রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২

এরশাদ ট্রাস্টের সদস্য হলেন সাদ এরশাদ

এরশাদ ট্রাস্টের সদস্য হলেন সাদ এরশাদ
এমপি রাহগির আল মাহি সাদ। ছবি: সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

রংপুর-৩ (সদর) আসনের এমপি রাহগির আল মাহি সাদকে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্টের সদস্য করা হয়েছে। আজ বুধবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান ট্রাস্টের চেয়ারম্যান কাজী মো. মামুনুর রশিদ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বোর্ডের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও বেগম রওশন এরশাদ এমপি’র ছেলে রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদকে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্টের সদস্য পদে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। যা আজ বুধবার থেকে কার্যকর হবে।


জালিয়াতি, অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

জালিয়াতি, অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ
নওগাঁ সাব রেজিস্ট্রি অফিস। ছবি: দৈনিক বাংলা
নওগাঁ প্রতিনিধি
প্রকাশিত
  • নওগাঁ সাব-রেজিস্ট্রি অফিস

  • দলিল সম্পাদনের সময় সরকারি ফি ছাড়াও দলিলপ্রতি বাড়তি ১ হাজার ২০০ টাকা নজরানা দিতে হয়, না হলে সম্পাদন হয় না।

নওগাঁয় সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের কিছু কর্মচারীর যোগসাজশে একটি চক্র অনিয়মের মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই চক্র জাল দলিল, সম্পাদনে অতিরিক্ত টাকা ও নকল প্রস্তুতে অতিরিক্ত ফি আদায় করে। নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সম্প্রতি সাত কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

জেলা রেজিস্ট্রি অফিসে গত বছর ৯ হাজার দলিল সম্পাদন করা হয়েছে। চলতি বছরেও প্রায় একইসংখ্যক দলিল সম্পাদনের আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে প্রতি মাসে একই হারে দলিল সম্পাদন হয় না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জমির ক্রেতা বলেন, দলিল সম্পাদনের সময় সরকারি ফি ছাড়াও দলিলপ্রতি বাড়তি ১ হাজার ২০০ টাকা নজরানা দিতে হয়। তা না হলে সম্পাদন হয় না। এ ছাড়া দলিলের ভুলত্রুটি ধরেও টাকার বিনিময়ে রফা করা হয়।

সম্প্রতি এমন একটি ঘটনা প্রকাশ পেলে এসব জালিয়াতির তদন্ত শুরু হয়। ঘটনাটি প্রকাশিত হলে নওগাঁর জেলা রেজিস্ট্রার ব্যবস্থা নেন। এতে প্রাথমিকভাবে সাতজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একটি দলিল সম্পাদনের সময় কয়েকজন কর্মচারী যাচাই-বাছাইয়ের পর সাব-রেজিস্ট্রার দলিল সম্পাদন করেন। এ নিয়ে নওগাঁ শহরের কোমাইগাড়ি মহল্লার সোহেল রানা জেলা রেজিস্ট্রার ও পুলিশ সুপারের কাছে একটি অভিযোগ দেন। ওই অভিযোগের সূত্র ধরে সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির চিত্র ধরা পড়ে।

সোহেল রানার অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ জুলাই ১৯৮৩ সালের ৮৩৫১ নম্বর দলিলের মাধ্যমে শহরের কোমাইগাড়ি মৌজার ৮ জন দাতা মিলে কিছু সম্পত্তি খলিসাকুড়ি মহল্লার তাছের উদ্দিন মণ্ডলের ছেলে এ কে এম আজাদ হোসেনকে কবলা রেজিস্ট্রি করে দেন। সম্প্রতি সোহেল রানা ওই সম্পত্তির ৮৩৫১/১৯৮৩ নম্বরের দলিলের জাবেদা নকল ওঠান। নকল উত্তোলনের পরে তিনি দেখতে পান, মূল দলিলের সঙ্গে জাবেদা নকলের কোনো মিল নেই। দাতা-গ্রহীতা সম্পূর্ণভাবে পরিবর্তন করে দলিলের ভেতরে দাতা-গ্রহীতার নাম পরিবর্তন করে তফশিল সংযোজন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে তিনি জেলা রেজিস্ট্রার বরাবর অভিযোগ করেন। পরে অনুসন্ধান করে জানা গেছে, ১৯৮৩ সালে ১৬৩ নম্বর ভলিউম বইয়ের ওই পাতাগুলো পুরোপুরি বদলে ফেলা হয়েছে। এ ছাড়া ওই দলিলটি একই সঙ্গে বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় সম্পাদিত হয়েছে। এ ঘটনায় নওগাঁ সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে আলোচনা শুরু হলে জেলা রেজিস্ট্রার আব্দুস সালাম ঘটনাটি তদন্ত করার জন্য নওগাঁর বদলগাছীর সাব-রেজিস্ট্রার পারভেজ মাসুদকে দায়িত্ব দেন। তার তদন্তের পরিপ্রেক্ষিতে এ ঘটনায় সম্পৃক্ত নকলনবিশ শামিমা সিদ্দিকা, আবুল কালাম আজাদ, জুলকার ফাইন, রাশেদুল ইসলাম, নকল তুলনাকারী রাশেদুল ইসলাম রাজু, মৌসুমী আকতার, নকল পাঠক ফারহানা ইয়াসমিনকে দোষী করে জেলা রেজিস্ট্রার বরাবর প্রতিবেদন দাখিল করেন। জেলা রেজিস্ট্রার ওই সাতজনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন। সাময়িক বরখাস্তদের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

অভিযোগ উঠেছে, সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের মোহরার গোলাম সামদানীর দলিলসূচি তৈরির দায়িত্ব থাকলেও তিনি তা করেন না। বরং দলিল সম্পাদনের তদারকি করেন। এ কারণে দলিলের জালিয়াতি তার নজরে আসার কথা, কিন্তু তিনি তদন্তে ছাড় পেয়ে যান।

গোলাম সামদানীর দলিলপ্রতি টাকা লেনদেনের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করেন। বলেন, দলিল সম্পাদনের জন্য বাড়তি কোনো টাকা নেয়া হয় না।

একপর্যায়ে প্রতিবেদককে বলেন, ‘সাব-রেজিস্ট্রি অফিস নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে জেলের ঘানি টানতে হবে।’

তদন্তের বিষয়ে নওগাঁ সদর সাব-রেজিস্ট্রার রবিউল ইসলাম বলেন, সারা দিন দলিল, জাবেদা নকলসহ প্রচুর কাগজে স্বাক্ষর করতে হয়। এত কিছু দেখার পরিস্থিতি থাকে না। শুধু সরকারি রাজস্ব জমা হয়েছে কি না এবং সংশ্লিষ্ট কর্মচারী ও রেকর্ডকিপারের স্বাক্ষর আছে কি না তা দেখে তিনি স্বাক্ষর করেন।

এ বিষয়ে নওগাঁ জেলা রেজিস্ট্রার আব্দুস সালাম মুঠোফোনে জানান, আপাতত সাময়িকভাবে সাত নকলনবিশকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে মোহরার, রেকর্ডকিপার (মোহরার) জড়িত থাকেলও তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে কেবল নকলনবিশদের বিরুদ্ধে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ হওয়ায় নানা প্রশ্ন উঠেছে। রেকর্ডরুমে কেবল অফিস সহায়ক যেতে পারেন কিন্তু উমেদারি পিওন বেআইনিভাবে রেকর্ডরুমে প্রবেশ করার অভিযোগের কোনো সমাধান হয়নি। তাই সংশ্লিষ্টরা বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।


দুই হাত নেই, পা দিয়ে ছবি এঁকেই বাজিমাত

দুই হাত নেই, পা দিয়ে ছবি এঁকেই বাজিমাত
আব্দুল্লাহ আল মোনায়েম। ছবি: দৈনিক বাংলা
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

অদম্য ইচ্ছা আর কঠিন অধ্যবসায় থাকলে কোনো প্রতিবন্ধকতাই কারো জন্য বাধা হতে পারে না। এমন উদাহরণ অনেক আছে পৃথিবীতে। পৃথিবীতে এমন অনেকেই আছেন, যারা শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে নিজেদের নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। তাদেরই একজন ফেনীর দাগনভূঞা একাডেমির ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র আব্দুল্লাহ আল মোনায়েম। ছোটবেলা থেকেই আঁকাআঁকিতে আগ্রহ তার। কিন্তু জন্ম থেকেই তার দুই হাত নেই। তারপরও দমে যায়নি শিশু মোনায়েম। নিজের অদম্য ইচ্ছায় পা দিয়েই ছবি এঁকে চট্টগ্রাম বিভাগে প্রথম হয়েছে সে। আর পুরস্কারস্বরূপ উপহারের ঘরসহ নগদ এক লাখ টাকা পেয়েছে মোনায়েম।

চট্টগ্রাম জেলার শিশুবিষয়ক কর্মকর্তা নুরুল আবছার ভূঞা স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, চিত্রাঙ্কন ‘ঘ’ বিভাগে (বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু) প্রথম হয়েছে দাগনভূঞা একাডেমির ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র আব্দুল্লাহ আল মোনায়েম। সে দাগনভূঞা উজ্জীবক আর্ট স্কুলের শিক্ষার্থী।

এ নিয়ে দাগনভূঞার বাসিন্দা কাজী ইফতেখার বলেন, ‘শিশু মোনায়েমের এমন সফলতায় আমরা আনন্দিত। আগামীতে সে আরও বড় পরিসরে জায়গা করে নেবে। আমরা আশা করি, শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে মোনায়েম পড়ালেখা শেষ করে কর্মক্ষেত্রেও সফল হবে। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা যে কোনো বাধা নয়, তার উজ্জ্বল উদাহরণ মোনায়েম।’

দাগনভূঞা উজ্জীবক আর্ট স্কুলের প্রশিক্ষক গিয়াস উদ্দিন ভূঞা বলেন, ‘মোনায়েম বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম হয়েছে জেনে আমরা অনেক খুশি হয়েছি। আমরা আশা করি, সে জাতীয় পর্যায়েও সফল হবে।’

মোনায়েম দাগনভূঞা উপজেলার ইয়াকুপুর ইউনিয়নের এনায়েতনগর গ্রামের মৃত কামাল উদ্দিনের ছেলে। বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ-২০২২ উপলক্ষে গত ১৩ ও ১৪ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি। গত ১৯ সেপ্টেম্বর  ওই প্রতিযোগিতার ফলাফল ঘোষণা করা হয়। সেখানে বিভাগীয় পর্যায়ে পা দিয়ে ছবি এঁকে চট্টগ্রাম বিভাগে প্রথম স্থান লাভ করে মোনায়েম। এর আগে মোনায়েমের আঁকা ছবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ কার্ডেও স্থান পায়।


ফের আকাশসীমা লঙ্ঘন মিয়ানমারের

ফের আকাশসীমা  লঙ্ঘন মিয়ানমারের
বাংলাদেশ মিয়ানমার সীমান্ত । ফাইল ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

এস বাসু দাশ, বান্দরবান

দফায় দফায় সতর্ক আর প্রতিবাদ জানানোও কাজে আসছে না। আকাশসীমা লঙ্ঘন করেই চলেছে মিয়ানমার। গতকাল শুক্রবার রাত থেকে  শনিবার সকাল পর্যন্ত অন্তত দুবার আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে দেশটির বাহিনী।

এদিকে সীমান্তের ওপারে চলমান সংঘর্ষে মুহুর্মুহু গোলা ও গুলির আওয়াজ ভেসে আসছে এপারে। এতে আতঙ্কে দিন কাটছে স্থানীয়দের। গোলার কম্পনের জেরে মিয়ানমার সীমান্তবর্তী বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির তুমব্রু ও বাইশফাঁড়ি এলাকায় ফাটল ধরেছে বিভিন্ন বাড়িঘরে।

গত ২৮ আগস্ট মিয়ানমার থেকে নিক্ষেপ করা দুটি মর্টার শেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় ঘুমধুমের তমব্রুর উত্তর মসজিদের কাছে পড়ে। এ ঘটনায় ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে কড়া প্রতিবাদ জানানো হয়। এরপর ৩ সেপ্টেম্বর ঘুমধুম এলাকায় দুটি গোলা পড়ে। এ ঘটনায়ও প্রতিবাদ জানানো হয়। কিন্তু তার পরও পরিস্থিতির উন্নতি ঘটেনি। ৯ সেপ্টেম্বর আবার গুলি এসে পড়ে। ১৬ সেপ্টেম্বর মাইন বিস্ফোরণ ও গুলি-মর্টার শেল নিক্ষেপে একজন নিহত ও পাঁচজন আহত হন। এ ঘটনায় মিয়ানমারের কূটনীতিককে আবারও তলব ও কড়া প্রতিবাদ জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। শুধু তা-ই নয়, বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠকেও বিষয়টি তুলেছে মন্ত্রণালয়। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেয়া ভাষণেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গা ইস্যুটি তুলেছেন। এর পরও পরিস্থিতির কোনো উন্নতি নেই।

মিয়ানমারের দাবি, তাদের ভূখণ্ডে আরাকান আর্মির (এএ) সঙ্গে লড়ছে সেনাবাহিনী। বাংলাদেশের ভূখণ্ডে এসে পড়া গোলাগুলো আরাকান আর্মির ছোড়া। তবে বাংলাদেশে এসে পড়া গুলির কোনো ব্যাখ্যা তারা দেয়নি।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, রাত নামলেই সীমান্তের ওপারে বেড়ে যায় গোলাগুলির আওয়াজ। সামরিক বাহিনীর হেলিকপ্টারের গর্জন আর গোলা ও মর্টার শেল বিস্ফোরণের বিকট শব্দে স্থানীয়দের রাতের ঘুম হারাম হয়ে যায়। শেলের কম্পনে তুমব্রু উত্তরপাড়ায় কয়েকটি বাড়িতে ফাটল ধরেছে।

তুমব্রু বাজারের ব্যবসায়ী বদিউল আলম বলেন, গত শুক্রবার রাত পৌনে ১১টার দিকে রাখাইনের মংডুর উত্তরে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত পিলার ৩৭, ৩৮, ৩৯ নম্বর এলাকায় মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর দুটি হেলিকপ্টার থেকে ভারী অস্ত্রের গোলা বর্ষণ করা হয় সে দেশে। এর একটি হেলিকপ্টার মিয়ানমার থেকে এসে তুমব্রু পয়েন্টের জিরো লাইনের সোজা ওপর দিয়ে মর্টার শেল ছুড়ে মিয়ানমারে ফিরে যায়। এতে তুমব্রু বাজার, কোনারপাড়া, মধ্যমপাড়া ও উত্তরপাড়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সীমান্তে টহলরত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) এক কর্মকর্তা বলেন, গতকাল সকাল ৭টার দিকে মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর হেলিকপ্টার ৪০-৪১ সীমান্ত পিলার এলাকার ওপর চক্কর দিয়ে গোলা নিক্ষেপ করে।

তুমব্রু বাজার সর্বজনীন দুর্গামন্দির কমিটির সভাপতি রুপলা ধর বলেন, মিয়ানমার সীমান্তঘেঁষা তুমব্রুর ওপারের ক্যাম্প থেকে গতকাল সকাল ১০টায় সে দেশের অভ্যন্তরে একটি মর্টার শেল নিক্ষেপ করা হয়। এই আওয়াজে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বাইশফাঁড়ির উত্তরপাড়ার এসএসসি পরীক্ষার্থী আয়শা বেগম বলে, ‘শুক্রবার রাতে মিয়ানমারের যুদ্ধবিমান থেকে গোলার শব্দে আতঙ্ক ছড়ালেও কিছুটা সহনীয় ছিল। কিন্তু শনিবার সকালে গোলাগুলির আওয়াজ বেড়ে গেছে। এর মধ্যে পরীক্ষা দিতে যেতে হয়েছে। ভয়ে ভয়ে বাড়ি থেকে বের হয়েছি।’

নো ম্যানস ল্যান্ডে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নেতা দিল মোহাম্মদ জানান, গতকাল বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্তও গুলির শব্দ পাওয়া গেছে।


বাথরুমে স্বামীর, ঘরের মেঝেতে পড়েছিল স্ত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ

বাথরুমে স্বামীর, ঘরের মেঝেতে পড়েছিল স্ত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ
বৃদ্ধ দম্পতির মরদেহ উদ্ধারের পর স্থানীয়রা ভিড় জমায়। ছবি: দৈনিক বাংলা
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি
প্রকাশিত

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় হাত ও মুখ বাঁধা অবস্থায় বৃদ্ধ দম্পতির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে আলমডাঙ্গা পৌর এলাকার পুরাতন বাজার পাড়ায় নিজ বাড়ি থেকে স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন, আলমডাঙ্গা পৌর এলাকার পুরাতন বাজার পাড়ার বাসিন্দা ৭০ বছর বয়সী নজির উদ্দিন ও তার স্ত্রী ৬০ বছর বয়সী ফরিদা খাতুন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে। হত্যাকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি। নজির উদ্দিনের লাশ পড়েছিল বাথরুমে আর তার স্ত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ ছিল ঘরের মেঝেতে। তাদের দুজনের হাত ও মুখ বাঁধা ছিল। মরদেহ দুটির সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হচ্ছে। ঝিনাইদহ পিবিআই’র একটি টিম ও চুয়াডাঙ্গা সিআইডি’র একটি টিম ঘটনাস্থলে কাজ করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, নজির উদ্দিন জমি জালিয়াতি চক্রের হোতা ছিলেন। জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের কারণে এই হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে।


বাবার সামনে পা পিছলে ট্রেনের নিচে ছেলে

বাবার সামনে পা পিছলে ট্রেনের নিচে ছেলে
নিহত হাসানুজ্জামান ইমতিয়াজ। ছবি: সংগৃহীত
নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত

নাটোরের আব্দুলপুর রেলওয়ে জংশনে চলন্ত ট্রেনে উঠতে গিয়ে পা পিছলে পড়ে হাসানুজ্জামান ইমতিয়াজ নামে এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। আজ শনিবার সকাল পৌনে ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

২১ বছর বয়সী ইমতিয়াজ পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুর এলাকার অ্যাডভোকেট ইসাহাক আলীর ছেলে। তিনি রাজশাহীর বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ৬ষ্ঠ সেমিষ্টারের শিক্ষার্থী ছিলেন।

আব্দুলপুর রেলওয়ে স্টেশন মাষ্টার শেখ জিয়াউদ্দিন বাবলু জানান, শনিবার সকালে ঈশ্বরদী থেকে ছেলেকে নিয়ে কমিউটার ট্রেনে চড়ে রাজশাহী যাচ্ছিলেন অ্যাডভোকেট ইসাহাক আলী। ট্রেনটি আব্দুলপুর জংশনে দাঁড়ালে ইমতিয়াজ নাশতা করতে ট্রেন থেকে নামেন। পরে ট্রেনটি ছেড়ে দিলে ইমতিয়াজ দৌড়ে ট্রেনের হাতল ধরে উঠতে গিয়ে পা পিছলে ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে মারা যান। খবর পেয়ে ঈশ্বরদী রেলওয়ে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।