মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২

কর্মহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কায় ৪ হাজার ৮শ পাড়াকর্মী

কর্মহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কায় ৪ হাজার ৮শ পাড়াকর্মী
প্রকল্পের আওতায় তিন পার্বত্য জেলার ২৫টি উপজেলার চার হাজার পাড়াকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়। ছবি: দৈনিক বাংলা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • সুপ্রিয় চাকমা শুভ, রাঙামাটি

‘পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান’ প্রকল্প। পার্বত্য এলাকার অধিবাসীদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও মৌলিক সেবা খাতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে প্রকল্পটি যাত্রা শুরু করে ২০১৮ সালে। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড পরিচালিত পাঁচ বছর মেয়াদি এই প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২০২৩ সালের ৩০ জুন। মেয়াদ শেষ হলে পাহাড়িদের জীবনমানে ইতিবাচক ভূমিকা রেখে আসা এই প্রকল্পের আওতায় পরিচালিত পাড়াকেন্দ্রের পাড়াকর্মীসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা কর্মহীন হয়ে পড়বেন। প্রকল্পটি অব্যাহত রাখা না হলে পার্বত্য অঞ্চলে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবাসহ তৃণমূল পর্যায়ের মৌলিক সেবাদান ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে বলেও আশঙ্কা স্থানীয়দের। সে কারণেই এই প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর দাবি করছেন তারা। প্রকল্প ব্যবস্থাপক বলছেন, স্থায়ী আকারেই প্রকল্পটি চান তারাও।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, সরকারি বরাদ্দের ৩৫০ কোটি ৮৭ লাখ টাকার সঙ্গে ইউনিসেফ থেকে পাওয়া ১২৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকায় টেকসই সামাজিক সেবার প্রকল্পটি বাস্তবায়নের কাজ চলছে। প্রকল্পের আওতায় পরিচালিত ৪ হাজার ৮০০ পাড়াকেন্দ্রে নিয়োজিত আছেন ৪ হাজার ৮০০ পাড়াকর্মী এবং ২৩৯ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। প্রকল্পটির মেয়াদ না বাড়লে এই বিপুল জনগোষ্ঠী হয়ে পড়বেন কর্মহীন। তার চেয়েও বড় কথা, এই মানুষগুলো প্রায় চার দশক ধরে নিবেদিত হয়ে এই কাজ করে যাচ্ছেন, যারা প্রকল্পটি বন্ধের সঙ্গে সঙ্গে পড়বেন বড় ধরনের অর্থনৈতিক ঝুঁকিতে।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত শতকের আশির দশকের শুরুর দিকে বাংলাদেশ সরকার ও দাতা সংস্থা ইউনিসেফের যৌথ উদ্যোগে পার্বত্য অঞ্চলের মা ও শিশুদের কল্যাণে সেবামূলক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছিল। পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর আর্থসামাজিক উন্নয়ন, বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ দিয়ে আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে আয় বাড়ানো এবং শিক্ষার হার সম্প্রসারণ ছিল এর প্রধান লক্ষ্য। পরে নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে ‘সমন্বিত সমাজ উন্নয়ন প্রকল্প দ্বিতীয় পর্যায়’ নাম দিয়ে ২৫ থেকে ৫০টি পরিবারের জন্য একটি পাড়াকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে সামাজিক সেবাদান কার্যক্রম চালু রাখা হয়, যা ২০১১ সাল পর্যন্ত চলমান থাকে।

জানা যায়, ওই প্রকল্পের আওতায় তিন পার্বত্য জেলার ২৫টি উপজেলায় তিন হাজার পাঁচশটি পাড়াকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রতিটি পাড়াকেন্দ্রে একজন পাড়াকর্মী নিয়োগ দিয়ে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মা ও শিশুদের টিকা গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করা, বিশুদ্ধ পানি পান, গর্ভ ও প্রসবকালীন সেবা ও পরামর্শ প্রদান, স্বাস্থ্যসম্মত পয়ঃব্যবস্থাপনা, জন্মনিবন্ধন, কমিউনিটির সক্ষমতা বাড়ানো, কিশোর-কিশোরী উন্নয়নের বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করা হয়। প্রকল্পটি অবশ্য ২০১২ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত মেয়াদে তৃতীয় পর্যায় নামে অব্যাহত থাকে আরও পাঁচ বছর। এই সময়ে পার্বত্য তিন জেলার ১১৮টি ইউনিয়নের ৩ হাজার ৬১৬টি গ্রামে ১ লাখ ৬০ হাজার পরিবারকে মৌলিক সেবার আওতায় আনার উদ্যোগ নেয়া হয়। পাড়াকেন্দ্রগুলো সব ধরনের মৌলিক সেবা বিতরণের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করা হয়। ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলায় নির্মিত চার হাজারতম পাড়াকেন্দ্রটি উদ্বোধন করেছিলেন। এরপর টেকসই সামাজিক সেবা আকারে ২০২৩ সাল পর্যন্ত প্রকল্পটির কার্যক্রম বাড়ানো হয়।

পাড়াকর্মীসহ স্থানীয়রা বলছেন, পার্বত্য অঞ্চলের শিশুদের প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা, পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষার মাধ্যমে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা, প্রাক-শৈশব উন্নয়ন, গর্ভ থেকে তিন বছর বয়সী শিশুদের এক হাজার সোনালি দিন বাস্তবায়ন, নারী ও শিশুমৃত্যুর হার রোধ, তিন থেকে ছয় বছর বয়সী শিশুদের জন্য প্রাক-শৈশব যত্ন, গর্ভবতী, প্রসূতি ও নবজাতকের স্বাস্থ্যসেবা ও পরামর্শ, প্রত্যক্ষ পুষ্টি কার্যক্রম, যথোপযুক্ত জীবন নির্বাহী কৌশল, নারী ও শিশু অধিকার বিষয়ে তৃণমূলে ধারণা দেয়ার পাশাপাশি নারী ও শিশুদের টিকা নিতে উদ্বুদ্ধ করার মতো নানা বিষয়ে কাজ করছেন পাড়াকর্মীরা। প্রকল্পের মেয়াদ না বাড়লে এসব কর্যক্রম থমকে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা তাদের।

বরকল উপজেলার সুবলং ইউনিয়নের তন্ন্যছড়ি মডেল পাড়াকেন্দ্রের পাড়াকর্মী পহেলী চাকমা দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘শুনেছি ২০২৩ সালের জুনে প্রকল্পটির মেয়াদ শেষ হচ্ছে। পাড়াকেন্দ্রে পড়ুয়া শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়ে তখন থেকেই ভাবছি। কারণ, প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে তারা এখানে যে শিক্ষা পায়, তার ব্যবস্থা অন্য কোথাও নেই। এ ছাড়া উঠান বৈঠকের মাধ্যমে গর্ভবতী মা, প্রসূতি ও কিশোর-কিশোরীদের স্বাস্থ্য পরামর্শ দিয়ে থাকি আমরা। প্রকল্প শেষ হয়ে গেলে এগুলো কে দেবে?’

সদর উপজেলার বন্দুক ভাঙ্গা ইউনিয়নের কুমড়াপাড়া পাড়াকেন্দ্রের পাড়াকর্মী জিতা চাকমা বলেন, ‘বর্ণমালা পরিচিতি, সংখ্যা শেখানো, সহজ শব্দ গঠনের মতো বিষয়গুলো শিশুরা পাড়াকেন্দ্রেই শিখে থাকে। পাশাপাশি সহপাঠ্য কার্যক্রমে যুক্ত করা হয় তাদের, যা তাদের মানসিক বিকাশে সহায়তা করে। তিন থেকে পাঁচ বছর বয়সী শিশুরা পাড়াকেন্দ্রে পড়ার সুযোগ পায় বলেই প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গেলে তারা সহজেই সব কিছু আয়ত্তে আনতে পারে। প্রকল্প থেমে গেলে পার্বত্য শিশুরাও এই সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে।’

প্রকল্পসংশ্লিষ্টরা বলছেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে একটি স্বতন্ত্র শাখা সৃজন করে প্রকল্পের কার্যক্রমগুলো চালু রাখতে চান তারা। সে ক্ষেত্রে অত্যাবশ্যকীয় সম্পদ ও জনবল রাজস্ব খাতে আনার কথা তাা ভাবছেন। এর আগ পর্যন্ত ৮৫ কোটি টাকার বার্ষিক থোক বরাদ্দের মাধ্যমে প্রকল্প চালু রাখতে পরিকল্পনা কমিশন একটি সুপারিশ দিয়েছে। কিন্তু বোর্ড কর্তৃপক্ষ এখনো মন্ত্রণালয়ে কোনো ধরনের প্রস্তাব পাঠানোর উদ্যোগই নেয়নি।

টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ ইয়াছিনুল হক বলেন, ‘প্রকল্পটির মেয়াদ বাড়ানোর জন্য দ্বিথীয় পর্যায়ে কাজ চালাচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড। প্রকল্পের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শ অনুযায়ী নতুন ডিপিপি প্রণয়নের কাজ চলছে। আশা করি প্রকল্পটির মেয়াদ বাড়বে।’

প্রয়োজনের নিরিখেই প্রকল্পটির স্থায়িত্ব চান বলে মন্তব্য করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমাও। তিনি বলেন, ‘টেকসই সামাজিক সেবা প্রদান প্রকল্পটি পার্বত্য অঞ্চলের প্রত্যন্ত এলাকার জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা, পাহাড়ি শিশুদের মাতৃভাষার মাধ্যমে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও পুষ্টির উন্নয়ন, নারী ও শিশুদের কল্যাণে উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে প্রকল্পটির। তাই আমরাও চাই প্রকল্পটি চালু থাকুক।’

সিলিন্ডারের আগুনে দগ্ধ কলেজ শিক্ষকের মৃত্যু

সিলিন্ডারের আগুনে দগ্ধ কলেজ শিক্ষকের মৃত্যু
প্রতীকী ছবি
লালমনিরহাট প্রতিনিধি
প্রকাশিত

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে নিজ বাসার সিলিন্ডারের আগুনে দগ্ধ হয়ে মারা গেছেন তুষভান্ডার মহিলা কলেজের শিক্ষক পারুল বেগম। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) গুলফামুল ইসলাম মন্ডল কলেজ শিক্ষক পারুলের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, রোজা রাখতে রোববার ভোরে ঘুম থেকে উঠে সেহেরি রান্নার জন্য গ্যাসের চুলা চালু করতে যান পারুল। এ সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হলে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। সে আগুনে দগ্ধ হন পারুল। ধোঁয়া ও পারুলের চিৎকার শুনে পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে নিয়ে যান। বার্ন ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার মারা যান তিনি।

পারুল বানু উপজেলার তুষভান্ডার মহিলা কলেজের মনোবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ছিলেন। তার স্বামী একই কলেজের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক আবু বক্কর সিদ্দিক। তাদের দুজনের বাড়ি রাজশাহী জেলার তানোর উপজেলায়। কলেজে শিক্ষকতার সুবাদে তারা উপজেলা সদরে ভাড়া থাকতেন। তাদের একটি সন্তান রয়েছে।

কালীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) গুলফামুল ইসলাম মন্ডল বলেন, প্রভাষক পারুলের লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের পর দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে। মেডিকেল কলেজ থেকে আগুন লাগার বিষয়ে জানতে চেয়েছিল। আমাদের কাছে যেসব তথ্য ছিল, আমরা জানিয়েছি।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ টি এম গোলাম রসুল বলেন, ‘বিষয়টি জেনেছি। ওই শিক্ষকের পরিবারের কোনো অভিযোগ না থাকায় মরদেহ রাজশাহীতে দাফনের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে।’


ফুটবলার আঁখির জমি নিষ্কণ্টক, মামলা প্রত্যাহার

ফুটবলার আঁখির জমি নিষ্কণ্টক, মামলা প্রত্যাহার
আঁখিকে বরাদ্দ দেয়া জমি, ইনসেটে আঁখি খাতুন
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ অনূর্ধ্ব-১৫ গোল্ডেন বুট জয়ী ও সাফ উইমেন্স চ্যাম্পিয়নশিপ ট্রফি জয়ী নারী ফুটবলার আঁখি খাতুনকে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ৮ শতাংশ জমির ওপর করা মামলা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মামলার বাদী হাজী মকরম প্রামানিক সিরাজগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর মামলাটি প্রত্যাহারের আবেদন করেন।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট লুৎফুন নাহার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বাদীপক্ষ মামলাটি প্রত্যাহারের আবেদন করেছেন। ফলে এ মামলাটি খারিজ হয়ে গেছে। বর্তমানে ফুটবলার আঁখিকে বরাদ্দ দেওয়া ওই জমিটি এখন সম্পূর্ণ নিষ্কণ্টক।

শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম বলেন, ফুটবলার আঁখির জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ১ নম্বর খাস খতিয়ানভুক্ত ৮ শতাংশ জমির একটি প্লট বরাদ্দ দেয়া হয়। গত ৪ জুন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার জমির দলিল হস্তান্তর করেন। সম্প্রতি হাজী মকরম প্রামাণিক নামে এক ব্যক্তি ওই জমির তাদের দখলে রয়েছে দাবি করে মামলা করেন। তবে মামলার তফসিলে তিনি খতিয়ান উল্লেখ বা জমিটির মালিকানা দাবি করেননি। সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে বাদী নিজেই মামলাটি প্রত্যাহারের আবেদন করলে মামলাটি খারিজ হয়ে যায়।

ফুটবলে অবদান ও পরিবারের দারিদ্র্য অবস্থা বিবেচনায় তিন বছর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিদের্শনায় আঁখিকে জমি বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই জমির মালিকানা দাবি করে শাহজাদপুরের একজন ব্যবসায়ী মামলা করেন। আঁখির জমি নিয়ে সমস্যার কথা বেশ কিছু গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসন ওই জমির বরাদ্দ বাতিল করে ১ নম্বর খাস খতিয়ানভুক্ত ৮ শতাংশ নতুন জমি আঁখির নামে বরাদ্দ দেয়। গত ৪ জুন এই জমির দলিল আঁখির পরিবারের কাছে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার জমির দলিল হস্তান্তর করেন। সম্প্রতি আঁখি খাতুনকে বরাদ্দ দেয়া সেই জমির দখল নিয়ে হাজী মকরম প্রামানিক আদালতে মামলা করেছিলেন।

গত বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে মামলার নোটিশ নিয়ে সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মামুনুর রশিদ ও কনস্টেবল আবু মুসা আঁখির গ্রামের বাড়িতে গেলে তার বাবার সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে আঁখির বাবাকে পুলিশ শাসায় এবং থানায় নিয়ে যাওয়ার হুমকি দেয় বলেও অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে সমালোচনা হলে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার ওই দুই পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করেন। এ ঘটনার পাঁচদিন পর বাদী স্বেচ্ছায় মামলাটি প্রত্যাহার করে নিলেন।


মুক্তিপণ দিতে না পারায় খুন হলেন কৃষক

মুক্তিপণ দিতে না পারায় খুন হলেন কৃষক
মরদেহ। প্রতীকী ছবি
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় মুক্তিপণ দিতে না পারায় খুন হয়েছেন কৃষক ছাইদুর রহমান (৪০)। তিনি উপজেলার লাহিড়ী মোহনপুর ইউনিয়নের বলতৈল গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে। উল্লাপাড়া মডেল থানা পুলিশ সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকালে গুনাইগাঁতী গ্রামের পাশের নদী থেকে ছাইদুর রহমানের ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে। এর আগে, গত ২৪ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় তিনি অপহৃত হন।

ছাইদুরের পরিবারের বরাত দিয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এনামুল হক জানান, ২৪ সেপ্টেম্বর ছাইদুর সন্ধ্যার আগে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। এরপর তিনি আর ফিরে আসেননি। ২৫ সেপ্টেম্বর ছাইদুরের পরিবারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। তার মুক্তির জন্য দেড় লাখ টাকা দাবি করা হয়। একাধিকবার এই টাকার দাবিতে মোবাইল করে অপহরণকারীরা। কিন্তু ছাইদুরের পরিবারের পক্ষে এই টাকা দেয়া সম্ভব না বলে জানানো হয়।

এনামুল হক বলেন, ‘আজ (সোমবার) সকালে স্থানীয় লোকজন গুনাইগাঁতী গ্রামের পাশের নদীতে ছাইদুরের ভাসমান লাশ দেখতে পেয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানায় খবর দেয়। পুলিশ নদী থেকে লাশটি উদ্ধার করেছে। ছাইদুরের মাথায় আঘাতের চিহ্ন আছে।’

ছাইদুরের স্ত্রী বুলবুলি খাতুন বলেন, ‘গত শনিবার সন্ধায় আমার স্বামী এক আত্মীয়ের বাড়িতে দাওয়াত খেতে যায়। রাত ১০টাতেও তার কোনো খোঁজখবর পাইনি। তার মোবাইল নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। পরে আত্মীয়ের বাড়িতে ফোন দিলে তারা জানায়, ছাইদুর দাওয়াত খেতে যায়নি।’

বুলবুলি বলেন, ‘রোববার দুপুরে একটা ফোন আসে আমার স্বামীর মোবাইল নম্বর থেকে। বলে, স্বামীকে ফিরে পেতে হলে আমাদের টাকা দিতে হবে। এরপর টাকা গোছানোর অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু টাকা গোছাতে পারিনি। আমার স্বামীকে ওরা মেরে নদীতে ফেলে দিয়েছে। আমি আমার স্বামী হত্যার বিচার চাই।’

উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার পর বলেন, ‘আমরা এরই মধ্যে মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে খুনিদের শনাক্ত এবং তাদের ধরার চেষ্টা শুরু করেছি। মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’


রংপুর মেডিকেলের অব্যবস্থাপনা বন্ধে রাজপথে চিকিৎসকরা

রংপুর মেডিকেলের অব্যবস্থাপনা বন্ধে রাজপথে চিকিৎসকরা
রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবিতে চিকিৎসকদের মানববন্ধন। ছবি: দৈনিক বাংলা
রংপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবিতে সরব হয়েছেন চিকিৎসকরা। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চত্বরে প্রতিবাদস্বরূপ প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে মানববন্ধন করেন তারা।

‘রংপুরের সম্মিলিত চিকিৎসক সমাজ’-এর ব্যানারে ওই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে ১৮ সেপ্টেম্বর হাসপাতালের পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন হাসপাতালের অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক এ বি এম রাশেদুল আমীর।

মানববন্ধনে রংপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ বিমল চন্দ্র রায় বলেন, ‘এত অনিয়ম হচ্ছে যে আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এ কারণে আমরা রাস্তায় নেমেছি, প্রতিবাদ করছি। আমরা চাই এই হাসপাতালের সব অনিয়ম-দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা বন্ধ হোক। এরপরও যদি দাবি আদায় না হয় তাহলে আমরা পরামর্শ করে কঠোর আন্দোলনে যাব।’

বিএমএ নেতা মামুনুর রশীদ বলেন, ‘হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে শুরু করে ওয়ার্ড পর্যন্ত অনিয়ম চলে। পদে পদে টাকা দিতে হয়। আমরা এতদিন নীরব ছিলাম। এখানে চিকিৎসকের মাকে নিয়ে এলেও হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে।’

মামুনুর রশীদ বলেন, ‘মানুষের পিঠ যখন দেয়ালে ঠেকে যায় তখন সামনে এগিয়ে যাওয়া ছাড়া কোনো উপায় থাকে না। যে-ই দুর্নীতি করুক তার কোনো দল নেই, সমাজ নেই, তার পরিচয় সে দুর্নীতিবাজ। আমি রংপুরের সর্বস্তরের মানুষকে আহ্বান জানাচ্ছি আপনারা আমাদের সঙ্গে থাকুন, হাসপাতালের অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান।’

রংপুর মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক নুরুন্নবী লাইজু বলেন, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসাব্যবস্থা একটি অসাধু সিন্ডিকেটের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে। এখানে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের স্বজনদের চরম হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। এখানে কেউ মৃত্যুবরণ করলেও ওই চক্রকে টাকা দিতে হয়, তা না হলে হয়রানির শিকার হতে হয়।

মানববন্ধন থেকে অবিলম্বে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে অসাধু চক্রকে বিতাড়িত, এ সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করে চিকিৎসা ও শিক্ষার উপযুক্ত পরিবেশ তৈরির দাবি জানান বক্তারা।

এ সময় মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন রংপুর মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ মাহফুজার রহমান, বিএমএ-এর সহসভাপতি দেলোয়ার হোসেন, জামাল উদ্দিন প্রমুখ।


সাফজয়ী নীলাকে বরণ করতে উন্মুখ কুষ্টিয়া

সাফজয়ী নীলাকে বরণ করতে উন্মুখ কুষ্টিয়া
পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাফজয়ী নীলা। ফাইল ছবি
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত

সাফ ফুটবল শিরোপাজয়ী নারী দলের খেলোয়াড় কুষ্টিয়ার মেয়ে নিলুফা ইয়াসমিন নীলাকে সংবর্ধনা দেবে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থা। নীলা যে দিন কুষ্টিয়া পৌঁছবেন, সে দিনই তাকে নিয়ে খোলা গাড়িতে করে সারা শহর ঘোরানো হবে। ওই দিনই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হবে শিল্পকলা একাডেমিতে।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের সভা কক্ষে রোববার দুপুরে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সঙ্গে এক সভায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মাদ সাইদুল ইসলাম এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। জানা গেছে, নিলুফা ইয়াসমিন নীলা কুষ্টিয়া পৌঁছলে তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেবেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্যরা। এরপর খোলা গাড়িতে করে ব্যান্ড বাজিয়ে কুষ্টিয়া শহরের প্রদক্ষিণ করানো হবে। সঙ্গে থাকবে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা। এ সময় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের পোশাকি দল ও সাদা পোশাকের পুলিশ সদস্যরা। শহর প্রদক্ষিণ শেষে কুষ্টিয়া শিল্পকলা একাডেমির অডিটোরিয়ামে জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে সংবর্ধনা দেয়া হবে নীলাকে।

জেলা প্রশাসক জানান, সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সাধারণ মানুষের জন্যও সংবর্ধনা দেয়ার সুযোগ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের জন্য পক্ষ থেকে নিলুফা ইয়াসমিন নীলাকে কেউ উপহার দিতে চাইলে সেই সুযোগও রাখা হয়েছে।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাহী সদস্য সাব্বির মোহাম্মদ কাদেরী সবুর বলেন, নিলুফা ইয়াসমিন নীলা যেদিন কুষ্টিয়ায় আসবেন, তাকে সে দিনই একই আয়োজনে সংবর্ধনা দেয়া হবে।

এর আগে গত শুক্রবার জেলা প্রশাসক মোহাম্মাদ সাইদুল ইসলাম কুষ্টিয়া শহরের নীলার বাড়িতে গিয়ে নীলার মাকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় তিনি নীলাকে সংবর্ধনা ও এক লাখ টাকা দেয়ার ঘোষণা দেন। পরে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অনুপ কুমার নন্দীর নেতৃত্বে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্যরা নীলার বাড়িতে মিষ্টি নিয়ে গিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

এর আগে কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র শাহিন উদ্দিন নিজ উদ্যোগে ও ব্যক্তিগত খরচে নিলুফা ইয়াসমিন নীলার কুষ্টিয়া জুগিয়া পালপাড়া সবজি ফার্ম এলাকার বাড়িতে যাতায়াতের রাস্তা পরিষ্কার করান এবং বাড়ির উঠানে বালু দিয়ে ভরাট করে দেন। তিনিও এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আলাদা সংবর্ধনার আয়োজন করবেন বলে জানিয়েছেন।

নিলুফা ইয়াসমিন নীলা কুষ্টিয়া পৌর এলাকার জুগিয়া পালপাড়া এলাকার বাছিরন শাম্মী আক্তারের মেয়ে। ছোটবেলায় তার বাবার কাছ থেকে মা আলাদা হয়ে যান। পরবর্তী সময়ে তার মা বাছিরন আক্তার শাম্মী অনেক সংগ্রাম ও কষ্ট করে নীলা ও তার ছোট বোন সুরভী আক্তারকে বড় করেছেন। মেয়র এই সাফল্যে আনন্দে ভাসছেন নীলার মাসহ পরিবারের সবাই।

মা বাছিরন আক্তার শাম্মী বলেন, ‘মেয়ে এত বড় সাফল্য নিয়ে আসবে, আমরা কেউ ভাবিনি। আমরা খুব খুশি। মেয়েকে নিয়ে গর্বিত।’ তিনি জানান, নিলুফা যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ের হয়ে ২৮ সেপ্টেম্বর আন্তবিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ফুটবল প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন তিনি। ওই খেলা শেষ করে তিনি কুষ্টিয়া ফিরবেন।