বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

রাজনীতিকদের আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনা জরুরি

ড. সুলতান মাহমুদ রানা
প্রকাশিত
ড. সুলতান মাহমুদ রানা
প্রকাশিত : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১২:৪৮

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন-পরবর্তী স্থিতিশীল রাজনীতির বাতাস বইতে শুরু করেছে। বাংলাদেশের রাজনীতিতে স্বস্তির বাতাস সত্যিই কাঙ্ক্ষিত। শালীনতা, সহনশীলতা এবং উন্নত রাজনৈতিক সংস্কৃতি এখানে প্রায় অসম্ভব। নির্ভয়ে বাইরে বের হওয়া, শান্তিতে বসবাস করা- সবকিছুই জনগণের প্রত্যাশিত। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর হঠকারী রাজনৈতিক কর্মসূচি- যা মানুষের শঙ্কার কারণ হয়, তা কখনোই প্রত্যাশিত নয়। এ কারণে রাজনৈতিক দলগুলোর গঠনমূলক নীতি গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন সবার নিকট কাম্য। আমাদের সবাইকে মনে রাখতে হবে, ধীরগতি সব সময়ই কল্যাণের পথে ধাবিত হয়। সুষ্ঠু রাজনীতির জন্য তা মঙ্গলকরও বটে। আর মঙ্গলকর রাজনীতির ধারাবাহিকতা রক্ষায় দেশে বিদ্যমান গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক দলগুলোর যথাযথ রাজনৈতিক অঙ্গীকার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে সরকার ও সরকার-বিরোধীদের যথাযথ রাজনৈতিক অঙ্গীকারের মাধ্যমে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সতর্কভাবে চলার সুযোগ এবং পরিবেশ নিয়ে ভাবার প্রসঙ্গটি গুরুত্বপূর্ণ।

গত বছরের ২৮ অক্টোবরের হামলা, হত্যা ও ভাঙচুরের ঘটনার মামলায় বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতারা কারাগারে ছিলেন। এর মধ্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বিএনপি স্থায়ী কমিটির মির্জা আব্বাস ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল সম্প্রতি মুক্ত হয়েছেন। তাদের মুক্তির পর গুঞ্জন উঠেছে, তবে কি ফের চাঙ্গা হবে বিএনপি? এরই মধ্যে খবর প্রকাশ হয়েছে যে বিএনপির শীর্ষ পদে খালেদা জিয়া এবং তারেকের পরিবর্তন আসতে যাচ্ছে। মূলত দলকে সাংগঠনিকভাবে চাঙ্গা রাখতে এ ধরনের সিদ্ধান্তের বিষয়টি সামনে আসছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দেশের অভ্যন্তরীণ ও ভূরাজনৈতিক সমীকরণ মিলিয়ে নতুন করে একদফা কর্মসূচির চিন্তা করছে বিএনপি। এ লক্ষ্যে কর্মীদের চাঙ্গা করতে বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করা হতে পারে বলে রাজনৈতিক মহলে আলোচনা শোনা যাচ্ছে। কিন্তু বিএনপি এতদিন যে বিদেশি শক্তিকে খুঁটি হিসেবে ধরে ছিল, সেই খুঁটিতে এখন বেশ ভাটা পড়েছে।

তাছাড়া ইতোমধ্যেই বিএনপি বুঝতে পেরেছে যে তারেক জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলন ফলপ্রসূ করার সম্ভাবনা মোটেই নেই। কারণ, ভূ-রাজনৈতিক বিচারে বিদেশে বসে দেশীয় রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। যে কারণে এত কিছুর পরও বিএনপির আন্দোলনের সফলতা নিয়ে প্রশ্ন থেকে গেছে। কারণ, আন্দোলনের অন্যতম প্রধান সমস্যা হলো এর সঙ্গে জনপ্রত্যাশা পূরণের অঙ্গীকার।

নির্বাচন-পরবর্তী কূটনৈতিক তৎপরতা এই মুহূর্তে শতভাগ সরকারের পক্ষে। যুক্তরাষ্ট্রও তার আগের ভূমিকা থেকে সরে এসে সরকারের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। আন্তর্জাতিক ইতিবাচক বার্তা দেশের জন্য যথেষ্ট মঙ্গলজনক বলে মনে হচ্ছে। ইতোমধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর করে গড়ে তুলতে তাদের সদিচ্ছা একাধিকবার প্রকাশ করেছে। কাজেই নানা কারণেই ৭ জানুয়ারির পর থেকে বিএনপির নেতৃত্বে এক ধরনের স্থবিরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাদের অনেক নেতা নিজেদের আত্মসমালোচনায় নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্তকে ভুল বলেও আখ্যায়িত করেছেন।

রাজনীতিতে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব থাকে তবে এবারের বিএনপির দ্বিধা-দ্বন্দ্ব এতটা আগে দেখা যায়নি। রাজনীতিতে শেষ কথা বলতে কিছু নেই। তবে সত্য এবং ন্যায্য কথা নিশ্চয়ই থাকতে হয়। পাশাপাশি রাজনীতিবিদদের যথাযথ কমিটমেন্ট জরুরি। আর সে কমিটমেন্টটি জনগণের নিকট হতে হয়। জনগণের নিকট কমিটমেন্ট না থাকলে রাজনীতিতে লাভবান হওয়া দুষ্কর। আপাতত বিএনপির কোনো দৃশ্যমান রাজনৈতিক কমিটমেন্ট নেই। এমনকি কোনো আন্দোলন কর্মসূচিও নেই। তাদের প্রতি জনসমর্থনও দেখা যাচ্ছে না। এই মুহূর্তে তাদের আন্দোলনে যাওয়ার কোনো ইস্যু কিংবা জোরালো কোনো সুযোগ নেই। তাছাড়া বর্তমানে এসএসসি পরীক্ষা এবং সামনে রমজানের কারণে, আবার সেই ঈদের পরের আন্দোলনখ্যাত বিষয়টি হাস্যরসে পরিণত হতে যাচ্ছে।

পরিস্থিতি বিশ্লেষণে বলা যায়, বেশ কিছু রাজনৈতিক অদূরদর্শিতার বেড়াজালে নিজেদের আবদ্ধ করে ইতোমধ্যেই তাদের জন্য বুমেরাং পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। দলকে সুসংগঠিত করা, জনগণের সমর্থন আদায়, আন্তর্জাতিক সমর্থন তাদের পক্ষে নেওয়া প্রভৃতি বিষয় নিয়ে তারা এখন ঘূর্ণিপাকে। নিজেদের ভুল সিদ্ধান্তে বারবার নিজেরাই হোঁচট খাচ্ছে।

সাধারণ মানুষের মনেও এখন প্রশ্ন একটাই, বিএনপি এখন কী করবে? এমনকি সরকারও বিএনপির ভবিষ্যৎ নিয়ে সতর্ক ও সজাগ রয়েছে। কারণ এই মুহূর্তে সরকার তাদের নিজেদের কর্মকাণ্ডে অনেকটা ইতিবাচক স্থানে রয়েছে। বেশ কিছু ইস্যুতে সরকার যেমন সফলতা দেখিয়েছে, ঠিক তেমনি বিএনপি ব্যর্থতার পরিচয়ও দিয়েছে যথেষ্ট। তবে বিএনপিকে দুর্বল মনে করাও উচিত হবে না সরকারের। কারণ বিএনপির মাঠপর্যায়ে কিছুটা হলেও জনপ্রিয়তা রয়েছে। পরিস্থিতির কারণে ক্রমেই জনপ্রিয়তা হারালেও, আবার কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হতেই পারে যাতে বিএনপির জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি এবং সরকারের জনপ্রিয়তা হ্রাস পেতে পারে। ইতোপূর্বে অনেক লেখাতে উল্লেখ করেছি, সরকার কখনোই চাইবে না যে তাদের জনপ্রিয়তা চলে যাক, আর বিরোধীরা অধিক জনপ্রিয় হয়ে উঠুক।

৭ জানুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি এবং তাদের সমমনা দল অংশগ্রহণ না করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জন্য নির্বাচন যথেষ্ট প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হয়েছে। নির্বাচন-পূর্ব সময়ে আন্তর্জাতিক মহল নির্বাচন নিয়ে কিছুটা নাখোশ থাকলেও পরে নির্বাচনের স্বচ্ছতা এবং গ্রহণযোগ্যতা দেখে তারা অপেক্ষাকৃত ইতিবাচক ভূমিকা প্রদর্শন করেছে।

বিএনপি সঙ্গত কারণেই এখন বুঝে গেছে, ২০২৯ সালের আগে কোনো সংসদ নির্বাচনের সুযোগ নেই। সাংগঠনিক অবস্থা ধরে রাখার বিষয়টিই এখন তাদের মূল প্রাধান্যের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। খুব দ্রুতই স্থানীয় পর্যায়ের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই মুহূর্তে বিএনপিকে তাদের নিজেদের অবস্থান পুনর্জ্জীবিত করতে স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কোনো বিকল্প নেই। যদিও এ বিষয়েও তাদের মনে যথেষ্ট দ্বিধা-দ্বন্দ্ব তৈরি করেছে। কারণ বিএনপি যে সিদ্ধান্তই নিচ্ছে সেটি তাদের জন্য ভুল হয়ে যাচ্ছে। এ কারণে তারা অনেকটা ‘ওয়ান স্টেপ ফরোয়ার্ড এবং টু স্টেপস ব্যাক’ নীতির মতো করে চলছে।

অন্যদিকে ক্রমেই আওয়ামী লীগ সরকারের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পাচ্ছে। সাম্প্রতিককালে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য-বিবৃতি আত্মবিশ্বাসের বিষয়টি প্রমাণ করেছে। সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন বক্তব্য-বিবৃতির পরিপ্রেক্ষিতে মনে হয়েছে, প্রতিপক্ষ কিংবা বহির্বিশ্বের কোনো চাপে বর্তমানে সরকারের নেই। ইদানীং প্রধানমন্ত্রী এবং সরকারের এমন আত্মবিশ্বাসই বিএনপির জন্য ক্রমেই কাল হয়ে দাঁড়াচ্ছে। আর সরকারের এই আত্মবিশ্বাসের বিষয়টিতে বিএনপির জন্য বড় ধরনের রাজনৈতিক চাপ সৃষ্টি করছে। একদিকে সরকারের আত্মবিশ্বাস বাড়ছে অন্যদিকে নিজেদের যথাযথভাবে মজবুত করতে না পারার দীর্ঘশ্বাস হচ্ছে বিএনপির। বিশেষ করে বিদেশি মহল ক্রমেই নেতিবাচক অবস্থা থেকে বের হয়ে এসেছে। বর্তমানে উন্নয়ন এবং পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সুশাসনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ই বহির্বিশ্বের কাছে সরকারের অন্যতম প্লাস পয়েন্ট হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বারবারই বিএনপি-জামায়াতের উদ্দেশে বলে যাচ্ছেন, ‘আন্দোলন-ষড়যন্ত্র করে লাভ নেই। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে। দেশ এগিয়ে যাবে।’ এটি নিঃসন্দেহে প্রধানমন্ত্রীর নিজের মনের জোর ও সাহস। মূলত বিএনপি-জামায়াতের বিগত সময়ের রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের ফলেই এ শক্তি তৈরি হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর মনে। কাজেই প্রতিপক্ষকে বুঝতে হবে, আওয়ামী লীগ সরকার কোনো চাপের কাছে সহজে নতি স্বীকার করার পরিবেশ নেই। এই মুহূর্তে দেশকে এগিয়ে নিয়ে সরকারের কর্মকাণ্ডের গঠনমূলক সমালোচনা করাই বিরোধীদের দায়িত্ব হওয়া উচিত।

লেখক: অধ্যাপক, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।


বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা ও মুজিবনগর সরকার

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
আব্দুল্লাহ্ আল-মামুন

মুজিবনগর সরকার বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক উজ্জ্বল অধ্যায়। মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা ও বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে সমর্থনের জন্য মুক্তিযুদ্ধকালীন গঠিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মুজিবনগর সরকার নামে পরিচিত। টানা ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে শত্রুমুক্ত হয় এই প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ। স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে দেশমাতৃকার সম্মান রক্ষায় মরণপণ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন বাংলার সূর্যসন্তানরা। বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠিত হলেও শপথ গ্রহণ করে ১৭ এপ্রিল, বর্তমান মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথতলা গ্রামে। এ সরকারের প্রধান (রাষ্ট্রপতি) হলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তারই নামানুসারে বৈদ্যনাথতলার নতুন নামকরণ হয় মুজিবনগর এবং অস্থায়ী সরকারও পরিচিত হয় মুজিবনগর সরকার নামে। ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণ পর্যন্ত মুজিবনগর ছিল বাংলাদেশের প্রথম সরকারের রাজধানী। মঞ্চে থাকা চেয়ারগুলোর মধ্যে একটি খালি রাখা হয়েছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য। স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে বলা হয়- ‘যেহেতু সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী বাংলাদেশের জনগণ নির্বাচিত প্রতিনিধিদের প্রতি যে ম্যান্ডেট দিয়াছে সেই ম্যান্ডেট মোতাবেক আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধিরা আমাদের সমন্বয়ে গণপরিষদ গঠন করিয়া পারস্পরিক আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করা আমাদের পবিত্র কর্তব্য মনে করি, সেইহেতু আমরা বাংলাদেশে সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে রূপান্তরিত করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করিতেছি এবং উহার দ্বারা পূর্বাহ্ণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা অনুমোদন করিতেছি।’ (মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম পিএসসি, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, পৃ. ৩২৪, কাকলী প্রকাশনী, ২০১৪)। প্রথমে কোরআন তিলাওয়াত হয়। তারপর বাংলাদেশের মানচিত্রশোভিত জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হলো। স্থানীয় চার তরুণ গাইলেন জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি…।’

নবগঠিত সরকার শপথ নেওয়ার পর ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতিকে ইপিআরের (ইস্ট পাকিস্তান রেজিমেন্ট) একটি দল গার্ড অব অর্নার দেয়। ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ বক্তৃতা করেন। সৈয়দ নজরুল ইসলাম ভাষণে বলেন, ‘...আমাদের রাষ্ট্রপতি...শেখ মুজিব বাংলার মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারের জন্য সংগ্রাম করে আজ বন্দি। তার নেতৃত্বে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম জয়ী হবেই।’ (মেজর অব. রফিকুল ইসলাম পিএসসি, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, পৃ. ৩২৪, কাকলী প্রকাশনী, ২০১৪)। তাজউদ্দীন আহামদ তার ভাষণে উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের সাংবাদিক বন্ধুদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি এই জন্য যে, তারা আমাদের আমন্ত্রণে স্বাধীন বাংলাদেশের মাটি দেখে যাওয়ার জন্য বহু কষ্ট করে, বহু দূর-দূরান্ত থেকে এখানে উপস্থিত হয়েছেন।’ বঙ্গবন্ধুর উদাত্ত আহ্বানে স্বাধীনতাকামী বাঙালি প্রথমে দেশের ভেতরেই প্রতিরোধ যুদ্ধ গড়ে তোলে। পাকিস্তানি সেনারা যখন প্রতিটি শহরে ও গ্রামে গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে থাকে, তখন দেশের ভেতরে থেকে যুদ্ধ করা কঠিন হয়ে পড়ে, রাজনৈতিক নেতৃত্ব সীমান্ত পার হয়ে ভারতে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। মার্চের শেষ দিকে ঝিনাইদহের সে সময়কার এসডিপিও মাহবুব উদ্দিন আহমেদ পিএসপি এবং মেহেরপুরের এস.ডি.ও তৌফিক এলাহী চৌধুরী সিএসপির সহযোগিতায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমদ সহযোগী আমীর-উল ইসলামকে নিয়ে সীমান্ত পার হন এবং ৩ এপ্রিল দিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ভারত সরকারের সহযোগিতা চান। প্রশ্ন হলো, কাকে এবং কীভাবে সহযোগিতা দেবে তারা? এজন্য একটি আইনানুগ কাঠামো দরকার। তাজউদ্দীন আহমদ কলকাতায় ফিরে আওয়ামী লীগের অন্য নেতাদের খুঁজে বের করলেন, তাদের রাজি করালেন। তিনি যুক্তি দেখালেন, সরকার গঠন না হলে ভারত সরকারের সার্বিক সহযোগিতা পাওয়া যাবে না। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত হয় পশ্চিম পাকিস্তানের জেনারেল ইয়াহিয়া খান ঘোষণা করেছিল সামরিক আদালতে শেখ মুজিবুর রহমানের বিচার করা হবে। অর্থাৎ একথা স্পষ্ট হল যে, পাকিস্তানের সামরিক আদালতের বিচারে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ফাঁসি দেওয়া হবে। এ সামরিক বিচারের ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে ইন্দিরা গান্ধী বিশ্বের সব রাষ্ট্রনেতার কাছে বঙ্গবন্ধুর প্রাণ রক্ষার আবেদন জানান। ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে মস্কোর একটি সভাতে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে যা ঘটছে তাকে এখন আর ওই দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। প্রায় এক কোটি মানুষ আমাদের দেশে আশ্রয় নিয়েছেন। ওই মানুষগুলোর কি নিজের দেশের বসবাস করার বা কাজ করার অধিকার নেই? এখন বিশ্বের রাষ্ট্রনেতাদের দেখতে হবে যাতে এই অসহায় মানুষগুলো নির্ভয়ে নিজের দেশে ফিরে যেতে পারে।’ ৭ জুলাই মার্কিন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হেনরি কিসিঞ্জার ভারতে আসেন। বাংলাদেশ পরিস্থিতি আলোচনায় কিসিঞ্জার জানালেন বাংলাদেশকে কেন্দ্র করে কোনো যুদ্ধে ভারত অগ্রসর হলে আমেরিকা ভারতের পাশে দাঁড়াবে না। সে সময় আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয় কিসিঞ্জার ভারত থেকে পাকিস্তান হয়ে গোপনে চীনে গিয়েছিলেন। ইন্দিরার পরামর্শদাতা পি. এন. হাকসার এবং এল. কে. (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তৎকালীন ভারতের রাষ্ট্রদূত) প্রধানমন্ত্রীকে সোভিয়েত রাশিয়ার সহায্য নিতে পরামর্শ দিলেন। কিসিঞ্জারের চীন-বৈঠকের এক মাস পর ‘রুশ-ভারত শান্তি বন্ধুত্ব ও সহযোগিতা’ অর্থাৎ ‘রুশ-ভারত মৈত্রী’ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ৯ আগস্ট ১৯৭১। এর ফলে ইয়াহিয়া খান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ফাঁসির আদেশ দিতে ভয় পেয়ে যায়।

১ আগস্ট নিউইয়র্কের ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেনে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বাঙালি শরণার্থীদের সাহায্যে অর্থ তহবিল গঠনের লক্ষ্যে ‘দ্য কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’-এর আয়োজন করে আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশি জনগণ। সে কনসার্টে প্রায় ৪০ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে সাবেক বিটলস সঙ্গীতদলের লিড গিটারবাদক জর্জ হ্যারিসন, ভারতীয় সেতারবাদক রবিশঙ্কর ও সরোদবাদক ওস্তাদ আলী আকবর খাসহ আরও অনেকে অংশগ্রহণ করেন। মার্কিনি কবি অ্যালেন গীন্সবার্গ ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে কলকাতা সংলগ্ন ভারতীয় সীমান্ত ধরে বাংলাদেশের কাছাকাছি আসেন। তার সঙ্গে ছিলেন কোলকাতার সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা। সীমান্ত অঞ্চলে শরণার্থীদের অশেষ দুর্দশা ও লাঞ্ছনাকে অবলম্বন করে তিনি তার অন্যতম দীর্ঘ কবিতা ‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’ রচনা করেন। মুজিবনগর সরকার ২৪ মে বিচারপতি চৌধুরীকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেরণ করে। জনাব চৌধুরী ছিলেন মুজিবনগর সরকারের দ্বিতীয় প্রতিনিধি যিনি যুক্তরাষ্ট্রে যান। কয়েকদিনের মধ্যেই তিনি নরওয়ে, সুইডেন, মিসর, ইরাক, জর্ডান, সিরিয়া, সৌদি আরব, আলজেরিয়া প্রভৃতি দেশের রাষ্ট্রদূত এবং জাতিসংঘে অবস্থিত আন্তর্জাতিক প্রেস ক্লাবের প্রেসিডেন্ট ড. যোগেন্দ্র কুমার ব্যানার্জীর সাথে সাক্ষাৎ করেন। এর ফলে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে বিভিন্ন দেশ পরিষ্কার ধারণা লাভ করে। ১৯ আগস্ট কানাডার টরেন্টোতে বাংলাদেশ সংকট নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ব্রিটেন, কানাডা, ভারত, যুক্তরাষ্ট্র প্রভৃতি দেশের জনপ্রতিনিধিসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তি সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। ২৬ জুলাই হাউস অব কমন্সের হারকোর্ট রুমে স্বাধীন বাংলাদেশের ৮টি ডাকটিকিট প্রকাশ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ১০ পয়সার টিকিটে বাংলাদেশের মানচিত্র এবং পাঁচ পয়সার টিকিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের প্রতিকৃতি ব্যবহৃত হয়। বিদেশে চিঠিপত্র পাঠাতে ভারত সরকার এই ডাকটিকিটগুলো ব্যবহারের অনুমতি দেয়।

১৯৭১ সালের ৮ মে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন অ্যাকশন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের জরুরি মিটিংয়ে মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে ‘বাংলাদেশ ফান্ড’ নামে একটি তহবিল গঠন করা হয়। এই ফান্ড ৩,৭৬,৫৬৮ পাউন্ড পরিমাণ অর্থ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের জন্য সংগ্রহ করে; যা সরাসরি বাংলাদেশ সরকার গ্রহণ করেছিল। এভাবে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন কূটনৈতিক তৎপরতার মধ্য দিয়ে এগিয়ে চলে মহান মুক্তিযুদ্ধ। অবশেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পূর্ব পাকিস্তানে নিয়োজিত পাকিস্তান বাহিনীর অধিনায়ক লে. জেনারেল নিয়াজী পূর্বাঞ্চলে নিয়োজিত ভারতীয় ও বাংলাদেশ বাহিনীর যৌথ কমান্ডার লে. জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার কাছে বিকাল ৪.৩১ মিনিটে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করে। মুজিবনগর সরকার ছিল জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়েই গঠিত সরকার। মুক্তিযুদ্ধের ওপর এর প্রভাব ছিল সুদূরপ্রসারী। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর আম্রকাননে বাংলার শেষ নবাব সিরাজউদ্দৌলার পরাজয়ে বাংলার যে স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়েছিল তার ঠিক ২১৪ বছর পর অর্থাৎ ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল বৈদ্যনাথতলা গ্রামের আরেক আম্রকাননে যেন বাংলার সেই অস্তমিত সূর্য আবারও উদিত হয়।

লেখক: পুলিশ সুপার, নৌ-পুলিশ, সিলেট অঞ্চল

বিষয়:

স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র: এক অনন্য ইতিহাস

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
রাশিদুল হাসান

১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল ‘স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র’ প্রণীত হয়, যা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি টার্নিং পয়েন্ট বলে বিবেচিত হয়। জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ ও প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত গণপরিষদের ৪০৪ জন সদস্যকর্তৃক স্বাক্ষরিত ও অনুমোদিত, যা ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের আম্রকাননে পূর্ণাঙ্গরূপে উপস্থাপিত হয় এবং সমগ্র বিশ্বের ইতিহাসে এক অনন্য আইনি দলিল হিসেবে স্বীকৃত।

১৯৭০ সালের ৭ ডিসেম্বর পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া সত্ত্বেও সামরিক শাসকগোষ্ঠী ক্ষমতা হস্তান্তরে তালবাহানা শুরু করে।

১৭ ডিসেম্বর, পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২৮৮ আসন পায়। পাকিস্তান আওয়ামী লীগের পার্লামেন্টারি পার্টির সভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পাকিস্তানের পার্লামেন্টারি পার্টির লিডার এবং প্রাদেশিক পার্লামেন্টারি পার্টির সভায় এম মনসুর আলীকে পূর্ব পাকিস্তান পার্লামেন্টারি পার্টির লিডার নির্বাচিত করা হয়। ’৭০-এর নির্বাচনের ফলাফল অনুযায়ী শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী এবং এম মনসুর আলী পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বিবেচিত হতে থাকেন। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী এ বিজয় মেনে না নিয়ে ষড়যন্ত্রের নীল-নকশা বুনতে থাকেন।

প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান সমঝোতার নাটক ব্যর্থ হওয়ার পর ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় গোপনে ঢাকা ত্যাগ করেন। ১৮ মার্চ, জিওসির অফিসে জেনারেল রাও ফরমান আলী ও জেনারেল খাদিম রাজা বৈঠকে বসেন। ‘বৈঠকে জেনারেল ফরমান অফিসিয়াল প্যাডের ওপর নতুন পরিকল্পনাটি লিপিবদ্ধ করেন। যার দ্বিতীয় অংশটি লেখেন জেনারেল খাদিম। পরিকল্পনাটি সংশোধনপূর্বক চিফ অব স্টাফ লে. জেনারেল আব্দুল হামিদ খান অনুমোদন করেন’- (সূত্র: উইটনেস অব স্যারেন্ডার, লেখক: সিদ্দিক সালিক, যুদ্ধকালীন সময়ে আইএসপিআরের পিআরও)। পূর্ব পাকিস্তান সামরিক প্রশাসক লে. জেনারেল টিক্কা খানের নির্দেশে জেনারেল ফরমানের নেতৃত্বে ঢাকায় এবং জেনারেল খাদিমের নেতৃত্বে অন্যান্য ১০টি গুরুত্বপূর্ণ শহরে অপারেশনের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়। সামরিক অভিযানের কোড নেম ছিল ‘অপারেশন সার্চ লাইট’। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাত ১১টা ৩০ মিনিটে ঢাকায় ‘অপারেশন সার্চ লাইট’-এর নামে শুরু হয় নির্মম হত্যাযজ্ঞ। সায়মন ড্রিংই প্রথম ২৫ মার্চের পরিকল্পিত গণহত্যার খবরটি ৩০ মার্চ ডেইলি টেলিগ্রাফের মাধ্যমে সমগ্র বিশ্বকে অবহিত করেন, যার শিরোনাম ছিল ‘ট্যাংকস ক্র্যাশ রিভোল্ট ইন পাকিস্তান’। প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে তিনি তার বর্ণনায় বলেন, ব্রিটিশ কাউন্সিল লাইব্রেরি দখলপূর্বক, পাকিস্তানি সেনা সদস্যরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইকবাল হল ও জগন্নাথ হল লক্ষ্য করে কামান ও মর্টার হামলা চালায়। হলের পার্শ্ববর্তী পুকুরে শতশত লাশ ভাসছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রদের অগণিত লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। প্রতিবেদনে বলেন, ‘আল্লাহর নামে আর অখণ্ড পাকিস্তান রক্ষার অজুহাতে ঢাকা আজ ধ্বংসপ্রাপ্ত এবং সন্ত্রস্ত এক নগরী’।

অ্যান্থনি ম্যাসকারেনহাস ‘দ্যা রেপ অব বাংলাদেশ’ বইয়ের মুখবন্ধে বলেন, হিটলারের নাৎসি বাহিনীর অমানবিক কার্যকলাপে পড়েছি; কিন্তু ইস্ট বেঙ্গলে যা দেখলাম, তার চেয়েও ভয়ঙ্কর এবং যন্ত্রণাদায়ক।

’৭১-এর ২৬ মার্চ ০০:২০ প্রথম প্রহরে পাকিস্তান পার্লামেন্টের মেজরিটি পার্টির লিডার আওয়ামী লীগ প্রধান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ওয়্যারলেসের মাধ্যমে বিশেষ ফ্রিকোয়েন্সিতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন- ‘ইহাই হয়তো আমার শেষ বার্তা, আজ হইতে বাংলাদেশ স্বাধীন..........সকল শক্তি দিয়ে হানাদার বাহিনীকে প্রতিরোধ কর.......(অনূদিত: শেখ মুজিবুর রহমান)’। অতঃপর রাত ১টা ৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর নিজ বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যাওয়া হয়। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার বার্তাটি তাৎক্ষণিকভাবে মগবাজার ওয়্যারলেস স্টেশনে পাঠানো হয়। স্বাধীনতার বার্তাটি ডিএইচএফ চ্যানেলে মগবাজার থেকে সলিমপুর ওয়্যারলেস স্টেশনের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বহির্নোঙ্গরে অবস্থানরত জাতিসংঘের জাহাজ মিনি-লা-ট্রিয়া, গ্রিক জাহাজ সালভিস্তার ভিএইচএফ চ্যানেলে সমগ্র বিশ্বে প্রচারিত হয়। পরবর্তীতে, বঙ্গবন্ধুকে ঢাকা থেকে লয়ালপুর জেলে স্থানান্তর করা হয়। লয়ালপুর মার্শাল ‘ল’ কোর্টে শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র্রদ্রোহিতার মামলা দায়ের করা হয়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডিফেন্স ইন্টিলিজেন্স স্পট রিপোর্ট ৪৩-এর ১নং অনুচ্ছেদে বলা হয়, পাকিস্তানের পূর্ব অংশকে শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ হিসেবে ঘোষণা করেন।

২০০২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তাবিষয়ক আর্কাইভ তাদের অবমুক্তকৃত দলিল প্রকাশ করে। সেখানে বাংলাদেশের নারকীয় হত্যাযজ্ঞকে ‘জেনোসাইড’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

১ এপ্রিল ভোরে তাজউদ্দীন আহমদ, ব্যারিস্টার আমিরুল ইসলাম, বিএসএফের ডিজি কেএফ রুস্তমজী ও গোলক মজুমদার একটি সামরিক কার্গো বিমানে দিল্লির উদ্দেশে কলকাতা বিমান বন্দর ত্যাগ করেন। ৩ এপ্রিল তাজউদ্দীন আহমদ ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। ‘হাউ ইজ শেখ মুজিব? ইজ হি অল রাইট? জবাবে তাজউদ্দীন আহমেদ বলেন বঙ্গবন্ধু আমাদের দায়িত্ব দিয়ে পাঠিয়েছেন। তিনি তার স্থান থেকে আমাদের নির্দেশ দিয়ে যাচ্ছেন’ (সূত্র: মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি, লেখক: ব্যারিস্টার আমির-উল ইসলাম)। উভয়ে স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গঠনের বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছান।

বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথে, ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল এক বিশেষ অধিবেশনে ১৯৭০ সালের নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ এবং প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যের সমন্বয়ে গণপরিষদ গঠন করা হয়। উক্ত গণপরিষদের অধিবেশনেই অন্তর্বর্তীকালীন সংবিধান প্রণীত হয়। স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে বলা হয়, ‘বাংলাদেশের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা, বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী জনগণকর্তৃক আমাদিগকে প্রদত্ত কর্তৃত্বের মর্যাদা রক্ষার্থে, নিজেদের সমন্বয়ে যথাযথভাবে একটি গণপরিষদরূপে গঠন করিলাম এবং পারস্পরিক আলোচনা করিয়া এবং বাংলাদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার নিশ্চিত করণার্থে সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্র রূপে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠা ঘোষণা করিলাম এবং তদ্বারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক ’৭১-এর ২৬ মার্চ ঘোষিত স্বাধীনতা দৃঢ়ভাবে সমর্থন ও অনুমোদন করিলাম’। স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটি বাংলাদেশের প্রথম অন্তর্বর্তীকালীন সংবিধান ও স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র প্রক্রিয়ায় আইনি দলিল হিসেবে স্বীকৃত।

১০ এপ্রিল গণপরিষদের বিশেষ অধিবেশনে স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি ও সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপ-রাষ্ট্রপতি এবং তাজউদ্দীন আহমদকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করা হয়। এম মনসুর আলী অর্থমন্ত্রী, খন্দকার মোশতাক আহমেদ পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব অপর্ণ করা হয়। ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলার আম্রকাননে দেশি-বিদেশি সাংবাদিকের উপস্থিতিতে উল্লিখিত সরকারের মন্ত্রিসভার শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় যাহা ‘মুজিব নগর’ সরকার হিসেবে পরিচিতি পায়। ২৬ মার্চ, স্বাধীনতা ঘোষণার পর পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে স্বতঃস্ফূর্ত জনপ্রতিরোধ শুরু হলেও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন আদায়, উক্ত যুদ্ধে সহায়তাকারী বন্ধুপ্রতিম ভারত সরকারের ও সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমন্বয়ের ক্ষেত্রে উক্ত সরকারের ভূমিকা ছিল অনন্য। উক্ত সরকার কর্তৃক কর্নেল এমএজি ওসমানীকে সশস্ত্রবাহিনীর অধিনায়ক এবং এমএ রবকে চিফ অব আর্মি স্টাফ নিয়োগ দেওয়া হয়। সমগ্র বাংলাদেশকে ১১টি সেক্টরে বিভক্ত করা হয় এবং ১১ জন সেক্টর কমান্ডার নিয়োজিত হন যথাক্রমে- জিয়াউর রহমান, কেএম সফিউল্লাহ, খালেদ মোশাররফ, আবু তাহের, রফিকুল ইসলাম, মীর শওকত আলী, সিআর দত্ত, আবু ওসমান চৌধুরী (আগস্ট পর্যন্ত), এমএ মঞ্জুর, এমএ জলিল, এএনএম নূরুজ্জামান, এমএ বাশার।

প্রধানমন্ত্রী কেবিনেটের সঙ্গে পরামর্শ পূর্বক উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করেন এবং বর্ষীয়ান জননেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, কমরেড মণি সিং ও অধ্যাপক মোজাফ্ফর আহমেদকে সদস্য হিসেবে অর্ন্তভুক্ত করা হয়। মুজিবনগর সরকারের মেয়াদকাল ছিল ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল থেকে ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত।

১৯৭১ সালের ১৮ এপ্রিল কলকাতা পাকিস্তান মিশনের ডেপুটি হাইকমিশনার হোসেন আলীর নেতৃত্বে ৫০ জন কর্মকর্তা পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে পাকিস্তানের পতাকা নামিয়ে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন। ৬ এপ্রিল দিল্লি পাকিস্তান হাইকমিশনের দ্বিতীয় সচিব কেএম শেহাবুদ্দিন আহমেদ ও আমজাদুল হক পাকিস্তান সরকারের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেন।

১৯৭১ সালের ৯ আগস্ট দিল্লিতে ২০ বছরমেয়াদি ভারত-সোভিয়েত ইউনিয়ন মৈত্রী চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ভারতের পক্ষে দলিলে স্বাক্ষর করেন তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সরদার শরন সিং এবং সোভিয়েট ইউনিয়নের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্দ্রে গ্রোমিকো। হিমালয়ের তুষার ও সোভিয়েটের বন্ধুত্ব এই দুটি ছিল চীনের বিরুদ্ধে ভারতের রক্ষাকবচ। ভারত-সোভিয়েত মৈত্রী চুক্তি আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের বিজয়কে ত্বরান্বিত করে।

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর জেনারেল আমীর আবদুল্লাহ নিয়াজির নেতৃত্বে পাকিস্তানের ৯৩ হাজার সেনা অস্ত্রশস্ত্রসহ ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে (সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল জগজিত সিং আরোরা ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উপপ্রধান গ্রুপ ক্যাপ্টেন একে খন্দকারের উপস্থিতিতে বিকাল ৪টা ৩১ মিনিটে অত্মসমর্পণের দলিলে স্বাক্ষর করেন যার শিরোনাম হলো ‘ইন্সট্রুমেন্ট অব স্যারেন্ডার’।

৩০ লাখ শহীদের তাজা তপ্ত রক্ত ও ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা অভ্যুদয়ের পশ্চাতে রয়েছে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধুর যুগান্তকারী নেতৃত্ব ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম সরকারের রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ও কূটনৈতিক প্রজ্ঞা। বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে ‘বাংলাদেশ’ নামক একটি নতুন রাষ্ট্র আত্মপ্রকাশ করে।

লেখক: প্রাক্তন সাংগঠনিক সম্পাদক, জাতীয় চার নেতা পরিষদ ও কলামিস্ট।

বিষয়:

মুজিবনগর দিবসের ঐতিহাসিক তাৎপর্য ও প্রাসঙ্গিকতা

ঐতিহাসিক মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ। মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলা এলাকায় তোলা। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১৬ এপ্রিল, ২০২৪ ২২:০২
ড. মো. শাহিনুর রহমান

ভৌগোলিকভাবে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার পলাশী আম্রকানন আর বাংলাদেশের মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথতলা বা মুজিবনগর আম্রকাননের দূরত্ব সরাসরি ধরলে বড় জোর তিরিশ কিলোমিটার আর পাকা সড়কের ঘুরপথে ৮২ কিলোমিটারের বেশি হবে না। বাংলার ইতিহাসে এ দুই আম্রকাননের গুরুত্ব বাড়িয়ে বলার অবকাশ নেই। এ দুই কাননের প্রথমটিতে প্রায় পৌনে তিনশ’ বছর আগে, ১৭৫৭ সালে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সৈন্যদের কাছে শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌল্লার পরাজয় ও মৃত্যুর মধ্যে দিয়ে বাংলার স্বাধীনতা সূর্য অস্তমিত হয়। অপর আম্রকাননটিতে বাংলার স্বাধীনতা সূর্য পুনরুদিত হয়, ১৯৭১-এ স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে।

১৯৭১-এর ২৫ মার্চ মধ্যরাতের পরই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। সে অনুযায়ী ইংরেজি সময় গণনার ভিত্তিতে ২৬ মার্চকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস হিসেবে গণ্য করা হয়। তবে একটি স্বাধীন সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্র হিসেবে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠার আনুষ্ঠানিক ঘোষণাপত্রটি আসে পরবর্তী ১০ এপ্রিল তারিখে। এ ঘোষণাপত্রে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণাকে দৃঢ়ভাবে সমর্থন এবং অনুমোদন করা হয়। এর ঠিক এক সপ্তাহ পর, ১৭ এপ্রিল তারিখে একটি যুদ্ধকালীন বিপ্লবী সরকার বা স্বাধীন বাংলাদেশের সর্বপ্রথম সরকার গঠনের মাধ্যমে সদ্যোজাত দেশটিকে একটি শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড় করানো হয়। এদিন মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকুঞ্জে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসেবে সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং যুদ্ধকালীন সরকারের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম মন্ত্রিপরিষদ শপথ গ্রহণ করে। তারপর থেকে বৈদ্যনাথতলার নতুন নামকরণ হয় ‘মুজিবনগর’ আর ১৭ এপ্রিল দিনটি উদযাপন করা হয় ‘মুজিবনগর দিবস’ হিসেবে।

নবগঠিত মুজিবনগর সরকার শপথ নেয়ার পরপরই একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে জগৎ সভায় বাংলাদেশের আত্মপ্রতিষ্ঠার উচ্চাকাক্সক্ষা বাস্তবায়নে সাংবিধানিকভাবে অনুমোদিত, যুক্তিসঙ্গত ও সম্ভবপর সমস্ত পদক্ষেপ গ্রহণে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

আমাদের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করার জন্যে একটা কায়েমি স্বার্থবাদী মহল যে-অবিরাম অপপ্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে তা প্রতিহত করে এ ইতিহাসকে যথাযথভাবে লিপিবদ্ধ করার জন্য মুজিবনগর সরকার বা দিবসের যথোপযুক্ত গুরুত্ব নির্ণয় ও স্মরণ করা একান্ত প্রয়োজন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অপরিসীম দেশপ্রেম, আত্মত্যাগ আর অধ্যবসায় নিয়ে নেতৃত্ব দেয়ার জন্যে স্বাধীন বাংলাদেশের জনগণের উচিত বঙ্গবন্ধুসহ সকল স্বাধীনতা সংগ্রামী এবং স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রাথমিক সংগঠকদের সর্বক্ষণ কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণে রাখা।

স্মর্তব্য, ১৯৭০-এর সাধারণ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এক ভূমিধ্বস বিজয় অর্জন করে, কিন্তু পাকিস্তানের তৎকালীন সামরিক স্বৈরাচারী সরকার বঙ্গবন্ধুকে প্রধানমন্ত্রিত্ব দিতে অস্বীকার করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠায় বাধা সৃষ্টি করে। অবশেষে বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে কিন্তু তার নাম আর দিকনিদের্শনাকে সামনে রেখেই বাঙলাদেশের সর্বপ্রথম গণতান্ত্রিক সরকার- মুজিবনগর সরকার- ১৯৭১-এর ১৭ এপ্রিল শপথ নিয়ে কার্যভার গ্রহণ করে। গণপরিষদের সকল সদস্য এদিন বাংলাদেশের জনগণের প্রতি তাদের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা পূর্ণ করার মধ্য দিয়ে জাতিকে পূর্ণ স্বাধীনতা আর সার্বভৌমত্বের দিকে আরো একধাপ এগিয়ে নিয়ে যান। এজন্য বাংলাদেশ, বাঙালি জাতি আর তার স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস এক অভূতপূর্ব স্থান অধিকার করে আছে। কারণ অতীত হাজার বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে এই প্রথম বাংলাদেশে তার ভূমিপুত্রদের একটি স্বাধীন সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

একাত্তরের ১০ এপ্রিল আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র প্রকাশের সাত দিন পর, ১৭ এপ্রিল বৃহত্তর কুষ্টিয়ার মেহেরপুর জেলার সীমান্তবর্তী বৈদ্যনাথতলা নামের একটি ছোট গ্রামের আম্রকাননে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার শপথ নেয়ার পর জায়গাটির নতুন নাম রাখা হয় মুজিবনগর এবং এটিই হয়ে ওঠে এ সরকারের সদরদপ্তর। একটি নতুন জাতির জন্ম আর তাদের প্রথম স্বাধীন গণতান্ত্রিক সরকার গঠনের মাহেন্দ্রক্ষণটির প্রত্যক্ষদর্শী হওয়ার জন্যে সেদিন ভারতসহ বিভিন্ন দেশের শয়ে শয়ে সাংবাদিক মুজিবনগরে এসে জড়ো হয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধু সেদিন সশরীরে সেখানে উপস্থিত ছিলেন না বটে, কিন্তু তার দিয়ে যাওয়া দিকনির্দেশনা অনুযায়ীই সমস্ত কার্যক্রম চলছিল। প্রতিটি মুহূর্তেই তিনি ছিলেন প্রাসঙ্গিক। বঙ্গবন্ধুর নামই ঘোষণা করা হল সদ্যোজাত রাষ্ট্রের প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে। কিন্তু তিনি তখন পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থাকায় সৈয়দ নজরুল ইসলামকে অন্তর্বর্তীকালীন বা অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি মনোনীত করা হয়। বাংলাদেশ সরকারের প্রথম প্রধানমন্ত্রীর গুরুদায়িত্ব দেয়া হয় বঙ্গবন্ধুর ছায়াসঙ্গী তাজউদ্দিন আহমদকে। এ ছাড়া এম. মনসুর আলী বাংলাদেশের প্রথম অর্থমন্ত্রী, এ. এইচ. এম. কামারুজ্জামান প্রথম স্বরাষ্ট্র, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী, এবং পরবর্তী কালে বিশ্বাসঘাতক হিসেবে প্রমাণিত খোন্দকার মোশতাক পররাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রী, এবং আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ সদস্য (এমএনএ) জেনারেল এম. এ. জি. ওসমানী (তৎকালীন কর্নেল) বাংলাদেশ সামরিক বাহিনীর সর্বাধিনায়ক নিযুক্ত হন। শপথ গ্রহণের পরপরই এ সরকার বেসামরিক প্রশাসন চালানোর পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করা এবং তাদের জন্যে অস্ত্রশস্ত্র সংগ্রহ করা, জোরালো কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্যে আন্তর্জাতিক সমর্থন নিশ্চিত করা, এবং যুদ্ধের নির্মম, ক্লান্তিকর, কালো দিনগুলো থেকে দ্রুত মুক্তিলাভ নিশ্চিত করার জন্যে সর্বতোমুখী প্রয়াস চালাতে থাকে। অসীম দেশাত্মবোধ আর নজিরবিহীন বিচক্ষণতাই ছিল এই বিপুল কর্মযজ্ঞের পেছনকার মূল চালিকাশক্তি।

মুজিবনগর সরকার একটি নির্ভরযোগ্য যোগাযোগ ব্যবস্থাপনা আর কুশলী সমম্বয়ের মাধ্যমে হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধার অবচেতনে তাদের মনোবল চাঙা করে তুলেছিল এবং পুরো যুদ্ধকালে তদ্রুপ রেখেছিল। আমাদের শ্রেষ্ঠ নেতা বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে তার সহযোগী নেতৃবৃন্দ, যারা মুজিবনগর সরকারে অন্তর্ভুক্ত ছিলেন, তারা এই ঐতিহাসিক ক্রান্তিকালে জাতিকে তথা জাতির চলমান স্বাধীনতা যুদ্ধকে পরিচালনার গুরুদায়িত্ব নিজেদের কাঁধে শুধু তুলেই নেননি, সর্বোচ্চ নিষ্ঠার সঙ্গে সে-দায়িত্ব পালন করে জাতিকে পৌঁছে দিয়েছেন স্বাধীনতার অভীষ্ট লক্ষ্যে। একাত্তরের এপ্রিলে শপথ গ্রহণের পর থেকে ১৬ ডিসেম্বর পূর্ণ বিজয় অর্জিত হওয়ার আগ পর্যন্ত আট মাস ধরে এ সরকার দেশের সশস্ত্র যুদ্ধকে ক্রমবর্ধমানভাবে অব্যাহত রেখেছে। অনড়-অটলভাবে তারা তাদের প্রয়াস চালিয়ে গেছেন স্বাধীনতা সংগ্রামের মূল ভিত্তিস্বরূপ আমাদের জাতীয় ঐক্যকে অক্ষুণ্ন রাখার জন্য। ঘরে-বাইরে সব শত্রুর বিরুদ্ধে তারা অক্লান্ত যুদ্ধ করেছেন সর্বোচ্চ বীরত্বের সঙ্গে, তবে তার চেয়েও বড় কথা, যুদ্ধ চলাকালে পুরোটা সময় ধরে তারা আমাদের অবিকল্প মহান নেতা বঙ্গবন্ধুর দিকনির্দেশনা অবিচলভাবে অনুসরণ করেছেন, এবং গণমানসে তার ভাবমূর্তি অম্লান রেখেছেন। একাত্তরের ১৭ এপ্রিল গঠিত হওয়ার পর মুজিবনগর সরকার জাতির যুদ্ধপ্রয়াসে এক নতুন গুরুত্ব আর তাগিদের সঞ্চার করে। এর ফলে এমনকি সেই ধ্বংস ও মৃত্যুর মুহূর্তেও বাংলাদেশের জনগণের মনে যুদ্ধজয়ের ব্যাপারে একটা দৃঢ় আস্থার সৃষ্টি হয় এবং তারা আন্তর্জাতিক সমাজে তাদের দেশের অবস্থান হৃদয়ঙ্গম করতে শুরু করে।

মুজিবনগর সরকার গঠনের যুগান্তকারী পদক্ষেপটিকে বিজ্ঞজনেরা বিবেচনা করেন স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের পূর্ণ বাস্তবায়নের পথে একটি যথোপযুক্ত সাংবিধানিক, যুক্তিসঙ্গত ও বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ হিসেবে। মুজিবনগর দিবস আমাদের জাতীয় ইতিহাসে একটি মাইলফলক সংগঠন। দিনটির সুদূরপ্রসারী তাৎপর্যের কয়েকটি দিক এখানে তুলে ধরা হলো।

প্রথমত, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ যে বিচ্ছিন্নতাবাদী কোনো আন্দোলন নয়, বরং একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার অনিবার্য সম্প্রসারণ, সেটা আন্তর্জাতিক পরিসরে তুলে ধরা। সেইসঙ্গে এটাও সারা বিশ্বের কাছে নিশ্চিত করা যে, পশ্চিম পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেতৃত্বদানের ব্যাপারে মুজিবনগর সরকারের প্রতি পূর্ব পাকিস্তানের সমস্ত মানুষের এবং স্বাধীনতার পক্ষের রাজনৈতিক দলগুলোর পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। মুজিবনগর সরকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই এসব লক্ষ্য বাস্তবায়িত করা সম্ভব হয়েছে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে মুক্তিযুদ্ধের বৈধতা প্রতিষ্ঠা করাটা মুজিবনগর সরকার জন্য যেমন অপরিহার্য ছিল, তেমনি ছিল ভারত সরকারের জন্যও।

তখন বিশ্ব স্নায়ুযুদ্ধের গভীর সংকটে জর্জরিত। বহু দেশ আমাদের সংগ্রামের সাথে একাত্মতা প্রকাশের পাশাপাশি সাহায্যের হাত বাড়ালেও, বিশ্বের দুটি বৃহৎ শক্তি যথা যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। এমন একটি প্রতিকুল পরিস্থিতিতে মুজিবনগর সরকারের যেকোন একটি ভুল সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধকে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ লড়াই হিসেবে চিহ্নিত করার সম্ভাবনা জাগাতে পারতো।

দ্বিতীয়ত, মুজিবনগর সরকার গঠনে আরও দেরি হলে বা আদৌ গঠন করা না গেলে নিশ্চিতভাবে কোনো ধরনের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণের অভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা যুদ্ধ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়তো বিশৃঙ্খলভাবে। চলমান জনযুদ্ধকে কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছে দেয়ার জন্যে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণ ও সমন্বয় করা খুবই জরুরি হয়ে পড়েছিল। মুজিবনগর সরকার দক্ষভাবে দায়িত্বটি পালন করে, যার ফলে আওয়ামীপন্থী মুক্তিযোদ্ধারা মূলধারার মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধে অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করেন। মুজিবনগর সরকার গঠিত না হলে, কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ ও সমন্বয়ের আভাবে আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধ বিশ্বের চোখে একটি বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে যাওয়ার সমূহ আশঙ্কা ছিল।

তৃতীয়ত, যুদ্ধের শুরুতে সাধারণ জনগণ, আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী, ছাত্র-কৃষক-শ্রমিক, পুলিস, আনসার, ইপিআর ও বেঙ্গল রেজিমেন্টের সদস্যগণ ইত্যাদি সবাই স্বতঃস্ফুর্তভাবে অংশ নিলেও, তাদের সে-প্রয়াসের পেছনে কোনো সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছিল না। এদের সবাইকে সঙ্ঘবদ্ধ করে একটি একক আদেশানুক্রমের মধ্যে নিয়ে আসা এবং তাদের নিজ নিজ রণাঙ্গণ নির্দিষ্ট করে দেয়া সম্ভব হয়েছে মুজিবনগর সরকার প্রতিষ্ঠার ফলেই।

মুজিবনগরে শপথ নেয়া স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার তার অসাধারণ কর্মতৎপরতার গুণে অচিরেই সাফল্যের তুঙ্গে পৌঁছে যায়। মাত্র নয় মাসের মধ্যে এ সরকার এক অসাধারণ কার্যকর ও দক্ষ প্রশাসন গড়ে তোলে। এ সরকারে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনকারী এইচ. টি. ইমাম লিখেছেন, “১৯৭১ সালের বাংলাদেশ সরকার আকারে বিশাল ছিল না, কিন্তু অত্যন্ত কার্যকর এবং দক্ষ ছিল। মন্ত্রিসভার প্রাত্যহিক বৈঠক ছাড়াও যেকোনো সময় যেকোনো স্থানে বৈঠক অনুষ্ঠিত হতো প্রয়োজন ও সময়ের তাগিদে। যুদ্ধকালীন জরুরি অবস্থায় যেভাবে সরকার পরিচালনা করতে হয়, ঠিক সেভাবে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিসভা এবং আমরা সবাই কাজ করেছি। সিদ্ধান্ত গ্রহণ পদ্ধতি ছিল দ্রুত এবং দৃঢ়। বাস্তবায়নও হতো ক্ষিপ্র গতিতে।” (এইচ টি ইমাম, বাংলাদেশ সরকার ১৯৭১, পৃ. ৬৫)

যুদ্ধ চলাকালে অনেক দেশেই প্রবাসী সরকার গঠিত হওয়ার বহু নজির আছে। তবে এগুলোর মধ্যে কিন্তু মুজিবনগর সরকার ছিল অনন্য। এ সরকার শুধুমাত্র প্রবাসী ছিল না, এর নিজস্ব ভূখণ্ডও ছিল। ভারত সীমান্ত সংলগ্ন নিজস্ব ভূমিতেই এ সরকার শপথ নিয়েছে এবং সদরদপ্তর স্থাপন করেছে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে যেসব এলাকা পাক হানাদারমুক্ত করা সম্ভব হয়েছিল বা যেসব এলাকা হানাদার বাহিনী দখল করতে পারেনি, সেসব মুক্তাঞ্চলে সরকার সবরকমের সামরিক এবং বেসামরিক প্রশাসনিক কর্মকাণ্ড চালিয়েছে। এসব মুক্তাঞ্চলে বাংলাদেশের প্রথম সরকারের কর্মকাণ্ড নিয়মিত পরিদর্শনে আসতেন বিদেশি সাংবাদিকরা। একথা নিঃসংশয়ে বলা যায় যে মুজিবনগর সরকার নামে বিভিন্ন সময়ে অভিহিত এই সরকারই প্রথম পূর্ণাঙ্গ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার।

মুজিবনগর সরকার প্রতিষ্ঠা আমাদের জাতীয় ইতিহাসের একটি মাইলফলক যা অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিকভাবে জাতীয় মুক্তি আন্দোলনকে ‘জীবন ও বৈধতা’ দিয়েছে। জাতির পিতার কারাবন্দি অবস্থায় তারই দিকনির্দেশনা অনুযায়ী যে মহান নেতারা মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছেন, তাদেরকে জাতি কৃতজ্ঞ চিত্তে স্মরণ করে।

সামরিক স্বৈরসরকার ১৯৭০-এর সাধারণ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ী আওয়ামী লীগের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করায় পাকিস্তানি স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে ১৯৭১-এ যে-সশস্ত্র যুদ্ধ শুরু হয়, তাতে প্রাথমিক সাফল্য আসে দলের সুপ্রিমো বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতেও তাকে রাষ্ট্রপ্রধান করে জননির্বাচিত সরকার গঠনের মধ্যে দিয়ে। এসময় নবগঠিত সরকারকে যুদ্ধকালীন নেতৃত্ব দেন বঙ্গবন্ধুর চার ঘনিষ্টতম ছায়াসহচর-অন্তর্বর্তীকালীন রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ, অর্থমন্ত্রী এম. মনসুর আলী এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এ. এইচ. এম. কামারুজ্জামান। ১৯৭২-এর জানুয়ারিতে পাকিস্তানি কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে দেশে ফিরে বঙ্গবন্ধু নিজেই সরকারপ্রধানের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। তারপর ১৯৭৫-এ আবার লোহার বাসরে কালসাপ এসে ঢোকে। পাকিস্তানপন্থী প্রতিক্রিয়াশীল চক্রের হাতে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা নিহত হওয়ার পর আবার ফিরে আসে সেই সামরিক প্রেতচ্ছায়া। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্যা কন্যা, বর্তমান আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বহু আন্দোলন-সংগ্রাম, আত্মদান-আত্মত্যাগের পর অবশেষে গণতন্ত্র এদেশে একটি শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েছে। দেশে অনতিদীর্ঘ কাল ধরে একটা জননির্বাাচিত গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত থাকায় অর্থনীতিতে একটা বর্ধিষ্ণু স্থিতিশীলতা এসেছে। দেশ এখন অপ্রতিহতভাবে এগিয়ে চলেছে উন্নয়নের মহাসড়ক ধরে।

এই গণতান্ত্রিক অভিযাত্রায় ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস আমাদের প্রেরণা, আমাদের দিকপ্রদর্শক বাতিঘর। প্রত্যেক বাঙালির কর্ম ও চিন্তায় মুজিবনগর দিবসের তাৎপর্যকে ধারণ করতে হবে। দিনটি বাংলাদেশিদের কাছে কেন গুরুত্বপূর্ণ, সে-ব্যাপারে জাতিসংঘের মতো আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মগুলো থেকে বিদেশিদেরকেও অবগত করতে হবে। মুজিবনগর দিবসের গৌরবোজ্জ্বল গুরুত্ব আমরা যেন কখনো ভুলে না যাই।

লেখক: অধ্যাপক; ইংরেজি বিভাগ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

বিষয়:

বাঙালি কী চাও তুমি?

আপডেটেড ১৬ এপ্রিল, ২০২৪ ১৭:৫৬
রাজীব কুমার দাশ

বাঙালি কী চাও তুমি?
রুধির অপমান?
সানকি ভরতি পান্তা ইলিশ?

ব্যাসবাক্যের অপর নাম যেমন বিগ্রহবাক্য
প্রেমের পূর্ণরূপ যেমন সমর্পণ;

সেদিনও বছর ফেরত সুদাসল সূত্রে চক্রবৃদ্ধি সারি সারি
সুখ দুঃখ হাঁড়ি পাতিল মটকা কলস নিয়ে
হাজির হয়েছিল পহেলা বৈশাখের প্রথম
দিন।

নিগ্রহ প্রতীতি প্রতীকী কল্পমূর্তি ছায়ামূর্তি তিষ্ঠ তিষ্ঠ বীণা হাতে
সবাই দেখেছিল সাতষট্টির সকাল
রমনা বটমূল।

ভালোবাসা প্রেম মমতা দেয়নি কখনো একচ্ছত্র সমতা
তাইতো মানুষ মানুষেতে এত এত বৈষম্য কাড়াকাড়ি মারামারি যুদ্ধ;

সেদিন বাঙালি ঠোঁটে গেয়েছিল সাম্যসংগীত
হাতে ছিল প্রেমবীণা
বেজে চলেছিল অবিরত আগামীর শাস্ত্রীয়
সংগীত।

কে জানত?
আগামীর ঘরে ঘরে শাস্ত্রীয় সংগীত গাইবেন
এক একজন যন্ত্রী যন্ত্রিণী
যাপিতজীবনের সমুদয় দুঃখবেদনা এঁকে দেবে
দেয়াল চিকা পোস্টার ব্যানার ফেস্টুন রংবেরঙ মুখোশ সঙ
কোনো এক নাম না জানা
অখ্যাত চিত্রকর।

অখ্যাত নারী পুরুষ শিশু কণ্ঠে ব্যঙ্গসংগীত গাইয়ে
কাঁপন ধরিয়ে দেবে নাক কাটা রাজা ও
টুনটুনি পাখি গল্পের মতন;

জন্ম নেবে এক একজন সাঙ্গীতিক আধ্যাত্মিক গীতিকার সুরকার তানসেন।

সুরের মূর্ছনা তানপুরা তর্জনী হাতে তানসেন কণ্ঠে
ফেটে যাবে হিমালয়
মহান স্বাধীনতার জমাট বাঁধা বরফখণ্ডও এক দিন;
বাঙালি কী চাও তুমি?

কেন বলতে পারনা?
রমনা বটমূল থেকে হয়েছিল বাঙালির সাংস্কৃতিক জাগরণ।

লেখক: রাজীব কুমার দাশ
প্রাবন্ধিক ও কবি, পুলিশ পরিদর্শক।


হাওরের জীববৈচিত্র্য ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ 

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
ড. মো. হুমায়ুন কবীর

ষড়ঋতুর বাংলাদেশে বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি-বন্যা নিত্যনৈমিত্তিক ও অনেকটা স্বাভাবিক ঘটনা; কিন্তু সে বৃষ্টি যদি আগাম হয় তবে সেটা সব সময় কল্যাণ বয়ে আনে না। এমনই একটি ঘটনা এবার ঘটেছে ভাটির দেশ, ধানের দেশ, গানের দেশ, প্রাণের দেশ হাওরে। গানের দেশ বলছি এ জন্য, ভাওয়াইয়া, ভাটিয়ালি সুরের গানের টানের জন্য বিখ্যাত এলাকা হলো হাওর এলাকা। আর সে জন্যই শাহ্ আব্দুল করিম, হাছন রাজার মতো গানের জাদুকরের সৃষ্টি হয়েছিল সেসব এলাকায়। কারণ নৌকা বাইতে বাইতে মাঝিরা সেখানে লম্বা লম্বা সুরে গলা ফাটিয়ে সুর তোলে গানে।

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের একটি বিরাট অংশ ভাটি এলাকার হাওর হিসেবে পরিচিত। বৃহত্তর সিলেটের জেলাগুলো- নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উল্লেখযোগ্য অংশ নিয়ে এ বিশাল হাওর এলাকা গঠিত। এ এলাকার একটি বিশেষত্ব হলো সেখানে বছরে ৭ মাসই পানিতে তলিয়ে থাকে। বছরে মাত্র একটি ফসল বোরোধান উৎপাদিত হয়ে থাকে। এ সময়ে সেখানে প্রাকৃতিকভাবেই মিঠাপানির অনেক দেশি প্রজাতির মাছ উৎপাদিত হয়ে থাকে। এ অঞ্চলে উৎপাদিত বিচিত্র ও বাহারি রকমের ধান ও মাছ দেশের চাহিদা মিটিয়ে ক্ষেত্র বিশেষে বিদেশেও রপ্তানি হয়ে থাকে।

এ অঞ্চলের একটি বড় রকমের দুঃখ হলো আগাম বন্যা ও অতিবৃষ্টি। প্রতি বছরে একমাত্র বোরো ফসল কাটার সময় এলেই প্রাকৃতিক দুর্যোগ হিসেবে দেখা দেওয়ার আশঙ্কা থাকে শিলাবৃষ্টি ও আগাম বন্যা ও পাহাড়ি ঢলের; কিন্তু প্রতি বছরই কিছু না কিছু ফসল বিনষ্ট হলেও ২০১৭ সালে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছিল বলে জানিয়েছে বিভিন্ন জরিপকারী সংস্থাগুলো। সেখানে বিস্তীর্ণ হাওর এলাকায় প্রায় দুই লক্ষাধিক হেক্টর জমির ধান ফসল যার বারো আনা নষ্ট হয়েছিল। সেখানে ৫ লক্ষাধিক মেট্রিক টন ধান নষ্ট হয়েছিল যার বাজারমূল্য প্রায় এক হাজার কোটি টাকারও বেশি।

কৃষক সারা বছরের সঞ্চয় এক সঙ্গে করে জমা রাখে যাতে বোরো মৌসুমে ধান আবাদকালে চাষাবাদের খরচ জোগান দেওয়া যায়। শুধু তাই নয়- সার, সেচ, কীটনাশক, আগাছা নাশক, শ্রমিকসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় ব্যয় নির্বাহের জন্য এ সঞ্চিত অর্থ খরচ করা হয়। সেই সঞ্চিত অর্থই এ ব্যয় নির্বাহের জন্য যথেষ্ট না হওয়ায় কৃষকরা দিশেহারা হয়ে দাদন ব্যবসা কিংবা মহাজনী কারবারিদের মুখাপেক্ষী হয়ে পড়তে বাধ্য হন। দেখা যায় অনেক ক্ষেত্রে তারা প্রয়োজনের সময় সহজশর্তে ব্যাংক লোন পান না। তখন অনেকটা বাধ্য হয়েই কৃষকরা উচ্চ সুদে বেসরকারিী সংস্থা কিংবা জমিতে রেখেই নামেমাত্র মূল্যে ধান বিক্রি করে দিতে বাধ্য হন।

পাহাড়ি ঢলে উজান থেকে নেমে আসা বানের পানির তোড়ে সব ধরনের বাঁধ ভেঙে চুরমার হয়ে যায়। সেই বাধভাঙা পানি যখন ধান খেতের মধ্যে ঢুকে পড়ে, তখন আর হাওরবাসীর কান্নার সীমা থাকে না। হাওরের ধানগুলো এমনিতেই নিচু এলাকায় হয়। সেখানে এত পরিমাণ নিচু যে সেখান থেকে আর পানি অন্যত্র নামিয়ে নেওয়ার সুযোগ থাকে না। সে জন্য অল্প বৃষ্টিতেই মৌসুমের শুরুতেই ধানের জমিগুলো পানিতে তলিয়ে গিয়ে নষ্ট করে দিয়েছে বিস্তীর্ণ এলাকা।

জানা যায়, সেবার শুধুমাত্র মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত হাকালুকি হাওরেই নষ্ট হয়েছিল ২৫ মেট্রিক টন বিভিন্ন বিরল প্রজাতির মাছ। বৃষ্টির পানিতে আধাপাকা ধানের গাছ পানির নিচে চলে যাওয়ায় সেখানে সেগুলো পচে গিয়ে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়েছে। সেই দুর্গন্ধে পানিতে অ্যামোনিয়া ও হাইড্রোজেন সালফাইড গ্যাস সৃষ্টি হয়ে পানি বিষাক্ত হয়ে পড়েছিল। আমরা জানি রাসায়নিকভাবে কোনো কিছুর নরমাল অর্থাৎ নিরপেক্ষ পানির পিএইচের আদর্শ মাত্রা হলো ৭; কিন্তু এ ক্ষেত্রে পানির নিচে ধানের খড় পচে গিয়ে পানির স্বাভাবিক পিএইচ মান ৭ থেকে ৩-৪-এ নেমে গিয়ে পানি অ্যাসিডিক হয়ে পড়ছিল। এতে মারা গিয়েছে মাছসহ পরিবেশের জীববৈচিত্র্যের অন্যান্য সজীব উপাদান।

জানা গেছে, এগুলো সমাধানের জন্য যদিও সংশ্লিষ্ট এলাকার মৎস্য ও কৃষি বিভাগ যৌথভাবে চুনসহ অন্যান্য রাসায়নিক ব্যবহার করে পানির স্বাভাবিক পিএইচ মাত্রায় ফিরিয়ে নিয়ে আসার চেষ্টা করছে, তারপরও তড়িৎ কোনো ফল পেতে দেরি হচ্ছে। তাই সেখানে মাছ মরে মরে ভেসে উঠছে। ঠিক সে কারণে বিষাক্ত মাছ ধরে যাতে জনস্বাস্থ্যের কোনো সমস্যা সৃষ্টি না হয় সে জন্য সেখানে সাত দিন মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

এসব এলাকায় এমন দুর্যোগে মরে গিয়ে ভেসে ওঠা মাছ খেয়ে সেখানকার পানিতে ভেসে বেড়ানো হাঁসগুলো মারা যায়। বিভিন্ন সময়ে পরিসংখ্যানে প্রকাশ পেয়েছে সেসব এলাকায় প্রায় পঁচিশ লক্ষাধিক হাঁস পালন করে থাকেন সেখানকার কৃষকরা। আর শুধু হাঁস কেন, সেখানে মারা পড়ছে অন্যান্য প্রাণী ও জীবজন্তু। কারণ এক অর্থে সেখানকার খাদ্যশৃঙ্খলে দেখা দেয় এক প্রকার বিপর্যয়। একদিকে সেখানকার মানুষ যেমন আশ্রয় ও খাবারহীন হয়ে পড়ে, সেই সঙ্গে আশ্রয় ও খাদ্য সংকটে পড়ে সেখানকার গবাদিপশুসহ সব প্রাণীকুল। সেখানে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষাকারী অন্যান্য জীব যেমন- সাপ, গুইসাপ, ব্যাঙ, বিভিন্ন বিরল দেশি প্রজাতির মাছ ইত্যাদি সবই এখন হুমকির সম্মুখীন।

সম্প্রতি পত্রিকান্তরের একটি খবর আরও বেশি আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে। আর সেটি হলো- আমাদের টাঙ্গুয়ার হাওরের অদূরে পার্শ্ববর্তী ভারতের মেঘালয় রাজ্যের বিভিন্ন পাহাড়ি এলাকায় স্থাপিত বিভিন্ন খনির উত্তোলন। সেখানে কয়লা থেকে শুরু করে মারাত্মক ইউরেনিয়াম পর্যন্ত রয়েছে। আর ইউরেনিয়াম হলো এমন একটি মারাত্মক রাসায়নিক যা কি না পারমাণবিক চুল্লির উপজাত হিসেবে নিঃসৃত হয়ে থাকে। এ থেকে বিষাক্ততা ছড়িয়ে পড়লে মারাত্মক স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে মেঘালয়ের এসব খনি থেকে উজানের ঢলের পানির স্রোতের সঙ্গে যদি ইউরেনিয়ামসহ কোনো ধরনের দূষিত রাসায়নিক আমাদের হাওরে চলে আসে তখন তা শুধু যে হাওরেই সীমাবদ্ধ থাকবে তা কিন্তু নয়। তা তখন সারা দেশের জনস্বাস্থ্যের জন্যই একটি মারাত্মক হুমকি হিসেবে দেখা দেবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

২০১৭ সালের দুর্যোগের পর সেখানকার বিভিন্ন জরিপ থেকে জানা গেছে, এবারের আগাম বর্ষা ও বন্যা বিগত প্রায় শতাধিক বছরের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। এত বিশাল ক্ষয়ক্ষতি স্মরণকালের মধ্যে আর জীবিত কারও চোখে পড়েনি। সেখানে কারও বাড়িতে ধান নেই, চাল নেই, নেই কোনো নগদ অর্থকড়ি। চারদিকে শুধু হাহাকার। কারণ একটি মাত্র বোরো ফসল আবাদের জন্য কৃষকরা তাদের সর্বস্ব বিনিয়োগ করে থাকে। এখন তারা সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে একেবারে দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

আমরা জানি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সাবেক মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সেই কিশোরগঞ্জের হাওর এলাকার মানুষ। তিনি শিকড়ের টানে সেসব বন্যাপীড়িত মানুষের দুর্দশা স্বচক্ষে দেখার জন্য সেসব এলাকা পরিদর্শন করেছিলেন যা আমরা গণমাধ্যমে প্রচারিত হতে দেখেছি। সেখানকার সরেজমিন পরিস্থিতি দেখে তিনি এতটাই হতবিহ্বল হয়ে পড়েছিলেন, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে গত ১৯ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে একটি সমাবর্তনে যোগ দিতে এসেও সেই হাওর এলাকার মানুষের প্রতি তার সহমর্মিতা ও উষ্মা প্রকাশ করেতে ভুল করেননি। তিনি তার মনের বেদনার কথা বলে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন।

সেসময় বিষয়টি গণমাধ্যমের অন্যতম একটি হৃদয়বিদারক ও মর্মস্পর্শী ঘটনা হওয়ার কারণে কথা উঠেছিল যে সেখানে প্রয়োজনের তুলনায় তেমন কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। বেশ কয়েকটি কৃষক সংগঠন হাওরের দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে দাবি-দাওয়া করে আসা হচ্ছিল। সেখানে এখন খবর পাওয়া গেছে, সেখানে খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস ও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। সেখানে পরিবারপ্রতি ন্যায্যমূল্যে ১০ টাকা কেজি দরে নির্দিষ্ট পরিমাণ চাল ও প্রয়োজনীয় পরিমাণ অন্যান্য সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে ইত্যাদি।

কেন হয়েছিল সেবারের এমন ভয়াবহ অবস্থা? কারণ অন্য বছরগুলোতে বর্ষাটা সাধারণত বৈশাখের শেষের দিকে শুরু হয়; কিন্তু সেবার তা বৈশাখই শুধু নয়- শুরু হয়েছে চৈত্রের শুরুতেই। বিশেষজ্ঞদের ধারণামতে এগুলোই আসলে জলবায়ু পরিবর্তনের কুফল। তা ছাড়া হাওরের সার্বিক উন্নয়নের জন্য যেসব প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে সেগুলো এখনো পুরোপুরি শেষ হয়নি। সেখানে বেড়িবাঁধ, বিভিন্ন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধসমূহ যখন সম্পন্ন হবে তখন এ ধরনের সমস্যা কম হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আমরা জানি প্রাকৃতিক দুর্যোগের ওপর কারও কোনো হাত নেই। তবে একে বিভিন্ন ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কিছুটা মিনিমাইজ করা যায়। এগুলোকে মিনিমাইজ করার জন্য বর্তমানে সরকারের ইচ্ছায় হাওর উন্নয়ন বোর্ডকে আরও শক্তিশালী করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে ময়মনসিংহস্থ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্প্রতি হাওরের কৃষি সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় নিবিড়ভাবে গবেষণার মাধ্যমে উন্নয়নের জন্য চালু করা হয়েছে হাওর কৃষি গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্র। আরও নেওয়া হয়েছে বিভিন্ন অগ্রাধিকারমূলক সমন্বিত প্রকল্প। যেগুলো বাস্তবায়ন সম্ভব হলে সামনের দিনগুলোতে আমাদের হয়তো হাওরের মানুষের এমন কান্না আর দেখতে হবে না। তবে এ মুহূর্তে আমাদের সাধ্যমতো তাদের পাশে দাঁড়ানো উচিত।

যেকোনো ধরনের সমস্যারই তাৎক্ষণিকভাবে সমাধান করা কঠিন। বিগত দিনে অতীতের সরকারগুলোর পক্ষ থেকে এসব পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর দিকে কেউই দৃষ্টি দেয়নি। যদি আগে থেকেই এসব এলাকার মানুষের জন্য কাজ করার জন্য সমন্বিত ও সম্মিলিতভাবে দৃষ্টি দেওয়া যেত তাহলে এসব সমস্যার অনেকাংশেই অনেক আগেই সমাধান সম্ভব হতো। তবে আশার কথা দেরিতে হলেও যেহেতু এসব এলাকার সার্বিক উন্নয়নে পরিকল্পনামাফিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে এর সুফল এক সময় আসবেই। তবে এসব গৃহীত অগ্রাধিকারমূলক প্রকল্পগুলো যেন সঠিক ও সফলভাবে বাস্তবায়ন হয়- সেগুলো দেখভাল করার জন্য বর্তমান সরকার ও রাষ্ট্রের অনেক গুরুত্ব ব্যক্তি রয়েছেন।

লেখক: কৃষিবিদ ও রেজিস্ট্রার, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়


পহেলা বৈশাখ: বাঙালির সর্বজনীন উৎসব 

আপডেটেড ১৬ এপ্রিল, ২০২৪ ১২:৪৪
সৈয়দ আফজাল হোসেন 

পহেলা বৈশাখ বা বাংলা নববর্ষ হচ্ছে বাঙালির সর্বজনীন উৎসব। পুরোনো বছরের যা কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি, যা কিছু ব্যর্থতা, যা কিছু গ্লানি সব ভুলে গিয়ে মনে স্পন্দন জাগানিয়া নতুন আশা ও নতুন সম্ভাবনার রঙিন স্বপ্নকে আলিঙ্গনের নব প্রত্যয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেয় পুরো জাতি।

আগের দিন সন্ধ্যায় গেল বছরের শেষ সূর্য অস্তমিত হওয়ার পর এ ধরায় যে আঁধার নেমে এসেছিল, তা কাটিয়ে পহেলা বৈশাখ ভোরে নতুন বছরের নতুন সূর্য নব নব আশার আলো নিয়ে পুবাকাশে উঁকি দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আনন্দে উদ্বেলিত বাঙালি জাতি সমবেত কণ্ঠে গেয়ে ওঠে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেই গান, ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো/ তাপস নিঃশ্বাস বায়ে, মুমূর্ষুরে দাও উড়ায়ে/ বছরের আবর্জনা দূর হয়ে যাক যাক’।

কবিগুরুর কালজয়ী এ গানের কথার মতোই নতুন বছরের আগমনে শান্তি ও সাফল্যের প্রত্যাশা জাগ্রত হয় সবার মনে, নতুন আলোর ঝিলিক দ্যুতি ছড়ায় সকল প্রাণে। বুকভরা আশা, চোখভরা স্বপ্ন আর বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে তারা নতুন বছরকে স্বাগত জানায়।

নতুন বছরে সকল শান্তিপ্রিয় মানুষের চাওয়া- মানবমনের আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে সমাজের সব অন্যায়, অবিচার, বৈষম্য, শঠতা-অসততা, ঘুষ-দুর্নীতি, সম্প্রদায়িকতা ও ধর্মান্ধতার অবসান হোক। সুনীতি, সুশিক্ষা, সুশাসন, সুচিন্তা ও সুবুদ্ধি বিকশিত ও প্রতিষ্ঠিত হোক সর্বত্র। নতুন সূর্যের স্নিগ্ধ আলোয় স্নাত হয়ে সবার হৃদয়ে মানবপ্রেম ও দেশপ্রেম জাগ্রত হোক। বিশ্বব্যাপী দুর্বলের ওপর সবলের অত্যাচার বন্ধ হোক, বন্ধ হোক প্রাণঘাতী যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা, মানবাত্মা মুক্তি পাক, বিশ্বমানবতার জয় হোক!

আমরা জানি, সময় ও স্রোত কারও জন্য অপেক্ষা করে না। কেননা ঘড়ির কাঁটা তার আপন নিয়মেই অনবরত ঘুরতে থাকে এবং সেই সঙ্গে কালের আবর্তে বিলীন হয়ে যায় একেকটি সেকেন্ড, মিনিট, ঘণ্টা। এমনি করেই দিন-মাস-বছর চলে যায়। আবার এই অতীতকে ছাপিয়ে ফিরে আসে নতুন দিন-মাস-বছর। এভাবে প্রকৃতির চিরায়ত নিয়মেই মানুষ এক সময় পুরাতনকে বিদায় জানিয়ে নতুনকে বরণ করে নেয়। এরই ধারাবাহিকতায় বিদায় নিল একটি বছর, শুভাগমন ঘটল আরেকটি নতুন বছরের। বিদায় বাংলা ১৪৩০, সুস্বাগতম ১৪৩১!

ব্যক্তিজীবনের পাশাপাশি জাতীয়জীবনেও বিদায়ী বছরে রয়েছে যেমন অনেক অর্জন আর প্রাপ্তির সুখ, তেমনি আবার রয়েছে কিছু কিছু ব্যর্থতা-হতাশা আর অপ্রাপ্তির বেদনা। আর এই অতীতে ঘটে যাওয়া নানা অম্ল-মধুর ঘটনা মানুষের মনে বেদনাবিধুর কিংবা সুখজাগানিয়া স্মৃতি হয়ে রয়ে যায়। বিদায়ী বছরের সব দুঃখ-বেদনা, হতাশা-গ্লানি ভুলে প্রাণে নতুন নতুন স্বপ্ন-আশা নিয়ে শুরু হয় নতুন বছরে নতুন করে পথ চলা। অতীতকে মুছে ফেলে নয়, অতীত স্মৃতিকে বুকে ধারণ করে নতুন দিন-ক্ষণ-সময়ের সঙ্গে পথ চলাই জীবনের নিয়ম।

পহেলা বৈশাখের উৎসবের উচ্ছ্বাসে মাতোয়ারা বাঙালি জাতি সেদিন নতুন সূর্যের বিশুদ্ধ আলোয় আমোদে মেতে ওঠে। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব বয়সের মানুষ নানা আনন্দ-অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মহাড়ম্বরের সঙ্গে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়।

পহেলা বৈশাখ হচ্ছে বাঙালির সর্ববৃহৎ সর্বজনীন উৎসব। হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে সব ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষ এ উৎসবে শামিল হয়ে এক সুরে গেয়ে ওঠে জীবনের জয়গান। যেখানে নেই কোনো ধর্ম-বর্ণের ভেদাভেদ কিংবা ধনী-গরিবের বৈষম্য।

শুধু বাংলাদেশেই নয়, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, আসাম, ত্রিপুরাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা প্রত্যেকটি বাঙালির কাছেই নববর্ষ একটি বিশেষ উদ্‌যাপনের দিন।

মোগল সম্রাট আকবরের শাসনামলে খাজনা বা রাজস্ব আদায়ের সুবিধার্থে জমিতে ফসল উৎপাদনের ঋতুচক্রের ওপর ভিত্তি করে ইংরেজি ১৫৫৬ সালে বাংলা সালের প্রবর্তন করা হয়। তবে এর গণনাটা ১ সাল থেকে শুরু হয়নি। তৎকালীন ভারতবর্ষে হিজরি সালের ব্যাপক প্রচলন ছিল। ওই বছর ছিল হিজরি ৯৬৩ সাল। তাই হিজরি বছরটিকে ঠিক রেখেই অর্থাৎ হিজরি ৯৬৩ সালকে বাংলা ৯৬৩ সাল ধরেই প্রথমবারের মতো বাংলা বর্ষপঞ্জি চালু করা হয়। আর বৈশাখ নামটি নেওয়া হয় নক্ষত্র ‘বিশাখা’ থেকে। সম্রাটের নির্দেশে এ কাজটি সম্পন্ন করেন সে সময়কার বিখ্যাত জ্যোতির্বিদ ও গণিতজ্ঞ ফতেহউল্লাহ সিরাজী।

পহেলা বৈশাখের দিনে উৎসবের শুরুটাও হয় সম্রাট আকবরের আমলেই। তার পৃষ্ঠপোষকতায় খুবই জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলা নববর্ষ উদ্‌যাপিত হতো। ইতিহাস থেকে জানা যায়, এ দিন তিনি প্রজাদের সঙ্গে মিলিত হতেন। সবার শুভ কামনা করে চারদিকে মিষ্টি বিতরণ করা হতো।

দিবসটি উপলক্ষে এক সময়ে দেশের ব্যবসায়ী মহলে ‘হালখাতা’ অনুষ্ঠানের ব্যাপক প্রচলন ছিল। নতুন বছরের প্রথম দিনটিতে নতুন একটি ‘লাল কভারের’ খাতায় হিসাব খুলে তারা নতুন উদ্যমে ব্যবসা শুরু করতেন। সেখানে অতীতের সব হিসাব-নিকাশ মিলিয়ে হালখাতা থেকে নেওয়া হতো নতুন পরিকল্পনা।

বছরের শেষ দিনে বাকি/বকেয়া আদায় করে হালখাতা হালনাগাদ করা হতো। হালখাতার দিনে দোকানদাররা তাদের কাস্টমারদের মিষ্টান্ন দিয়ে আপ্যায়ন করতেন। এই প্রথাটি কমে গেলেও একেবারে বিলীন হয়ে যায়নি। বিশেষ করে মুদি ও স্বর্ণের দোকানে আজও এটি প্রচলিত আছে।

রাজধানীতে নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ হচ্ছে রমনার বটমূলে ছায়ানটের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত বর্ষবরণ অনুষ্ঠান। দেশের এই শীর্ষ সাংস্কৃতিক সংগঠনটির শিল্পীরা সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে গান, কবিতাসহ নানা আয়োজনের মাধ্যমে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়।

উল্লেখ্য, তদানীন্তন পাকিস্তান সরকার ১৯৬১ সালে রবীন্দ্র-জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপনে বিধিনিষেধ আরোপ এবং বেতার ও টেলিভিশনে রবীন্দ্রসংগীত পরিবেশন নিষিদ্ধ করলে তার প্রতিবাদে বাঙালি সংস্কৃতিকে ধারণ, লালন ও চর্চা করার দৃপ্ত প্রত্যয়ে গড়ে ওঠা ‘ছায়ানট’ ১৯৬৭ সাল থেকে এ অনুষ্ঠান আয়োজন করে আসছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে বের হওয়া ‘মঙ্গল শোভাযাত্রাও’ নববর্ষের একটি বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

ছায়ানটের প্রভাতী অনুষ্ঠান যেমন পরাধীনতার কালে এক দ্রোহ থেকে জন্ম নিয়েছিল, তেমনি ১৯৮৯ সালে শুরু হওয়া মঙ্গল শোভাযাত্রাও স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের প্রতিবাদ জানিয়ে শুরু হয়েছিল। ২০১৬ সালে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা বা ইউনেসকো এ শোভাযাত্রাকে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের মর্যাদা দেয়।

এ দিন রমনার বটমূল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, বাংলা একাডেমি, ধানমন্ডির রবীন্দ্রসরোবর এলাকাসহ রাজধানীজুড়েই সৃষ্টি হয় উৎসবের আমেজ। গান-কবিতায় মুখর হয়ে ওঠে এসব প্রাঙ্গণ।

এ ছাড়া প্রায় চার দশক ধরে পান্তা-ইলিশ পহেলা বৈশাখ বা নববর্ষ উদ্‌যাপনের একটি বিশেষ অনুষঙ্গ হিসেবে যুক্ত হয়ে গিয়েছে। এর সঙ্গে বাঙালি সংস্কৃতির ঐতিহ্যগত কোনো যোগসূত্র না থাকলেও সমসাময়িক সময়ে শহরের অধিকাংশ উচ্চবিত্ত/মধ্যবিত্ত মানুষ এটি বেশ সানন্দেই উপভোগ করছে।

প্রাণের টানে, নিজস্ব ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির টানে বর্ষবরণে সর্বস্তরের মানুষ এমনকি বিলাসী নগরজীবনে অভ্যস্ত মানুষও বৈশাখের তীব্র দাবদাহ উপেক্ষা করে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়ে। নারীরা লাল-সাদা শাড়ি পরে বৈশাখী সাজে সেজে, পুরুষরা রং-বেরঙের পাঞ্জাবি-ফতুয়া পরে দল বেঁধে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করে। সমগ্র শহরময় মনে হয় প্রাণের জোয়ার নেমেছে। চারদিকে যেন উত্তাল-তরঙ্গের মতো তারুণ্যের উচ্ছ্বসিত বিচরণ।

রাজধানী ঢাকার পাশাপাশি সব জেলা, উপজেলা এমনকি গ্রামপর্যায় পর্যন্ত বেশ জাঁকজমকপূর্ণভাবেই নববর্ষ উদ্‌যাপন করা হয়। এক সময়ে গ্রামে গ্রামে মোরগ লড়াই, ষাঁড়ের লড়াই, ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতার আয়োজনও করা হতো। যুগের পরিবর্তনে এগুলো এখন নেই বললেই চলে।

তবে গ্রাম-বাংলার মাঠে-ঘাটে-হাটে এখনো মেলার আয়োজন করা হয়। এসব গ্রাম্য মেলায় শিশু-কিশোররা নাগরদোলায় দোল খেয়ে, চরকিতে ঘুরে আনন্দ উপভোগ করে। এ ছাড়া বাঁশি বিক্রেতাদের বাঁশির সুরের মূর্ছনায় মুখরিত থাকে মেলা প্রাঙ্গণ।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে দেশজুড়ে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে রবীন্দ্রসংগীত, নজরুলসংগীত, লোকগীতি, ভাটিয়ালি, ভাওয়াইয়া ও বাউল গান পরিবেশিত হয়। এ ছাড়াও শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, গান, আবৃত্তি, সেমিনার, নাটক প্রদর্শনীসহ দিনব্যাপী নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক


মানুষের নৈতিক অবক্ষয়, কেন?

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
খালেদা লিপি

রানুর দুই মেয়ে। দুই মেয়েই খুব মেধাবী। রানু আমার স্কুল বন্ধু। রানুও খুব মেধাবী ছিল এবং শান্ত, নরম, কোমল স্বভাবের ছিল। তার মেয়েরাও হয়েছে তেমন। রানু চাকরি করে। তার বরও ভালো চাকরি করে। জীবনের সবটুকু ঢেলে রানু তার মেয়ে দুটোকে মানুষ করে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর যোগ্যতা তৈরি করেছে। বন্ধু হিসেবে আমি রানুকে খুব অভিবাদন জানাই এই জন্য যে, তার সারাজীবনের কষ্ট স্বার্থক হয়েছে। যেমন চেয়েছিল তেমন হয়েছে। তার মেয়ে নিয়ে সে চরম খুশি। ছেলে হয়নি বলে তার জীবনে কোনো আফসোস নেই। সে মেয়েদের নিয়ে দারুণ খুশি এবং সুখী। কিন্তু তার পরিবারের কেউ কেউ, কলিগ কেউ কেউ এবং পাড়া-প্রতিবেশীদের কেউ কেউ তার মেয়েদের এমন সাফল্যে খুব হিংসামূলক আচরণ করেছে। রানু বলল, এমন অনেকের মন্তব্য শুনে তার মনঃক্ষুণ্ন হয়েছে। আবার কেউ কেউ তো তাকে বলেছে মেয়েদের জন্য এত কিছু করার কি দরকার। ছেলে হলে আলাদা কথা ছিল।

কিন্তু আমি বন্ধু হিসেবে রানুর সারাজীবনের কষ্ট স্বার্থকতায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছি।

উপরোক্ত ঘটনাটি কোনো গল্প নয়। আমাদের সমাজের বাস্তব চিত্র। আমাদের আশপাশে এমন লোকজনে ভরপুর, আমি যেমন রানুর দুই মেয়ের সাফল্যে শুভকামনা বা অভিনন্দন জানালাম এমনটা কি সবাই করে? আত্মীয়স্বজন করে? পাড়া-প্রতিবেশী করে? উত্তর হলো- কেউ কেউ করলেও অনেকেই করে না। কেন করে না তা আমার জানা। করে না কারণ রানু তার মেয়েদের তাদের সন্তানের থেকে ভালো অবস্থানে নিয়ে গেছে। এই নিয়ে হিংসা। অন্যের উন্নতি দেখে, অন্যের সাফল্য দেখে যাদের অন্তর জ্বলে সেটাকে আমরা কি বলব? হিংসাই তো বলব। এই হিংসা কেন? মানুষ হিসেবে নৈতিকতার অবক্ষয়।

হিংসা এক ভয়ানক ব্যাধি। সম্পদের মোহ, পদমর্যাদার মোহ থেকে লোভ হয় এবং এই লোভ থেকে হিংসা বিদ্বেষের সূত্রপাত।

অন্যের ভালো দেখলে সুখ দেখলে যাদের অন্তর জ্বলে কষ্ট পায় তারা আদৌ কেমন নৈতিক অবক্ষয়ে জর্জরিত?

মানুষের চরিত্রে যেসব খারাপ দিক আছে তার মধ্যে পারস্পরিক হিংসা, ঈর্ষাকাতরতা, কলহ-বিবাদ প্রতিটি শান্তিপূর্ণ মানুষের জীবনকে বিষময় করে তোলে।

একটা মানুষ যে জীবনে চরম কষ্ট করে সাফল্যের শিখরে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছে তাকে দেখে যে বা যারা হিংসা করে তাদের অন্তর কতটা অন্ধকারাচ্ছন্ন তা বলার অবকাশ রাখে না। এরকম হিংসুক মানুষই সমাজ, সংসারে নৈতিক অবক্ষয়ের উদাহরণ।

ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজে হিংসা মানুষের জীবনকে বিষময় করে তোলে এবং তাতে মানুষের ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক জীবন দুর্বিষহ হয়ে যায়।

আমি মনে করি, একটা মানুষের ছোটবেলা থেকে নৈতিক শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দেওয়া উচিত। জীবন চলার ক্ষেত্রে সহজ ভাষায় বলতে গেলে নৈতিক শিক্ষাই পারে মানুষের মনুষ্যত্ব বোধ জাগ্রত করতে।

লেখক: কবি ও প্রাবন্ধিক


ভেজালের রকমফের

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
মীর আব্দুল আলীম

ভেজাল আর বিষাক্ত খাবার খেয়ে পচে যাচ্ছে দেহ। ঘুষ, দুর্নীতি দেশের গায়েও পচন ধরে ক্যানসার সৃষ্টি করেছে। দেশ, মন আর দেহে পচন ধরলে আর অবশিষ্ট কি থাকে? না ঠেকানো যাচ্ছে ভেজাল; না যাচ্ছে দুর্নীতি ঠেকানো। আসলে দেশ আর দেশের মানুষের গতরে ভেজাল আর দুর্নীতি নামক ঘুণ ধরেছে। ওই কীট কুটি কুটি করে কেটে দেশে আর দেশের মানুষের দেহের বারোটা বাজিয়ে দিচ্ছে। কেবল যে এ সরকারের সময়ই ভেজাল, দুর্নীতি হচ্ছে তা কিন্তু নয়- বিগত এরশাদ সরকারের সময়কাল দেখেছি; দেখেছি তার পরিণতিও। তিনি তো স্বৈরাচার আর দুর্নীতিবাজ হিসেবেই জনরোষে বিদায় নিতে বাধ্য হন। বিএনপির ক্ষমতার কয়েক কালও দেখেছি। লুটপাট আর কম হয়েছে কোথায়? তত্ত্বাবধায়ক আর সামরিক সরকারও দেখেছি আমরা। বঙ্গবন্ধুকন্যার শাসনকালও দেখছি। ভেবেছিলাম হয়তো ভেজাল আর দুর্নীতিতে কিছুটা স্বস্তি মিলবে; কিন্তু না- প্রশাসনে দলীয়করণ থেকে শুরু করে দেশে দুর্নীতি হয়েছে হরেদরে। খাদ্যে ভেজাল এতটুকুও কমেনি; কমেনি দুর্নীতি বরং বেড়েছে। তাই তো প্রকাশ পাচ্ছে এখন।
জঙ্গি দমন করে, শিক্ষাব্যবস্থায় পরিবর্তন আর দেশের নানা ক্ষেত্রে উন্নয়ন ঘটিয়েছে বর্তমান সরকার। পদ্মায় সেতু হয়েছে; তাও আবার নিজস্ব অর্থায়নে, মেট্রোরেল দুর্বার গতিতে চলছে রাজধানীতে, দেশের বিভিন্ন জেলা, বিভাগীয় শহর এমনকি উপজেলাপর্যায়েও ফ্লাইওভার হয়েছে, দেশের বিভিন্ন নদীপথের ফেরি বদলে সেতু হয়েছে, রাস্তা-ঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটেছে। ঘটেছে মানব উন্নয়নও। বলতেই হয় বহির্বিশ্বেও দেশের মর্যাদা বেড়েছে। এখন দেশ আর তলাবিহীন ঝুড়ি নয়। এতসব হলো- কি লাভ হলো সরকারের? দুর্নীতিবাজদের কারণে এর সবই ম্লান হয়ে গেছে। বলতে ভয় নেই দেশে দুর্নীতির ক্যানসার হয়েছে। সেদিন টিভিতে একজন অর্থনীতিবিদের সাক্ষাৎকার দেখছিলাম। দেশে ব্যাংক খাতের দুর্নীতির বিষদভাবে বর্ণনা করছিলেন। এ কথা সত্য, ব্যাংক দুর্নীতি এখন চরমে উঠেছে। অনেক ব্যাংক রুগ্ন হয়ে পড়েছে। আমানতের চেয়ে ঋণ বেশি দেওয়া হয়েছে। ব্যাংক দুর্নীতি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা বহু বছর ধরেই চলছে; কিন্তু কিছুতেই দুর্নীতি থামছে না। আর্থিক খাতের দুর্বৃত্তরা নানা কৌশলে ব্যাংক থেকে বড় অঙ্কের টাকা বের করে নিয়েছে। বিশেষ করে ঋণখেলাপি হয়ে এবং খাসজমি মর্টগেজ রেখে ঋণ নিয়ে গেছে। খোদ ব্যাংক পরিচালকরা ব্যাংকের টাকা নানা ফিকিরে বিশেষ করে ঋণের নামে লোপাট করছে। অস্তিত্ব ও যোগ্যতাহীন প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দেওয়ার ঘটনা আছে। ভুয়া বন্ধকী নিয়েও ঋণ ইস্যুর ঘটনা ঘটেছে অহরহ। এভাবেই ব্যাংকিং খাতে অনিয়ম হয়েছে। এটা বহু বছর ধরেই চলছে। রোধ করা যায়নি ব্যাংক দুর্নীতি। উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে দুর্নীতি হয়েছে। দেশে বালিশ কাহিনী বেশ আলোচিত। স্বাস্থ্য-শিক্ষা খাতেও ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে এমন খবর প্রায়ই আমাদের পত্রিকাগুলো ছাপছে।
বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে দুর্নীতি হয়েছে। হলমার্ক দুর্নীতির কথা সবার জানা। হলমার্ক নামক একটি গ্রুপের টাকা মারার যেসব কাহিনি বেরিয়ে এল তাকি কখনো কল্পনীয় ছিল? সোনালী ব্যাংকের শুধু রূপসী বাংলা শাখা থেকেই তারা হাতিয়ে নিয়েছে ২৬৬৮ (দুই হাজার ছয় শ আটষট্টি) কোটি টাকা অর্থাৎ ২.৬৭ বিলিয়ন। আর সোনালী ব্যাংকের ওই একই শাখা থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে গায়েব হয়ে গেছে ৩৬০৭ (তিন হাজার ছয় শ সাত) কোটি টাকা অর্থাৎ ৩.৬০ বিলিয়ন। ব্যাংক দেয় আর ওরা নেয়। চোরে চোরে যেন মাস্তুত ভাই। এটা সোনালী ব্যাংকের জন্য যেমন একটা বিগ শ্যাম, মহাজোট সরকারের জন্য তা তো মহাপ্রলয়ও ছিল বটে।
ভেবে কোনো কুল-কিনারা খুঁজে পাই না, খেটে খাওয়া মানুষের কষ্টে উপার্জিত ব্যাংকে রাখা জামানতের এত বিপুল পরিমাণ টাকা ঠকবাজরা দিনে-দুপুরে কীভাবে হাতিয়ে নিতে পারল। এর পরও এ ধরনের বহু প্রতিষ্ঠান ব্যাংক গ্রাহকদের আমানতের টাকা নানা ফন্দিতে হাতিয়ে আখের গুঠিয়েছেন। এদের অনেকেই এখন ইউরোপ-আমেরিকার বাসিন্দা। ওদের টিকিটি ছোঁয় কে? আর ওরা বেজায় ক্ষমতাধরও। এর পরও কি বলব দুর্নীতিতে আক্রান্ত এ দেশে ক্যানসার হয়নি? আসলে ক্যানসারেরও রকমফের আছে। আমাদের দেশটা এখন নানাবিধ ক্যানসারে আক্রান্ত। এর মধ্যে দুর্নীতি নামক ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে দেশ এখন সিসিইউতে রয়েছে। ক্রনিক স্টিজে আছে এ দেশের ক্যানসার। রোগ সারবে না; মরবে দেশ কেবল আল্লাহই দেশটা রক্ষা করতে পারেন। আমাদের যে পরিমাণ অধঃপতন হয়েছে, আর আমাদের যা অবস্থা তাতে তিনি আমাদের দিকে শেষতক ফিরে তাকাবেন বলে মনে হয় না। দিন যত যাচ্ছে দেশের দুর্নীতি নামক ক্যানসার ততই নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে। রাষ্ট্র ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ায় অসহায় হয়ে পড়েছে দেশের সাধারণ মানুষ।
এ তো গেল দেশের ক্যানসারের কথা। এ দেশের মানুষের দেহের ভেতরও তো অরিজিনাল ক্যানসার বাসা বেঁধেছে। প্রতিনিয়তই তো আমরা বিষ খাচ্ছি। আমে, জামে, মাছে, ভাতে কোথায় নেই বিষ? প্রতিটি খাবারেই এখন বিষ মেশানো হচ্ছে। কদিন আগে এক বিখ্যাত কলামিস্ট তার লেখায় লিখেছিলেন- ‘আমরা প্রতি জনে; প্রতি ক্ষনে; জেনে-শুনে করেছি বিষ পান।’ প্রতি দিন আমরা যে খাবার খাচ্ছি তাতে কোনো এক মাত্রায় বিষ মেশানো আছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর এই বিষই আমাদের তিলে তিলে মৃত্যুর দিকে ঠেলে নিচ্ছে। কেবল হাসপাতালগুলোতে গেলেই বোঝা যায় কত প্রকার রোগই না এখন মানব দেহে ভর করে আছে। আসলে আমরা জেনেশুনেই বিষ খাচ্ছি। না খেয়ে উপায়ই বা কি? তবে উপায় একটা আছে। না খেয়ে থাকলে এ থেকে হয়তো নিস্তার মিলবে; কিন্তু তাতো হওয়ার নয়। তাই আমে, জামে, মাছে, সবজিতে বিষ মেশানো আছে জেনেও তা কিনে নিচ্ছি। আর সেই বিষ মেশানো খাবারই স্বপরিবারে গিলে চলেছি দিনরাত।
ভেজাল আমাদের জীবনের রন্ধ্রে রন্ধ্রে। তেল, মসলা, লবণ, মুড়ি, চিনি, মাছ, দুধ, ফলমূল, সবজি, গুঁড়াদুধ, কেশতেল, কসমেটিকস সর্বত্রই ভেজাল। ফলের জুস, কোমল পানীয় এসবের বেশির ভাগই কৃত্রিম কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি, যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। ফল প্রথমে ক্যালসিয়াম কার্বাইড দিয়ে পাকানো হয়, পরে ফরমালিন দিয়ে প্রিজারভ করা হয়। দুটোই স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। অসাধু ব্যবসায়ীরা খাবারের সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য বিরিয়ানি, জিলাপি, জুস, মিষ্টিসহ বিভিন্ন খাবারে সস্তা দামের টেক্সটাইল গ্রেড বিষাক্ত রং ব্যবহার করে থাকে, যা শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। খাবারে কৃত্রিম রং এবং জুসে ব্যবহৃত প্রিজারভেটিভ ক্যানসার সৃষ্টিতে সহায়তা করে। এমনকি আমাদের জীবন রক্ষাকারী ওষুধও ভেজাল থেকে শতভাগ মুক্ত নয়। খেতে ফলানো চালে, ডালেও ভেজাল। ক্রোমিয়াম নামক বিষ পাওয়া যাচ্ছে ওসবে। ক্যালসিয়াম কার্বাইড এবং ইথোফেন ব্যবহার করে আম, কলা, পেঁপে, আনারস, বেদানা, ডালিম, আপেলসহ এমন কোনো ফল নেই যা পাকানো না হয়। আবার ১০০/২০০ মি. গ্রা. বোতলজাত প্রভিট (ইথোফেন) বাজারজাত করা হয় যা সবজির সজীবতা রক্ষা করে। এই প্রকারের কেমিক্যালটি ব্যবহার করে তরিতরকারিকে দীর্ঘস্থায়ী করা হয়- যা বাজারের সবজির মূল্য বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। শুধু ফলমূল, মাছ আর সবজিতেই নয় মিষ্টির দোকান থেকে শুরু করে মুদি দোকানের নিত্যপণ্য আর মনোহারী প্রসাধনীর এমন কোনো বস্তু নেই যাতে কেমিক্যালের সংশ্রব নেই।
মাংসও ভেজালমুক্ত নয়। অধিকাংশই খামারের গরুকে খাওয়ানো হচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত ইউরিয়াসার ও খাবার সোডা। এতে গরু দ্রুত মোটাতাজা হলেও এর মাংস মানুষের শরীরের জন্য ক্ষতিকর। এসব গরুর মাংস খেলে তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া দেখা না দিলেও মানুষের লিভার ও কিডনি ধীরে ধীরে নিষ্ক্রিয় হয়ে যেতে পারে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। সচেতন মহলের অভিযোগ, দেশে ল্যাব পরীক্ষা করার সুযোগ থাকলেও শিশুখাদ্যের অন্যতম উপাদান দুধে ফরমালিন মেশানোর বিষয়টিতে এখনো গুরুত্ব দেয়নি বিএসটিআই। এ ছাড়া সিটি করপোরেশন আমলে না নেওয়ায় নগরীর ছোট-বড় অধিকাংশই দুগ্ধজাত প্রতিষ্ঠানে অবাধে ভেজাল ও বিষাক্ত উপাদানযুক্ত দুধ, চাল, আটা, ডাল, মাছ ও ফলমূলসহ নানা বিষাক্ত খাদ্যপণ্য বিক্রি হচ্ছে। কোনো কোনো বছর রমজানের সময় মোবাইল কোর্ট বসিয়ে ভেজাল এবং নিম্নমানের খাদ্যপণ্য বিক্রেতা ও উৎপাদনকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তবে বিষাক্ত খাদ্যের ছোবল থেকে দেশ বাঁচাতে এখনো সময়োপযোগী কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়নি সরকার। শুধু বাজারই বিষ মেশানো খাদ্যপণ্য বিক্রি হচ্ছে না। নামিদামি হোটেল, চায়নিজ রেস্টুরেন্ট, রেস্তোরাঁ ও ফাস্টফুডের দোকানদাররা এ ধরনের খাদ্য দেদার বিক্রি করছে। আর আমরাও যেনে-শুনে প্রতিনিয়ত বিষ খেয়ে চলেছি। যত অনৈতিকই হোক, যতই বিষাক্ত হোক, মানুষ বেঁচে থাকুক আর মরুক তাতে যায় আসে না এ দেশের মুনাফাখোর ব্যবসায়ীদের কাছে। তা তাদের কোনো বিবেচনার বিষয়ও নয়। মাছ, ফল, সবজি, দুধ, সব কিছুতেই ফরমালিন মিশিয়ে দীর্ঘদিন টাটকাভাব রাখার জন্য যে কৌশল তা সত্যিই খুবই অনৈতিক। মাছ তাজা রাখার জন্য সাধারণত বরফ দেওয়া হয়ে থাকে। এটা বহুকাল ধরে চলে আসছে। বরফ দেওয়া কোনো অপরাধের বিষয় নয়। যেহেতু বরফের চেয়ে ফরমালিনের দাম কম; অল্পতেই কাফি! তাই বরফের বদলে ফরমালিন দিচ্ছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। ফরমালিনের কার্যকারিতা বেশি বলে বরফেও কয়েক ফোঁটা ফরমালিন মিশিয়ে দেওয়া হয় এখন। তাতে ভেজালটা ধরার ক্ষমতা নেই। ভাবা কি যায় নৈতিকতার মান কোথায় নেমেছে! আজকাল নাকি কিছু ঠকবাজ ব্যবসায়ী ফরমালিন মেশানো মাছের ওপর কিছু গুড়, চিনি জাতীয় খাবার ফেলে রাখে। তাতে মাছে মাছি এসে বসে। এসব দেখে ক্রেতা ভাবে মাছ ফরমালিন মুক্ত। এভাবে ক্রেতাদের ধোঁকা দেওয়ার কৌশলও তারা আবিষ্কার করছে। ছি! কী সর্বনাশের কথা! জাতি হিসেবে আমরা কত নিচে নেমে গেছি।
কেমিক্যাল একটি সংরক্ষিত ক্ষতিকর পদার্থ। যা সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে অতি সাবধানতায় বিশেষ বিশেষ কাজে ব্যবহৃত হয়; কিন্তু অধুনা সর্বত্র এর যথেচ্ছ ব্যবহার দেখে মনে হচ্ছে এটা লবণের মতো অতি সস্তা, সহজলভ্য এবং ব্যবহারযোগ্য। আর এসব কেমিক্যাল মিশ্রিত ভেজাল খাবার খাচ্ছি আমরা। রোগ-বালাইও হচ্ছে। শরীরে ক্যানসারের মতো কঠিন ব্যাধি বাসা বাঁধছে। ফরমালিনসহ খাবারে ব্যবহৃত ক্ষতিকারক কেমিক্যাল বিভিন্ন কাজে লাগে। ক্ষেত্র বিশেষ এটা দরকারিও। তাই আমদানি একেবারে নিষিদ্ধ করার উপায় নেই। তবে আমদানি কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। আমদানিকারক ও ক্রেতাদের ওপর নজরদারি রাখতে হবে। ফরমালিন বা অনুরূপ রাসায়নিক দ্রব্যে বিক্রয় ও ব্যবহারে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করতে হবে।
দেশের উন্নয়নে দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গড়ার যেমন বিকল্প নেই। সেই সঙ্গে জরুরি দেশের জনগণকে ভেজালমুক্ত খাদ্য নিশ্চিত করা। আমরা রোগে-শোকে আক্রান্ত দেশ চাই না। চাই সুস্থ-সবল সোনার দেশ। চাই সুস্থ মানুষ। এ জন্য আমাদের সততা, নিষ্ঠা ও জবাবদিহিতার কোনো বিকল্প নেই। আমরা সে দিনের প্রত্যাশায় রইলাম।

লেখক: সাংবাদিক, সমাজ গবেষক


পবিত্র ঈদুল ফিতরের তাৎপর্য, শিক্ষা ও গুরুত্ব

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
 গাজী মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জাবির

মুসলমানদের জীবনে সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর। এই দিনটির তাৎপর্য ও গুরুত্ব অপরিসীম। প্রিয় পাঠক আমি অধম চেষ্টা করব ঈদুল ফিতরের বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করার এবং একজন রোজাদার ব্যক্তির রোজা, ইবাদত-বন্দেগিগুলো পরিশুদ্ধভাবে আল্লাহতায়ালার দরবারে কবুল হওয়ার জন্য সঠিকভাবে তুলে ধরতে- ইনশাআল্লাহ।

ঈদুল ফিতর: ঈদুল ফিতর শব্দটি ‘আওদ’ শব্দমূল থেকে উদ্ভূত। এর আভিধানিক অর্থ হলো ফিরে আসা, প্রত্যাবর্তন করা, বারবার আসা। আর ফিতর শব্দের অর্থ হলো ফাটল, ভেঙে ফেলা, বিদীর্ণ করা। দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর শাওয়ালের চাঁদ দেখার সঙ্গে সঙ্গে রোজা ভেঙে ফেলা হয় বলে এ দিনটিকে ঈদুল ফিতর বলা হয়।

ঈদুল ফিতরের তাৎপর্য ও করণীয়:

মহান আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন: ‘আর যেন তোমরা নির্ধারিত সংখ্যা পূরণ করতে পার এবং তোমাদেরকে যে সুপথ দেখিয়েছেন, তার জন্য তোমরা আল্লাহর মমত্ব-বড়ত্ব প্রকাশ কর এবং তার কৃতজ্ঞ হও।’ (বাকারা-১৮৫)।

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘ঈদুল ফিতরের দিন যখন আসে তখন আল্লাহতায়ালা রোজাদারদের পক্ষে গর্ব করে ফেরেশতাদেরকে বলেন, হে আমার ফেরেশতাগণ তোমরাই বলো রোজাদারদের রোজার বিনিময়ে আজকের এই দিন কি প্রতিদান দেওয়া যেতে পারে? সেই সমস্ত রোজাদার, যারা তাদের দায়িত্ব পুরোপুরি আদায় করেছে, তখন ফেরেশতারা আল্লাহকে বলেন, হে দয়াময় আল্লাহ উপযুক্ত উত্তম প্রতিদান তাদের দান করুন । কারণ তারা দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনা করেছেন, প্রাপ্য পারিশ্রমিক তাদেরকে দান করুন।

তখন আল্লাহতায়ালা রোজাদারদের বলতে থাকেন, ‘হে আমার বান্দা তোমরা যারা যথাযথভাবে রোজা পালন করেছ, তারাবিহর নামাজ পড়েছ, তোমরা তাড়াতাড়ি ঈদগাহ মাঠে ঈদের নামাজ পড়ার জন্য যাও এবং তোমরা তোমাদের প্রতিদান গ্রহণ করো । ঈদের নামাজের শেষে আল্লাহতায়ালা তার বান্দাদের উদ্দেশে বলতে থাকেন, হে আমার প্রিয় বান্দারা আমি আজকের এ দিনে তোমাদের সব পাপ পুণ্যের দ্বারা পরিবর্তন করে দিলাম । অতএব তোমরা নিষ্পাপ হয়ে বাড়িতে ফিরে যাও’। (বায়হাকি ও মিশকাত)

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বলেন: “আল্লাহ এই দুটি দিনের পরিবর্তে অন্য দুটি দিন তোমাদের উৎসব করার জন্য নির্ধারণ করে দিয়েছেন। তার একটি হল ‘ঈদুল ফিতর’, অন্যটি ‘ঈদুল আজহা’। তোমরা পবিত্রতার সঙ্গে এ দুটি উৎসব পালন করবে।’’ (আবু দাউদ ও নাসায়ি)

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: এদিনটিতে তোমরা রোজা রেখো না। এ দিন তোমাদের জন্য আনন্দ-উৎসবের দিন। খাওয়া, পান করা আর পরিবার-পরিজনদের সঙ্গে আনন্দ-উৎসব করার দিন। আল্লাহকে স্মরণ করার দিন (মুসনাদ আহমাদ, ইবনু হিববান)।

রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘ঈদের আনন্দ শুধু তাদের জন্য যারা রমজানের রোজা তারাবিহর নামাজসহ আল্লাহতায়ালার যাবতীয় বিধিবিধান গুরুত্ব সহকারে আদায় করেছে । আর যারা রমজানের রোজা ও তারাবিহ আদায় করেনি তাদের জন্য ঈদের আনন্দ নেই, বরং তাদের জন্য ঈদ তথা আনন্দ অগ্নিশিখা সমতুল্য।’ (বুখারি)।

ঈদের রাতের ফজিলত: হজরত আবু উমামা (রা.) বর্ণনা করেন, নবী (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি দুই ঈদের রাতে আল্লাহর নিকট সাওয়াব প্রাপ্তির নিয়তে ইবাদত করবে তার হৃদয় সে দিনও জীবিত থাকবে, যেদিন সব হৃদয়ের মৃত্যু ঘটবে। (ইবন মাজাহ, হাদিস নম্বর ১৭৮২, আল মুজামুল আওসাত, হাদিস নম্বর-১৫৯)।

মহানবী সা. আরও ইরশাদ করেন ‘যে ব্যক্তি দুই ঈদের রাতে পুণ্যের প্রত্যাশায় ইবাদত-বন্দেগি করে কিয়ামতের দিন সেই ব্যক্তির জন্য রয়েছে মহা পুরস্কার, অর্থাৎ কিয়ামতের দিন অন্যান্য লোকদের অন্তর মরে যাবে, কিন্তু কেবল সেই ব্যক্তির অন্তর জীবিত থাকবে, সে দিনও মরবে না’। (আততারগিব)।

রাসুল সা. ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি পুণ্যময় ৫টি রাতে ইবাদত-বন্দেগি করে সেই ব্যক্তির জন্য সু-সংবাদ রয়েছে, আর সেই সুসংবাদটি হচ্ছে ‘জান্নাত’ এবং পুণ্যময় ৫টি রাত হলো ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহা, শবেবরাত, জিলহজের রাত, আরাফাতের রাত । (বায়হাকি) ।

ঈদের নামাজের সময়সীমা: সূর্য আনুমানিক তিন গজ পরিমাণ ওপরে ওঠার পর অর্থাৎ সূর্যোদয়ের ২৩/২৪ মিনিট পর থেকে দ্বি-প্রহরের পূর্ব পর্যন্ত ঈদের নামাজের ওয়াক্ত। সূর্য তিন গজ পরিমাণ ওপরে ওঠা পর্যন্ত সময়টুকুকে তার উদয়কাল বলে গণ্য করা হয়। এ সময়ে কোনো নামাজ পড়া জায়েজ নেই। ঈদুল ফিতরের নামাজ অপেক্ষাকৃত বিলম্বে এবং ঈদুল আজহার নামাজ আগে আদায় করা উত্তম।

বৃষ্টির কারণে মসজিদে ঈদের নামাজ পড়া জায়েজ কি না। হযরত আবু হুরায়রাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, একবার ঈদের দিনে বৃষ্টি হলো, তখন রাসুল (স.) তাদেরকে নিয়ে মসজিদে ঈদের নামাজ পড়লেন। (আবু দাউদ-১১৬২)। এতে বোঝা যায়, বৃষ্টি বা অন্য কোনো যুক্তিসংগত কারণ থাকলে ঈদের নামাজ মসজিদে পড়া জায়েজ।

নামাজের জন্য ঈদগাহের দিকে রওয়ানা হওয়ার আগে ৩টি, ৫টি এরকম বেজোড় সংখ্যক খেজুর খাওয়া সুন্নত। হজরত আনাস ইবনে মালেক (রা.) বর্ণনা করেন, প্রিয়নবী (সা.) ঈদুল ফিতরের দিন সকালে বেজোড়সংখ্যক খেজুর খেতেন। (আদ-দুরূসুর রামাদানিয়াহ, পৃ. ১৮৫।)

আসুন এক নজরে জেনে নেই ঈদের সুন্নতগুলো:

১। অন্য দিনের তুলনায় আগে আগে ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়া।

২। গোসল করা।

৩। শরিয়তসম্মত সাজসজ্জা গ্রহণ করা।

৪। সুগন্ধি ব্যবহার করা।

৫। ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে মিষ্টি জাতীয় আহার (যেমন খেজুর) গ্রহণ করা।

৬। সকাল সকাল ঈদগাহে যাওয়া।

৭। ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাওয়ার আগে সাদকাতুল ফিতরা আদায় করা।

৮। সম্ভব হলে এক রাস্তা দিয়ে ঈদগাহে যাওয়া এবং অন্য রাস্তা দিয়ে ঈদগাহ থেকে ফিরে আসা।

৯। পায়ে হেঁটে ঈদগাহে যাওয়া।

১০। ঈদগাহে যাওয়ার সময় নিম্নোক্ত তাকবির পাঠ করা:

(আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার লাইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার ওয়ালিল্লাহিল হামদ।)

ঈদের দিনে শুভেচ্ছা বিনিময়: হাফেজ ইবনে হাজার (রহ.) বলেন, ‘যুবাইর ইবনে নফির থেকে বিশুদ্ধ সূত্রে বর্ণিত, রাসূলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সময় সাহাবায়ে কেরাম ঈদের দিন সাক্ষাৎকালে একে অপরকে বলতেন, (তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকুম) অর্থাৎ আল্লাহতায়ালা আমাদের ও আপনার ভালো কাজগুলো কবুল করুন। (ফাতহুল বারী শরহু সহীহিল বুখারি ৬/২৩৯, আসসুনানুল কুবরা লিলবাইহাকী, হাদীস-৬৫২১)।

সাদকায়ে ফিতর আদায়: রমজান মাসের রোজার ভুলত্রুটি দূর করার জন্য ঈদের দিন অভাবী বা দুস্থদের কাছে অর্থ প্রদান করা হয়, যেটিকে ফিতরা বলা হয়ে থাকে। এটি প্রদান করা মুসলমানদের জন্য ওয়াজিব। হাদিসের ভাষ্য অনুযায়ী- ‘তুহরাতুল্লিস সায়িম’ অর্থাৎ এক মাস সিয়াম সাধনায় মুমিনের অনাকাঙ্ক্ষিত ত্রুটি-বিচ্যুতির কাফফারা হলো সাদকায়ে ফিতর।

ঈদের নামাজের পূর্বেই ফিতরা আদায় করার বিধান রয়েছে। তবে ভুলক্রমে নামাজ আদায় হয়ে গেলেও ফিতরা আদায় করার নির্দেশ ইসলামে রয়েছে। সাদাকাতুল ফিতরবিষয়ক হাদিসগুলোতে পাঁচ ধরনের খাদ্যদ্রব্যের উল্লেখ রয়েছে : গম, যব, খেজুর, কিশমিশ, পনির। সাদকায়ে ফিতরের গুরুত্ব সম্পর্কে মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন- ‘নিশ্চয় সাফল্য লাভ করবে সে, যে পরিশুদ্ধ হয় ৷’ (সুরা আলা : আয়াত ১৪)।

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, গোলাম, স্বাধীন, পুরুষ, নারী, ছোট, বড় সব মুসলিমের ওপর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এক ‘সা’ খেজুর, অথবা অর্ধ ‘সা’ গম জাকাতুল ফিতর ফরজ করেছেন এবং (ঈদের) নামাজের আগে তা আদায়ের নির্দেশ দিয়েছেন’ (বুখারি ও মুসলিম)। এবার রাষ্ট্রের পক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন মাথাপিছু ফিতরা ধার্য করেছে সর্বনিম্ন ১১৫ টাকা এবং সর্বোচ্চ ২ হাজার ৯৭০ টাকা।

ঈদুল ফিতরের গুরুত্ব, তাৎপর্য ও শিক্ষা অপরিসীম। প্রত্যেক মুসলমানের জীবনে ধর্মীয় করণীয়গুলো পালনের মাধ্যমে নিজেকে একজন প্রকৃত মুমিন মুসলমান হিসেবে তৈরি করা জরুরি। পরিশেষে কামনা প্রত্যেক রোজাদার ব্যক্তির রোজা, সাহরি, ইফতার, তারাবি, ইবাদত- বন্দেগি, দান-সাদকা মহান আল্লাহতায়ালা কবুল করুন। আমিন। সবাইকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক।।

লেখক : ধর্ম ও সমাজ সচেতন লেখক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান উপস্থাপক ও চেয়ারম্যান, গাউছিয়া ইসলামিক মিশন, কুমিল্লা।


খাদ্যে ভেজাল 

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
খন্দকার হাসানুজ্জামান 

আমরা খুবই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি, বিশেষ করে খাদ্যে, ভেজাল পণ্য ও অস্বাস্থ্যকর খাদ্যে সয়লাব হয়ে গেছে দেশ। অথচ খাদ্যে ভেজাল মেশানো সমাজবহির্ভূত, অনৈতিক ও অত্যন্ত গর্হিত কাজ। ইসলামে এমন অমানবিক কাজ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ও চরমভাবে নিন্দিত। কারণ এতে প্রতারণা-ধোঁকাবাজি, অবৈধ পন্থায় অন্যের অর্থ উপার্জন, ভেজালমিশ্রিত খাদ্য বিক্রয়ের সময় মিথ্যা কথা ও মিথ্যা কসম করা, মানুষকে কষ্ট দেওয়া এবং শারীরিকভাবে অন্যকে ক্ষতিগ্রস্ত করা ইত্যাদি জড়িত থাকে। এতে করে সমাজ ও দেশের সর্বত্র মারাত্মক ঝুঁকিতে বিদ্যমান। সারা দেশে এ গরমের দাপদাহে জীবন অতিষ্ঠ, ত্রাহী ত্রাহী অবস্থা, সর্বত্র সতর্কতা অর্জন করতে হচ্ছে বয়স্ক ও শিশুদের জন্য, বিশেষ করে খাবার ও পানীয়র দরুন ফুড পয়জনিংয়ের রোগীদের অবস্থা বেসামাল, সাধারণত পাতলা পায়খানা ও বমি হলে খাবার স্যালাইন খেতে দেওয়া হয় তা ও সারা দেশে রয়েছে সরবরাহের স্বল্পতা পাশাপাশি রোগীর অবস্থা অনুযায়ী জীবাণুনাশক বা অ্যান্টিবায়োটিক জাতীয় ওষুধ সেবনের ও প্রয়োজন পড়ে। যেহেতু ফুড পয়জনিং জীবাণু দ্বারা সংক্রমিত হয়, সে ক্ষেত্রে অ্যান্টিবায়োটিক ভালো কাজ করে। এ ছাড়া জ্বর থাকলে প্যারাসিটামল সেবন করতে হবে। মোটামুটিভাবে খাদ্যজনিত অসুস্থতা বা খাদ্যবাহিত রোগকে বলা যায় খাদ্যে বিষক্রিয়া। এটি মূলত বিভিন্ন রোগ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া যেমন- E. Coli, Clostridium Botulinum, Bacillus Cereus দ্বারা আক্রান্ত খাদ্য গ্রহণে দেখা যায়। সঠিক তাপমাত্রা, আর্দ্রতা, সময়, অম্লতা, লবণাক্ততায় ব্যাকটেরিয়া দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

খাদ্যে বিষক্রিয়া একটি পরিচিত পেটের সমস্যা। অসাবধানতাবশত কোনো কারণে আমাদের খাবারে জীবাণু আক্রমণ করলে, সেই খাবার খাওয়ার পরে যেই অসুস্থতা দেখা দেয় তাকেই বলে ফুড পয়জনিং। এটি সাধারণত খুব একটা মারাত্মক হয় না, তবে মাঝে মধ্যে এর কারণে মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে, যদিও সচরাচর এক সপ্তাহের মধ্যেই এই ফুড পয়জনিং সমস্যা ভালো হয়ে যায়, তবুও আসন্ন ঈদ ও নববর্ষ উপলক্ষে সারা দেশে যে ব্যাপকভাবে খাবার-দাবারের আয়োজন চলছে সে ক্ষেত্রে সকলেরই উচিত সচেতন হওয়া। হঠাৎ ফুড পয়জনিং বা খাদ্যে বিষক্রিয়া হলে হাতের কাছে যে ঘরোয়া চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে সেই দিকে খেয়াল করা উচিত। যেমন- আদা: কুচি আদার সঙ্গে কয়েক ফোঁটা মধু খেলে তা পেটের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। জিরা: পেট খারাপ, পেটে ব্যথার মতো সমস্যায় এক চা-চামচ জিরা গুঁড়া খেলে সুফল পেতে পারেন। তুলসী: ইনফেকশন সে পেটেরই হোক বা গলার, তা দূর করার জন্য দারুণ উপযোগী তুলসী পাতা। কলা: কলাতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে, যা ফুড পয়জনিং কমাতে সাহায্য করে।

খাদ্যে ভেজাল দেওয়া মানে ক্রেতার সংগে প্রতারণা করা। ইসলামে ধোঁকাবাজি, চালচতুরি ও প্রতারণা ইত্যাদি নিষিদ্ধ। এ প্রসঙ্গে আবু হুরায়রাহ (রা.) বর্ণনা করেন, একবার রাসুল (সা.) বাজারে এক খাদ্যস্তূপের নিকট দিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি খাদ্যস্তূপের ভেতরে হাত প্রবেশ করিয়ে দেখলেন ভেতরের খাদ্যগুলো আর্দ্র-ভেজা। তিনি খাদ্য বিক্রেতার নিকট জানতে চাইলেন, এটি কেমন কথা? সে বলল, বৃষ্টিতে ভিজে গেছে হে আল্লাহর রাসুল! রাসুল (সা.) বললেন, তাহলে তুমি খাদ্যগুলো উপরে রাখোনি কেন, যাতে মানুষ দেখতে পেত। অতপর নবী (সা.) বললেন, ‘যে ব্যক্তি প্রতারণা করবে, সে আমার উম্মত নয়। (মুসলিম, হাদিস নং: ১০২)

খাদ্যে ভেজাল দেওয়ার একটি সহজ অর্থ হলো- সত্যের সঙ্গে মিথ্যার সংমিশ্রণ। ভালোর সঙ্গে মন্দের মিশেল। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘তোমরা সত্যের সঙ্গে অসত্যের মিশ্রণ ঘটাবে না। জেনেশুনে সত্য গোপন করো না।’ (সুরা বাকারা, আয়াত: ৪২)। আমাদের দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা খাদ্যে ভেজাল রোধকল্পে প্রশাসনের সর্বত্র দ্রুত কর্যকর নির্দেশ দিয়েছেন, যাতে খাদ্যে ভেজালকারীদের ধরে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা যায় । তার এ ঘোষণার পর থেকে সারা দেশে কিছুটা কমেছে এই ভেজাল প্রক্রিয়া। তবে আমাদের সর্বত্র আরও বেশি জনসচেতনতা ও এই খাদ্যে ভেজালের ক্ষতিকর দিকের কথা নিয়ে আরও ব্যাপক প্রচারণা আবশ্যক।

লেখক: পরিবেশবিদ ও সমাজকর্মী


উৎসব অর্থ ব্যবস্থাকে গতিশীল করতে পারে

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
রজত রায়

‘যদি আমাকে আপন করে পেয়ে থাকো আজ প্রভাতে সেই পাওয়ার আনন্দকেই যদি তোমাদের প্রকাশ করার ইচ্ছা হয়ে থাকে তাহলেই এই উৎসব স্বার্থক’- রবি ঠাকুরের সেই তুলনাহীন আনন্দের আশাই যে এখন আমাদের বেঁচে থাকার অনুষঙ্গ। উৎসব তো শুধু আনন্দ অনুষ্ঠান বা ক্ষেত্রবিশেষে ধর্মীয় আয়োজন মাত্র নয়, বেশির ভাগ উৎসবের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকে অর্থনীতির প্রশ্নটি। বড় উৎসব অনেক ক্ষেত্রেই বহু মানুষের প্রায় সারা বছরের রোজগারের জোগান দেয়। সারা বিশ্বেই উৎসবের সময় বাড়ি সাজানো হয়, কেনা হয় পোশাক, উপহার হস্তশিল্প, ব্যক্তিগত ও ধর্মীয় জিনিসপত্র। খরচ করা হয় খাওয়া দাওয়া আর বেড়ানোয়। পুষ্ট হয় অর্থনীতিও। বড় উৎসব অর্থনৈতিক জড়তা ভেঙে উত্তরণের একটা কার্যকর মাধ্যম।

প্রাচীনকাল থেকেই বাংলাদেশ পৃথিবীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে আসছে। এ ভূখণ্ডের মানুষের সংগ্রামমুখর জীবন মাথা উঁচু করে বাঁচার দৃঢ় প্রত্যয়, বিশ্বকে সময়ে সময়ে বিস্ময়ে হতবাক করে দিয়েছে। এ জাতি কখনো মাথা নত করেনি কোনো অপশক্তির কাছে। মেনে নেয়নি কোনো লুটেরা, বেনিয়া শাসক শোষক গোষ্ঠীর অবিচার, অত্যাচার, জুলুম। বর্গিরা এখানে হানা দিয়েছে সম্পদ লুণ্ঠনের আশায়, পর্তুগিজ জলদস্যুরা ও এসেছে লুটে নিতে বাংলাদেশের সম্পদ। বাণিজ্য করতে এসে ইংরেজরা বনে গিয়েছিল শাসক। বাংলাদেশের মানুষ সে শাসন-শোষণকে নীরবে মেনে নেয়নি। জ্বলে উঠেছে ক্ষণে ক্ষণে। ইংরেজ বিদায় নিল। নতুন এক শাসকগোষ্ঠী আবির্ভাব হলো বাংলার ওপর; কিন্তু বাংলাদেশ রুখে দাঁড়াল। আর ১৯৭১ সালে বাঙালি কী দুরন্ত সাহসে রুখে দিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে। বাংলাদেশ আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। আমরা গর্বিত কারণ পৃথিবী অবাক হয়ে আমাদের দিকে তাকিয়ে থাকে।

২০০৭ এ শুরু হওয়া বিশ্বজোড়া মন্দার সময়ও নানা উৎসব হয়েছে পৃথিবীতে কাটছাট করেই। ২০২০-এর কোভিডকালে ও উৎসবের মরসুমে ভোগ্যপণ্যের চাহিদা ও বিক্রি অর্থনীতিকে খানিক ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করেছে। কিন্তু কেনাকাটার সার্বিক পরিমাপই কি উৎসবের ঠিকঠাক অর্থনৈতিক সূচক হতে পারে? বিশেষ করে সমাজে অসাম্য যেখানে প্রবল এবং শতাব্দীর ভয়ঙ্করতম অতিমারি যখন সেই অসাম্যকে বাড়াবাড়ি রকমের বাড়িয়ে দিয়েছে? অর্থনৈতিক পুনরুত্থানের রাস্তাটাও এগুচ্ছে অসাম্যের জটিল পথে। তা বড় অর্থনীতিবিদরা তথ্য নিংড়ে দেখাচ্ছেন, কোভিড উত্তর অর্থনীতির পুনরুত্থানের রূপরেখা অনেকটা ইংরেজি ‘কে’ অক্ষরের মতো ব্যক্তির ক্ষেত্রেও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রেও। ‘কে’-র একটা হাত ঊর্ধ্বমুখী এ ক্ষেত্রে যা ধনীদের আরও সম্পদ বৃদ্ধির নির্দেশক। ‘কে’র নিম্নমুখী হাতখানা নির্দেশ করে এক অতল গহবরের দিকে দরিদ্ররা যেখানে তলিয়ে যাচ্ছে আরও। আজ যখন অতিমারি নিয়ন্ত্রণে আন্তর্জাতিক পণ্যমূল্যও বাধন ছাড়া নয়, তখন ধনীরা হাত খুলে খরচ করতেই চাইবেন উৎসবের আমেজ।

মুসলিমদের জন্য ঈদুল ফিতর আনন্দের এক বড় অনুষ্ঠান। ইতোমধ্যেই আসন্ন ঈদুল ফিতর। সবার লক্ষ্য ঈদের নতুন পোশাকসামগ্রী কেনা। ঈদের পোশাকসহ চাহিদা মতো অন্যান্য পণ্যসামগ্রী কেনাকাটা শুরু করেছেন। এতে করে একটু চাঙ্গা হচ্ছে ঈদবাজার। ঈদকেন্দ্রিক উৎসবের বেচাকেনায় অর্থনীতিকে নতুন গতি সঞ্চার হবে বলে আশা করা যায়। ঈদ উৎসবের সঙ্গে অর্থনীতির রয়েছে ব্যাপক সম্পর্ক। ঈদ উৎসবকে ঘিরে অর্থনীতিতে যুক্ত হয় নতুন চাহিদা। আর এ চাহিদার জোগান দিতে প্রয়োজন হয় বাড়তি সরবরাহের। বাড়তি সরবরাহের জন্য প্রয়োজন বাড়তি উৎপাদন। আর অতিরিক্ত উৎপাদন আসে বাড়তি কর্মসংস্থান থেকে। এভাবে ঈদ প্রতি বছর দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল করে।

সম্প্রতি মানুষের জীবনযাত্রার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। কেনায় আার উপহারে ছোট থেকে বড় অনেকেই একাধিক সেট পোশাক পেয়ে থাকে ঈদে। খাবারেও থাকে ঐশ্বর্য। ঈদ কেনাকাটার জন্য বিপুল সম্ভারে আরও আয়োজন থাকে শপিংমলগুলোতে। মানুষের সামর্থ্য বিবেচনায় নানরকম মার্কেট তৈরি হয়েছে দেশজুড়ে। এমন এক অগ্রগতির ধারায় বহমান বাংলাদেশ।

আমরা জানি যে, বাংলাদেশের অর্থনীতির তিনটি বড়খাত হচ্ছে কৃষি, শিল্প এবং সেবা খাত। প্রতিটি খাতের কয়েকটি উপখাত আছে। যেমন কৃষির উপখাত হলো শস্য উৎপাদন, প্রাণিসম্পদ এবং মৎস্যসম্পদ। স্বল্প মেয়াদে এসব উপখাতে উৎপাদন না কমলেও দেশি-বিদেশি অর্থনীতিগুলো অবরুদ্ধ থাকার কারণে প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। সূত্র মোতাবেক প্রতি বছরই নতুন চাহিদার সঙ্গে বাড়ছে ঈদ অর্থনীতি । ঈদকে সামনে রেখে সেজেছে রাজধানীসহ দেশের ছোট বড় সব মার্কেট ও শপিংমল, উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত বা নিম্নবিত্ত সবাই এখন নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী কেনাকাটায় ব্যস্ত। ফলে ঈদে অর্থনীতির চাকা বাড়ছে।

শ্রমশক্তির দেয়া তথ্য মোতাবেক, দেশে মোট কর্মজীবী মানুষের সংখ্যা ৬ কোটি ১০ লাখ। এর মধ্যে ১ কোটি মানুষকে আনুষ্ঠানিক কর্মজীবী মনে করা হয়। বাকিরা সব অনানুষ্ঠানিক খাতে কাজ করেন। জাতীয় পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে সারা দেশে পুরুষ, নারী ও শিশুদের পোশাকের দোকান রয়েছে ২৫ লাখ। এসব দোকানে প্রতিদিন সাধারণত তিন হাজার কোটি টাকার পোশাক বিক্রি হয়। এ বছর কর্মজীবী মানুষ বোনাস পেয়েছেন ১০ থেকে ১২ হাজার কোটি টাকা। এ টাকার সবটুকু খরচ হয়ে যাবে দেশের পোশাকের বাজারে। এ তথ্য প্রমাণ করে যে, এ বছর ২৫ লাখ পোশাকের দোকানে এক মাসের বিক্রয় লব্দ টাকার পরিমাণ দাঁড়াবে ২ থেকে ৩ লাখ কোটি টাকা। শহরে নগরে বন্দরে গ্রামে আর গঞ্জে-সবখানেই অর্থনীতির কারবার। পোশাক থেকে খাবার, সেলুন থেকে পার্লার আর শপিংমল থেকে দর্জিবাড়ি শুধু ব্যস্ততা আর ব্যস্ততা। চারদিকে ঈদের আমেজ ও অর্থের ছড়াছড়ি। বাসে, ট্রেনে লঞ্চে, স্টিমারে, বিমানে, লেগুনাতে-সবখানেই শুধু একটা জিনিসের হাকডাক। আর সেটা হলো অর্থ, অর্থ এবং অর্থ। চারদিকে শুধু ঈদের আমেজ ও অর্থের ছড়াছড়ি।

আমাদের অর্থনীতি চাহিদার ওপরে নির্ভরশীল। মানুষের কেনার ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারলে তবেই অর্থনীতি সামনের দিকে এগিয়ে যাবে। অর্থনীতির দুটো চিত্র পরিলক্ষিত হয়। একটি যা আমরা সাদা চোখে দেখতে পাচ্ছি। আরেকটি বিষয় যা অনেক পজেটিভ খবরের মধ্যে চাপা পড়ে যায়। সেই চাপা পড়া দিকটা হচ্ছে কর্মসংস্থান। আমরা দেখতে পাচ্ছি নন-ফরম্যাল অর্থাৎ অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের অবস্থা বেশি খারাপ অর্থাৎ সংগঠিত নয় প্রাতিষ্ঠানিক বা করপোরেট আকারে নয় যেসব কর্মকাণ্ড তা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সবচেয়ে বেশি, এর মধ্যে খেটে খাওয়া মানুষ, রিকশাওয়ালা, ছোট ছোট দোকানদার, নির্মাণকর্মী, সেলুনকর্মী, ফেরিওয়ালা চানাচুর-মুড়ি বিক্রেতা, ভ্যানচালক, সবজি বিক্রেতা, দৈনিক শ্রমবিক্রির শ্রমিক, স্বনিয়োজিত লোকজন ইত্যাদি পেশার লোক। এরাই সংখ্যায় কোটি কোটি। আর রয়েছে কর্মহীন, চাকরিহীন, ব্যবসাহীন ব্যক্তি। এদের মধ্যে প্রাণসঞ্চার না হলে অর্থনীতির গতি ফিরে আসবে না। অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় খরচ করার ক্ষেত্রে এখন মানুষ খুব সাবধান। অতি প্রয়োজনীয় জিনিস ছাড়া এখন মানুষ অন্য কিছু কিনতে চাচ্ছে না। বাংলাদেশের অর্থনীতির একটি বড় শক্তি হচ্ছে ভোক্তা ব্যয়। অর্থাৎ বিভিন্ন খাতে মানুষ যে টাকা খরচ করে সেটার ওপর নির্ভর করে শিল্পপ্রতিষ্ঠানও টিকে আছে। এই ব্যয়ের ওপর নির্ভরশীল যারা আছেন, ছোট উৎপাদক থেকে শুরু করে শিল্প খাতে এবং সেবা খাতে সবাই বিক্রির সংকটে পড়বে। বাঙালি আমোদে এবং অতিথিপরায়ন জাতি। একজন মানুষের সঙ্গে পরিচয় হলে বা বন্ধুত্ব হলে একটা হোটেল গিয়ে খাওয়া-দাওয়া করা, রিকশায় চড়ে ঘুরে বেড়ানো বা উৎসবে কাপড়-চোপড় কেনা, প্রসাধনী কেনা, বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত স্থানগুলো ঘুরে বেড়ানো-এই রকম বিভিন্ন ধরনের ব্যয় যে মানুষ করে, সেই সকল ব্যয়গুলো সব সময়ই করে।

অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ আরেকটি খাতের নাম হলো রেমিট্যান্স। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিকসংখ্যা প্রায় এক কোটি। প্রতিটি ঈদে তারা ঈদ অর্থনীতিতে বিপুল অংকের টাকা জোগান দিয়ে থাকে। মার্চ মাসে স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় রেমিট্যান্স খুব বেশি আসেনি। মার্চ মাসের ২৯ দিনে বৈধ বা ব্যাংকিং চ্যানেলে ১৮১ কোটি ৫১ লাখ মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স এসেছে। বাজার চাঙ্গা হতে পারে চাহিদা থাকলে অর্থাৎ পণ্যের ‘ডিমান্ড’ থাকলে। পণ্যের চাহিদা সৃষ্টির জন্য দরকার ক্রয়ক্ষমতা। এটা নেই সিংহভাগ মানুষের। উৎসবে ভ্রমনও হতে পারে নতুন উদ্যম। সম্পন্নদের এই খরচ কিন্তু অর্থনীতিকে সমৃদ্ধই করবে। তাদের কেনাকাটা, রেস্তোরাঁয় খাওয়া, বেড়ানো এসবের ফলে অর্থনীতি ফুলেফেপে উপকৃত হবে দরিদ্রের অর্থনীতিও।

ঈদ তথা উৎসবের অর্থনীতি দেশের মোট জাতীয় উৎপাদনের জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে একটা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখে আসছে। এবারও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না যদিও এর পরিমাণগত দিকটি নির্ণয় করা কঠিন। সরকারি নীতি-পরিকল্পনা ও নীতি নির্ধারণী বিভাগের গবেষণা শাখা থেকে এ নিয়ে কাজ হতে পারে। বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠানও কাজ করতে পারে। এর মধ্যে থেকে উৎসবের অর্থনীতির একটি তথ্য উপাত্তভিত্তিক বড় ছবি বেরিয়ে আসতে পারে যা আবার ব্যবহৃত হতে পারে উৎসবের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে নীতি সহায়তা জোরদার করায়।

লেখক: অর্থনীতি বিশ্লেষক


বাংলাদেশের পর্যটনশিল্পের বহুমাত্রিকতা ও সম্ভাবনা

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বদরুজ্জামান ভূঁইয়া

সারা বিশ্বে পর্যটনশিল্প একটি অন্যতম প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড হিসেবে সুপরিচিত। পর্যটনশিল্প বর্তমান বিশ্বের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে প্রধান হাতিয়ার হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। পর্যটনশিল্পে বিশ্বের বুকে এক অপার সম্ভাবনার নাম বাংলাদেশ। এই দেশের প্রাকৃতিক রূপবৈচিত্র্য পৃথিবীর অন্যান্য দেশ থেকে অনন্য ও একক বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত। পর্যটন বিকাশে বাংলাদেশের রয়েছে অপার সম্ভাবনা।

পর্যটনশিল্প পৃথিবীর একক বৃহত্তমশিল্প হিসেবে স্বীকৃত। পর্যটনের গুরুত্ব সার্বজনীন। পৃথিবীর প্রায় সব দেশে পর্যটন এখন অন্যতম প্রধান অগ্রাধিকার খাত। ১৯৫০ সালে পৃথিবীতে পর্যটকের সংখ্যা ছিল মাত্র ২৫ মিলিয়ন যা ২০১৬ সালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১২৩৫ মিলিয়নে। ধারণা করা হচ্ছে- এই বছর প্রায় ১৩৯ কোটি ৫৬ লাখ ৬০ হাজার পর্যটন সারা পৃথিবীতে ভ্রমণ করবে। বিগত ৬৭ বছরে পর্যটকের সংখ্যা প্রায় ৫০ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। পর্যটকের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের পরিধি ব্যাপকতা লাভ করেছে। পর্যটনের মধ্যে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন সাধিত হয়ে থাকে।

বিশ্বে পর্যটন সংস্থার সূত্র অনুযায়ী, ২০২৩ সালে বিশ্ব অর্থনীতিতে পর্যটন শিল্পের অবদান ৮.৯ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং জিডিপিতে অবদান ১০ দশমিক ৩ শতাংশ। এ খাতে বিশ্বজুড়ে প্রায় ৩০০ মিলিয়ন মানুষ কর্মরত। বিশ্ব ভ্রমণ ও পর্যটন কাউন্সিলের (ডব্লিউটিটিসি) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পর্যটন খাত যেভাবে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে, তাতে ২০৩৩ সালের মধ্যে বৈশ্বিক পর্যটন খাতের আকার দাঁড়াবে ১৫ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন বা ১৫ লাখ ৫০ হাজার কোটি ডলার। বৈশ্বিক অর্থনীতিতে এ খাতের হিস্যাও স্বাভাবিকভাবে বাড়বে। তখন এ খাতের হিস্যা দাঁড়াবে ১১ দশমিক ৫ শতাংশ।

সারা বিশ্বের তুলনায় বাংলাদেশ এই শিল্পে কিছুটা পিছিয়ে রয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের জিডিপির প্রায় ২ শতাংশ আসে পর্যটন খাত থেকে। তাছাড়া সঠিক তথ্য উপাত্ত না পাওয়া গেলেও ধারণা করা হয় গত বছর বাংলাদেশে প্রায় ৫ লক্ষ বিদেশি পর্যটক ভ্রমণ করে। একই বছর প্রায় ৪ কোটি দেশীয় পর্যটক সারা বাংলাদেশ ঘুরে বেড়ায়। ধারণা করা হচ্ছে, ২০২৪ সালে বাংলাদেশের মোট কর্মসংস্থানের ১ দশমিক ৯ শতাংশ হবে পর্যটনশিল্পের অবদান। পর্যটনশিল্পের অপার সম্ভাবনা কাজে লাগাতে পারলে বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ার রোল মডেল।

অপূর্ব সৌন্দর্যের আধাঁর বাংলাদেশ যার প্রাকৃতিক রূপ বৈচিত্রের কোনো অভাব নেই। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন, পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার, পার্বত্য চট্টগ্রামের অকৃত্রিম সৌন্দর্য, সিলেটের সবুজ অরণ্যসহ আরো অনেক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে লীলাভূমি আমাদের বাংলাদেশ। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত পৃথিবীর একমাত্র দীর্ঘতম অবিচ্ছিন্ন সমুদ্রসৈকত, যা আর পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই। ১২০ কিলোমিটার দীর্ঘ সৈকতটিতে কাদার অস্তিত্ব পাওয়া যায় না। তাইতো পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সমুদ্র সৈকতের চেয়ে কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকত বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ এবং এর রয়েছে অপার সম্ভাবনা। বর্তমানে কক্সবাজারকে কেন্দ্র করে নেওয়া হচ্ছে নানা পরিকল্পনা। সম্প্রতি কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত সাগরের পাড় বেঁধে ৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেরিন ড্রাইভ নির্মাণ দেশি-বিদেশি পর্যটকদের কাছে পর্যটন নগরী কক্সবাজারের আকর্ষণ আরো বাড়িয়ে দিবে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে পর্যটক আকর্ষণে কক্সবাজারে তিনটি পর্যটন পার্ক তৈরির পরিকল্পনা করেছে বর্তমান সরকার। প্রতিবছরে এতে বাড়তি ২শ কোটি মার্কিন ডলারের অর্থনৈতিক কার্যক্রমের সুযোগ সৃষ্টি হবে। এই তিনটি ট্যুরিজম পার্ক হলো সাবরাং ট্যুরিজম পার্ক, নাফ ট্যুরিজম পার্ক এবং সোনাদিয়া ইকো ট্যুরিজম পার্ক।

সুন্দরবন পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনভূমি। এর মোট বনভূমির ৬০ শতাংশ অর্থ্যাৎ ৬,০১৭ বর্গকিলোমিটার রয়েছে বাংলাদেশে এবং বাকি অংশ রয়েছে ভারতের মধ্যে। সুন্দরবন ১৯৯৭ খ্রিষ্টাব্দে ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সম্পদের সাথে সাথে এই বনের জীববৈচিত্র্য এটিকে পৃথিবীর অন্য যে কোন পর্যটন কেন্দ্র থেকে স্বতন্ত্র রূপে উপস্থাপন করেছে। সুন্দরবনকে জালের মত জড়িয়ে রয়েছে সামুদ্রিক স্রোতধারা, খাল, শত শাখা নদী, চর এবং ম্যানগ্রোভ বনভূমির লবণাক্ততাসহ ক্ষুদ্রায়তন দ্বীপমালা। সুন্দরবনের সাথে যেই বিষয়টি নিবিড়ভাবে জড়িত তা হল বিখ্যাত রয়েল বেঙ্গল টাইগার। বনভূমিটিতে রয়েল বেঙ্গল টাইগার ছাড়াও নানান ধরণের পাখি, চিত্রা হরিণ, কুমির, ডলফিন ও সাপসহ অসংখ্য প্রজাতির প্রাণীর আবাসস্থল হিসেবে পরিচিত।

পর্যটনের অপার সম্ভাবনার নাম বাংলাদেশের পার্বত্য অঞ্চল যা পার্বত্য চট্টগ্রাম নামে অধিক পরিচিত। পার্বত্য চট্টগ্রাম মূলত তিনটি জেলা নিয়ে গঠিত। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের একটি এলাকা, যা তিনটি জেলা, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, ও বান্দরবন নিয়ে গঠিত। পার্বত্য চট্টগ্রামে পর্যটনের মূল উপকরণ হল পাহাড়ে ঘেরা সবুজ প্রকৃতি যা ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন রূপে পর্যটকদের কাছে ধরা দেয়। এটি যেন ক্ষণে ক্ষণে প্রকৃতির রূপ বদলানোর খেলা। এখানে শীতে যেমন এক রূপে ধরা দেয় ভ্রমণ পিপাসুদের কাছে, ঠিক তেমনি বর্ষায় অন্য এক রূপে হাজির হয়। শীতে পাহাড় কুয়াশা আর মেঘের চাদরে যেমন ঢাকা থাকে, তার সাথে থাকে সোনালী রোদের মিষ্টি আভা। আবার বর্ষায় চারদিক জেগে উঠে সবুজের সমারহ। এই সময় প্রকৃতি ফিরে পায় তার নতুন যৌবন। বর্ষায় মূলত অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিস্টদের পদচারণা সবচেয়ে বেশি থাকে এই পার্বত্য অঞ্চলে। তখন এখানে ঝর্ণা, ঝিরি কিংবা নদীপথগুলো নতুন রূপে সেজে উঠে, যা দেখার জন্য অসংখ্য পর্যটক এইখানে ভিড় করে। এর সাথে আছে পাহাড়ের মানুষের ভিন্নধর্মী জীবনাচরণ, যা আমাদের চেয়ে অনেকটা আলাদা।

নৈসর্গিক সৌন্ধর্য্যে ভরপুর বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চল। এই শহরে রয়েছে উপমহাদেশের সর্বপ্রথম ও সর্ববৃহৎ চা বাগান মালনীছড়া। এ অঞ্চলে আসা পর্যটকদের মন জুড়ায় সৌন্ধর্যের রানী খ্যাত জাফলং, নীলনদ খ্যাত স্বচ্ছ জলরাশির লালাখাল, পাথর জলের মিতালিতে বয়ে যাওয়া বিছনাকান্দির নয়নাভিরাম সৌন্দর্য, পাহাড় ভেদ করে নেমে আসা পাংথুমাই ঝর্ণা, সোয়াম্প ফরেস্ট রাতারগুল, ‘মিনি কক্সবাজার’ হাকালুকি এবং কানাইঘাটের লোভাছড়ার সৌন্দর্য।

বাংলাদেশের হাওরাঞ্চল পর্যটনের আরেক সম্ভাবনার নাম। বাংলাদেশের জেলাগুলোর মধ্যে সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা, সিলেট, কিশোরগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া এই সাতটি জেলার ৭ লাখ ৮৪ হাজার হেক্টর জলাভূমিতে ৪২৩টি হাওর নিয়ে হাওরাঞ্চল গঠিত। হাওরাঞ্চলের সাগরসদৃশ বিস্তীর্ণ জলরাশির এক অপরূপ মহিমায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে রয়েছে। হাওরের সৌন্দর্য উপভোগ করতে পর্যটকরা নৌকায় বসে বিস্তীর্ণ নীল জলরাশির মায়ায় ভেসে বেড়াতে পারে। হাওরের কোলঘেঁষে থাকা সীমান্ত নদী, পাহাড়, পাহাড়ি ঝর্ণা, হাওর-বাঁওড়ের হিজল, করচ, নলখাগরা বনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, নানান প্রজাতির বনজ, জলজপ্রাণী আর হাওর পাড়ের বসবাসকারী মানুষের জীবন-জীবিকার নৈসর্গিক সৌন্দর্যে মুগ্ধ হওয়ার মতো খোরাক মিলবে পর্যটক ও দর্শনার্থীদের।

বাংলাদেশে পর্যটনশিল্পের অপার সম্ভাবনা বিরাজমান; কিন্তু এই বিশাল সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও সঠিক পরিকল্পনার অভাবে আমরা পর্যটনশিল্পে পিছিয়ে আছি। এই শিল্পের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন সমন্বিত পরিকল্পনা। পর্যটনশিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত সব পক্ষকে নিয়ে একসঙ্গে কাজ করে যেতে হবে। দেশীয় পর্যটন বিকাশের পাশাপাশি বিদেশি পর্যটক আকর্ষণে প্রচার-প্রচারণার ওপর গুরুত্বারোপ করতে হবে। পাশাপাশি এই শিল্পের উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। সঠিক কর্মপরিকল্পনার বাস্তবায়ন করা গেলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে পর্যটনশিল্প অন্যতম ভূমিকা পালন করতে পারবে।

লেখক: উপাচার্য

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

সাবেক চেয়ারম্যান

ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।


জলবায়ু পরিবর্তনে ধানের নতুন নতুন আপদ-বিপদ

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
সমীরণ বিশ্বাস

১৮°C থেকে ৩৪°C-এর মধ্যে তাপমাত্রা ধানের ফলনের জন্য উত্তম! ধানের থোড় অবস্থায় ১৮°C এবং ধানের ফুল অবস্থায় ২০°C-এর নিচে তাপমাত্রা চলে গেলে; থোড়ের ভিতর ভ্রূণের গর্ভপাত হতে পারে। ফলে ধানের থোড় থেকে ফুল বের হওয়ার পরপরই সাদা মরা অপরিপক্ব মঞ্জুরি দেখা যায়!

ঠিক একই ভাবে ফুল ফোটার সময় যদি তাপমাত্রা ২০°C-এর নিচে নেমে যায় তা হলেও ধানের ফুল বা মঞ্জুরি সাদা হয়ে মরে যেতে পারে। ধানের থোড় বা ফুল অবস্থায় তাপমাত্রা যদি ৩৪°C-এর বেশি চলে যায় তা হলেও ধান চিটা হয়ে যেতে পারে।

এ ছাড়া অনাকাঙ্ক্ষিত ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ধানের থোড় ও ফুল অবস্থায় আঘাতজনিত ইনজুরির কারণেও ধান সাদা চিটা হয়ে যেতে পারে। অর্থাৎ কোল্ড ইনজুরি বা হিট ইনজুরির কারণেও ধানের থোড়ের মধ্যে ভ্রূণের গর্ভপাত হয়ে ছড়ার আংশিক সাদা হয়ে মরা বের হতে পারে। এসব ক্ষেত্রে ধান খেতে কোনো ওষুধ দিয়ে লাভ নেই ।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে অনাকাঙ্ক্ষিত ঝড়ঝঞ্ঝা- শিলাবৃষ্টি, অসময়ে অতি শীত- অতি গরম ধানচাষে নতুন করে কৃষকদের নতুন-নতুন সমস্যা, চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে।

কৃষকভাইদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ:

ধানের জন্য অসহনীয় তাপমাত্রা হলো ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার বেশি। ফুল ফোটার সময় যদি এই ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ধানের জমিতে এক দুই ঘণ্টা বিরাজ করলে মাত্রাতিরিক্ত চিটা হয়ে যাবে। মার্চ মাসের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত দিনের বেলায় তাপমাত্রা প্রায়ই ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার চেয়ে বেড়ে যেতে পারে।

কৃষকভাইদের করণীয়:

১. উন্নত ও প্রতিরোধী জাত লাগানো ২. রোগমুক্ত বীজ বপন। ৩. সুষম সার ও সেচ ব্যবস্থাপনা। ৪. ধানের থোড় ও ফুল অবস্থায় খেতে পানি নিশ্চিত করা বা রাখা। ৫. জমিতে সর্বদা পানি রাখুন। ৬. গর্ভাবস্থা থেকে দুধ অবস্থা পর্যন্ত ২২ থেকে ২৫ দিন জমিতে ২ থেকে ৩ ইঞ্চি পানি ধরে রাখুন। ৩/এমওপি সার ১০ লিটার পানিতে ১০০ গ্রাম মিশিয়ে ৫ শতাংশ হিসেবে জমিতে স্প্রে করুন অথবা বিঘাপ্রতি ৫ কেজি এমওপি সার প্রয়োগ করুন। ৭. ধানের ফুল অবস্থায় স্প্রে করার প্রয়োজন হলে অবশ্যই পড়ন্ত বিকেলে বালাইনাশক স্প্রে করুন। ৮. সাধারণত সকাল ৭টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ধানের পরাগায়ন ঘটে। এই অবস্থায় স্প্রে করলে পরাগায়নের সমস্যা হয় এবং ধানের চিটা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সেই জন্য বিকেল বেলায় স্প্রে করতে হবে।

লেখক: কৃষি ও পরিবেশ বিশেষজ্ঞ


banner close