রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

কাভার্ড ভ্যানের চাপায় সাংবাদিক নিহত

ওমর ফারুক বিশাল।
আপডেটেড
৭ নভেম্বর, ২০২২ ১৬:১১
প্রতিনিধি, নরসিংদী
প্রকাশিত
প্রতিনিধি, নরসিংদী
প্রকাশিত : ৭ নভেম্বর, ২০২২ ১৬:১০

নরসিংদী রায়পুরায় কাভার্ড ভ্যানের চাপায় ওমর ফারুক বিশাল (৩২) নামে এক সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। আজ সোমবার সকালে পৌনে ১০টার দিকে উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মরজাল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আরও একজন আহত হয়েছেন।

নিহত ওমর ফারুক বেলাব উপজেলার ধুকুন্দি গ্রামের মৃত নূরুল ইসলামের ছেলে। তিনি জি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম নামে একটি অনলাইন পোর্টালের যুগ্ম বার্তা সম্পাদক পদে কর্মরত ছিলেন।

পুলিশ জানায়, সোমবার সকালে গ্রামের বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে ঢাকা যাওয়ার জন্য মরজাল বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছালে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় ওমর ফরুকের মৃত্যু হয়। এ সময় ইমাম হোসেন সজল নামে আরেকজন গুরুতর আহত হন।

পরে তাকে নরসিংদী জেলা হাসপাতাল পাঠানো হয়। পরে সেখান থেকে চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

ভৈরব হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল জানান, ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ওসি আরও বলেন, কাভার্ডভ্যানের চালক পালিয়ে গেছে। কাভার্ডভ্যানটি জব্দ করা হয়েছে।


সেন্টমার্টিনে ক্যাম্পেইন ও পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নৌবাহিনীর জাহাজ

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

সেন্টমার্টিন দ্বীপে মেডিকেল ক্যাম্পেইন ও পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করেছে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জাহাজ সমুদ্র জয়। শনিবার দিনব্যাপী এ পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও মেডিকেল ক্যাম্পেইন পরিচালিত হয়।

শনিবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দ্বীপের প্রায় এক হাজার রোগীর মধ্যে ২৩ হাজার ৭১৭ ইউনিট ওষুধ বিনা মূল্যে বিতরণ করা হয়। পাশাপাশি জাহাজের নৌ সদস্যরা দ্বীপটিতে সুসজ্জিত দলে বিভক্ত হয়ে উত্তর-পূর্ব সৈকত থেকে এ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম শুরু করে এবং সৈকত থেকে আনুমানিক ৩০০ কেজি বর্জ্য পদার্থ সংগ্রহ করে।

সেন্টমার্টিন দ্বীপে আগত ভ্রমণপ্রেমী পর্যটকদের কাছে পরিবেশ রক্ষায় করণীয় এবং দ্বীপবাসীর উদ্দেশে ব্যানার, ফেস্টুন ও প্লাকার্ডের মাধ্যমে পরিবেশ সংরক্ষণবিষয়ক বিভিন্ন বার্তা তুলে ধরা হয়। সেন্টমার্টিন দ্বীপের জীববৈচিত্র্য ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে পরিপূর্ণ দ্বীপটি রক্ষা করতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়। এই কার্যক্রমের মাধ্যমে সেন্টমার্টিন দ্বীপের সাধারণ জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং পরিবেশ ও জীব বৈচিত্র্য সংরক্ষণে জনসচেতনতা বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা যায়।


গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে গ্রামে গ্রামে ঘুরছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী সামন্ত লাল সেন বলেছেন, ‘আমরা স্বাস্থ্য সুরক্ষা আইন করতেছি। গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে আমি গ্রামে গ্রামে ঘুরে বেড়াচ্ছি। স্বাস্থ্য সুরক্ষা আইন করে দেশের সব প্রাইভেট হাসপাতালে রোগনির্ণয় পরীক্ষার ফি নির্ধারণ করা হবে।’

শনিবার দুপুরে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কাশিমপুর থানাধীন তেঁতুইবাড়ি এলাকায় শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতাল পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘এ এলাকায় এত বড় একটা হাসপাতাল প্রধানমন্ত্রী মায়ের নামে। আমরা এটাকে আরও সচল করব যেন সাধারণ মানুষকে আরও ভালো সেবা দিতে পারি। এখানে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি আছে।’

সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘গাজীপুরে শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতালকে আরও সচল করা হবে, যাতে সাধারণ মানুষকে আরও ভালো সেবা দিতে পারি। এ হাসপাতালে অত্যাধুনিক সব যন্ত্রপাতি রয়েছে।’

এই হাসপাতালে চিকিৎসা খরচ বেশি এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘এগুলো আমরা সমন্বয় করার চেষ্টা করব। আলোচনা করে এসব ঠিক করা হবে।’

ওই সময় উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী মোহাম্মদ নাজমুল হাসান পাপন, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আবুল ফাতে মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাউছার আহমেদ, হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত মেডিকেল পরিচালক জে এম এইচ কাওসার আলম, প্রধান নার্সিং কর্মকর্তা রুযিতা মোহাম্মদ দান, সিভিল সার্জন মাহমুদা আক্তার, কালিয়াকৈর সহকারী কমিশনার (ভূমি) রজব বিশ্বাস, টঙ্গী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) তামান্না জোতি, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (কোনাবাড়ী জোন) আমির হোসেন, কাশিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ছানোয়ার জাহান প্রমুখ।

মন্ত্রী হাসপাতালের বিভিন্ন ফ্লোর, অফিস কক্ষ পরিদর্শন ও হাসপাতালের অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন।


শসার মণ ৮০ টাকা, খেতেই ফেলে দিচ্ছেন কৃষক

ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে প্রতি মণ শসা বিক্রি হচ্ছে ৮০-১০০ টাকা দামে। শসার ন্যায্য দাম না পাওয়ায় লোকসানের মুখে পড়তে হচ্ছে চাষিদের। অনেকেই হতাশ হয়ে পড়েছেন আবার অনেক কৃষকই লোকসানের ভয়ে খেতের শসা খেতেই রেখে দিচ্ছেন।

শনিবার দুপুরে উপজেলার কয়েকটি গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, খেত থেকে শসা তুলছেন কৃষকরা। কেউ পাইকারি দামে প্রতি কেজি শসা দুই টাকা আড়াই টাকা দামে বিক্রি করছেন। কেউ শসা তুলে খেতেই ফেলে দিচ্ছেন, কেউবা খেত থেকে শসা তুলছেনই না।

উপজেলার অচিন্তপুর গ্রামের শসাচাষি আমিনুল হক শাহীন বলেন, ‘এবার ৪০ শতাংশ জমিতে শসার আবাদ করেছি। ফলনও ভালো হয়েছে। প্রথম দিকে ৮০-৯০ টাকা মণ বিক্রি করলেও এখন খেতেই যাই না। বর্তমানে ৮০-১০০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। শসা বিক্রি করে ন্যায্য দাম না পাওয়ায় শ্রমিকদের মজুরি দিয়ে শসা উত্তোলন করে কোনো লাভ নেই। খেতের মধ্যেই শসা লাউয়ের মতো বড় হচ্ছে, পচতেছে।’

মোবারকপুর গ্রামের চাষি আলী বলেন, ‘৩০ শতাংশ জমিতে শসা চাষ করেছি। ফলন দেখে খুশি হয়েছিলাম কিন্তু বর্তমানে শসা তুলে বাজারে নিয়ে গেলে বিক্রি হচ্ছে না। পরে ২ টাকা দরে এক পরিচিত পাইকারের কাছে ৯০-১০০ মণ বিক্রি করেছি। বাজারদরে হতাশ হয়ে পড়েছি। লাভ তো দূরের কথা খরচ তোলাই দায় হয়ে পড়েছে।’

ব্যবসায়ী মিন্টু মিয়া বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন কৃষকের কাছ থেকে শসা ১০০ টাকা মণ কিনে সিলেটে বিক্রি করি ২০০ টাকা মণ। বর্তমানে এক ট্রাক শসা পাঠাতে মণপ্রতি আড়তদারকে দিতে হয় ২০ টাকা, লেবার খরচ হয় ১৫ টাকা, বস্তা ক্রয় করতে হয় ২০ টাকায় এবং পাঠাতে ভাড়া লাগে ২২ হাজার টাকা। এই টাকা খরচ করে সিলেটে শসা পাঠালে এখন আর আমাদের লাভ হয় না, লোকসান গুণতে হচ্ছে।’

ইছুলিয়া গ্রামের ব্যবসায়ী আশরাফুল ইসলাম আশরাফ বলেন, ‘এখন শসার ব্যবসা করে আমরা লোকসানের মধ্যে আছি। আমাদের ২-৩ লাখ করে লস হচ্ছে।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিলুফার ইয়াসমিন জলি বলেন, রমজান মাসকে সামনে রেখে গৌরীপুরে কৃষকরা অধিক পরিমাণে শসা উৎপাদন করেছে এবং বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় বাজারে আমদানিও বেশি। তাই দাম দ্রুত কমে যাচ্ছে। এতে দাম কমে যাওয়ায় কৃষকদের লাভ কম হচ্ছে।


পাবনায় তাপমাত্রা ৪১.৬, হিটস্ট্রোকে একজনের মৃত্যু

আপডেটেড ২০ এপ্রিল, ২০২৪ ১৮:০৬
পাবনা প্রতিনিধি:

তীব্র দবদাহে পুড়ছে সারা দেশ। ৪১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা নিয়ে পুড়ছে পবনার ঈশ্বরদী শহর। অসনীয় গরমে অতিষ্ঠ জেলার জনজীবন। এটিই চলতি মৌসুমে পাবনা জেলার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। তীব্র দাবদাহে পাবনা শহরে হিটস্ট্রোকে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার দুপুরে পাবনা শহরের রুপকথা রোডে একটি চায়ের দোকানে চা খাওয়ার সময় হিটস্ট্রোক করেন তিনি। এসময় আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত সুকুমার দাস (৬০) পাবনার শহরের শালগাড়িয়া জাকিরের মোড়ের বাসিন্দা।

ঈশ্বরদী আবহাওয়া অফিসের সহকারী পর্যবেক্ষক নাজমুল হক রঞ্জন জানান, কয়েকদিন ধরেই পাবনায় ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। আজকে রেকর্ড করা হয়েছে ৪১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস । এর আগে, এ বছর এতো তাপমাত্রা রেকর্ড হয়নি। ঈশ্বরদীসহ আশপাশের এলাকাজুড়ে তীব্র তাপপ্রবাহ বইছে। এ তাপমাত্রা আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে জেলায় তীব্র গরমে মানুষের হাঁসফাঁস অবস্থা। তীব্র এই তাপপ্রবাহে সব থেকে সবচেয়ে বেশি কষ্টে আছেন শ্রমজীবী মানুষ। জীবন-জীবিকার তাগিদে তীব্র রোদে কাজ করতে হচ্ছে খেটে খাওয়া মানুষদের। বাইরে বের হওয়ার সময় অনেকেই ছাতা নিয়ে বের হচ্ছেন।

বিষয়:

সোনারগাঁয়ে গাড়ির চাপায় বাবা-ছেলে নিহত

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ২০ এপ্রিল, ২০২৪ ১৬:৩৩
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে গাড়ির চাপায় দুইজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন একজন। শনিবার সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কেওডালা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত দুজন হলেন ঝালকাঠি সদর উপজেলার খেজুরা এলাকার সুরেশ ডাকুয়া (৩৫) ও তার ছেলে লোকেশ ডাকুয়া (৯)। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন নিহত লোকেশ ডাকুয়ার মা নিপু রায় (৩০) বলে জানিয়েছেন কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের পরিদর্শক রেজাউল হক।

তিনি জানান, শুক্রবার রাতে স্বামী-সন্তানসহ নারায়ণগঞ্জে ‘বাবা লোকনাথ ব্রহ্মচারী মন্দিরে পূজা করতে যান তারা। সেখান থেকে সকাল সাড়ে ৭টার দিকে স্বামী স্ত্রী ও সন্তান ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কেওঢালা এলাকা পার হচ্ছিলেন। এ সময় একটি গাড়ি তাদের চাপা দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, আহত অবস্থায় তিনজনকে স্থানীয়রা একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে লোকেশকে চিকিৎসক মৃত বলে জানান। সুরেশ ও নিপু রায়কে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হলে সেখানে সুরেশ ডাকুয়ার মৃত্যু হয়।

কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের পরিদর্শক রেজাউল হক বলেন, ‘নিপু রায় ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তিনি শঙ্কামুক্ত বলে জানা গেছে। নিহত দুইজনের মরদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

এ ঘটনায় মামলাসহ গাড়ি ও চালককে শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।


কমলগঞ্জে কালবৈশাখীতে বিধ্বস্ত বাড়িঘর

ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
সালাহউদ্দিন শুভ, মৌলভীবাজার

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ওপর বয়ে যাওয়া কালবৈশাখীতে উপজেলার আদমপুর, কমলগঞ্জ সদর, পতনউষার ও মাধবপুর ইউনিয়নের কয়েকশ ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। উপড়ে পড়েছে হাজারো গাছপালা। ১১ কেভির প্রায় ৪টি খুঁটি ভেঙে ১০০ স্থানে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা লণ্ডভণ্ড হয়ে পড়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাত ১২টায় প্রচণ্ড কালবৈশাখীর সঙ্গে বজ্রপাতের শব্দে এলাকাবাসী আতংকিত হয়ে পড়ে।

রাতে ১২টা দিকে ঝড়ে কমলগঞ্জ-আদমপুর সড়কে গাছ পড়ে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে যোগাযোগ চালু হয়। বিদ্যুৎ লাইন লণ্ডভণ্ড হয়ে যাওয়ার কারণে রাত থেকে এখনো পর্যন্ত ৪টি ইউনিয়নের কয়েকে হাজার মানুষ, এখনো অন্ধকারে নিমজ্জিতে আছে। কালবৈশাখী, ভারী বর্ষণ ও শিলাবৃষ্টিতে সম্পূর্ণ ও আংশিক শতাধিক বাড়িঘর বিধ্বস্ত, বিদ্যুৎ ব্যবস্থা লণ্ডভণ্ড, চা বাগানে কারখানায় উৎপাদন ব্যাহত, ১০-১২ হেক্টর জমির বোরো ফসল ও সবজি খেত বিনষ্ট হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে শুক্রবার বিকাল পর্যন্ত এ উপজেলার আদমপুর, কমলগঞ্জ সদর, পতনঊষার ও মাধবপুর ইউনিয়নের তিলকপুর, জামিরকোনা, রানীবাজার ও ভাসানিগাঁও সহ ৪টা গ্রামের বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এ চিত্র পাওয়া যায়।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর, কমলগঞ্জ সদর, পতনঊষার ও মাধবপুর ইউনিয়নের তিলকপুর, জামিরকোনা, রানীবাজার ও ভাসানিগাঁওসহ ৪টি গ্রামে ব্যাপক বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। রাস্তার পাশে থাকা গাছপালা উপড়ে পড়ে। বিভিন্ন এলাকায় পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়েছে।

এ ছাড়া জামিরকোনা গ্রামের জমির মিয়া, শাহজাহান, মাহমুদ আলী, হবিব, ময়না বেগম, খলিল মিয়া, বশির মিয়া, আয়ুব, আলফা, শফিক, জলিল, করিম, মিলাদ, সিরাজুল ইসলামের ঘর সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়।

কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের জামিরকোনা গ্রামের কৃষক কাশেম মিয়া জানান, ‘আমার ৪ কিয়ার (১২০শতক) জায়গায় টমেটো, লাউ, সিম, রামাই, জিঙ্গা ও করলা চাষ করেছিলাম। কিন্তু রাতে ঝড় ও ভারী বর্ষণে কারনে আমার সব শেষ হয়ে গেছে। প্রায় আড়াই লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।’

ঘর ভেঙে যাওয়া জমির মিয়া জানান, ‘রাতে বৌ বাচ্চা নিয়ে ঘুমিয়ে ছিলাম। হঠাৎ ১২টার দিকে ঝড় তুফান আসে। মুহূর্তে আমার ঘরটি মুরচা মেরে ভেঙে উপড়ে পড়ে যায়। আমি পরিবারের সবাইকে নিয়ে বাহিরে চলে আসি। তাদের কারো ক্ষতি হয়নি; কিন্তু এখন থাকব কোথায়। আমি প্রসাশনের কাছে সহযোগিতা চাইছি’

কমলগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান জানান, ‘কালবৈশাখী ঝড় ও ভারী বর্ষণে কারনে আমার ইউনিয়নের ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাটসহ ফসলেরও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আমি এসব বিষয় স্থানীয় প্রশাসনকে অবগত করেছি।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জয়ন্ত কুমার রায় বলেন, ‘আমরা সকাল থেকে অফিসের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সরেজমিনে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান দেখার জন্য বের হয়। কৃষকদের প্রায় ১০-১২ হেক্টর কৃষি জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে। সেসব কৃষকদের নামগুলো তালিকা করছি। তাদের সহযোগিতা করা হবে।’

মৌলভীবাজার পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম গোলাম ফারুক মীর জানান, ‘ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। প্রায় ৪টি খুঁটি ও ১ শতাধিক স্থানে তার ছিঁড়ে গেছে। এসব জায়গায় বিদ্যুৎ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করতে সময় লাগবে।’

কমলগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আছাদুজ্জামান বলেন, ‘ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ির তালিকা দেওয়ার জন্য ইউপি চেয়ারম্যানদের বলা হয়েছে।’

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘ঘটনাস্থলে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারদের খুঁজ খবর নিয়েছি। স্থানীয় চেয়ারম্যানদের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাদের বলেছি তালিকা করে দিতে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারদের সহযোগিতা করা হবে।’

বিষয়:

চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা ৪২ দশমিক ৩, হিটস্ট্রোকে একজনের মৃত্যু

হিটস্ট্রোকে মারা যাওয়া জাকির হোসেন। ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

কয়েকদিন ধরে চুয়াডাঙ্গার উপর দিয়ে বয়ে চলা তীব্র তাপপ্রবাহে জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা। আজ শনিবার বেলা ৩টায় চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪২ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তীব্র তাপদাহে এ জেলার খেটে খাওয়া মানুষ সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন। তীব্র গরম ও রোদের কারণে শ্রমিক, দিনমজুর, ভ্যান-রিকশা চালকরা কাজ করতে না পেরে অলস সময়ও পার করছেন।

এদিকে জেলার দামুড়হুদায় হিটস্ট্রোকে জাকির হোসেন (৩০) নামের যুবকের মৃত্যু হয়েছে। আজ শনিবার বেলা ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়। নিহত যুবক জাকির হোসেন উপজেলার ঠাকুর গ্রামের আমির হোসেনের ছেলে এবং ঠাকুরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, জাকির হোসেন আজ সকাল ৭টার দিকে জমিতে পাটবীজ বোনার জন্য মাঠে যান। প্রচণ্ড গরম সহ্য করতে না পেরে তিনি মাঠেই অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। বেলা ১১টার দিকে তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার সময় পথেই তার মৃত্যু হয়।

দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হেলেনা আক্তার নিপা জানান, নিহত জাকির হোসেনকে হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়।

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলতাফ হোসেন বলেন, আজ শনিবার বেলা ৩টায় জেলার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪২ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যেটা অতি তীব্র তাপপ্রাহ। জলীয় বাষ্পের আধিক্যের কারণে এমন অবস্থা হচ্ছে।


পাগলা মসজিদের দানবাক্সে ২৭ বস্তা টাকা, চলছে গণনা

পগলা মসজিদের দনবাক্সের টাকা গণনা করা হচ্ছে। ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ২০ এপ্রিল, ২০২৪ ১০:৪৯
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

কিশোরগঞ্জের আলোচিত পাগলা মসজিদের দানবাক্স খুলে এবার ২৭ বস্তা টাকা পাওয়া গেছে, যেগুলোর গণনা চলছে এ মুহূর্তে। জেলা শহরের ঐতিহাসিক মসজিদটিতে ৯টি দানবাক্স আছে, যেগুলো প্রতি তিন মাস পরপর খোলা হয়। রমজানের কারণে এবার এবার খোলা হয়েছে চার মাস ১০ দিন পর।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও দানবাক্স খোলা কমিটির আহ্বায়ক কাজী মহুয়া মমতাজের তত্ত্বাবধানে জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ ও পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ রাসেল শেখের উপস্থিতিতে সকাল সাড়ে ৭টার দিকে দানবাক্সগুলো খোলা হয়। এবার ৯টি দানবাক্স খুলে ২৭ বস্তা টাকা পাওয়া গেছে।

ডিসি মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সদস্যদের উপস্থিতিতে ৯টি দানবাক্স খোলা হয়েছে। এসব দানবাক্সে ২৭ বস্তা টাকা পাওয়া গেছে।

এসপি মোহাম্মদ রাসেল শেখ জানান, কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে পাগলা মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছে। টাকা গণনা শেষে ব্যাংকে পৌঁছে দেয়া পর্যন্ত পুলিশ সদস্যরা নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবেন।

টাকা গণনার কাজে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, কর্মচারীরা ছাড়াও মাদ্রাসার ১১২ ছাত্র, ব্যাংকের ৫০ কর্মী, মসজিদ কমিটির ৩৪ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১০ জন সদস্য অংশ নিয়েছেন।

দানবাক্সগুলো খোলার পর গণনা দেখতে মসজিদের আশপাশে ভিড় করছেন উৎসুক মানুষ। তাদের মধ্যে অনেকে এসেছেন দূরদুরান্ত থেকে।

এর আগে ২০২৩ সালের ৯ ডিসেম্বর তিন মাস ২০ দিন পর দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছিল। তখন ২৩টি বস্তায় ছয় কোটি ৩২ লাখ ৫১ হাজার ৪২৩ টাকা পাওয়া গিয়েছিল।

ঐতিহাসিক এ মসজিদের দানবাক্সে একসঙ্গে এত টাকা পাওয়াটা তখন ছিল নতুন রেকর্ড। এবার সে রেকর্ড ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

জেলা শহরের হারুয়া এলাকায় নরসুন্দা নদীর তীরে প্রায় ১০ শতাংশ জমিতে পাগলা মসজিদ গড়ে ওঠে। সম্প্রসারণের পর মসজিদের আওতাভুক্ত জমির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে তিন একর ৮৮ শতাংশে।


রাজশাহীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেলের ৩ আরোহী নিহত

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
রাজশাহী প্রতিনিধি

রাজশাহীর পবায় ট্রাকচাপায় তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার মুরাদীপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন আসিফ ইকবাল (১৯), সুইট (৩১) ও তাজুল ইসলাম (২৫)। এদের মধ্যে আসিফ দামকুড়া উপজেলার নতুন কশবা এলাকার লাল মোহাম্মদের ছেলে, সুইট সুত্রাবন এলাকার আলমগীরের ছেলে ও তাজুল ইসলাম তাজুল লালমনিরহাট সদর উপজেলার বড়বাড়ি এলাকার মো. জহুরুল ইসলামের ছেলে।

আর আহতরা হলেন মো. জুলহাস উদ্দিন (৩২) ও মো. রিমন হোসেন (৩৫)। জুলহাস জেলার দামকুড় উপজেলার আলীগঞ্জ এলাকার মো. রবিউল ইসলামের ছেলে ও রিমন একই উপজেলার নতুন কশবা এলাকার মো. মানিক মিয়ার ছেলে।

দামকুড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলী আকবর বলেন, বিকেলে উপজেলার মুরাদীপুর এলাকায় বালুবাহী একটি ডাম্পট্রাক দুটি মোটরসাইকেলকে চাপা দেয়। এসময় পাঁচ আরোহীর মধ্যে দুজন ঘটনাস্থলে মারা যান। আহত তিনজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে আরও একজনের মৃত্যু হয়।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন। আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের পর মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।


কৃষকরা যাতে ধানের সঠিক মূল্য পায় সেই চেষ্টা করব: কৃষিমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ বলেছেন, ‘লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী দুই কোটি ২২ লাখ টন খাদ্য উৎপাদনের জন্য আমরা চেষ্টা করছি, কৃষকরা যাতে ধানের দাম বা চালের দাম সঠিকভাবে পায়। কৃষকের বাঁচার জন্য যে প্রয়োজন, সেটুকু বিবেচনা করে মূল্য নির্ধারণের চেষ্টা করব। আমরা চাই কৃষকরা যেন সঠিক মূল্যে তাদের উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করতে পারেন। এ জন্য তাদের কীভাবে সহযোগিতা করা যায় সেটা নিশ্চিত করা হবে।’

আজ শুক্রবার দুপুরে সুনামগঞ্জের দেখার হাওরে কৃষকদের সঙ্গে বোরো ধান কর্তনে অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।
কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘সুনামগঞ্জ জেলা অত্যন্ত একটি ঝুঁকিপূর্ণ জেলা। এখানে বন্যা হয় বেশি, খরার সময়ও মাঠ-ঘাট ফেটে যায়। আমরা চেষ্টা করব কৃষকরা যাতে ধানের সঠিক মূল্য পায়। মধ্যস্বত্বভোগীরা যেন মুনাফা না নিতে পারে। মধ্যস্বত্বভোগীরা যেন কোনো সিন্ডিকেট তৈরি করে কৃষকদের গলায় ফাঁসি না দেয়। সবাই সজাগ থাকলে কৃষকরা বঞ্চিত হবেন না।’

মন্ত্রী বলেন, ‘কৃষকের উৎপাদিত ফসলের সঠিক মূল্য দিতে চায় সরকার। সরকারের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। সুনামগঞ্জ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা। এখানে বন্যা-দুর্যোগ বেশি হয়। খরাও হয়। জেলা প্রশাসনকে বলেছি, কৃষকদের ফসলের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে ব্যবস্থা নিতে।’
তিনি আরও বলেন, ‘কৃষিকে সরকার সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করছে। কৃষকের ধানের মূল্য নির্ধারণ করতে আগামী পরশু মিটিং করব। দাম নির্ধারণ করে সরকারের কাছে প্রস্তাবনা পাঠাব।’

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক রাশেদ ইকবাল চৌধুরীর সভাপতিত্বে বোরো ধান কর্তন অনুষ্ঠানে সাবেক পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, সংসদ সদস্য ড. মোহাম্মদ সাদিক, অ্যাডভোকেট রণজিত চন্দ্র সরকার, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমুল হাসান, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মলয় চৌধুরী, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিমল চন্দ্র সোমসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, দপ্তর, জেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বোরো ধান কর্তনের পর কৃষিমন্ত্রী ধান কাটার জন্য কৃষকদের মাঝে ভর্তুকিতে হারভেস্টার মেশিন বিতরণ করেন এবং কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।


দেলোয়ারকে দেখতে গিয়ে পলক বললেন ‘লজ্জিত, দুঃখিত’

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
নাটোর ও রাজশাহী প্রতিনিধি

নাটোরের সিংড়া উপজেলায় অপহরণ ও মারধরের শিকার চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী দেলোয়ার হোসেনকে হাসপাতালে দেখতে গিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমা চেয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেছেন, ‘এ ঘটনায় আমি লজ্জিত, দুঃখিত ও ক্ষমাপ্রার্থী।’

যার বিরুদ্ধে দেলোয়ারকে অপহরণ ও মারধরের অভিযোগ উঠেছে, সেই লুৎফুল হাবিব রুবেলও সিংড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন। তিনি স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী পলকের শ্যালক।

মারধরে গুরুতর আহত দেলোয়ার বর্তমানে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাকে দেখতে শুক্রবার সকালে উড়োজাহাজে করে রাজশাহী বিমানবন্দরে পৌঁছান প্রতিমন্ত্রী পলক। সেখান থেকে যান রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সিংড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাও তার সঙ্গে ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী অসুস্থ দেলোয়ার এবং তার দুই ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলেন। এ ছাড়া দায়িত্বরত চিকিৎসকের কাছে দেলোয়ারের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন এবং সর্বোত্তম চিকিৎসা দেওয়ার অনুরোধ জানান। পরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে পলক বলেন, ‘আমি বিদেশে ছিলাম। গতকাল রাত ১টায় দেশে ফিরেছি। তবে বিদেশে থেকেও সবসময় খোঁজখবর নিয়েছি। আমি ভাবতেও পারিনি, নাটোরের মাটিতে এ ধরনের ঘটনা ঘটবে।

তিনি আরও বলেন, বিবেকের তাড়নায় আমার মনে হয়েছে এখানে আসা দরকার এবং স্পষ্ট বার্তা সবার কাছে জানিয়ে দেওয়া দরকার। এ ঘটনায় জড়িত আমার আত্মীয় কিংবা যেই হোক এটা ব্যবহার করে কোনো বাড়তি সুবিধা পাওয়ার সুযোগ নেই।

পলক বলেন, ‘হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যারা দোষী তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক, আইনগত ও সাংগঠনিক কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্যই আমরা কঠোর অবস্থানে আছি। সে ক্ষেত্রে কার কী পরিচয়, কে আমার ভাই, কে আমার শ্বশুর কিংবা শ্যালক এটা কোনো বিবেচনার বিষয় নয়। এটা নিয়ে আমি আসলেই বিব্রত, লজ্জিত, দুঃখিত এবং ক্ষমাপ্রার্থী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ ঘটনার খোঁজখবর রাখছেন। এ ঘটনায় যারা জড়িত, তাদের সুষ্ঠু বিচার হবে। কেউ ছাড়া পাবে না।’

প্রসঙ্গত, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন গত সোমবার (১৫ এপ্রিল) বিকেলে সিংড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন অনলাইনে আবেদনের পর জেলা নির্বাচন কার্যালয়ে মনোনয়নপত্রের প্রতিলিপি জমা দিতে আসেন। সেখানে আগে থেকে ওত পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাকে মারধর করে কালো মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে তাকে আবারও বেধড়ক মারধর করে বাড়িতে পৌঁছে দেয়। সেখান থেকে পরিবারের লোকজন নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

এ ঘটনার জন্য আরেক প্রার্থী লুৎফুল হাবিব রুবেল ও তার সমর্থকদের দায়ী করেছে দেলোয়ারের পরিবার। ওই প্রার্থীকে মারধরের ঘটনায় ইতোমধ্যে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রুবেল সিংড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তিনি সিংড়ার শেরকোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। সম্প্রতি সেই পদ ছেড়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদের লড়াইয়ে নেমেছেন। দেলোয়ারকে অপহরণ ও মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন তিনি। এ ঘটনায় রুবেলকে নির্বাচন কমিশনে তলব করা হয়েছে। তার প্রার্থিতা কেন বাতিল করা হবে না, সোমবার কমিশনে হাজির হয়ে সে বিষয়ে তাকে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে। ওই ঘটনায় দেলোয়ারের ভাই অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার দুজনের মধ্যে একজন আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। ওই জবানন্দিতে তিনি বলেছেন, নির্বাচনের প্রার্থী লুৎফুল হাবিব রুবেলের পক্ষে তারা ওই ঘটনা ঘটিয়েছেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘লুৎফুল হাবিব আমার আত্মীয় তা অস্বীকার করব না। তবে আত্মীয়তার সুবাদে বা রাজনৈতিক কারণে সে বা অন্য কেউ বাড়তি সুবিধা পাবেন না। বরং এমন ব্যবস্থা নেওয়া হবে, যা এমপি-মন্ত্রীর স্বজনদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।’ যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে দলের পক্ষ থেকেও তাদের ব্যাপারে দ্রুত সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।


আশ্রয় নিল আরও ১৩ জন

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যদের হেফাজতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা বিজিপির সদস্যরা। ফাইল ছবি
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
দৈনিক বাংলা ডেস্ক

মিয়ানমারের অভ্যন্তরে চলা সংঘাতের জেরে প্রতিবেশী দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিজিপি) আরও ১৩ জন সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। বৃহস্পতিবার টেকনাফের নাফ নদীতে বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের কাছে আত্মসমর্পণ করে বলে জানান বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবির) জনসংযোগ কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম।

তিনি জানান, পরবর্তীতে কোস্টগার্ড উক্ত বিজিপি সদস্যদেরকে বিজিবির নাইক্ষ্যংছড়ি ব্যাটালিয়নের (১১ বিজিবি) কাছে হস্তান্তর করে। বর্তমানে বিজিপির মোট ২৭৪ জন সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের মধ্যে বুধবার একজন ও আগের দিন আসা ৪৬ জন রয়েছে।

অভ্যন্তরীণ সংঘাতের মুখে বুধবার বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তপথে বিজিপির এক সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নেন। মঙ্গলবার সীমান্ত পাড়ি দিয়ে এপারে চলে আসেন আরও ৪৬ জন বিজিপি সদস্য। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি তাদের সবাইকে হেফাজতে নিয়েছে।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা জানায়, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে জান্তা বাহিনীর সঙ্গে আরাকান বিদ্রোহীদের গোলাযোগ চলছে৷ মঙ্গলবার রাতেও সীমান্তের ওপারে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে। সংঘাতে আরাকান বিদ্রোহীদের সঙ্গে টিকতে না পেরে প্রাণ বাঁচাতে পালিয়ে বাংলাদেশ আশ্রয় নিচ্ছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা।

বিষয়:

কাপ্তাই হ্রদে ৩ মাস মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা

ছবি: সংগৃহীত
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
রাঙামাটি প্রতিনিধি

রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে মাছের বংশবিস্তার ও প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিতকরণে এ বছরও ২৫ এপ্রিল থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত আগামী ৩ মাস হ্রদে সব ধরনের মাছ ধরা, বাজারজাতকরণ এবং পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কাপ্তাই হ্রদে মৎস্য আহরণ, নিষেধাজ্ঞা আরোপ সংক্রান্ত সভায় এ সিদ্ধান্ত জানান জেলা প্রশাসক মো. মোশারফ হোসেন খান।

সভায় জেলা প্রশাসক বলেন, হ্রদে কার্পজাতীয় মাছ অবমুক্ত করা ও মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধি করতে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে ।

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, বন্ধকালীন সময়ে অবৈধ উপায়ে মাছ ধরা, পরিবহন ও বাজারজাতকরণ বন্ধ করতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার পাশাপাশি হ্রদের বিভিন্ন স্থানে নৌ পুলিশ মোতায়েন করা হবে। হ্রদে অবৈধ উপায়ে মাছ শিকারে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে স্থানীয় বরফকল বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি স্থানীয় বাজারসমূহ ও কাপ্তাই হ্রদ মনিটরিং করা হবে।

সভায় বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের রাঙামাটির ব্যবস্থাপক কমান্ডার আশরাফুল আলম ভূঁইয়া জানান, এ বছর বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় হ্রদের পানি দ্রুত শুকিয়ে গেছে। এর ফলে ছোট মাছ আহরণ কম হয়েছে। আবার এই সময়ে মাছের প্রজনন শুরু হয়। তাই মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিত করতে মাছে আহরণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

এ সময় বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট রাঙামাটি নদী-উপকেন্দ্রের প্রধান মো. ইশতিয়াক হায়দার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জোবায়দা আক্তার, মৎস্য ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।


banner close