রোববার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা এজেন্ডায় সমর্থন অব্যাহত রাখবে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাসস
প্রকাশিত
বাসস
প্রকাশিত : ৭ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৩:১৯

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে, বাংলাদেশ জাতিসংঘের (ইউএন) মহাসচিবের শান্তিরক্ষা এজেন্ডার সাতটি অগ্রাধিকারের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে।

তিনি বলেন, ‘আমাদের নীতিগত অবস্থান, আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বৈদেশিক নীতি-আদর্শের মধ্যে নিহিত, যা আমাদের একটি পথপ্রদর্শক শক্তি হিসাবে কাজ করে। এই অবস্থানটি ধারাবাহিকভাবে আমাদেরকে শান্তির সংস্কৃতির প্রচারসহ জাতিসংঘের শান্তি প্রচেষ্টায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে বাধ্য করে, শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অবদান রাখা এবং শান্তি বিনির্মাণে সহায়তা করা।’

আজ ঢাকায় প্রাপ্ত একটি বার্তা অনুসারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বুধবার ঘানার আক্রায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মন্ত্রী পর্যায় প্যানেলিস্ট হিসেবে বক্তব্য রাখছিলেন। সে সময় এসব কথা বলেন।

মোমেন একটি উচ্চ পর্যায়ের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তিনি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মন্ত্রী পর্যায়ের ঢাকার পক্ষে শান্তিরক্ষার অঙ্গীকার করেছেন।

এর আগে, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার হাঙ্গেরির সমকক্ষ পিটার সিজ্জার্তোর সঙ্গে মন্ত্রিসভার সাইডলাইনে বৈঠক করেন।

দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী উষ্ণ ও বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে পারস্পরিক স্বার্থের বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন।


কুকি চিনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও দৌরাত্ম্য নির্মূল করা হবে: বিজিবি মহাপরিচালক

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

পাহাড়ের সশস্ত্র গোষ্ঠী কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে যৌথবাহিনীর অভিযান চলছে এবং তাদের দৌরাত্ম্য ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড নির্মূল করা হবে বলে জানিয়েছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী।

গতকাল শনিবার বিজিবি সদস্যদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে দুর্গম পার্বত্য সীমান্ত পরিদর্শন করেন বিজিবি মহাপরিচালক। ভারতের মিজোরাম সীমান্ত সংলগ্ন প্যারাছড়া ও উলুছড়ি বিওপি পরিদর্শনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

বিজিবিপ্রধান বলেন, ‘কেএনএফের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে যৌথবাহিনীর অভিযান চলছে। বিজিবিসহ অন্যান্য বাহিনী সার্বিকভাবে অভিযানে অংশ নিচ্ছে।’

নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করায় বিজিবি সদস্যদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে দেশপ্রেম ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের জন্য বিভিন্ন বিষয়ে দিকনির্দেশনাও প্রদান করেন তিনি।

বিজিবি সেনাদের ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বিজিবি সদস্যদের দায়িত্ব পালনের কারণেই দেশবাসী নিরাপদে থাকতে পারে।’

জেনারেল আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী এর আগে সকালে রাঙামাটি সেক্টর সদর দপ্তর পরিদর্শন করেন। সকল পর্যায়ের বিজিবি সদস্যদের দরবার গ্রহণ করেন। দরবারে রাঙামাটি সেক্টরের আওতাধীন ব্যাটালিয়ন ও বিওপিতে কর্মরত সকল পর্যায়ের বিজিবি সদস্য ভিটিসির মাধ্যমে সংযুক্ত ছিলেন।

বিজিবি মহাপরিচালক বিওপি পরিদর্শনকালে বিজিবি সদর দপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (জিএস শাখা), অতিরিক্ত মহাপরিচালক (বিএসবি), বিজিবির চট্টগ্রাম রিজিয়ন কমান্ডার, রাঙামাটি সেক্টর কমান্ডার এবং সংশ্লিষ্ট ব্যাটালিয়নের অধিনায়কসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


পঞ্চগড় সীমান্তে এবারও বসছেনা দুই বাংলার মিলনমেলা

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
পঞ্চগড় প্রতিনিধি
গত ৫ বছরের মত এবারও নানা কারণে বসছেনা বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে পঞ্চগড়সহ উত্তরাঞ্চলের মানুষের ঐতিহ্য সীমান্তের জিরো লাইনে কাটাতার ঘেঁষে দুই বাংলার মিলনমেলা।
শনিবার দুপুরে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড পঞ্চগড়-১৮ বিজিবি'র সেকেন্ড ইন কমান্ড উপ অধিনায়ক (টুআইসি) মেজর রিয়াজ মুর্শেদ ও নীলফামারী ৫৬ বিজিবির হওয়ায় ৫৬ বিজিবি'র (সিও) অধিনায়ক লে. কর্ণেল আসাদুজ্জামান হাকিম এই মিলনমেলা না হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
বিজিবি জানায়, গেল বছরের মত এই মিলনমেলা নিয়ে এবারও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী ও প্রশাসনের কোন নির্দেশনা পাওয়া যায়নি। তাই এবারও বসছেনা সীমান্তে দুই বাংলার মিলনমেলা।
এর আগে বিভিন্ন সমস্যার পাশাপাশি বৈশ্বিক মহামারির কারণে গত ২০১৯ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত টানা ৫ বছর পঞ্চগড় সীমান্তে দুই বাংলার কাঁটাতারের এই মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়নি। এবার নিয়ে ৬ষ্ঠ বারের মত তা বন্ধ থাকছে।
সাধারণত বৈশাখের প্রথম ও দ্বিতীয় দিন সীমান্তে এ মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। প্রতি বছর বাংলা নববর্ষে পঞ্চগড়ের অমরখানা, শুকানি, মাগুরমারি ও ভূতিপুকুর সীমান্তসহ বেশ কয়েকটি পয়েন্টের কাঁটাতারের পাশে প্রায় ১০-১৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দুই বাংলার মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় দু'দেশের হাজার হাজার মানুষ জমায়েত হয়ে একে অন্যের সঙ্গে কথা ও ভাব বিনিময় করেন। এই দিনটির দুই সীমান্তের মানুষ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে থাকলেও এবারও সেই আনন্দ চোখে পড়বে না।


ব্যারিস্টার সুমন অসহায় মহিলাকে ঘর উপহার দিয়ে ঈদ উদযাপন করলেন 

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

অসহায় ও দরিদ্র মহিলাকে বসত ঘর নির্মাণ করে দেয়ার মধ্য দিয়ে ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন করলেন ব্যারিস্টার সুমন এমপি। নিজ এলাকায় এক অসহায় মহিলার জরাজীর্ণ বসত ঘরের ভিডিও ফেসবুকে দেখেন। এরপর এমপি ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন নিজের দায়িত্ববোধ ও মানবিক কারণে ছুটে যার অসহায় মহিলার বাড়িতে।

জানা যায়, ঈদের দিন বৃহস্পতিবার স্থানীয় ঈদগাহে ঈদ নামাজ পড়ে নিজ বাসায় এলাকাবাসীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করে রেস্ট করছিলেন। এসময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও দেখে একজন অসহায় মহিলার। তা দেখে তাৎক্ষনিক সেই মহিলার বাড়িতে চুনারুঘাট উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে ছুটে যান এবং ব্যারিস্টার সুমন সংশ্লিষ্টদের ওই মহিলার বসত ঘর নির্মাণ করতে নির্দেশ দেন।

স্বামীহারা ওই মহিলা দীর্ঘদিন ধরে জরাজীর্ণ ঘরে বসবাস করে আসছেন। বর্ষাকালে ঘরে পতিত বৃষ্টির পানি সেঁচ দিতে দিতে ক্লান্ত তিনি। অসহায় মহিলার এমন দুর্দশা লাঘব করতে গিয়ে ব্যারিস্টার সুমন এমপি বলেন, মানুষকে কষ্টে রেখে আমি কোনোভাবেই ঈদ করতে পারি না। মানুষের আর্তনাদ কমানো আমার রাজনীতির ধর্ম। তাই আমি ওই নিঃস্ব মহিলার বসত ঘর করে দেয়ার ব্যবস্থা করেছি।


ঝুঁকিমুক্ত পরিবহন ও নিরাপদ সড়ক চাই দাবিতে মানববন্ধন

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
পিরোজপুর প্রতিনিধি

ঝুঁকিমুক্ত পরিবহন ও নিরাপদ সড়ক চাই দাবিতে পিরোজপুর সদর উপজেলার ৭ নং শংকরপাশা ইউনিয়নের শংকরপাশা ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে স্থানীয় জনসাধারণের সমন্বয়ে এবং ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও মেম্বারসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় এক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন অনুষ্ঠানে শংকরপাশা ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক হাসান মোহাম্মদ পারভেজসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিকার চেয়ে মূল্যবান বক্তব্য প্রদান করেন। মানববন্ধনে ৭ নং শংকরপাশা ইউনিয়নের স্কুল গোলাম হায়দার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌস ওহি শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা স্বার্থে বলেন, অত্র প্রতিষ্ঠানে প্রায় চারশত থেকে পাঁচশত শিক্ষার্থী রয়েছে তারা প্রতিদিন স্কুলে আসা এবং যাওয়ার ক্ষেত্রে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হন। ইতিপূর্বে তাদের সহপাঠী সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুলের সম্মুখেই নিহত হয়েছিলেন। তাই তিনি সকল শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে স্কুলের সম্মুখে একটি ঢালাই স্পিড ব্রেকারের জোরালো আবেদন করেন।

আরও বক্তব্য প্রদান করেন মোঃ কাউসার হোসেন। তিনি এ সড়কের বারবার দুর্ঘটনার কারণসমূহ চিহ্নিত করাসহ অদক্ষ ড্রাইভার এবং রেজিস্ট্রেশনবিহীন গাড়ি, রাস্তার দুই ধারে ঝুঁকিপূর্ণ গাছ, বৈদ্যুতিক খুঁটি এবং যত্রতত্র ট্রাকে মাল লোড আন লোডসহ বিভিন্ন বিষয়ে উপস্থাপন করেন এবং প্রতিকারে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

মানববন্ধনের অন্যতম সমন্বয়কারী মোঃ শামসুদ্দোহা তিনি তার বক্তব্যে বলেন, গত ৮ মার্চ ২০২৪ ইংরেজি তারিখ সকাল ১১:৩০ ঘটিকার সময় একটি সড়ক দুর্ঘটনায় সাতজন প্রাণ হারিয়েছেন এবং বহু লোক আহত হয়েছেন। তিনি অল্পের জন্য বেঁচে গিয়েছেন। তিনি তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন, এই সড়কটি ক্রমাগত একটি ভয়াবহ সড়কে পরিণত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, গত ৮ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১০ জন সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন। প্রতিদিনই সড়ক দুর্ঘটনা এ রাস্তায় লেগেই থাকে। তাই তিনি দাবি করেন পিরোজপুর পুরাতন বাস স্ট্যান্ড থেকে টগড়া ফেরিঘাট পর্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে স্পিড ব্রেকার, ঝুঁকিপূর্ণ গাছ, ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুতের খুঁটি সমূহ দ্রুত অপসারণ করা একান্ত প্রয়োজন। এ বিষয়ে তিনি প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী সড়ক ও জনপদ, চেয়ারম্যান জেলা পরিষদ পিরোজপুর বনও বিদ্যুৎ বিভাগ পিরোজপুর এর দৃষ্টিআকর্ষণ কামনা করেন। তিনি আরো উল্লেখ করেন যে পিরোজপুর বাস স্ট্যান্ড থেকে টগরা ফেরিঘাট পর্যন্ত কমপক্ষে তিনজন ট্রাফিক থাকা একান্ত আবশ্যক। তাছাড়া পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে ভান্ডারিয়া মঠবাড়িয়া ও ইন্দুরকানির বাসগুলো অনৈতিকভাবে অবস্থান করে ছাড়ার নির্ধারিত সময়ের অনেক পরে যাত্রা শুরু করায় তাদেরকে রাস্তায় নির্ধারিত স্পিডের দ্বিগুণ গতিতে চালিয়ে ফেরী ধরতে হয়।

এ কারণে নানান সড়ক দুর্ঘটনার সৃষ্টি হচ্ছে। এতে সাধারণ জনগণ তার পিতা-মাতা ও সন্তান হারাচ্ছেন যা মোটেই কাম্য নয়। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার এবং জেলা বাস মালিক সমিতির সুদৃষ্টি কামনা করেন। মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন স্থানীয় চেয়ারম্যান মো: তোফাজ্জেল হোসেন, মল্লিক স্বপন সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগ পিরোজপুর। তিনি তার বক্তব্য একই দাবি দাওয়া সমূহ উল্লেখ করেন এবং জেলা প্রশাসক প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী সড়ক ও জনপথ চেয়ারম্যান জেলা পরিষদ বন বিভাগ নির্বাহী প্রকৌশলী বিদ্যুৎ এবং বাস মালিক সমিতির সকলের দৃষ্টি আকর্ষণপূর্বক সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিকারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করেন।


পিরোজপুরে ‘ঝুঁকিমুক্ত পরিবহন ও নিরাপদ সড়ক চাই’ দাবিতে মানববন্ধন

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
পিরোজপুর প্রতিনিধি

‘ঝুঁকিমুক্ত পরিবহন ও নিরাপদ সড়ক চাই’ দাবিতে পিরোজপুর সদর উপজেলার ৭নং শংকরপাশা ইউনিয়নের শংকরপাশা ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্থানীয় জনসাধারণের সমন্বয়ে এবং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বারসহ স্থানীয়দের উপস্থিতিতে বেলা ১১টা ৩০ মিনিটের দিকে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে শংকরপাশা ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক হাসান মোহাম্মদ পারভেজসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিকার চেয়ে মূল্যবান বক্তব্য দেন।

মানববন্ধনে ৭নং শংকরপাশা ইউনিয়নের গোলাম হায়দার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌস ওহি শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে বলেন, অত্র প্রতিষ্ঠানে প্রায় চারশ থেকে পাঁচশ শিক্ষার্থী রয়েছে। তারা প্রতিদিন স্কুলে আসা এবং যাওয়ার ক্ষেত্রে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হন। ইতিপূর্বে তাদের সহপাঠী সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুলের সম্মুখেই নিহত হয়েছিলেন। তাই তিনি সকল শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে স্কুলের সম্মুখে একটি ঢালাই স্পিড ব্রেকারের জোরালো আবেদন করেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য প্রদান করেন মো. কাউসার হোসেন। তিনি এই সড়কে বারবার দুর্ঘটনার কারণসমূহ চিহ্নিত করে বলেন, অদক্ষ ড্রাইভার এবং রেজিস্ট্রেশন বিহীন গাড়ি, রাস্তার দুই ধারে ঝুঁকিপূর্ণ গাছ, বৈদ্যুতিক খুঁটি এবং যত্রতত্র ট্রাকে মাল লোড আন লোডসহ বিভিন্ন বিষয়ে উপস্থাপন করেন। এবং প্রতিকারে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

মানববন্ধনের অন্যতম সমন্বয়কারী মো. শামসুদ্দোহা বলেন, গত ৮ মার্চ ২০২৪ তারিখ সকাল ১১ট ৩০ মিনিটের দিকে একটি সড়ক দুর্ঘটনায় সাতজন প্রাণ হারিয়েছেন এবং বহু লোক আহত হয়েছেন। এতে তিনি অল্পের জন্য বেঁচে গিয়েছেন। তার বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন যে, এই সড়কটি ক্রমাগত একটি ভয়াবহ সড়কে পরিণত হতে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, গত ৮ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১০ জন সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন। প্রতিদিনই সড়ক দুর্ঘটনা এ রাস্তায় লেগেই থাকে। তাই তিনি দাবি করেন যে পিরোজপুর পুরাতন বাস স্ট্যান্ড থেকে টগড়া ফেরিঘাট পর্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে স্পিড ব্রেকার ঝুঁকিপূর্ণ গাছ ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুতের খুঁটি সমূহ দ্রুত অপসারণ করা একান্ত প্রয়োজন। এ বিষয়ে তিনি প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী সড়ক ও জনপদ, চেয়ারম্যান জেলা পরিষদ পিরোজপুর বনও বিদ্যুৎ বিভাগ পিরোজপুর এর দৃষ্টিআকর্ষণ কামনা করেন।

তিনি আরও উল্লেখ করেন, যে পিরোজপুর বাস স্ট্যান্ড থেকে টগরা ফেরিঘাট পর্যন্ত কমপক্ষে তিনজন ট্রাফিক থাকা একান্ত আবশ্যক। তাছাড়া পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে ভান্ডারিয়া মঠবাড়িয়া ও ইন্দুরকানির বাস গুলি অনৈতিকভাবে অবস্থান করে ছাড়ার নির্ধারিত সময়ের অনেক পরে যাত্রা শুরু করায় তাদেরকে রাস্তায় নির্ধারিত স্পিডের দ্বিগুণ গতিতে চালিয়ে ফেরী ধরতে হয় ফলে এ কারণে নানান সড়ক দুর্ঘটনার সৃষ্টি হচ্ছে ফলে সাধারণ জনগণ তার পিতা-মাতা ও সন্তান হারাচ্ছেন যা মোটেই কাম্য নয়। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার এবং জেলা বাস মালিক সমিতির সুদৃষ্টি কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে সর্বশেষ বক্তব্য রাখেন স্থানীয় চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জেল হোসেন মল্লিক স্বপন সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগ পিরোজপুর তিনি তার বক্তব্য একই দাবি দাওয়া সমূহ উল্লেখ করেন এবং মাননীয় জেলা প্রশাসক প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী সড়ক ও জনপথ চেয়ারম্যান জেলা পরিষদ বন বিভাগ নির্বাহী প্রকৌশলী বিদ্যুৎ এবং বাস মালিক সমিতির সকলের দৃষ্টি আকর্ষণপূর্বক সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিকারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করেন এবং তিনি তার বক্তব্য সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

বিষয়:

বান্দরবানে পর্যটক ভ্রমণে দেয়া নির্দেশনা চারটি স্থগিত

ছবি: বাসস
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বাসস

জেলার রুমা উপজেলা ভ্রমণে পর্যটকদের চারটি নির্দেশনা দিয়ে একটি পত্র জারি করেছিল রুমা উপজেলা প্রশাসন। গত ৯ এপ্রিল ওই পরিপত্র জারি করা হয়।

জারি হওয়া নির্দেশনাগুলো ছিলো, যৌথবাহিনী অভিযান পরিচালনাকালে কোন হোটেলে পর্যটকের রুম ভাড়া দেয়া যাবে না।কোন পর্যটক পথ প্রদর্শকও পর্যটকদের কোন পর্যটন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া যাবে না। কোন পর্যটন কেন্দ্রের জিপ গাড়ি নিয়ে যাওয়া যাবেনা এবং নৌ- পথেও পর্যটকের কোন পর্যটন কেন্দ্রে না নিয়ে যেতে বলা হয়েছে এই নির্দেশনায়।

তবে গতকাল শুক্রবার ওই চার নিদর্শনা স্থগিত করে একটি পত্রাদেশ জারি করে রুমা ইউএনও মো. দিদারুল আলম (রুটিন দায়িত্ব)।


বিশ্বের দীর্ঘতম আলপনা আঁকা হচ্ছে হাওরের অলওয়েদার সড়কে

আপডেটেড ১৩ এপ্রিল, ২০২৪ ১৫:৫৪
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

বাঙালির আবহমান ও সমৃদ্ধশালী সংস্কৃতিকে বিশ্বমঞ্চে তুলে ধরার লক্ষ্যে কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলে আয়োজিত হচ্ছে ‘আল্পনায় বৈশাখ ১৪৩১' উৎসব। আলপনার রঙে রাঙানো হচ্ছে মিঠামইন-অষ্টগ্রাম হাওরের ১৪ কিলোমিটার সড়ক।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টায় কিশোরগঞ্জের মিঠামইন জিরোপয়েন্ট এলাকায় আলপনা আঁকার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি আসাদুজ্জামান নূর এমপি।

নতুনরূপে সাঁজবে হাওর, সেই আনন্দে ভাসছে এই জনপদের বাসিন্দারা। মিঠামইন উপজেলার কুলাহানি গ্রামের বাসিন্দা তোফায়েল আহমেদ সাকিব বলেন, 'একটা সময় ছিল দাওয়াত করেও আমাদের বন্ধুদের হাওরে আনতে পারতাম না আর এখন যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল হওয়ায় হাওরে সারাবছরই শহরের মানুষের ভীড় লেগেই থাকে। সাকিব আরও বলেন, দীর্ঘ এই আলপনার ফলে হাওরে পর্যটকের ভীড় আরও বাড়বে সেইসাথে হাওরের এই সড়কটি গিনেজ বুক অফ ওয়ার্ল্ডে স্থান করে নিবে। এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের এবং আনন্দের।'

অষ্টগ্রাম উপজেলার ভাতশালা গ্রামের বাসিন্দা আতিকুল ইসলাম বলেন, 'এক সময়ের অবহেলিত হাওর এখন সারাদেশের মানুষের পছন্দের জায়গা। হাওর এখন একটা সময়ে হাওরে বাড়ি বললে মানুষে অবজ্ঞা করতো, আর এখন সম্পর্ক গড়ে। আমার জন্মটা হাওরে হওয়ায় আমি গর্ববোধ করি।'

কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, 'এক সময়ের অবহেলিত হাওর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুদৃষ্টিতে এবং ব্যাপক উন্নয়নের ফলে সারাদেশের মানুষের অত্যন্ত পছন্দের জায়গায় পরিণত হয়েছে। হাওরের বিভিন্ন এলাকায় সাবমার্সেবল সড়কসহ সারাবছর চলাচলের জন্য অলওয়েদার সড়ক নির্মিত হয়েছে। এই অলওয়েদার সড়কটি দেখতে আসেননি এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম।'

তিনি বলেন, 'আগে এই সড়কটির সৌন্দর্য কেবল দেশের মানুষের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকত এখন সেটি বিশ্ব দরবারে স্থান করে নিতে যাচ্ছে। বিষয়টি আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের এবং আনন্দের।'

সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, 'বিশ্বরেকর্ড গড়ার অদম্য এই প্রচেষ্টা দেশের ভাবমূর্তি উজ্জল করবে, সম্প্রীতির আরো সুদৃঢ় হবে। এই বিশাল কর্মযজ্ঞ গিনেজ বুক অফ ওয়ার্ল্ডে বিশ্বের সর্ববৃহৎ আলপনা'র স্বীকৃতি পাবে, কিশোরগঞ্জ হাওরাঞ্চল বিশ্ববাসীর নিকট নতুনভাবে পরিচিত হবে। পর্যটন শিল্প আরো বিকশিত হবে।'

কিশোরগঞ্জ হাওরাঞ্চলে বাঙালি লোকসংস্কৃতি তুলে ধরতে, এশিয়াটিক এক্সপেরিয়েনশিয়াল মার্কেটিং লিমিটেড, বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনস লিমিটেড ও বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে মিঠামইন জিরোপয়েন্ট থেকে অষ্টগ্রাম জিরোপয়েন্ট পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটার সড়কে ৬৫০জন শিল্পী সর্ববৃহৎ আল্পনা উৎসব 'আল্পনায় বৈশাখ ১৪৩১' শুরু করেছেন।

কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহমদ তৌফিকের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার প্রধান (ডিবি) হারুন অর রশিদ; কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ, জেলা পরিষদ প্রশাসক এড. জিল্লুর রহমান, জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখ, মিঠামইন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. এরশাদ মিয়া, বরেণ্য শিল্পী মো. মনিরুজ্জামান; বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ লিমিটেডের চিফ অপারেটিং অফিসার ও ডিরেক্টর মো. মহসিন হাবিব চৌধুরী ও বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনস লিমিটেডের চিফ হিউম্যান রিসোর্স অ্যান্ড অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অফিসার মনজুলা মোরশেদ ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।


দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৩ বন্ধুর মৃত্যু

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
সিলেট ব্যুরো

সিলেটের জকিগঞ্জে দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিন বন্ধুর মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে দুজনের ঘটনাস্থলে এবং একজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ দুর্ঘটনায় দুজন আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- জকিগঞ্জের খলাছড়া ইউনিয়নের মাদারখাল গ্রামের আফতার আলীর ছেলে আদিল হোসাইন (২০), একই গ্রামের জমির আলীর ছেলে জাকারিয়া আহমদ (২১) ও একই গ্রামের সুবহান আলীর ছেলে মিলন আহমেদ (২০)।

শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে জকিগঞ্জ-সিলেট সড়কের শাহবাগ মুহিদপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঈদের পরদিন রাতে আদিল, জাকারিয়া ও মিলন এরকটি মোটরসাইকেল নিয়ে ঘুরতে বের হয়েছিলেন। সিলেট-জকিগঞ্জ সড়কের শাহবাগে বিপরীত দিক থেকে আসা অপর একটি মোটর সাইকেলের সাথে তাদের সংঘর্ষ হয়। দ্রুত গতির দুটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে আদিল, জাকারিয়া ও মিলন গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে তাৎক্ষণিক স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আদিল হোসাইন ও জাকারিয়া আহমদকে মৃত ঘোষণা করেন এবং মিলনের আশঙ্কাজনক অবস্থা হওয়ায় দ্রুত সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার ভোরে মিলনও মারা যান।

৩ জনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে জকিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাবেদ মাসুদ বলেন, 'মরদেহগুলো ওসমানী হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।'


পাত্রী পছন্দ না হওয়ার পাত্রের দুলাভাইকে পিটিয়ে হত্যা

আপডেটেড ১৩ এপ্রিল, ২০২৪ ১১:৫৯
বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে পাত্রের দুলাভাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে পাত্রীর পরিবারের বিরুদ্ধে।

শুক্রবার (১২ এপ্রিল) রাত ৮টার দিকে জেলার মোল্লাহাট উপজেলার আংড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, নিহত আজিজুল হক (৪৫) খুলনা জেলার তেরখাদা উপজেলার ইছামতি গ্রামের শাহাদাত মোল্লার ছেলে। মোল্লাহাট উপজেলার আংড়া গ্রামে শাহদাত মুন্সির মেয়ের সঙ্গে দফাদার মোহাম্মাদ আলী গাজীর ছেলে হাফিজুর রহমান গাজীর বিয়ের কথা হয়েছিল। এদিন পাত্রপক্ষ পাত্রীকে দেখতে তাদের বাড়িতে যায়। কিন্তু ছেলের মেয়ে পছন্দ না হওয়ায় তারা ফিরে আসার সময় তাদের ওপর হামলা করে পাত্রীপক্ষ। এতে পাত্রের দুলাভাই আজিজুল নিহত হন।

মোল্লাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আশরাফুল আলম বলেন, 'মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।'


রামুতে ৭১ রোহিঙ্গা আটক

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজারের রামুতে প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া ক্যাম্পের বাইরে বেড়াতে আসার অভিযোগে ৭১ জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার রাত ১২টার দিকে রামু থানার ওসি আবু তাহের দেওয়ান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আটক রোহিঙ্গাদের সবাই যুবক ও মধ্যবয়সী পুরুষ।

পুলিশ জানিয়েছে, দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত শহীদ এটিএম জাফর আলম আরাকান সড়কে ( কক্সবাজার-টেকনাফ সড়ক) রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের সামনে অস্থায়ী তল্লাশী চৌকি স্থাপন করে এ অভিযান চালানো হয়েছে।

ওসি আবু তাহের দেওয়ান বলেন, 'ঈদ উপলক্ষে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং নিরাপত্তায় পুলিশ নানাভাবে তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে। এই তৎপরতার অংশ হিসেবে শুক্রবার দুপুরে রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের পুলিশের একটি অস্থায়ী তল্লাশী চৌকি স্থাপন করে। এক পর্যায়ে বিকাল পর্যন্ত টেকনাফ দিক থেকে আসা যাত্রীবাহী বাস, অটোরিকশা ও ইজিবাইকসহ বিভিন্ন যানবাহনে তল্লাশী করে ৭১ জন রোহিঙ্গা নাগরিককে আটক করা হয়।'

আটকদের দাবি, ঈদ উপলক্ষে তারা কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতসহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় বসবাসকারি আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিল।

তবে এ ব্যাপারে আটক এসব রোহিঙ্গারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের অনুমতির স্বপক্ষে কোন ধরণের কাগজপত্র দেখাতে পারেনি।

ওসি বলেন, 'সন্ধ্যায় এসব রোহিঙ্গাদের রামু থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। এরপর রাতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক আটক রোহিঙ্গাদের উখিয়া উপজেলার কুতুপালং এলাকাস্থ শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার ( আরআরআরসি ) কার্যালয়ের অস্থায়ী ট্রানজিট ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হয়েছে।'

পরে সেখান থেকে এসব রোহিঙ্গাদের স্ব স্ব ক্যাম্পে ফেরত পাঠাতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে বলে জানান আবু তাহের দেওয়ান।


চট্টগ্রামে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী ৪ জন নিহত 

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি ও পটিয়ায় পৃথক দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় ২ কিশোর ও ২ তরুণ নিহত হয়েছেন। চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী ২ কিশোর নিহত ও ১ কিশোর আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। নিহতরা হলো- মো: আব্দুল্লাহ (১৭) এবং মো: মোস্তাকিম (১৩)। আহত হয়েছে মো. রাহাত (১৩)। তারা ৩ জন পরস্পর পরস্পরের খালাতো ভাই।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার বিকেল ৫টার দিকে চট্টগ্রাম খাগড়াছড়ি সড়কের নাজিরহাট পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের মধ্য দৌলতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

অন্যদিকে কিশোর একটি মোটরসাইকেলে করে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়ক পার হওয়ার সময় পিছন থেকে দ্রুত গতির একটি যাত্রীবাহী বাস তাদের ধাক্কা দেয়। পরে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ নেয়ার পর একজন এবং চট্টগ্রামে নেয়ার পথে ১ জনসহ মোট ২ জন মারা যান।

এছাড়াও এ ঘটনায় গুরুতর আরও একজন হলেন মাইজভান্ডার দরবার শরীফ এলাকার মো: জানে আলমের ছেলে মো: রাহাত (১৬)। সম্পর্কে তারা আপন খালাতো ভাই।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আরেফিন আজিম বলেন, গুরুতর আহত অবস্থায় ৩জন রোগী মেডিক্যাল এ নিয়ে আসা হয় তন্মধ্যে একজন মৃত ছিল। অন্য ২ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চট্টগ্রাম নেয়ার পথে আরও একজন মারা গেছে শুনেছি।

নাজিরহাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সেকেন্ড অফিসার মোঃ আনিসুর রহমান বলেন, মোটরসাইকেল এবং বাস দুর্ঘটনায় ২জন মারা গেছেন। এ ঘটনায় বাস এবং মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে। বাস চালককে আটক করা যায়নি। আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

অপরদিকে চট্টগ্রামের পটিয়ায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই আরোহী নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- বোয়ালখালী উপজেলার পশ্চিম গোমদন্ডী এলাকার মোঃ ওসমানের পুত্র মোঃ হৃদয় (২২) ও একই এলাকার ফোরকান বাদশার পুত্র মোঃ ইমরান (২০)।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন পটিয়া হাইওয়ে থানার এসআই আবদুর রশীদ জানান, যাত্রীবাহী লোকাল বাসটি জব্দ করা হয়েছে এবং নিহত দুইজনের লাশ হাইওয়ে থানা হেফাজতে রয়েছে। শুক্রবার বিকেল ৪টার দিকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সড়কের পটিয়া উপজেলার মনসার টেক মেম্বারের দোকানের সামনে যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

জানা গেছে, মোটরসাইকেল আরোহী দুইজন শান্তির হাট এলাকা থেকে বোয়ালখালীর দিকে যাচ্ছিল। এসময় পটিয়া থেকে ছেড়ে যাওয়া চট্টগ্রামমুখী একটি যাত্রীবাহী লোকাল বাসের সঙ্গ মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে মোটরসাইকেল আরোহী দুইজন ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।


মুন্সীগঞ্জ নদীতে নিখোঁজ ঢাকা ব্যাংক কর্মকর্তাসহ দুজনের মরদেহ উদ্ধার

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১২ এপ্রিল, ২০২৪ ২৩:১৫
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার দিঘীরপাড় এলাকায় পদ্মার শাখা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ ঢাকা ব্যাংকের এক কর্মকর্তাসহ দুজনের মরদেহ আজ শুক্রবার উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস।

ঘটনাস্থলের অদূরে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল রাত সাড়ে আটটার দিকে ব্যাংক কর্মকর্তা জুয়েল রানা ও রিয়াদ আহমেদ রাজু নামের দু'জনের মরদেহ উদ্ধার করে।

এখনও নিখোঁজ রয়েছে রিয়াদ আহমেদ রাজুর ছেলে রামিন আরিদ (১৬)।

উদ্ধার হওয়া দুজনের মধ্যে জুয়েল ঢাকা ব্যাংকের গুলশান শাখার কর্মকর্তা ছিলেন, তবে তার পদবি জানা যায়নি। জুয়েলের ভাইরা রিয়াদ আহমেদ রাজুর বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি। দুজনই ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকায় থাকতেন।

পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা যায়, জুয়েল, রাজু ও রামিন টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বেসনাল এলাকায় তাদের স্বজন আলম মোল্লার বাড়িতে বেড়াতে যান। শুক্রবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ট্রলারে করে ৩০ থেকে ৩৫ জন দিঘীরপাড় ইউনিয়নের ধানকোড়া এলাকায় পদ্মার শাখা নদীতে ঘুরতে বের হন। ওই সময় তারা বেশ কয়েকজন ট্রলার থেকে গোসল করতে নামেন।

গোসল করার সময় রামিন নদীর স্রোতে ভেসে যেতে থাকলে তার বাবা ও খালু তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে তারাও ভেসে গিয়ে নিখোঁজ হন।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় মুন্সীগঞ্জ সদর ও টঙ্গিবাড়ী উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের টিম ও নৌ পুলিশ। পরে ঢাকার ডুবুরি দল উদ্ধারকাজে যোগ দেয়।

টঙ্গিবাড়ী ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ মোস্তফা কামাল বলেন, ‘সংবাদ পেয়ে আমাদের টিম ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়। ঢাকা থেকে ইতোমধ্যেই প্রশিক্ষিত ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধারকাজ শুরু করে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে। এখনও নিখোঁজ রয়েছে একজন।’

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার চর আবদুল্লাহ নৌ ফাঁড়ির ইনচার্জ আবুল হাসনাত জানান, ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিস ও নৌ পুলিশের টিম উদ্ধারকাজ অব্যাহত রেখেছে।


'যোগ্যরাই টিকে থাকে; তাই মানব সম্পদ উন্নয়ন অপরিহার্য'

শুক্রবার মনোহরগন্জ উপজেলায় নিজ বাড়িতে স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে এক ঈদ-পুনর্মিলনী সভায় বক্তব্যে বক্তব্য দিচ্ছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১২ এপ্রিল, ২০২৪ ২২:০৪
বাসস

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, মানুষের সক্ষমতা ও রুচি উন্নত হলে দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয়। যোগ্যরাই টিকে থাকে তাই মানব সম্পদ উন্নয়ন অপরিহার্য।

আজ শুক্রবার কুমিল্লার মনোহরগন্জ উপজেলায় নিজ বাড়িতে স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে এক ঈদ পুনর্মিলনী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

সমাজে সবাইকে সৎ আচরণ অনুশীলন করার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সামাজিক সুবিচার নিশ্চিত করলে মানুষ শান্তিতে থাকতে পারে। মন্ত্রী বলেন, দলীয় মনোনয়ন না থাকায় এবারের উপজেলা নির্বাচন প্রার্থীদের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। যারা কাজের মাধ্যমে জনগণের মন জয় করতে পেরেছে, অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিল, মানুষকে ন্যায় বিচারের মাধ্যমে সমাজে শান্তি শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করেছে, তারা উপজেলা নির্বাচনে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা পরীক্ষা করে দেখতে পারেন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী উপজেলা নির্বাচনে স্থানীয় সংসদ সদস্য হিসেবে নিরপেক্ষ থাকার ঘোষণা দিয়ে এ সময় বলেন, আওয়ামী ও সহযোগী সংগঠনের যে কেউ চাইলে প্রার্থী হতে পারেন তবে সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ কোথাও একে অন্যের বিরুদ্ধে বিষেদগার থেকে বিরত থাকতে হবে।

সভায় আরও বক্তৃতা করেন মনোহরগন্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাস্টার আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন, সহ সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, যুবলীগের আহবায়ক দেওয়ান জসিম উদ্দিন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক সেলিম কাদের চৌধুরী, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান শামীম।


banner close