শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২

‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নির্বিচার ব্যবহার ভয়ের সংস্কৃতি তৈরি করেছে’

‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নির্বিচার ব্যবহার ভয়ের সংস্কৃতি তৈরি করেছে’
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নিবর্তনমূলক ধারা সংশোধনের দাবি জানিয়েছে আর্টিকেল নাইনটিন।
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত
  • আর্টিকেল নাইনটিনের বিবৃতি

ভিন্নমত ও সরকারের সমালোচনা দমনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটির নজিরবিহীন অপপ্রয়োগ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা আর্টিকেল নাইনটিন। পাশাপাশি এই আইনের বিতর্কিত ধারা সংস্কার করার দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি।

আজ সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে আর্টিকেল নাইনটিন এসব কথা জানায়। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পাসের চার বছর হলো আজ।

আর্টিকেল নাইনটিন বলছে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নির্বিচার ব্যবহার বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে দূর্বল করে একটি ভয়ের সংস্কৃতি তৈরি করেছে। গত চার বছরে ভিন্নমত ও সরকারের সমালোচনা দমনে এই আইনের নজিরবিহীন অপপ্রয়োগ হয়েছে।

সংস্থাটি মনে করে, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা খর্ব করার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত আইন কোনো গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় থাকতে পারে না। সরকার এই আইনের বিতর্কিত ধারা সংশোধনে উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলেছে। আর্টিকেল নাইনটিন গণতন্ত্রের স্বার্থে এই আইনের বিতর্কিত ধারা সংশোধনের দাবি জানিয়েছে।

বিবৃতিতে আর্টিকেল নাইনটিন দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি পাশ হওয়ার পর থেকে আর্টিকেল নাইনটিন আইনটির নিবর্তনমূলক ধারা সংশোধনের কথা বলে আসছে। কিন্ত বাস্তবতা হলো এ আইনে মামলা দায়ের ও গ্রেফতার হচ্ছে অব্যাহত গতিতে।

ফারুখ ফয়সল বলেন, সর্বশেষ, অনলাইনে একটি অনুষ্ঠান সঞ্চালন করায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নারী শিক্ষার্থী এই আইনে গ্রেপ্তার হয়ে প্রায় এক মাস ধরে কারাগারে আছেন। এই সময়ে তিনবার আবেদন করেও জামিন পাননি ওই শিক্ষার্থী। দুই বছর আগে মামলা দায়েরের সময় তাঁর বয়স ছিলো সতেরো বছর। তিনি আরও বলেন, ‘এই আইনে দায়ের হওয়া বেশিরভাগ মামলার মতো, ওই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার ভিত্তিও নড়বড়ে। এর আগে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদেরও এই আইনে দায়ের হওয়া মামলায় জড়ানোর অনুরূপ উদাহরণ দেখা গেছে।’

আর্টিকেল নাইনটিন বলছে, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটির অপপ্রয়োগ হয়েছে স্বীকার করে সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের একাধিক মন্ত্রী আইনটির প্রয়োগের ক্ষেত্রে আরও সতর্ক হওয়া এবং সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানিয়েছেন।’


গাছে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, প্রাণ গেল ২ জনের

গাছে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, প্রাণ গেল ২ জনের
লাশ। প্রতীকী ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত

পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুই আরোহী নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া ইমরান নামে একজন আহত হন। 

গতকাল বৃহস্পতিাবার রাত সাড়ে ১২ টার দিকে উপজেলার জাবরহাট ইউনিয়নের বড়বাড়ী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

নিহত রাজু পীরগঞ্জ উপজেলার দানাজপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে এবং আবুল কালাম একই গ্রামের সামেদ আলীর ছেলে।

জাবরহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিয়াউর হক জিয়া জানান, মোটরসাইকেলের তিন আরোহীর মধ্যে ঘটনাস্থলেই রাজু ইসলাম মারা যান। আর উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে আবুল কালাম মারা যান। আহত ইমরান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।


যাত্রীবাহী বাসে ঢুকে পড়ল বৈদ্যুতিক খুঁটি, আহত ১১

যাত্রীবাহী বাসে ঢুকে পড়ল বৈদ্যুতিক খুঁটি, আহত ১১
ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পূর্ব গঙ্গাবর্দী এলাকায় গাড়িতে বিদ্যুতের খুঁটি উঠানোর সময় বাসে ঢুকে পড়ে। ছবি: দৈনিক বাংলা
ফরিদপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত

ফরিদপুরে একটি বৈদ্যুতিক খুঁটি নির্ধারিত গাড়িতে উঠানোর সময় হঠাৎ অন্য একটি যাত্রীবাহী বাসে ঢুকে পড়ায় ১১ জন আহত হয়েছেন। আজ শুক্রবার দুপুর ১২ টার দিকে জেলা সদরের ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পূর্ব গঙ্গাবর্দী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতদের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। 

জানা যায়, জেলা সদরের পূর্ব গঙ্গাবর্দী এলাকায় রাখা ফরিদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ওই বৈদ্যুতিক খুঁটি গাড়িতে উঠানো হচ্ছিল।

ফরিদপুরের করিমপুর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কংকর কুমার বিশ্বাস বলেন, যাত্রীবাহী বাসটি যশোরের বেনাপোলের দিকে যাচ্ছিল। ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।


বিশ্ব শান্তি নিশ্চিতে জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

বিশ্ব শান্তি নিশ্চিতে জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি : সংগৃহীত
প্রতিবেদক, দৈনিক বাংলা
প্রকাশিত

নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) ৭৭তম অধিবেশনে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শুক্রবার স্থানীয় সময় বিকেলে তিনি এই ভাষণ দেবেন। এতে সারা বিশ্বের মানুষের জীবনে শান্তি ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করার ওপর জোর দেবেন তিনি।

অধিবেশনের ফাঁকে প্রধানমন্ত্রীর কর্মকান্ড সম্পর্কে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করার সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন একথা বলেন। তিনি বলেন,  প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে বহুপাক্ষিকতার ওপর জোর দেবেন।

মোমেন বলেন, ‘আমরা শান্তির প্রতি জোর দেবো, আমরা বলব যে কোনো ধরনের সংঘাত থেকে বেরিয়ে আসার সর্বোত্তম উপায় হল সংলাপ এবং শান্তিপূর্ণ সমাধান।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা এ বিষয়টিও উল্লেখ করবেন যে, বাংলাদেশ কোভিড-১৯ মহামারিকে খুব ভালোভাবে মোকাবেলা করেছে এবং মহামারি মোকাবিলায় বিশ্বের শীর্ষ দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশও রয়েছে।

তিনি বলেন, মহামারি সত্ত্বেও, বাংলাদেশ যথেষ্ট অর্থনৈতিক সাফল্য অর্জন করেছে এবং তা অর্জনের জন্য প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ যে পদক্ষেপ নিয়েছে তা তুলে ধরবেন। শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে জলবায়ু সমস্যাও তুলে ধরবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আশা করে যারা বৈশ্বিক উষ্ণায়নের জন্য দায়ী তারা জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের দায়িত্ব ভাগ করে নেবে। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে সেটাই তুলে ধরবেন বলে জানান তিনি।

তিনি উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের মূল ফোকাস হচ্ছে আমরা শান্তি চাই। শান্তি ও স্থিতিশীলতা সাধারণ মানুষের মঙ্গলের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন।

 


ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় দপ্তরি আহত

ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় দপ্তরি আহত
গ্রেপ্তার শাফি তালুকদার। ছবি : দৈনিক বাংলা
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্তর প্রতিবাদ করায় স্কুলের দপ্তরিকে কাটার দিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

উপজেলার মাধাইনগর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া সরকারি প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার গ্রেপ্তার ব্যক্তিকে আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠানো হবে।

আহত সুলতান মাহমুদ ওই একই স্কুলের দপ্তরি হিসেবে কাজ করেন।

তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম দৈনিক বাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, অভিযুক্ত শাফি তালুকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সুলতানের বাবা তাড়াশ থানায় ইভটিজিং ও হত্যা উদ্দেশ্য উল্লেখ করে মামলা করেছেন। শুক্রবার শফিকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানোর কথা।

স্থানীয়রা জানান, সুলতানকে আঘাত করে শাফি। পরে শিক্ষকসহ এলাকার লোকজন শাফিকে আটক করে তাড়াশ থানা পুলিশের কাছে দেয়। আহত সুলতানকে উদ্ধার করে তাড়াশ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ওই স্কুলের শিক্ষক আব্দুল হামিদ বলেন, ‘বোয়ালিয়া গ্রামের শাফি তালুকদার প্রায় সময়ই স্কুলের এক ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করত। বৃহস্পতিবার দুপুরে শাফি ওই ছাত্রীকে উক্ত করতে স্কুলে যায় এবং তাকে উদ্দেশ্য করে বাজে কথা বলে । এ সময় একই ক্যাম্পাসের মধ্যে স্কুলের দপ্তরি সুলতান প্রতিবাদ করলে শাফি ক্ষীপ্ত হয়ে তার প্যান্টের পকেট থেকে ছোট এন্টিকাটার দিয়ে সুলতানের পেটের মাঝে আঘাত করে। এতে তার পেটের কাছে কেটে যায়।’

সুলতানের বাবা বলেন, ‘শফি আমার ছেলেকে হত্যার উদ্দেশ্যে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে। শিক্ষক ও ছাত্ররা আমার ছেলেকে বাঁচিয়েছে। আমি এর বিচার চাই।’


অসুস্থ মাকে দেখতে গিয়ে সড়কে প্রাণ গেল নারীর

অসুস্থ মাকে দেখতে গিয়ে সড়কে প্রাণ গেল নারীর
লাশ। প্রতীকী ছবি
বগুড়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত

অসুস্থ মাকে দেখতে হাসপাতালে যাওয়ার পথে মোটরসাইকেল থেকে পড়ে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় শাহনাজ খাতুন (৫৫) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ওই নারীর স্বামী মোটরসাইকেল-চালক আনোয়ার হোসেন।

বগুড়া শেরপুরের মির্জাপুর বাজার এলাকায় আজ শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শাহনাজ খাতুন সুঘাট ইউনিয়নের জয়লা সরকার পাড়া এলাকার বাসিন্দা। 

শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) বাবুল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আহত আনোয়ার হোসেন বলেন, শাশুড়ি অসুস্থ হয়ে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডেকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সকালে তাকে দেখতে স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে বাড়ি থেকে রওনা দেই। মির্জাপুর বাজার এলাকায় রাস্তা পার হওয়ার সময় শাহনাজ মোটরসাইকেল থেকে পড়ে যায়। ওই সময় পেছন থেকে আসা কাভার্ড ভ্যানের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যায়।

উপপরিদর্শক বাবুল হোসেন বলেন, দুর্ঘটনার পর কোনো গাড়ি পাওয়া যায়নি। পরিবারের সদস্যদের কোনো অভিযোগ না থাকায় আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।