বুধবার, ২২ মে ২০২৪

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ৭ম সমাবর্তন

দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ১৪:৫২

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ৭ম সমাবর্তন অনুষ্ঠান গত রোববার সকালে ইউআইইউ ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনের পক্ষে তার প্রতিনিধি হিসেবে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ইমেরিটাস এবং পানিসম্পদ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. আইনুন নিশাত।

সমাবর্তন অনুষ্ঠানে ৩৯৫৪ জন শিক্ষার্থীকে গ্র্যাজুয়েশন ও পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন ডিগ্রি এবং কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফলের জন্য চারজন শিক্ষার্থীকে স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান হাসান মাহমুদ রাজা এবং ইউআইইউর ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মো. আবুল কাশেম মিয়া। বিজ্ঞপ্তি


সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটির নতুন উপাচার্য ড. ইউসুফ

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

অধ্যাপক ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটির (এসইইউ) উপাচার্য নিযুক্ত হয়েছেন। রাষ্ট্রপতি এবং এসইইউর চ্যান্সেলর মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চার বছর মেয়াদে তাকে এ পদে নিযুক্ত করেছেন। সম্প্রতি তিনি এ পদে যোগদান করেন। অধ্যাপক ইসলাম বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য এবং মালয়েশিয়ার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ৪৬ বছরেরও বেশি সময় ধরে শিক্ষকতা, গবেষণা এবং বিভিন্ন প্রশাসনিক পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটিতে যোগদানের আগে তিনি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য এবং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন ছিলেন। তিনি ওপেন ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়ায় খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে এবং ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি যেসব প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজ করেছেন তার প্রতিটির উন্নয়নে অবদান রেখেছেন। তিনি সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটির সার্বিক উন্নয়নে সব সহকর্মীদের সহযোগিতা ও সমর্থন কামনা করেন। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

ইউআইটিএসে ইইই বিভাগের ৩৭তম ব্যাচের বিদায়ী সংবর্ধনা

ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেসের (ইউআইটিএস) ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ও ইইই ক্লাবের উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজস্ব ক্যাম্পাসের পিএইচপি স্কয়ারে ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ৩৭তম ব্যাচের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেসের (ইউআইটিএস) ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ও ইইই ক্লাবের উদ্যোগে ১৯ মে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজস্ব ক্যাম্পাসের পিএইচপি স্কয়ারে ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ৩৭তম ব্যাচের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। ইইই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান আবেদুল হাদীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন গ্রহণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবু হাসান ভূঁইয়া।

উপাচার্য প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, তোমরা যারা বিদায় নিয়ে যাচ্ছ তোমরা জীবনের একটি ধাপ অতিক্রম করলে মাত্র। তোমাদের সামনে আরও অনেক ধাপ রয়েছে জীবনে সফল হওয়ার জন্য। ওই ধাপগুলো অতিক্রম করতে হবে তোমাদের পরিশ্রম, চেষ্টা ও কর্মদক্ষতার মাধ্যমে। তিনি বলেন, তোমরা এমন একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে চারটি বছর কাটিয়েছ যার প্রতিষ্ঠাতা ও বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান একুশে পদকপ্রাপ্ত সমাজসংস্কারক, শিক্ষানুরাগী আলহাজ সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। যার উদ্দেশ্যই হচ্ছে একজন প্রকৃত মানুষ তৈরি করা। উপাচার্য শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমরা ইউআইটিএসের দূত হিসেবে কাজ করবে। তোমাদের মাধ্যমে ইউআইটিএসের সুনাম সারা দেশ ও বিশ্বে ছড়িয়ে যাবে। উপাচার্য শিক্ষার্থীদের ইউআইটিএসের সুনাম অক্ষুণ্ন রাখার আহ্বান জানান। তিনি ইইই বিভাগের সবাইকে ধন্যবাদ সেই সঙ্গে বিদায়ী শিক্ষার্থীদের শুভকামনা জানান। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ইউআইটিএসের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সিরাজ উদ্দীন আহমেদ, বোর্ড অব ট্রাস্টিজের উপদেষ্টা, অধ্যাপক ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান, সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন, অধ্যাপক ড. মো. আশরাফুল ইসলাম, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মো. ইয়াসিন আলী ও ইইই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান আবেদুল হাদী। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইইই বিভাগের শিক্ষার্থী আবুজর গিফারী আহাদ ও স্পন্সর করেন ইয়ামবস ইনক.। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগের সব শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। অনুষ্ঠানে কেক কেটে বিদায়ী শিক্ষার্থীদের বিদায় জানানো হয়। পরে ইইই বিভাগের শিক্ষার্থীরা এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

একবার ধান রোপণ করলে ফসল হবে টানা ৫ বছর

গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে গত শনিবার বহুবর্ষজীবী ধান কাটার নবম পর্বের উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজির (আইইউবিএটি) কৃষি অনুষদের গবেষকগণ চীনের ইউনান ইউনিভার্সিটির সহযোগিতায় বহুবর্ষজীবী ধানের গবেষণার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। বহুবর্ষজীবী ধানের বিশেষত্ব হলো, এটি পাঁচ বছরে টানা দশটি ফসল ফলাতে পারে। অর্থাৎ প্রতিবছর দুবার করে ফসল পাওয়া যাবে। আইইউবিএটি কলেজ অব অ্যাগ্রিকালচারাল সায়েন্সেস অনুষদের সহযোগী অধ্যাপক ড. ফারজানা সুলতানার তত্ত্বাবধানে গবেষকরা ২০২০ সাল থেকে বহুবর্ষজীবী ধানের গবেষণার কাজ তাদের নিজস্ব গবেষণা কেন্দ্রে চালিয়ে যাচ্ছেন। আইইউবিএটির কৃষি অনুষদ ২০১৯ সালে এমটিএর মাধ্যমে চীনের ইউনান ইউনিভার্সিটি থেকে বহুবর্ষজীবী ধানের বীজ সংগ্রহ করে। গত শনিবার গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে এই বহুবর্ষজীবী ধান কাটার নবম পর্বের উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার। আরও উপস্থিত ছিলেন আইইউবিএটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুর রব, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সেলিনা নার্গিস, কৃষি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. শহীদুল্লাহ মিয়া, কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনের (কেজিএফ) পরিচালক ড. নরেশ চন্দ্র দেব বর্মা, ইরি বাংলাদেশের কান্ট্রি ব্রিডিং লিড, ইরি ড. মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম এবং বিটিভির মাটি ও মানুষ অনুষ্ঠানের উপস্থাপক অধ্যাপক রেজাউল করিম সিদ্দিকসহ আইইউবিএটির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। অনুষ্ঠানে অতিথিদের বহুবর্ষজীবী ধানের জাতগুলোর পরিচয় করিয়ে দেন এবং উৎপাদনের সাফল্য নিয়ে কথা বলেন ড. ফারজানা সুলতানা। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

বিদ্যুৎ বিভাগের ইনোভেশন শোকেসিংয়ে দ্বিতীয় স্থানে ডিপিডিসি

বিদ্যুৎ বিভাগ আয়োজিত ইনোভেশন শোকেসিংয়ে ১৯ মে বিদ্যুৎ বিভাগের আওতাধীন সব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ডিপিডিসির আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স বেজড স্মার্ট কাস্টমার অ্যাসিস্ট্যান্ট চ্যাটবট ‘বিদ্যুৎ বন্ধু’ ২য় স্থান অর্জন করেছে। ছবি : সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বিদ্যুৎ বিভাগ আয়োজিত ইনোভেশন শোকেসিংয়ে ১৯ মে বিদ্যুৎ বিভাগের আওতাধীন সব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ডিপিডিসির আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স বেজড স্মার্ট কাস্টমার অ্যাসিস্ট্যান্ট চ্যাটবট ‘বিদ্যুৎ বন্ধু’ ২য় স্থান অর্জন করেছে। ‘বিদ্যুৎ বন্ধু’ চ্যাটবটের মাধ্যমে খুব সহজেই বিদ্যুৎ-সংক্রান্ত যেকোনো সেবা গ্রহণ ও অভিযোগ দাখিল করা যায়। ডিপিডিসির গ্রাহকরা যেকোনো কম্পিউটার বা মোবাইল ব্যবহার করে ডিপিডিসির ওয়েবসাইট (www.dpdc.gov.bd) থেকে বাংলা এবং ইংরেজি ভাষায় এই সেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ বিভাগের অধীন দপ্তর-সংস্থা হতে ২৪টি ইনোভেশন উদ্যোগ প্রদর্শিত হয়েছে। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ, গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করা ও বিদ্যুৎ উৎপাদনের বিকল্প ও সহজলভ্য উৎস খুঁজে বের করা ইনোভেশন শোকেসিংয়ের লক্ষ্য। ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে সরকারি সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে ইনোভেশনের বিকল্প নেই।

বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়ির সচিব মো. হাবিবুর রহমান ডিপিডিসির ইনোভেশন শোকেসিংয়ে বিজয়ীদের ক্রেস্ট ও সনদ প্রদান করেন। ডিপিডিসির পক্ষে জেনারেল ম্যানেজার (আইসিটি) রবিউল হাসান ক্রেস্ট ও সনদ গ্রহণ করেন। সিনিয়র সচিব মো. হাবিবুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, ২০৪১ সালের লক্ষ্য অর্জন করতে হলে নিজস্ব প্রযুক্তির উদ্ভাবন বা ব্যবহৃত প্রযুক্তির নিজস্ব ভার্সন সৃজন করতে হবে।

বিদ্যুৎ বিভাগের প্রধান ইনোভেশন কর্মকর্তা নিরোদ চন্দ্র মন্ডলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. হুমায়ুন কবির এবং বিদ্যুৎ বিভাগ ও এর আওতাধীন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামকে এনআরবিসি ব্যাংকের অনুদান

আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামকে করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার (সিএসআর) আওতায় ২০ লাখ টাকার অনুদান দিয়েছে এনআরবিসি ব্যাংক পিএলসি। সম্প্রতি ব্যাংকের গুলশান শাখার সভাকক্ষে অনুষ্ঠানে আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামের নির্বাহী পরিচালক মাহফুজুর রহমানের হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান পারভেজ তমাল। ছবি : সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
করপোরেট ডেস্ক

আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামকে করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার (সিএসআর) আওতায় ২০ লাখ টাকার অনুদান দিয়েছে এনআরবিসি ব্যাংক পিএলসি। সম্প্রতি ব্যাংকের গুলশান শাখার সভাকক্ষে অনুষ্ঠানে আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামের নির্বাহী পরিচালক মাহফুজুর রহমানের হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান পারভেজ তমাল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিচালক এ এম সাইদুর রহমান, এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান, স্বতন্ত্র পরিচালক এয়ার চিফ মার্শাল (অব.) আবু এসরার, ড. রাদ মজিব লালন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) মো. রবিউল ইসলাম, ডিএমডি ও সিএফও হারুনুর রশিদ এবং কোম্পানি সচিব মোহাম্মদ আহসান হাবিব প্রমুখ। এ সময় ব্যাংকের চেয়ারম্যান পারভেজ তমাল বলেন, আর্তমানবতার সেবায় এনআরবিসি ব্যাংক সব সময় এগিয়ে এসেছে। দেশের বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা সহায়তায় ব্যাংক কাজ করে থাকে। করোনা অতিমারিতে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে এনআরবিসি ব্যাংক ‘মানবিক ব্যাংক’ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

বিষয়:

শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের নির্বাহী কমিটির সভা

শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক পিএলসির নির্বাহী কমিটির ৮৭৩তম সভা সম্প্রতি ব্যাংকের করপোরেট প্রধান কার্যালয়ের পর্ষদ সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ব্যাংকের নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আক্কাচ উদ্দিন মোল্লা। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক পিএলসির নির্বাহী কমিটির ৮৭৩তম সভা সম্প্রতি ব্যাংকের করপোরেট প্রধান কার্যালয়ের পর্ষদ সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ব্যাংকের নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আক্কাচ উদ্দিন মোল্লা। সভায় বিভিন্ন খাতে অর্থায়ন এবং ব্যাংকিং সম্পর্কিত বিষয়াবলি নিয়ে আলোচনা করা হয়। সভায় অন্যদের মধ্যে ব্যাংকের নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ফকির আখতারুজ্জামান, ব্যাংকের পরিচালক ও কমিটির সদস্যরা- মো. সানাউল্লাহ সাহিদ, মহিউদ্দিন আহমেদ, ইঞ্জি. মো. তৌহিদুর রহমান এবং মোহাম্মদ ইউনুছ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া সভায় ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোসলেহ উদ্দীন আহমেদ এবং কোম্পানি সচিব মো. আবুল বাশার উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

নারায়ণগঞ্জে উত্তরা মোটর্সের শো-রুম উদ্বোধন

এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার ভুইগড় কাজীপাড়া কড়ইতলা বাস স্ট্যান্ডে মোটরগাড়ি নামে উত্তরা মোটর্সের এসএমএল ইসুজু কমার্শিয়াল গাড়ির ডিলার শো-রুম উদ্বোধন করা হয়। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বাংলাদেশে অটোমোবাইল সেক্টরের স্বনামধন্য, সুপ্রতিষ্ঠিত ও শীর্ষস্থানীয় গাড়ি আমদানিকারক, প্রস্তুতকারী, সংযোজনকারী ও বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠান উত্তরা মোটর্স বাংলাদেশে এসএমএল ইসুজু কমার্শিয়াল গাড়ির একমাত্র পরিবেশক। দীর্ঘ ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে দেশব্যাপী ১৫টি শাখা অফিস ও ২২টি ডিলারের মাধ্যমে এসএমএল ইসুজু কমার্শিয়াল গাড়ি বাজারজাতকরণ ও বিক্রয়োত্তর সেবাপ্রদান নিশ্চিত ও সহজলভ্য করে আসছে। সম্প্রতি এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার ভুইগড়, কাজীপাড়া কড়ইতলা বাস স্ট্যান্ডে মোটরগাড়ি নামে উত্তরা মোটর্সের এসএমএল ইসুজু কমার্শিয়াল গাড়ির ডিলার শো-রুম উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উত্তরা মোটর্সের এসএমএল ইসুজুর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ব্রিগে. জেনারেল মোহাম্মদ ইউসুফসহ (অব.) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, ডিলার তানভীর হোসেন ও ব্যবসায়ীরা এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরাসহ আরও অনেকেই। এখানে এসএমএল ইসুজুর প্রেস্টিজ জিএস পিকআপ, ডব্লিউটি-৪৯ ট্রাক, সুপার-১৪ ট্রাক, সুপার-১৭ ট্রাক ও সম্রাট জিএস টিপার আকর্ষণীয় মূল্যে ও সহজশর্তে কিস্তির মাধ্যমে পাওয়া যাবে। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের লক্ষ্মীপুর উপশাখা উদ্বোধন

বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের (বিসিবিএল) নতুন লক্ষ্মীপুর উপশাখা সম্প্রতি উদ্বোধন করা হয়। বিসিবিএল পর্ষদ নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান হুমায়ুন বখতিয়ারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিতব্য অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক পিংকু এমপি। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের (বিসিবিএল) নতুন লক্ষ্মীপুর উপশাখা সম্প্রতি উদ্বোধন করা হয়। বিসিবিএল পর্ষদ নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান হুমায়ুন বখতিয়ারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিতব্য অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক পিংকু এমপি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. তাজুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান ও লক্ষ্মীপুর বণিক সমিতির সভাপতি সালাউদ্দিন টিপু, বিসিবিএলের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. আব্দুল কাদের। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট বাহারউদ্দীন, ব্যবসায়ী মো. সেলিম, চেয়ারম্যান শেখ মজিব, মান্দারী বাজার শাখার এবং রায়পুর শাখার ব্যবস্থাপক, সংশ্লিষ্ট উপশাখার ইনচার্জসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি ও গ্রাহকরা। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে প্রত্যাশা ব্যক্ত করে বলেন ‘লক্ষ্মীপুর’ উপশাখাটি দ্রুততম সময়ে সেবা প্রদানের মাধ্যমে গ্রাহকদের মন জয় করতে পারবে। সভাপতি হুমায়ুন বখতিয়ার এফসিএ আশাপ্রকাশ করেন, সর্বাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত এই নতুন উপশাখা নিজস্ব এলাকার অর্থনীতিকে আরও বেগবান করতে যথাযথ ভূমিকা পালন করবে। নতুন উদ্বোধিত উপশাখা এলাকা ক্রমবর্ধিষ্ণু ব্যবসায়িক এলাকা হিসেবে অবহিত করে বলেন, আমাদের নতুন উপশাখাটি ব্যাংকিং নিয়মের মধ্যে থেকে এলাকার গ্রাহককে সব ধরনের ব্যাংকিং সেবা প্রদানে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। গ্রাহকদের সর্বোচ্চমানের সেবা প্রদান নিশ্চিতকল্পে তিনি উপশাখার ইনচার্জসহ সব কর্মকর্তাকে নির্দেশনা প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও তার বক্তব্যে দেশের সব অঞ্চলে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের সেবাকে দ্রুত সম্প্রসারণ করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন, পাশাপাশি তিনি গ্রাহক সেবার ওপর সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করে ব্যবসা-বাণিজ্যের সব ক্ষেত্রে ব্যাংকের বিভিন্ন কার্যক্রমের কথা সভায় উপস্থিত সবাইকে অবহিত করেন। বিশেষ অতিথি তাদের বক্তব্যে ব্যাংকারদের প্রতি গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদানের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। বিজ্ঞপ্তি

বিষয়:

বিআরটিসির ২৯৮তম পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ঢাকায় বিআরটিসি’র প্রধান কার্যালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি)’র পরিচালনা পর্ষদের ২৯৮তম (পুনর্গঠিত পরিচালনা পর্ষদের প্রথম) সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ১১টায় পর্ষদ সভায় সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিআরটিসির চেয়ারম্যান মোঃ তাজুল ইসলাম।

পর্ষদ সভার সভাপতির উপস্থিতিতে পুনর্গঠিত পর্ষদ সভার সদস্যগণ নিজ নিজ পরিচয় তুলে ধরেন। বিআরটিসির পরিচালক (প্রশাসন) এসএম কামরুজ্জামান

বিগত পর্ষদ সভার গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তসমূহ যেমন- প্রশিক্ষণ বিভাগ স্বতন্ত্রকরণ, গাড়ি মেরামত ব্যয় কিলোমিটার প্রতি প্রাপ্যতার পরিবর্তে প্রয়োজন অনুযায়ি বরাদ্দ প্রদান প্রথা চালুকরণ, আইসিডব্লিউএস- এর টায়ার রিট্রেডিং প্লান্ট চালুকরণ, কক্সবাজার, কুয়াকাটা, ঢাকা (দোহার/নাবাবগঞ্জ), ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাস ডিপো ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন পাবলিক স্কুল এর সংস্কার বাবদ অর্থ বরাদ্দ; ইত্যাদি বাস্তবায়ন প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।

এছাড়াও সদস্য সচিব পুনর্গঠিত পর্ষদ সভার প্রথম সভায় গুরুত্বপূর্ণ আলোচ্যসূচি যেমন- প্রশিক্ষণ প্রদানের নিমিত্ত বিআরটিসি’র প্রত্যেকটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট/কেন্দ্রের জন্য ‘স্কুটি/মোটর সাইকেল’ ক্রয় ও প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত, বিশ্বব্যাংক এর রোডসেফটি প্রকল্প বাস্তবায়নের নিমিত্ত বিআরটিসি’র প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট/কেন্দ্র সংস্কার ও আধুনিকায়ন, বিআরটিসি’র নিজস্ব অর্থায়নে পরীক্ষামূলকভাবে ১০টি বাস তৈরির লক্ষ্যে চেসিস ও ইঞ্জিন ক্রয়, বিভিন্ন ডিপো/ইউনিটের মসজিদ নির্মাণ/সংস্কারের জন্য অনুদান প্রদান, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন পাবলিক স্কুলে খন্ডকালীন শিক্ষকদের বেতন বাবদ অর্থ প্রদান সংক্রান্ত, ‘শিক্ষা সহায়তা তহবিল’ থেকে সংস্কার বাবদ অর্থ বরাদ্দ প্রসঙ্গে, ‘দৈনিক মজুরি ভিত্তিক’ কর্মচারী নিয়োগ প্রসঙ্গে, দীর্ঘদিন যাবত বন্ধ থাকা বিআরটিসি স্পোর্টস ক্লাব-চালুকরণসহ আরো কয়েকটি বিষয়ের ‍উপর প্রস্তাব উত্থাপন করেন। আলোচ্য বিষয়গুলো পর্ষদ সভার সভাপতি এবং সদস্যগণের সম্মতিতে বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

উন্মুক্ত আলোচনায় আবুল কালাম আজাদ (সভাপতি, মেট্রোপলিটন প্রেস ক্লাব, বরিশাল), নানা ঘাত প্রতিঘাতের মাধ্যমে বিআরটিসি’কে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে আসার জন্য চেয়ারম্যান, বিআরটিসি’কে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। সাফকাত মঞ্জুর (সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি, রাজশাহী) চেয়ারম্যান বিআরটিসি’কে উদ্দেশ্য করে বলেন, বিআরটিসি আপনার হাতে প্রাণ ফিরে পেয়েছে। পর্ষদ সভার অন্যান্য সদস্যগণও বিআরটিসি’র উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

উক্ত সভায় সভাপতি নতুন পরিচালনা পর্ষদ সদস্যদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। তিনি পর্ষদ সভার সদস্য ফরিদা ইয়াসমিন (সভাপতি, জাতীয় প্রেসক্লাব, ঢাক)’কে জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসনে এমপি হওয়ায় অভিনন্দন জানান। বর্তমানে বিআরটিসি’তে প্রায় ৩৫০ জন দক্ষ কারিগর রয়েছে, যারা নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যবহার করে গাড়ি তৈরি করতে সক্ষম। এছাড়াও বিআরটিসি’র ২৬ প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট/ কেন্দ্রগুলোর মাধ্যমে একদিনে ৫-৬ হাজার প্রশিক্ষণার্থীকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে। ২০২১ সালের পূর্বে নতুন গাড়ি আসা সত্ত্বেও ৬.৩০ কোটি টাকা বেতন দেওয়া সম্ভব হয়নি, এখন পুরাতন গাড়ি দিয়ে প্রতি মাসে প্রায় ১২ কোটি টাকা বেতন দেওয়া হচ্ছে। বিআরটিসি’র এই উন্নয়ন ও অর্জনকে টেকসই করতে হবে।


বিজিএমইএ সভাপতির সঙ্গে ইইউ প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ

রাজধানীর আরকে মিশন রোডে সম্পূর্ণ নতুন আঙ্গিকে বড় পরিসরে একটি শাখা উদ্বোধন করেছে ব্র্যাক ব্যাংক। এ ব্রাঞ্চটি মূলত মতিঝিলের গ্রাফিক্স বিল্ডিং থেকে স্থানান্তরিত করে ‘আরকে মিশন রোড ব্রাঞ্চ’ নামে নতুনভাবে নামকরণ করা হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ), ডেনমার্ক, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, সুইডেন, স্পেন এবং ইতালির রাষ্ট্রদূত ও প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি এস এম মান্নান কচির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। প্রতিনিধিদলে ছিলেন বাংলাদেশে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিদলের প্রধান ও রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত ক্রিশ্চিয়ান ব্রিকস-মোলার, জার্মানির রাষ্ট্রদূত আচিম ট্রস্টার, ইতালির রাষ্ট্রদূত আন্তোনিও আলেসান্দো, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত আলেকজান্দ্রা বার্গ ভন লিন্ডে, নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের চার্জ ডি’ অ্যাফেয়ার্স থিজস ওয়াউডস্ট্রা, ইউ ডেলিগেশনের উপপ্রধান (ডেপুটি হেড অব মিশন) ড. বার্ন্ড স্প্যানিয়ার, স্প্যানিশ দূতাবাসের কমার্শিয়াল অ্যাটাশে এসথার পেরেজ তাহোসেস এবং বাংলাদেশে ইইউ প্রতিনিধিদলের বাণিজ্য উপদেষ্টা আবু সৈয়দ বেলাল। অন্যদিকে বিজিএমইএর পক্ষে সংগঠনটির সিনিয়র সহ-সভাপতি খন্দকার রফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি আরশাদ জামাল (দীপু), সহ-সভাপতি (অর্থ) মো. নাসির উদ্দিন, সহ-সভাপতি মিরান আলী, সহ-সভাপতি আবদুল্লাহ হিল রাকিব, পরিচালক আসিফ আশরাফ, পরিচালক মো. ইমরানুর রহমান, পরিচালক শোভন ইসলাম, পরিচালক হারুন অর রশিদ, পরিচালক মোহাম্মদ সোহেল সাদাত, পরিচালক মো. আশিকুর রহমান (তুহিন), পরিচালক শামস মাহমুদ, পরিচালক আবরার হোসেন সায়েম, পরিচালক মো. মহিউদ্দিন রুবেল, পরিচালক ব্যারিস্টার শেহরিন সালাম ঐশী, পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম, পরিচালক সাইফুদ্দিন সিদ্দিকী সাগর, পরিচালক মো. রেজাউল আলম ((মিরু) এবং বিজিএমইএ স্ট্যান্ডিং কমিটি অন আইএলও অ্যান্ড লেবার অ্যফেয়ার্সের চেয়ারম্যান আ ন ম সাইফুদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি


ওয়ালটন ৪২তম জাতীয় মহিলা দাবা শুরু আজ

‘ওয়ালটন ৪২তম জাতীয় মহিলা দাবা প্রতিযোগিতা-২০২৪’ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত অতিথিরা। ছবি: সংগৃহীত 
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
করপোরেট ডেস্ক

ক্রীড়াবান্ধব প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসির পৃষ্ঠপোষকতায় আজ সোমবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ‘ওয়ালটন ৪২তম জাতীয় মহিলা দাবা প্রতিযোগিতা-২০২৪’। বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় ১১দিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতা চলবে ৩০ মে পর্যন্ত। গতকাল রোববার বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসির সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), সিনিয়র ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর রবিউল ইসলাম মিলটন, বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহাব উদ্দিন শামীম, ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আঞ্জুমান আরা আকসির, কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও আন্তর্জাতিক অর্গানাইজার মাহমুদা হক চৌধুরী মলি ও আন্তর্জাতিক দাবা বিচারক মো. হারুন অর রশিদসহ অন্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠেয় এ ইভেন্টে ১২ জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করবেন। এদের মধ্যে গতবারের জাতীয় মহিলা চ্যাম্পিয়ন মহিলা ফিদে মাস্টার নোশিন আঞ্জুম এবং দেশের দুই মহিলা আন্তর্জাতিক মাস্টার রানী হামিদ ও শারমীন সুলতানা শিরিন সরাসরি অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছেন। বেগম লায়লা আলম ১৪তম আন্তর্জাতিক রেটিং মহিলা দাবা প্রতিযোগিতায় শীর্ষস্থান প্রাপ্ত ৯ জন খেলোয়াড় এবারের জাতীয় দাবায় অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছেন।

গতকাল অংশগ্রহণকারী খেলোয়াড়দের নাম্বার ড্র অনুষ্ঠিত হয়। নাম্বার অনুযায়ী খেলোয়াড়রা হলেন- ১. মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার নুশরাত জাহান আলো, ২. মহিলা ফিদে মাস্টার জান্নাতুল ফেরদৌস, ৩. মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার ওয়ারসিয়া খুশবু, ৪. তাবাসসুম সাদিয়া শাহজাহান, ৫. আন্তর্জাতিক মাস্টার রানী হামিদ, ৬. নীলাভা চৌধুরী, ৭. মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার কাজী জারিন তাসনিম, ৮. আন্তর্জাতিক মাস্টার শারমীন সুলতানা শিরিন, ৯. মহিলা ফিদে মাস্টার নোশিন আঞ্জুম, ১০. মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার আহমেদ ওয়ালিজা, ১১. মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার ইশরাত জাহান দিবা ও ১২. মহিলা ফিদে মাস্টার ওয়াদিফা আহমেদ।

আজ উদ্বোধনী দিনে প্রথম রাউন্ডে মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার নুশরাত জাহান আলো বনাম মহিলা ফিদে মাস্টার ওয়াদিফা আহমেদ, মহিলা ফিদে মাস্টার জান্নাতুল ফেরদৌস বনাম মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার ইশরাত জাহান দিবা, মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার ওয়ারসিয়া খুশবু বনাম মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার আহমেদ ওয়ালিজা, তাবাসসুম সাদিয়া শাহজাহান বনাম মহিলা ফিদে মাস্টার নোশিন আঞ্জুম, আন্তর্জাতিক মাস্টার রানী হামিদ বনাম আন্তর্জাতিক মাস্টার শারমীন সুলতানা শিরিন এবং নীলাভা চৌধুরী বনাম মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার কাজী জারিন তাসনিমের মধ্যকার খেলাগুলো অনুষ্ঠিত হবে।

প্রতিযোগিতার খেলা প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে শুরু হবে। বিজয়ীদের নগদ অর্থ পুরস্কার দেওয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে ওয়ালটন হাই-টেকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিক্টের এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) বলেন, ‘আমরা ওয়ালটন পরিবার নিয়মিত দাবা ফেডারেশনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছি। প্রিমিয়ার ডিভিশন, ফার্স্ট ডিভিশন, সেকেন্ড ডিভিশনসহ বিভিন্ন দাবা প্রতিযোগিতায় পৃষ্ঠপোষকতা করেছি। এর আগেও আমরা জাতীয় মহিলা দাবা প্রতিযোগিতার সঙ্গে ছিলাম, এবার আবার যুক্ত হয়েছি। মেয়েদের দাবাকে এগিয়ে নিতে ইনশাল্লাহ ওয়ালটন সব সময় পাশে থাকার চেষ্টা করবে। আমি এই টুর্নামেন্টের সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।’

সিনিয়র ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর রবিউল ইসলাম মিলটন বলেন, ‘বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সঙ্গে ওয়ালটনের সম্পর্ক অনেক দিনের। সম্পৃক্ততাও নিয়মিত। আমি যতটুকু জানি- প্রিমিয়ার ডিভিশন দাবা লিগ থেকে শুরু করে প্রথম বিভাগ, দ্বিতীয় বিভাগ, আন্তর্জাতিক রেটিং দাবা, আন্তর্জাতিক ফিদে রেটিং দাবা, মহানগরী ফিদে রেটিং দাবা, ট্যালেন্ট হান্ট স্কুল দাবা, মেয়েদের দাবা এমনকি দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের দাবা প্রতিযোগিতায়ও আমরা ওয়ালটন পরিবার পৃষ্ঠপোষকতা করছি। এর আগে নিয়মিত আমরা জাতীয় মহিলা দাবার সঙ্গেও ছিলাম। এবার আবার যুক্ত হলাম। আশা করছি এই যাত্রা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।’

বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহাব উদ্দিন শামীম ওয়ালটন গ্রুপকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘আমি প্রথমেই ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই ওয়ালটন গ্রুপের প্রতি। তারা অত্যন্ত গুরুত্বসহকারে নিয়মিত দাবা প্রতিযোগিতায় পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছে। ২০১৪ সাল হতে ওয়ালটন গ্রুপ নিয়মিত প্রিমিয়ার ডিভিশন, প্রথম বিভাগ দাবা লিগ, দ্বিতীয় বিভাগ দাবা লিগ এবং র‌্যাপিড দাবা প্রতিযোগিতায় পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছে। তারা ২০১৭, ২০১৮ ও ২০১৯ সালের যথাক্রমে ৩৭, ৩৮ ও ৩৯তম জাতীয় মহিলা দাবা প্রতিযোগিতার পৃষ্ঠপোষকতাও ছিল। এবার আবার তারা জাতীয় মহিলা দাবায় পৃষ্ঠপোষকতা করতে এগিয়ে এসেছে। সে জন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই। আশা করছি ভবিষ্যতেও ওয়ালটন গ্রুপকে আমরা পাশে পাব।’

এই প্রতিযোগিতার ইভেন্ট পার্টনার জনপ্রিয় ব্র্যান্ড মার্সেল। আর অনলাইন মিডিয়া পার্টনার হিসেবে আছে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল রাইজিংবিডি.কম।


আইএফসির অ্যাওয়ার্ড পেল ব্যাংক এশিয়া

ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশনের (আইএফসি) ‘বেস্ট ট্রেড পার্টনার ব্যাংক ইন সাউথ এশিয়া’ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে ব্যাংক এশিয়া পিএলসি। সম্প্রতি স্পেনের বার্সেলোনায় ‘গ্লোবাল ট্রেড পার্টনার মিটিং’ অনুষ্ঠানে ব্যাংক এশিয়ার ভাইস চেয়ারম্যান জাকিয়া রউফ চৌধুরীর হাতে অ্যাওয়ার্ড তুলে দেন আইএফসির প্রতিনিধি। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

অসাধারণ সেবার মান এবং বাণিজ্য প্রচেষ্টায় নিরলস সমর্থনের স্বীকৃতিস্বরূপ ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশনের (আইএফসি) ‘বেস্ট ট্রেড পার্টনার ব্যাংক ইন সাউথ এশিয়া’ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে ব্যাংক এশিয়া পিএলসি। ব্যাংক এশিয়ার পাশাপাশি বিশ্বখ্যাত আরও কয়েকটি ব্যাংকও মর্যাদাপূর্ণ এ পুরস্কারপ্রাপ্তদের তালিকায় স্থান পায়। সম্প্রতি স্পেনের বার্সেলোনায় ‘গ্লোবাল ট্রেড পার্টনার মিটিং’ অনুষ্ঠানে আইএফসির প্রতিনিধি ব্যাংক এশিয়ার ভাইস চেয়ারম্যান জাকিয়া রউফ চৌধুরীর হাতে অ্যাওয়ার্ড তুলে দেন। এ সময় ব্যাংকের চেয়ারম্যান রোমো রউফ চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহেল আর কে হোসেন অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন। মর্যাদাপূর্ণ এ পুরস্কার ব্যাংক এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের প্রতিশ্রুতিবদ্ধতার স্বীকৃতি এবং বিশ্বজুড়ে নিরবচ্ছিন্ন বাণিজ্য লেনদেনকে উৎসাহিতকরণ ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি পরিচালনা করার ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার ব্যাংকসমূহের মধ্যে অসামান্য সক্ষমতার প্রমাণ হিসেবে কাজ করে। বিজ্ঞপ্তি


আইসিবির ২৯তম শাখাব্যবস্থাপক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) ও এর আওতাধীন তিনটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানির ‘২৯তম শাখাব্যবস্থাপক সম্মেলন-২০২৪’ সম্প্রতি রাজধানীর হোটেল ফারস্ অ্যান্ড রিসোর্টসে অনুষ্ঠিত হয়। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) ও এর আওতাধীন তিনটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানির ‘২৯তম শাখাব্যবস্থাপক সম্মেলন-২০২৪’ সম্প্রতি রাজধানীর হোটেল ফারস্ অ্যান্ড রিসোর্টসে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন আইসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবুল হোসেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইসিবির পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. সুবর্ণ বড়ুয়া। এ ছাড়া আইসিবির তিনটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, মহাব্যবস্থাপক এবং সব শাখাপ্রধান ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ওই সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি


banner close