সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২২

বৃষ্টি ও জোয়ারে প্লাবিত উপকূলীয় অঞ্চল

বৃষ্টি ও জোয়ারে প্লাবিত উপকূলীয় অঞ্চল
সুন্দরবনের অধিকাংশ এলাকায় জোয়ারে স্বাভাবিকের চেয়ে তিন থেকে চার ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ছবি: দৈনিক বাংলা
দৈনিক বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এর প্রভাবে গত কয়েকদিন ধরে সারা দেশে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি হচ্ছে। এতে তলিয়ে গেছে দক্ষিণের সমুদ্র উপকূলীয় নিম্নাঞ্চল। বেড়েছে মানুষের দুর্ভোগ। বিস্তারিত প্রতিনিধিদের পাঠানো প্রতিবেদনে।

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:

টানা চার দিনের ভারী বৃষ্টি ও পূর্ণিমার জোয়ারের অস্বাভাবিক পানি উপকূলীয় বেড়িবাঁধ অতিক্রম করে প্রবেশ করেছে লোকালয়ে। এতে প্লাবিত হয়েছে রাঙ্গাবালী উপজেলার চালিতাবুনিয়া, চরমোন্তাজ, কাউখালী এবং কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ও চম্পাপুরসহ প্রায় অর্ধশতাধিক গ্রাম। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে উপকূলের মাছের ঘেরসহ ফসলের ক্ষেত। অন্যদিকে জোয়ারের পানিতে স্যানিটেশনব্যবস্থা ভেঙে পড়ায় চরম বিপাকে পড়েছে এসব এলাকার মানুষ।

বড় ধরনের বিপর্যয় এড়াতে মাছ ধরার ট্রলারগুলোকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। ফলে শত শত ট্রলার সাগর থেকে এসে মহিপুর ও আলিপুর মৎস্যবন্দরে নোঙর করে । এ ছাড়াও উপকূলীয় বেড়িবাঁধের বাইরের এলাকায় বসবাস করা শত শত লোকজনকে সরিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে নেয়া হয়েছে।  

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাট সদর উপজেলার তিনটি গ্রামের পাঁচ শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

উপজেলা সদর, মোরেলগঞ্জ, মোংলা ও রামপাল উপজেলার নদী তীরবর্তী এলাকার বাসন্দিারা জানান, প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলে জোয়ারের পানি উঠে তাদের ভোগান্তির শেষ থাকে না। এ সমস্যা সমাধানে ভৈরব নদের ওপর টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন তারা।

বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোছাদ্দেরুল ইসলাম বলেন, পানিবন্দি পরিবারগুলোর কাছে দ্রুতই খাদ্য সহায়তা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হবে।

এ ছাড়া বৃষ্টি আর জোয়ারের পানিতে সুন্দরবনের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। করমজল কুমির প্রজনন কেন্দ্র তলিয়ে গেছে।  

পূর্ব সুন্দরবনের করমজল কুমির প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজাদ কবির বলেন, ‘গত দুই দিন ধরে জোয়ারের পানিতে সুন্দরবনের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। সোমবার পর্যন্ত সুন্দরবনের প্রধান প্রধান নদ-নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে চার থেকে পাঁচ ফুট পর্যন্ত উচ্চতার পানি ছিল।’  

তিনি আরো বলেন, ‘নদীতে যে হারে পানি বাড়ছে, তাতে সুন্দরবনের প্রাণিকুল হুমকির মুখে পড়েছে। বিশেষত বনের বাঘ, শূকর, হরিণ, বানর সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে।’

বাগেরহাট কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক কৃষবিদ আজিজুর রহমান বলেন, ‘গত দুই দিনে জেলায় ৮৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টি ও জোয়ারের পানি জমে বেশ কিছু এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে শীতকালীন সবজিক্ষেত নিমজ্জিত হয়ে পড়ছে। দ্রুত এই পানি না নামলে চাষিদের ক্ষতি হবে। তবে এই বৃষ্টিতে রোপা আমন ধানের দারুণ উপকার হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, জেলায় ইতিমধ্যে ৮৭ ভাগ জমিতে রোপা আমন ধান রোপণ শেষ হয়েছে।

বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুম বিল্লাহ বলেন,  মোরেলগঞ্জ পৌরসভা অংশটি উচ্চ জোয়ারে প্লাবিত হচ্ছে। ওই অংশে নদীতীর রক্ষার জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। চলতি  অর্থ বছরের নদীতীর রক্ষার কাজ শুরু করা হবে। জোয়ারের পানি ঢোকা বন্ধ করতে মোরেলগঞ্জ উপজেলার জন্য ৯৫ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা প্রয়োজন। এর জন্য চার হাজার কোটি টাকার একটি প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। বাঁধ নির্মাণ হলে পার্শ্ববর্তী রামপাল ও মোংলা উপজেলাও রক্ষা পাবে। এ ছাড়া বাগেরহাট সদরে জোয়ারের পানি ঠেকাতে জাইকার অর্থায়নে নদীতীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ কাজ খুব দ্রুত শুরু হবে বলে জানান এ পাউবি কর্মকর্তা।

বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ-শরণখোলা) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আমিরুল আলম মলিন বলেন, মোরেলগঞ্জ ও শরণখোলা উপজেলার অন্তত দুই হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে মাছের ঘের।

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ায় এ বছরে রেকর্ড বৃষ্টিপাত হয়েছে। সোমবার থেকে মঙ্গলবার বেলা ৩টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৯২.৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে কুমারখালী আবহাওয়া অফিস। অফিসের ইনচার্জ মামুনার রশিদ বলেন, এটি এ বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত। এবার বর্ষায় ২৪ ঘণ্টায় ৭০ মিলিমিটার বৃষ্টিও হয়নি।

এদিকে টানা বৃষ্টিতে কুষ্টিয়া শহরের সব সড়কে হাঁটুপানি জমে যায়। বিকেল পর্যন্ত অনেক এলাকায় পানি আটকে ছিল। ফলে যাতায়াত ভোগান্তিতে পড়েন মানুষ।

জলাবদ্ধতা প্রসঙ্গে কুষ্টিয়া পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নে কিছু কাজ হয়েছে। আরো কাজ করার জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

মেঘনার অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে রামগতির চরআবদুল্লাহ, বড়খেরী, কমলনগরের চরফলকন, চরকালকিনি, সাহেবেরহাট ও রায়পুর উপজেলার দক্ষিণ চরবংশীর চরকাচিয়া, চরখাসিয়া এবং সদর উপজেলার চর রমনীমোহন ইউনিয়নের প্রায় ২০টি এলাকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এ ছাড়া লক্ষ্মীপুর পৌরসভার বাঞ্চানগর, সমসেরাবাদ, শাহাপুর, মিয়া আবু তাহের সড়কসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ।

তাদের অভিযোগ, ড্রেনেজ ও পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টি হলেও পৌরসভার রাস্তাঘাটে হাঁটুপানি জমে যায়। এতে করে ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

অপরদিকে মেঘনার তীব্র ঢেউয়ের কারণে রামগতি ও কমলনগর উপজেলার প্রায় ১৫টি পয়েন্টে ব্যাপক হারে ভাঙন দেখা দিয়েছে। গত তিন দিনে শতাধিক পরিবার নদীভাঙনের শিকার হয়েছে। ভাঙন আরো বাড়ার আশঙ্কা করছেন নদীপাড়ের বাসিন্দারা। মঙ্গলবার সকাল থেকে কমলনগর উপজেলার চরমার্টিন, সাহেবেরহাট, মাতাব্বরহাট, মতিরহাট, চরলরেঞ্চ, চরকালকিনি এলাকায় গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে। একই অবস্থায় রয়েছে রামগতির চরআবদুল্লাহ, বড়খেরী, তেলিরচর, বয়ারচর, বাংলাবাজার, আসলপাড়া ও জনতা বাজার।

কমলনগর উপজেলার চরলরেঞ্চ এলাকার বাসিন্দা জসিম উদ্দিন বলেন, ‘দুপুরে পানি উঠতে শুরু করে। বিকেল ৩টার দিকে পানি ঘরের ভেতর ঢুকে যায়। এতে শিশুসন্তান নিয়ে বিপাকে পড়ি। তাই সন্তান নিয়ে রাস্তায় আশ্রয় নিয়েছি। পানি নামলে ঘরে ফিরে যাব।’

একই এলাকার বাসিন্দা কহিনুর বেগম বলেন, ‘জোয়ারের পানিতে তাদের রান্নার চুলা তলিয়ে গেছে। এতে রান্না করতে পারছেন না। এ ছাড়া গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।’

কমলনগরের চর কালকিনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফউল্যা বলেন, ‘জোয়ারের পানি নামার সময় উপকূলে ব্যাপক ভাঙন শুরু হয়। এতে অনেকের বসতবাড়ি, ফসলি জমি ও রাস্তাঘাট নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।’

রামগতি আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা সৌরভ হোসেন জানান, লঘুচাপের প্রভাবে বৃষ্টি হচ্ছে। এটি আরো কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে। সবাইকে সতর্ক থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া মেঘনায় মাছ ধরার নৌকা ও জেলেদের নিরাপদ স্থানে থাকতে বলা হয়েছে।’

কমলনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘টানা বৃষ্টি ও অস্বাভাবিক জোয়ারের পানি লোকালয়ে ঢুকে কয়েকটি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করতে সহায়তা করা হবে।’

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ফারুক আহমেদ বলেন, ভাঙন প্রতিরোধে কাজ করা হচ্ছে।

বরগুনা প্রতিনিধি

টানা বর্ষণ ও উচ্চ জোয়ারের পানিতে জেলার ৬টি উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ফসলের ক্ষেত, ভেসে গেছে মাছের ঘের। বরগুনা, বেতাগী, পাথরঘাটা ও আমতলী পৌরসভার গুরুত্বপূর্ণ সড়কের খানাখন্দকে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে জনজীবনে বিপর্যয় নেমে এসেছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড বরগুনা কার্যালয়ের বৃষ্টিপরিমাপক শাখা থেকে জানা যায়, গত সোমবার সকাল ৯টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ১৭০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

এ ছাড়া জোয়ারের উচ্চতা পরিমাপক মাহতাব উদ্দীন জানিয়েছেন, ‘মঙ্গলবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিষখালী, বুড়িশ্বর (পায়রা) ও বলেশ্বর নদীতে জোয়ারের পানি বিপৎসীমার তিন ফুট ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বরগুনা জেলার নদীতীরবর্তী বেড়িবাঁধের বাইরে কয়েক হাজার বসতঘর বৃষ্টি আর জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। উপকূলের অনেক বাড়িতে রান্না করার মতো অবস্থা নেই। সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের পোটকাখালী আবাসনের বাসিন্দা খলিলুর রহমান বলেন, ‘আমাদের তিনটি ব্যারাকে আশ্রয়ণের ২৪০টি ঘর পানিতে প্লাবিত। আমরা খুব কষ্টে দিন কাটাচ্ছি।’

এ ছাড়া বরগুনা পৌর শহরের চরকলোনি, কলেজ সড়ক, কলেজ ব্রাঞ্চ সড়ক, ব্যাংক কলোনি, আমতলা পাড়, বাজার সড়ক, বঙ্গবন্ধু সড়ক, গোলাম সরোয়ার সড়ক, পশু হাসপাতাল সড়কে বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।

এ ছাড়াও জেলার ৬টি উপজেলার নদী তীরবর্তী এলাকায় জলাবদ্ধতার পাশাপাশি তলিয়ে গেছে নিম্নাঞ্চল। বরগুনার বরইতলা-বাইনচটকি ও পুরাকাটা-আমতলী ফেরিঘাটের গ্যাংওয়ে তলিয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে।

বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আমরা খোঁজ নিচ্ছি। নিম্ন আয়ের মানুষদের জীবিকায় কষ্ট হলে তাদেরকে যথাসাধ্য সহায়তা করবে জেলা প্রশাসন।’


সাজেদা চৌধুরীর আসনে উপনির্বাচন ৫ নভেম্বর

সাজেদা চৌধুরীর আসনে উপনির্বাচন ৫ নভেম্বর
সোমবার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ছবি : সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর প্রয়াত সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর নির্বাচনী এলাকা ফরিদপুর-২ শূন্য আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৫ নভেম্বর।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) আজ সোমবার এই তফসিল ঘোষণা করেছে।

ইসি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ১০ অক্টোবর, মনোনয়নপত্র বাছাই ১২ অক্টোবর ও প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ১৯ অক্টোবর। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল দায়ের ১৩ থেকে ১৫ অক্টোবর এবং আপিল নিষ্পত্তি ১৬ থেকে ১৮ অক্টোবর।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এই আসনে উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে বলে নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে।

ফরিদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী গত ১২ সেপ্টেম্বর রাতে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মারা গেছেন।

 


ট্রেন আসতেই লাইনে শুয়ে পড়েন নারী, অতঃপর…

ট্রেন আসতেই লাইনে শুয়ে পড়েন নারী, অতঃপর…
প্রতীকী ছবি
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
প্রকাশিত

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে শিরিনা বেগম (৫৩) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। আজ সোমবার উপজেলার বারইয়ারহাট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শিরিনা বেগম ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া উপজেলার নিজকুঞ্জরা এলাকার নুরুল হুদার স্ত্রী।

সীতাকুণ্ড রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক জহিরুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উপপরিদর্শক জহিরুল বলেন, ‘রেলে কাটা পড়ে নারীর মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘটনাস্থল এসেছি। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি, ঢাকাগামী চট্টলা এক্সপ্রেস যাওয়ার সময় হঠাৎ সামনে শুয়ে পড়েন ওই নারী। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে ওই নারীর পরিবার লাশ নিয়ে যায়।’


রমেক হাসপাতালে অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবি চিকিৎসকদের

রমেক হাসপাতালে অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবি চিকিৎসকদের
রমেক হাসপাতালে অনিয়ম বন্ধের দাবিতে মানববন্ধনে চিকিৎসকরা। ছবি: দৈনিক বাংলা
রংপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত

রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালের নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন খোদ হাসপাতালটির চিকিৎসকরা। চিকিৎসাসেবা স্বাভাবিক রাখতে হাসপাতাল থেকে অসাধু চক্রকে বিতাড়িত ও চক্রের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা cbWfv দাবি জানিয়েছেন তারা।

আজ সোমবার দুপুরে হাসপাতাল চত্বরে ‘রংপুরের সম্মিলিত চিকিৎসক সমাজ’ এর ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধন থেকে তারা এ দাবি জানান।

এর আগে এসব অনিয়মের কথা উল্লেখ করে গত ১৮ সেপ্টেম্বর হাসপাতালের পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন হাসপাতালের অর্থো সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক এবিএম রাশেদুল আমীর।

মানববন্ধনে রমেকের অধ্যক্ষ ডা. বিমল চন্দ্র রায় বলেন, এখানে এতো অনিয়ম হচ্ছে যে, আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এ কারণে রাস্তায় নেমেছি। দ্রুত হাসপাতালের অনিয়ম-দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনা বন্ধ হোক। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ না নিলে আমরা কঠোর কর্মসূচিতে যাব।

এ সময় বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়শেনের নেতা ডা. মামুনুর রশীদ বলেন, হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে শুরু করে ওয়ার্ড পর্যন্ত পদে পদে টাকা দিতে হচ্ছে। এখানে রোগী নিয়ে আসলে ভোগান্তির শেষ থাকে না।

মামুনুর রশীদ আরও বলেন, দুর্নীতিবাজদের কোনো দল নেই, সমাজ নেই। রংপুরের সব স্তরের মানুষকে আহ্বান করছি, হাসপাতালের অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান।

রংপুর মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. নুরুন্নবী লাইজু বলেন, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসা ব্যবস্থা একটি অসাধু সিন্ডিকেটের হাতে জিম্মি। এখানে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের স্বজনদের চরম হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। এখানে কেউ মারা গেলে ওই চক্রকে টাকা দিতে হয়, তা না হলে হয়রানির শিকার হতে হয়। এই অব্যবস্থাপনা বন্ধ করতে হবে।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন, রংপুর মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মাহফুজার রহমান ও বিএমএ’র সহ-সভাপতি ডা. দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ।


পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
প্রতীকী ছবি
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি
প্রকাশিত

খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় পুকুরে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আজ সোমবার সকালে দীঘিনালার কবাখালী ইউনিয়নের মুসলিম পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, মুসলিমপাড়ার কামাল হোসেনের ছেলে ফারহান হোসেন (২) ও নুর আলমের মেয়ে নুসরাত জাহান (২)। নিহতরা সম্পর্কে চাচা-ভাতিজি।

কবাখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নলেজ চাকমা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, সোমবার সকালে বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে দুই শিশু বসেছিল। কিছুক্ষণ পরে তাদের দেখতে না পেয়ে স্বজনরা খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে পুকুরে তাদের মরদেহ ভাসতে দেখেন। পরে উদ্ধার করে দীঘিনালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

দীঘিনালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. প্রমেশ চাকমা জানান, হাসপাতালে আনার আগে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে।


অনিয়মের অভিযোগ, মেয়রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি

অনিয়মের অভিযোগ, মেয়রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি
পৌরসভার মেয়র ফারুক হোসেনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবিতে মানববন্ধন।
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি
প্রকাশিত

ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ডু পৌরসভার মেয়র ফারুক হোসেনের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন পৌরসভার কাউন্সিলর ও পৌরবাসীদের অনেকেই। এই অভিযোগের তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা। আজ সোমবার সকালে উপজেলা শহরের দোয়েল চত্বরে আয়োজিত মানববন্ধনে এই দাবি জানানো হয়।

ঘণ্টাব্যাপী চলা এ মানববন্ধনে ব্যানার, লিফলেট, ফেসটুন ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। এ সময় পৌরসভার সাবেক মেয়র শাহীনুর রমান রিন্টু, বর্তমান কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন ও আবু আহসান রনুসহ অনেকেই বক্তব্য দেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বর্তমান মেয়র ফারুক হোসেন পৌরসভায় অবৈধভাবে নিয়োগ-বাণিজ্য করছেন। এ ছাড়া পৌরবাসী জন্ম নিবন্ধন করতে গেলে নির্ধারিত ফি থেকে কয়েকগুণ বেশি টাকা আদায় করা হচ্ছে। যার রশিদও আছে। পৌরবাসী নাগরিক সেবা নিতে গেলে বিভিন্ন অনিয়ম করছে মেয়র। এ সময় মেয়রের এমন কর্মকাণ্ডের তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তারা।