন সড়কে নিরাপত্তা বিষয়টিকে আরো জোরদার করবে এবং সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস করার মাধ্যমে এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পথকে আরো সহজতর করবে। সরকার বিধিমালায় যেসকল পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেছে যেমন- সড়ক ও মোটরযানের প্রকারভেদের ভিত্তিতে গতিসীমা নির্ধারণ, নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনা, হেলমেটের গুণগত মান নির্ধারণ, এর যথাযথ ব্যবহার ও ব্যবস্থাপনা, সীটবেল্টে যথাযথ ব্যবহার, আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন সুরক্ষিত শিশু আসন ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা ইত্যাদি বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত নিয়ে যত দ্রæত সম্ভব সেগুলো নিশ্চিত করণ ও বাস্তবায়নের জন্য কার্যকর উদ্যোগ নিবেন।

সড়ক নিরাপত্তা বিষয়টিকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সেফ সিস্টেমস এপ্রোাচ যেমন নিরাপদ সড়ক, নিরাপদ মোটরযান, নিরাপদ সড়ক ব্যবহারকারী, নিরাপদ গতিসীমা ও দুর্ঘটনা পরবর্তী ব্যবস্থাপনা ইত্যাদির সমন্বয়ে একটি পৃথক সড়ক নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করার বিষয়ে সরকারের যে উদ্যোগ রয়েছে সেগুলো আমাদের সড়ক নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে জোরদার করবে এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা ও বর্তমান সরকারের অঙ্গীকার স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে এক গুরুত্বপূর্ণ ও সময়োপযোগী ভূমিকা পালন করবে। এতে একদিকে যেমন সড়কে মৃত্যু কমবে একইসাথে সড়ক দুর্ঘটনাজনিত অর্থনৈতিক ক্ষতি (জিডিপির প্রায় ২ শতাংশ) কমানোর পথ সুগম হবে। যার মাধ্যমে এসডিজির ধারা ৩.৬ এবং ১১.২ অর্জনের পথে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও গবেষক


হাড়ে হাড়ে বুঝছি, উষ্ণায়ন কী? 

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
লিয়াকত হোসেন খোকন 

যত দিন যাচ্ছে, আমরা যেন হাড়ে হাড়ে বুঝছি, উষ্ণায়ন কাকে বলে। উষ্ণায়নের গ্রাসে পৃথিবী তলিয়ে যাওয়া এক প্রকার নিশ্চিত। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান সেই মতকেই প্রবল সমর্থন জোগাচ্ছে। সম্প্রতি রাষ্ট্রপুঞ্জের আবহাওয়া-সংক্রান্ত রিপোর্টে যেমন স্পষ্ট হয়েছে, পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে রেকর্ড হারে। সেই হার এতটাই বেশি, ২০২৩ সালটি উষ্ণায়নের পুরোনো সব রেকর্ড ছাপিয়ে গিয়েছে। ভূপৃষ্ঠের তাপমাত্রা গত বছরে গড়ে প্রায় ১.৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে।

২০১৫ সালে প্যারিসের জলবায়ু সম্মেলনে সদস্য দেশগুলো সম্মিলিতভাবে স্থির করেছিল পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা বৃদ্ধিকে ১.৫ ডিগ্রিতে আটকে রাখার। এটাই বিপদ-মাত্রা। ফেলে আসা বছরটি দেখিয়ে দিল, পৃথিবীর এই বিপদ-মাত্রায় পৌঁছে গিয়েছে।

এমনটা যে অপ্রত্যাশিত, তা নয়। দীর্ঘ দিন ধরে একটু একটু করে জলবায়ু পরিবর্তনের চিহ্নগুলো স্পষ্ট হয়েছে। প্রতি বছর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক জলবায়ু সম্মেলনগুলো তো বটেই, অন্যান্য আন্তর্জাতিক মঞ্চেরও মূল আলোচ্য হয়ে উঠেছে জলবায়ু পরিবর্তন এবং তার ক্ষতিকর প্রভাব ঠেকাতে সম্ভাব্য পথগুলো।

জলবায়ু পরিবর্তন কোনো একটিমাত্র দেশের নিজস্ব সমস্যা নয়, সুতরাং প্রতিরোধের পথগুলোও ঐকমত্যের ভিত্তিতে একযোগে নেওয়া প্রয়োজন; কিন্তু এত দিন ধরে এত অর্থ ব্যয়ে যে আলোচনা, প্রতিশ্রুতি পর্ব চলে এসেছে, তা একটি বৃহদাকার অশ্বডিম্ব প্রসব করেছে মাত্র। কার্বন নিঃসরণের মাত্রার দ্রুত হ্রাস এবং পরিবেশবান্ধব বিকল্পগুলোর ওপর অধিক গুরুত্বারোপ উষ্ণায়ন প্রতিরোধের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার। সেই লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছতে বিভিন্ন সময় ধার্যও করেছে বিভিন্ন দেশ; কিন্তু তাপমাত্রা বৃদ্ধির সাপেক্ষে সেই লক্ষ্যমাত্রাও ক্রমশ অধরা মনে হচ্ছে। তাপমাত্রা বৃদ্ধির এমন হার অব্যাহত থাকলে ইতোমধ্যেই যে বিপুল জলবায়ুগত পরিবর্তনের আশঙ্কা, তার মোকাবিলা করার মতো পর্যাপ্ত সময় হাতে থাকবে তো?

উন্নত দেশগুলো তাদের অর্থ এবং পরিকাঠামোগত উন্নয়নের জোরে যে দ্রুততায় কার্বন-শূন্য লক্ষ্যমাত্রার দিকে যেতে পারে, তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোর পক্ষে তা অর্জন করা কঠিন।

পৃথিবীর অনেক দেশই এখনো কয়লার ওপর অতি নির্ভরশীল। পরিবেশবান্ধব জ্বালানির উপযোগী পরিকাঠামো নির্মাণের জন্য যে পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন, তার জোগান আসবে কোথা থেকে?

উষ্ণায়নের কারণে সমুদ্রপানির তাপমাত্রার দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে। দ্রুততর হচ্ছে হিমবাহ গলনের প্রক্রিয়া। ক্রমশ বাড়ছে সমুদ্রপানির উচ্চতা। বিপদের মুখে অগণিত উপকূলবাসী। বিপদ অন্যত্রও। প্রাকৃতিক বিপর্যয় বৃদ্ধি পেলে বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যা আগামী দিনে বাড়বে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্ট। খামখেয়ালি আবহাওয়ায় কৃষিকাজ ব্যাহত হলে আগামী দিনে খাদ্যসংকট ঘনীভূত হবে। এর কোনো কথাই কিন্তু নতুন নয়। প্রতিশ্রুতি আর আশ্বাসের বাইরে বিশ্ব কোনো কার্যকর পথের সন্ধান দিতে পারল না, সেটা উষ্ণায়নের চেয়ে কম উদ্বেগের নয়।

বিশ্ব উষ্ণায়ন শব্দ দুটো কয়েক বছর আগেও আমাদের কাছে অচেনা ছিল। মাঝেমধ্যে কথাটা শুনতাম। মানে বুঝতাম না। ভাবতাম, এটা বোধহয় বিশেষজ্ঞদের ব্যাপার। আমাদের না বুঝলেও চলবে! অবশেষে তাই বুঝতে হলো, উষ্ণায়ন কী, হাড়ে হাড়ে বুঝছি আজ।

পানিও ফুরিয়ে আসছে-

ভূ-গর্ভের পানিও এখন ব্যাপকভাবে বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে ব্যবহৃত হচ্ছে। ফলে ভূ-গর্ভের পানিও দ্রুত ফুরিয়ে আসছে। ভূ-গর্ভের পানিতেও আর্সেনিক ইত্যাদি বিষাক্ত রাসায়নিকের উপস্থিতি ধরা পড়েছে। ফলে ভূ-গর্ভের পানিও এখন আর সুপেয় নয়।

কাজেই ভূ-পৃষ্ঠ এবং ভূ-গর্ভের পানি সংরক্ষণের এবং পানি ব্যবহারে মিতব্যয়িতার এখন বিশেষ প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। বিশ্বের উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলো এ জন্য বিশেষ বৈজ্ঞানিক কৌশল অবলম্বন করছে। এ ছাড়া ব্যবহৃত পানিও শোধন করে পুনর্ব্যবহার যোগ্য করে তোলার এখন বিশেষ প্রয়াস শুরু হয়েছে।

আমাদের দেশে বিশেষ করে পানি সংরক্ষণ, পানি পুনর্ব্যবহার যোগ্যকরণ ইত্যাদি প্রকল্প তো দুরস্ত, এখনো ৭০ শতাংশ মানুষের জন্য বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা করতে পারেনি সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চল, দুর্গম পাহাড়ি, গ্রামাঞ্চল ইত্যাদি এলাকার মানুষ খাল, বিল, নদী-নালার দূষিত পানি পান করেই নানা অসুখ-বিসুখ সঙ্গে করে জীবনধারণ করে আছে।

ঘুম থেকে ওঠার পরই প্রথম প্রয়োজন পানীয়জল। বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ করলেও শুধু সঠিক বাস্তবায়নের অভাবে এবং দুর্নীতির জন্য সেই বিশাল পরিমাণ টাকার অপচয় হয়ে আসছে স্বাধীনতার পর থেকেই। পানি সম্পদ প্রকল্পের নামে প্রচুর টাকা বরাদ্দ হলেও চাহিদা বিন্দুমাত্র মিটছে না।

আমাদের মনে রাখতে হবে, পানির অপর নাম জীবন। পানি ছাড়া মানুষ, জীবজন্তু, গাছ বাঁচতে পারে না। শুধু বাঁচার প্রশ্নই নয়, পানিছাড়া সম্পূর্ণভাবে জীবনযাপনই অচল হয়ে পড়ে। কৃষিতে প্রধান অবলম্বন পানি। সেই পানির অভাবের সম্ভাবনা নিয়ে চিন্তায় মানুষ।

ভূ-পৃষ্ঠের পানি খুব শিগগিরই শেষ হয়ে যাবে। বিশেষ করে বিশুদ্ধ পানীয়জল ভূ-পৃষ্ঠে দ্রুত শেষ হয়ে আসছে। নদী, নালা, খাল, বিলে যে পানি রয়েছে তাও চরমভাবে দূষিত। দুর্গম ও গ্রামীণ এলাকার মানুষ নদী-নালার দূষিত পানি ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছে। দেশের অধিকাংশ ছোট-বড় নদীর পানিই দূষিত ও বিষাক্ত। এই বিষ ক্রমশ বাড়ছে। নদী-নালা-খাল-বিল ইত্যাদির দূষিত পানি কৃষি কাজেও ব্যবহৃত হচ্ছে। ফলে কৃষি উৎপাদনেও খুব দ্রুত মিশে যাচ্ছে বিষাক্ত নানা রাসায়নিক। খাদ্যসহ ওইসব কৃষি উৎপাদন খেয়েই মানুষ দৈনন্দিন জীবন ধারণ করছে। এর ফলে সারা বিশ্বেই নিত্য-নতুন নানা অসুখ-বিসুখের প্রভাব ঘটছে।

এদিকে বিশ্বজুড়ে বৈজ্ঞানিক গবেষণায় প্রকাশ, আগামী অর্ধশতকের মধ্যেই ভূ-পৃষ্ঠের এই দূষণমুক্ত পানিও ফুরিয়ে যাবে। আবহাওয়ার পরিবর্তন, উষ্ণায়ন ইত্যাদি এর কারণ। তখন মানুষের কী হবে?

লেখক: পরিবেশবিদ ও চিঠি বিশেষজ্ঞ


হুম সাহিত্য-নির্ঘুম জীবন

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
রাজীব কুমার দাশ

মানুষ কেন! প্রাণীকে কোনোকিছু শিখিয়ে দিতে হয় না। বংশগতি সংরক্ষণ ও বাঁচার প্রয়োজনে সে সব কিছু শিখে নেয়। হোক সেটা সংঘর্ষ শান্তি, শ্রান্তি, বিনোদন, দারিদ্র্য বিমোচন।

অনলাইনে পড়ালেখা, সিনেমা নাটক প্রেম, বিরহ, সংসার, চাকরি; পাতি নেতা, বড় নেতা হওয়ার বাসনা, রান্না, কান্না, খুড়ি, আপু হয়ে ধর্মগুরুর উপদেশ রিল; ইউটিউবার সেলিব্রেটি হতে দেখা উপলব্ধি নিয়ে মানিকনগর গ্রামের বেকার যুবক সাকলাইন নারী-পুরুষ স্বাবলম্বী হতে অনলাইন হাতেখড়ি স্কুল খুলে দিলেন। চ্যাট অপশনের শত শত সাংকেতিক ইমোজি স্টিকার হাসি, কান্না, ঘৃণা ভাষা রপ্ত করেন। মুখ বেঁকিয়ে গাল ফুলিয়ে কোমর নিতম্ব সাপের মতন দুলিয়ে দুর্দান্ত রিল ব্যবসায়ী হতে রিচলিত স্খলিত শরীরী ভাষা প্রশিক্ষণ দিতে লাগলেন। ‘হুম’ শব্দের প্রায়োগিক দুর্দশা নিয়ে হাতে-কলমে ইশারা তালি তালিম মিশেল ভাবনায় রয়ে-সয়ে একাকার জীবন গড়ে নিলেন। মানিকনগর বর্ধিষ্ণু গ্রামের সরল-গরল ঘরানা মানুষের চিত্র-বিচিত্র রংধনু মনের রং, ঢং, সঙ, জীবন ধীরে ধীরে ক্ষীয়মাণ হতে হতে হুম সাহিত্যে হাত পাকিয়ে- পাস্তুরায়ন নিরুপদ্রব অন্তর্জাল জীবন সাহিত্যে যে যার মতন একা একা ইমোজি স্টিকার জীবন বেছে নিলেন।

মানিকনগর গ্রামে চা দোকানের বাগড়া-ঝগড়া, বিবাদ, মারামারি থেমে গেল। স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় হাট-বাজার হয়ে গেল- রাক্ষস-খোক্ষসপুরী। সবার কানে কানে লাগানো ব্লুটুথ হেডফোন। নেই হাঁকডাক চিৎকার-চেঁচামেচি, অট্টহাসি কোলাহল। গাজীপুর পুবাইল সিনেপাড়ার শুটিং স্পট ভাড়াটে উপকরণ ঘরবাড়ি জমিজিরাত বউ-বাচ্চার মতন পাল্টে গেছে এখানেও রাতারাতি মানুষের জীবনাচার। নতুন করে হাতেখড়ি জীবনাচারের সুফল পেতে কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে কিছুদিন। তবে এটা ঠিক, বর্তমান হয়ে আগামী দিনের ফেসবুকীয় শুদ্ধাচার সবাই মেনে নেন। মানিকনগর গ্রামের মানুষজন এখন পারতপক্ষে কথা বলেন কম। মৌনতা বাড়িয়ে দেয় দীর্ঘজীবন,- রহস্য জেনে কুশল বিনিময়েও তারা সংহত সংযত। দরিদ্র্যতা একমাত্র নরক অভিশাপ জেনে তারা পারতপক্ষে ফেসবুকীয় মনিটাইজেশন শুদ্ধাচারের বাইরে হাঁটেন কম।

এবারের এমপি প্রার্থী মানিকনগর গ্রামের চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন। ফেসবুকীয় মনিটাইজেশন দয়াপানে তাকিয়ে কোনোমতে সংসার চালান। ফেসবুক আছে যার পৃথিবী তার, মুখে স্লোগান হাতে বুড়ো আঙুল ঘষে ঘষে পরশুরাম লাঙল চষে বেড়ান -আট ইঞ্চি চার ইঞ্চি টাচ স্ক্রিনে।

গর্ব করে চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন বলেন- এ ব-দ্বীপের আলম, আদম, রতন, স্বপন, মুরগি-ছাগল চোর, কলম চোর, প্রজেক্ট চোর, ছেচড়া প্রতারক বাটপার যেখানে এমপি হয়ে টেবিল চাপড়ে ভিআইপি হতে পারেন; পুলিশ পাহারায় সাইরেন বাজিয়ে পুলিশ পিটিয়ে হাড়গোড় ভেঙে দিতে পারেন; সে তুলনায় আমি তো ভিআইপি প্রার্থী। কারোর টাকা মেরে খাইনি, দেশের টাকা পাচারের বদনাম নেই, সন্ত্রাস করিনা, দখল বে-দখলে রাখিনি ব্যক্তিগত কিংবা সংখ্যাগুরু লঘু কারোর সম্পদ কিংবা সম্পত্তি। কারোর বউ, মেয়ে ভাগিয়ে বিয়ে করিনি। নারী নিয়ে লটর-পটরের বদনাম নেই। নাচি, গাই, খাই, দাই, এটা-ওটা দেখাই। বানরের মতন লম্পঝম্প দিয়ে ফরেন টাকা ডলারে আনি। দেশের মান-ইজ্জত রুজি-বরকত বাড়িয়ে দিয়েছি সোমালিয়া জলদস্যুদের মতন কয়েকগুণ বেশি। সোমালিয়া নৌবাহিনী সদস্যরা যেমন সরকারি চাকরি শেষে রিটায়ার্ড করে জলদস্যু টিমে কাজ করেন; আমিও আগামী বছর পাঁচেক পরে ফ্রিল্যান্সিং পেশা বেছে নিতে পারব।

জাতীয় সংসদ নির্বাচন এগিয়ে আসছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়ন পরীক্ষা জিতে হুম স্টিকার প্রতীক বরাদ্দ নিয়ে জনমত জরিপে চৌধুরী ময়েজ উদ্দিনের পক্ষে ইউটিউবার অপু ভাই রাঁধুনি শেফালি খালা ভাড়াটিয়া জিহ্বাস্ত্র নিয়ে সেফুদার আকাশচুম্বী স্বপ্ন দেখানো ভোট বিজ্ঞাপন যুদ্ধে ইউটিউবার এমপি প্রার্থী চৌধুরী ময়েজ উদ্দিনই এগিয়ে রইলেন। সবার দেওয়া এটা-ওটা প্রতিশ্রুতি বিজ্ঞাপন যুদ্ধের ডামাডোলে চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন অনলাইন অফলাইনে বললেন, - প্রিয় মানিকনগর কাঞ্চননগর পাইন্দং বেড়াজালী রাঙ্গামাটিয়া নিবাসী, যদি এমপি পদে নির্বাচিত হতে পারি; ইন্টারনেট সেবা ফ্রি পাবেন। সার-কীটনাশক ফ্রির পাশাপাশি মাঠে-ঘাটে সিনেমা-নাটক দেখবেন, ভিডিও কলে কথা বললেন মন চাইলে প্রেম করবেন। পরিবারের সবাইকে চোখে চোখে রাখবেন।

চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন প্রতিশ্রুতি প্রতিজ্ঞা বিজ্ঞাপন দিয়ে বাজিমাত করে সবার মন জিতে এমপি চেয়ারপানে অপেক্ষা করতে থাকেন। মেম্বার হতেও যেরকমের উতলা টেনশন কাজ করে; তার চেয়েও সহজ মনে চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন বিপুল ভোট পেয়ে এমপি হয়ে গেলেন। ছোটখাটো কালভার্ট ব্রিজ অনলাইনে উদ্বোধন করেন। উপজেলা আইনশৃঙ্খলা মিটিং নিয়ে ওসি উপজেলা চেয়ারম্যান ইউএনও নিয়ে আমিত্ব অহঙ্কার নেই বললেই চলে। নিজেও সরকারি কাজের বাইরে অনলাইনে আয় করেন। পার্থক্য এটুকুন, সরকারের টাকা নয়ছয়
করেন না।

চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন- মার্কিন লেখক আর্নেস্ট হেমিংওয়ের সে বিখ্যাত উক্তি- সুযোগ ও পার পেয়ে যাওয়ার নিশ্চয়তা থাকলে সবাই খারাপ ব্যবহার করেন; নিয়ে বেশ সতর্ক ও সংযত। সে সুযোগ পারতপক্ষে এমপি সাহেব কাউকে দেন না। যথারীতি এমপি চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন নিজ এলাকায় হুম অনলাইন হাতেখড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করলেন। হুম একাডেমি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠা করতে প্রাণান্তকর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। দিকে দিকে হুম প্রেম হুম বিচ্ছেদ নির্ঘুম জীবন গতিধারা গড়ে হুম সাহিত্যে- রাতারাতি প্রথাবিরোধী এমপি অমরত্ব এনে দেন।

চিরকালই মানুষ চেয়েছে সুখ-শান্তি। জাগতিক সুখ-দুঃখের বাইরে একমাত্র প্রথাবিরোধী হাতে গোনা কজন ছাড়া হেঁটেছেন কম। লাখো মানুষেতেও প্রথাবিরোধী মানুষ নেই বললেই চলে। তাই তো মানুষের কাছে সুখের বিপরীতে সম্পর্কের গুরুত্ব কম। শখ সুখ আয়েশী জীবনের বিপরীতে মানুষের নির্ঘুম জীবন। হোক না বাবা-মা, সন্তান, স্বামী-স্ত্রী, প্রেমিক-প্রেমিকা, স্বকীয়া-পরকীয়া অজাচার নিষিদ্ধ সম্পর্ক বন্ধু সুজন-কুজন। যেকোনো প্রকারেই হোক না কেন মানুষের সুখ চাই। সে অয়োময় মরীচিকা সুখের খোঁজে মানুষ সময়ের সঙ্গে গা ভাসিয়ে হয়েছেন, যুগে যুগে দেশান্তরী সুখান্তরী। সুখের ধ্রুপদী মহোৎসবে কেউ হয়েছেন মহারাজ সম্রাট; কেউবা পিছিয়ে পড়ে হয়েছেন নিষণ্ন নিষাদী।

সংসদ অধিবেশন সপ্তাহখানেক ধরে মুলতবী। এমপি হোস্টেল ছেড়ে চৌধুরী ময়েজ উদ্দিন নিজের এলাকা পরিদর্শন করতে যাচ্ছেন। হুম হুম অধিবেশন স্পিকার মুখে হুম হুম জয়যুক্ত হয়েছে টেবিল চাপড়িয়ে এরই মাঝে দেশ-বিদেশের ভাইরাল মুখ ময়েজউদ্দিন। এমপি হয়েও ফেসবুকীয় শুদ্ধাচার মনিটাইজেশন সাহিত্যের বাইরে পারতপক্ষে যেতে চান কম। ফ্রি ইন্টারনেট পাওয়ার পরে রাতারাতি পাল্টে গেছে মানিকনগর গ্রামের হালচাল।

কেউ কারোর সঙ্গে মেসেঞ্জার হোয়াটসঅ্যাপ টেলিগ্রাম ছাড়া পারতপক্ষে অধরওষ্ঠ এক করে কথা বলেন কম। বিয়ে-শাদি কনে দেখা হয়ে প্রেম-বাসর দেন-দরবার পর্যন্ত ফেসবুক রিল মনিটাইজেশন বাণিজ্যে সবকিছু সেরে নেন। এলাকায় এমপি হয়ে আসার পরেও কদর নেই তেমন। দান-দয়া নিতেও কেউ আসেন না তেমন। গ্রামের মুরব্বি ছাড়া যুবশক্তি কেউ দেখা করতে চাইছেন না দেখে এমপি চৌধুরী ময়েজউদ্দিন সাহেব বেশ চিন্তিত। কেউ কেউ সরবে নীরবে বলাবলি করে বলেন,- নেই আমাদের পারিবারিক সনাতনী বন্ধন। নেই পরিবার সংসার। নেই বউ-বাচ্চা। মুরব্বিরা ক্রন্দন করে বলেন, বাবা আমাদের বেশি টাকার দরকার নেই। আমরা ইন্টারনেট সংসার চাই না। এনে দাও ঠিক আগের মতন অটুট পারিবারিক বন্ধন। সবকিছু এনে দাও আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম যেমন।

এমপি সাহেবের সরকারি গাড়িতে জাতীয় পতাকা। কানে ব্লুটুথ পরে হেলেদুলে সিংঘম রাজকীয় থোরাই কেয়ার না করে হেঁটে চলেছেন, কিছু কিশোর গ্যাং। সাইট না পেয়ে ফেসবুকীয় শুদ্ধাচার মনিটাইজেশন ধনী কিশোর গ্যাং চোখে চোখ রেখে এমপি সাহেবকে বলেন, ‘আপনি এমপি তাতে আমাদের কী? আপনার কাজ- জনগণের সেবা করা।’ এমপি চৌধুরী ময়েজউদ্দিন প্রটেকশন পুলিশের দিকে তাকালেন। কিশোর গ্যাং এবার- সহজ প্রশিক্ষণ বিশাল মনিটাইজেশন বাণিজ্য যুদ্ধ জেতা গেরিলা কৌশলে মোবাইলে লাইভ চালু রেখে বলেন, আপনারা দেশপ্রেম বোঝেন না; দেশপ্রেমিক মনিটাইজেশন রেমিট্যান্স যোদ্ধা চেনেন না। আপনাদের কে বেতন দেয়? কোথা থেকে আসে বেতন? আপনারা এমপি পুলিশের বেতন এ সহজ-সরল ফেসবুক মনিটাইজেশন যোদ্ধাদের নিকট হতে আসে।

এ কী! মিনিট কয়েকের মাঝে হাজার লক্ষ আবেগীয় পর্যবেক্ষক এমপি পুলিশ নিয়ে নয়ছয় বলে চৌদ্দগোষ্ঠী উদ্ধার করে লাইক-শেয়ারে সারি সারি ফোরাত কারবালা বেদনাশ্রু বইয়ে দিচ্ছেন। কিশোর গ্যাং বেধনাস্ত্র হয়ে অনেক টাকা কামাই করে নিলেন। ফেসবুকীয় পৃথিবী দ্বীপের ভরাট বেদনার। ব-দ্বীপের ঘরে ঘরেও চলছে ফেসবুকীয় লাভ বারমুডা ট্রায়াঙ্গল। সে ট্রায়াঙ্গলে নেই লজ্জা-শরম নামের কোনো নৌযান সাগরযান কিংবা ডুবোযান। ঘরে ঘরে চলছে অন্তর্জাল চিৎকার হাহাকার। সংসার নেই, সংসার কই আমার? ক্রন্দন। কোথায় স্ত্রী-পুত্র-কন্যা, পিতা-মাতা, পরিজন প্রেমিক-প্রেমিকা আমার-তোমার-তার?

ঢাকা মোহাম্মদপুর তাজমহল সড়কের সি ব্লক, গোশালা কোচিং সেন্টারে চলছে ফেসবুক মনিটাইজেশন শোকের মাতম। গোশালা মালিক পি সরকার, সংসার কই? আমার সংসার কই? বলে হাপিত্যেশ করে চলেছেন। খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছেন, তার ফেসবুকীয় মনিটাইজেশন সংসারে অন্য কেউ সংসার পেতে বসে আছেন। মাঝেমধ্যে টেস্টোস্টেরন হরমোন মেডিসিন গিলে আবেগহীন দায়সারা কণ্ঠে চিৎকার করে বলেন- শিমুল, তুমি কই? তুমি কই? কোথাও খুঁজে পাচ্ছি না কেন যেন তোমায়! দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে গেছে তোমার দেহ-মন; আমি সুখের সংসার করতে চাই। পৃথিবীদ্বীপ ব-দ্বীপের ঘরে ঘরে চলছে সুখে সংসার করার তীব্র হাহাকার শোকের মাতম।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও কবি পুলিশ পরিদর্শক, বাংলাদেশ পুলিশ।


গুণগত রাজনৈতিক সংস্কৃতিচর্চার সংকট

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
ড. সুলতান মাহমুদ রানা

যেকোনো নির্বাচন সামনে এলেই গুণগত রাজনীতির প্রসঙ্গ চলে আসে। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে রাজনীতি এখন বেশ চাঙ্গা। ইতোমধ্যেই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা ও আচরণবিধিমালায় বেশকিছু সংশোধনী এসেছে। সংশোধনীতে চেয়ারম্যান পদে জামানতের পরিমাণ ১০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে এক লাখ টাকা করা হয়েছে। আর ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামানত পাঁচ হাজার টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৭৫ হাজার টাকা। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রাার্থী হতে ২৫০ জন ভোটারের সমর্থনসূচক সইয়ের যে তালিকা মনোনয়নপত্রের সঙ্গে জমা দিতে হতো, এবার তা বাদ দেওয়া হয়েছে। আসন্ন উপজেলা নির্বাচন থেকেই এসব বিধান কার্যকর হবে।

ধারণা করা যাচ্ছে, জামানত বাড়ানোর ফলে সৎ লোকদের প্রার্থী হতে বেগ পেতে হবে। যারা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত কিংবা যাদের আয়ের অন্য কোনো উৎস রয়েছে শুধু তাদের জন্যই সহজ হবে। উপজেলা নির্বাচনে সাদাকালোর পাশাপাশি রঙিন পোস্টার ও ব্যানার করতে পারবেন প্রার্থীরা। এতে ধনীদের প্রার্থিতায় বেশ সুবিধা পাবে। এতে নির্বাচনে বৈষম্য তৈরি হবে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। মূলত যারা সচ্ছল তাদের জন্য তো এটা কোনো বিষয় নয়, কিন্তু অনেক প্রার্থী আছেন, যাদের জনগণ পছন্দ করে, তারা অর্থনৈতিক দিক দিয়ে দুর্বল, অন্যান্য দিক দিয়ে ভালো। তাদের জন্য বেশ অসুবিধাই হবে। ইতোমধ্যেই আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে প্রভাবমুক্ত রাখতে আওয়ামী লীগের এমপি-মন্ত্রীদের আত্মীয়-স্বজনদের প্রার্থী হতে নিষেধ করেছেন দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলীয় কোন্দল নিরসন এবং নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক করতেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে দায়িত্বশীল নেতাদের বক্তব্য থেকে পরিষ্কার হওয়া গেছে।

গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের ছেলে, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের শ্যালক, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাকের ভাগ্নেকে নির্বাচনে প্রার্থী না হওয়ার জন্য ফোন করে দলের হাইকমান্ড থেকে জানানো হয়েছে। পরক্ষণেই এটাও আমরা লক্ষ্য করেছি যে, সংশ্লিষ্টদের কেউ কেই তাদের আত্মীয়কে ভোটে প্রার্থী না হতে বলেছেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এটি কোনো চূড়ান্ত সমাধান নয়। এমপি-মন্ত্রীদেও আত্মীয়-পরিজন নিজ যোগ্যতাতেই দলীয় পদ-পদবি পেতে পারেন। অথবা তারা নির্বাচনের জন্য যোগ্য হতে পারেন। কিন্তু প্রভাবশালী আত্মীয়ের প্রভাবমুক্ত হয়ে নির্বাচনে অংশ নেয়ার বিষয়টি অধিক গুরুত্বপূর্ণ। বিএনপি ভোট বর্জন করায় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন। দীর্ঘদিন দল ক্ষমতায় থাকায় অনেকের অর্থবিত্তের পরিমাণ বাড়ায় অনেকেই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচন করতে চান। এখন যারা অর্থবিত্ত কিংবা সম্পদশালী তাদের বেশিরভাগই ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গেও ওতপ্রোতভাবে জড়িত। দলের স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সখ্য বাড়িয়ে অনেক ক্ষেত্রেই তাদের কেউ কেউ প্রার্থী হিসেবে ফেভার পাচ্ছেন। সম্প্রতি সাধারণত লক্ষ্য করা যাচ্ছে, স্থানীয় পর্যায়ে অর্থনৈতিকভাবে প্রভাবশালীরা প্রভাব বিস্তার করার জন্য নানা মেকানিজম করে থাকেন। এসব ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, প্রকৃত নিবেদিত নেতা যারা তারা অনেক ক্ষেত্রে নির্বাচিত হতে পারেন না। অর্থনৈতিকভাবে এবং পেশিশক্তিতে বলিয়ানরাই নির্বাচিত হয়ে আসে। কারণ তারা মাঠ পর্যায়ে অনৈতিকভাবে মেকানিজম প্রয়োগ করে ভোট তাদের নিজেদের ফেভারে নিয়ে আসতে পারে।

রাজনীতিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা ও ক্ষমতা পাশাপাশি অবস্থান করায় শক্ত প্রতিপক্ষ ক্রমেই দুর্বল হওয়ায় নিজের দলের মধ্যে দ্ব›দ্ব, সংঘাত ও কোন্দলের মাত্রাও বেড়েছে যথেষ্ট। বিশেষ করে একই ব্যক্তি বারবার সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাওয়ায় এবং দলের অন্যান্য নিবেদিত বঞ্চিত হওয়ায় এ ধরনের প্রতিযোগিতার মাত্রা বেড়েছে। জাতীয় রাজনীতি থেকে শুরু করে প্রতিটি ক্ষেত্রে নিজ অঙ্গ সংগঠনগুলোতেও এমন প্রবণতা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। এ কথা বলার অবকাশ নেই যে, সরকার পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রীর আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে রয়েছে। সাম্প্রতিককালে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য-বিবৃতি, কার্যক্রম এবং অর্জন আত্মবিশ্বাসের বিষয়টি প্রমাণ করছে বারবার। তবে একদিকে যেমন আত্মবিশ্বাস বাড়ছে অন্যদিকে নিজেদেরকে যথাযথভাবে মজবুত করতে না পারার দীর্ঘশ্বাসও দীর্ঘ হচ্ছে। দলের অভ্যন্তরীণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা সচেতন মহলকেও যথেষ্ট ভাবিয়ে তুলেছে। সঙ্গত কারণেই আগামী দিনগুলোতে আওয়ামী লীগের রাজনীতির মাঠে নিজেরাই নিজেদের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়ানোর শঙ্কা তৈরি করেছে।

আমাদের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে কার্যকর করতে এবং জাতি হিসেবে নিজেদেরকে এগিয়ে নিতে হলে বিরাজমান রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন আনার বিকল্প নেই। আর এজন্য প্রথমেই প্রয়োজন হবে রাষ্ট্রের সর্বস্তরে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষে উপযুক্ত পদ্ধতি গ্রহণ করা। পদ্ধতিই রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মানসিকতার পরিবর্তন ঘটাবে। আর মানসিকতার পরিবর্তন হলেই আচরণ বদলাবে এবং আচরণ বদলালেই রাজনীতিতে পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধা ও সহযোগিতাভিত্তিক সংস্কৃতি সৃষ্টির পথ প্রশস্ত হবে, ঘৃণাবোধের অবসান ঘটবে। একথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, রাজনীতিতে প্রতিহিংসাপরায়নতা ও ঘৃণাবোধের পরিণতি ভয়ঙ্কর হতে বাধ্য। মহাত্মা গান্ধী বলেছিলেন যে, চোখের বদলে চোখ নিলে সারা পৃথিবী অন্ধ হয়ে যায়। বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতিকে যদি গভীরভাবে বিশ্লেষণ করা যায় তাহলে একটি বিষয় খুব সুস্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হয় যে, ক্ষমতায় থাকলে রাজনৈতিক দলগুলোর মানসিকতা এবং ক্ষমতায় না থাকলে তাদের মানসিকতা স্ববিরোধী আচরণের শামিল। রাজনৈতিক সংস্কৃতির গুরুত্বপূর্ণ গুণগত পরিবর্তন মোটামুটিভাবে আমাদের একটি জাতীয় অঙ্গীকার ও সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে। সাধারণ জনগণও মনে-প্রাণে তা চায়। কিন্তু তা সত্তে¡ও সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের শ্রদ্ধাভাজন রাজনীতিবিদদের পক্ষ থেকে ঘৃণা বা প্রতিহিংসার রাজনীতি বন্ধ করার কোনো উদ্যোগই লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। বরং মনে হয় যে, মাননীয় সংসদ সদস্য থেকে শুরু করে সকল নেতা-কর্মী দলীয় প্রধানকে খুশি করার জন্যই যেন এমন অশুভ প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়েছেন। গোটা জাতি আজ এমন অশুভ প্রতিযোগিতায় আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে।

বাংলাদেশে নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় যারা যান, তারা রাতারাতি রাষ্ট্রের সবকিছুর ‘মালিক’ বনে যান। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল থেকে শুরু করে বাস টার্মিনাল পর্যন্ত সবকিছুই দখলে নিয়ে নেন। আর এগুলো অনেক ক্ষেত্রে তারা কর্মী-সমর্থক ও আপনজনদের মধ্যে ফায়দা হিসেবে বিতরণ করেন। এভাবে আমাদের রাজনৈতিক দলগুলো গণতন্ত্রের ধারক-বাহক না হয়ে বহুলাংশে সিন্ডিকেটের রূপ ধারণ করে। একমাত্র গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রেই দলের প্রয়োজন হয়। দলের সৃষ্টি নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় গিয়ে সুনির্দিষ্ট আদর্শ বা কর্মসূচি বাস্তবায়ন, রাষ্ট্রীয় সম্পদ নিজেদের সমর্থকদের মধ্যে বিতরণ নয়। তাই সত্যিকারের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে দলবাজি এবং ফায়দাবাজির কোনো অবকাশ নেই। কারণ রাষ্ট্রের সব সম্পদের মালিক জনগণ এবং সরকারের দায়িত্ব ‘রাগ বা বিরাগের বশবর্তী’ না হয়ে দল-মত নির্বিশেষে নাগরিকদের অধিকার ও স্বার্থ রক্ষা করা। ক্ষমতাসীনরা অনেকক্ষেত্রেই ক্ষমতার অপব্যবহার করে দুর্নীতি-দুবৃর্ত্তায়নে লিপ্ত হয়ে পার পেয়ে যান। রাজনীতিকে যারা জনকল্যাণের পরিবর্তে ব্যবসায়িক হাতিয়ারে পরিণত করেছেন, তাদের করাল গ্রাস থেকে রাজনীতিকে মুক্ত না করতে পারলে এর বিপরীতে অগণতান্ত্রিক শক্তির ক্ষমতায়ন আসবে। যা ভবিষ্যতে ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতে পারে। এজন্য প্রয়োজন হবে রাজনীতিবিদদের সর্বক্ষেত্রে নৈতিক আচরণ। নৈতিকতা বিবর্জিত রাজনীতি ভণ্ডামির শামিল। রাজনীতিতে অনৈতিকতার অবসান ঘটলেই রাজনৈতিক সংস্কৃতি বদলের পথ সুগম হবে। রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে পরিবর্তনের জন্য একই সঙ্গে প্রয়োজন হবে গণতান্ত্রিক রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করার জন্য উপযুক্ত ডিজাইন গ্রহণ করা। সে জন্য গণতান্ত্রিক ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের জন্য স্থানীয় পর্যায়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এ পদ্ধতি চালু হলে রাজনীতিতে জনগণের ক্ষমতায়নের যাত্রা শুরু হবে। পদ্ধতিই দুর্নীতিবাজ-দুবৃর্ত্তদেরকে রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে বিতাড়িত করবে। সে সঙ্গে রাজনীতিতে সহিষ্ণুতা ও শিষ্টাচারসহ রাজনীতিতে অনৈতিকতার অবসান, রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় নিয়মতান্ত্রিকতার প্রতিষ্ঠা পাবে। এখন আমাদের রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনের জন্য আরও বেশি প্রয়োজন সময়োপযোগী বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা চালু করা।

লেখক: অধ্যাপক, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

বিষয়:

নির্বাচনের মাধ্যমে যোগ্য প্রতিনিধি নির্বাচন করা সকলের দায়িত্ব

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
হীরেন পণ্ডিত

নির্বাচন হচ্ছে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় জনগণের মতামত প্রতিফলনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। নির্বাচনের মাধ্যমেই জনগণ তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করেন এবং প্রতিনিধির মাধ্যমেই জনগণের প্রত্যাশা পূরণ হয়ে থাকে। একটি সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচনের জন্য প্রয়োজন নির্বাহী বিভাগসহ জনগণের সক্রিয় সহযোগিতা। রাজনৈতিক দলগুলোকে এ লক্ষ্যে এগিয়ে আসতে হবে। গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকায় মানুষের ভোটের অধিকার নিশ্চিত হয়েছে। বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে বিশ্বাস করে, সংঘাতে নয়। সেই শান্তি বজায় রাখার জন্য যা যা করণীয় প্রয়োজন তা নিশ্চিত করতে হবে।

আপনি কেন ভোট দেবেন? ভোট আপনার সংবিধানিক অধিকার, ভোট দিয়ে আপনার অধিকার প্রতিষ্ঠা করা আপনার নাগরিক দায়িত্ব। আপনার পছন্দের প্রার্থী বেছে নিতে হবে, আপনার এলাকার উন্নয়নের জন্য নিবেদিত এমন প্রার্থী বাছাই করতে হবে। আপনার এলাকার উন্নয়নের জন্য আপনাকে সহযোগিতা করতে হবে। আপনার দায়িত্ব দেশের গণতন্ত্রকে সুরক্ষিত ও সুসংহত করা। দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক প্রতিহত করতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। শান্তি ও উন্নয়নের পক্ষে ভোট দিয়ে আপনার স্বাধীনতা, আপনার নাগরিক অধিকার, আপনার ভবিষ্যৎ বংশধরদের জন্য উন্নত জীবন নিশ্চিত করতে হবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উন্নয়নকে শক্তিশালী ও গতিশীল করতে সকলকেই নির্বাচনে অংশ নিতে হবে। ২০০৯ সাল থেকে ২০২৪ অর্থাৎ আজ পর্যন্ত আমাদের দেশের উন্নয়ন ও জীবন মান উন্নত হয়েছে, উন্নয়নের এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখা সবার দায়িত্ব। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে হত্যা ক্যু ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি বন্ধ করেছে। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের প্রক্রিয়া বন্ধ হয়েছে। গণতন্ত্র সুরক্ষিত ও সুসংহত হয়েছে। আপনার গণতান্ত্রিক অধিকার ভোটের মাধ্যমে নিশ্চিত করতে হবে, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে।

উন্নয়নের পাশাপাশি গণতান্ত্রিক ধারাও অব্যাহত রাখার প্রয়োজন রয়েছে। দেশে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হলে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করে, গণতন্ত্র ও উন্নয়ন একসঙ্গে চলে। সুন্দর ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশনের যেমন দায়িত্ব রয়েছে তেমনি নির্বাহী বিভাগসহ সংশ্লিষ্টদের দায়িত্ব রয়েছে। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সাংবিধানিক রীতি-নীতি ও বিধিবিধান অনুসরণ করে কমিশনকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

২০০৮ সালে নির্বাচনের পর থেকে শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকায় মানুষের ভোটের অধিকার, ভাতের অধিকার নিশ্চিত হয়েছে এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারা অব্যাহত আছে। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে, বাংলাদেশ বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলবে। বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে সরকার। অবকাঠামো উন্নয়ন হয়েছে, পদ্মা সেতুর মতো সেতু নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ করে সারা বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলেছিলেন, ‘কেউ দাবায়া রাখতে পারবা না’, বাঙালিদের কেউ দাবায়া রাখতে পারেনি-পারবে না।'

২০০৮ সালে নির্বাচনের পর এই ২০২৪ সাল চলমান এই সময়ে দেশে একটা শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজমান, গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত বলেই আজকে মানুষের ভোটের অধিকার নিশ্চিত হয়েছে, ভাতের অধিকার নিশ্চিত হয়েছে। গণতান্ত্রিক ধারা নিশ্চিত হয়েছে এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারা অব্যাহত আছে। ২০২৪ সাল পর্যন্ত আজকে আমাদের অগ্রগতি স্থিতিশীল পরিবেশের জন্যই সম্ভব হয়েছে, এ কথাটা সকলকে মনে রাখতে হবে। স্থিতিশীল শান্তিপূর্ণ পরিবেশই পারে একটি দেশকে উন্নয়নের ধারায় গতিশীল করতে এবং উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

বাংলাদেশ আজকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলে জাতির পিতা আমাদের অন্তত একটা জায়গায় এনেছিলেন। আমরা সেখান আজকে উত্তরণ ঘটিয়ে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে বাংলাদেশ, ২০২৬ সাল থেকে আমরা তা বাস্তবায়ন করব। আর ২০৪১ সালের মধ্যে এই বাংলাদেশ হবে উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ হবে স্মার্ট বাংলাদেশ। আগামীর উদীয়মান অর্থনীতি ও বিশ্বরোল মডেলে বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে উন্নয়নের গণতন্ত্র নামে নতুন যে শ্লোগান চালু হয়েছে তা অব্যাহত থাকবে।

গণতান্ত্রিক নির্বাচন ব্যবস্থায় ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থন প্রতিনিধি নির্বাচন করে। জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে জনগণের প্রতিনিধি নির্বাচনের জন্য রাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিকের সমান ভোটাধিকার থাকে। খাদ্য-বস্ত্রসহ অন্য অধিকারগুলোর মতো ভোট দেয়ার অধিকারও এক ধরণের নাগরিক অধিকার। সবার ওপরের দিকের নাগরিক অধিকারগুলোর মধ্যে ভোট দেয়ার অধিকার অন্যতম। প্রত্যেক নাগরিক চায় ১৮ বছর হলে দেশ কার দ্বারা পরিচালিত হবে, আমি কার দ্বারা পরিচালিত হবো, আমার শহরটা, আমার এলাকাটা কার দ্বারা পরিচালিত হবে। ওরকম একটা জায়গা থেকে ভোটের অধিকারটা অনেক বড় একটা বিষয়।

ভোটের পুরো আয়োজনটাই ভোটারদের জন্য। প্রার্থীরা যখন নির্বাচনে অংশ নেন তখন ভোটারদের কাছেই ভোট চাইতে যান। এটাই নির্বাচনের মূল স্পিরিট। নির্বাচনের আইন অনুযায়ী, ভোটের দিন ভোটাররা কেন্দ্রে আসবেন, নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বরত কর্মকর্তা পরিচয় নিশ্চিত করার পর একজন ভোটার তার পছন্দের প্রার্থী বাছাই করতে ভোট দিবেন।

গত ১৫ বছরে পদ্মাসেতু, মেট্রোরেল, নতুন ফ্লাইওভার, এক্সপ্রেসওয়ে, টানেল, নতুন-নতুন রাস্তা, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথের মতো বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে নিয়ম-নীতি ও শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য নিরলস চেষ্টা চলছে, দুর্নীতির লাগাম টেনে ধরার লক্ষ্যে কাজ করছে, বাজার ব্যবস্থাপনায় স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে প্রচেষ্টা চলছে, কর্মসংস্থান সৃষ্টি করার লক্ষ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। শিক্ষাব্যবস্থায় দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টি করার জন্য কাজ চলছে এবং তা বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর মধ্যে একটি ইতিবাচক প্রভাব পড়ছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের চেহারা বদলে দিয়েছেন, তা একসময় ছিল অবিশ্বাস্য ও অকল্পনীয় ছিলো। এবারের ১১টি খাতকে চিহ্নিত করে পরিবর্তন আনার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন সেটি দেশবাসীকে নতুনভাবে আশান্বিত করেছে ও জনগণ সেই সফল পেতে শুরু করেছে।

বিশ্ব অর্থনীতি চারটি বড় চ্যালেঞ্জের সামনে দাঁড়িয়ে আছে, জলবায়ু পরিবর্তন, যুবদের কর্মসংস্থান, অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং বিশ্বায়নের গ্রহণযোগ্য কাঠামোর অনুসন্ধান। নতুন সৃজনশীল কার্যকর সমাধানের পথ খুঁজে বের করার লক্ষ্যে কাজ চলছে। জলবায়ু পরিবর্তন সবচেয়ে ভীতিকর অবস্থায় রয়েছে তা দূর করার জন্য কাজ করছে।

সামাজিক রূপান্তর ও কল্যাণমূলক রাষ্ট্র সাহায্য করতে পারে, তবে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হলো স্বল্পশিক্ষিত শ্রমিকদের জন্য ভালো কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি করা ও নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টিও গুরুত্বপূর্ণ। বেশি বেশি কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করার জন্য কাজ চলছে। দুর্নীতি ও সুশাসনকেও বিশেষভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, কর্মযোগী শিক্ষা ও যুবকদের কর্মসংস্থান নিশ্চিতকরণ, আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর স্মার্ট বাংলাদেশ গঠন, লাভজনক কৃষির লক্ষ্যে সমন্বিত কৃষিব্যবস্থা, যান্ত্রিকীকরণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণে বিনিয়োগ বৃদ্ধি, দৃশ্যমান অবকাঠামোর সুবিধা নিয়ে এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধি করে শিল্পের প্রসার ঘটানো, ব্যাংকসহ আর্থিক খাতে দক্ষতা ও সক্ষমতা বৃদ্ধি, নিম্ন আয়ের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা সুলভ করা, সর্বজনীন পেনশনব্যবস্থায় সবাইকে যুক্ত করা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কার্যকারিতা ও জবাবদিহি নিশ্চিতকরণ,

সাম্প্রদায়িকতা ও সব ধরনের সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ রোধ করা এবং সর্বস্তরে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা সুরক্ষা ও চর্চার প্রসার ঘটানোর জন্য সরকারের গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগুলো সবার প্রশংসা লাভ করেছে।

দুর্নীতি এখনো বাংলাদেশের প্রধান সমস্যা। ২০১৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে আওয়ামী লীগ দুর্নীতির ব্যাপারে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণের অঙ্গীকার করেছিল, কিন্তু সরকার এ অঙ্গীকার পূরণকে খুব একটা সফলতার মুখ দেখেনি। তবে ২০২৪ এর নির্বাচনে জয়লাভের পর দুর্নীতি বন্ধ করতে বদ্ধপরিকর। বিশ্বব্যাপী নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের অসহনীয় ঊর্ধ্বগতি ও ডলার-জ্বালানিসংকটে জনজীবন বিপর্যস্ত। রাশিয়া-ইউক্রেন ও ইসরায়েল-ফিলিস্তিন যুদ্ধসহ নানামুখী সমস্যায় বৈশ্বিক আর্থসামাজিক ব্যবস্থা পর্যুদস্ত। এ সংকট খুব শিগগিরই দূরীভূত হওয়ার নয়।

দেশের অর্থনীতিকে মোটামুটি সচল রাখা পোশাকশিল্পেও নৈরাজ্য সৃষ্টি হতে দেখা যায়। কতিপয় সুযোগসন্ধানী অনাকাক্সিক্ষত কর্মকান্ড চালানোর চেষ্টা করেছে। একের পর এক হরতাল-অবরোধে পণ্য আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হয়েছে। দেশের রাজনৈতিক অস্থিরতায় একসঙ্গে যতগুলো সংকট এসেছে, তা অতীতে কখনো মোকাবিলা করতে হয়নি। সেটারই নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে আমাদের ওপর। বাইরের এ ধরনের সংকট এলে আমরা ঠেকাতে পারব না। আমরা কোনো রকম রাজনৈতিক অস্থিরতা চাই না, হরতাল-অবরোধ চাই না। এসব করে অর্থনৈতিক সংকটকে আরও গভীর করা হয়েছে। কাজেই দেশের স্বার্থে, শিল্পের স্বার্থে সংকটগুলো সমাধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।

নির্বাচনের পর নতুন সরকারকে বর্তমান অর্থনৈতিক সংকট থেকে উত্তরণে বিভিন্ন ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে তা না হলে রিজার্ভ-রেমিট্যান্স, রপ্তানি আয় ছাড়াও রাজস্ব ও ব্যাংক খাত নিয়ে যে ভয়াবহ উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া কঠিন হবে। অর্থনীতিকে স্থিতিশীল অবস্থায় নিয়ে আসাই হবে নতুন সরকারের বড় চ্যালেঞ্জ।

দ্রব্যমূল্য, মুদ্রার বিনিময় হার এবং ব্যাংকঋণের সুদের হার নিয়ে কাজ করতে হবে। কিছু স্বল্প ও মধ্যমেয়াদি কর্মসূচি দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার কারণে দেশের ব্যাংক বা অন্য কোনো খাতে যেন কাঠামোগত সংকট দেখা না দেয় এবং বৈদেশিক দায়দেনা পরিশোধের ক্ষেত্রেও যেন কোনো সমস্যা তৈরি না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

সরকার আইএমএফ ও অন্য দাতাদের কাছ থেকে যেসব সংস্কারের শর্তে ঋণ পাচ্ছে, নির্বাচনের পর সেগুলো বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে না পারলে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানো ব্যাপারে শঙ্কা তৈরি হতে পারে বলে প্রতীয়মান হয়। বড় ধরনের কোনো সংস্কার ছাড়া অর্থনীতির সংকট মোকাবিলা করা কঠিন হবে। কাজেই অর্থনীতির চাকাকে সচল করতে হলে বেশ কিছু নতুন পদক্ষেপ প্রয়োজন, তার ওপরই অর্থনীতির সংকট উত্তরণ নির্ভর করবে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক সংস্কৃতির পরিবর্তন।

আমাদের মানসম্মত ও কারিগরী শিক্ষার ওপর নজর দিতে হবে। শিক্ষা শেষ করে লাখ লাখ তরুণ দক্ষতার অভাবের কারণে চাকরি খুঁজে পায় না। দেশের অভ্যন্তরে যেমন শিক্ষিত দক্ষ জনশক্তির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে, প্রবাসেও বাংলাদেশ থেকে দক্ষ প্রযুক্তিজ্ঞানসম্পন্ন জনসম্পদের চাহিদা রয়েছে। শিক্ষাব্যবস্থার মধ্যে শৃঙ্খলা, ব্যবস্থাপনা, দক্ষ ও মেধাবী প্রশিক্ষিত শিক্ষক নিয়োগের কোনো বিকল্প নেই।

আমাদের কৃষিব্যবস্থার ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিনির্ভর কৃষিব্যবস্থা চালুর মাধ্যমে বহুমুখী ফসল উৎপাদন, সরবরাহ, বিপণনব্যবস্থা, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং আধুনিক যান্ত্রিক ব্যবস্থার প্রয়োগ করেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে হবে। কৃষিব্যবস্থাকে আধুনিকায়নের মাধ্যমে বাজারব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত করার ওপর গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে হবে।

সংকট দূর করে উন্নয়নের পথে দেশকে এগিয়ে নিতে অনুকূল পরিবেশের কোনো বিকল্প নেই। রাজনীতিতে স্থিতিশীলতা ও সহিষ্ণুতা না থাকলে অর্থনৈতিক উন্নয়ন কখনো টেকসই হয় না। নানা ধরনের প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডকে সচল রাখতে হলে সুষ্ঠু পরিকল্পনা ও সুশাসন দরকার। যেকোনো সমস্যা সমাধানে যৌক্তিক আলাপ-আলোচনা ও সমঝোতায় দল-মতনির্বিশেষে প্রত্যেক নাগরিককে নিজের অবস্থান থেকে যথাযথ ভূমিকা পালন করতে হবে। এ ক্ষেত্রে জনসচেতনতার পাশাপাশি জনমত গঠন জরুরি। সব অপতৎপরতা
প্রতিরোধ করে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের দেশ গঠনে মনোযোগ দিতে হবে।

বাংলাদেশকে শুধু তৈরি পোশাকশিল্পের ওপর নির্ভরশীল না থেকে শিল্পের বহুমুখীকরণের দিকে এখনই গুরুত্ব দিতে হবে এবং রপ্তানী বহুমুখী করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক জোন তৈরি করেছেন। সেগুলোকে কীভাবে কাজে লাগানো, বিদেশি উদ্যোক্তাদের আকৃষ্ট করা ও বিনিয়োগকে উৎসাহিত করা যায়, সে বিষয়ে শিল্প মন্ত্রণালয় অংশীজনদের সঙ্গে কাজ করতে পারে। আমাদের সমাজে দুর্নীতি নানাভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। সমাজে যোগ্য মেধাবী, দক্ষ ও অভিজ্ঞরা ভূমিকা রাখার সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে। সব ধরনের প্রতিষ্ঠান, ব্যবসা-বাণিজ্য, আমদানি-রপ্তানি, সেবা, পরিষেবায় স্বচ্ছতা নিয়ে আসতে হবে।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও গবেষক


আর কত সালমান আজাদীর সড়কে ঘটবে প্রয়াণ?

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
আমিরুল ইসলাম বাপন

বেঁচে থাকার চেয়ে বড় কোনো সাফল্য নেই। সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার এই সাফল্যের পেছনে ছুটে ছুটে যেতে হয় নানা জায়গায়, চড়তে হয় গাড়িতে। তাতে কখনো স্বপ্রাণে ফেরা হয় কখনোবা প্রাণহীন নিথর দেহ ফেরে বাড়িতে। প্রাণহানি আর লাশ টানাটানির আহাজারিতে কান্নায় ফেটে পড়া স্বজনের করার থাকে না কিছুই। কখনো করার থাকলেও তা হয় নির্লাভ শ্রম ও সময়ব্যয়; কিন্তু যাদের করার আছে বা করার থাকে, তাদের উদ্বেগহীন ও নিষ্ক্রিয়তায় ঝরতে থাকা এসব অকাল প্রয়াণের দায় কার?

জীবন কেড়ে নেওয়া এমনই এক মরনফাঁদে পরিণত হওয়া ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক। প্রায় প্রতি মাসেই একাধিক দুর্ঘটনায় আহত-নিহতের সংখ্যায় ভারি হয়ে আছে খবরের কাগজ। কদিন পরপরই পত্রিকার পাতায় কিংবা ফেইসবুকের নিউজফিড স্ক্রলে সামনে ভেসে আসা এমন খবরে আঁতকে উঠতে হয়। স্বজন হারানোর উৎকণ্ঠায় এমন খবর পড়া কিংবা ছবি খোঁজার ঘটনা সত্যিই হৃদয়বিদারক।

যেমনভাবে সেদিন হঠাৎ করেই ফেসবুকের নিউজফিডে চোখ আটকে থ-খেয়ে যেতে হলো। ময়মনসিংহের উদ্দেশ্যে বের হওয়া নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংগীতশিল্পী সালমান আজাদী ময়মনসিংহ পৌঁছালেও ছিল না দেহে প্রাণ। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মৃত ঘোষণার খবরে স্বজন-প্রিয়জনের আহত কণ্ঠে বাজে কান্নার গান। এভাবে আর কত সালমান আজাদীর সড়কে ঘটবে প্রয়াণ?

যার যায় চিরতরেই যায় কিংবা থাকলেও হয় চির ভোগান্তির কারণ। জীবন, পরিবার ও সমাজকে দুর্বিষহ করে নেমে আসা এসব বিপর্যয় আত্মীয়-স্বজনসহ পুরো পরিবারের বুকে শেলের মতো বিঁধে থাকে আজীবন, যেই শোকের জীবনব্যাপী স্মৃতিচারণ মৃত্যুর চেয়েও মারে অধিক মারণ। আর মৃত্যু খেয়ে বেঁচে গেলেও পঙ্গুত্বকে ধারণ করে বাঁচার বিরুদ্ধে লড়তে হয় আমরণ ।

কর্মক্ষম ব্যক্তির পঙ্গুত্বে বা হারানোর শোকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত পরিবার হেরে গিয়েও অভাবকে রুখতে দাঁড়ায়, কিন্তু এ দাঁড়ানোয় কতটুকুই রুখতে পারে আর? ভাগ্যের চাকায় ধাক্কা খেয়ে খেয়ে কোনোভাবে এগোয় এসব দুর্ভিক্ষের সংসার। এ রকম কোনো অসহায় পরিবার কখনো কোথাও ঠাঁই পায় কি না সে খবর জানা থাকে না কারোর। ঠাঁই না পেলেইবা কি আসে যায় কার; কিন্তু যায়, দেশ হারায় জাতির কোনো সম্ভাবনাময় কর্ণধার।

সড়ক দুর্ঘটনায় রাষ্ট্রিক ক্ষতির পরিমাণও কি সামান্য? দেখা যায়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষণায় দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় বছরে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ পৌঁছে প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকায়। এমন দুর্ঘটনার প্রভাবে দেশ বছরে জিডিপির ২-৩ শতাংশ হারায়। এরপরেও কিভাবে রোধের চেয়ে এসব দুর্ঘটনার সংখ্যা বৃদ্ধি পায়? কারণ সড়ক দুর্ঘটনা রোধের নেই কোনো যথাযথ ব্যবস্থা বা কার্যকর উপায়।

ঢাকা-ময়মনসিংহ ১২০ কিলোমিটার দূরত্বের এই মহাসড়কে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকাগুলো হচ্ছে শিকারিকান্দা, কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সীমানা, বইলর বাজারের পূর্বাংশ, ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে, ত্রিশাল জিরো পয়েন্ট, চেলের ঘাট, ভরাডোবা, ভালুকা ডিগ্রি কলেজের সামনের ইউটার্ন ও ভালুকা পল্লি বিদ্যুৎ অফিসের সামনের অংশ। এসব এলাকায় গাড়ির গতি সব সময় সীমিত রাখার নির্দেশনা থাকলেও চালকে না মানায় নিয়ম করেই ঘটে চলছে দুর্ঘটনা।

মহাসড়কে বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল ও তিন চাকার অবৈধ যানের অবাধ চলাচলকেই এই মরণফাঁদ দুর্ঘটনার জন্য দায়ী করা হচ্ছে। যেখানে দুর্ঘটনা ঘটানো গাড়িগুলো হচ্ছে সিএনজি-ট্রাক-বাস, অটোরিকশা-ট্রাক-বাস, মোটরসাইকেল-ট্রাক-বাস, কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-বাস।

কাভার্ডভ্যান, সিএনজি, অটো রিকশার বেপরোয়া গতিতে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছাতে চাওয়ার কারণেই ঘটছে এসব দুর্ঘটনা, যার জন্য দায়ী বেগতিক চালক ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের (বিআরটিএ) তথ্যমতে, ২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ময়মনসিংহ বিভাগে মোট ৬৪টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬১ জন নিহত ও ৮১ জন আহতের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে মোটরযান, কাভার্ডভ্যান এবং অটো-রিকশা দুর্ঘটনা ও এসব দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা।

এখনই সজাগ না হলে, উপযোগী ব্যবস্থা না নিলে এসব দুর্ঘটনা ও ক্ষতির পরিমাণ বাড়তেই থাকবে। যা শুধু ব্যক্তি, পরিবার কিংবা নির্দিষ্ট কোনো এলাকার জন্যই হুমকি নয় বরং গোটা রাষ্ট্রের জন্যও অর্থনৈতিক ক্ষতির কারণ। কাজেই কর্তা ব্যক্তিদের টনক নড়ার শেষ সময় এখনই বয়ে যায়।

এসব সমস্যার সমাধানকল্পে শঙ্কাজনক জায়গাগুলোতে সার্বক্ষণিক তদারকি ও পুলিশি টহলের ব্যবস্থা করা, নিয়মনীতিহীনভাবে চলা গাড়িগুলোকে নিয়মের আওতায় আনা, তিন চাকার অবৈধ যান চলাচল বন্ধ করা, গতি নিয়ন্ত্রণ করানো ও অতিরিক্ত মাল বহন রোধ করা জরুরি। আয় বৃদ্ধির প্রচেষ্টায় চালকের ওপর মানসিক চাপ সৃষ্টি না করে পরিবহণ মালিকরাও এ ব্যাপারে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। চালক যাতে বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালিয়ে বাড়তি ট্রিপ দিতে যেয়ে দুর্ঘটনা না ঘটায় সে জন্য তারা কড়া সতর্কতা দিতে পারেন। পরিবহন মালিক, পুলিশবাহিনীসহ সবার অধিক তৎপরতায় রোধ করা যেতে পারে এসব সড়ক দুর্ঘটনা, নিরাপদ হতে পারে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলাচলকারীদের যাত্রা। আর তাতেই বাঁচবে অজস্র প্রাণ।

লেখক: শিক্ষার্থী, আইন ও বিচার বিভাগ, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়


আমদানিনির্ভরতা কমিয়ে জোর দিতে হবে উৎপাদনে

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
কৃষিবিদ মো. বশিরুল ইসলাম

২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাজ্যে তাজা সবজির চরম সংকট দেখা দিয়েছে এমন খবর আলোড়ন তুলেছিল। তবে, ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ‘দ্য গার্ডিয়ানে’র বরাতে যে প্রতিবেদনের কথা বলা হয়েছিল, পরবর্তীতে তারাই বলছে, এ রকম কোনো প্রতিবেদন তারা ছাপেনি। হয়তো এই ঘটনা পক্ষে-বিপক্ষে নানা মত থাকতে পারে। আসলে, যুক্তরাজ্যে এ ঘটনা কাল্পনিক আকারে আমি আমার দেশের প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনার বিষয়বস্তু।

একবার ভাবুন, আপনার সঙ্গে অনেক টাকা। আদরের সন্তান আবদার করল বাজারে গিয়ে টাটকা শাক-সবজি কিনে আনবে। সন্তানকে নিয়ে গেলেন বাজার করতে; কিন্তু একি, বাজারে গিয়ে দেখলেন কিছুই নাই। চাহিদামতো সবজি কিনতে পারছেন না। এমনকি মিলছে না তিনটির বেশি টমেটো। শুধু সবজিই নয়- আলু, পেঁয়াজ কিংবা ডিমেও দেখা দিয়েছে হাহাকার। বর্ণিত প্রেক্ষাপট কাল্পনিক বাস্তবতা। হয়তো সে দুর্দিন এখনো আমাদের আসেনি। তবে অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে-এমন পরিস্থিতি এসেও যেতে পারে। এখন বলি এতসব নাটকীয় প্রারম্ভিকতার কারণটুকু কি।

এখন বৈশাখ মাস। প্রচণ্ড গরম। ফুলকপি বা বাঁধাকপির মতো সবজি এখন বাজারে দেখলে কেউ চমকে ওঠে না। কারণ, চলতি বছর শীত গেছে; কিন্তু বাজার থেকে যায়নি এই সবজিটি। টমেটোর নাম তো মৌসুমি সবজির খাতা থেকে উঠে গেছে গত কয়েক বছরে। কৃষি বিজ্ঞানীদের গবেষণা আর মাঠপর্যায়ে চাষিদের পরিশ্রম। সঙ্গে ঝুঁকি গ্রহণের ইচ্ছার সুফল এটি। তাপসহিষ্ণু শীতকালীন সবজির উদ্ভাবন করেছে বাংলাদেশের কৃষি বিজ্ঞানীরাই। এ জন্য শীতের সবজি সারা বছর পাওয়া যাচ্ছে। এ ছাড়া কৃষি বিজ্ঞানীদের উচ্চফলনশীল ও প্রতিকূলতা সহিষ্ণু নতুন নতুন জাত আর প্রযুক্তির উদ্ভাবন ফলে খাদ্যশস্য, সবজি ও ফল উৎপাদনে বৈচিত্র্য এসেছে। ফসল উৎপাদনে ঈর্ষণীয় অগ্রগতি হয়েছে।

শুধু অগ্রগতি হয়নি, আমরা বিশ্বে মাছ, আলু, পেঁয়াজ, শাক-সবজিসহ ২২টি কৃষিপণ্য উৎপাদনে আছি শীর্ষ দশে; কিন্তু প্রশ্ন- সরবরাহ বাড়লে, পণ্য উদ্বৃত্ত হলে স্বাভাবিকভাবেই এসবের দাম কম হওয়ার কথা। স্বস্তি পাওয়ার কথা সাধারণ মানুষের। কিন্তু দৃশ্যত দেখা যাচ্ছে উৎপাদন বৃদ্ধি, সরবরাহ বৃদ্ধি ও উদ্বৃত্তের কোনো সুবিধা আমরা পাচ্ছি না। আমাদের সবচেয়ে উদ্বৃত্তের ফসল হচ্ছে আলু। উৎপাদন মৌসুম শেষ হতে না হতেই এবার আলুর বাজার চড়া, ভারত থেকেও আসছে আলু। তবুও ঈদের ছুটিতে সরবরাহ কমের অজুহাতে ফের চড়তে শুরু করেছে আলুর বাজার; খুচরায় প্রতি কেজির দাম উঠেছে ৬০ টাকায়। পাশাপাশি সরবরাহ ঠিক থাকলেও খুচরা বাজারে পেঁয়াজ, আদা ও রসুনের দাম বাড়ানো হয়েছে। এতে ক্রেতার এসব পণ্য কিনতে বাড়তি টাকা খরচ করতে হচ্ছে। তবে কি আমদানিকারক, পাইকারি ব্যবসায়ী, ফড়িয়া-দালাল ও খুচরা ব্যবসায়ীরা সব সুবিধা নিয়ে নিচ্ছে?

এক সময় আমরা চাল, আলু রপ্তানির গল্প শুনতাম। আর এখন রপ্তানি রপ্তানি বলে আমরা আমদানিনির্ভর হয়ে পড়ছি। এমন অবস্থায় চাল, গম, চিনি, তেল, আটা, রসুন, ডাল, পেঁয়াজ ইত্যাদি নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিপত্রের জন্য আমরাও আমদানিনির্ভর। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার গত ২৩ ডিসেম্বরের ঘোষণা অনুসারে বিশ্বে খাদ্য আমদানিতে বাংলাদেশ তৃতীয় শীর্ষ দেশ।

এটা ঠিক যে, কোনো একক দেশের পক্ষে তার সব প্রয়োজনীয় দ্রব্য উৎপাদন করা সম্ভব নয়। বাবা-দাদার মুখে শুনতাম স্বনির্ভর কৃষকের গল্প। সে স্বনির্ভর কৃষকও দুনিয়া থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে- যিনি এক সময় তার প্রয়োজনীয় সবকিছু নিজে উৎপাদন করতেন। দেশগুলোও তেমনি। তারা এখন আমদানি-রপ্তানি করে পরস্পরের প্রয়োজন মেটায়। এটা এমন এক বাস্তবতা, যুদ্ধের মধ্যেও বাণিজ্য চলে। ইউক্রেনে যুদ্ধ হচ্ছে; আবার সেখান থেকে পণ্যসামগ্রী রপ্তানি অব্যাহত আছে, বিশেষত কৃষিপণ্য। মূলত ভোক্তার স্বার্থ বিবেচনায় নিয়ে সরকার যেকোনো পণ্য আমদানি কিংবা রপ্তানি করে থাকে। যখন স্থানীয়ভাবে পণ্য উৎপাদনে ঘাটতি হয়, তখন সরবরাহ কমে আসায় সে পণ্যের মূল্য বাড়ে। তখন সরকার ভোক্তার স্বার্থে সে পণ্য আমদানি করে। আর অর্থনীতির সূত্রই হচ্ছে, পণ্যের সরবরাহ কমলে দাম বাড়ে, আবার সরবরাহ বাড়লে দাম কমে। কিন্তু আমদানির পরও যে তা দামের ওপরে সব সময় ইতিবাচক প্রভাব ফেলে, সে কথাও বলা যাচ্ছে না।

সরকারি হিসাব অনুযায়ী চলতি বছর দেশে ১ কোটি ৪ লাখ টন আলু উৎপাদন হয়েছে। বাংলাদেশের চাহিদা ৭০ থেকে ৭৫ লাখ টন। অন্যদিকে পেঁয়াজের উৎপাদন বছরে সাড়ে ৩৬ লাখ টন, চাহিদা ২৫ লাখ টন। সে ক্ষেত্রে আলু এবং পেঁয়াজের চাহিদা স্থানীয়ভাবে মিটিয়ে যাওয়ার কথা; কিন্তু অজ্ঞাত কারণে আমদানি হচ্ছে। আমদানি করা হচ্ছে ভরা মৌসুমে। এ অবস্থায় আলু এবং পেঁয়াজ বিদেশ থেকে আমদানি করার ফলে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন এটাই স্বাভাবিক।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন অধ্যাপকের কাছ থেকে শুনেছি, জাপানে চালের দাম তুলনামূলকভাবে একটু বেশিই। চালের দামের ব্যাপারে সে দেশের একজন মন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, আপনারা বাইরে থেকে কম মূল্যে কেন চাল আমদানি করেন না এবং কৃষকদের কাছ থেকে অনেক বেশি মূল্যে ক্রয় করতে হচ্ছে কেন? তিনি উত্তরে বলেছিলেন, বাইরে থেকে চাল আমদানি করলে অবশ্যই অনেক কমে চাল পাওয়া যাবে। তখন তাকে আবার প্রশ্ন করা হয়েছিল তাহলে কেন আমদানি করছেন না? তিনি উত্তরে বলেছিলেন, আমাদের দেশের সবদিকে সমুদ্র। যুদ্ধসহ যেকোনো দুর্যোগে আমরা বিশ্ব থেকে আলাদা হয়ে যেতে পারি এবং তখন আমরা বাইরে থেকে চাল আমদানি করতে পারব না। তাই আমাদের দেশের কৃষকদের বাঁচাতে হবে এবং যুদ্ধের কারণে যদি বহির্বিশ্ব থেকে জাপানে খাবার আমদানি বন্ধ হয়ে যায় তখন কী আমরা টয়োটা গাড়ি খেতে থাকব?

উন্নয়নশীল বিশ্বের এমন অনেক দেশ আছে যারা কেবল তাদের দেশের কৃষককে বাঁচিয়ে রাখার জন্য, তাদের কৃষি পেশা থেকে বিমুখ না হওয়ার জন্য নানাবিদ প্রণোদনা দিয়ে থাকে। দেশি কৃষক যেন কৃষি পেশাতে সম্মানের সঙ্গে থাকতে পারেন সে জন্য তারা আমদানি পণ্যের সস্তা মূল্য পাওয়া সত্যেও আমদানি করে না। বাজারব্যবস্থার নিয়ন্ত্রণ ও মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য কমানোর জন্য প্রান্তিক কৃষকের উৎপাদিত পণ্য সরাসরি বাজারে এনে বিক্রি করার ব্যবস্থা করে দেয় সরকার। কৃষককে তার উৎপাদন, শ্রম আর লভ্যাংশের প্রাপ্যটুকু বুঝিয়ে দিয়ে তবেই সে পণ্যের বাজারদর নির্ধারণ করে। তবে এটা ঠিক- বর্তমানে কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে সরকার নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। কৃষিঋণ, কৃষিপ্রণোদনা, প্রশিক্ষণ, ফসল বিমাসহ বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকদের সহায়তা প্রদান করছে। সেই সঙ্গে কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে এনজিও এবং বিভিন্ন সংস্থা কাজ করছে। তারপরেও কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে তেমন কোনো পরিবর্তন আসছে না বলে আমি মনে করছি। এর কারণ হচ্ছে- কৃষকরা এসব সুবিধা ঠিকমতো পাচ্ছেন না। আর এ পেশাটাই তাদের কাছে অলাভজনক হয়ে উঠছে।

আমাদের ভুলে গেলে চলবে না উপরিউক্ত সেই কাল্পনিক বাস্তবতার কথা। যেখানে, কৃষি ও কৃষকের অস্থিত্ব বিলীন মানেই হলো আমাদেরই অস্থিত্ব সংকট। তাই বাজার চাহিদানুযায়ী কৃষিপণ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও লাভজনক পরিকল্পনা বাস্তবায়নে করণীয় বিষয়গুলো: প্রথমত বাজার চাহিদা অনুযায়ী ফসল নির্বাচন করতে হবে। সেই সঙ্গে জমি এবং আবহাওয়া নির্বাচিত ফসলের উপযোগী কি না তা অবশ্যই যাচাই করতে হবে। ফসল নির্বাচনে মাটির উর্বরতার বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে। এ ক্ষেত্রে মাটির উর্বরতা উন্নয়নে ফসল ধারায় একই ফসল বারবার চাষ না করে শস্যপর্যায় অবলম্বন করতে হবে এবং বছরে জমিতে কমপক্ষে একটি শিমজাতীয় ফসল যেমন- ডালজাতীয় ফসল (মসুর, ছোলা, খেসারি, মুগ এবং মাষকলাই ইত্যাদি), শিম এবং বাদাম ইত্যাদি চাষ করতে হবে। অনেক সময় দেখা যায় কোনো একটি ফসল চাষে বেশি লাভ হলে সবাই মিলে ওই ফসলের চাষ শুরু করে, ফলে উৎপাদন বেড়ে যাওয়ায় বাজারমূল্য কমে যায়। তখন সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ওই ফসল চাষ থেকে বিরত থাকে। ফলে পরবর্তীতে বাজারে সরবরাহ কমে যাওয়ায় বাজারমূল্য বেড়ে যায়। ফসল চাষে এ বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে।

সবচেয়ে বড় কথা হলো- কৃষকদের তাদের ন্যায্যমূল্য দিতে হবে। ফসলের মাঠ কেটে পুকুর করা বন্ধ করতে হবে। নদীমাতৃক বাংলাদেশের সব খাল ও নদী উদ্ধার করে সচল করতে হবে। মনে রাখতে হবে, কৃষিই বাংলাদেশের শেকড় এবং শেকড়কে ভুলে গেলে পতন অনিবার্য। আমদানিনির্ভর খাদ্যনীতি থেকে বের হতে প্রয়োজন কমপক্ষে ১০ বছরমেয়াদি উপযুক্ত পরিকল্পনা!

আসুন- কৃষি, কৃষক আর কৃষি পেশাকে দেখি এক অনন্য উচ্চতায়। কেননা, এ দেশের কৃষি আর কৃষক বাঁচলেই কেবল বেঁচে থাকতে পারব আমি আপনি, আমরা সবাই। স্বপ্নে বোনা ফসলের খেতে, রাগ, দুঃখ আর অভিমানে সেই স্বপ্ন নিজের হাতেই জ্বালিয়ে দিয়ে সে কৃষকের আর্তনাদ আমরা আর দেখতে চাই না। নচেৎ, এই লজ্জা আমাদের সকলের, এই ব্যর্থতা এ জাতির প্রতিটি সন্তানের।

২০১৪ সালে মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশে ভারতীয় গরু আসা বন্ধ করে দেয়। আর সেটাই হয়েছে বাংলাদেশের জন্য আশীর্বাদ। এখন বাংলাদেশ গবাদিপশুতে স্বয়ংসম্পূর্ণ বলে দাবি করছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। আমি মনে করি আমদানি কমিয়ে উৎপাদন আরও বৃদ্ধি করা এখন সময়ের দাবি।

লেখক: কৃষিবিদ মো. বশিরুল ইসলাম, উপ-পরিচালক (শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়)


কিশোর গ্যাং: সমাজের অবক্ষয় ও করণীয়

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ড. অরূপরতন চৌধুরী

সমাজে মানবিক মূল্যবোধের অবক্ষয় শুরু হয়েছে অনেক আগে থেকেই। বর্তমানে নানাবিধ সামাজিক সমস্যাগুলো আমাদের মধ্যকার সৌহার্দ্য, সম্প্রিতি, ঐক্য এবং পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রে শৃঙ্খলা বজায় রাখার প্রধান উপাদানগুলোকে ক্রমেই গ্রাস করছে। সমাজ গাঢ় অন্ধকারে নিমজ্জিত হচ্ছে। কার্যত সমাজের অচলায়তন ও অধঃপতনের ক্রমধারা আমাদের বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ভয়াবহ পরিণতির দিকে ধাবিত করছে। যদি আমরা এখনই এটা নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারি, বলাই বাহুল্য যে এর খেসারত অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি দিতে হবে। বলছি, নব্য মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা সমস্যা ‘কিশোর গ্যাং’ নিয়ে। এই সমস্যা এতটাই গুরুতর যে, প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত এটা নিয়ে উদ্বিগ্ন! সরকারপ্রধান সম্প্রতি মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে ‘ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি’ নিয়ে কিশোর গ্যাং মোকাবিলার আহ্বান জানিয়েছেন, যা প্রশংসার দাবিদার। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও তৎপরতা চালাচ্ছে; কিন্তু তারপরেও রোধ করা যাচ্ছে না।

ঢাকার একটি এলাকায় পূর্বে কিশোর গ্যাং লক্ষ্য করা যায়। এখন সেই কিশোর গ্যাং ঢাকায় প্রত্যেক এলাকায় ছড়িয়েছে। সারা দেশে এমনকি প্রত্যন্ত অঞ্চলেও সংক্রামক রোগের মতো ছড়িয়ে পড়েছে কিশোর গ্যাং যারা মানুষ হত্যাসহ প্রায় সব অপরাধের সঙ্গে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে পড়েছে। তবে বিশেষ করে রাজধানীসহ দেশের বড় বড় শহরগুলোতে কিশোর অপরাধ ও গ্যাং ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। মূলত রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয়ের কারণেই উদীয়মান কিশোররা বেপরোয়া হয়ে পড়ছে।

অতীতে একটা সময়ে সমাজে শৃঙ্খলা রক্ষায় পরিবার ও স্থানীয় বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের ভূমিকা ছিল। তারা কিশোরদের উচ্ছৃঙ্খল আচরণে প্রশ্রয় দিতেন না। এখন মুরব্বিদের হারানোর জায়গাটি নিয়েছেন রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত সুবিধাবাদীরা। তারা কিশোরদের ব্যবহার করেন। ‘বড়ভাই’ নামে সমাজে পরিচিত তারা। যারা কিশোর গ্যাংয়ের নামে অপরাধ কার্যক্রম চালায়, চাঁদা তোলা এবং আধিপত্য বজায় রাখার জন্য কিশোরদের ব্যবহার করে। আবার এই অর্থের একটা অংশ কিশোরদের জন্য ব্যয় করা হয়। এই কিশোর অপরাধীরা পরবর্তীতে হয়ে যায় সন্ত্রাসী। তবে এই সন্ত্রাসীদের কোনো দল নেই, আছে বড়ভাইদের ছত্রচ্ছায়া। সংবাদমাধ্যমের তথ্যানুযায়ী, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের অন্তত কয়েকজন কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ‘কিশোর গ্যাং’ প্রশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ এসেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য কিশোর গ্যাং পরিস্থিতির ভয়াবহতা জানান দিচ্ছে। পুলিশের প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখে একটি জাতীয় গণমাধ্যমে বলা হয়, সারা দেশে ১৭৩টি ‘কিশোর গ্যাং’ রয়েছে। বিভিন্ন অপরাধজনিত কারণে এদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ৭৮০টি। এবং এসব মামলায় প্রায় ৯০০ জন আসামি আছে। ঢাকা শহরে কিশোর গ্যাং রয়েছে ৬৭টি। ২০২২ সালের ওই প্রতিবেদন প্রকাশের দেড় বছর অতিক্রম করেছে। এই সময়ে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে কিশোর গ্যাং। গত ১০ এপ্রিল, ২০২৪ চট্টগ্রামে কিশোর গ্যাং-এর কবল থেকে ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে হামলার শিকার হন একজন চিকিৎসক। এবং পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। অনুসন্ধানে দেখা যায়, চট্টগ্রাম নগরে ৫ থেকে ১৫ জন সদস্যের অন্তত ২০০ কিশোর গ্যাং সক্রিয় রয়েছে। নগরজুড়ে এদের সদস্যসংখ্যা কমপক্ষে ১৪০০। ২০২৩-এর জুলাই থেকে চলতি বছরে এলাকাভিত্তিক কিশোর গ্যাংয়ের প্রধানসহ ২০০ জনের বেশি গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-পুলিশ। বর্তমানে বিচারাধীন ২ হাজার ২৩২টি মামলার বেশির ভাগ কিশোর গ্যাং সংক্রান্ত।

পুলিশের অনুসন্ধানের বাইরেও ঢাকায় আরও ১৪টি সক্রিয় কিশোর গ্যাং আছে। ২০২৩ সালে যাদের হাতে শুধু ঢাকাতেই ২৫ জন নিহত হয়েছেন। ২০২২-২৩ দুই বছরে তাদের হাতে ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে (ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ)। ঢাকার অদূরে সাভারেও কিশোর গ্যাং-এর উৎপাত বেড়েছে। চলতি বছর মার্চ মাসে সেখানে ৪টি খুনের ঘটনায় সরাসরি সংশ্লিষ্টতা মিলেছে কিশোর গ্যাং-এর। অর্থাৎ এদের সংখ্যা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে অপরাধপ্রবণতার সংখ্যাও ক্রমেই বাড়ছে। নাম কিশোর গ্যাং হলেও এসব বাহিনীর সদস্যরা বেশির ভাগই ১৮ বছরের বেশি বয়সি। ২০২৩ সালে রাজধানীতে সংগঠিত ২৫টি খুনের সঙ্গে কিশোর গ্যাং-এর সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এদের বিভিন্ন অপরাধের মধ্যে রয়েছে- ছিনতাই, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা, জমি দখলে ভাড়া খাটা, উত্ত্যক্ত করা, হামলা মারধর ও খুন। হিরোইজম এবং আধিপত্য ধরে রাখতেও বিভিন্ন দলের মধ্যে সংঘর্ষ, বিবাদ ঘটে হরহামেশাই।

যেকোনো সমস্যা নিরসনে সেটার মূলে যাওয়াটা জরুরি। এই যে গ্রেপ্তার, মামলা ও অভিযান চালিয়েও কিশোর গ্যাং সংখ্যা কমছে না, বরং নতুন নতুন গ্রুপ তৈরি হচ্ছে। এমনকি গ্রেপ্তারে সহায়তাকারীর ওপর অভিযুক্ত কর্তৃক হামলার খবর পাওয়া যাচ্ছে। এর কারণ উদ্ঘাটন করাটা এখন জরুরি। আমরা সমস্যাকে গুরুত্ব দিই ভালো কথা; কিন্তু সমস্যার গভীরে গিয়ে তা মূলোৎপাটনের উপায় বাতলে দেওয়ার সংস্কৃতি এখনো গড়ে ওঠেনি। উপরন্তু, কিছু সংবাদমাধ্যমে কিশোর গ্যাং অভিযুক্তদের ছবি ছাপিয়ে এবং টেলিভিশন চ্যানেলে ঘটনাগুলোর ভিডিও দেখানো হচ্ছে। এটা সমাধান কিংবা পরিস্থিতি মোকাবিলার যথাযথ উপায় নয়। এ ধরনের বিষয়গুলো প্রতিরোধে নিতে হবে সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা। যেমন- অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা হয়েছে, সেটা বরং গণমাধ্যমে প্রচার করা জরুরি। তাহলে অপরাধীরা বুঝতে পারবে, তাদের পরিণতি কি হতে পারে।

যেকোনো সামাজিক সমস্যায় পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের দায়িত্ব আছে। এখন তথ্যপ্রযুক্তির অবাধ প্রবাহের যুগ। এই সময়ে শিশু-কিশোরাও অনলাইনে অনেক কিছু দেখে, যার ভেতর নেতিবাচকতা বেশি এবং তারা সহজেই সংগঠিত হয়। শহরগুলোতে পর্যাপ্ত খেলার মাঠ নেই, সুস্থ বিনোদনের ব্যবস্থা নেই। শরীরচর্চা, খেলাধুলার সঙ্গে সংস্কৃতিচর্চা থাকলে কিশোর-তরুণরা অপরাধ ও মাদক থেকে দূরে থাকে। আমাদের সেই ব্যবস্থা নেওয়াটা জরুরি। শিক্ষাব্যবস্থায় এ ধরনের বিষয়গুলোর প্রতি বিশেষ গুরুত্বারোপ করা প্রয়োজন। পথশিশু ও অভিভাবকহীনদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় এনে সুশিক্ষিত করতে প্রয়োজনী পদক্ষেপ নিলে সুফল মিলবে। কারণ ভালো নাগরিক হতে তাদের শিক্ষা ও ভালো পরিবেশ দরকার। এ ক্ষেত্রে শিক্ষা, যুব ও ক্রীড়া এবং সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি নিতে পারে।

আমি নিজে ৪০ বছরের অধিক সময় ধরে ধূমপান ও মাদকবিরোধী কথা বলেই যাচ্ছি। একটা সময় বিষয়গুলোকে পাত্তা দেওয়া হতো না। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের ভাবনা পাল্টে গেছে। দেশে তামাক উন্নয়ন বোর্ড থেকে ‘জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল’ এবং ‘মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর’ গঠন হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ২০৪০ সালের মধ্যে ‘তামাকমুক্ত বাংলাদেশ’ বাস্তবায়ন এবং মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতির ঘোষণা দিয়েছেন। সরকার মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করছে।

কিছু ছোট বিষয় থাকে কিন্তু, অল্প সময়ের মধ্যে ভয়াবহ মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ধূমপান ও মাদক গলার কাঁটা হয়ে গেছে কিশোর-তরুণদের জন্য। কিশোর গ্যাং অপসংস্কৃতি এবং প্রায় সব সামাজিক অপরাধের মূলেই রয়েছে মাদক যার শুরুটা হয় মূলত, ধূমপান থেকে। দেশে প্রায় ১ কোটি মানুষ মাদকাসক্ত রয়েছে যাদের মধ্যে প্রায় ৯০% তরুণ-কিশোর। অন্যদিকে, মাদকাসক্তির বড় কারণ হিসেবে দেখা দিয়েছে ধূমপান। ধূমপান হচ্ছে মাদকের রাজ্যে প্রবেশের মূল দরজা। এক গবেষণায় দেখা গেছে, মাদকাসক্তদের মধ্যে শতকরা ৯৮ ভাগই ধূমপায়ী এবং তাদের মধ্যে শতকরা ৬০ ভাগ বিভিন্ন অপরাধ ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত। সুতরাং ১ কোটি মাদকাসক্ত ব্যক্তি গ্যাং অপসংস্কৃতিকে উসকে দিতে পারে। ফলে মাদকের আমদানি যেমন বাড়বে তেমনি মাদকাসক্তের সংখ্যাও ক্রমেই বৃদ্ধি পাবে।

যারা মাদকদ্রব্য সেবন করে তারা প্রথমে ধূমপানে অভ্যস্ত হয়, তারপর মাদকদ্রব্য সেবন শুরু করে থাকে। পরবর্তীকালে তারা গাঁজা, ইয়াবা, ফেনসিডিল, সিসা, হেরোইন, কোকেনসহ বিভিন্ন মরণ নেশায় আসক্ত হয়। বর্তমানে কিশোর-তরুণরা বন্ধুদের প্ররোচনায় ধূমপান শুরু করে এবং ক্রমান্বয়ে এর একটি বিরাট অংশ মাদক সেবন ও বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়ায়। বৈশ্বিকভাবেও বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণিত, তরুণ বয়সেই বেশির ভাগ তরুণ ছেলেমেয়ে কৌতূহলবশত বা পারিপার্শিক প্ররোচনায় ভয়াবহ মাদক ও ধূমপানের নেশায় জড়িয়ে পড়ে। হয়তো বা তার উপলক্ষ থাকে কোনো একটি বিশেষ দিন বা বিশেষ অনুষ্ঠান। হয়তো সেভাবে- আজ শুধু আনন্দ, ফুর্তি করব। কাল থেকে আর তামাক/মাদক খাবো না, তওবা করব। আমাদের দেশে এ ধরনের ঘটনা অসংখ্য নেতিবাচক নজির তৈরি করেছে। মূলত, মাদক এমনই ক্ষতিকর একটি নেশা যেটা একবার নিলে বারবার নিতে ইচ্ছে করে। কৌতূহলবশত কিংবা প্ররোচনায় যে তরুণটি মাদকের জালে জড়িয়ে পড়ছে তাদের ফেরানো কঠিন।

এমনিতেই তামাক ও মাদকের আগ্রাসনে তরুণরা বিপথগামী হয়ে পড়ছে। উপরন্তু, নাটক, সিনেমাতেও তরুণদের আইডল ও জনপ্রিয়তার তুঙ্গে থাকা নায়ক-নায়িকাদের দ্বারা ধূমপানে, মাদকে উৎসাহিত করে এমন দৃশ্য অহরহ প্রচার করা হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সিগারেট কোম্পানিগুলোর বিভ্রান্তিকর প্রচারণায় তরুণদের মধ্যে ই-সিগারেটের ব্যবহার বাড়ছে। যে হারে ছড়িয়ে পড়ছে সেটা রীতিমতো উদ্বেগজনক! সুতরাং, বসে থাকার সময় নেই। তরুণদের রক্ষায় কাজ করতে হবে।

কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যে ভিন্ন দৃষ্টির কথা বলেছেন তার একটা দিক হচ্ছে- প্রতিরোধ। যারা এই অপসংস্কৃতির সঙ্গে জড়ায়নি তাদের দূরে রাখা এবং জড়িতদের শোধরানোর সুযোগ করে দেওয়া প্রয়োজন। সন্তান কার সঙ্গে মিশছে তার খোঁজ রাখা অভিভাবকদের অত্যাবশ্যকীয় কাজ সন্তানের প্রতি খেয়াল রাখা এবং ধর্মীয়, নৈতিক শিক্ষা প্রদান করা যা পরিবার থেকে একটি শিশুর ভিত্তি গড়ে দিতে সক্ষম। রাষ্ট্রীয়ভাবে সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি কার্যকর শিক্ষাব্যবস্থার দিকে গুরুত্ব দেওয়া এবং তারুণ্যকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে জাতীয়পর্যায়ে নীতিনির্ধারণ করা জরুরি। নীতি বাস্তবায়নে তাদের সার্বিক সম্পৃক্ততা ও সুফল নিশ্চিত করা প্রয়োজন। আগামীর বাংলাদেশ এগিয়ে নিতে যোগ্য নেতৃত্বের শঙ্কা যেন না থাকে, সেদিকটায় আশু সুনজর দেওয়া অপরিহার্য। কিশোরদের মধ্যে ‘গ্যাং অপসংস্কৃতি’ দূর করতে হবে। এ জন্য শিশু-কিশোরদের মেধা ও সুষ্ঠু সাংস্কৃতিক মনন বিকাশে পরিবার, সমাজ সরকারি সব পদক্ষেপের সঙ্গে আমাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে। নতুবা এর পরিণাম থেকে আমরা কেউ মুক্ত থাকতে পারব না। তাই আসুন, আমরা এই অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে একসঙ্গে কাজ করি।

লেখক: একুশে পদকপ্রাপ্ত শব্দসৈনিক, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র


তোমার পতাকা যারে দাও...

আপডেটেড ১৯ এপ্রিল, ২০২৪ ১৮:৪৫
সজীব সরকার

‘তোমার পতাকা যারে দাও তারে বহিবারে দাও শকতি/তোমার সেবার মহান দুঃখ সহিবারে দাও ভকতি’ - রবীন্দ্রনাথের এ আকুলতা নিজের মধ্যে ভীষণরকম অনুভব করছি গত বুধবার টেলিভিশন ও গতকাল বৃহস্পতিবারের সংবাদপত্রগুলো দেখার পর। আবারো প্রমাণিত হলো, বাংলাদেশে সাংবাদিকতার জগতে ভীষণ রকমের নৈতিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক শূন্যতা চলছে। সাংবাদিকতার মূল আদর্শ থেকে গণমাধ্যমগুলোর বিচ্যুতি ঘটছে।
পত্রিকায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, গত বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে খুলনা-বরিশাল মহাসড়কের ঝালকাঠিতে গাবখান সেতু টোলঘরের কাছে অপেক্ষারত ব্যাটারিচালিত তিনটি অটোরিকশা/ইজিবাইক ও একটি প্রাইভেটকারকে চাপা দেয় নিয়ন্ত্রণহীন একটি ট্রাক। এতে অন্তত ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে যার মধ্যে একাধিক শিশুও রয়েছে।
এ ঘটনার ভিডিও ফুটেজ একাধিক টেলিভিশন চ্যানেলের খবরে দেখানো হয়েছে। গতকালকের একাধিক পত্রিকার প্রথম পাতায় প্রকাশিত হয়েছে গাড়ির ভেতর পিষ্ট দুই শিশুসহ বাবা-মায়ের লাশের ছবি। যারা ওই ভিডিও ফুটেজ এবং বিশেষ করে গতকালকের পত্রিকার পাতায় প্রকাশিত ওই ছবি দেখেছেন, কেবল তারাই বুঝবেন তা কতটা নিদারুণ যন্ত্রণা একজন সংবেদনশীল মানুষের মনে তৈরি করেছে। আর, ওই ছবি একটি শিশুর মনের ওপর কতটা নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে, তা বড়দের বোধের বাইরে।
বুধবারের ওই ঘটনার ফুটেজ টেলিভিশনের খবরে প্রচার করা সাংবাদিকতার নীতিবিরুদ্ধ হয়েছে। শিশুদের লাশের এমন নির্মম ছবি প্রকাশ করে এসব পত্রিকা সাংবাদিকতার ইতিহাসে আরেকটি কলঙ্ক তৈরি করেছে। যেসব গণমাধ্যম এ কাজটি করেছে, তাদের নিন্দা জানাচ্ছি। যারা এমনটি করেনি, তাদের ধন্যবাদ জানাই।
সাংবাদিকতার নীতিমালা অনুযায়ী লাশের ছবি, বীভৎস কোনো দৃশ্য, কাউকে নির্যাতনের কোনো ছবি- এগুলো প্রকাশের নিয়ম নেই। বিশেষ করে, যেসব ঘটনায় ভিকটিমের সামাজিক মর্যাদা নষ্ট হতে পারে, নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে কিংবা প্রচণ্ড মানসিক আঘাতের (ট্রমা) কারণ ঘটতে পারে, সেসব ক্ষেত্রে সাংবাদিকদের বাড়তি সতর্ক থাকার সুস্পষ্ট নিয়ম রয়েছে।
যৌন নির্যাতনের ঘটনা এবং শিশুদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ঘটনার খবর প্রচার বা প্রকাশের ক্ষেত্রেও বাড়তি সতর্কতা অবলম্বনের বিধি রয়েছে। কিন্তু, বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমগুলো আসলে কী করছে?
আমার বক্তব্যের সমর্থনে গুটিকতক ঘটনা এখানে তুলে ধরছি।
বিভিন্ন সময় দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনার ভিডিও ফুটেজ টেলিভিশন চ্যানেলগুলো তাদের খবরে দেখিয়েছে। গাড়িচাপায় সড়কে পিষ্ট রক্তাক্ত লাশের ফুটেজ দেখিয়েছে। বহুতল ভবনে আগুন লাগার পর জ্বলন্ত ভবন শুধু নয়- ভবনের বিভিন্ন তলা থেকে মানুষের নিচে লাফিয়ে পড়ার ফুটেজ দেখিয়েছে বারবার। আগুন ধরা ভবন থেকে দড়ি বেয়ে নামতে গিয়ে পড়ে আহত-নিহত হওয়ার দৃশ্য দেখানো হয়েছে। শিশু নির্যাতনের নানা ঘটনার ভিডিও ফুটেজ ও ছবি টিভি চ্যানেলের খবরে দেখানো হয়েছে। গ্রাম্য শালিসে বিচারের নামে নারীকে নির্যাতনের ভিডিও ও ছবি প্রচার করেছে। বয়স্ক নারীকে গাছে বেঁধে নির্যাতন কিংবা নারীকে বিবস্ত্র করে পেটানোর দৃশ্যও বিরল নয়। মুদ্রিত ও অনলাইন পত্রিকাগুলোও পিছিয়ে থাকেনি; এদের অনেকেই একইভাবে এসব ঘটনার ভিডিওচিত্র-স্থিরচিত্র প্রচার ও প্রকাশ করেছে।
পারিবারিক কলহ বা সম্পত্তি নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে অনেক শিশু হত্যার শিকার হয়। দারিদ্র্যের কারণে এবং বাবা-মায়ের পরকীয়া সম্পর্কের কারণে অনেক শিশু হত্যার শিকার হয়। প্রতিবেশীকে ফাঁসাতে নিজের সন্তানকে হত্যার ঘটনাও গণমাধ্যমে দেখা গেছে। সাংবাদিকদের এটি বোঝা দরকার, পরিবার একটি শিশুর জন্যে সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল হওয়ার কথা। কিন্তু, বাবা-মায়ের হাতেই যখন শিশুসন্তান নিহত হয়, তখন সেই খবর ঢালাওভাবে ও নির্বিচারে প্রচার করা কতটা যৌক্তিক?
এসব খবর যখন টিভি বুলেটিনে ‘চাঞ্চল্যকর’ ঘটনা হিসেবে প্রচার করা হয়, তখন তা শিশুদের নজর এড়ায় না। পত্রিকাগুলো যখন বড় হরফে রঙ-বেরঙের শিরোনাম দিয়ে এ খবরগুলো প্রকাশ করে, তা-ও শিশুদের চোখে পড়তে পারে। শিশুদের মনোজগতে এর কী ধরনের প্রভাব পড়ে, তা কি কখনো ভেবে দেখেন আমাদের দেশের সাংবাদিকরা?
‘সন্তানরা ঈদে নতুন জামা চাওয়ার পর তা কিনে দিতে না পেরে মনের দুঃখে তাদের নদীতে ফেলে দিয়েছেন বাবা’- কয়েক বছর আগে একটি টেলিভিশনের খবরে এভাবে ঘটনাটি প্রচার করা হয়েছে। পত্রিকাগুলোও তা-ই করেছে। ঘটনাটি এভাবে প্রচার করার মাধ্যমে এমন ‘অযোগ্য, অবিবেচক ও নৃশংস’ বাবার প্রতি কি এখানে অহেতুক সহমর্মিতা জানানো হলো না? সদ্যভূমিষ্ঠ শিশুকে হাসপাতালে রেখে যাওয়া বা আস্তাকুঁড়ে ফেলে দেওয়া কিংবা অর্থের জন্যে শিশুসন্তানকে বিক্রি করে দেওয়ার মতো খবরগুলো নির্বিচারে টিভিতে দেখানো বা পত্রিকায় ফলাও করে ছাপা উচিত কি?
গণমাধ্যমগুলোর উপলব্ধি করা দরকার, এমন নির্বিচার প্রচারের কারণে খবরগুলো শিশুদেরও নজরে আসে। এতে তারা প্রচণ্ড মানসিক আঘাত পেতে পারে এবং আতঙ্কে ভুগতে পারে। এমনকি নিজের বাবা-মায়ের কাছেও তখন শিশুরা নিজেদের নিরাপদ মনে করবে না।
সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের সময় সম্প্রচার ও মুদ্রিত- সব সংবাদমাধ্যম রীতিমতো প্রতিযোগিতা করে অনৈতিক সাংবাদিকতা করেছে। ভিকটিমদের শিশুসন্তানকে সাংবাদিকরা বারবার তার বাবা-মায়ের হত্যাকাণ্ড ও হত্যাকারীদের ব্যাপারে প্রশ্ন করেছেন। ‘কে মেরেছে, কারা মেরেছে, কী দিয়ে কুপিয়েছে - দেখেছো কি না’ - শিশুটিকে এমনসব প্রশ্নও করেছেন সাংবাদিকরা। এমনও শোনা গেছে, ঘুমন্ত শিশুটিকে চিমটি দিয়ে জাগানো হয়েছে এবং চিমটির আঘাতের কারণে ব্যথায় কাঁদতে থাকা শিশুটিকে ক্যামেরার সামনে ‘বাবা-মাকে হারিয়ে অনবরত কান্নারত শিশু’ হিসেবে তুলে ধরে ‘হিউম্যান ইন্টারেস্ট স্টোরি’ করার বাহবা নেওয়া হয়েছে।
বাবা-মাকে হত্যা করা ঐশীর ঘটনাতেও সাংবাদিকতার চূড়ান্ত নৈতিক বিপর্যয় দেখা গেছে। প্রথম দিন থেকেই ঐশী মিডিয়া ট্রায়ালের শিকার হয়েছে। সে অবশ্যই দোষী; কিন্তু, আদালতের রায়ের জন্যে আমাদের গণমাধ্যমগুলো অপেক্ষা করেনি; ঘটনার পর থেকেই সাংবাদিকরা খবরে বারবার ঐশীকে অবাধ্য, মাদকাসক্ত ও নৃশংস হিসেবে তুলে ধরেছেন। আত্মীয়-স্বজনের বরাত দিয়ে সাংবাদিকরাও বলেছেন, ‘চাওয়ার সাথে সাথেই তাকে টাকা-পয়সা, মোবাইল ফোনসহ সবকিছু দেওয়া হয়েছে; এরপরও সে এমন নৃশংসভাবে নিজের বাবা-মাকে হত্যা করেছে।’ বলা হয়েছে, ‘সবকিছু দেওয়ার পরও ঐশী অবাধ্য ছিলো; মাদকসেবী ছিলো এবং বাজে বন্ধুদের সাথে মিশতো।’ ঐশীর ব্যাপারে সাংবাদিকদের এমন অবস্থান কোনোভাবেই যৌক্তিক ও নৈতিক হয়নি।
এখানে সাংবাদিকদের কি প্রথমেই বরং ঐশীর বাবা-মায়ের ভূমিকা ও দায়িত্বশীলতাকে প্রশ্ন করা উচিত ছিল না? ওইটুকু ছোট একটি শিশুকে চাওয়ামাত্রই এত টাকা আর ডিভাইস কেন দেওয়া হতো? এত টাকা দিয়ে সে কী করতো, বাবা-মা কি সেই খোঁজ রাখতেন? বাবা-মা কি তাকে যথেষ্ট সময়, সঙ্গ ও মনোযোগ দিয়েছিলেন - যা একটি শিশুর জন্যে সবচেয়ে বেশি দরকার? কেন ঐশী বাবা-মাকে মেরে ফেলার মতো এতটা নির্মম-নৃশংস হয়ে উঠল? কেন বাবা-মা এসবের কিছুই জানলেন না বা বুঝলেন না? - এসব প্রশ্ন সাংবাদিকরা করেননি।
এসবের বাইরেও, বয়সের বিচারে ‘শিশু’ হওয়ার কারণে সাংবাদিকতার নীতিমালা অনুযায়ী ঐশীর নাম বা ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার কথা নয়; কিন্তু প্রথমদিন থেকেই ক্যামেরা নিয়ে তার ওপর হুমড়ি খেয়ে পড়েছিলেন সাংবাদিকরা।
দাম্পত্য কলহ, পরকীয়া বা দারিদ্র্যের মতো কারণে শিশুসন্তানসহ মায়ের আত্মহত্যার খবরও এভাবে প্রচার করা হয়। পরিবার মেনে না নেওয়ায় প্রেমিক-যুগলের আত্মহত্যা, অভিমানে প্রেমিক বা প্রেমিকার আত্মহত্যা, পাবলিক পরীক্ষায় ফেল করায় আত্মহত্যা - এসব খবর গণমাধ্যমগুলো যেভাবে ‘গ্লামারাইজড’ করে প্রচার ও প্রকাশ করে, তাতে অন্যদের মধ্যে এসব আচরণ উৎসাহিত হতে পারে। সাংবাদিকদের উচিত এসব ঘটনার খবর প্রকাশে আরও কৌশলী হওয়া; এসব ঘটনাকে নিরুৎসাহিত করে এসব সমস্যার কার্যকর সমাধান সন্ধানে দিকনির্দেশনা দেওয়াই সাংবাদিকতার প্রকৃত উদ্দেশ্য হওয়ার কথা।
কোভিড১৯ মহামারির সময় পত্রিকা ও টিভি চ্যানেলগুলো এমনভাবে খবর প্রচার করেছে, যা মানুষের মনে অহেতুক আতঙ্ক তৈরি করেছে। শুরু থেকেই দেখা গেছে, মৃত্যুর চেয়ে সুস্থ হওয়ার হার অনেক বেশি; কিন্তু, গণমাধ্যমগুলো প্রতিদিন মৃত্যুর খবরটিই এমন ঢালাওভাবে প্রচার করেছে যে সাধারণ মানুষ অযৌক্তিক আতঙ্কে ভুগেছে। এ ধরনের দুর্যোগের খবর এমনভাবে দিতে হবে, যেন মানুষ সতর্ক হয়; এগুলো এমনভাবে প্রচার বা প্রকাশ করা উচিত নয় যা অহেতুক আতঙ্ক ছড়ায়।
হোলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলা এবং সম্প্রতি সোমালিয় জলদস্যুদের হাতে বাংলাদেশি নাবিকসহ জাহাজ জিম্মির ঘটনার উদাহরণও সাংবাদিকদের জন্যে শিক্ষণীয়। দুটি ঘটনাতেই গণমাধ্যমগুলো দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিয়েছে। হোলি আর্টিজানে জঙ্গিদের দমনে যখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালাতে প্রস্তুতি নিচ্ছিলো, গণমাধ্যমগুলো তখন সেই অভিযানের পরিকল্পনার বিস্তারিত খবর ও অভিযানের দৃশ্য লাইভ দেখিয়েছে। পুলিশ বারবার সতর্ক করেছে, জঙ্গিরা টিভিতে সব দেখছে এবং এতে অভিযান ব্যর্থ হবে; কিন্তু, কিছুতেই সাংবাদিকদের কাণ্ডজ্ঞান ফেরানো সম্ভব হয়নি। নাবিকদের জিম্মির ঘটনাতেও খবর প্রচারের ক্ষেত্রে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের দায়িত্বশীল হতে সাংবাদিকদের অনুরোধ করেছে সরকার।
কোথাও আগুন লাগা, ভূমিকম্প বা এমন কোনো দুর্যোগে উৎসুক জনতার পাশাপাশি সাংবাদিকদের সামাল দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয় উদ্ধারকর্মীদের। দমকল বাহিনীর পানির গাড়ির ওপর উঠে দাড়িয়ে সাংবাদিকরা লাইভ করেন, পিটিসি দেন। কয়েক বছর আগে খিলগাঁও এলাকায় একটি গর্তে পড়ে মারা যায় শিশু জিহাদ। ওই ঘটনার সময়ও উদ্ধারকর্মী ও পুলিশের সদস্যরা সাংবাদিকদের সামাল দিতে পারছিলেন না; সাংবাদিকরা সবাইকে ঠেলে সরিয়ে ওই গর্তের ভেতর তাদের ক্যামেরাও ঢুকিয়েছিলেন।
হত্যা, মৃত্যু, লাশ, নির্যাতন, আগুন, বীভৎসতা- এসব ঘটনার খবর প্রচার ও প্রকাশের সময় গণমাধ্যম তথা সাংবাদিকদের দায়িত্বশীল হওয়া উচিত, স্বাভাবিক কাণ্ডজ্ঞান ব্যবহার করা উচিত। বিশেষ করে নারী নির্যাতন, শিশু নির্যাতন এবং শিশু হত্যা বা মৃত্যুর ঘটনা, যৌন নির্যাতন ও এমন সহিংসতা - এসব ক্ষেত্রে সাংবাদিকতার নীতিমালার পাশাপাশি ব্যক্তিগত বোধের জায়গা থেকেও সাংবাদিকদের বাড়তি সতর্ক হওয়া দরকার। এ ধরনের খবর প্রচার ও প্রকাশের সময় কী ধরনের শব্দ-বাক্য-ভাষা এবং ভিডিও বা স্থিরচিত্র ব্যবহার করা হচ্ছে, এ বিষয়ে যথেষ্ট সতর্ক হওয়া দরকার। অন্যদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার গড্ডলিকা প্রবাহে গা ভাসানো সাংবাদিকতার উদ্দেশ্য নয়; মানুষ-সমাজ-রাষ্ট্রের কল্যাণই সাংবাদিকতার মূল দর্শন - এই সাধারণ জ্ঞানটুকু এবং নৈতিক বোধটুকু না থাকলে সাংবাদিকতা ছেড়ে দেওয়া উচিত। মনে রাখতে হবে, মানুষের জীবনের চেয়ে ‘খবর প্রচার’ বড় নয়।
গণমাধ্যমের প্রকৃত দায়িত্ব হলো ‘ওয়াচডগ’ হিসেবে ক্ষমতা ও পুঁজির নিরপেক্ষ নিরীক্ষক হিসেবে ভূমিকা পালন করা। জনস্বার্থে কাজ করা। কিন্তু, এর বদলে গণমাধ্যমগুলোর মধ্যে বরং ক্ষমতা ও পুঁজির আস্থাভাজন অর্থাৎ ‘ল্যাপ-ডগ’ হয়ে ওঠার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। সুবিধাপ্রাপ্ত বিশেষ শ্রেণির প্রতিনিধিত্ব না করে সংখ্যাগরিষ্ঠ গণমানুষের কল্যাণের পক্ষে জোরালো অবস্থান নেওয়ার কথা যে গণমাধ্যমের, তা প্রকারান্তরে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে উঠছে।
মহাত্মা গান্ধী সাংবাদিকতা করতে গিয়ে বুঝেছিলেন, পয়সার পেছনে ছুটলে সত্যিকার জনবান্ধব গণমাধ্যম হয়ে ওঠা সম্ভব নয়; এ কারণে তিনি বিজ্ঞাপন তথা পুঁজির ওপর নির্ভরশীল না হয়ে পত্রিকার প্রচারসংখ্যা (সাবস্ক্রিপশন) বাড়ানোর পক্ষপাতী ছিলেন। তিনি অন্য পত্রিকার সাংবাদিকদের মধ্যে জনসেবার মনোবৃত্তি উৎসাহিত করার চেষ্টা করতেন। গান্ধী বলতেন, সাংবাদিকতাকে ‘জীবিকা’ হিসেবে দেখা ঠিক নয়; দেখতে হবে জনগণের সেবার দায়িত্ব হিসেবে। পঞ্চাশ-ষাট-সত্তরের দশকে আমাদের দেশেই কতো সাংবাদিক জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশ ও দশের পক্ষে গঠনমূলক সাংবাদিকতা করেছেন। আশির দশক কিংবা এর কিছুকাল পরেও অনেক সাহসী ও জনমুখী সাংবাদিকতা হয়েছে। কিন্তু, ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা পুরনো পত্রিকাগুলোকেও আজ আর তাদের পূর্বতন চেহারার সঙ্গে মেলানো যাচ্ছে না। অপেক্ষাকৃত নতুন গণমাধ্যমগুলো ক্ষমতা, সস্তা জনপ্রিয়তা আর টাকার পেছনে ছুটছে। ফলে, গণমাধ্যমগুলোতে কল্যাণকামিতার বদলে বরং চাটুকারিতার ছাপ স্পষ্টতর হচ্ছে। নিরপেক্ষ, বস্তুনিষ্ঠ ও সৎ সাংবাদিকতার অভাব ক্রমবর্ধমান।
গণমাধ্যমের শতভাগকে নির্বিচারে এমন দোষ দিচ্ছি না; তবে, এমন ত্রুটি থেকে শতভাগ মুক্ত কোনো গণমাধ্যমও কি আসলে দেশে রয়েছে? কিছু গণমাধ্যম অবশ্যই এখনো একটি মান বজায় রেখেছে; তবে, তাদেরও আরও সতর্ক এবং আরো দায়িত্বশীল হওয়ার সুযোগ রয়েছে।
ক্ষমতার লেজুড়বৃত্তি, তথাকথিত জনপ্রিয়তার মতো অসার বস্তুর প্রতি মোহ এবং অর্থযোগের প্রতি অতিরিক্ত আকর্ষণ থেকে বেরিয়ে না এলে প্রকৃত সাংবাদিকতা সম্ভব নয়। সাংবাদিকতার মৌলিক নীতিমালার পাশাপাশি অপরিহার্য মানবিক গুণাবলির প্রতি আগ্রহ, বিশ্বাস ও সততাই পারে দায়িত্বশীল ও গঠনমূলক সাংবাদিকতার অতীত দিনগুলোকে ফিরিয়ে আনতে।
গণমাধ্যম দায়িত্ববোধহীন, অসার ও নীতিবিবর্জিত হলে একটি সমাজ টিকতে পারে না, রাষ্ট্র সঠিক দিকনির্দেশনা পায় না। তাই, একটি নৈতিক, মানবিক ও আদর্শ ‘হাউস পলিসি’ তৈরি এবং তা যথাযথভাবে অনুসরণ করা প্রতিটি গণমাধ্যমের জন্যে খুব জরুরি।
মানুষের সেবার যে ব্রত গণমাধ্যমের মূল আদর্শ, সেই আদর্শের পতাকা বহনের শক্তি এবং সেই আদর্শের প্রতি ভক্তি - দুটোই আজ সংবাদমাধ্যম ও সাংবাদিকদের মধ্যে খুব দরকার।
তাই, আমাদের দেশের গণমাধ্যমগুলোর সুবুদ্ধি হোক; সাংবাদিকদের মধ্যে শুভবুদ্ধি উদয় হোক।

লেখক: সজীব সরকার : সহযোগী অধ্যাপক, জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগ, সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি।


প্রবাসীরা আমাদের প্রাণ

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
আহমদ কবির রিপন

প্রবাসীরা দেশের প্রতিটি পরিবারের প্রাণ। দেশের স্বার্থে প্রত্যেক প্রবাসীর মান, মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত করুন ও সুবিধাদি বৃদ্ধি করুন। আশা করি, আমার প্রস্তাবিত বিষয়ের প্রতি সম্মিলিতভাবে একমত পোষণ করবেন। এখন থেকে ৫০ বছর আগে, এ দেশের মানুষ প্রবাসে যাত্রা শুরু করেন। তার আগেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মানুষ গিয়েছে, তবে এই সংখ্যাটি খুবই অল্প ছিল। ব্রিটিশরা এশিয়ার খুবই উর্বর ভূমিতে নানা ধরনের ফসল উৎপাদন শুরু করেন। তাদের প্রধান প্রধান ব্যবসা-বাণিজ্যের কেন্দ্রবিন্দু বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের বিভিন্ন শহরে গড়ে তোলেন, তখন আরব সাগর এবং ভারত মহাসাগর দিয়ে এশিয়ার এই দেশগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ সহজ ছিল। জাহাজে সিলেট ও চট্টগ্রামের যারা কাজ করতেন, তারা সুযোগ বুঝে অধিকাংশ লোক লন্ডনে ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাড়ি জমিয়েছেন। আবার ডান কান ব্রাদার্সের কোম্পানিতে কাজের সুবাদে অনেকেরই লন্ডন যাওয়া সহজ হয়েছে। তা ছাড়া বিভিন্নভাবে লন্ডন ও ইউরোপে মানুষ গিয়েছে। হিসাব মতে- সিলেট, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ এবং হবিগঞ্জ জেলার লোক বেশি লন্ডনে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে। পাশাপাশি চট্টগ্রাম অঞ্চলের লোকও লন্ডনে গিয়েছে। আশির দশকের কিছু দিন আগে থেকে মিডিল ইস্ট বা মধ্যপ্রাচ্যে যাওয়া শুরু হয়। তার পাশাপাশি ডিভি লটারিতে প্রচুর মানুষ আমেরিকা যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে। বিগত ১০-১৫ বছরে শিক্ষিত ছেলে-মেয়েরা বিভিন্ন প্রশিক্ষণ নিয়ে লন্ডন ও আমেরিকাসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে গিয়েছে। এখন বিশ্বের সব দেশে বাংলাদেশের মানুষ অবস্থান করছেন। দেশের অর্থনীতিতে সিংহভাগ অর্থ প্রবাসীদের রেমিট্যান্স থেকে আসে। আর এই রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের কষ্ট ও ত্যাগের বিনিময়ে দেশের সার্বিক উন্নতি সাধিত হচ্ছে তাই সব প্রবাসীকে জানাচ্ছি, প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। প্রবাসীদের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের দ্বারা এ দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেছে। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, প্রত্যেক পরিবারে ১-২ জন লোক বিশ্বের কোনো না কোনো দেশে রয়েছে, এ দেশের বিবেকবান যেকোনো লোক বিষয়টি স্বীকার করে। তা যদি এমন হয়, তাহলে তারা (প্রবাসীরা) দেশে এসে প্রতিটা ক্ষেত্রে কেন এত ভোগান্তির স্বীকার হবেন। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে জন্ম নিবন্ধন, এনআইডি তৈরি, মৃত্যু সনদ নিতে গিয়ে কি পরিমাণ হয়রানির স্বীকার একজন ভুক্তভোগী খুব ভালো জানেন। পাসপোর্ট করতে গেলে কত সমস্যা। প্রবাসীরা দেশ থেকে যাওয়ার সময় এবং দেশে আসার সময় বিশেষ করে বিমানবন্দরে নানাবিধ হয়রানির শিকার হতে হয়। বাংলাদেশে জন্ম, আবার বাংলাদেশের অফিস, আদালতগুলো প্রত্যেক প্রবাসীর কাছে খুবই কষ্টের জায়গা হিসেবে পরিচিত। অথচ প্রবাসে কেউ নেই, আপনজন ছাড়া, প্রত্যেকে নিজ নিজ কাজ ধারাবাহিক নিয়মে করতে পারছেন। নিজের আয়ের টাকাটা বালিশের নিচে রেখে প্রয়োজন সারছেন। ব্যাংক বিমার প্রয়োজন নেই। নামাজের সময় সবাই এক সঙ্গে এক সারিতে দাঁড়িয়ে নামাজ পড়ছেন। একে অন্যের কষ্টকে ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন। আপদে-বিপদে পাশাপাশি আছেন। সুন্দর এক মনোরম পরিবেশ। বাংলাদেশের প্রবাসীদের সঙ্গে বিশ্বের সব দেশের লোকের স্বাভাবিক ব্যবহার সন্তোষজনক আছে। দু-একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদর সেবা দেওয়ার শক্তিসার্মথ্য সবই আছে। শুধু সুন্দর মন-মানসিকতার অভাব। আর এ জন্য আজ পুরো জাতি জিম্মি। আমি দেশের সব অফিস-আদালতের কর্মকর্তা অথবা কর্মচারীদের বিনীত সুরে বলছি, একটি স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে প্রত্যেকের অধিকার সমান। আমার বক্তব্যে আমি কাউকে ছোট করতে চাই না। সবার প্রতি শ্রদ্ধাও ভালোবাসা সমান। আসুন সম্মিলিতভাবে দেশটা সুন্দর রাখি। দেশের মানুষকে ভালোবাসি। সবার প্রচেষ্টায় একটি সুন্দর বাংলাদেশ গড়ে উঠবে। বিশ্বে তার নাম সবার শীর্ষে থাকবে।

দেশের চলমান অবস্থা সম্পর্কে সবাই খুব ভালো অবহিত আছি। আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে আমাদের অধিকার আমরা প্রতিষ্ঠিত করি। প্রতিটি নাগরিকের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠিত না হলে, দেশে অশান্তি বিরাজ করবে। তাতে দেশে শান্তি আসবে না। সরকার দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য বদ্ধপরিকর। জনকল্যাণে বিভিন্ন স্থানে সরকারি ও বেসরকারি অবকাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে, নির্দিষ্ট জনবল নিয়োগের মাধ্যমে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে অর্থ ও জনবল নিযুক্ত করেছেন। তা হলে, জনগণ কেন সেই সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত থাকবে। নাগরিকরা কেন পদে পদে হয়রানির শিকার হবেন। সবার কাছে, আমার এই মিনতি। তার প্রতিকার চাই।

লেখক: পরিবেশবিদ ও কলামিস্ট


ফুটওভারব্রিজ ও জনসচেতনতা

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
সৈয়দ শাকিল আহাদ

সারা দেশের প্রধান প্রধান শহরে, বিশেষ করে রাজধানী শহরে সর্বসাধারণের চলাচলের জন্য নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন এলাকায় পথচারী ও বয়স্ক মানুষের কথা বিবেচনা করে সড়কে ফুটওভারব্রিজ ও ব্রিজে চলন্ত সিঁড়ি স্থাপন করেছেন সড়ক ও জনপথ এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। কিছু ফুটওভারব্রিজে নান্দনিক সৌন্দর্য ও দৃষ্টিনন্দন গাছগাছালীতে পরিপূর্ণ পরিবেশ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় ও মহতী উদ্যোগ কিন্তু জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সময় বাঁচাতে গিয়ে পথচারীরা প্রায়ই সড়কের মাঝখান দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে চলাচল করতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষের অঙ্গহানিসহ অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর ঘটনা একের পর এক ঘটেই চলেছে। এ ব্যাপারে যথাযথ কর্তৃপক্ষ উদাসীন ও অসহায়। তারা কোনো ধরনের ব্যবস্থা নিচ্ছেন না।

জানা গেছে, সড়কের এ ধরনের দুর্ঘটনা প্রতিরোধে নগরীর জনবহুল এলাকায় বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি ব্যাংক, বিমা কোম্পানিসহ বিভিন্ন অফিসগামী লোকজন, বড় বড় বহুতল মার্কেট ও শিল্পকারখানার শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিধার্থে ফুটওভারব্রিজ স্থাপন করেছেন সড়ক ও জনপথ কর্তৃপক্ষ এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। এ ছাড়া এলাকার অসুস্থ রোগী ও বয়স্ক পথচারীদের রাস্তা পারাপারের সুবিধার্থে সিটি করপোরেশন মাঝে মধ্যে ফুটওভারব্রিজে চলন্ত সিঁড়ি ও স্থাপন করেছেন।

এক শ্রেণির হকার ও ভীক্ষুকরা এই সকল ফুটওভারব্রিজ দখল করে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে জনগনের চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে মারাত্মক ঝুঁকি ও পথচারীদের শংকার মধ্যে রেখেছেন । অনুসন্ধানে জানা গেছে, উত্তরার আব্দুল্লাহপুর থেকে শুরু করে বিমানবন্দর এলাকা পর্যন্ত ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কে বেশ কয়েকটি ফুটওভারব্রিজ রয়েছে। তার মধ্যে উত্তরা আজমপুর, রাজলক্ষ্মী, জসীমউদ্দীন রোড, বিমানবন্দর, কাওলা ও খিলক্ষেত। তার মধ্যে অধিকাংশ ব্রিজ বেশ পুরোনো হয়ে গেছে। পাটাতন ভাঙাগড়া ও মাঝে মধ্যে ঝালাই দেয়া হয়। কিছু হকার ও পথশিশু ও পথচারীরা দিন ও রাতের বেলায় এসব ব্রিজগুলোর ঘুমিয়ে থাকতে দেখা গেছে। সকাল ও সন্ধ্যায় গাদাগাদি করে ব্রিজ পার হতে হয় মানুষকে। এ সময় ব্রিজে বাড়ে লোক সমাগম।

এদিকে উত্তরা বিমানবন্দর এলাকার অসুস্থ ও বয়স্ক লোকদের চলাচলের সুবিধার্থে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন হযরত শাহ্ জালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর চৌরাস্তায় ফুটওভারব্রিজের দুই পাশে চলন্ত সিঁড়ি স্থাপন করেছেন তবে, এই সিঁড়ি দুটি মাসের পর মাস অচল অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়।

স্থানীয় বাসিন্দা ও পথচারীরা জানান, বিমানবন্দর সড়কের এই চলন্ত সিঁড়িটি বেশিরভাগ সময়ই নষ্ট থাকে। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত হযরত শাহ্ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারী, সিভিল অ্যাভিয়েশন অথরিটি ও কাস্টম হাউসের শত শত বয়স্ক নারী-পুরুষকে এই ফুটওভারব্রিজ ও চলন্ত সিঁড়ি ব্যবহার করে রাস্তা পারাপার হতে হয় । দীর্ঘদিন যাবত এই ফুটওভারব্রিজের চলন্ত সিঁড়িটি নষ্ট, এটিকে মেরামত করার কোনো উদ্যোগ নিতে কাউকে দেখা যায় না।

এ সড়কে চলাচলকারী পথচারীরা অভিযোগ করে জানান, গণমানুষের সেবায় সরকারের বিপুল অংকের টাকা খরচ করে এই চলন্ত সিঁড়িটি লাগানো হয়েছে, কিন্তু এটিকে রক্ষনাবেক্ষনের দায়িত্ব কাদের ওপর এটা আমাদের জানা নেই। হঠাৎ এটি ১০ থেকে ১৫ দিন চলে আবার দুই তিন মাস চলে না।বনানীর ১১ নং রোড়ের মাথায় সৈনিক ক্লাবের মোড়ের ফুটওভারব্রিজ ও চলন্ত সিঁড়ির ও ওই একই অবস্থা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের রাস্তা পারাপারের নিরাপদ মাধ্যম এখানকার ফুটওভারব্রিজ সংলগ্ন এলাকাগুলোতে কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। উত্তরখান, দক্ষিণখান, আশকোনা, কাওলা ও সেক্টরে বসবাসকারী বাসিন্দাদের বিমানবন্দর সড়ক রাস্তার পূর্ব ও পশ্চিম পাশআশা যাওয়ার নিরাপদ মাধ্যম হিসেবে বর্তমানে ৩টি ফুটওভারব্রিজ রয়েছে ।

অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তাটি চওড়া হওয়ার কারণে আজমপুর ফুটওভারব্রিজ, রাজলক্ষী ফুটওভারব্রিজ ও জসীমউদ্দীন ব্রিজ গুলো ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের পেটের ভিতর ডুকে গিয়াছে। এ অবস্থায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অসহায় সাধারণ জনগণকে রাস্তা পারাপার হতে হচ্ছে। সড়কের পেটে ঢুকে পরা ব্রিজের সংস্কার না করে গত ১ মাস যাবৎ কোনো ধরনের নোটিশ এবং ঘোষণা ছাড়াই সড়কের ওপর নির্মিত ব্রিজের দুইপাশের লেন খুলে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বেশি যাত্রীর আশায় গণপরিবহন চালকরা মূল সড়ক ব্যবহার না করে নতুন লেনে চলাচল শুরু করে দিয়েছেন।

শত শত হাজার হাজার গাড়ি নতুন লেনে বেপরোয়া গতিতে চলাচল শুরু করায়, চাকরিজীবী সাধারণ জনগণ, উত্তরার বিভিন্ন স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফুট ওভার ব্রিজ পার হয়ে তাদের কর্মস্থলে যেতে হয় এবং ফিরতে হয় এ ছাড়া নিকটস্থ উত্তরা ৬নং সেক্টর কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতাল ও উত্তরা ১নং সেক্টরের জসিমউদ্দীন মহিলা মেডিকেলে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা গরিব অসহায় রোগীদেরও ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারা পার হতে হয় কারন এই মহাসড়কে রিকশা পারাপার নিষিদ্ধ ।

এই রাস্তার আশেপাশের জনগণকে বাস র্র্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের কাজ ধীরগতিতে চলার কারণে বিগত কয়েক বছর যাবৎ তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হতে হয়। নগরীর ব্যস্ততম এ সড়কে বর্তমানে পথচারীদের নিরাপদে রাস্তা পারাপারের ফুটওভারব্রিজ সংলগ্ন এলাকাগুলো ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। ব্রিজ এলাকায় নিরাপত্তার অভাবে যে কোন সময়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের উপসহকারী এর সাথে যোগাযোগ করলে জানান, তারা উত্তরা আজমপুর ও বিএনএস সেন্টারের সামনে ফুটওভারব্রিজের কাজ শুরু করেছেন। তবে, তারা খুব দ্রুত বিমানবন্দর মহাসড়কের ফুটওভারব্রিজ গুলো সংস্কার করে এখানকার জনদুর্ভোগ কমাবে।

বিমানবন্দর গোল চক্কর এলাকার চলন্ত সিঁড়ি মেরামতের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে যান।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, গুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তাটি বড় হওয়া এসড়কে যানজট কমবে। সাথে সাথে এখানকার ফুটওভারব্রিজ গুলোও দ্রুত সংস্কার করা দরকার।

উত্তরা পূর্ব থানা এলাকায় দায়িত্বরত টি আই বলেন, এই ফুটওভারব্রিজটি নিয়ে তারা নিজেরাও আতংকে রয়েছে। ব্রিজের দুই পাশের সড়কে গাড়ি চলাচলের কারণে কখন কি ঘটনা ঘটে যায় এটা ভেবে প্রতিনিয়ন তারা ভয়ে অস্থির থাকেন। এখানে সিটি করপোরেশনের কোন লোকজন নিরাপত্তার দায়িত্বে না থাকলেও তিনি তার অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে মহিলা মেডিকেলে আগত অসুস্থ রোগী, শিশু ও বয়স্ক লোকজন এবং স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীদের রাস্তা পারাপারের সহায়তা করছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, হযরত শাহ্ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর আব্দুল্লাহপুর সড়কে বি আর টি প্রকল্পের চলমান কাজকে সামনে রেখে রাস্তা বর্ধিতকরে যানবাহন চলাচলের জন্য দুটি লেন বাড়ানোর ফলে জসিমউদ্দীন, রাজলক্ষ্মী ও আজমপুর ফুটওভারব্রিজ ৩টি সড়কের ভিড় লেগে যায়। বর্তমানে পথচারীদের ব্রিজে উঠার আগেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বেপরোয়া গতিতে চলা যানবাহনের সামনে দিয়ে রাস্তা পার হয়ে ফুটওভারব্রিজে উঠতে হয় । এঘটনায় সড়কের পথচারীদের মাঝে দিন দিন ভীতির সৃষ্টি হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, পথচারীদের চলাচল নিরাপদ ও নির্ভীক করতে বিমানবন্দর মহাসড়কের ফুটওভারব্রিজগুলো খুব দ্রুত সম্প্রসারণ করা দরকার এবং কিছু জায়গায় তা দ্রুত এগিয়ে চলছে ।

দৃষ্টি একটু ঢাকা শহরের অন্য রাস্তার দিকে দিতেই দেখতে পাবো তিলোত্তমা এই শহরের কুড়িল বিশ্বরোড থেকে রামপুরা হয়ে মৌচাক পর্যন্ত মহাসড়কের উপর যে কয়টি ফুটওভারব্রিজ রয়েছে তার ভেতর অতিব গুরুত্বপূর্ণ দুটি ব্রিজের কথা না বললেই নয় একটি যমুনা শপিং মলের সামনে আর অন্যটি নতুন বাজার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সামনে , পাশেই ভাটেরা থানা অথচ এই ফুটওভারব্রিজটি যেমন সরু তেমনি হকার ও ভিক্ষুকদের দখলে অথচ এই ব্রিজদিয়ে প্রচুর বিদেশিদের যাতায়াত করতে দেখা যায় , কিছু অনিয়মের কারনে বিদেশিদের মাধ্যমে আমাদের দেশের ভাবমূর্তী কোথায় যাচ্ছে তা সকলেরই ভাবা উচিত ।

মিরপুর শ্যামলী কলেজগেট, আসাদগেট সায়েন্স ল্যাব নিউমার্কেট আজিমপুর রোডের ফুটওভারব্রিজ থেকেও হকার ও ভিক্ষুকমুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করা জরুরি, আবার মিরপুর ১নং মোড়ে ও ১০নং মোড়ের ফুটওভারব্রিজে সন্ধ্যার পর ভাসমান অশালীন হিজড়া ও অসামাজিক নারীদের দৃষ্টিকটু ইশারা অংগভংগী ও কুকাজের ইঙ্গিত ভদ্রবেশে চলাফেরা করা পথচারীদের জন্য প্রায়ই বিব্রত পরিস্থিতির শিকার হতে হয় ।

শহরের সকলের চলাচলের পথকে স্বাভাবিক রাখার স্বার্থ আমাদের আরও সচেতন ও দখলকারী হকার, ভিক্ষুকদের পুনর্বাসন এবং এদের প্রশ্রয়দাতা একশ্রেণির চাঁদাবাজের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা উচিত। এ ব্যাপারে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সুদৃষ্টি, সর্বস্তরের জনগণের সচেতনতা কামনা করছি ।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও গবেষক


আল্লাহ অহংকারীদের পছন্দ করেন না

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
আতিকুল ইসলাম খান

নিঃসন্দেহে আল্লাহ তায়ালা গোপন ও প্রকাশ্যের সব বিষয়ে অবগত। নিশ্চয়ই তিনি অহংকারীদের পছন্দ করেন না। সূরা আন নাহল (আয়াত ২৩)। আধুনিক বিজ্ঞানের অন্যতম আবিষ্কার ‘টাইটানিক জাহাজ’। এই নামটির সঙ্গে আমরা সবাই পরিচিত। টাইটানিক জাহাজকে ঘিরে রয়েছে এক ভয়াবহ ট্র্যাজেডিক ঘটনা । তারা সীমা অতিক্রম করে অহংকার করত। অহমিকা দ্বারা আল্লাহর ক্রোধকে কতটা কঠোর করেছিল যে, মহান পরাক্রমশালী আল্লাহ তাদের পাকড়াও করে অহংকারের পতন ঘটিয়েছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে সমুদ্রের হাজার হাজার মিটার গভীরে তলিয়ে গিয়েছিল শতাব্দীর প্রথম দিকের অন্যতম গৌরব পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এবং বিলাসবহুল ‘টাইটানিক জাহাজ’। আল্লাহ তায়ালাকে অসন্তুষ্ট করে প্রযুক্তি এবং বুদ্ধিমত্তার অহংকারে টাইটানিক নির্মাতারা জাহাজটি ডিজাইন করার পর এর বিশালতার শক্তি ও টেকনোলজির ওপর এত বেশি আস্থাবান ছিল যে, তারা ভেবেছিল ৮৮২ ফুট লম্বা ১৭৫ ফুট উচ্চ ৯২ ফুট চওড়া এই জাহাজ কখনো ডুববে না, কেউ ডোবাতে পারবে না। এমনকি স্বয়ং সৃষ্টিকর্তা চাইলেও একে কখনোই ডুবাতে পারবে না। আর সত্যি সত্যি আল্লাহ তায়ালা এদের এত বড় স্পর্ধা দেখে যারপরনাই নারাজ হয়েছিলেন। এতটাই নারাজ হয়েছিলেন যে, তিনি তাদের দম্ভ ও অহংকারকে মুহূর্তেই আটলান্টিক মহাসাগরের পানিতে নিমজ্জিত করে হাজার হাজার মিটার গভীরে তলিয়ে দিয়েছিলেন এবং বিশ্ববাসীকে অহংকারের চূড়ান্ত করুন পরিণতির শিক্ষা দিয়ে আবারও স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলেন যে, তিনিই মহান শক্তিধর নভোমণ্ডল এবং ভূমণ্ডলের যা কিছু আছে সবকিছুই তার অধীনে, তারই হুকুমের ওপর সবকিছু নিয়ন্ত্রিত সুবহান আল্লাহ! টাইটান দেবতার নাম অনুসারে টাইটানিক জাহাজটি ভিআইপি প্যাসেঞ্জার নিয়ে মাত্র আড়াই ঘণ্টার মধ্যেই ডুবে গিয়েছিল। কোনো আলৌকিক শক্তি বা পেশি শক্তির বলে নয় বরং পানির মধ্যে পানির জমাট করা বরফখণ্ডের সঙ্গে নিজেদের অবচেতনায় ধাক্কা লেগে শক্তিশালী স্বপ্নের সেই জাহাজটি খণ্ড খণ্ড হয়ে পানির নিচে তলিয়ে যায়। মহান স্রষ্টার সঙ্গে বেয়াদবির পরিণাম কী হতে পারে তা আমরা এ ঘটনা থেকেই শিক্ষা নিতে পারি। যুগে যুগে আমরা জেনে এসেছি, আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা ইসলামের বিশাল ক্ষমতাসীন শত্রু নমরুদ, আব্রাহা, কারুন ও ফেরাউনদের চরম পরিণতি ঘটিয়েছেন সামান্য তুচ্ছ মশা, পাখি, মাটিতে দাবিয়ে এবং পানিতে ডুবিয়ে। সুবহান আল্লাহ! হজরত ইবনে আব্বাস (রহ.) বলেন, যে সরদার তার নেতৃত্ব, সংযম, বুদ্ধিমত্তা, বিচক্ষণতা, শ্রেষ্ঠত্ব ও মর্যাদার সমস্ত গুণাবলিতে সম্পূর্ণ পূর্ণতার অধিকারী তিনিই হলেন সামাদ। পবিত্র কোরআনে আরও এরশাদ হয়েছে, যিনি ব্যতীত কোনো উপাস্য নেই, যিনি চিরঞ্জীব ও চিরস্থায়ী, যাকে তন্দ্রা ও নিদ্রা স্পর্শ করতে পারে না, আসমান ও জমিনে যা কিছু আছে সবকিছুই তার মালিকানাধীন। তার হুকুম ব্যতীত এমন কার সাধ্য আছে যে, তার নিকট সুপারিশ করতে পারবে? সৃষ্টির সামনে-পেছনে যা কিছু আছে সবকিছুই তিনি অবগত। তার জ্ঞানসমুদ্র হতে তারা কিছুই আয়ত্ত করতে পারবে না- কেবল যতটুকু তিনি দিতে ইচ্ছা করেন। তার আরশ কুরসি সমগ্র আসমান ও জমিন পরিবেষ্টন করে আছে, আর সেগুলোর তত্ত্বাবধায়ন তাকে মোটেও ক্লান্ত করে না, তিনি সর্বোচ্চ ও মহান। মহিমান্বিত তিনি, সর্বময় কর্তৃত্ব যার নিয়ন্ত্রণাধীন এবং যিনি সর্ব বিষয়ে ক্ষমতাবান, যিনি জীবন ও মৃত্যু সৃষ্টি করেছেন শুধু তোমাদেরকে পরীক্ষা করার জন্য যে, তোমাদের মধ্যে কে আমলে উত্তম? তিনি পরাক্রমশালী এবং অত্যন্ত ক্ষমাশীল ।

যিনি সৃষ্টি করেছেন স্তরে স্তরে সাত আকাশ। দয়াময়ের সৃষ্টিতে তুমি কি কোনো খুঁত দেখতে পাও ? তুমি আবার দেখ, অতঃপর তুমি বারবার দৃষ্টি ফিরাও তোমার দৃষ্টি ব্যর্থ ও ক্লান্ত হয়ে তোমার দিকে ফিরে আসবে (সূরা মুলক ১-৪)। সুতরাং বান্দার জীবনের সার্থকতা হলো আল্লাহর পরিচয় জেনে আল্লাহর একত্ববাদে বিশ্বাস করবে, আল্লাহকে ভালোবেসে আল্লাহর হুকুম পালন করবে। অতঃপর পরকালে তাকে দেখে সীমাহীন তৃপ্তি লাভ করবে।

ইনশাআল্লাহ অহংকারবসে তুমি মানুষকে অবজ্ঞা করো না এবং পৃথিবীতে গর্বভরে পদচারণা করো না। নিশ্চয়ই আল্লাহ কোনো দাম্ভিক অহংকারীকে পছন্দ করেন না। (সূরা লোকমান- ১৮)

অহংকার ও দম্ভ সব আত্মিক রোগের মূল। আরবিতে একে উম্মুল আমরাজ বলা হয়।

আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা ইরশাদ করেন, নিঃসন্দেহে আল্লাহ অহংকারীদের পছন্দ করেন না। (সূরা: নাহল, আয়াত: ২৩) রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, যার অন্তরে বিন্দু পরিমাণ অহংকার থাকবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে না। (মুসলিম শরিফ)।

অহংকার ও বিনয়, কোনটি ভালো? এ প্রশ্নের উত্তর জানার আগে আপনি প্রশ্ন করতে পারেন অহংকারীদের নামের তালিকায় কে কে আছেন? আর বিনয়ীদের নামের তালিকায় কারা আছেন?

আমরা দেখতে পাই অহংকারীদের ভেতর শীর্ষে আছে ইবলিস। ইবলিস শয়তান বলেছিল, আমি আদমের চেয়ে শ্রেষ্ঠ। আল্লাহ বললেন, অহংকার করা তোমার উচিত নয়, যাও লাঞ্ছিত হয়ে বের হয়ে যাও এখান থেকে। (সূরা আরাফ)মানুষের ভেতর অহংকারী ছিল নমরুদ, ফেরাউন, আবু জাহেল। অহংকারে ফেরাউন বলেছিল, আমি তোমাদের বড় রব। নমরুদ আবু জাহেল আবু লাহাব উতবা শায়বা আরও অসংখ্য লোক দম্ভ ভরে সত্য প্রত্যাখ্যান করেছিল। এর বিপরীতে বিনয়ী ছিলেন পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সব মনীষীরা। হযরত আদম (আ.) থেকে নিয়ে আখেরি পয়গম্বর পর্যন্ত সব নবী রাসূল অত্যন্ত বিনয়ী ছিলেন। সাহাবী তাবেয়ি ও আল্লাহর ওলিরা সবাই বিনয়ের চর্চা করতেন। অহংকার থেকে বেঁচে থাকার চেষ্টা করতেন।

দাম্ভিকদের শেষ পরিণতি মোটেও শুভ হয় না। বিনয়ী মানুষকে সবাই ভালোবাসে। মানুষের এবং আল্লাহর ভালোবাসা পেতে হলে আমাদের অবশ্যই বিনয়ী হতে হবে।

বিনয়ী বিনয় প্রকাশ করার কারণে তার সম্মান কমে যায় না। যে আল্লাহর জন্য বিনয় অবলম্বন করে আল্লাহ তার মর্যাদা বৃদ্ধি করে দেন। (তাবারানি)

আর যারা অহংকার করে কাল কেয়ামতে তাদেরকে বিন্দুর আকৃতি দেয়া হবে, সব মানুষ তাদেরকে পদদলিত করবে। আল্লাহর কাছে দাম্ভিক লোক এতটাই অপছন্দের।

অহংকার থেকেই হিংসা, ক্রোধ, বিদ্বেষ ও শত্রুতার দোষ ঘর করে মনের ভেতর। আভ্যন্তরীণ এমন অসংখ্য রোগ অহংকারীর ভেতরটাকে শেষ করে দেয়। ভালো কোনো গুণই আর সে ধরে রাখতে পারে না।

কারো কাছ থেকে ভালো কোনো উপদেশ গ্রহণের মত তার অবস্থা থাকে না। সবাইকে সে নিজের চেয়ে ছোট মনে করতে থাকে। নিজেকে বড় মনে করার রোগ একবার গেড়ে বসলে ধীরে ধীরে এটা বাড়তে থাকে।একপর্যায়ে সে আল্লাহ ও আল্লাহর রাসূল সা.-এর নির্দেশনা মান্য করার গুণ থেকেও বঞ্চিত হয়।

অহংকার হৃদয়ের রোগ হলেও এর প্রকাশ বাহ্যিক আচরণের মাধ্যমেই হয়। অন্যদের প্রতি তুচ্ছ তাচ্ছিল্য প্রকাশের মাধ্যমে সে তার অহংকার প্রকাশ করতে থাকে। কপাল কুচকে থাকে সব সময়। চেহারায় অন্য রকম একটা ভাব নিয়ে আসে। অন্যদের প্রতি চরম এক ঘৃণা ফুটে ওঠে তার কথাবার্তা ও আচরণে।

হযরত ইবন আব্বাস (রা.) বলেন, লোকে বলে আমি সম্ভ্রান্ত। অথচ সম্ভ্রান্ত হওয়া বা আভিজাত্য অর্জন করতে হয় তাকওয়ার মাধ্যমে।

আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা ইরশাদ করেন, আল্লাহর নিকট তোমাদের ভেতর সবচেয়ে সম্মানিত হচ্ছে তাকওয়ার অধিকারী। (হুজুরাত, আয়াত: ১৩)

কেউ তাকওয়ার গুণ অর্জন ছাড়া অভিজাত হতে পারে না। সম্পদ, সৌন্দর্য, জ্ঞান, ক্ষমতা, প্রতিপত্তি ও অন্য কোনো গুণ নয়, একমাত্র তাকওয়া মানুষকে অভিজাত করে।

আর তাকওয়া যার অর্জিত হবে সে কখনও অন্যকে তুচ্ছ জ্ঞান করবে না। নিজেকে সে কখনও অভিজাত বা সম্ভ্রান্ত দাবি করবে না। কারণ গর্ব করা ও দাম্ভিকতা প্রদর্শন আল্লাহর কাছে খুবই অপছন্দনীয়।

অবশ্য সুন্দর ভাবে চলা ও পরিপাটি হয়ে থাকার নাম অহংকার নয়। রাসূল (সা.) বলেন, আল্লাহ সুন্দর, তাই সৌন্দর্য পছন্দ করেন। সুন্দর পোষাক পরার নাম অহঙ্কার নয়, অহঙ্কার হচ্ছে, সত্য অস্বীকার করা আর মানুষকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করা। (তিরমিযি)

রাসূল (সা.) খুব বিনয়ী ছিলেন। খুব সাধারণভাবে চলা ফেরা করতেন। খাবার খাওয়ার সময় গোলামের মত বসে খাবার খেতেন। দীর্ঘ দিন যাবৎ নিজের জন্য পৃথক কোনো আসনও তিনি গ্রহণ করেননি। যার ফলে দূর থেকে কেউ এসে সাহাবিদের থেকে রাসূলকে (সা.) আলাদা করতে পারত না।

একটা বাদিও রাসূলকে (সা.) যদি মদীনার পথের মাঝে দাঁড় করিয়ে কথা বলত; রাসূল (সা.) তার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনতেন।

হযরত আনাস বর্ণনা করেন, একবার মদীনা মুনাওয়ারায় এক সাধারণ দাসী রাসূলের (সা.) হাত ধরে তার একটি কাজে নিয়ে গেল, রাসূল (সা.) তার কাজ করে দিলেন। অহঙ্কারে হাত ছুটিয়ে নেননি।

মুহাদ্দিস ইবন ওয়াহাব বলেন, একবার আমি আব্দুল আযীয ইবন আবি রাওয়াদের (রহ.) মজলিসে বসলাম। তার পায়ের সঙ্গে আমার পা লেগে গিয়েছিল, আমি পা সরিয়ে নিলে তিনি আমার কাপড় ধরে তার দিকে টান দিলেন। আর বললেন, তোমরা আমার সঙ্গে এমন আচরণ করো কেন? আমি কি অহঙ্কারী রাজা বাদশাহদের মত? খোদার কসম, আমার চোখে তোমাদের ভেতর আমার চেয়ে অধম আর কেউ নেই।

মুসলিম মনীষীদের বিনয়ের অসংখ্য গল্প আছে। আজকে আমরা ইসলামের এ শিক্ষা কতটুকু ধারণ করতে পারছি?

কতটুকু বিনয়ের চর্চা রয়েছে আমাদের ভেতর? জান্নাত পেতে চাইলে অহংকার ত্যাগ করে বিনয়ী হবার বিকল্প কিছু নেই। আমাদের অবশ্যই বিনয়ী হতে হবে।

কারণ আমরা মুসলিম। আর একজন মুসলিম সবসময় উচু পর্যায়ের বিনয়ী ও বিনম্র।

আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা ইরশাদ করেন, নিঃসন্দেহে আল্লাহ অহংকারিদের পছন্দ করেন না। (সূরা: নাহল, আয়াত: ২৩) রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, যার অন্তরে বিন্দু পরিমাণ অহংকার থাকবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে না। (মুসলিম শরিফ)

আমরা আলোচনা করেছিলাম দাম্ভিক ও অভিশপ্ত নমরুদ এবং তার অকল্পনীয় পরিণতি সম্পর্কে।

ইনশাআল্লাহ এ অংশে আলোচনা করব দাম্ভিক ফেরাউন ও তার পরিণতি সম্পর্কে যথাসম্ভব সংশ্লিষ্ট আল্লাহর বাণী বা আয়াতগুলো উল্লেখ করে।

ফেরাউনের দম্ভ বা অহংকার অতুলনীয়, কারণ সে নিজেকে প্রভু বলে দাবি করেছে। তাছাড়া সে ছিল অত্যাচারী, অসংখ্য-অগণিত বনি ইসরাইলের পুত্রসন্তান হত্যাকারী। মূসা (আ.) ও দাম্ভিক ফেরাউন সম্বন্ধে পবিত্র কোরআনে ধারাবাহিকভাবে অনেক আয়াত উল্লেখ আছে, যা নিম্নে বর্ণিত হলো।

আল্লাহর নির্দেশে মূসা (আ.)-এর মাটিতে ফেলে দেওয়া লাঠি যখন সাপ হলো, ফেরাউন ও তার বাহিনী তাতে বিস্মিত হলো।

আবার আল্লাহর নির্দেশে মূসা (আ.) যখন সাপটিকে ধরলেন, তা পুনরায় লাঠি হয়ে গেল। এ দৃশ্য দেখে মূসা (আ)-কে ফেরাউন ও তার বাহিনী ‘জাদুকর’ আখ্যায়িত করল। পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহ নিম্নরূপ, যা পবিত্র কোরআনে উল্লেখ আছে- আল্লাহর বাণী- সূরা আল কাসাস : ৩-১১ (কীভাবে শিশু মূসা আ. ফেরাউনের গৃহে স্থান পেল)। ‘আমি মূসা ও ফেরাউনের কাহিনি থেকে কিছু তোমার কাছে (মুহাম্মদ (সা.)-এর কাছে) সত্যিকারভাবে বিবৃত করছি বিশ্ববাসী সম্প্রদায়ের উদ্দেশে। বস্তুত ফেরাউন দেশে উদ্ধত হয়ে গিয়েছিল আর সেখানকার অধিবাসীদেরকে বিভিন্ন শ্রেণিতে বিভক্ত করে তাদের একটি শ্রেণিকে দুর্বল করে রেখেছিল, তাদের পুত্রদেরকে সে হত্যা করত আর তাদের নারীদেরকে জীবিত রাখত; সে ছিল ফ্যাসাদ সৃষ্টিকারী। দেশে যাদেরকে দুর্বল করে রাখা হয়েছিল আমি তাদের প্রতি অনুগ্রহ করার ইচ্ছা করলাম, আর তাদেরকে নেতা ও উত্তরাধিকার করার (ইচ্ছা করলাম)। আর (ইচ্ছা করলাম) তাদেরকে দেশে প্রতিষ্ঠিত করতে, আর ফেরাউন, হামান ও তাদের সৈন্য বাহিনীকে দেখিয়ে দিতে যা তারা তাদের (অর্থাৎ- মূসা আ.-এর সম্প্রদায়ের) থেকে আশঙ্কা করত। আমি মূসার মায়ের প্রতি ওহি করলাম যে, তাকে (মূসাকে) স্তন্য পান করাতে থাক। যখন তুমি তার সম্পর্কে আশঙ্কা করবে, তখন তুমি তাকে দরিয়ায় নিক্ষেপ করবে, আর তুমি ভয় করবে না, দুঃখও করবে না, আমি তাকে অবশ্যই তোমার কাছে ফিরিয়ে দেব আর তাকে রাসূলদের অন্তর্ভুক্ত করব। অতঃপর ফেরাউনের লোকজন তাকে উঠিয়ে নিল যাতে সে তাদের জন্য শত্রু ও দুঃখের কারণ হতে পারে। ফেরাউন, হামান ও তাদের বাহিনীর লোকেরা তো ছিল অপরাধী। ফেরাউনের স্ত্রী বলল- এ শিশু (মূসা) আমার ও তোমার চক্ষু শীতলকারী, তাকে হত্যা করো না, সে আমাদের উপকারে লাগতে পারে অথবা তাকে আমরা পুত্র হিসেবেও গ্রহণ করতে পারি আর তারা (ফেরাউন ও তার সাথীরা) কিছুই বুঝতে পারল না (তাদের এ কাজের পরিণাম কী)।

মূসা আ.-এর মায়ের অন্তর বিচলিত হয়ে উঠল। সে তো তার পরিচয় প্রকাশ করেই ফেলত যদি না আমি তার চিত্তকে দৃঢ় করতাম, যাতে সে আস্থাশীল হয়। মূসা আ.-এর মা মূসা আ.-এর বোনকে বলল, ‘তার (মূসার) পেছনে পেছনে যাও।’ সে দূর থেকে তাকে দেখছিল কিন্তু তারা (ফেরাউনের লোকজন) টের পায়নি।’ আল্লাহর বাণী- ফেরাউন বলল- ‘হে পারিষদবর্গ! আমি ছাড়া তোমাদের অন্য উপাস্য আছে বলে আমি জানি না। হে হামান! তুমি আমার জন্য ইট পোড়াও এবং একটি সুউচ্চ প্রাসাদ তৈরি করো; হয়তো আমি তাতে উঠে মূসার মাবুদকে দেখতে পাব। তবে আমি অবশ্য মনে করি যে, সে মিথ্যাবাদী’ (সূরা আল কাসাস-৩৮)।

আল্লাহর বাণী- ‘ফেরাউন ও তার বাহিনী অকারণে পৃথিবীতে অহঙ্কার করেছিল আর তারা ভেবেছিল যে, তাদেরকে আমার কাছে ফিরিয়ে আনা হবে না’ (সূরা আল কাসাস-৩৯)। এ আয়াতে সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত ফেরাউন অহংকারী বা দাম্ভিক ছিল।

আল্লাহর বাণী- ফেরাউন বলল, ‘হে মূসা তাহলে কে তোমার রব? মূসা আ. বললেন, ‘আমাদের প্রতিপালক তিনি যিনি সব (সৃষ্ট) বস্তুকে আকৃতি দান করেছেন, অতঃপর পথনির্দেশ করেছেন।’ ফেরাউন বলল ‘তাহলে আগের যুগের লোকদের অবস্থা কী (সূরা ত্ব-হা : ৪৯-৫১)? অর্থাৎ প্রতিপালক বা আল্লাহ সম্পর্কে ফেরাউনের কোনো জ্ঞান ছিল না তাই সে আলোচ্য প্রশ্ন রেখেছিল।

আল্লাহর বাণী- সে (ফেরাউন) বলল ‘হে মূসা, তুমি কি আমাদের কাছে এ জন্য এসেছ যে, তোমার জাদুর দ্বারা আমাদেরকে আমাদের দেশ থেকে বের করে দেবে? তাহলে আমরাও অবশ্যই তোমার কাছে অনুরূপ জাদু হাজির করব, কাজেই একটি মধ্যবর্তী স্থানে আমাদের ও তোমার মিলিত হওয়ার জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ কর, যার খেলাফ আমরাও করব না আর তুমিও করবে না’ (সূরা ত্ব-হা : ৫৭-৫৮)।

আল্লাহর বাণী- ফেরাউন বলল, ‘তোমরা প্রত্যেক বিজ্ঞ জাদুকরকে আমার কাছে নিয়ে এসো (মূসাকে পরাজিত করার জন্য)। জাদুকররা যখন এসে গেল, তখন মূসা আ. (সে নিজে তার লাঠি নিক্ষেপ না করে) তাদেরকে বলল, ‘নিক্ষেপ করো তোমরা যা নিক্ষেপ করবে’ (সূরা ইউনুস : ৭৯-৮০)।

আয় আল্লাহ! আমাদের কে অহংকারমুক্ত নেক হায়াত দান করুন । আমিন

লেখক: ইসলামী চিন্তাবিদ, সমাজসেবক

বিষয়:

পরিবেশ টিকে না থাকলে পৃথিবীর জন্য বিপর্যয়

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
লিয়াকত হোসেন খোকন 

পরিবেশের বিপর্যয় বা অবনতি বলতে বায়ু, পানি ও মাটি প্রভৃতি সম্পদ নিঃশেষের মাধ্যমে পরিবেশের ক্ষয়সাধন, বাস্তুতন্ত্রের ধ্বংসসাধন, আবাস ধ্বংসকরণ, বন্যপ্রাণী বিলুপ্তকরণ এবং দূষণ বৃদ্ধিকে বোঝায়, যা রাষ্ট্রসংঘের উচ্চপর্যায়ের হুমকি, চ্যালেঞ্জ ও পরিবর্তন প্যানেল দ্বারা আনুষ্ঠানিকভাবে দশটি হুমকির একটি হিসেবে সতর্ক করা হয়েছে। রাষ্ট্রসংঘ আন্তর্জাতিক বিপর্যয় প্রশমন কৌশল পরিবেশের অবনতিকে সংজ্ঞায়িত করেছে। সামাজিক ও পরিবেশগত উদ্দেশ্য এবং চাহিদা পূরণের জন্য পরিবেশের ধারণ ক্ষমতা হ্রাস হিসেবে। পরিবেশের অবনতি অনেক ধরনের হয়। প্রাকৃতিক আবাসস্থল ধ্বংস হলে বা প্রাকৃতিক সম্পদ নিঃশেষ করা হলে পরিবেশের ক্ষয় হয়। এই সমস্যা প্রতিহত করতে পরিবেশ সুরক্ষা এবং পরিবেশগত সম্পদ ব্যবস্থাপনার প্রয়োজন বলে বিশ্ব নেতৃত্ব চিহ্নিত হলেও এই সমস্যা আদৌ হ্রাস পাচ্ছে না। বরং করোনাকালেও পরিবেশের অবনতির হার বেড়েছে। তা ছাড়া বিশ্বের ২২৭ পরিবেশকর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। পরিবেশ ধ্বংসের বিপদের মধ্যে

যুক্ত হয়েছে দাবানলের বিষয়টিও। দক্ষিণ আমেরিকার আমাজন তো বটেই, ক্যালিফোর্নিয়া, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের প্রায় সব দেশেই কমবেশি লেগে রয়েছে দাবানলের প্রকোপ। বনভূমি ধ্বংসের পাশাপাশি মানুষের কার্যকলাপে ক্রমাগত বদলাচ্ছে প্রাকৃতিক ভারসাম্য। বদলাচ্ছে জলবায়ু। পরিবেশের নিরাপত্তা তো আজ প্রশ্নের মুখোমুখি- সেইসঙ্গে যারা প্রকৃতি রক্ষার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন, তাদের পরিণতিও হচ্ছে ভয়ংকর। পরিবেশ ও মানবাধিকার সংস্থা গ্লোবাল উইটনেসের সাম্প্রতিক রিপোর্ট জানাচ্ছে তেমনটাই। সব মিলিয়ে ২০২০ সালে বিশ্বজুড়ে হত্যার শিকার হয়েছেন ২২৭ জন পরিবেশকর্মী। ২০১৮ সালে সংখ্যাটি ছিল ১৬৮। ২০১৯ সালে তা এক লাফে বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ২০৭ জনে। ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে পরিবেশ রক্ষকদের ওপর নৃশংসতার পরিমাণ। গ্লোবাল উইটনেসের রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রায় ৭০ শতাংশ ঘটনার শিকার হয়েছেন বনভূমি -রক্ষকরা। বৃক্ষচ্ছেদন, অবৈধ খনন, চোরা শিকার, পাচার, জুম চাষের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে গিয়েই প্রাণ দিতে হয়েছে অধিকাংশ পরিবেশকর্মীকে। বাকি ৩০ শতাংশ ঘটনা ঘটেছে বিভিন্ন নদীদূষণ, বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের প্রতিবাদীদের ওপর। তবে আশ্চর্যের বিষয় হলো, সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছেন প্রাচীন জনগোষ্ঠীর মানুষ। তাদের সংখ্যা বিশ্বের মোট জনসংখ্যার মাত্র ৫ শতাংশ হলেও ৩০ শতাংশ হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন ভূমিপুত্ররাই। এই ঘটনা যেন আরও বেশি করে প্রমাণ দিচ্ছে, বৃক্ষচ্ছেদন ও অরণ্যের ওপর অত্যাচার পরিবেশের পাশাপাশি বিপন্ন করে তুলেছে বাস্তুতন্ত্র এবং প্রকৃতিঘেঁষা মানুষকে; কিন্তু পরিবেশ ও পরিবেশকর্মী নিধনকারী আর অপরাধীদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের প্রশাসন বিশেষ কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি। কারণ, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এসব দুর্নীতি ও হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে জড়িত রয়েছে সেসব দেশের সরকার। সরকারি মদদেই চলছে বেআইনি খাদান থেকে শুরু করে পাচার। কোথাও কোথাও আবার এসব হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রয়েছে বহুজাতিক সংস্থারাও। পরিবেশবিপর্যয় ধারণাটি গত শতাব্দীতে আবির্ভূত হলেও এর প্রকোপ চলতি শতাব্দীতেও প্রকট। বৃক্ষ নিধন, নদী ভরাট, পাহাড় কর্তন, তাপমাত্রা বৃদ্ধি এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ক্রমান্বয়ে প্রক্রিয়ায় চলমান দুর্যোগগুলো বিশ্ব, আঞ্চলিক এবং স্থানীয় জীবনকেও পর্যুদস্ত করছে। বিশ্বের শীর্ষ স্থানীয় পরিবেশ বিজ্ঞানীরা সতর্ক করেছেন, কার্বন নিঃসরণের বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে ১২ বছরের মধ্যে পৃথিবীকে বাঁচানো সম্ভব হবে না। দাবানল, খরা, বন্যা ও ভয়াবহ তাপপ্রবাহের মতো মহাবিপর্যয় নেমে আসতে পারে। রাষ্ট্রসংঘের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক আন্তর্জাতিক প্যানেল এক বিশেষ প্রতিবেদনেও এমন সতর্কবাণী দিয়েছে। রাষ্ট্রসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখনই পদক্ষেপ না নিলে অবিলম্বে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির হার ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস অতিক্রম করবে। উষ্ণতা বৃদ্ধির বিপর্যয় পূর্ণ এ মাত্রা এড়াতে সমাজের সর্বক্ষেত্রে ইতিবাচক পরিবেশের পক্ষে দ্রুত, সুদূরপ্রসারী ও নজিরবিহীন পরিবর্তনের অপরিহার্যতা তুলে ধরেছেন বিজ্ঞানীরা। সুতরাং সকলে সাবধান, পরিবেশ খারাপ হচ্ছে- পরিবেশ রক্ষা করুন।

লেখক: পরিবেশবিদ ও চিঠিপত্র গবেষেক


গ্রামীণ অর্থনীতিতে অবদান রাখবে ‘একটি গ্রাম একটি পণ্য’

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
রেজাউল করিম খোকন

রপ্তানি পণ্যের বহুমুখীকরণের জন্য ১৬ বছর আগে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর নেওয়া ‘এক জেলা এক পণ্য’ উদ্যোগটি মোটামুটি ব্যর্থ হওয়ার পর সেই ব্যর্থতার কারণ না খুঁজে এবার হাতে নেওয়া হয়েছে ‘একটি গ্রাম একটি পণ্য’ নামে নতুন উদ্যোগ। এক বছরের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে এ উদ্যোগ নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এ উদ্যোগের পর ভবিষ্যতে এসংক্রান্ত প্রকল্প নেওয়া হবে। পরীক্ষামূলক উদ্যোগের অংশ হিসেবে গ্রামওয়ারি পণ্য নির্বাচনের জন্য দেশের সব জেলা প্রশাসককে চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। চিঠিতে এক মাসের মধ্যে পণ্যের নাম, উৎপাদনকারীর নাম-ঠিকানাসহ সংশ্লিষ্ট পণ্যের বিষয়ে প্রতিবেদন পাঠাতে বলা হয়েছে। প্রতিবেদনে জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও গ্রামভিত্তিক এক বা একাধিক হস্তশিল্পজাত পণ্য বা ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্যের তালিকা থাকতে হবে। এত দিন এক জেলা এক পণ্য কর্মসূচিটি রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো এককভাবে চালিয়ে আসছিল। তাতে কিছু পণ্যও চিহ্নিত হয়েছিল। তবে সেটি খুব ভালোভাবে এগোয়নি। এখন যে প্রতিবেদন পাওয়া যাবে, তার ভিত্তিতে ভবিষ্যতে প্রকল্প হাতে নেওয়া হবে। অন্তত এক বছর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দেখবে কোথায়, কী আছে এবং সেগুলোর রপ্তানি সম্ভাবনা কতটুকু। এদিকে রপ্তানি বহুমুখীকরণের লক্ষ্যে সম্ভাবনাময় পণ্যের উৎপাদন ও রপ্তানিকে উৎসাহিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২৪ সালে ‘হস্তশিল্পজাত পণ্য’কে বর্ষপণ্য ঘোষণা করেছেন। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার এ কর্মসূচি চালু করে। আর তা বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেওয়া হয় রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোকে। এক জেলা এক পণ্য বড় ধরনের কোনো কর্মসূচি ছিল না। তারা চেষ্টা করেছে এর মাধ্যমে রপ্তানিযোগ্য কিছু পণ্য বের করে আনতে। তার আওতায় আগর, সুগন্ধি চাল, হস্তশিল্প কিছু রপ্তানিও হয়েছে। এক জেলা এক পণ্য কর্মসূচির আওতায় ৪১টি জেলা থেকে ১৪টি পণ্য নির্বাচন করা হয়। এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে মৌলভীবাজারে আগরউড ও আগরবাতি; নাটোরের ভেষজ উদ্ভিদ; পঞ্চগড়ের অর্গানিক চা; দিনাজপুর, নওগাঁ ও কুষ্টিয়ার সরু ও সুগন্ধি চাল; খুলনার কাঁকড়া; বান্দরবানের রাবার; সুনামগঞ্জ, ফেনী, জামালপুর, ফরিদপুর, রংপুর ও কুড়িগ্রামের হস্তশিল্প; রাজশাহী, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, কুমিল্লা ও রাঙামাটির হস্তচালিত তাঁতবস্ত্র; দিনাজপুরের পাপর; জয়পুরহাট, চাঁদপুর, বগুড়া, নীলফামারী, মুন্সীগঞ্জ, মেহেরপুর, যশোর, মানিকগঞ্জ, নরসিংদী, ঝিনাইদহ ও নারায়ণগঞ্জের তাজা শাক-সবজি; নেত্রকোনা, বরিশাল, ময়মনসিংহ, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী ও নড়াইলের মাছ; চট্টগ্রামের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য; খাগড়াছড়ির আনারস এবং চুয়াডাঙ্গার পান। এখন যেভাবে একটি গ্রাম একটি পণ্যের কথা চিন্তা করা হচ্ছে, তা রপ্তানি পণ্য বাড়াতে কাজে দেবে বলে আশা করা যায়।

এক জেলা এক পণ্য কর্মসূচি থেকে কেন সুফল পাওয়া গেল না, তারও মূল্যায়ন হওয়া জরুরি। আর নতুন উদ্যোগের জন্য আমলাতান্ত্রিকতার পরিবর্তে স্থানীয় সরকার তথা ডিসি কার্যালয়, উপজেলা প্রশাসন ও ইউনিয়ন পরিষদকে যুক্ত করলে ভালো ফল মিলতে পারে। সরকার এখন গ্রামভিত্তিক পণ্য ও কর্মসংস্থানের ওপর জোর দিচ্ছে। সেই লক্ষ্যে ‘একটি গ্রাম, একটি পণ্য’র এই স্লোগান নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মাধ্যমে গ্রামে তৈরি পণ্যকে দেশে-বিদেশে মূলধারার বাজারে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে তৃণমূল নারী উদ্যোক্তাদের সক্রিয় সহযোগিতা ও অংশগ্রহণ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ উদ্যোক্তাদের তৈরি হস্তশিল্প ও খাদ্যসামগ্রীর বাণিজ্য সম্ভাবনা কাজে লাগানোর নির্দেশ দিয়েছেন। ‘একটি গ্রাম, একটি পণ্য’ কর্মপরিকল্পনার মাধ্যমে গ্রামভিত্তিক পণ্যকে মূলধারার বাজারে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হবে। পণ্যের সঙ্গে পণ্যের কারিগরদেরও মূল্যায়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কোন গ্রাম থেকে কোন কারিগর পণ্যটি তৈরি করল; তা সবার সামনে তুলে ধরা হবে। উদ্যোক্তাদের এগিয়ে নিতে হলে পণ্য তৈরির কারিগরদের বাঁচিয়ে রাখতে হবে। গ্রামে তৈরি পণ্যের কারিগর ও তৈরির স্থান চিহ্নিত করে তা দেশি-বিদেশি বাজারে পৌঁছে দেওয়া হবে। ২০২৬ সালের মধ্যে ১২৮টি পণ্য নিয়ে জীবিকায়ন শিল্পপল্লী গঠনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড ছয়টি উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। উদ্যোগগুলো হচ্ছে- পল্লীতে টেকসই জীবিকায়ন-কর্মসংস্থান সৃষ্টি, পল্লী পণ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও প্রসার, পল্লী উদ্যোক্তা উন্নয়ন, দক্ষ জনসম্পদ সৃষ্টি, উৎপাদিত পণ্যের গুণগত মানোন্নয়ন ও বিপণন সংযোগ তৈরি। সরকার বর্তমানে বিআরডিবির পল্লীতে পণ্যের উৎপাদন বৃদ্ধি ও উৎপাদিত পণ্যের সুসংহত বিপণন ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণে তৃতীয়পর্যায় প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এই প্রকল্পে এক পণ্যে এক পল্লীভিত্তিক জীবিকায়ন শিল্পপল্লী গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ৪৮ জেলার ২২০টি উপজেলায় ২০২৬ সালের মধ্যে ১২৮টি পণ্যভিত্তিক জীবিকায়ন শিল্পপল্লী গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। পল্লীপণ্যের গুণগত মানোন্নয়ন, বহুমুখীকরণ, উৎপাদন বৃদ্ধি, বাজার সম্প্রসারণ ইত্যাদি কার্যক্রমের সমাহারে জীবিকায়ন শিল্পপল্লী উন্নয়নে নবযুগের সূচনা করবে। এটি বাস্তবায়িত হলে পল্লী কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও পল্লী অর্থনীতির উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এলাকাভিত্তিক সুফলভোগীদের জন্য তাদের ভৌগোলিক এলাকায় উৎপাদিত পণ্যের জন্য ঋণের পরিমাণ বাড়ানোসহ কাজের পরিবেশ সৃষ্টির জন্য উদ্যোগ, পণ্যের গুণগত মানোন্নয়নের জন্য উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। স্থানীয় কাঁচামালনির্ভর ও শ্রমঘন এসব পণ্য উৎপাদনে বেশি পুঁজির দরকার হয় না। তাই প্রতিটি গ্রাম থেকে হস্তশিল্পজাত পণ্য নির্বাচন করতে হবে, যার মধ্যে খাদ্যজাত পণ্যও থাকতে পারে। নতুন উদ্যোগের জন্য আমলাতান্ত্রিকতার পরিবর্তে স্থানীয় সরকার তথা ডিসি কার্যালয়, উপজেলা প্রশাসন ও ইউনিয়ন পরিষদকে যুক্ত করলে ভালো ফল পাওয়া যেতে পারে। দেশের একমাত্র ভাসমান পেয়ারার বাজার ঝালকাঠি জেলায়। বরিশালের মিষ্টি আমড়া বলতে যা বোঝানো হয়, তার ৮০ শতাংশই ঝালকাঠির। এ ছাড়া শীতলপাটি, সুপারি এবং হাতেভাজা একধরনের মুড়ি রয়েছে ঝালকাঠিতে, যা অন্যসব জেলা থেকে আলাদা। কিশোরগঞ্জের শিদল বা চ্যাপা শুঁটকি, রাতাবোরো চাল এবং পনির- এ তিন পণ্যের খ্যাতি রয়েছে। এগুলো নিয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসককে যথাসময়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠাতে হবে। ডিসিদের কাছ থেকে তালিকা পেলে তা থেকে দেশসেরা পণ্য নির্বাচন করবে সরকার। ভবিষ্যতে সেগুলোর ব্র্যান্ডিংও করা হবে। তারই অংশ হিসেবে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলাসহ দেশে–বিদেশে বিভিন্ন মেলায় এসব পণ্যের প্রদর্শন ও বিপণনের জন্য বিনামূল্যে বা স্বল্প মূল্যে স্টল বরাদ্দ দেওয়া হবে। এ ছাড়া এসব পণ্য উৎপাদনে স্বল্পসুদে, বিনা সুদে বা বিনা জামানতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ দেওয়ার পরিকল্পনাও রয়েছে সরকারের। এর বাইরে আগামী পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে জেলা ও উপজেলাপর্যায়ে যেসব মেলা হবে, সেগুলোতে হস্তশিল্পজাত পণ্যের বিশেষ প্রদর্শনীর ব্যবস্থা যেন নেওয়া হয়, সে জন্য পরিকল্পনা ও উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

জাপান সরকার আঞ্চলিক উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় ১৯৭৯ সালে প্রথম একটি গ্রাম একটি পণ্যকে আন্দোলন আকারে শুরু করে। এ আন্দোলনের জনক দেশটির একটি অঞ্চলের তৎকালীন গভর্নর মরিহিকো হিরামাৎসু। ১৯৮০ সাল থেকে এ আন্দোলনকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার কাজ শুরু করে দেশটি। তাতে কয়েক বছরের মধ্যেই গ্রাম থেকে উচ্চমূল্য সংযোজনের ৩০০ পণ্য চিহ্নিত করে জাপান। জাপানের এ আন্দোলন পরে কিরগিজস্তান, ভারত, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, চীন, কম্বোডিয়া, কোরিয়া, ফিলিপাইন, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের অনেক দেশেই ছড়িয়ে পড়ে। একটি গ্রাম একটি পণ্য কর্মসূচির মাধ্যমে কর্মসংস্থান ও রপ্তানিযোগ্য পণ্য বৃদ্ধির ব্যাপারে কাজ করতে জাপানি রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা চেয়েছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী। রাষ্ট্রদূত এ বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেনও। ২০০৮ সালে এক জেলা এক পণ্য কর্মসূচি হাতে নেয় বাংলাদেশ। পৃথিবীর যেকোনো দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য গ্রামীণ উন্নয়ন অপরিহার্য। আমাদের দেশে এখনো নগর ও গ্রামাঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রার মানের মধ্যে ব্যাপক বৈষম্য বিদ্যমান। যদিও আমাদের সংবিধানে এ বৈষম্য দূর করার জন্য কৃষি বিপ্লবের বিকাশ, গ্রামাঞ্চলে বৈদ্যুতিককরণের ব্যবস্থা, কুটির শিল্প ও অন্যান্য শিল্পের বিকাশ এবং শিক্ষা, যোগাযোগব্যবস্থা ও জনস্বাস্থ্যের উন্নয়নের ওপর সমধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে; কিন্তু কার্যক্ষেত্রে দেখা যায় লক্ষ্য বাস্তবায়নে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হলেও সংশ্লিষ্ট কাজের সঙ্গে সরকারি বেতনভুক্ত যেসব ব্যক্তি জড়িত তাদের কর্মের প্রতি অনীহা, কর্মস্থলে অনুপস্থিতি, দুর্নীতি, অদক্ষতা, আন্তরিকতা, একাগ্রতা ও বিশ্বস্ততার অভাব প্রভৃতি এ বিষয়ক সরকারের প্রতিটি কার্যক্রমকেই বাধাগ্রস্ত করে চলেছে। এমন অনেক ফসল আছে যেগুলো মৌসুমি কিন্তু বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষের কারণে সেসব ফসলও এখন সারা বছর উৎপন্ন করা সম্ভব। অতীতে যে ভূমিতে বার্ষিক একটি ফসল হতো এখন একই ভূমিতে বার্ষিক দুটি বা ক্ষেত্রবিশেষে তিনটি ফসলের চাষ করা হচ্ছে। আবার একই ভূমিতে একটি ফসলের ফাঁকে ফাঁকে আরেকটি ফসলের চাষ হচ্ছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় ধান ও মাছের চাষ একই ভূমিতে একসঙ্গে করা হচ্ছে। এ ধরনের উদ্ভাবনী পদ্ধতি প্রতিটি ফসল ও মাছ উৎপাদনে বৃদ্ধি ঘটালেও কৃষকপর্যায়ে পাইকারি বিক্রয়মূল্য এবং ভোক্তাপর্যায়ে খুচরা বিক্রয়মূল্যের মধ্যে ব্যাপক ফারাক থাকায় বাড়তি উৎপাদন ও বাড়তি মূল্য কৃষকের ভাগ্যোন্নয়নে বড় ধরনের অবদান রাখতে পারছে না। বর্তমানে আমাদের বেশকিছু কৃষিপণ্য বিদেশে রপ্তানি হয়। এসব পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে অপ্রচলিত পণ্য বিধায় রপ্তানিকারকদের সরকারের পক্ষ থেকে প্রণোদনা দেওয়া হয়। যদিও এ প্রণোদনার একটি অংশ কৃষকের পাওয়ার কথা; কিন্তু আজ আমাদের দেশের কৃষক সে প্রাপ্তি থেকেও বঞ্চিত। এসব কারণেই আমাদের গ্রামীণ উন্নয়ন ও কৃষি বিপ্লব দীর্ঘদিন ধরে একটি আবর্তে ঘুরপাক খাচ্ছে। পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ঘনবসতিপূর্ণ বাংলাদেশে জনসংখ্যার তুলনায় কৃষিভূমির পরিমাণ খুবই কম; কিন্তু উন্নত বীজ ও সার এবং বিজ্ঞানসম্মত আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদের কারণে কৃষিজ প্রতিটি পণ্যের উৎপাদন বেড়েছে। বাংলাদেশের কৃষকরা এক বছর যে ফসল উৎপাদন করে লাভবান হয় পরবর্তী বছর একই ফসল উৎপাদনে উদ্যোগী হয়। এভাবে একজনকে লাভবান হতে দেখে অনেকে একই ফসল উৎপাদনে আগ্রহী হয়ে ওঠে। এভাবে ফসলের বাড়তি উৎপাদনের কারণে মূল্য পড়ে গিয়ে কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফসলের উৎপাদন, বিপণন ও চাহিদা বিষয়ে কৃষকের পর্যাপ্ত জ্ঞান থাকলে তাদের ক্ষতির আশঙ্কা কমে।

লেখক: অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংকার, কলাম লেখক


banner close