বুধবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২৩

সোনালী ব্যাংকে অনিয়ম: ‘ভুল স্বীকার’ করলেই মাফ

আপডেটেড
৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ২০:৫৫
রাকিবুল হাসান রোকেল, কিশোরগঞ্জ
প্রকাশিত
রাকিবুল হাসান রোকেল, কিশোরগঞ্জ
প্রকাশিত : ৭ ডিসেম্বর, ২০২২ ০৮:১৬

বয়স্ক ভাতার টাকা ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর, ভুয়া ওভারটাইম বিল, ঘুষ দাবিসহ সামগ্রী কেনা নিয়ে বিভিন্ন সময় অভিযোগ ওঠে একাধিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। সোনালী ব্যাংকের কিশোরগঞ্জ শাখার এসব অনিয়মের বিচার না করে ধামাচাপা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে শাখাটির উপমহাব্যবস্থাপকের (ডিজিএম) বিরুদ্ধে।

ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলম সিদ্দিকী দাবি করেছেন, সব বিষয়ই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তবে ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, একটি বিষয়ের অভিযোগ ‘হুইসেল ব্লোয়ারের’ মাধ্যমে ন্যায়পাল সচিবালয় বরাবর যায়। পরে স্থানীয়ভাবে এর মীমাংসা করায় কেন্দ্র থেকে ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

সম্প্রতি ওঠা চারটি অভিযোগের মীমাংসা করা হয়েছে ‘ভুল স্বীকার’ ও অর্থ ফেরত নেয়ার মাধ্যমে। তবে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রাতিষ্ঠানিক কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ২২ জুলাই একজন হুইসেল ব্লোয়ার প্রধান কার্যালয়ে ভুয়া ওভারটাইম বিল নিয়ে অভিযোগ করেন। এতে কিশোরগঞ্জ শাখার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমানের নাম উল্লেখ করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী, ওভারটাইম পান শুধু কর্মচারীরা (গাড়িচালক ও অফিস সহকারী)।

২০২১ সালের অক্টোবরে ৮ দিনের ওভারটাইম হিসেবে মাহফুজুর রহমান ২ হাজার ৩৬৮ টাকা বিল নেন। বিল অনুমোদনের কপিতে স্বাক্ষরের নিচে ২৭ অক্টোবরের কথা উল্লেখ রয়েছে। সম্প্রতি বেশ কয়েক মাসের ভুয়া ওভারটাইম বিল তোলার অভিযোগ উঠলে অর্ধলক্ষাধিক টাকা ফেরত দেন মাহফুজুর রহমান। এরপর আর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

ওভারটাইম নেয়ার বিষয়ে মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘আমার অ্যাকাউন্টে ভুলবশত টাকা চলে এসেছিল। পরে ফেরত দিয়ে দিয়েছি।’

ওভারটাইম বিল ভুলে কীভাবে এসেছে, তা জানতে চাইলে মাহফুজুর ব্যাংকের ডিজিএমের সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দেন।

বয়স্ক ভাতা বেহাত

পরিচয় গোপন রাখার শর্তে বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা জানান, ২০২১ সালের ১০ আগস্ট কুলিয়ারচর শাখায় বয়স্ক ভাতার ১২ লাখ ৩৩ হাজার ৮৮৬ টাকা বেহাত হয়। ওই টাকা শাখার তৎকালীন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আতিকুর রহমান উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের সহকারী-কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক তুহিন মিয়ার অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করেন। পরে বিভিন্ন তারিখে সেই টাকা উত্তোলন করে দুজন আত্মসাৎ করেন। বিষয়টি জানাজানি হলে একই বছরের ২১ অক্টোবর টাকা পুনরায় ব্যাংকে জমা রাখেন।

এ বিষয়ে কম্পিউটার অপারেটর তুহিন মিয়া বলেন, ঋণ ওঠানোর জন্য সোনালী ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট করেছিলেন। কিন্তু চেক বই ছিল আতিকুর রহমানের কাছে। এ সুযোগে টাকা তুলে খরচ করেন আতিকুর। পরে তাকে (আতিকুর) চাপ দিলে পুনরায় টাকা জমা দেন।

আতিকুর রহমান বলেন, ‘ভুলবশত এমনটা হয়েছিল। পরে সেই টাকা আবার জমা দিয়েছি। আমি ক্ষমাও চেয়েছি।’

বিষয়টি জানার পর কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেননি ডিজিএম। আতিকুরকে বদলি করা হয় পার্শ্ববর্তী কটিয়াদী শাখায়।

ঘুষ দাবি

সম্প্রতি সোনালী ব্যাংকের কটিয়াদী শাখার ঋণ কর্মকর্তা সজিব মিয়ার বিরুদ্ধে শিক্ষকদের সঙ্গে অসদাচরণ ও ঘুষ নেয়ার অভিযোগ ওঠে। চলতি বছরের ২৩ অক্টোবর এ নিয়ে ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলমের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন স্থানীয় পাইকসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাহমুদ কামাল।

অভিযোগে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দ্রুত ঋণ পাইয়ে দেয়ার নাম করে ২ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করার কথা জানান বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা। সেই অভিযোগের পর তদন্ত কমিটি গঠন না করে এক অভিযোগকারীকে ফোন করে ভীতি প্রদর্শন করেন ডিজিএম। একপর্যায়ে ওই শিক্ষকের কাছে ক্ষমা চাওয়ার মাধ্যমে অভিযোগটি নিষ্পত্তি করেন ডিজিএম।

সামগ্রী কেনা

২০১৯-২০ অর্থবছরে কিশোরগঞ্জ শাখার মনিহারি দ্রব্য, কাগজ ও কম্পিউটারসামগ্রী কেনার দায়িত্বে ছিলেন তৎকালীন যুগ্ম জিম্মাদার মো. সোলায়মান ও শওকতুল ইসলাম। তাদের মধ্যে শওকতুল ইসলাম কিশোরগঞ্জ শাখায় এবং সোলায়মান প্রিন্সিপাল অফিসে কর্মরত আছেন।

সূত্র জানায়, সোলায়মান ও শওকতুল সেগুলো কিশোরগঞ্জ থেকে না নিয়ে পাকুন্দিয়া থেকে কেনেন। মূলত সেখান থেকে ফাঁকা ক্যাশ মেমো এনে ১৮০ টাকার কাগজ ৩০০ টাকা এবং ৫০০ টাকা মূল্যের টোনার ৯০০ টাকা দেখিয়ে অতিরিক্ত অর্থ হাতিয়ে নেন। তখন জাহাঙ্গীর আলম ছিলেন এজিএম। অভিযুক্ত দুজন জাহাঙ্গীরের পছন্দের লোক হিসেবে পরিচিত। অভিযুক্ত দুজনকে ফাঁকা ক্যাশ মেমো দেয়ার কথা স্বীকার করেছেন পাকুন্দিয়ার মনির কম্পিউটারের স্বত্বাধিকারী মনির হোসেন।

অভিযোগুলো নিয়ে কথা বলতে যোগাযোগ করা হয় ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘অভিযোগ উঠলেই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, সে যে-ই হোক না কেন। আতিকুর রহমানকে এই স্টেশন থেকে বদলি করা হয়েছে। বাকিদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘প্রতিটি বিষয়েই আমার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেই কাজ করছি। কোনো কিছুই গোপন বা ধামাচাপা দেয়া হয়নি।’


মৌলভীবাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৮:১১
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারে কমলগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মো. আওলাদ হোসেন (২০) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সড়কের হীড বাংলাদেশ নামক স্থানে দুর্ঘটনাটি ঘটে। এসময় মোটরসাইকেলের অপর আরোহী রাসেল (২০) গুরুতর আহত হন। তিনি মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

নিহত আওলাদ উপজেলার সদর ইউনিয়নের ফুলবাড়ি গ্রামের আসাদুল মিয়ার ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মোটরসাইকেলযোগে যাচ্ছিলেন দুই মোটরসাইকেল আরোহী। এসময় তারা কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সড়কের হীড বাংলাদেশে নামক স্থানে আসলে একটি গাড়ির সঙ্গে তাদের ধাক্কা লাগে। এসময় ঘটনাস্থলে নিহত হন আওলাদ। মোটরসাইকেলে পেছনে বসা রাসেল গুরুতর আহত হন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সঞ্জয় চক্রবর্তী জানান, মোটরসাইকেলের সঙ্গে ধাক্কা লাগা গাড়িটি আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।


রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গুলিতে যুবক নিহত

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৭:৪৯
কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইমাম হোসেন (৩০) নামে এক রোহিঙ্গা যুবককে গুলি করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে উখিয়ার কুতুপালং ৪ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এফ/১৬ তে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ইমাম হোসেন ক্যাম্প-১ ইস্ট এর জি/১২ ব্লকের মনি উল্লাহর ছেলে।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শামীম হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘৪ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এফ/১৬ ব্লকে অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা ইমাম হোসেনকে সরাসরি গুলি করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনার পর ঘটনাস্থলে টহল বাড়ানো হয়েছে। এ ব্যপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’


মাজারের দিঘী থেকে ভ্যানচালকের মরদেহ উদ্ধার

ছবি: দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৬:৪৩
বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাট জেলার খানজাহান আলীর মাজারের পাশের দীঘি থেকে প্রহলাদ কুমার দাস ওরফে ভোলা (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার দুপুরে দীঘিতে ভাসমান অবস্থায় মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

মৃত ভোলা পেশায় ভ্যানচালক। তিনি কচুয়া উপজেলার সাংদিয়া গ্রামের পরিতোষ কুমার দাসের ছেলে। কয়েক দিন আগে থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন বলে জানা গেছে।

তার গায়ে থাকা সোয়েটার, জামা ও লুঙ্গি দেখে তার পরিবারের সদস্যরা তাকে শনাক্ত করেছে বলে জানিয়েছেন বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম আজিজুল ইসলাম।

স্থানীয় বাসিন্দা জুথি জানান, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তিনি দীঘির ঘাটে থালাবাসন ধোয়ার জন্য গেলে অনেক দূরে একটি মরদেহ ভাসতে দেখেন তিনি।

ওসি আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে আমরা মরদেহটি উদ্ধার করি। মরদেহটির বেশিরভাগ অংশ পঁচে গেছে। পুলিশ অনুমান করছে পাঁচ থেকে ছয় দিন আগে তার মৃত্যু হয়েছে।’

এ বিষয়ে ওসি আরও বলেন, ‘নিহতের বাবা পরিতোষ কুমার দাস ও তার ভাই থানায় এসে মৃতের শরীরে কাপড় দেখে তাকে তাকে শনাক্ত করেছেন তার বাবা। মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে আইনগত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’

বিষয়:

চট্টগ্রামে হেলে পড়েছে ৩ তলা ভবন

আপডেটেড ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৫:২১
চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামের পাহাড়তলী এলাকায় একটি তিন তলা ভবন আংশিক হেলে পড়েছে।

মঙ্গলবার নগরীর পাহাড়তলী থানার সরাইপাড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। তবে এতে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

ফায়ার সার্ভিসের চট্টগ্রাম অঞ্চলের উপ-পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। ভবনটির পূর্বদিকে সিটি করপোরেশনের খালে জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পে কাজ করছে সিডিএ। এতে ভবনের পূর্বদিকে পাইলিংয়ের মাটি সরে গেছে। পাশে আরেকটি তিনতলা ভবন আছে। দুই ভবনের খুব অল্পই খালি জায়গা, ৬ ইঞ্চির মতো হবে।’

তিনি বলেন, ‘ভবনটি উত্তর দিকে হেলে গেছে বলে মনে হচ্ছে। তবে অন্য ভবনের সঙ্গে লাগেনি। আনোয়ারের ভবন নামের তিন তলার ওই ভবনে চারটা পরিবার বসবাস করে। যেহেতু আমরা কোনো স্ট্রাকচারাল ক্ষতি পাইনি তাই বাসিন্দারা এখনও ভবনেই আছে। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ পেলে তাদের সরিয়ে নেওয়া হবে। আপাতত তাদের সতর্ক করা হয়েছে।’

বিষয়:

গাইবান্ধায় মাদ্রাসার খাবার খেয়ে ১৬ শিক্ষার্থী হাসপাতালে

ছবি: দৈনিক বাংলা।
আপডেটেড ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৫:২৯
প্রতিনিধি, গাইবান্ধা

গাইবান্ধা জেলা শহরের ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার রান্না করা খাবার খেয়ে অসুস্থ হওয়া ১৬ শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা বর্তমানে গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে বিষয়টি দৈনিক বাংলাকে নিশ্চিত করেন গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) এএসএম রুহুল আমিন।

শিক্ষার্থীরা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হলে একইদিন সকালে তাদের হাসাপতালে ভর্তি করে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

আবাসিক মেডিকেল অফিসার এএসএম রুহুল আমিন বলেন, ‘সকালে গাইবান্ধার ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা ১৬ জন শিক্ষার্থী ডাইরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসে। অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে তাদের সবাইকে ভর্তি নেওয়া হয়েছে। হাসপাতালের ডাইরিয়া ওয়ার্ডে (বিভাগে) তাদের চিকিৎসা চলছে।’

তিনি আরও বলেন, তাদের ফুড পয়জনিং (খাবারে বিষক্রিয়া) হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে বর্তমানে তারা আশঙ্কামুক্ত রয়েছে।’

ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদরাসার মোহতামিম মাওলানা মানসুর রাহমান মুঠোফোনে দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘মাদ্রাসায় প্রায় ২০০ জন শিক্ষার্থী আবাসিকে থাকে। তারা তিনবেলাই মাদরাসার রান্না করা খাবার খায়। প্রতিদিনের মতো গত রাতেও তারা স্বাভাবিক (সাদা ভাত, ডাল ও শিম ভাজি) খাবার খেয়ে শুয়ে পড়ে। এরপর রাত দুইটার দিকে হঠাৎ কয়েকজনের ডায়রিয়ার সাথে বমিও করে। পরে আমরা স্যালাইনসহ প্রাথমিক ওষুধ খাওয়াই। তারপরেও কন্ট্রোল না হওয়ায় আমরা সকালে তাদেরকে গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করি। সেখানে তাদের চিকিৎসা চলছে। আমরা প্রত্যেক শিক্ষার্থীদের অভিভাবদের খবর দিয়েছি।’

বিষয়:

আগুনে পুড়ল মেয়রের গাড়িসহ ১১টি যান

ছবি: দৈনিক বাংলা।
আপডেটেড ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৫:২২
নাটোর প্রতিনিধি

নাটোরের সিংড়ায় পৌরসভার গাড়ি রাখার গ্যারেজে আগুন লেগে মেয়রের গাড়িসহ আরও ১১টি যানবাহন পুড়ে গেছে। মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মিজানুর রহমান জানান, আজ ভোর ৪টার দিকে পৌরসভা ভবনের পাশে অফিসের গাড়ি রাখা একটি গ্যারেজে আগুন জ্বলতে দেখে স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস দূর্ঘটনাকবলিত স্থানে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এর আগেই গ্যারেজের ভেতর রাখা মেয়র মো. জান্নাতুল ফেরদৌসের একটি ব্যক্তিগত গাড়িসহ, দুটি কমিউনিটি অ্যাম্বুলেন্স ও আটটি ইজিবাইক পুড়ে যায়।

এ বিষয়ে সিংড়া থানার ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুমন আলী জানান, বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট হয়ে আগুনের সুত্রপাত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। আগুন লাগার মূল কারন এখনো জানা যায়নি।

বিষয়:

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পর্যটন এলাকায় চলছে স্থাপনা নির্মাণ

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
মইনুল হক মৃধা, রাজবাড়ী (গোয়ালন্দ)

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে মরা পদ্মা নদীর ওপর নির্মিত উজানচর নতুন ব্রিজ এলাকায় ঘোষিত পর্যটন এলাকায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চলছে পাকা স্থাপনা নির্মাণকাজ। এ জন্য নদীর মাঝ বরাবর রাস্তার ঢাল কেটে পাকা ভিম তৈরি করা হচ্ছে। এতে রাস্তার ঢালে বসানো বড় বড় কংক্রিটের বোল্ডার সরিয়ে ফেলা হয়েছে। ফলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে রাস্তাটি।

গোয়ালন্দ পৌরসভার কুমড়াকান্দি এলাকার বাসিন্দা প্রবাসফেরত আ. কাদের জমি কিনে সেখানে এ স্থাপনা নির্মাণ কাজ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগের বিষয়ে আ. কাদের ফোনে জানান, কিছুদিন আগে তিনি আতিয়ার রহমান খুশি নামের এক দলিল লেখকের কাছ থেকে নতুন ব্রিজের পাশ থেকে ৯ শতাংশ জমি কেনেন। এরপর সেখানে দোকানঘর নির্মাণকাজ শুরু করি। কাজ করার বিষয়ে আতিয়ার ভাই আমাকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, ‘আপনি কাজ করেন, আমি সব দেখব।’

এ বিষয়ে আতিয়ার রহমান খুশি বলেন, ‘স্থানীয়ভাবে প্রশাসন গত বছর নতুন ব্রিজ এলাকাকে পর্যটন এলাকা ঘোষণা করে; কিন্তু এ ব্যাপারে পর্যটন মন্ত্রণালয় থেকে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানি না। সেটা হলে তো আমাদের কাছ থেকে জমি অধিগ্রহণ করার কথা; কিন্তু তা করা হয়নি। তাই আমাদের দালিলিক সম্পত্তি বেচাকেনা করছি এবং সেখানে কাজকর্ম করা হচ্ছে। তবে রাস্তার ঢালের অন্তত ১০ ফুট দূর থেকে কাজ করা হচ্ছে। এখানে কারও বাধা দেয়ার কিছু নেই।’

উজানচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা বলেন, ‘পদ্মা নদীর নতুন ব্রিজ এলাকা গোয়ালন্দের ব্যাপক সম্ভাবনাময় একটি পর্যটন এলাকা। ঈদ-পূজাসহ বিভিন্ন উৎসব, এমনকি সারা বছরই এখানে ব্যাপক জনসমাগম হয়। স্থানীয় প্রশাসন গত বছর এলাকাটিকে পর্যটন এলাকা ঘোষণা করে সরকারের ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে অবহিত করে। ইতোমধ্যে সেখানে সৌন্দর্য বর্ধনে এলজিইডি ও জাইকার ব্যবস্থাপনায় বেশ কিছু কাজও করা হয়েছে। আশা করি, সেখানে শিগগিরই বড় ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। সেখানে যত্রতত্র স্থাপনা নির্মাণ হলে সৌন্দর্য ব্যাহত ও রাস্তা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়বে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আ. কাদেরকে মৌখিকভাবে কাজ বন্ধ করতে বললেও তিনি শোনেননি। যে কারণে রোববার তাকে অফিসিয়ালি নোটিশ দিয়ে কাজ বন্ধ রাখতে বলেছি। গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি শুনেছি। কাজ বন্ধ রাখার ব্যবস্থা নিতে ইউপি চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছি।’

বিষয়:

ফরিদপুরে ট্রাকের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু

প্রতীকী ছবি
আপডেটেড ৪ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৮:০৮
ফরিদপুর প্রতিনিধি

ফরিদপুরের নগরকান্দায় ট্রাকের ধাক্কায় ঝর্না বেগম (৪০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার দুপুরে উপজেলার তালমার মোড় এলাকায় ফরিদপুর-বরিশাল মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ঝর্না বেগম ডাংগী ইউনিয়নের কৃষ্ণনগর গ্রামের সালাম সর্দারের স্ত্রী।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল আলম।

স্থানীয়রা জানায়, ঝর্না বেগম বাড়ি থেকে ভ্যানযোগে এসে তালমা মোড় আবুল মেম্বার বাস কাউন্টারের সামনে নামেন। পরে ফরিদপুরগামী একটি ট্রাকের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার। স্থানীয়রা ট্রাক ও ট্রাকচালককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

ওসি খায়রুল আলম জানান, ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে এবং ট্রাকচালক হাসানুর রহমানকে (৪২) আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে নিহত ঝর্নার ভাতিজা লিয়াকত হোসেন বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।


বাগেরহাটের ৪টি আসনে ৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল

আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
বাগেরহাট প্রতিনিধি

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের শেষ দিনে বাগেরহাটের ৪টি আসন ৩০ জনের মধ্যে স্বতন্ত্র ও দলীয় প্রার্থীসহ মোট ছয় জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ জন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মনোনীত এবং ৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন।

ঋণ খেলাপির দায়ে দলীয় তিনজনের এবং সমর্থনকারীদের স্বাক্ষরের মিল না থাকায় ৩ স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল কর হয়। সোমবার জেলা রিটানিং অফিসারের কার্যালয়ে বাছাই শেষে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

বাগেরহাট জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোহা. খালিদ হোসেন জানান, বাগেরহাটের ৪টি আসনে ৩০ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। এদের মধ্যে যাছাই-বাছাই শেষে ঋণ খেলাপির দায়ে বাগেরহাট-১ আসনে বাংলাদেশ কংগ্রেসের প্রার্থী কাজী রবিউল, বাগেরহাট-২ আসনে ঋণ খেলাপির দায়ে তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী মরিয়ম সুলতানা ও জাতীয় পার্টির হাজরা সহিদুল ইসলাম মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে বাগেরহাট-৩ আসনের শেখ নিজাম উদ্দিন, বাগেরহাট-৪ আসনের মো. জামিল হোসেন ও বাগেরহাট-২ আসনে এস এম আজমল হোসেনের সমর্থকারীদের স্বাক্ষরের মিল না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। ফলে বাগেরহাটের ৪টি আসনে মোট বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা ২৪ জন।

বাতিল হওয়া প্রার্থীরা আগামী ৯ ডিসেম্বরের মধ্যে আপিল করতে পারবে বলেও জানান তিনি।

বিষয়:

কোরআন তেলাওয়াত চলছে টানা ৯৪ বছর

আপডেটেড ৪ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৪:৫৮
মো. রুবেল আহমেদ, গোপালপুর (টাঙ্গাইল)

দীর্ঘ ৯৪ বছর ধরে নামাজের সময় ছাড়া বাকি সময় টানা কোরআন তেলাওয়াত চলছে এই মসজিদে। কোনো বিরাম নেই। পালাক্রমে একেকজন কোরআন তেলাওয়াত করতে থাকেন ৭০০ বছরের পুরোনো এই মসজিদে। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী এলাকায় অবস্থিত মসজিদটি ধনবাড়ী নবাববাড়ী মসজিদ নামেই পরিচিত।

ঐতিহাসিক স্থাপত্যের নিদর্শন ও গুণীজনেরা টাঙ্গাইল জেলার ইতিহাসকে করেছে নানাভাবে সমৃদ্ধ। ধনবাড়ী একটি প্রাচীন জনপদ ও একসময়ে জমিদারির জন্য বিখ্যাত।

মোঘল সুবেদার ইসলাম খানের শাসন চলাকালে সেনাপতি ইস্পিঞ্জার খা ধনবাড়ী আক্রমণ করে দখল নেন। তারাই জমিদার বাড়ির ৩০ বিঘা দিঘির পাড়ে সুদৃশ্য, স্থাপত্য শিল্পের অপরূপ নিদর্শন এ মসজিদটি নির্মাণ করেন।

কালের পরিক্রমায় ধনবাড়ী জমিদারির দায়িত্বে আসেন সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরী। তিনি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে অবিভক্ত বাংলার প্রথম মুসলমান মন্ত্রী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন।

কথা হয় হাফেজ আব্দুল ওয়ারেছের সঙ্গে। তিনি প্রায়ই এখানে কোরআন তেলাওয়াত করেন। আব্দুল ওয়ারেছ জানান, অবসরে সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরী মসজিদের সামনে পুকুরঘাটের এই স্থানে বসে কোরআন তেলাওয়াত শুনতেন। মৃত্যুর আগে তিনি ওসিয়ত করে যান, এখানে যেন তার কবর দেয়া হয় আর কবরের পাশে টানা কোরআন তেলাওয়াত করা হয়। ১৯২৯ সালের ১৭ এপ্রিল ৬৫ বছর বয়সে নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী মারা যান। ওসিয়ত অনুযায়ী, তিনি মারা যাওয়ার পর থেকেই প্রতিদিন পাঁচজন হাফেজ এখানে কোরআন তেলাওয়াতের দায়িত্বে আছেন।

দিন-রাত আলাদা শিফটে একেকজন কোরআন পাঠের দায়িত্বে থাকেন। বর্তমানে হাফেজ আব্দুস সামাদ, হাফেজ মো. কামরুজ্জামান, হাফেজ ওমর ফারুক, হাফেজ মো. ওয়ারেজ আলী নিয়মিত কোরআন তেলাওয়াতের জন্য নিয়োজিত রয়েছেন।

বর্তমানে একটি পদ শূন্য রয়েছে। এদের কেউ অনুপস্থিত থাকলে মসজিদের পাশেই হিফজখানা থেকে ছাত্রদের দিয়ে শূন্যস্থান পূরণ করা হয়।

আগে ট্রাস্টের মাধ্যমে ইমাম, মুয়াজ্জিন, হিফজখানা ও তেলাওয়াতকারী হাফেজদের বেতন পরিশোধ করা হলেও এখন মসজিদের আয় থেকেই বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হয়।

হাফেজ কামরুজ্জামান বলেন, তিনি ২৬ বছর ধরে এখানে কোরআন তেলাওয়াত করছেন। মসজিদের পশ্চিম পাশে অনেক পুরোনো কবরের ওপরে মাইকের হর্নের মাধ্যমে সেই তেলাওয়াতের সুর পৌঁছে দেয়া হচ্ছে।

মসজিদের ইমাম ও খতিব মুফতি মো. ইদ্রিস হোসাইন দৈনিক বাংলাকে বলেন, সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরী নবাব মঞ্জিলের পাশে জনকল্যাণমূলক ৩৯টি প্রতিষ্ঠান গড়েন ও সম্পদ ওয়াকফ করে যান। তিনি ছিলেন হযরত আব্দুল কাদের জিলানীর বংশধর।

নওয়াব আলীর কবরের পাশের দৃষ্টিনন্দন, মার্বেল পাথরে কারুকার্য খচিত এই মসজিদটি দেখতে প্রতিদিন বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটকরা আসেন। অনেকেই মনের আশা পূরণে এই মসজিদে বিভিন্ন মানত করে থাকেন।

ময়মনসিংহ থেকে আসা লিমা আক্তার বলেন, ‘লোকমুখে শুনে মসজিদটি দেখতে এসেছি। সুন্দর পরিবেশে এত সুন্দর মসজিদ দেখে মুগ্ধ হয়েছি।’

বিষয়:

কমলগঞ্জে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত

ছবি: দৈনিক বাংলা।
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
কমলগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল ও মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

মৌলভিবাজারের কমলগঞ্জে ৩২তম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস এবং ২৫তম জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস-২০২৩ দিবস পালিত হয়েছে।

রোববার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে চা জনগোষ্ঠী প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফোরামের উদ্যোগে উপজেলার শমশেরনগর চা বাগানে র‌্যালী, আলোচনা সভা ও ২ জন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়।

চা জনগোষ্ঠী প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি উত্তম কুমার গোয়ালার সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রইছ আল রেজুয়ান, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিলকিস বেগম, চা শ্রমিক ছাত্রনেতা মোহন রবিদাস, স্কুল শিক্ষক গোয়ালা।

আলোচনা সভা শেষে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ২ জন শারিরীক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে দুইটি হুইল চেয়ার বিতরণ করেন অতিথিরা।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, প্রতিবন্ধী নাগরিকরা সমাজের বোঝা নয়। তারা যেন সমাজে অন্যসব নাগরিকের মতো সমান অধিকার ও মর্যাদা নিয়ে বসবাস করতে পারেন, সে বিষয়ে সচেতনতা তৈরি ও কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার জন্য প্রতিবছর আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত হয়। শারীরিকভাবে অসম্পূর্ণ মানুষদের প্রতি সহমর্মিতা ও সহযোগিতা প্রদর্শন ও তাদের কর্মকান্ডের প্রতি সম্মান জানানোর উদ্দেশ্যেই দিবসটির সুচনা হয়। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরাও জাতীয় উন্নয়নে অবদান রাখতে সক্ষম হবেন।


হিরো আলমের প্রার্থিতা বাতিল 

আপডেটেড ৩ ডিসেম্বর, ২০২৩ ১৭:৪৫
বগুড়া প্রতিনিধি

রাজনৈতিক দলের মনোনীত হয়েও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দাখিলসহ মনোনয়নপত্র যথাযথভাবে পূরণ না করায় আলোচিত কন্টেন্ট নির্মাতা আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলমের প্রার্থীতা বাতিল হয়েছে।

রোববার দুপুরে বগুড়ার জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম তার প্রার্থীতা বাতিল ঘোষণা করেন। এদিন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ র্নিবাচনে অংশ নিতে ইচ্ছুক বগুড়ার ১, ২, ৩ ও ৪ আসনের প্রার্থীদের মনোনয়ন যাচাই বাছাই হয়। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করার জন্য বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসন থেকে বাংলাদেশ কংগ্রেসের মনোনীত প্রার্থী হন হিরো আলম। যাচাইবাছাই কালে রিটার্নিং কর্মকর্তারা দেখতে পান হিরো আলম যথাযথভাবে মনোনয়নপত্র পূরণ করেননি। এ জন্য তার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়।

রিটার্নিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, “দলীয় প্রার্থী হয়েও হিরো আলম স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়নপত্র পূরণ করেন। রাজনৈতিক দলের স্থানে হিরো আলম লেখেছেন ‘প্রযোজ্য নহে’। দলীয় মনোনয়নে মূল কপি জমা দেননি। ফটোকপি দিয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হলে ভোটার তালিকার এক শতাংশ সমর্থনের তথ্য জমা দিতে হবে। উনি সেটিও করেননি। তার হলফনামার সঙ্গে সম্পদের আয়ব্যয় বিবরণী জমা দেননি।”

‘এ সময় হিরো আলম স্বাক্ষর করার সুযোগ চাইলে সভাকক্ষে উপস্থিত অন্য প্রার্থীরা আপত্তি জানান। হলফনামায় লেখার পর একজন সেখানে শনাক্ত করতে হবে। এরপর একজন ম্যাজিস্ট্রেট বা নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে সেটি ভ্যারিফাই করতে হয়। উনি সেটি অনুসরণ করেননি। এখন হলফনামায় স্বাক্ষর করা সম্ভব না। হিরো আলমের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। তবে উনি চাইলে আমার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন।’

মনোনয়ন বাতিল হওয়ার পর হিরো আলম বলেন, ‘উকিল ভুল করেছে। তবে উকিল ভুল করা মানে আমি ভুল করেছি। হিরো আলমের প্রার্থীতা বাতিল নতুন কিছু না।’

‘হলফনামায় স্বাক্ষর করিনি। তারা চাইলেই এখানে আমার স্বাক্ষর নিতে পারত। বাতিল করেছে করুক। ইনশাআল্লাহ হিরো আলম ভোটের মাঠে থাকবে। আমি আবারও আমার প্রার্থিতা ফিরেয়ে আনার চেষ্টা করব।’

উল্লেখ্য, বগুড়ার ৪ ও ৬ আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছিলেন হিরো আলম। কিন্তু সেখানেও যাচাইবাছাইকালে মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়। ওই বাতিলের কারণ ছিল হিরো আলমের ১ শতাংশ ভোটার তালিকায় গরমিল। পরে হাইকোর্ট থেকে প্রার্থিতার বৈধতা এনে নির্বাচন করেন। তবে দুটি আসনেই পরাজয় হয় হিরো আলমের।

বিষয়:

টাঙ্গাইলে মাদরাসা শিক্ষককে মারধরের অভিযোগ

দৈনিক বাংলা
আপডেটেড ১ জানুয়ারি, ১৯৭০ ০৬:০০
ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে নূরুল আলা নূর ইসলামী কিন্ডারগার্টেন মাদরাসার বিপ্লব নামে এক শিক্ষককে মারধরসহ লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে ফরহাদ হোসেন নামে এক ছাত্রীর অভিভাবকের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন ওই মাদরাসা শিক্ষক। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে অন্যান্য অভিভাবকরা।

জানা গেছে, গত ২৩ নভেম্বর সকালে ক্লাস চলাকালীন সময়ে এক ছাত্রী বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করায় শাসন করে। পরে সে তার বাবা ফরহাদকে বিষয়টি জানালে কিছুক্ষণ পরেই মাদরাসা ছুটি শেষে বাড়ি ফিরছিলেন বিপ্লব। পথিমধ্যে ওই ছাত্রীর বাবা ফরহাদ হোসেন তাকে রাস্তায় গতিরোধ করে গলা টিপে ধরে মারধর ও কিল-ঘুষি মেরে লাঞ্ছিত করে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষক বিপ্লব বলেন, ‘মাদরাসা প্রতিষ্ঠাকাল থেকে সুনামের সাথে শিক্ষকতা করে আসছি। গত সপ্তাসে ক্লাসে এক ছাত্রী ক্লাসের মধ্যেই বিভিন্ন সময়ে বিশৃঙ্খলা করে আসছিল। তার সহপাঠিরা অভিযোগ করায় আমি তাকে শাসন করি। পরে বিষয়টি তার বাবাকে বলায় আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গলা টিপে মারধর করে।’

তিনি আরও জানান, বিষয়টি প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও পরিচালক মহোদয়কে জানানো হলে তারা মিমাংসা করে দেয়ার আশ্বাস দেয়। যার কারণে থানায় অভিযোগ করেনি। কিন্তু সপ্তাহ পার হলেও কোনো সুষ্ঠু বিচার পাচ্ছি না। উল্টো ফরহাদ হোসেন হুমকি দিচ্ছেন। এমন অবস্থায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি এবং ফরহাদ হোসেনের কঠোর শাস্তি দাবি করছি।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর সকালে নূরুল আলা নূর ইসলামী কিন্ডারগার্টেন মাদরাসার প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ ইসরাফিলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। অভিযোগের বিষয়ে জানতে ফরহাদ হোসেনকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

এ ঘটনায় মাদরাসার পরিচালক প্রফেসর আশরাফকে একাধিবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ চেষ্টা করলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি। এ ব্যাপারে ভূঞাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আহসান উল্লাহ্ বলেন, কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিষয়:

banner close