শুক্রবার, আগস্ট ১২, ২০২২

ঢাবি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ ছাত্রদল সংঘর্ষ, ৩০ নেতাকর্মী আহত

ঢাবি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ ছাত্রদল সংঘর্ষ, ৩০ নেতাকর্মী আহত
ছাত্রদলের এক নেতাকে পেটাচ্ছেন ছাত্রলীগ কর্মীরা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • তিন ছাত্রদল কর্মীকে আটক করেছে শাহবাগ থানা পুলিশ

  • ক্যাম্পাস এলাকায় ছাত্রলীগের দিনভর মহড়া

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পূর্বঘোষিত দলীয় কর্মসূচী পালন করতে গিয়ে ছাত্রলীগের হামলার শিকার হয়েছেন ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। কয়েক দফা সংঘর্ষে ছাত্রদলের অন্তত ৩০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে আট জন গুরুতর আহত হয়েছেন। রড, লাঠিসোটা, স্ট্যাম্প ও দেশীয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালানো হয়েছে বলে ছাত্রদল নেতারা অভিযোগ করেছেন। তবে হামলার ঘটনা অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ।

 
মঙ্গলবার (২৪ মে) কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও দোয়েল চত্বর এলাকায় এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি রাশেদ ইকবাল খান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আফসান মোহাম্মদ ইয়াহিয়া, সদ্য সাবেক সহ সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক এনামুল হক এনাম, ইজাজুল কবির রুয়েল, হাসান আল আরিফ, আহবায়ক সদস্য, নাহিদুজ্জামান শিপন, মানসুরা আলম গুরুতর আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে ছাত্রদলের জাহিদ, রফিকুল ইসলাম ও কামরুল নামে তিন ছাত্রদল কর্মীকে আটক করেছে শাহবাগ থানা পুলিশ। তবে এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি বলে জানিয়েছে শাহবাগ থানা পুলিশ। 

গত রবিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এক প্রতিবাদ সমাবেশে ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েলের এক বক্তব্যের সূত্র ধরে এই মারধরের ঘটনা ঘটেছে। ওই সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেন তিনি। ওই বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে রবিবার সন্ধ্যায় টিএসসিতে আতিক মোর্শেদ নামে এক ছাত্রদল কর্মীকে মারধর করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সাইফ মাহমুদ জুয়েলসহ ছাত্রদল নেতাকর্মীদেরকে ক্যাম্পাসে প্রতিহতের ঘোষণা দেন তারা। এরই সূত্র ধরে মঙ্গলবার এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সারাদেশে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ওপর অব্যাহত হামলার প্রতিবাদ ও সাইফ মাহমুদ জুয়েলের বক্তব্যের ব্যাখা দিতে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে দশটায় ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতিতে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ছাত্রদল। অন্যদিকে, ছাত্রদলের কর্মসূচী বানচাল করতে সকাল থেকেই টিএসসি, মধুর ক্যান্টিন ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকাসহ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্টে লাঠিসোটা, রড নিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা অবস্থান নেয়। পরে সকাল সাড়ে নয়টার দিকে কর্মসূচীতে অংশ নিতে মিছিল নিয়ে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসে আসার পথে শহীদ মিনার এলাকায় তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। এতে ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আফসান মোহাম্মদ ইয়াহিয়া মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন, ছাত্রদলের সদ্য সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেনের দুই হাত ভেঙেছে। আহতরা ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়। পরবর্তীতে তাদেরকে সেখান থেকে সরিয়ে দুটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

পরে বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহবায়ক আক্তার হোসেন ও সদস্য সচিব আমানউল্লাহ আমানের নেতৃত্বে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সামনে থেকে মিছিল বের করে। মিছিলটি শহীদুল্লাহ হলের সামনে পৌঁছালে ফের সংঘর্ষ শুরু হয়। এসময় শহীদুল্লাহ হলের ড্রেনের মধ্যে ফেলে এক ছাত্রদল কর্মীকে পেটাতে দেখা যায়। পরে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা ধাওয়া দিলে পিছু হটে ছাত্রলীগ। এরপর ছাত্রদল দোয়েল চত্বর ও ছাত্রলীগ মোকাররম ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে ইট পাটকেল ছুড়তে থাকে। পরে ছাত্রলীগ সংগঠিত হয়ে ধাওয়া দিলে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। পরে দিনব্যাপী ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্টে লাঠিসোটা ও রড নিয়ে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। দফায় দফায় বাইক মহড়াও দিতে দেখা যায়।

হামলার বিষয়ে ছাত্রদলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সদস্য সচিব আমানউল্লাহ আমান দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘আমাদের পূর্বঘোষিত কর্মসূচী পালন করতে গেলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আমাদের ওপর সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে। এমনকি আমাদের নারী নেত্রীদেরকেও হেনস্তা করেছে। এতে আমাদের ৩০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে যার মধ্যে আট জনের অবস্থা গুরুতর। ক্যাম্পাসে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মাঝে ছাত্রদলের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাওয়ায় মেনে নিতে না পেওে ছাত্রলীগ এই হামলা চালিয়েছে। ছাত্রলীগ যে একটা সন্ত্রাসী সংগঠন এই হামলার মাধ্যমে তা আরও একবার প্রমাণ হলো।’

সাধারণ শিক্ষার্থীরাই অছাত্রদের প্রতিহত করেছে জানিয়ে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘কোনো অছাত্র ও সন্ত্রাসীদের স্থান ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে হবে না। ছাত্রদল ক্যাম্পাসে স্বাভাবিক পরিবেশ বিঘ্নিত করতে চায়। একারণেই সাধারণ শিক্ষার্থীরাই তাদেরকে প্রতিহত করেছে। কোনো হামলা চালানো হয় নি।’



আওয়ামী লীগ যতদিন, দুর্ভোগ ততদিন: ফখরুল

আওয়ামী লীগ যতদিন, দুর্ভোগ ততদিন: ফখরুল
সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

বর্তমান সরকার রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যর্থ মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ যতদিন ক্ষমতায় থাকবে, ততদিন জনগণের দুর্ভোগ থাকবে।

আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর বনানীতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন ফখরুল। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর ৫৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বনানী কবরস্থানে কোকোর কবর জিয়ারত করতে গিয়েছিলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, এ সরকার যতদিন ক্ষমতায় থাকবে, মানুষের দুর্ভোগও বাড়বে। জ্বালানি ও পানিসহ সবকিছুর দাম বেড়েছে। সরকারের দুর্নীতি এখন আকাশচুম্বী। এই সরকার এরই মধ্যে রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যর্থ হয়েছে।

বিএনপিকে রাজপথে মোকাবিলা করা হবে- সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্য নিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তারা সবসময় পুরোনো বক্তব্যই দিয়ে যাচ্ছে। রাজপথে পরাজিত হয়েছে আওয়ামী লীগ। আগামী দিনেও জনগণের আন্দোলনে পরাজিত হবে। 

মির্জা ফখরুলের সঙ্গে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, উত্তরের আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, সদস্যসচিব আমিনুল হক, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর প্রমুখ।


জয়-লেখকের বিরুদ্ধে পদ বাণিজ্যের অভিযোগ

জয়-লেখকের বিরুদ্ধে পদ বাণিজ্যের অভিযোগ
ছবি: সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করে কমিটির কলেবর বাড়াতে পদ দেওয়া হয়েছে।
  • গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সংখ্যা ৩০১।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ‍ ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে পদ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। তাঁরা অর্থের বিনিময়ে অন্তত পাঁচ থেকে আট শ জনকে পদ দিয়েছেন বলে খোদ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা অভিযোগ করেছেন।

ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা বলছেন, গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করে কমিটির কলেবর বাড়াতে পদ দেওয়া হয়েছে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে এখন কতজন সদস্য আছেন তা স্বয়ং সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকও বলতে পারবেন না। গত ৩১ জুলাই সহসভাপতি, সহসম্পাদক, বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক উপসম্পাদক ও সদস্য পদ দিয়ে অনেককে চিঠি দেওয়া হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক ছাত্রলীগ নেতা বলেন, কমিটির মেয়াদের শেষ দিকে এসে বঞ্চিতদের পদ দেওয়া একটা রেওয়াজ। কিন্তু এবার যা হয়েছে, তা ন্যাক্কারজনক।

কতজনকে পদ দেওয়া হয়েছে তা জানতে চাইলে সঠিক সংখ্যা জানাতে পারেননি লেখক ভট্টাচার্য। বলেছেন, সংখ্যাটা তালিকা দেখে বলতে হবে।

পদ বাণিজ্যের অভিযোগ অস্বীকার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ‘বিগত কমিটিগুলোও আকারের বাইরে অনেককে পদ দিয়েছে। এটা ছাত্রলীগে দীঘদিনের প্র্যাকটিস। তবে সবাইকে কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ দেওয়া সম্ভব হয় না। বাদ পড়াদের বিভিন্ন কমিটিতে পদায়নের চেষ্টা করা হয়। তারপরও যারা বাকি আছেন তাদের রাজনৈতিক স্বীকৃতি দেওয়ার জন্যই এসব পদ দেওয়া হয়েছে।’

গত ৩১ জুলাই কতজনকে পদ দেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে সঠিক সংখ্যা জানাতে পারেননি লেখক ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, ‘সেটা তালিকা দেখে বলতে হবে।’ আর আল নাহিয়ান খানের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

ছাত্রলীগের দেখভালের দায়িত্বপ্রাপ্ত চার নেতার একজন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান। কমিটির সদস্য সংখ্যার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কোনোভাবেই ৩০১ জনের বেশি সদস্য ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে থাকতে পারে না।’ 

২০২১ সালে শেষ হয় জয়-লেখক নেতৃত্বাধীন কমিটির মেয়াদ। সে সময়ও সম্মেলনের উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

২০১৮ মে মাসে সম্মেলন হলেও জুলাইয়ে রেজওয়ানুল হক চৌধুরীকে সভাপতি ও গোলাম রাব্বনীকে সাধারণ সম্পাদক করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। এরপর ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে তারা দুজনই পদ হারান। তাদের জায়গায় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জয়-লেখককে দায়িত্ব দেওয়া হয়। পরে ২০২০ সালের ৪ জানুয়ারি ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তাদের ‘ভারমুক্ত’ করা হয় এবং মেয়াদের বাকি সময় দায়িত্ব চালিয়ে যেতে বলা হয়।

২০২১ সালে শেষ হয় জয়-লেখক নেতৃত্বাধীন কমিটির মেয়াদ। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে তখন সম্মেলন হয়নি। কিছুদিন পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে রাজনৈতিক কার্যক্রম শুরু হয়। সে সময়ও সম্মেলনের উদ্যোগ নেননি জয়-লেখক। এ অবস্থায় সম্মেলনের দাবি ওঠে ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায় থেকে।

দাবির পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরের মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে ছাত্রলীগকে দ্রুত সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা নির্দেশ দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এরপরও সম্মেলনের তারিখ নিয়ে টালবাহানা শুরু করেন তারা।


হাত খরচের টাকা না পেয়ে লেগুনা ভাঙচুরের অভিযোগ ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে

হাত খরচের টাকা না পেয়ে লেগুনা ভাঙচুরের অভিযোগ ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে
ভাঙচুরের শিকার লেগুনা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • গত এক সপ্তাহে সাতটি লেগুনা ভাঙচুরের অভিযোগ

  • ঝামেলা মিঠিয়ে দেওয়ার নামে গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ ছাত্রলীগেরও চাঁদা দাবি

হাত খরচের জন্য মাসে দেড় লাখ টাকা চেয়ে না পাওয়ায় লেগুনা ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যার এ এফ রহমান হল ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে গত এক সপ্তাহে তিন দফায় সাতটি লেগুনা ভাঙচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে লেগুনা মালিক সমিতির এক সদস্য।

অভিযোগ উঠেছে, গত এক সপ্তায় কয়েক দফায় সাতটি লেগুনা ভাঙচুর, চালকদের মারধর এবং নীলক্ষেত স্ট্যান্ডে লেগুনা দাঁড়াতে দেননি ছাত্রলীগের নেতারা। সর্বশেষ শুক্রবার বিকেলে ১০-১২ তরুণ লাঠিসোঁটা নিয়ে চারটি লেগুনায় ভাঙচুর চালান এবং চালকদের মারধর করে তাদের সঙ্গে থাকা নগদ টাকা নিয়ে চলে যান বলে দাবি ব্যবসায়ীদের। নীলক্ষেত থেকে এসব লেগুনা মূলত চকবাজার, খোলামোড়া এবং গুলিস্তান যায়।

লেগুনা মালিক সমিতির এক সদস্য অভিযোগ করেছেন, ‘১০-১২ দিন আগে সন্ধ্যায় এ এফ রহমান হল ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মোনেম শাহরিয়ার মুন হলের পাশে একটি চায়ের দোকানে লেগুনা মালিক সমিতির কয়েকজন নেতাকে চায়ের দাওয়াত দেন। এ দিনই মূলত তারা দেড় লাখ টাকা হাত খরচ দাবি করেন। ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মালিক সমিতির সদস্য রফিক। নীলক্ষেত থেকে চকবাজার রোডে তার দুটি লেগুনা রয়েছে।

 

তিনি বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে বসার পর হল ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমরা এখন নতুন কমিটি পাইছি। আমাদের কিছু হাত খরচ দিয়েন। এরপর আমাদের একজন বলেন, কত দিতে হবে ভেঙে বলেন। তখন রিয়াজ ভাই বলেন, দেড় লাখ টাকা দিয়েন। এই কথা শুনে আমাদের সবাই উঠে চলে আসছি। তাদের প্রোগ্রাম থাকায় তারাও চলে যায়। এই ঘটনার চার-পাঁচ দিন তাদের সঙ্গে আর যোগাযোগ হয়নি। তারাও কোনো ঝামেলা করেনি। কিন্তু চার-পাঁচদিন যেতে না যেতেই তারা গাড়ি ভাঙচুর এবং চালকদের মারধর করা শুরু করেন। স্ট্যান্ডে কোনো গাড়িই তারা রাখতে দেন না।’

অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘সর্বশেষ গত ২৫ তারিখ রিয়াজ ভাই আমাকে ফোন দিয়ে তাদের সঙ্গে বসতে বলেন। বৃহস্পতিবার তাদের সঙ্গে বসার কথা ছিল। কিন্তু মালিকপক্ষ না বসায় তারা শুক্রবার ফের ভাঙচুর চালান। গত এক সপ্তাহে তিন দফায় তারা আমাদের সাতটি লেগুনা ভাঙচুর করেছেন।’

এই লেগুনা মালিক বলেন, ‘এর মধ্যে আবার গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ ছাত্রলীগের নেত্রীরাও ডিস্টার্ব করা শুরু করছেন। তাদের সামনেই আমাদের গাড়িগুলো চলে। চার-পাঁচ দিন আগে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে আমি এবং খোলামোড়া রোডের সভাপতি মানিক ভাই বসেছি।

‘সে সময় তারা বলেছেন, তাদের কলেজের পাশ থেকে ভার্সিটির পোলাপান গাড়ি খেদিয়ে দেবে সেটি তারা হতে দেবেন না। ছাত্রলীগ সভাপতি জয় আল নাহিয়ান খান ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলে তারা এই ঝামেলা মিটিয়ে দেবেন বলে বলেছিলেন। তবে তাদের দাবি ছিল, আমরা যেন তাদের দেখি। আমরা বলেছি, আপনারা ভার্সিটির ঝামেলাটা বন্ধ করতে পারলে আমরা আপনাদের দেখব। কিন্তু তারা এটি বন্ধ করতে পারেনি।’

এ সব ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে কি না জানতে চাইলে রফিক বলেন, ‘শুনেছি, মালিক সমিতির পক্ষ হয়ে খোলামোড়া রোডের সভাপতি মানিক ভাই এবং ইকবাল ভাই লালবাগ থানার ওসি স্যারকে জানাইছে। এখন বাকিটা জানি না।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে স্যার এ এফ রহমান হল ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজুল ইসলামকে একাধিকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি প্রতিবারই কল কেটে দেন।

সাধারণ সম্পাদক মুনেম শাহরিয়ার মুন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘এটি সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ। এই ঘটনার সঙ্গে হল ছাত্রলীগ জড়িত নয়। লেগুনা মালিকদের সঙ্গে আমরা কখনো বসিইনি। এই লেগুনা মালিকদের আমরা চিনিও না। কোনো দিন দেখিনি। কথাও হয়নি।’

লেগুনা মালিক সমিতির সঙ্গে বসেছেন কি না- এমন প্রশ্নে গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের সভাপতি শারমিন সুলতানা সনি বলেন, ‘আমরা তাদের ডাকিওনি আর বসিওনি।’

সার্বিক বিষয়ে লালবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এম মোরশেদ বলেন, ‘আমাদের কাছে কেউ অভিযোগ দেয়নি। তবে বিষয়টি আমরা শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখব।’


বাংলাদেশের নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে সহযোগিতা দিতে আগ্রহী ফিনল্যান্ড

বাংলাদেশের নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে সহযোগিতা দিতে আগ্রহী ফিনল্যান্ড
গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে বাংলাদেশে ফিনল্যান্ডের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত রিতভা কাউক্কু-রন্ডে।
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহবান প্রধানমন্ত্রীর

  • রোহিঙ্গা ইস্যুতে কাজ করার প্রতিশ্রুতি ফিনল্যান্ডের

বাংলাদেশের টেকসই নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে সহযোগিতা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ফিনল্যান্ড।

বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে তার দেশের আগ্রহের কথা জানান বাংলাদেশে ফিনল্যান্ডের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত রিতভা কাউক্কু-রন্ডে।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

নয়াদিল্লিতে অবস্থানরত রাষ্ট্রদূত ফিনল্যান্ড-বাংলাদেশ কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সান্না মিরেল্লা মারিনের শুভেচ্ছা পত্র হস্তান্তর করেন। একই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান।

রিতভা কাউক্কু-রন্ডে বলেন, বাংলাদেশ এবং ফিনল্যান্ডের বহুজাতিক টেলিযোগাযোগ কোম্পানি নকিয়ার মধ্যে সহযোগিতা আরও জোরদার করা যেতে পারে।

ফিনল্যান্ড জাতিসংঘের সংস্থাগুলোতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কাজ করবে বলেও প্রতিশ্রতি দেন।

প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য বড় বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য স্থানীয় জনগণ অনেক কষ্ট পাচ্ছে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমরা মিয়ানমার সীমান্তে কোনো ধরনের বিদ্রোহ মেনে নিব না।

প্রধানমন্ত্রী ১৯৯৭ সালে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি স্বাক্ষর এবং ১৮০০ সশস্ত্র ক্যাডার সেই সময় তাদের অস্ত্র সমর্পণ করেন বলে উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশ অনেক হাই-টেক পার্ক স্থাপন করেছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ফিনল্যান্ডের কোম্পানিগুলো এসব হাই-টেক পার্কে বিনিয়োগ করতে পারে।

বৈঠকে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রভাব সম্পর্কে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যুদ্ধ চাই না। আমাদের পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে, ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে বৈরিতা নয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ আগে বিদেশ থেকে সার সংগ্রহ করতো, কিন্তু এখন যুদ্ধের কারণে শিপিং খরচ অনেক বেড়ে গেছে।

শেখ হাসিনা আরো বলেন, বাংলাদেশের নিজস্ব উন্নয়নের জন্য উন্নত দেশগুলোর সহায়তা প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তার জন্য কৃষি গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে এবং দেশে কোনো আবাদি জমি অনাবাদি থাকবে না।

সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত ফিনল্যান্ডের অনারারি কনসাল জেনারেল মুহাম্মদ আজিজ খান উপস্থিত ছিলেন।


বাংলাদেশের নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে সহযোগিতা দিতে আগ্রহী ফিনল্যান্ড

বাংলাদেশের নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে সহযোগিতা দিতে আগ্রহী ফিনল্যান্ড
গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে বাংলাদেশে ফিনল্যান্ডের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত রিতভা কাউক্কু-রন্ডে।
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহবান প্রধানমন্ত্রীর

  • রোহিঙ্গা ইস্যুতে কাজ করার প্রতিশ্রুতি ফিনল্যান্ডের

বাংলাদেশের টেকসই নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে সহযোগিতা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ফিনল্যান্ড।

বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে তার দেশের আগ্রহের কথা জানান বাংলাদেশে ফিনল্যান্ডের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত রিতভা কাউক্কু-রন্ডে।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

নয়াদিল্লিতে অবস্থানরত রাষ্ট্রদূত ফিনল্যান্ড-বাংলাদেশ কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সান্না মিরেল্লা মারিনের শুভেচ্ছা পত্র হস্তান্তর করেন। একই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান।

রিতভা কাউক্কু-রন্ডে বলেন, বাংলাদেশ এবং ফিনল্যান্ডের বহুজাতিক টেলিযোগাযোগ কোম্পানি নকিয়ার মধ্যে সহযোগিতা আরও জোরদার করা যেতে পারে।

ফিনল্যান্ড জাতিসংঘের সংস্থাগুলোতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কাজ করবে বলেও প্রতিশ্রতি দেন।

প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য বড় বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য স্থানীয় জনগণ অনেক কষ্ট পাচ্ছে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমরা মিয়ানমার সীমান্তে কোনো ধরনের বিদ্রোহ মেনে নিব না।

প্রধানমন্ত্রী ১৯৯৭ সালে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি স্বাক্ষর এবং ১৮০০ সশস্ত্র ক্যাডার সেই সময় তাদের অস্ত্র সমর্পণ করেন বলে উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশ অনেক হাই-টেক পার্ক স্থাপন করেছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ফিনল্যান্ডের কোম্পানিগুলো এসব হাই-টেক পার্কে বিনিয়োগ করতে পারে।

বৈঠকে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রভাব সম্পর্কে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যুদ্ধ চাই না। আমাদের পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে, ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে বৈরিতা নয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ আগে বিদেশ থেকে সার সংগ্রহ করতো, কিন্তু এখন যুদ্ধের কারণে শিপিং খরচ অনেক বেড়ে গেছে।

শেখ হাসিনা আরো বলেন, বাংলাদেশের নিজস্ব উন্নয়নের জন্য উন্নত দেশগুলোর সহায়তা প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তার জন্য কৃষি গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে এবং দেশে কোনো আবাদি জমি অনাবাদি থাকবে না।

সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত ফিনল্যান্ডের অনারারি কনসাল জেনারেল মুহাম্মদ আজিজ খান উপস্থিত ছিলেন।