শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

রমজানে কলেজেও ক্লাস হবে ১৫ দিন

আপডেটেড
১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ২০:০৭
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ২০:০৬

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বেসরকারি মাধ্যমিক ও নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পর কলেজেরও ২০২৪ শিক্ষাবর্ষের ছুটির তালিকা ও শিক্ষাপঞ্জি আংশিক সংশোধন করা হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ১০ থেকে ২৪ মার্চ পর্যন্ত মোট ১৫ দিন সরকারি ও বেসরকারি কলেজের শ্রেণি কার্যক্রম চালু থাকবে। ৮ ফেব্রুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব খোদেজা আক্তারের সই করা অফিস আদেশ থেকে এ তথ্য জানা যায়। এর আগে ১১ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত মোট ১৫ দিন মাধ্যমিক স্তরে শ্রেণি কার্যক্রম চালু থাকার কথা জানায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রমজানের প্রথম ১০ দিন নিয়মিত পাঠদান চলবে বলে জানায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

উল্লেখ্য, ওই সময় পবিত্র রমজান মাস থাকবে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ১১ বা ১২ মার্চ পবিত্র রমজান মাস শুরু হতে পারে। এর আগে ২০২৪ সালে দেশের সরকারি ও বেসরকারি কলেজের ছুটির তালিকা অনুমোদন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রতিষ্ঠানপ্রধানের তিন দিনের সংরক্ষিত ছুটিসহ বিভিন্ন দিবস উপলক্ষে মোট ৭১ দিন বন্ধ থাকবে এসব প্রতিষ্ঠান।

ছুটির তালিকা অনুযায়ী, পবিত্র রমজান, ঈদুল ফিতর, গ্রীষ্মকালীন অবকাশ, জাতীয় শিশু দিবস, স্বাধীনতা দিবস, ইস্টার সানডেসহ বেশ কয়েকটি সরকারি ছুটির সমন্বয়ে টানা ৩০ দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটি থাকবে। এ ছুটি শুরু হবে ১০ মার্চ। চলবে ১৮ এপ্রিল পর্যন্ত।


শনিবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ কি না, সিদ্ধান্ত ঈদের পর

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্র ও শনিবারের মধ্যে বর্তমানে শনিবার খোলা আছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শিখন ঘাটতি মেটাতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ঈদের পর থেকে শনিবার স্কুল আবার বন্ধ রাখার কথা কথা ছিল। তবে এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

আজ বৃহস্পতিবার শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, ‘শনিবার বন্ধের বিষয়ে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ঈদুল আজহার পর। ঈদুল আজহার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শনিবার খোলা বা বন্ধ রাখার বিষয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। শনিবারে এখন পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা আছে। আমরা চেষ্টা করছি, শনিবার বন্ধটা আগে যেমন ছিল, সেটা যাতে করে বলবৎ রাখতে পারি। ইতোমধ্যে আমরা (শিক্ষাবর্ষের) ক্যালেন্ডারের হিসাব নিয়েছি।’

রাজধানীর বকশিবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগ আয়োজিত গ্রিন, ক্লিন ও স্মার্ট ক্যাম্পাস বিনির্মাণে বৃক্ষরোপণ ও পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচির অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আপনারা জানেন আমাদের বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেখানে এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র নির্বাচিত হয়েছে। চারশর মতো প্রতিষ্ঠান সেখানে সংযুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলো আছে, সেগুলো খোলা রাখতে হতে পারে। সংযুক্ত বলে সেখানে পরীক্ষার কারণে প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকছে। আমরা বিশেষ ব্যবস্থা নিয়ে প্রতিষ্ঠানগুলো খোলা রাখতে পারি। আবার সিলেট অঞ্চলে বন্যার কারণে যেসব প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল সেগুলোতেও বিশেষভাবে খোলা রাখার বিধান রাখা হবে। দেশের অন্যান্য জায়গায় আগের মতো শনিবার যাতে বন্ধ রাখতে পারি তার ওয়ার্কআউট করা হচ্ছে। আমরা ঈদুল আজহার পর সুনির্দিষ্ট প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সবাইকে অবগত করব।’

প্রসঙ্গত, বর্তমানে শনিবার সব প্রতিষ্ঠান খোলা আছে। অন্যদিকে গত ২১ এপ্রিল শিক্ষামন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, ডাবল শিফট বিদ্যালয়গুলোয় এক শিফটে রূপান্তরিত না হওয়া পর্যন্ত শনিবার বিদ্যালয় খোলা রাখতে হবে। সভায় জানানো হয়, দেশে ডাবল শিফটের বিদ্যালয় ৪৬৪টি।


এইচএসসি পরীক্ষার সময় যেভাবে চলবে ক্লাস

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১১ জুন, ২০২৪ ১৬:৫২
নিজস্ব প্রতিবেদক

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার কেন্দ্রগুলোতে পরীক্ষার দিন পরীক্ষা শেষ হলে এবং যেদিন পরীক্ষা থাকবে না সেদিন স্বাভাবিক নিয়মেই শ্রেণি কার্যক্রম চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক আবুল বাশারের সই করা চিঠিতে আজ মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়।

চিঠিতে বলা হয়, আগামী ৩০ জুন চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হতে যাচ্ছে। যেসব কেন্দ্রে স্কুল ও কলেজ একসঙ্গে রয়েছে, সেসব প্রতিষ্ঠানে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শ্রেণি কার্যক্রম পরীক্ষার দিনগুলোতে পরীক্ষা শেষে এবং যেদিন পরীক্ষা নেই, সেদিন চলমান রাখার জন্য বলা হলো।

চিঠিটি সব পরীক্ষাকেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের পাঠানো হয়েছে। শ্রেণি কার্যক্রম চলমান রাখতে গিয়ে পাবলিক পরীক্ষায় যেন বিঘ্ন সৃষ্টি না হয় সে বিষয়ে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়। এ বিষয়ে সবাইকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


এসএসসি পুনঃনিরীক্ষণের ফল প্রকাশ

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণের ফল প্রকাশ করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ ফল প্রকাশ করা হয়। এত নতুন করে পাশ করেছেন ১২৭ জন শিক্ষার্থী আর জিপিএ-৫ পেয়েছেন নতুন করে আরও ৩৪৪ জন। জানা যায়, পুনঃনিরীক্ষণে মোট ২ হাজার ৭২৩ জন শিক্ষার্থীর ফল পরিবর্তন হয়েছে।

গত ১২ মে চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। এতে ৯টি সাধারণ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২০ লাখ ১৩ হাজার ৫৯৭ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ১২৯ জন শিক্ষার্থী।

প্রকাশিত ফলাফলে কারও কাঙ্ক্ষিত ফল না এলে তাকে পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন বা উত্তরপত্র চ্যালেঞ্জ করার সুযোগ দেয় শিক্ষা বোর্ডগুলো। ফল প্রকাশের পরদিন অর্থাৎ ১৩ মে থেকে পুনঃনিরীক্ষণ আবেদন শুরু হয়, যা চলে গত ১৯ মে পর্যন্ত।


শিশুদের অসাম্প্রদায়িক শিক্ষা দিতে হবে: জবি উপাচার্য

পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন জবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম। ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
জবি প্রতিনিধি

শ্রেণিকক্ষে বাচ্চাদের অসাম্প্রদায়িক শিক্ষা দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, বিশিষ্ট সমাজচিন্তক অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম।

আজ সোমবার পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

অসাম্প্রদায়িক শিক্ষা পেলেই শিশুরা সুনাগরিক ও সত্যিকারের মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে পারবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

উপাচার্য বলেন, ‘শিশুদেরকে আন্তর্জাতিক সনদে এবং আমাদের সংবিধানে উল্লিখিত অধিকার সম্পর্কে অবহিত করতে হবে। শিশুদেরকে তাদের মতো করে চলতে ও খেলতে দিতে হবে এবং তাদের মনের কথা বলতে দিতে হবে।’

শিশুরাই আমাদের ভবিষ্যৎ এবং তারাই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে জানিয়ে সাদেকা হালিম বলেন, ‘পোগোজ স্কুল বাংলাদেশের প্রাচীনতম বেসরকারি স্কুল। ঐতিহাসিক এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হতে উপমহাদেশের অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিরা পড়াশুনা করেছেন। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের রূপচিত্র পোগোজ স্কুলকে ঘিরেই রয়েছে। পোগোজের পাশেই রয়েছে মসজিদ-মন্দির-চার্চ। ভিন্ন ধর্মাবলম্বীরা নিশ্চিন্তে তাদের ধর্মীয় উৎসব পালন করছেন।’

জবি কোশাধ্যক্ষ ও পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. হুমায়ুন কবীর চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে ছিলেন প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডির অন্যান্য সদস্যরা।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) মো. আব্দুস সাত্তার।

এসময় জবির সহকারী প্রক্টররা, পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকরাও উপস্থিত ছিলেন।


‘স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে জবির ভূমিকা’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ১০ জুন, ২০২৪ ১৮:৩২
জবি প্রতিনিধি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ‘স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকা’ শীর্ষক একটি কর্মশালা আয়োজিত হয়েছে।

আজ সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কনফারেন্স কক্ষে এ কর্মশালা আয়োজিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জবি উপাচার্য ও এপিএ কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম। এ ছাড়া জবি আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মাসুম বিল্লাহসহ উপস্থিত ছিলেন অন্যান্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

এ সময় তিনি বলেন, ‘এপিএয়ের বিভিন্ন উপাদান বিষয়ে ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন কর্মশালা নিয়মিত আয়োজিত হলেও আমাদের মানোন্নয়ন আশানুরূপ হচ্ছে না। এ বিষয়গুলো নিয়ে গবেষণা করে ফলোআপ রিপোর্ট তৈরি করা প্রয়োজন। চুরি শুধু অর্থ দিয়েই হয় না বুদ্ধিভিত্তিক চুরিও হয়ে থাকে। এ কারণে আমাদের সততা ও স্বচ্ছতার সাথে সংশোধিত হতে হবে। আমরা বেশি মেধাসম্পন্ন হলে আমাদের মধ্যে নৈতিকতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে।’

জবি রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) ও এপিএ কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক ড. মো. আইনুল ইসলামের সভাপতিত্বে কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোশাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. হুমায়ুন কবীর চৌধুরী।

কর্মশালায় রিসোর্স পার্সন হিসেবে ছিলেন ইউজিসির উপ-পরিচালক ও ইনোভেশন ফোকাল পয়েন্ট দ্বিজেন্দ্র চন্দ্র দাস এবং ইউজিসির সিনিয়র সহকারী সচিব প্রবীর চন্দ্র দাস।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ডেপুটি রেজিস্ট্রার ও ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমেল হক মোল্লা। জবি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।


ঈদের ছুটিতে প্রয়োজনে অনলাইন ক্লাস নেওয়া হবে: এনসিটিবি

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঈদের আগে যদি কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নির্ধারিত অংশের শিখন কার্যক্রম শেষ না হয়, প্রয়োজনে ওই প্রতিষ্ঠান ছুটির মধ্যেও অনলাইনে ক্লাস নেবে বলে জানিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)।

গতকাল রোববার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) মাধ্যমিক বিভাগের সহকারী পরিচালক এস এম জিয়াউল হায়দার হেনরী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়। এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ইতোমধ্যে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

এনসিটিবির নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ২০২৪ শিক্ষাবর্ষের মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির বিষয়ভিত্তিক ষান্মাসিক সামষ্টিক মূল্যায়নের সিলেবাস ও এই সংক্রান্ত নির্দেশনা মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

এতে আরও বলা হয়, সম্প্রতি সারা দেশ থেকে দ্বৈবচয়নের মাধ্যমে কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচন করেছে এনসিটিবি। এইসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের পাঠ্যপুস্তকের কতটুকু পড়ানো হয়েছে, সেই তথ্য নিয়ে একটি সিলেবাস প্রণয়ন করেছে। তাতে ষান্মাসিক মূল্যায়নে বইয়ের শুরু থেকে কত পৃষ্ঠা পর্যন্ত মূল্যায়নে অন্তর্ভুক্ত হবে, তা নির্ধারণ করা হয়েছে।

আগামী ১২ জুন বুধবার পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাস চলবে। এরপর ঈদুল আজহার ছুটি শুরু হবে। ঈদের ছুটির আগেই সিলেবাসের অবশিষ্ট সিলেবাস সম্পন্ন করতে সামষ্টিক মূল্যায়নের জন্য বিকল্প উপায় অবলম্বন করতে নির্দেশনা দিয়েছে এনসিটিবি।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে, প্রয়োজনে অনলাইনে ক্লাস করাতে হবে। কোন দল গত কাজ এখন তথ্য সংগ্রহ ইত্যাদি কাজ থাকলে তা বিকল্প উপায়ে গত কাজের বিষয়ে দলগত কাজের বদলে একক কাজ, পরিবারের সদস্যদের থেকে তথ্য সংগ্রহ পর্যবেক্ষণের কাজটি বাড়ির আশেপাশের থেকে ভিডিও দেখে ডকুমেন্ট দেখে বা অন্য করা সাহায্যে করা যেতে পারে। কাজ শেষে সক্রিয় পরীক্ষণের বদলে একটি অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিবে তার ধারণা আমাদের সময় ধারণ করে দেওয়ার বিষয়েও শিক্ষকদের দেয়া হয়, এ ছাড়া অভিভাবকদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম গ্রুপ, মোবাইল গ্রুপে নির্দেশনা প্রদান করে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে বসে করা কাজ শিক্ষকরা পর্যবেক্ষণ করবেন এবং ফিডব্যাক দেবেন। তা ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের আগেই ছুটির মধ্যে শিক্ষার্থীদের করণীয় অভিজ্ঞতার ধাপগুলো সহজ ভাষায় বুঝিয়ে দিতেও শিক্ষকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বিষয়:

মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের আদেশ বহাল

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
ঢাবি প্রতিনিধি

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে দেওয়া হাইকোর্টের রায় আপাতত বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত। একই সঙ্গে এ বিষয়ে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য আগামী ৪ জুলাই দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত।

আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম আজ রোববার এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোতাহার হোসেন সাজু। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। এর আগে আজ সকালে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।

গত ৫ জুন সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

২০১৮ সালে সরকারি চাকরির প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির ক্ষেত্রে কোটাপ্রথা বিলুপ্ত করা হয়। ওই বছরের ৪ অক্টোবর কোটা পদ্ধতি তুলে দিয়ে মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে পরিপত্র জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এদিকে সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের রায় বাতিলের দাবিতে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত আলটিমেটাম দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীরা। এ সময়ের মধ্যে রায় বাতিল করা না হলে দেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে আজ হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন তারা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে শিক্ষার্থীরা ওই আলটিমেটাম দেন।

সরকারি চাকরিতে ২০১৮ সালের পরিপত্র বাতিল করে কোটা পদ্ধতি পুনর্বহাল-সংক্রান্ত হাইকোর্টের রায়ের প্রতিবাদ এবং মেধাভিত্তিক নিয়োগ বহাল রাখার দাবিতে তৃতীয় দিনের মতো আজ বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। ওই বিক্ষোভ শেষে শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধিদল আ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে স্মারকলিপি জমা দিতে ক্যাম্পাস ছাড়েন।

এর আগে শিক্ষার্থীদের মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে রাজু ভাস্কর্যে এসে শেষ হয়।

মিছিলে শিক্ষার্থীরা ‘চাকরিতে কোটা, মানি না মানব না’, ‘মুক্তিযুদ্ধের বাংলায়, কোটার ঠাঁই নাই’, ‘হাইকোর্টের রায়, মানি না মানব না’, ‘সংবিধানের মূলকথা সুযোগের সমতা, মুক্তিযুদ্ধের মূলকথা সুযোগের সমতা’, ‘কোটা না মেধা, মেধা মেধা’, ‘সারা বাংলায় খবর দে, কোটা প্রথার কবর দে’ ধরনের স্লোগান দেন।

মিছিল-পরবর্তী সমাবেশে ঢাবি ছাত্রী তামান্না আক্তার বলেন, ‘আমি নারী হয়ে বলছি, আমি নারী কোটা চাই না। আমরা একটি বৈষম্যহীন বাংলাদেশ নির্মাণ করতে চাই। মেধাবীরা যোগ্যতা দিয়ে চাকরি পাবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে উপেক্ষা করে যে রায় দিয়েছে, তা আমরা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করলাম।’

বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের ছাত্র মোয়াজ্জেম হোসেন রিহাম বলেন, ‘আমরা হাইকোর্টের রায়কে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করছি। শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, ‘কোটা প্রথা বিদ্যমান রাখার জন্য কিন্তু আমাদের প্রশ্ন উনি কি সাধারণ শিক্ষার্থীদের শিক্ষামন্ত্রী, না কি দুই পারসেন্ট শিক্ষার্থীর মন্ত্রী?’

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ছাত্র রিফাত রশিদ বলেন, ‘আমাদের সংবিধানে সরকারি চাকরিতে সমতা নিশ্চিতের কথা বলা হয়েছে, কিন্তু আজকে কোটার মাধ্যমে মেধাবীদের অবহেলা করা হচ্ছে। এই ছাত্রসমাজ কোনো দাবি আদায়ে যতবারই রাস্তায় নেমেছে, সেই দাবি আদায় করে রাজপথ ছেড়েছে। আজকেও আমরা কোটা পুনর্বহালের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছি। যদি এই বৈষম্যমূলক কোটা পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত বাতিল না করা হয়, তাহলে শিক্ষার্থীরা এই রাজপথ ছাড়বে না। প্রয়োজনে রক্ত ঝরবে, রাজপথে লাশ পড়বে, তবুও আমরা এই দাবি আদায় করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ।’


প্রতিটি শিক্ষার্থীকে আলাদা আলাদাভাবে পরিচর্যা করতে হবে: ড. জলিল চৌধুরী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের প্রবীণ অধ্যাপক বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. আবদুল জলিল চৌধুরী বলেছেন, ‘প্রতিটি শিক্ষার্থীকে আলাদা আলাদা ভাবে পরিচর্যা করতে হবে। বিশেষ গুরুত্বসহ পরিচর্যা করলে আজকের শিশু আগামী দিনে দেশ ও জাতির কাণ্ডারি হিসেবে গড়ে উঠবে।’

তিনি শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর শ্যামলীতে অবস্থিত মেরিগোল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের ২০২৩ সালের মেধাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। মেধাবৃত্তির সনদ, ক্রেস্ট ও প্রাইজমানি বিতরণ অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব দৈনিক ইনকিলাবের সিনিয়র সাংবাদিক মোহাম্মদ আবদুল অদুদ। অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন সংগঠনের চেয়ারম্যান লায়ন দিদারুল ইসলাম। সংবর্ধিত অতিথি ছিলেন কুমিল্লার নোমান আহম্মেদ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক ড. মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও মেরিগোল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের প্রধান শিক্ষক সেলিনা খাতুন। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা জেলা সভাপতি মো. আসাদুল্লাহ, চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নুরুল আবছার, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী ও ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী পলাশ চন্দ্র দাশ ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম তালুকদার, নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি শামীম আহমেদ ও প্রকৌশলী আহসান হাবিব প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে ঢাকার বিভিন্ন স্কুল ও আশপাশের ১৩টি জেলার প্রতিনিধিদের কাছে মেধাবৃত্তির সনদ, ক্রেস্ট ও প্রাইজমানি তুলে দেওয়া হয়। সভায় শিক্ষামন্ত্রীর উপস্থিতিতে জুলাই মাসে জাতীয় সম্মেলন আয়োজন করার সিদ্ধান্ত হয় এবং প্রতিষ্ঠানগুলোকে দ্রুত রেজিস্ট্রেশন করার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

বিষয়:

এমপিওবিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ৪ হাজার ৬১৩টি: শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী। ফাইল ছবি
আপডেটেড ৯ জুন, ২০২৪ ১৪:৩১
নিজস্ব প্রতিবেদক

বর্তমানে সারা দেশে ৪ হাজার ৬১৩টি এমপিওবিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

আজ রোববার সংসদে টেবিলে উপস্থাপিত সরকারি দলের সদস্য এম আব্দুল লতিফের তারকা চিহ্নিত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০২১ এর আলোকে কাম্য শিক্ষার্থীর সংখ্যা,পাশের হার, প্রাপ্যতা ও প্রয়োজনীয় যোগ্যতার ভিত্তিতে এমপিওভুক্ত করা হয়ে থাকে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তকরণ একটি চলমান প্রক্রিয়া। এমপিওভুক্ত করার কাজটি বর্তমানে ডিজিটাল পদ্ধতিতে অটোমেশনের মাধ্যমে সম্পন্ন হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ‘সারা দেশে এমপিওবিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ কর্তৃক সময়ে সময়ে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এমপিওভুক্ত করা হয়ে থাকে। চলতি অর্থবছরের আর একমাসেরও কম সময় অবশিষ্ট রয়েছে। এই স্বল্প সময়ে নতুন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার কোনো পরিকল্পনা সরকারের আপাতত নেই।’

সরকারি দলের অপর সদস্য সিদ্দিকুর রহমান পটোয়ারীর তারকা চিহ্নিত অপর এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বেসরকারি শিক্ষকদের অবসরভাতা ও কল্যাণভাতা প্রাপ্তিতে বিলম্বের সমস্যা সমাধানে সরকার আন্তরিক রয়েছে। এ খাতে পর্যাপ্ত অর্থসংস্থান না থাকায় মূলত বেশি সময় লাগছে এবং সমস্যা তৈরি হচ্ছে। ইতোমধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড এবং বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট থেকে অবসর উত্তরকালে শিক্ষকদের প্রাপ্য অর্থ যেন দ্রুততম সময়ে পেতে পারেন তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।’

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ সমস্যার উত্তরণে কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং গঠিত কমিটি তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে বলেও জানান তিনি।


চাকরিতে কোটা: হাইকোর্টের রায় বাতিলে আলটিমেটাম শিক্ষার্থীদের

ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
ঢাবি প্রতিনিধি

সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহাল করার রায় বাতিলের দাবিতে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত আল্টিমেটাম দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীরা।

আজ রোববার ঢাবিতে অনুষ্ঠিত এক বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে শিক্ষার্থীরা এই ঘোষণা দেন। অন্যথায় দেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তারা।

সরকারি চাকরিতে ২০১৮ সালের পরিপত্র বাতিল করে কোটা পদ্ধতি পুনর্বহাল সংক্রান্ত হাইকোর্টের রায়ের প্রতিবাদ এবং মেধাভিত্তিক নিয়োগ বহাল রাখার দাবিতে তৃতীয় দিনের মতো আজও এই বিক্ষোভ করা হয়। বিক্ষোভ শেষে শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধি অ্যাটর্নি জেনারেল বরাবর স্মারকলিপি জমা দিতে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন।

এর আগে শিক্ষার্থীদের এই মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে রাজু ভাস্কর্য এসে শেষ হয়।

মিছিলে শিক্ষার্থীরা, চাকরিতে কোটা, মানি না মানবো না; মুক্তিযুদ্ধের বাংলায়, কোটার ঠাঁই নাই; হাইকোর্টের রায়, মানি না মানবো না; সংবিধানের মূলকথা সুযোগের সমতা; মুক্তিযুদ্ধের মূলকথা সুযোগের সমতা; কোটা না মেধা, মেধা মেধা; সারা বাংলা খবর দে, কোটা প্রথার কবর দে; ইত্যাদি স্লোগান দেন।

মিছিল পরবর্তী সমাবেশে ঢাবি শিক্ষার্থী তামান্না আক্তার বলেন, ‘আমি নারী হয়ে বলছি আমি নারী কোটা চাই না। আমরা একটি বৈষম্যহীন বাংলাদেশ নির্মাণ করতে চাই। মেধাবীরা যোগ্যতা দিয়ে চাকরি পাবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে উপেক্ষা করে যে রায় দিয়েছে তা আমরা প্রত্যাখান করলাম।’

বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের শিক্ষার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন রিহাম বলেন, ‘আমরা হাইকোর্টের রায়কে প্রত্যাখান করছি। শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, কোটা প্রথা বিদ্যমান রাখার জন্য। কিন্তু আমাদের প্রশ্ন, উনি কি সাধারণ শিক্ষার্থীদের শিক্ষামন্ত্রী নাকি ২% শিক্ষার্থীর মন্ত্রী।’

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী রিফাত রশিদ বলেন, ‘আমাদের সংবিধানে সরকারি চাকরিতে সমতা নিশ্চিতের কথা বলা হয়েছে কিন্তু আজকে কোটার মাধ্যমে মেধাবীদের অবহেলা করা হচ্ছে। এই ছাত্রসমাজ কোন দাবি আদায়ে যতবারই রাস্তায় নেমেছে সেই দাবি আদায় করে রাজপথ ছেড়েছে। আজকেও আমরা কোটা পুনর্বহালের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছি। যদি এই বৈষম্যমূলক কোটা পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত বাতিল না করা হয় তাহলে শিক্ষার্থীরা এই রাজপথ ছাড়বে না। প্রয়োজনে রক্ত ঝরবে, রাজপথে লাশ পড়বে তবুও আমরা এই দাবি আদায় করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ।’


সরকারের ঋণ নিয়ে নেতিবাচক প্রচারণা চলছে: শিক্ষামন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারের ঋণ আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের চেয়ে অনেক কম দাবি করে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হেসেন চৌধুরী নওফেল বলেছেন, সরকারের ঋণের বিষয়ে প্রচার করা হচ্ছে অন্যভাবে। তবে ঋণ নিয়ে যেভাবে প্রচার করা হচ্ছে, ঋণ তার চেয়ে অনেক কম।

ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আজ শুক্রবার ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের প্রবৃদ্ধিটা যেন থাকে, মূল্যস্ফীতি যেন কমে যায় বা নিয়ন্ত্রণে থাকে। তবে সরকারের ঋণ নিয়ে নেতিবাচক প্রচার করা হচ্ছে, যেভাবে প্রচার করা হয়েছিল কোভিডের। আমাদের ঋণ এখনও আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের অনেক নিচে। অন্যদের তুলনায় এখনও অনেক ভালো আছে।’

তিনি বলেন, ‘জিডিপির ৩০তম দেশ আমাদের। আমরা বাজেটে প্রবৃদ্ধি ও মূল্যস্ফীতিকে প্রাধান্য দিয়েছি। তা ছাড়া কোনো দেশের বাজেটেই লক্ষ্যমাত্রার শতভাগ পূরণ হয় না। উন্নত দেশে বাজেট ঘাটতি ৫ শতাংশের ওপরে, আমেরিকায় ৬ দশমিক ৮ শতাংশ ঘাটতি। আমাদের ঘাটতি বাজেট ৪ দশমিক ৬ শতাংশ।’

সংবাদ সম্মেলন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, পরিকল্পনামন্ত্রী মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুস সালাম, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুস শহীদ, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু, অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান এবং এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম, মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার ও অর্থ সচিব ড. মো. খায়েরুজ্জামান মজুমদার উপস্থিত ছিলেন।


বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ৮০ শতাংশই ভুগছেন হতাশায়: জরিপ

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
জবি প্রতিনিধি

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে প্রায় ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থীই হতাশায় কাটান বলে আঁচল ফাউন্ডেশনের এক জরিপে জানা গেছে। জরিপের তথ্যে জানা যায়, এই শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন বিভিন্ন সময়ে যেতে হয়েছে হতাশার মধ্য দিয়ে। ক্লান্তি, ওজন কমে যাওয়া, কোনো কিছু উপভোগ না করা, ঘুমের ধরনের পরিবর্তন, আত্মহত্যার চিন্তা, কাজে মনোযোগ দিতে না পারা ইত্যাদি অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে তাদের যেতে হয়েছে বলে জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার ‘বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতির কারণ’ শীর্ষক সমীক্ষা নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়ায় ফাউন্ডেশনটি। জরিপটি গত ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়ে চলে ৩০ মে পর্যন্ত। এতে সারা দেশের ৮৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ১ হাজার ৫৭০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন।

ফাউন্ডেশনের তথ্য-উপাত্ত থেকে আরও জানা যায়, ৭৯.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে হতাশার মধ্য দিয়ে গেছেন। মাত্র ২০.১ শতাংশ শিক্ষার্থী এ ধরনের অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যাননি। অতীতের সঙ্গে হতাশার উপসর্গ তুলনা করে দেখা গেছে, ৬৬.১ শতাংশ শিক্ষার্থীদের আগের চেয়ে বেশি হতাশার উপসর্গ নিয়ে আছেন। এর মধ্যে ৮৩.৪ শতাংশ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বিষণ্নতার মুখোমুখি হয়েছেন বলে জানা গেছে। বাকি ১৬.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর ভেতর হতাশার উপসর্গ দেখা যায়নি। অপরদিকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ৭৯.৯ শতাংশ হতাশার উপসর্গগুলো দেখা গেছে। অন্যদিকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ৬১.৩ শতাংশ গেছেন হতাশার মধ্য দিয়ে।

জরিপে শিক্ষার্থীদের থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে দেখা যায়, ৫৫ শতাংশ শিক্ষার্থী ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। বিভিন্ন কারণে নিজেকে অন্যদের সঙ্গে তুলনা করার কারণে হতাশায় ভুগছেন বলেও জানা গেছে। এ ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা নিয়ে ৯.৪ শতাংশ, হল বা আবাসিক পরিবেশ নিয়ে ৯.০০ শতাংশ, সহপাঠী বা শিক্ষক কর্তৃক বুলিংয়ের কারণে ৫.৩ শতাংশ এবং ওপরের সবগুলো কারণের জন্য ১.৬ শতাংশ শিক্ষার্থী হতাশাগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানা যায়। এছাড়া অন্যান্য কারণে হতাশায় ভুগছেন ৩.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী।

সহপাঠী, সিনিয়র কিংবা শিক্ষকের দ্বারা শারীরিক-মানসিক হয়রানির শিকার হয়েছেন ৩১.১ শতাংশ শিক্ষার্থী। বুলিংয়ের শিকার হয়েছেন ১৫.৯ শতাংশ, র‍্যাগিংয়ের শিকার হয়েছেন ১৩.৪ শতাংশ, যৌন হয়রানি শিকার হয়েছেন ১.৮ শতাংশ এবং স্টাফ কর্তৃক ১.২ শতাংশ এবং অন্যান্যদের দ্বারা ৫.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী হয়রানির শিকার হয়েছেন। কোনো ধরনের হয়রানির শিকার হননি ৬৮.৯ শতাংশ।

হয়রানির ফলে মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব পড়েছে ৪২.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর, মোটামুটি প্রভাব পড়েছে ৪৮.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর এবং কোনোরূপ প্রভাব পড়েনি ৮.৮ শতাংশ শিক্ষার্থীর। এ ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ নিয়ে পুরোপুরি অসন্তুষ্ট ৩৩.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী, মোটামুটি সন্তুষ্ট ৫৮.১ শতাংশ এবং পুরোপুরি সন্তুষ্ট মাত্র ৮.৪ শতাংশ।

জরিপে ৫৯.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা মন খুলে কথা বলার মতো কোনো শিক্ষক পাননি। এর মাঝে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬২.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী নিজ শিক্ষকদের সামনে নিজেকে প্রকাশ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না। ৩৭.১ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা নিজ বিভাগের শিক্ষকদের সামনে নিজেকে মেলে ধরতে পারেন। অন্যদিকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫৮.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন এবং ৪১.২ শতাংশ শিক্ষার্থী ফ্যাকাল্টির অন্যান্য মেম্বারদের সামনে নিজেকে প্রকাশ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেননি।

এ ছাড়া হলের পরিবেশ নিয়ে সন্তুষ্টি-অসন্তুষ্টির ক্ষেত্রে ৩৯.৩ শতাংশ জানিয়েছেন তারা পুরোপুরি অসন্তুষ্ট। সন্তুষ্টির জানিয়েছেন ১০.০০ শতাংশ শিক্ষার্থী। বাকিরা জানিয়েছেন তারা মোটামুটি সন্তুষ্ট।

অসন্তুষ্টির কারণ হিসেবে ৯.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী থাকার পরিবেশকে দায়ি করেছেন। অনুন্নত খাবারকে দায়ি করেছেন ৭.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী। গ্রন্থাগার সংকট মনে করছেন ৩.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী এবং সবগুলো কারণকেই দায়ি করছেন ৬৮.২ শতাংশ শিক্ষার্থী। ১০.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা অন্যান্য কারণকে অসন্তুষ্ট। ৭০.১ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন হলের পরিবেশ তাদের মানসিক স্বাস্থ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

জরিপের তথ্য অনুসারে, ৩১.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী উচ্চ শিক্ষার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন। ২৯.৭ শতাংশ শিক্ষার্থী ক্যারিয়ার হিসেবে সরকারি চাকরি করতে চান। ৯.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী ব্যবসা বা উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। মাত্র ৭.১ শতাংশ শিক্ষার্থী বেসরকারি চাকরি করতে চান। বাকি শিক্ষার্থীরা এখনো কোনোরূপ ক্যারিয়ার ভাবনা ঠিক করেনি যা মোট শিক্ষার্থীর প্রায় ২২ শতাংশ।

এদিকে জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর মধ্যে আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন ৫.৯ শতাংশ। আত্মহত্যা চিন্তায় এসেছে কিন্তু আত্মহত্যা চেষ্টা করেননি ৩৯.২ শতাংশ। আত্মহত্যা চিন্তা এসেছে এবং আত্মহত্যার উপকরণও জোগাড় করেছেন ৭.৩ শতাংশ শিক্ষার্থী। কখনো আত্মহত্যা চিন্তা আসেনি ৪৭.৬ শতাংশ শিক্ষার্থীর। এছাড়াও জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫২.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তাদের আত্মহত্যা কথা মাথায়ও আসেনি।

আত্মহত্যাপ্রবণ এ সকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩০ শতাংশ ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশা। ১৬.২ শতাংশ বাবা-মায়ের সঙ্গে অভিমানের কারণে হতাশ। ৯.৭ শতাংশ হতাশ প্রেমঘটিত বিষয়ে। আর ৯ শতাংশ শিক্ষার্থী হতাশ অর্থনৈতিক কারণে। অন্যরা তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করায় হতাশ ৪.৩ শতাংশ। ৩০.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী অন্যান্য বিভিন্ন কারণে আত্মহত্যা করার চিন্তা এসেছে বলে জানিয়েছেন।

এছাড়াও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে সন্তুষ্ট ৩৮.৩ শতাংশ শিক্ষার্থী। এবং ৩৫.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী অসন্তুষ্ট।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতির দূর করতে সংগঠনটি বেশকিছু প্রস্তাবনা পেশ করেছে। এগুলো হলো, ক্যাম্পাসে কাউন্সেলিং ইউনিটের ব্যবস্থা করা। ক্যাম্পাসে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করা। ক্যাম্পাসে যেন কেউ বুলিংয়ের শিকার না হন তা মনিটরিং করা। নিরাপদ বাসস্থান ও উন্নতমানের খাবারের ব্যবস্থা করা। প্রয়োজনে বৃত্তি ও প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা প্রদান করা। শিক্ষার্থী ও শিক্ষকের সম্মান ও আস্থার সম্পর্ক উন্নয়ন করা, প্রয়োজনে কাউন্সেলিং করানো। মানসিক স্বাস্থ্যসেবাকে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্ত করা। সেমিনার ও মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করা। বিশিষ্ট মনোবিজ্ঞানী বা বিশেষজ্ঞদের এসব সেশনে বিভিন্ন সমস্যা ও এগুলোর সমাধান নিয়ে লেকচার দেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো। দেশের সকল স্কুল, কলেজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট (মনোবিদ) এডুকেশনাল কাউন্সেলিং সাইকোলজিস্ট নিয়োগ দেওয়া।

জরিপে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মাঝে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ২৫১ জন, দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ২৫৪ জন, তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ৩৬৯ জন, চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন ৩৪০ জন, মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ছিলেন ৩৪১ জন, এবং সদ্য গ্র্যাজুয়েট ছিলেন ১৫ জন।


যেদিন থেকে মিলবে এইচএসসির প্রবেশপত্র

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

চলতি বছরের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষার প্রবেশপত্র আগামী ১০ জুন দেওয়া শুরু হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার এক চিঠিতে এ তথ্য জানিয়েছে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড।

চিঠিতে বলা হয়, ‘২০২৪ সালের এইচএসসি পরীক্ষার প্রবেশপত্র উল্লিখিত সময়সূচি অনুযায়ী বোর্ডের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা শাখা থেকে বিতরণ করা হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিজে অথবা তার প্রাধিকারপ্রাপ্ত কোনো শিক্ষককে (স্বাক্ষর সত্যায়িতসহ) কেন্দ্রের আওতাধীন সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রবেশপত্র অফিস চলাকালীন গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। কোনো অবস্থায়ই শিক্ষক ছাড়া অন্য ব্যক্তিকে প্রবেশপত্র গ্রহণ করার ক্ষমতা দেওয়া যাবে না। কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হলে আবেদনপত্রে গভর্নিং বডির সভাপতি-জেলা প্রশাসক-উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার প্রতিস্বাক্ষর থাকতে হবে।’

এতে আরও বলা হয়- টাঙ্গাইল, নরসিংদী, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জ জেলায় ১০ জুন এবং ঢাকা মহানগর, ঢাকা জেলা, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ ও মানিকগঞ্জ জেলায় ১১ জুন প্রবেশপত্র বিতরণ করা হবে।

আগামী ১১ জুন শেষ হবে প্রবেশপত্র বিতরণ। প্রবেশপত্রে কোনো ভুল থাকলে তা সংশোধনের জন্য অবশ্যই ২৩ থেকে ২৭ জুনের মধ্যে উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কাছে নির্ধারিত ছক অনুযায়ী আবেদন করে ঠিক করে নিতে হবে।

৩০ জুন থেকে চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে। এরইমধ্যে পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করেছে শিক্ষা বোর্ড। পরীক্ষা উপলক্ষে আগামী ২৯ জুন থেকে সব অ্যাকাডেমিক কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে।

বছর ১১টি বোর্ডের অধীনে পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন ১৪ লাখ ৫০ হাজার ৭৯০ শিক্ষার্থী। এসব পরীক্ষার্থীরা ৯ হাজার ৪৬৩টি প্রতিষ্ঠান থেকে ২ হাজার ৭২৫টি কেন্দ্র পরীক্ষায় অংশ নেবেন।

বিষয়:

banner close