শনিবার, আগস্ট ১৩, ২০২২

মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক  আসামি গ্রেপ্তার
মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামি কে এম আমিনুল হক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

রাজধানীর কলাবাগান থেকে মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি কেএম আমিনুল হক ওরফে রজব আলীকে (৬৯) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত শনিবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড একশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। ২০১৮ সালের ৫ নভেম্বর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ১৯৭১ সালের মানবতাবিরোধী অপরাধে তাকে মৃত্যুদন্ড প্রদান করেন। এর পর থেকে সে পলাতক ছিল।

গতকাল রোববার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, ২০১৪ সালের ৫ নভেম্বর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে কে এম আমিনুল হক এর বিরুদ্ধে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, গণহত্যা, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও লুটপাটসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের সাতটি অভিযোগ আনা হয়। তদন্ত সংস্থা ২০১৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরবর্তীতে ২০১৬ সালের ১৮ মে ট্রাইব্যুনাল আমিনুল হক এর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। আদালত ২০১৮ সালের ৫ নভেম্বর কে এম আমিনুল হক ওরফে রজব আলীকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ প্রদান করেন।

পরিচালক বলেন, ১৯৭১ সালে আমিনুল ভৈরবে একটি কলেজে শিক্ষার্থী ছিল এবং সে পাকিস্তানি ইসলামি ছাত্রসংঘের ওই কলেজ শাখার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। সে ভৈরবে পাকিস্তানি সেনা ক্যাম্পে অস্ত্র প্রশিক্ষণ নেয়। পরে পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে সহায়তা করার জন্য এলাকায় ‘আলবদ’ বাহিনী গঠন করে এবং কিশোরগঞ্জ জেলার কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। গ্রেফতারকৃত আমিনুল মুক্তিযুদ্ধের সময় কিশোরগঞ্জ, ভৈরব, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হবিগঞ্জ এলাকায় নিরীহ মুক্তিকামী মানুষকে হত্যা করে। এছাড়া, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর দোসর হিসেবে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত গণহত্যা, নির্যাতনসহ মনবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটন করে। মুক্তিযুদ্ধের সময় সে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে হবিগঞ্জের লাখাই থানার কৃষ্ণপুর, গদাইনগর ও চন্ডিপুর গ্রামে এবং কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম থানার সদানগর ও সাবিয়ানগর গ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর থানার ফান্দাউক এলাকায় গণহত্যা, লুটপাট, ঘরবাড়ি লুন্ঠন ও নির্যাতন করে। এছাড়া নিরীহ বাঙ্গালিদের অপহরণ করে রাজাকার ক্যাম্পের টর্চার সেলে নির্যাতন করে হত্যা করে। 

স্বাধীনতার পর ১৯৭১ সালের ১৮ ডিসেম্বর আমিনুল যৌথ বাহিনীর কছে আত্মসমর্পণ করে। ১৯৭২ সালে তার বিরুদ্ধে অষ্টগ্রাম থানায় দালাল আইনে ৩টি মামলা হয়। এসব মামলায় তার ৪০ বছর সাজা হয়। কিন্তু রাষ্ট্রপতির বিশেষ ক্ষমায় ১৯৮১ সালে মাত্র ১০ বছর সাজা ভোগ করে মুক্তি পায় সে। ১৯৮২ সালে সে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশ ছাড়াও বেশ কয়েকবার পাকিস্তান যায়। ১৯৯৭ সালে সে নিজ এলাকা ছেড়ে ঢাকায় চলে আসে। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালে তার বিরুদ্ধে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ উঠলে সে আত্মগোপন করে। গ্রেফতার এড়াতে সে রাজধানীর ধানমন্ডি ও কলাবাগানসহ বিভিন্ন এলাকায় একাধিকবার বাসা পরিবর্তন করে।  

র‌্যাব কর্মকর্তা আরো বলেন, গ্রেফতারকৃত আমিনুল ’আমি আলবদর বলছি’ ও ’দুই পলাশী দুই মীরজাফর’ নামে ২ টি বই প্রকাশ করে। বইগুলোতে সে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নেতিবাচক ভাবে উপস্থাপন করে। এছাড়া ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট  শোকাবহ দিনসহ সামগ্রিক বিষয়গুলোও অত্যন্ত নেতিবাচকভাবে উপস্থাপন করে। অপরদিকে, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের আত্মস্বীকৃতি হিসেবে নিজেকে আলবদর কমান্ডার দাবী করে। ২০১৪ সালে তার প্রকাশিত ’দুই পলাশী দুই মীরজাফর’ বইটিতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে মিথ্যা তথ্য সন্নিবেশন করায় বইটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয় ও তার বিরুদ্ধে রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানায় একটি মামলা করা হয়।  

তিনি উল্লেখ করেন, গত ২ জুন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল থেকে মৃত্যুদন্ডাদেশ প্রাপ্ত অপর পলাতক আসামি নজরুল ইসলামকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনে র‌্যাব।

এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।


ছুরিকাঘাত করে ভ্যান ছিনতাই, গ্রেপ্তার ২

ছুরিকাঘাত করে ভ্যান ছিনতাই, গ্রেপ্তার ২
চালককে ছুরিকাঘাত ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় দুইজনকে আটক করেছে র‍্যাব।
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে এক চালককে ছুরিকাঘাত করে ভ্যানগাড়ি ছিনতাইয়ের ঘটনায় দুইজনকে আটক করেছে র‌্যাব।এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে তাদের বিরুদ্ধে গৌরীপুর থানায় মামলা করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে ময়মনসিংহ র‌্যাব-১৪ থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার পৌর এলাকার নওপাড় এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

গ্রেফতার দুইজন হলেন- উপজেলার পৌর এলাকার মোনাটি এলাকায় নাজিম উদ্দিনের ছেলে তোতা মিয়া। এছাড়া মজিবুর রহমান একই এলাকার আব্দুর রহিমের ছেলে। আহত ভ্যানচালক রতন মিয়া তারাকান্দা উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের বাসিন্দা।

বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, গত ৭ আগস্ট বিকেল ৩টার দিকে রতন মিয়া কুড়া সংগ্রহ করে ফিরছিলেন। দড়িপাড়া সেতুতে আসলে দুই ব্যক্তি তার গাড়ি আটকে দেয়। এ সময় রতনের বুকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে তার সঙ্গে থাকা ৬ হাজার ৭৯৫ টাকা, মোবাইল ও ভ্যানগাড়িটি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে রতনকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এরপর ১০ আগস্ট রতন মিয়ার বাবা আব্দুর রশিদ র‌্যাবের কাছে একটি অভিযোগ দেন। অভিযোগটি যাচাই-বাছাই করে বৃহস্পতিবার বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ছিনতাইকারীদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। পরে নওপাড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ভ্যানগাড়িটি উদ্ধারসহ একটি চাকু ও হিরোইনসহ একই অ্যানড্রয়েড মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়।

আটক দুইজন ছিনতাইয়ের পাশাপাশি নিয়মিত মাদক বিক্রি করতেন। গৌরীপুর থানায় শুক্রবার বিকেলে তাদের হস্তান্তর করা হয়েছে। রাতের তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে বলেও র‌্যাব জানায়।


রোববার ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘ মানবাধিকার প্রধান

রোববার ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘ মানবাধিকার প্রধান
মিশেল ব্যাচলেট
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত

পাঁচদিনের সফরে কাল রোবাবর ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রাধান মিশেল ব্যাচলেট। দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি দেখতে বাংলাদেশ সরকারের আমন্ত্রণে মিশেল ব্যাচলেটের এই সফর বলে জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সদর দপ্তর এক বার্তায় জানিয়েছে।

মিশেল ব্যাচলেটের এ সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অন্যান্য মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে। এছাড়া তিনি জাতীয় মানবাধিকার কমিশন, সুশীল সমাজ সংস্থার প্রতিনিধির সঙ্গেও দেখা করবেন। তিনি একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেবেন এবং কক্সবাজারে যাবেন বলেও জানানো হয়েছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সদর দপ্তর জানায়, বাংলাদেশ সরকারের আমন্ত্রণে রোববার জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচলেট বাংলাদেশে সরকারি সফর করবেন। 

সম্প্রতি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, মানবাধিকারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অর্জনগুলো মিশেল ব্যাচলেটের সফরে তুলে ধরবে সরকার। তিনি আমাদের অগ্রগতি দেখবেন এবং চ্যালেঞ্জগুলো জানতে পারবেন। আমরা এ সফরের জন্য অধীর অপেক্ষায় রয়েছি।


বাংলাদেশের মানুষ বেহেস্তে আছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশের মানুষ বেহেস্তে আছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন।
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

বাংলাদেশ নিয়ে একটি পক্ষ থেকে প্যানিক ছাড়ানো হচ্ছে উল্লেখ করে পরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হয়ে যাবে, একটি পক্ষ থেকে এমন প্যানিক ছড়ানো হচ্ছে। তবে বাস্তবে এর কোনো ভিত্তি নেই। অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ বেহেস্তে আছে।

শুক্রবার সকালে সিলেট এমএজি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সম্প্রসারণ প্রকল্পে ‘ভূমি অধিগ্রহণ বিষয়ক’ মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় সুইস ব্যাংকের কাছে নতুন করে তথ্য চাওয়ার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে, মন্ত্রী জবাবে বলেন, তাদের কাছে তথ্য চাওয়া হলে, তারা তথ্য দিতে চায় না। এটা তাদের মজ্জাগত সমস্যা।

ড. মোমেন বলেন, অর্থ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সুইস ব্যাংকের কাছে অতীতে ৬৭ জনের নাম উল্লেখ করে চিঠি দিয়ে তাদের অর্থের তথ্য চাওয়া হয়েছিল। সে সময় তারা শুধু একজনের তথ্য দিয়েছিল। আরও কয়েকবার তথ্য চাওয়া হলেও তাদের রাষ্ট্রদূত বলেছেন তথ্য চাওয়া হয়নি। এ সময় মন্ত্রী সুইজারল্যান্ডকে তথ্যের বিভ্রাট না করার জন্য আহ্বান জানান।

সভায় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, বিমান মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেনসহ প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রাজধানীতে এটিএম বুথে ছুরিকাঘাতে ব্যবসায়ী নিহত

রাজধানীতে এটিএম বুথে ছুরিকাঘাতে ব্যবসায়ী নিহত
আটক আব্দুস সামাদ। ছবি: সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

রাজধানীর উত্তরায় একটি ব্যাংকের এটিএম বুথের ভেতর টাকা তোলার সময় ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে এক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। স্থানীয়দের সহায়তায় ছিনতাইকারীকে আটক করেছে পুলিশ। 

নিহত ব্যবসায়ীর নাম শরিফ উল্লাহ (৪০)। আজ শুক্রবার দুপরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন। 

ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে উত্তরা ১১ নম্বর সেক্টরের সোনারগাঁও জনপথ রোডে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে টাকা তোলেন শরিফ। বুথের ভেতর টাকা গোনার সময় আব্দুস সামাদ (৩৮) নামে এক ছিনতাইকারী সেখানে যান। টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য বুথের ভেতর শরিফ উল্লাহকে তিনি এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করেন। 

পুলিশ জানায়, ছুরিকাঘাতে বুথের ভেতরে অচেতন হয়ে পড়েন শরিফ। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে উত্তরা আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত শরিফ টাইলস ব্যবসায়ী ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। উত্তরায় জাকিয়া টাইলস গ্যালারি অ্যান্ড স্যানিটারি নামে তার একটি পারিবারিক প্রতিষ্ঠান আছে। শরিফ টঙ্গীতে থাকতেন। তার গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জের মধুপুর গ্রামে।

আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশের ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।


প্রেম থেকে বিয়ে, অবিশ্বাস থেকে খুন

প্রেম থেকে বিয়ে, অবিশ্বাস থেকে খুন
গ্রেপ্তার রেজাউল করিমকে আনা হয় র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে। আজ শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে। ছবি: দৈনিক বাংলা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • গত বুধবার রাজধানীর একটি হোটেল থেকে নারী চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

  • হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে ওই নারীর স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

রাজধানীর একটি হোটেলে নারী চিকিৎসককে হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে তার স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তারকৃতের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানিয়েছে, অবিশ্বাস থেকে হত্যার ঘটনা ঘটে।

আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে নারী চিকিৎসকের স্বামীকে গ্রেপ্তারের কথা জানান র‍্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

গ্রেপ্তারকৃতের নাম রেজাউল করিম। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে চট্টগ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সংবাদ সম্মেলনে হত্যার নানা তথ্য তুলে ধরেন র‌্যাব কর্মকর্তা।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ২০১৯ সালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই নারী চিকিৎসকের সঙ্গে  পরিচয় হয় রেজাউলের। সেখান থেকে প্রেম। এক বছর পর পরিবারের অমতে বিয়ে করেন তারা। কিন্ত বিয়ের পর থেকেই পরস্পরকে সন্দেহ করতে শুরু করেন। স্বামীর একাধিক সম্পর্কের প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন স্বামী। জন্মদিন পালন করার কথা বলে স্ত্রীকে হোটেলে নিয়ে যান রেজাউল। সেখানেই গলাকেটে হত্যা করা হয় নারী চিকিৎসককে।

র‍্যাব বলছে, অভিযুক্ত রেজাউলের ফোনকল বিশ্লেষণ করে একাধিক প্রেমের ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি পুরো ঘটনার দায়ও স্বীকার করেছেন।

এর আগে গত বুধবার সকালে ওই নারী চিকিৎসককে স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিয়ে ঢাকার পান্থপথের ‘ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্ট’ হোটেলের একটি কক্ষে ওঠেন রেজাউল। দুপুরের দিকে তিনি ঘরে তালা দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার পর রাতে ওই কক্ষ থেকে ২৭ বছর বয়সী তরুণীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত ও জখমের চিহ্ন ছিল।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব কর্মকর্তা জানান, মগবাজারের কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস শেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজে গাইনি বিষয়ে একটি কোর্স করছিলেন ওই চিকিৎসক। হত্যার ঘটনায় রেজাউলকে আসামি করে মামলা করেছে নিহতের পরিবার।

র‍্যাবের মুখপাত্র খন্দকার আল মঈন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে রেজাউল জানিয়েছেন, ভুক্তভোগীর পাশাপাশি একাধিক নারীর সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি ভুক্তভোগী জানতে পারলে বিভিন্ন সময় তাদের বাগ্‌বিতন্ডা হয়। একপর্যায়ে রেজাউল তার প্রতিবন্ধকতা দূর করতে ভুক্তভোগীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।